Absence of an Islamic State & the Calamities in the Muslim World

Living without a strategy

No faith sustains with its conceptual originality, vision and mission in absence of its core institutions. In such deprivation, not only the faith but also those who are adherents to the faith face an existential threat. Communism ceased to survive as a significant ideology after the collapse of the Soviet Union. The collapse of Asoka’s rule brought an end to Buddhism in India.  After the collapse of khilafa, the Muslims are facing the same consequences. Undoubtedly, Muslims need mosques, madrasas and political organizations. But the most important institution that helps practicing full Islam and protects Muslims is an Islamic civilizational state; and not any national, tribal, secular and monarchical state. The Muslims have already 57 parochial states with their own agenda and did little to save the persecuted Muslims. They proved utterly useless to promote the Islamic cause. Because of them, the Qur’anic prescription like sharia and hudud stay only in the Book, and the sufferings of the Muslims in Palestine, Kashmir, Myanmar, China, India, Russia, and many other parts of the world go unabated. The mushrooming of mosques, madrasas, and religious organizations in millions could help only to live with the rituals at the personal level but not to promote Islam’s core mission in the world stage.

The case of Indian Muslims presents enough evidence to understand the problems that are very common with the absence of an Islamic state. More than 200 million Indian Muslims are known for a huge number of magnificent mosques, madrasas, and religious outfits. But such institutions couldn’t save Muslims from lynching in public, mass rapes, arsons, and genocide. Mosques have turned to monuments; some are razed to the ground in front of the police. Muslims are being tortured and slaughtered even by the police –as seen recently in the streets of Delhi in February 2020. 

Such worst insecurity of the Indian Muslims owes to a single fact. They are increasing only in number, mosques, and seminaries, but living without any Islamic vision and strategy. Living with an Islamic vision and strategy is impossible without an Islamic state. On the contrary, they live in a state that stands against their existence. In the whole history of Islam, 200 million Muslims never lived on the mercy of the infidels. As a result, 200 million Indian Muslims stand as a lost force. Muslims never enjoyed any security in the land of idolaters; even the prophet of Islam (peace be upon him) couldn’t get that either. Hence he had to migrate to Medina with a strategic vision. Establishing an Islamic state was his prime objective. Such prophetic tradition stands as the lesson for all Muslims of all ages. So, migration to a safe haven and establishing an Islamic state work as the survival strategy of every Muslim. But such prophetic strategy got little importance in the life of the Indian Muslims. They continue to live as sitting ducks in RSS infested killing fields in Gujrat, Maharashtra and Madhya Pradesh and do not bother to look for safer areas. Whereas in India, there are provinces like West Bengal and Kerala where anti-Muslim riot didn’t take place in the last 40 years. In a democracy, number counts; it gives weapons to fight with votes. Hence how a Muslim can think of restricting their population growth? It is indeed a strategic madness that still works among the Indian Muslims. Their demography needs to be transformed into a political force. If they had framed proper strategies, 200 million Indian Muslims could emerge as a powerful force in South Asia. No angel comes to help Muslims unless they start helping themselves.

 

Islamic State: the most important legacy

Teachings of Prophet Muhammad (peace be upon him) survives with a huge number of legacies. Of all, the most important legacy is the establishment of an Islamic state. Because of that, the Muslims could practice sharia, hudud, Muslim unity, and jihad and could dominate world politics as a World Power for centuries. As a result, Muslims could live in various parts of Asia, Africa, and Europe with security and dignity. Whereas the Jews had a different fate. They had to roam as vagabonds and live in dilapidated ghettoes in various cities. The Jews earned such punishment by their cowardice betrayal of Allah SWT command. While asked to form an Islamic state, they flatly denied fighting with Prophet Musa (peace be upon him). Rather they were so arrogant to ask Musa (peace be upon him) to go with his Allah (SWT) to win the land for them. As a result, they didn’t have a chance to practice sharia that was given to Prophet Musa (peace be upon him) in Torah. Awfully, the Muslims now follow the same Jewish path. Hence, there exists no Islamic state. Nor does practice sharia in the judiciary. Moreover, like the Jews, they are ready to fight for such a state.  

To have an Islamic state, like the early Muslims, one needs to go beyond the regular rituals like 5-time prayer, fasting, haj, and charity. It needs a huge strategic investment in the form of men, money, and efforts. And they need to stay united in all circumstances. The establishment of an Islamic state indeed gives an accurate estimate of Muslims’ submission to the vision of Allah SWT. It filters out the hypocrites. The Islamic State has its own huge blessings; even a rudimentary early Islamic state with fewer Muslims than that live in a single province of India could emerge as a World Power. They could defeat two old World Powers like the Roman and the Persian Empires. The similar investment of the Afghan Muslims could also adorn them with a prestigious place in modern history. They could defeat two modern World Powers –Soviet Russia and the USA. Whereas the 200 million strong Indian Muslims are known for subjugation under the Hindus. Cattles are born to be slaughtered; the same fate awaits for those who live without a strategic vision and the prophetic roadmap.

In fact, Prophet Mohammed (peace be upon him) proved his political genius on the day one of his migration to Medina. Instead of laying the foundation of his own house, he laid the foundation of the Islamic state. And he positioned himself as the head of the state. Unfortunately, the Indian Muslim ulama took little heed from such great political strategy of Prophet Mohammed (peace be upon him). On the contrary, the Indian Muslim ulama exhibited totally a different strategy. In the last days of British rule, they thought that if they are given the liberty in running mosques and madrasas and practicing Islamic rituals like five-time prayer, fasting, haj, and charity would be enough for the Indian Muslims. The Hindu leaders accepted their demand. As a result, the Muslim ulama -with the few exceptions sided with the Indian National Congress and endorsed its soft Hindutva project of the independent Hindu majority India. The despised the Pakistan project of the Muslim League. They would have been very happy if 400 million Muslims of Bangladesh and Pakistan were added to the Indian prison for the Muslims. They don’t realize that the increase in prison population doesn’t increase prisoners’ power and security. Now the same ulama, with rare exception, promote the movement of Tablig Jamaat –the Indian model Islam that was never found in Prophet’s (peace be upon him) life and in the life of his companions. They focus on wellbeing in the hereafter at the cost of security and wellbeing in this world. The concept of an Islamic state, running judiciary as per sharia and hudud, jihad in the way of Allah and many other basic practices of Prophet Mohammad (peace be upon him) hardly find any mention in their lectures and literature. It looks like a ploy to de-empower the Indian Muslims politically and intellectually. Moreover, it generates a damaging sense of self-satisfaction among the followers that something is being done for the ummah. The known enemies of Islam have no problem with them –which is unknown in Prophet (peace be upon him)’s life and in the life of the early Muslims.

 

Muslims without Islam

The absence of an Islamic State has already inflicted the most damaging impact on Muslim lives. It has made it impossible to discharge the obligatory Islamic duty that has been assigned by the Almighty Lord on every man and woman. As a result,  Muslims are forced to live without full Islam. Whereas Allah SWT commands, “Udkhulil silma  ka’ffa”. It means, “Enter into Islam with the entirety of submission in every aspect of life.”  But how that could be done if the basics of Islam like sharia, hudud, khilafa, Muslim unity, jihad in the way of Allah SWT and other Islamic obligations stay outside the domain of religious practices? Moreover, such Qur’anic dictates can’t be practiced inside homes, mosques, and classrooms. It needs a larger socio-political and administrative premises that can only be provided by an Islam state. A secularist, nationalist or autocratic state can never fit into that Divine project. This is why the establishment of an Islamic state stands so crucial in Islam and for a Muslim. Therefore, obstructing the establishment of an Islamic state is not a simple criminal offense; rather it amounts to launching a war against Almighty Allah SWT and against the whole Muslim ummah.

