Category Archives: সমাজ ও রাজনীতি

image_pdfimage_print

মুসলিম উম্মাহর সবচেয়ে বড় ব্যর্থতাটি প্রসঙ্গে

ফিরোজ মাহবুব কামাল চুড়ান্ত ব্যর্থতা ও সফলতার বিষয় আজকের মুসলিমদের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা এ নয়, শিল্প-কৃষি, ব্যবসা-বাণিজ্য ও সম্পদে পিছিয়ে আছে। বরং সবচেয়ে বড়টি ব্যর্থতা হলো, তারা ব্যর্থ হয়েছে ইসলামী রাষ্ট্র গড়তে। সভ্য ভাবে জীবনযাপন বনে জঙ্গলে সম্ভব নয়, সে জন্য আপদমুক্ত পরিবেশে নিরাপদ ঘর গড়তে হয়। তেমনি শত্রুকবলিত বিশ্বে নিরাপদ রাষ্ট্রও গড়তে হয়। ঘরবাড়ী […]

সেক্যুলারিস্টদের প্রতারণা ও নাশকতার রাজনীতি

ফিরোজ মাহবুব কামাল নাশকতা সভ্যতর সমাজ নির্মাণের বিরুদ্ধে  মুসলিমদের বিরুদ্ধে সেক্যুলারিস্টদের নাশকতাটি যেমন ভয়ংকর, তেমনি বহুমুখি। তাদের লক্ষ্য, মুসলিম জীবন থেকে তাদের মূল পরিচিতি তথা আইডেন্টিটির বিলুপ্তি। এবং দিতে চায় এমন এক নতুন পরিচিতি যাতে অসম্ভব হয় মুসলিম রূপে বাঁচা ও বেড়ে উঠা। অধিকাংশ দেশে তাদের সে প্রকল্প সফলও হয়েছে। তাতে মুসলিম জীবনে যেমন পরাজয় […]

সেক্যুলারিস্টদের এজেন্ডা ও ইসলামের এজেন্ডা

ফিরোজ মাহবুব কামাল সেক্যুলারিস্টদের এজেন্ডা               বাঙালী সেক্যুলারিস্টদের মাঝে ইসলাম-বিরোধী চরিত্রটি আজকের নয়, বরং এর শুরু দেশটির জন্মের বহু পূর্ব থেকেই। তাদের এজেন্ডাও গোপন বিষয় নয়। সেক্যুলারিস্টদের মূল এজেন্ডা বঙ্গীয় ভূমিতে ইসলামকে পরাজিত রাখা এবং বাঙালী মুসলিমদের ইসলামে অঙ্গিকারহীন করা। এ লক্ষ্যে তাদের ঘনিষ্ট কোয়ালিশনটি ভারতের ন্যায় ইসলামে শত্রুপক্ষের সাথে। […]

বাঙালী সেক্যুলারিস্টদের অপরাধনামা

ফিরোজ মাহবুব কামাল                                                                               যে মহাবিপদ সেক্যুলারিজমে মুসলিমদের সবচেয়ে বড় বিপদটি এ নয়, দলে দলে তারা হিন্দু, খৃষ্টান বা বৌদ্ধ হয়ে যাচ্ছে। বরং বিপদের মূল কারণ, মুসলিম দেশগুলিতে রেডিক্যাল সেক্যুলারিস্টদের বিজয়। সেক্যুলারিজমের জোয়ারে জনগণের চেতনা থেকে বিলুপ্ত হচ্ছে পরকালের স্মরণ। এবং প্রবলতর হচ্ছে পার্থিব বা ইহকালমুখি ভাবনা। সে সাথে গুরুত্ব হারিয়েছে পরকালের কল্যানচিন্তা। পার্থিব জীবন অতি […]

সংস্কৃতির গুরুত্ব এবং অপসংস্কৃতির বিপদ

ফিরোজ মাহবুব কামাল সংস্কৃতি দেয় সভ্যতার পরিমাপ জাতি কতটা সভ্য বা উন্নত সেটির পরিমাপে সংস্কৃতি একটি নির্ভূল মাপকাঠি। একটি জনগোষ্টির চিন্তা-চেতনা, রুচিবোধ, চালচলন বা জীবনবোধের সামগ্রিক পরিচয় মেলে সংস্কৃতিতে। পশু বা উদ্ভিদের জীবনে সময়ের তালে বাঁচার প্রক্রিয়ায় উন্নতি আসে না। কিন্তু মানুষ তার সমাজকে নিয়ে সামনে এগোয়, পূর্বের চেয়ে উন্নততর ও সভ্যতর হয়। হাজার বছর […]