In the Holy Qur’an, “Lahu mulkus samawate wal ardh” is one of the most reiterated proclamations of Allah SWT. It means, “Kingdom of the heaven and the earth belongs only to Him”. In Sura Nas –the last sura of the Holy Qur’an, Allah SWT describes Himself as “Ma’likun Nas” (the King of the whole mankind). The sovereignty of a king survives only through the supremacy of his laws. Otherwise, it turns mockery and anarchy overwhelms. Hence no king permits any violation of the law. Those who stand against the rule of the law face severe punishment. Let us examine the issue by giving some examples. The UAE government declared 15-year imprisonment for criticizing its policy and supporting the ruler of Qatar. The Saudi government sentenced 1000 lashes and 10-year jail for Raif Badawi – a pro-democracy blogger, for his non-compliant expression. (The Economist, July 1st-7th 2017). Therefore, to protect their illegitimate rule, these cruel autocrats go to any length to forge laws to terrorize and kill people. With few exceptions, the whole Muslim World is indeed hostage to such state-occupying terrorists who have usurped the law-giving sovereignty of Allah SWT to establish their own sovereignty.

Now the question arises, what should be the punishment for those who break sharia and hudud –the Qur’anic law of the All-Powerful King of the universe? Is it not an overt rebellion against the All-Powerful King of the universe? Moreover, what should be the punishment for those who make a coalition with the kuffar forces to block the emergence of an Islamic state in any part of the Muslim World? Sharia is very explicit on these issues. Sharia draws a clear red line that must not be crossed any time by anyone. Standing against sharia and allying with the kuffar against the Muslims are indeed the violation of the Qur’anic red line.  In the past, those who disobeyed the rule of Allah SWT met severe consequences. The Holy Qur’an repeatedly tells the awful stories of A’d, Samud, the inhabitants of Madayen, the people of Noah (peace be upon him), the tribe of Lot (peace be upon him) and many others who faced total distraction for crossing the red line. Allah SWT is ever ready to execute the same punishment for those who take the same route –if not here, surely in the hereafter.

 

The rule of the rebels

In the history of Islam, crossing the red line is not new. How sharia punished the violators are not new either. After the death of Prophet Muhammad (peace be upon him), many so-called Muslims started to transgress the red line of sharia. Many of them denied even to pay the obligatory zakat. Some people claimed even false prophet-hood. So, anarchy returned to Muslim life. It was indeed a critical crisis in the Muslim history. Caliph Abu Bakr (RA) declared full-fledged jihad against all those rebels. He could quickly annihilate these inner enemies; as a result, the discipline returned to the Ummah. Failure to suppress the rebellion would have severe consequences; Islam that was practiced by Prophet Muhammad (peace be upon him) would have found its place only in history books.

Now the same transgression of the red line is taking place everywhere and every day in the Muslim World. The rebels have become rulers. As a result, Prophet (peace be upon him)’s Islam with the Islamic state, sharia, hudud, rule by shura, unity of the Ummah, jihad in the way of Allah (SWT) has almost ceased to exist any part of the Muslim World. The deviated Muslims have invented their own brand. There exists no Caliph Abu Bakr (RA) to stem such deviations and take the Muslims back to the original Islam. As a consequence, the old jahiliyyah (ignorance) has robustly resurfaced in almost every part of the Muslim World -but with a new face and a new name. In such void of true Islam, the evil ideologies like nationalism, tribalism fascism, secularism, capitalism, materialism, socialism, communism, and many others have occupied the intellectual premise of the Muslims. So, they get a huge number of followers.

Despite deep differences among these deviants, they show a unified agenda against Islam. The common agenda of the enemies is none else but to block the establishment of an Islamic state in any part of the world. Donald Trump has already declared, he will bomb such a state to rubbles. Most Muslim rulers are ready to congratulate such bombings. Since no resistance exists against these criminals, they usurped the whole state power and its infrastructure to enforce their evil agenda. Hence, along with the ideological and military occupation by the enemies – both native and alien, all forms of sins like adultery, thievery, robbery, riba, gambling, obscenity, and other crimes are spreading like a wildfire.19/04/2020 

 

 

 

 




বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস ও ভোটডাকাতদের নাশকতা

দ্বি-মুখি হামলার মুখে জনগণ

ভয়ানক দ্বি-মুখি হামলার শিকার এখন বাংলাদেশের জনগণ। এক দিকে প্রাণনাশী করোনা ভাইরাসের মহামারি। অপরদিক ঘাড়ের উপর খাড়িয়ে ভোট-ডাকাতদের বিশাল ঘাতকদল। লাশ পড়ছে যেমন করোনা ভাইরাসে, তেমনি শত শত লাশ পড়ছে সরকারি দলের গুন্ডা, পুলিশ ও RAB এর খুনিদের হাতে। ফলে ভয়াবহ বিপদের মুখে এখন বাংলাদেশের জনগণ। এরূপ মহামারির মোকাবেলার সামর্থ্য আম জনগণের থাকে না। এটি এক বিশাল যুদ্ধ। এ যুদ্ধ এতই ভয়ংকর যে শিরকমুক্ত হয়ে নিহত হলে ইসলামে রয়েছে শহীদের মর্যাদা।এ যুদ্ধের মোকাবেলায় মার্কিন যুক্তরা্ষ্ট্রের ন্যায় বিশ্বশক্তিও হিমশিম খাচ্ছে। হিমশিম খাচ্ছে গ্রেট ব্রিটেন, ফান্স, রাশিয়া, ইটালী, স্পেন। প্রশ্ন হলো, এ মুহুর্তে বাংলাদেশ কি করবে? বাংলাদেশীদের জন্য মহাবিপদ এজন্য যে, দেশে দায়িত্বশীল কোন সরকার্ নেই। আছে এক ভোটডাকাত সরকার। ডাকাতদের কাজ তো ডাকাতি করা, তাদের কাছ থেকে কি জনকল্যাণ আশা করা যায়? 

সভ্য ও বিবেকবান মানুষের প্রধান গুণটি হলো, কিসে মানুষের কল্যাণ তা নিয়েই গভীর চিন্তা-ভাবনা করা এবং সে ভাবনা নিয়ে ত্বরিৎ ময়দানে নেমে পড়া। দেশ সভ্যতর ও সমৃদ্ধ হয় এমন বিবেকবান মানুষের কারণেই। কিন্তু চোর-ডাকাত ও ভোটডাকাতদের ন্যায় অপরাধীদের থেকে কি সেরূপ কিছু আশা করা যায়? যে অপরাধীদের কাজ চুরি-ডাকাতি, ভোটডাকাতি ও গুম-খুনের রাজনীতি, তাদের মানসিক বিকলাঙ্গতাটি বিশাল। তাদের থাকে না জনগণের কল্যাণ নিয়ে কিছু ভাবা ও কিছু করার সামর্থ্য। ক্যান্সারে পেট আক্রান্ত  হলে খাদ্যে রুচি থাকে না। তেমনি নীতি-নৈতিকতা মারা পড়লে, রুচি থাকে না সভ্য কাজে। ফলে জনগণের স্বাস্থ্য খাত, শিক্ষাখাত বা অন্য কোন জনকল্যাণ নিয়ে ভাবার রুচি চোর-ডাকাত ও ভোটডাকাতদের থাকে না। সভ্য কর্ম বাদ দিয়ে তারা বরং আবিস্কার করে দুর্বৃত্তির নতুন কৌশল। ২০১৮ সালে তেমনই এক অসভ্য আবিস্কার হলো নির্বাচন-পূর্ব রাতে ভোটডাকাতির কৌশল। ইতিহাসের বুকে বাংলাদেশ কোন সভ্য আবিস্কারে স্থান না পেলেও অবশ্যই বেঁচে থাকবে ভোটডাকাতির এ অসভ্য আবিস্কার নিয়ে। বিপদের আরো কারণ, বাংলাদেশ সে অসভ্যদের হাতেই আজ অধিকৃত। তাদের রাজনীতির মূল লক্ষ্য, যে কোন মূল্যে নিজেদের বাঁচানো, জনগণকে বাঁচানো নয়। সেটি বুঝা যায় তাদের রাজনীতির লক্ষ্য ও বিনিয়োগ দেখে।  

বাংলাদেশের ভোটডাকাতগণ কথা বলে ফেরেশতার ন্যায়। অথচ তাদের আসল চরিত্র কখনোই গোপন থাকার নয়। সেটি জানা যায়, কীভাবে তারা ক্ষমতায় এলো তা থেকে। জানা যায়, বাজেটের বিভিন্ন খাতে অর্থ বরাদ্দের দিকে নজর দিলে। রাজস্বের অর্থ জনগণের। ফলে জনগণের কল্যাণ নিয়ে যারা ভাবে, রাজস্বের অর্থ তারা ব্যয় করে জনগণের কল্যাণে। কোন নেতা বা নেত্রীর মৃত পিতা বা মাতার স্মৃতিকে বড় করতে নয়। জন-কল্যাণের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাতটি হলো স্বাস্থ্য খাত। ফলে যারা জনগণের কল্যাণ নিয়ে ভাবে তারা জাতীয় বাজেটে সবচেয়ে বেশী বরাদ্দ রাখে স্বাস্থ্য খাতে। কারণ, এ খাতটি হলো জনগণকে মৃত্যু থেকে বাঁচানোর খাত। ফলে অন্য কোন খাত এর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে না। অধিকাংশ মানুষই নানা পেশায় নেমে নিজ পরিবারের ভরন-পোষনের দায়ভার নিজে পারে। কিন্তু নানা রোগ-ভোগে চিকিৎসায় খরচ বহনের সামর্থ্য সবার থাকে না। থাকে না প্রয়োজনীয় অর্থ। এ কাজটি তাই সরকারের। সরকার সে দায়ভার না নিলে গরীবদের বিনা চিকিৎসায় মারা যেতে হয়। তাই দেশের সরকার কতটা সভ্য, বিবেকমান ও দায়ত্বশীল  সেটি জানতে গবেষণার প্রয়োজন পড়ে না, বুঝা যায় জাতীয় বাজেটের স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ দেখে।

 

অবহেলিত স্বাস্থ্যখাত

বাংলাদেশের বাজেটের জনকল্যাণমুখি চরিত্র কতটুকু সেটির বিচার করা যাক। গ্রেট ব্রিটেনের জনসংখ্যা ৬ কোটি ৭০ লাখ। এ দেশটির বাজেটে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ হলো ১৪০.৪ বিলিয়ন পাউন্ড। অপরদিকে বাংলাদেশের জনসংখ্য ১৭ কোটি যা গ্রেট ব্রিটেনের জনসংখ্যার আড়াই গুণ। বাংলাদেশে স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দের পরিমাণ ২৯,৪৬৪ কোটি টাকা অর্থাৎ ২৯৪ বিলিয়ন টাকা। বর্তমানে পাউন্ডের মূল্য ১০০ টাকারও কিছু বেশী। অতএব স্বাস্থ্যখাতের বরাদ্দকৃত ২৯৪ বিলিয়ন টাকার পরিমাণটি ৩ বিলিয়ন পাউন্ডেরও কিছু কম। ৬ কোটি ৭০ লাখ জনগণের জন্য ১৪০.৪ বিলিয়ন পাউন্ড এবং ১৭ কোটি মানুষের জন্য ৩ বিলিয়নেরও কম। বাংলাদেশে মাথাপিছু স্বাস্থ্য বাজেট মাত্র ১৭ পাউন্ডেরও কাছাকাছি। অথচ বিলেতে সেটি ২ হাজার ৯৫ পাউন্ড।

বিষয়টি অন্যভাবে দেখা যাক। বাংলাদেশে অর্থভান্ডার গ্রেট ব্রিটেনের সাথে তূলনীয় নয়। কিন্তু তূলনা করা যেতে দেশ দুটির স্বাস্থ্য খাতের প্রায়োরিটির। সেটি বুঝা যায়, জিডিপি (Gross Domestic Product) ও  সর্বমোট বাজেটের কতটা স্বাস্থ্য খাতে ব্যয় হয় -তা থেকে। বাজেট অর্থ বরাদ্দের পরিমান কম হতে পারে, কিন্তু তূলনামূলক বিচারে স্বাস্থ্য খাতের প্রায়োরিটি কখনোই কম পারে না। দেখা যাক,  জিডিপি’র কতটা ব্যয় হয় স্বাস্থ্য খাতে? গ্রেট ব্রিটেন তার জিডিপি’র ৭% খরচ করে স্বাস্থ্য খাতে।  বাংলাদেশ স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ দিয়েছে জিডিপি’র মাত্র ১.০২%।  ব্যয়ের এ অনুপাতটি প্রতিবেশী ভারত, শ্রীলংকা, নেপাল ও পাকিস্তান থেকেও কম। ভারত ব্যয় করে জিডিপি’র ১.১৬% ৴এবং শ্রীলংকা ব্যয় করে ১.৫০%। তবে দক্ষিণ এশিয়ার বুকে সবচেয়ে বেশী বরাদ্দ নেপালের এবং দ্বিতীয় স্থানে পাকিস্তান । ২০১৬ সালে স্বাস্থ্য খাতে নেপাল ব্যয় করেছিল জিডিপি’র ৬.৩% এবং পাকিস্তান ব্যয় করেছিল তার জিডিপি’র ২.৭৫%। বাংলাদেশ ও ভারতের তুলনায় পাকিস্তানের জিডিপি ব্যয় ছিল দ্বিগুণ। নেপালের ছিল ৫ গুণ।  

তুলনা করা যাক, প্রতিবেশী দেশগুলোর মাঝে সমুদয় বাজেটের কে কতটা স্বাস্থ্য খাতে ব্যয় করে -সেটি? বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য খাতে ব্যয়ের পরিমাণ সমুদয় বাৎসরিক বাজেটের মাত্র ৫.৬৩%। এ বরাদ্দটি প্রতিবেশী পাকিস্তানের তুলনায় অত্যন্ত কম। পাকিস্তানের সরকার  ২০১৯ সালের বাজেটে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ দিয়েছে মোট বাজেটের ১৭.৭% ভাগ। অথচ দেশের ভোটডাকাত সরকারের দাবী, বাংলাদেশের অবস্থা পাকিস্তানের চেয়ে অনেক ভাল। এদের অনেকে পাকিস্তানকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বলে। অপর দিকে সরকারের মন্ত্রীগণ বড়াই করে, বাংলাদেশ সিঙ্গাপুর হতে যাচ্ছে। অপরদিকে গ্রেট ব্রিটেন স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ দেয় মোট বাজেটের ২৪%। এমন বিশাল বরাদ্দের কারণেই ব্রিটিশ সরকার তার নাগরিকদের জন্য সরকারি হাসপাতালগুলোতে হার্ট অপারেশন, ট্রান্সপ্লান্ট অপরাশেন,ডায়ালাইসিসের ন্যায় সকল প্রকার চিকিৎসাই বিনা মূল্যে দেয়। অথচ বাংলাদেশে রোগীদেরও প্রাণ বাঁচানোর ঔষধ সরকার থেকে দেয়া হয় না। ডায়ালাইসিসের সামর্থ্য না থাকায় অধিকাংশ রোগীই বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছে বাংলাদেশে। ফলে বুঝতে কি বাঁকি থাকে, বাংলাদেশে জনগণের প্রাণ বাঁচানোর খাতটি কতটা অবহেলিত। তাতে ধরা পড়ে সরকারের দায়িত্বহীনতা। অথচ শত শত কোটি টাকা ব্যয় হয় মৃত মুজিবের নামে। শত কোটি টাকা ব্যয় করে মুর্তি গড়া হয়। হাজার হাজার কোটি টাকার চুরিডাকাতি হয়ে যাচ্ছে সরকারি তহবিল থেকে -যা দিয়ে শত শত হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা দেয়া যেত, কেনা যেত বহু হাজার ভেন্টিলেটর এবং দেয়া যেত কিডনি ডায়ালাইসাইসিস। বহু লক্ষ মানুষকে তখন বিনা মূল্যে প্রাণ বাঁচানোর চিকিৎসা দেয়া যেত।