বাঙালী মুসলিম জীবনে সেক্যুলারিজমের নাশকতা

ফিরোজ মাহবুব কামাল যুদ্ধটি ধর্মের বিরুদ্ধে সেক্যুলারারিজম বলতে আমারা কি বুঝি? সেক্যুলারিজমের নাশকতাটাই বা কোথায়? কি তার ভয়াবহতা? বাংলাদেশের ন্যায় একটি মুসলিম দেশের প্রেক্ষাপটে এসব প্রশ্ন অতি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, এর সাথে জড়িত শুধু বাংলাদেশের বর্তমান সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক দূরাবস্থাই নয়, বরং দেশটির কোটি কোটি নারী-পুরুষের ভবিষ্যৎ। জড়িত শুধু পার্থিব সাফল্যই নয়, অনন্ত আখেরাতের কল্যানও। […]

বিবিধ ভাবনা-৭

ফিরোজ মাহবুব কামাল ১. বাক-স্বাধীনতার অর্থ কাউকে ব্যঙ্গ করা বা গালি-গালাজের স্বাধীনতা নয়। সেটি হলে সমাজে সংঘাত ও অশান্তি অনিবার্য হয়ে উঠে। অন্যকে গালি-গালাজ করা যে কোন সভ্য সমাজে এবং যে কোন সভ্য বিচারেই অতি অসভ্য কাজ। অথচ সে অসভ্যতার প্রবল চর্চা হচ্ছে ফ্রান্সে। সে অসভ্যতাকে নোংরা আর্ট বা কার্টুনে পরিনত করা হয়েছে। এবং সেটি […]

বিবিধ ভাবনা-৬

ফিরোজ মাহবুব কামাল ১. মুসলিমদের বিরুদ্ধে ফ্রান্সের যুদ্ধ ফ্রান্স নিজেকে সেক্যুলাজিমের গুরু মনে করে। সেক্যুলারিস্টদের বড় ভন্ডামীটি হলো, তারা সেক্যুলাজিমের ব্যাখ্যা দেয় ধর্মনিরপেক্ষ রূপে। অথচ তাদের মূল চরিত্রটি হলো প্রচন্ড ইসলাম বৈরীতার। তাই যে শিক্ষক স্কুলে নবীজী (সা:)র উপর কার্টুন দেখিয়েছিল -তাকে ফ্রান্স সরকার দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক খেতাব দিয়ে সন্মানিত করেছে। অথচ এরূপ কার্টুন দেখানো […]

সোসাল ইঞ্জিনিয়ারিং ও সাংস্কৃতিক কনভার্শন

ফিরোজ মাহবুব কামাল  সভ্যতার সংঘাত ও সোসাল ইঞ্জিনিয়ারিং ইঞ্জিনিয়ারিং শব্দটি এতকাল ব্যবহৃত হয়েছে প্রকৌশল-বিজ্ঞান বুঝাতে। গৃহউন্নয়ন,কলকারখানা¸ রাস্তাঘাট, ব্রিজ, অস্ত্র, যন্ত্র, যানবাহন, কম্পিউটার, স্পেসসায়েন্স ইত্যাদীর উন্নয়নের ইঞ্জিনিয়ারিং বিদ্যার অবদান অপরিসীম। যান্ত্রিক সভ্যতার বিস্ময়কর উন্নয়নের মূলে বস্তুতঃ এই ইঞ্জিনিয়ারিং। এক্ষেত্রে অগ্রগতির ফলে বিগত একশত বছরে বিজ্ঞান যতটা সামনে এগিয়েছে তা মানব ইতিহাসের বিগত বহু হাজার বছরেও এগুয়নি। […]

বিবিধ ভাবনা-৫

ফিরোজ মাহবুব কামাল ১. মানব ইতিহাসে সবচেয়ে বর্বর শাসন হলো ফ্যাসিবাদী স্বৈরাচার। ফ্যাসিবাদ হলো অতি দুর্বৃত্তদের স্বৈরাচার। তখন দেশের পুলিশ, প্রশাসনের কর্মচারি, আদালতের বিচারক এবং সমগ্র রাষ্ট্রীয় অবকাঠামো দুর্বৃত্তদের চাকর-বাকরে পরিণত হয়। তখন অসম্ভব হয় আইনের শাসন। সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন তখন হত্যাযোগ্য অপরাধ রূপে গণ্য হয়। যাদেরকেই সরকার নিজেদের শত্রু মনে করে তাদেরকেই নির্মূল করে। […]