বাংলাদেশে অভাব অর্থের নয়, বরং সেটি বিবেকের। ভোটডাকাতদের সেটি থাকারও কথা নয়। তাদের এজেন্ডা মানুষকে বাঁচানো নয়, বরং গুমখুন,ফাঁসিতে ঝুলিয়ে বা ক্রসফায়ারে দিয়ে মানুষ মারার। এ দুর্বৃত্তগণ বাজেটের বেশীর ভাগ অর্থ খরচ করে নিজেদের গদি বাঁচাতে। নিজের পকেট ভরতে এরা সরকারি প্রজেক্টের অর্থের করে চুরি-ডাকাতি। তাদের চুরি-ডাকাতির ফলে প্রতি মাইল রাস্তা বানাতে বাংলাদেশে খরচ হয় বিশ্বের যে কোন দেশের তুলনায় বেশী। জনগণের দেয়া রাজস্বের অর্থ ব্যয় হচ্ছে পুলিশ বাহিনী, প্রশাসন, বিচারক, RAB ও সেনাবাহিনীর ন্যায় যারা ভোটডাকাত সরকারের গদির পাহারাদার ও ভোটডাকাতির ডাকাত তাদের জৌলুস বৃদ্ধিতে। অপরদিকে বিনা চিকিৎসায় লাখ লাখ মানুষ মারা গেলেও তা নিয়ে সরকারেরর মাথা ব্যথা নেই। বরং প্রচার দেয়া হয়, সরকার প্রচুর সেবা দিচ্ছে। যত দোষ রোগ-জীবানু ও জনগণের। 

 

যে আযাব অনিবার্য দুর্বৃত্ত শাসনে

যে কোন যুদ্ধ যোদ্ধা লাগে। এবং লাগে যুদ্ধাস্ত্র এবং যোগ্য জেনারেল বা নেতৃত্ব। খালি হাতে কোন সৈনিককে রণাঙ্গণে পাঠানোটি গুরুতর অপরাধ। এতে স্রেফ প্রাণক্ষয় হয়। তেমনি এক গুরুতর অপরাধ হচ্ছে বাংলাদেশের ডাক্তার ও নার্সদের সাথে। করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে ডাক্তার ও নার্সদের যুদ্ধটি করতে হচ্ছে অনেকটা খালি হাতে। শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে বেসরকারি ডাক্তার ও নার্সদের নির্দেশ দেয়া হচ্ছে, পারসোনাল প্রটেকটিক ইকুইপমেন্ট তথা মাস্ক, গ্লাভস, এ্যাপ্রোন, চোখের কভার নিজ খরচে কিনতে। যেন যুদ্ধে যেতে হবে নিজে অস্ত্র কিনে! 

যে কোন যুদ্ধে সৈনিকদের স্বীকৃতি ও তাদের প্রতি সৌজন্যবোধ  যে কোন সভ্য সমাজেই কাম্য। নইলে যুদ্ধে সৈনিক জোটে না। কিন্তু বাংলাদেশের সরকারি মহলে সেটি নেই। পাকিস্তানে ডাক্তার-নার্সদের হাসপাতালের সামনে গার্ড অব অনার দেয়া হচ্ছে। সে চিত্র টিভিতেও বার বার দেখানো হচ্ছে। বিলেতে ডাক্তার-নার্সদের শুধু সরকার নয়, জনগণও দিনের একটি নির্দিষ্ট সময়ে ঘরের দরজায় দাঁড়িয়ে সমস্বরে সাবাশ দিচ্ছে। সে চিত্রও টিভিতে বার বার দেখানো হচ্ছে। হাসপাতালের ডাক্তার-নার্সদের সাবাশ দিতে তাদের কাছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান উপঢৌকন নিয়ে হাজির হচ্ছে্। অথচ বাংলাদেশে তাদেরকে তিরস্কার করা হচ্ছে। জরুরী সামগ্রী না জুগিয়ে হাসিনা হুমকি দিচ্ছে, সে নাকি বিদেশ থেকে ডাক্তার আনবে।  

বাংলাদেশের হাসপাতালগুলির অবস্থাও বেহাল। নাই জরুরী সামগ্রী। নাই কোভিড-১৯ রোগীদের জন্য পৃথক পৃথক কামরা। অধিকাংশ হাসপাতালে নাই ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট। এ মুহুর্তে অতি জরুরী হলো ভেন্টিলেটর যা কৃত্রিম ভাবে অতি অসুস্থ্য রোগীকে অক্সিজেন জোগায়। তাতে রোগী পায় রোগের সাথে লড়াইয়ের সামর্থ্য এবং পায় কিছু বাড়তি সময়। অনেক রোগী তাতে বেঁচে যায়। ভেন্টিলেটর না লাগালে রোগের সাথে লড়াইয়ের সামর্থ্য দ্রুত লোপ পায় এবং রোগী মারা যায়। ভেন্টিলেটর সংগ্রহে সরকারের উদ্যোগ কই? হাসপাতালে নাই পর্যাপ্ত সংখ্যক মাস্ক। নাই রোগীদের ভাইরাস সনাক্ত করার টেস্ট সামগ্রী। দেশ জুড়ে পুরা এক বেহাল অবস্থা।

অপরদিকে মন্ত্রীদের দাবী, শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী থাকতে বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস আসা অসম্ভব। এভাবে এক ভোটডাকাত দুর্বৃত্তকে তারা অলৌকিক ক্ষমতার অধিকারি দরবেশ বানিয়ে ফেলেছে। যেন বাংলাদেশে আসতে হলে ভাইরাসকে শেখ হাসিনার অনুমতি নিয়ে আসতে হবে। সুস্পষ্ট শিরক আর কাকে বলে? ভাবটা এমন, যে দেশে সাপ-শকুন, গরু-ছাগলকে ভগবান বলা হয়, সে দেশে হাসিনা কম কিসে? অথচ ভাইরাস শুধু আসে নাই, বহু লোক তাতে ইতিমধ্যে মারা গেছে। বাংলাদেশে যে কীরূপ বিবেকশূণ্য আহম্মকদের শাসন চলছে -সেটি কি এরপরও বুঝতে বাঁকি থাকে?     

দুর্বৃত্তদের ক্ষমতায় রাখার এটি হলো এক ভয়ংকর আযাব। আযাব তখন নানা বেশে মানুষকে ঘিরে ধরে। আযাবেরই এক রূপ, দেশ ছেয়ে যায় ভয়ানক দুর্বৃত্তদের দ্বারা।  মানব ইতিহাসের নৃশংস বর্বরতাগুলো কখন বাঘ-ভালুকের ন্যায় হিংস্র জানোয়ার হাতে হয়নি। বরং হয়েছে মানবরূপী এরূপ হিংস্র জন্তুদের হাতে। পবিত্র কোর’অআনে এদের শুধু পশু বলা হয়নি, তার চেয়েও নিকৃষ্ট জন্তু বলা হয়েছে। পবিত্র কোর’আনের ভাষায় সে বর্ণনাটি হলো, “উলা’য়িকা কা আল আন’য়াম, বালহুম আদাল” অর্থঃ এরাই হলো গবাদি পশুর ন্যায়, বরং তার চেয়েও নিকৃষ্ট।”

তাই ইসলামে সবচেয়ে বড় মাপের ইবাদতটি জঙ্গলের বাঘ-ভালুক নির্মূল নয়। ড্রেনের মশামারি নির্মূলও নয়। বরং সেটি হলো রাষ্ট্র থেকে দুর্বৃত্ত নির্মূলের জিহাদ। যারা প্রকৃত  মুসলিম তাদের মাঝে দুর্বৃত্ত নির্মূলের এ পবিত্র জিহাদটি নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাতের ন্যায় অতিশয় মজ্জাগত বলেই সুরা আল-ইমরানে মহান আল্লাহতায়ালা মুসলিমদের সমগ্র মানব জাতির মাঝে সর্বশ্রেষ্ঠ জাতি বলে অভিহিত করেছেন। কিন্তু বাংলাদেশে কোথায় সে মুসলিম? কোথা সে ইসলাম? এবং  কোথায় সে জিহাদ? ১৬/০৪/২০২০




বিবিধ প্রসঙ্গ ১২

 ১. নেতার আসনে দুর্বৃত্তকে বসানোর আযাব

গাড়ি গর্তে পড়ে এবং বহু নিরীহ মানুষের মৃত্যু ঘটে অযোগ্য চালকের কারণে। ফলে প্রতিটি দায়িত্বশীল সরকারের গুরু দায়িত্বটি হয় যাতে অযোগ্য ব্যক্তিদের হাতে ড্রাইভিং লাইসেন্স না যায় -সেটির ব্যবস্থা নেয়া। বিষয়টি অবিকল জাতির বেলায়ও। চাষাবাদ, শিল্প, পশুপালন, গৃহনির্মাণ বা ব্যবসাবাণিজ্যে ব্যর্থতার কারণে কোন জাতিই ধ্বংস হয় না। সে ব্যর্থ্যতায় দারিদ্র্য আসলেও ভয়াবহ আযাব আসে না। জাতির জীবনে আযাব আসে এবং ধ্বংস হয়, নেতার আসনে আল্লাহতায়ালার অবাধ্য কোন দুর্বৃত্তকে বসালে। ফিরাউনের ন্যায় দুর্বৃত্তকে যারা খোদা বানিয়েছিল এবং তার পক্ষে অস্ত্র ধরেছিল তারা মিশরবাসীকে কোন কল্যাণ দেয়নি। ফিরাউনের অপরাধের সাথে মিশরবাসীদের অপরাধ তখন একাকার হয়ে গিয়েছিল। তাদের সে অপরাধ মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে ভয়াবহ আযাবকে সেদিন অনিবার্য করে তুলেছিল।

গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায় জনগণের দায়ভারটি বিশাল। জনগণের ঈমান, যোগ্যতা ও বিবেকের পরীক্ষাটি হয় নেতা নির্বাচনের সামর্থ্যের মধ্য দিয়ে। গণতন্ত্র দেয় সুযোগ্য নেতা নির্বাচিত করে কল্যাণের পথে চলার সুযোগ। সে সাথে সুযোগ করে দেয় দুর্বৃত্ত নেতা নির্বাচন করে ভয়ানক আযাব ডেকে আনারও। ফলে গণতান্ত্রিক দেশে আযাবের সাথে শুধু দুর্বৃত্ত সরকারই দায়ী হয়না, দায়ী তারাও যারা সে দুর্বৃত্তদের নির্বাচিত করে। একটি জাতির জনগণ কতটা অযোগ্য ও বেঈমান সেটি যাচাইয়ের জন্য জরিপের প্রয়োজন পড়ে না, সেটি নির্ভূল ভাবে বুঝা যায় সেদেশের দুর্বৃত্ত শাসককে দেখে। প্রকৃত ঈমানদারদের স্বভাব হলো, দুর্বৃত্ত শাসককে তারা কখনোই মেনে নেয় না। গ্রামে বাঘ ঢুললে গ্রামবাসী যেমন একতাবদ্ধ হয়ে বাঘ হত্যা করে তেমন তারা কোন জালেম শাসক তাড়ায়। সে রকম লড়াই না থাকলে হলে বুঝতে হবে জনগণের মাঝে বিবেকবোধ, বিচারবোধ ও ঈমানের প্রচণ্ড ঘাটতি রয়ে গেছে। গরু-ছাগল বাঘ তাড়ায় না, বরং বাঘের হাতে নিহত হওয়াই তাদের রীতি। তেমনি একটি পশু সুলভ স্বভাব তাদের মাঝেও যাদের মাঝ বিবেকবোধ, বিচারবোধ ও ঈমান বলে কিছু নাই।

নির্বাচনের মাধ্যমে যাচায় হয় জনগণের বিবেকবোধ, বিচারবোধ ও ঈমানের। এখানে ভূল হলে জনগণের উপর আযাব অনিবার্য হয়। তখন লক্ষ লক্ষ মানুষকে সে আযাবে প্রাণ দিয়ে ভূলের দায় পরিশোধ করতে হয়। সে পরিণতি যে কতটা ভয়াবহ ও প্রাণনাশী হতে পারে তারই দুটি উজ্বল দৃষ্টান্ত হলো হিটলারের আমলের জার্মানী এবং মুজিব-হাসিনা আমলের বাংলাদেশ। হিটলারের ন্যায় এক ফ্যাসিস্ট দুর্বৃত্তকে নির্বাচিত করে জার্মান জাতি তাদের ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ বিপদটি ডেকে এনেছিল। তাতে জার্মান জনগণকে ভয়াবহ বিশ্বযুদ্ধের আযাবে পড়তে হয়েছে এবং তাতে মৃত্যু ঘটেছে বহু লক্ষ জার্মানীর। ধ্বংস হয়েছে বহু লক্ষ ঘরবাড়ী। তেমনি বাংলাদেশীগণ ভূগেছে ১৯৭০ সালে শেখ মুজিবের মত একজন ফ্যাসিস্ট দুর্বৃত্তকে নির্বাচিত করে। ফলে দেশবাসীর জীবনে এসেছে ভয়াবহ যুদ্ধ। এসেছে হাজার হাজার মানুষের জীবনে মৃত্যু। এসেছে আগ্রাসী হিন্দু ভারতের গোলামী। এসেছে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ। এসেছে বহু লক্ষ মানুষের জীবনে অনাহারের দুর্বিসহ যাতনা এবং মৃত্যু। গণতন্ত্রের কথা বলে মুজিব প্রতিষ্ঠা দিয়েছিল ফেরাউনী মডেলের এক দল-এক নেতার বাকশালী স্বৈরাচার। গণতন্ত্রকে পাঠিয়েছিল কবরস্থানে। কেড়ে নিয়েছিল কথা বলার স্বাধীনতা। বিদ্রোহী জনগণকে নিয়ন্ত্রনে আনতে দেশব্যাপী দাবড়িয়ে দিয়েছিল নৃশংস রক্ষিবাহিনী। তাতে নিহত হয়েছিল তিরিশ হাজারের বেশী মানুষ।

বাংলাদেশের মানুষ একই ভূল করেছে ২০০৮ সালে হাসিনার ন্যায় ভোট-ডাকাত স্বৈরাচারিকে নির্বাচিত করে। সে ভূলের কারণে জনগণ হারিয়েছে ভোটের অধিকার। গণতন্ত্র গেছে নির্বাসনে। এবং পেয়েছে চুরিডাকাতি, ভোট-ডাকাতি, গুম-খুন-ধর্ষণ এবং ফাঁসির রাজনীতি। জনগণের রাজস্বের অর্থ এবং প্রবাসীদের কষ্টার্জিত অর্থ ব্যয় হচ্ছে শেখ হাসিনার বিশাল ডাকাত দলের প্রতিপালনে।  

 

২. কে নেতা হওয়ার যোগ্য?

বাংলাদেশ একটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ। এমন একটি দেশে কে নেতা হওয়ার জন্য যোগ্য বা অযোগ্য –সে বিষয়ে বিচারের মানদন্ডটি যে কোন অমুসলিম দেশ থেকে ভিন্নতর। কারণ, মুসলিম দেশ এবং অমুসলিম দেশের আদর্শিক, সাংস্কৃতিক এবং রাজনৈতিক চরিত্র এবং লক্ষ্য যেমন এক নয়, তেমনি এক নয় উভয় দেশের নেতার উপর অর্পিত দায়ভারও। এমন একটি ভিন্নতার কারণেই ১৯৪৭ সালে বাঙালী মুসলিমগণ গান্ধি বা নেহেরুর ন্যায় হিন্দুকে নেতা রূপে গ্রহণ করেনি। তারা মুহম্মদ আলী জিন্নাহকে নেতা রূপে বরণ করেছিল এবং পাকিস্তান সৃষ্টি করেছিল। সে বাঙালী মুসলিমের সে আদর্শিক ও সাংস্কৃতিক ভিন্নতা আজও বিলুপ্ত হয়নি। এবং ভবিষ্যতেও সেটি বিলুপ্ত হওয়ার নয়। এমন একটি মুসলিম দেশের নেতাকে শুধু বাঙালী হলে চলে না, তাকে তার রাজনীতিতে দেশটির মুসলিম জনগণের বিশ্বাস ও আশা-আকাঙ্খারও প্রতিফলন ঘটাতে হয়। সে প্রতিফলনটি ঘটানোর কারণে মহম্মদ আলী জিন্নাহ সমগ্র দক্ষিণ এশিয়ার মুসলিমদের কাছে কায়েদে আজম হতে পেরেছিলেন।

এখানেই মুজিব-হাসিনার বাকশালী রাজনীতির বিশাল ব্যর্থতা। তাদের রাজনীতিতে যে বিষয়টি প্রতিফলিত হচ্ছে সেটি হলো চরম ক্ষমতালিপ্সা ও ভারতসেবী বাঁদী চরিত্র। কবরে পাঠানো হয়েছে বাঙালী মুসলিমের আশা-আকাঙ্খার কথা। জনগণের কাছে তারা এতটাই ঘৃণার পাত্র যে, ক্ষমতায় থাকতে মুজিবকে বিরোধীদলের রাজনীতিকে নিষিদ্ধ করতে হয়েছে। এবং চালু করতে হয়েছে একদলীয় বাকশালী প্রথা। সে সাথে নিষিদ্ধ করতে হয়েছে সকল বিরোধী দলীয় পত্র-পত্রিকা এবং রাজপথের মিটিং-মিছিল। হাসিনাকেও একই পথ ধরতে হয়েছে। তাকে বিরোধী দলীয় নেতাদের গুম, খুন ও ফাঁসিতে ঝুলাতে হয়েছে। এবং ভোটের বাক্সে ডাকাতি করতে হয়েছে।এমন দুর্বৃত্ত ডাকাতগণ কি কোন মুসলিম দেশের নেতা হতে পারে? সেটি ডাকাত সর্দারকে মসজিদের ইমাম বানানোর মত।

 

৩. আল্লাহর কাছে প্রিয় হওয়া ও পাপ থেকে বাঁচার তাড়না

মুসলিমকে শুধু নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাত, তাসবিহ-তাহলিল নিয়ে বাঁচলে চলে না, তাকে বাঁচতে হয়ে বিশেষ একটি রাজনৈতিক লক্ষ্যকে হৃদয়ে নিয়ে। একজন কাফের যেমন হৃদয়ে জাতীয়তাবাদ, ফ্যাসিবাদ, সমাজবাদ বা সেক্যুলারিজম নিয়ে বাঁচে, মুসলিম সেটি পারে না। তাঁকে শুধু নিজ-জীবনে মহান আল্লাহর দ্বীন তথা শরিয়তকে প্রতিষ্ঠা দিলে চলে না, সেটির প্রতিষ্ঠা দিতে হয় সমাজ ও রাষ্ট্রের বুকে। এটিই নবীজী (সাঃ)র সূন্নত।  হৃদয়ে সে তীব্র বাসনাটি থাকার জন্য সে একজন কাফের থেকে ভিন্নতর। নবীজী (সাঃ)র প্রতিটি সাহাবা বেঁচেছেন সে রাজনৈতীক লক্ষ্যের বাস্তবায়নে। অধিকাংশ সাহাবী সে লক্ষ্য শহীদ হয়ে গেছেন। মহান আল্লাহতায়ালার কাছে প্রিয় হওয়ার এটিই তো একমাত্র পথ। ফলে যারাই মহান নবীজী (সাঃ) এবং তাঁর সাহাবাদের অনুসারি তাদের হৃদয়ে থাকে মহান আল্লাহতায়ালার কাছে প্রিয় হওয়ার প্রচণ্ড তাড়না। সে তাড়নার  কারণেই আল্লাহর রাজ্যে তাঁরই দ্বীন তথা শরিয়ত প্রতিষ্ঠায় মুসলিম জনগণ নিজেদের সর্ব-সামর্থ্যের বিনিয়োগ ঘটায়।

অথচ হাসিনার ন্যায় বাকশালীদের কাছে বিষয়টি ভিন্ন। তাদের কাছে সে বিশুদ্ধ ইসলামী চেতনা নিয়ে বাঁচাটি  চিত্রিত হয় সন্ত্রাস রূপে। এবং তারা নিজেরা বাঁচে হৃদয়ে ব্রিটিশ কাফেরদের প্রবর্তিত কুফরি আইনের প্রতি আত্মসমর্পণ নিয়ে। বাঁচে ভারতের গো-পূজারীদের পদসেবা দিয়ে। মুজিব-হাসিনা তাই মুসলিমদের নেতা-নেত্রী হওয়ার যোগ্য বিবেচিত হয় কি করে? শরিয়তের বিলুপ্তি, ইসলামপন্থিদের হত্যা ও ফাঁসিতে ঝুলানোর মত যেসব অপরাধ ইসলামের শত্রুগণ যুগ যুগ ধরে করেছে, হাসিনা তো তাই করছে। মুজিবও সেটি করেছে। অথচ পাপ শুধু মুর্তিপূজা নয়, বরং ইসলামের শত্রুকে নেতা রূপে বরণ করাও। এ পাপে আযাব যে অনিবার্য -সে হুশ বা ক’জন বাংলাদেশীর?

 

৪. ইসলাম থেকে দূরে সরার পরিণাম

মুসলিমদের কাজ হয়েছে স্রোতে ভাসা। স্রোতের টানে তারা দূরে সরেছে  ইসলাম থেকে।তারা ভেসেছে সেক্যুলারিজম, জাতীয়তাবাদ ও সমাজবাদের স্রোতে। বাংলাদেশের মানুষ এখন আটকা পড়েছে ইতিহাসের বর্বরতম ফ্যাসিবাদের চরে। আজ থেকে শত বছর আগেও মুসলিমগণ ইসলাম থেকে এতটা দূরে ছিল না। তখন মুসলিম জাহানের বুকে ৫৭টি দেশের নামে দেয়াল ছিল না। ভাষা, বর্ণ, এলাকার নামে খুনোখুনি ছিল না। অবস্থা এখন এতটাই খারাপ হয়েছে যে, নানা ভাষা, নানা বর্ণ ও নানা এলাকার মানুষ কিভাবে একত্রে থাকতে হয় -সে দিক দিয়ে ভারতীয় কাফেরগণও মুসলিমদের থেকে শ্রেষ্ঠ গণ্য হচ্ছে।

অথচ সে স্রোতে ভাসা থেকে বাঁচতেই মহান আল্লাহতায়ালার নির্দেশঃ “ওয়া তাছিমু বি হাবলিল্লাহি জামিয়াঁও ওয়া লা তাফাররাকু” অর্থঃ এবং তোমরা সবাই শক্ত ভাবে ধরো আল্লাহর রশিকে এবং পরস্পরে বিভক্ত হয়ো না। আল্লাহতায়ালার সে পবিত্র রশিটি হলো পবিত্র কোর’আন –যা বান্দার সংযোগ গড়ে মহান আল্লাহতায়ালার সাথে। একমাত্র এ কোর’আনই মুসলিমদের বাঁচাতে পারে বিচ্ছিন্নতা থেকে বাঁচাতে।  অথচ সে কোর’আন না ধরে মুসলিমগণ ধরেছে জাতীয়তাবাদ, ফ্যাসিবাদ, সমাজবাদ, রাজতন্ত্র ও সেক্যুলারিজমের রশি। ফলে সরেছে কোর’আন থেকে এবং পরস্পরে বিভক্তও হয়েছে। এবং বিভক্তি শত্রুর হাতে পরাজয়, হত্যা, ধর্ষষ ও ধ্বংস আনবে সেটিই তো স্বাভাবিক। এ হলো আল্লাহর হুকুমের বিরুদ্ধে অবাধ্যতার পরিণাম।   

৫. গণমুখিতা নয়, চাই আল্লাহমুখিতা

কে কতটা জনগণের কাছে প্রিয় হলো তার ভিত্তিতে জান্নাত জুটবে না। বহু নবীও জনগণের কাছে প্রিয় হতে পারেননি। বরং অনেক নবী ও তাঁদের অনুসারিদের জনগণ নির্মম ভাবে হত্যা করেছে। প্রাণ বাঁচাতে তাদের অনেককে দেশ ছাড়তে হয়েছে। আখেরাতে কল্যাণ তো মহান আল্লাহর কাছে প্রিয় হওয়াতে। আর আল্লাহতায়ালার কাছে প্রিয় হওয়ার পথ তার প্রতিটি হুকুমের প্রতি সদা আনুগত্য।

কিন্তু মুসলিম জীবনে সে আনুগত্য কোথায়? আনুগত্যের প্রকাশটি ঘটে শুধু নামায-রোযায় নয়, বরং মহান আল্লাহতায়ালার আইন তথা শরিয়ত পালনের মধ্য দিয়ে। প্রশ্ন হলো, দেশের আদালতে শরিয়তের বদল ইংরেজ কাফেরদের রচিত আইনের কাছে আত্মসমর্পণ নিয়ে কি মহান আল্লাহতায়ালার কাছে প্রিয় হওয়া যায়?  প্রিয় হওয়া যায় কি তাদেরকে সমর্থণ দিলে যারা ইসলামের আত্মস্বীকৃত বিপক্ষ শক্তি এবং কোয়ালিশন গড়ে নরেন্দ্র মোদির ন্যায় কাফেরের সাথে?
 

৬. হীনতা ও কদর্যতা বাড়ে দুর্বৃত্তকে সন্মান দেয়ায়

গরু-ছাগল,সাপ-শকুনের পূজা দিলে সে ইতর জীবগুলি মর্যাদা বাড়ে না। সেগুলি গরু-ছাগল, সাপ-শকুনই থাকে যায। বরং মর্যাদা হারায় তারা যারা সে ইতর জীবকে পূজা দেয়। তেমনি মর্যাদা থাকেনা শেখ মুজিবের ন্যায় ভারতের সেবাদাস এক গণতন্ত্র হত্যাকারী বাকশালী স্বৈরাচারিকে মর্যাদা দিলে। ফিরাউনের ন্যায় এক দুর্বৃত্তকে সন্মান দেয়াতে মিশরবাসী শুধু তাওরাত, ইঞ্জিল ও কোর’আনে নয়, সমগ্র মানব ইতিহাসে কুলাঙ্গর রূপে চিত্রিত হয়ে আছে। বড় বড় পিরামিড গড়ে সে দুর্বৃত্তিকে ঢাকা যায়নি। মাথায় দুর্গন্ধময় মল-মুত্র নিয়ে হাঁটায় কারো মর্যাদা বাড়ে না। মল-মুত্রের স্থান তো আবর্জনার স্তুপে, মাথার উপরে নয়। তেমনি দেশে সর্বোচ্চ আসনে ভোটডাকাত এক দুর্বৃত্তকে বসিয়ে তাকে মাননীয় বলাতেও বিশ্বের দরবারে দেশবাসীর মর্যাদা বাড়ে না। ভোটডাকাত দুর্বৃত্তদের স্থান তো জেলে হওয়া উচিত, শাসকের আসনে নয়।

৭. নরেন্দ্র মোদির বন্ধু শেখ হাসিনা

প্রতিবেশীর ঘরে যখন খুন-ধর্ষণ হয় –সেটি তখন সে ঘরের আভ্যন্তরীণ বিষয় থাকে না। অন্যরাও তখন সে অসভ্য বর্বরতা রুখতে ছুটে আসে। সে অসভ্যতার প্রতিরোধে উদ্যোগী  না হওয়াটি আরেক অসভ্যতা। কিন্তু সে সনাতন সভ্য নীতি  শেখ হাসিনার উপর কাজ করে না। হাসিনার কথা, ভারত আমাদের বন্ধু প্রতিবেশী। প্রতিবেশীর ঘরে যা কিছু হোক সেটি তার অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। অতএব কিছু বলা যাবে না।  তার অনুগত   RAB প্রধান বলেছে, ভারতে যা কিছু হচ্ছে তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হলে তা কঠোর হাতে দমন করা হবে। যে বাংলাদেশে ভারতের রাজ্য, কেন্দ্রীয় সরকারেরর বিরুদ্ধে কিছু বলা যাবে না।

ভারতে মুসলিমদের উপর চলছে খুন, ধর্ষণ ও নির্যাতনের চরম বিভীষিকা। বিশ্ববাসী তা নিয়ে সরব। কিন্তু সে নির্মম অসভ্যতার বিরুদ্ধে হাসিনা মুখ খুলছে না। বরং হাসিনা সমর্থণ করছে অসভ্যতার নায়ক নরেন্দ্র মোদিকে। এক ডাকাত আরেক ডাকাতের নৃশংস দুর্বৃত্তিকে নিন্দা করেনা। এখানে সে নীতিই কাজ করছে। তাই বাংলাদেশ ভোট-ডাকাতি হলে বা শাপলা চত্ত্বরে গণহত্যা হলে মোদির মুখে যেমন হাসিনার নিন্দা নেই, তেমনি মোদি সরকারের উদ্যোগে ভারত ও কাশ্মিরে গণহ্ত্যা হলে বা গরুর গোশতো খাওয়ার কারণে রাস্তায় পিটিয়ে মুসলিমকে হত্যা করলেও হাসিনার মুখে কোন প্রতিবাদ নাই। দুর্বৃত্ত মনিব ঘরের মধ্যে কাউকে ধর্ষণ করলে বা হত্যা করলে ঘরের চাকর প্রতিবাদ করে না। বরং সাহায্য করে না। ভারতের প্রতি সেরূপ বাঁদী চরিত্র হলো হলো শেখ হাসিনার। 

 

৮.অসভ্য শাসন এবং বিচারে বৈষম্য

ভারতে মাত্র এক হিন্দু নারীর ধর্ষণে ৪ জনের ফাঁসি হলো। কিন্তু গুজরাতে ২০০২সালে যারা শত শত মুসলিম নারীকে ধর্ষণ করা হয়েছিল এবং হত্যা করা হয়েছিল তিন হাজারেরও বেশী মুসলিমকে। গুড়িয়ে দেয়া হয়েছিল বাবরী মসজিদ। সে অপরাধে কারো কি ফাঁসী হয়েছিল? মোদি সরকারের কাছে সেগুলি কোন অপরাধই নয়। এবং মোদি নিজেও সে অপরাধের সাথে জড়িত। ভারতের আদালতে মুসলিমগণ ন্যায় বিচার থেকে যে কতটা বঞ্চিত এ হলো তার নজির। এমন করোনা ভাইরাসের রোগীদের সাহায্যের যে ঘোষণা দেয়া হয়েছে তা থেকেও মুসলিমদের বঞ্চিত করা হচ্ছে। একটি দেশ অসভ্যদের শাসনে গেলে অবিচার কতটা প্রবল হয় –এ হলো তার নজির।

৯. ঈমানদার ও বেঈমানী: কীরূপে দেখা যায়?

ঈমানদারী ও বেঈমানী অদৃশ্য নয়। দুটি’ই খালি চোখে অতি সুস্পষ্ট ভাবে দেখা যায়। ঈমানদারী দেখা যায় অন্যায়কে ঘৃণা ও ন্যায়কে ভালবাসার সামর্থ্যে। দেখা যায় ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা ও অন্যায়ের নির্মূলের জিহাদে। দেখা যায় আল্লাহর নির্দেশ পালনে একাগ্রতার মাঝে। অপরদিকে বেঈমানী দৃশ্যমান হয় চুরি-ডাকাতি, ভোটডাকাতি, গুম-খুন, মিথ্যাচার ও স্বৈরাচারি নৃশংসতার মাঝে। দেখা যায় দেশী-বিদেশী কাফের শক্তির সাথে বন্ধুত্বের মাঝে। সে বেঈমানীটা আরো প্রবল ভাবে দেখা যায়, স্বৈরাচারি ভোটডাকাত শাসককে দেশের পিতা, দেশের বন্ধু, দেশের নেতা ও মাননীয় বলার মঝে।

কোর’আনের ইসলাম ও নবীজী (সা:)র আদর্শকে একমাত্র তাঁরাই ভালবাসে যাদের মধ্যে রয়েছে দুর্বৃত্তির নির্মূলে প্রবল আগ্রহ। আলো ও আঁধার একত্রে থাকে না; আলোর আগমনে আঁধার চলে যেতে বাধ্য। তেমনি কোন ব্যক্তির মাঝে নবীজী (সাঃ)র আদর্শ ও দুর্বৃত্তের আদর্শ একত্রে থাকে না। চরিত্রে দুর্বৃত্তি দেখে নিশ্চিত বলা যায় তার মধ্যে ইসলাম বলে কিছু নাই, নবীজী (সাঃ)র আদর্শেরও কিছু নাই। এমন ব্যক্তির নামায-রোযা, হজ্ব-উমরাহ, হাতে তাসবিহ, মাথায় টুপি বা হিজাব স্রেফ নিজের বেঈমানীটি লুকানোর স্বার্থে। যারা জালেম হওয়ার পথ বেছে ন্যায় তাদের জন্য অসম্ভব হয় ঈমানদার হওয়া। মহান আল্লাহতায়াল পবিত্র কোর’আনে বার বার বলেছেন, তিনি জালেমদের হিদায়েত দেন না। তাই ঈমানদার হতে হলে প্রথমে জুলুমের পথ ছাড়তে হয়। জালেম হওয়াটা কাফেরদের কাজ। তাই পবিত্র কোর’আনের ঘোষণাঃ “ওয়াল কাফিরুনা হুমুজ জালিমুন” অর্থঃ “এবং যারা কাফির তারাই জালিম” –(সুরা বাকারা, আয়াত ২৫৪) । ১৫/০৪/২০২০




বিবিধ প্রসঙ্গ ১০

১. মহাবিপদ শিরক নিয়ে মৃত্যুর

মৃত্যুর ন্যায় একটি গুরুতর বিষয দূরে থাক, আল্লাহতায়ালার অনুমতি ছাডা গাছের একটি মরা পাতাও পড়ে না। পবিত্র কোর’আনে বার বার এ কথাও বলা হয়েছে, আল্লাহতায়ালার অনুমতি  ছাড়া কোন বিপদ কাউকেই স্পর্শ করতে না। যেমন বলা হয়েছে সুরা তাগাবুনের ১১ নম্বর আয়াতে এবং সুরা হাদীদের ২২ নম্বর আয়াতে। মহান আল্লাহতায়ালার এ ঘোষণার উপর বিশ্বাস করার মধ্যেই ঈমানদারী। সামান্য অবিশ্বাস কাফেরে পরিণত করে। তবে মহামারি, ভূমিকম্প, সুনামী, টর্নেডোর ন্যায় নানা রূপ বিপদ কাফের জনপদে আসে তাদের শাস্তি দিতে –যেমন এসেছে আদ ও সামুদ জাতি, ফেরাউনের অনুসারি, মাদায়েনের অধিবাসী ও লুত (আঃ)’য়ের কওমের উপর। নূহ (আঃ)’য়ের সময় আযাব এসেছে এক মহাপ্লাবন রূপে।

তবে ঈমানদারেরর ক্ষেত্রে বিষয়টি ভিন্ন। বিপদ-আপদ, রোগ-ভোগ, এবং জান-মালের ক্ষয়-ক্ষতি তাদের জীবনের আসে। এরূপ বিপদে ফেলে ঈমানের পরীক্ষা নেয়াটাই মহান আল্লাহতায়ালার রীতি। সে বর্ণনাটি এসেছে সুরা বাকারার ২১৪ নম্বর আয়াতে। বলা হয়েছে, “তোমরা কি মনে করে নিয়েছো, পূর্ববর্তীদের উপর যেরূপ পরীক্ষা এসেছে সেরূপ কোন পরীক্ষা ছাড়াই তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করবে? অথচ তাদের উপর এসেছে এমন দুঃখ-কষ্ট ও ক্ষয়ক্ষতি যে তারা ভয়ে প্রকম্পিত হয়েছে। এমন কি রাসূল এবং তাঁর সাথে যারা ঈমান এনেছিল তারাও বলে উঠেছে, “আল্লাহর সাহায্য কখন আসবে? আল্লাহর সাহায্য অবশ্যই নিকটে।” প্রমোশন আসে পরীক্ষায় পাশের পর। এরূপ পরীক্ষায় পাশ করে যারা নিহত হয় মহান আল্লাহতায়ালা তাদেরেক শাহাদতের মর্যাদা দেন এবং পুরস্কৃত করেন জান্নাত দিয়ে। এবং যারা সে পরীক্ষায় ফেল করে তারা পায় জাহান্নাম।

করোনা ভাইরাস দেখিয়ে দিল মানুষ কত অসহায় মহান আল্লাহতায়ালার অতিক্ষুদ্র এক সৃষ্টির কাছে -যা খালি চোখে দেখা যায় না। কিন্তু তবুও অহংকারী মানুষ ভাইরাসের স্রষ্টা সর্বশক্তিমান মহান আল্লাহকে ভয় করতে রাজী নয়। তারা ভাইরাসের ভয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য ছেড়ে গৃহবন্দী হতে রাজী, কিন্তু রাজী নয় আল্লাহকে ভয় করতে এবং তাঁর উপর ঈমান আনতে। এবং এরূপ ভীতুরাই চন্দ্র-সূর্য, নদ-নদী, পাহাড়-পর্বত, গরুবাছুড়, সাপ এবং মুর্তিকে ভগবানের আসন বসিয়েছে। ভেবেছে এগুলির পুজার মধ্যেই মুক্তি। কোটি কোটি মানুষ এভাবে মুশরিকে পরিণত হয়েছে।  করোনার কারণে তেমনি বহু কোটি মানুষ মুশরিকে পরিণত হবে আল্লাহর বদলে ভাইরাসের ভয়ে। তাই এরূপ মহামারীতে হাজার হাজার মানুষের প্রাণনাশই শুধু হয়না, বরং ভয়ংকর মহামারীটি হয় ঈমান নাশের অঙ্গণে –যা অনন্ত অসীম কালের জন্য জাহান্নামে টানে।

 

২. লক্ষ হোক মানুষ রূপে বেড়ে উঠা

চোর-ডাকাতদের কাজ থানার পুলিশ ও আদালতের বিচারকদের হাতে রাখা। তখন থানার সামনে চুরি-ডাকাতি বা খুন-খারাবি হলেও পুলিশ বলে, তারা কিছুই দেখিনি বা শুনেনি। ডাকাতদের বিরুদ্ধে কেস কোর্টে উঠলেও তারা বেকসুর খালাস পায়। তবে কোন দেশেই চোর-ডাকাতদের শক্তি এতটা প্রবল নয় যে, তারা দেশের সমগ্র পুলিশ, প্রশাসন ও আদালতকে নিয়ন্ত্রণে নিবে। তবে বাংলাদেশে ভোটডাকাতদের অর্জনটি বিশাল। তারা পুরাপুরি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে দেশের পুলিশ, আদালত ও মিডিয়াকে। শুধু তাই নয়, ভোটডাকাতদের সবচেয়ে বড় অর্জনটি হলো, সাধারণ চোর-ডাকাতদের ন্যায় তাদেরকে ভোটডাকাতির কাজটি নিজ হাতে করতে হয় না। সেটি করে দেয় দেশের পুলিশ, প্রশাসন এবং দেশের নির্বাচনী কমিশন। বাংলাদেশে তেমনটিই হয়েছে গত নির্বাচনে।  ফলে সে নির্বচনে হাজার হাজার ভোটকেন্দ্রে ভোটডাকাতি হলেও সে অপরাধে কাউকে গ্রেফতার হতে হয়নি। কারো কোন শাস্তিও হয়নি।

এক্ষেত্রে জনগণের আচরণটি আরো বিস্ময়কর ও বিবেকহীন। সুবোধ ভদ্র লোক যতই দুর্বল, নিরক্ষর বা অর্থহীনই হোক না কেন – কোন চোর বা ডাকাতকে তারা কখনোই সম্মন করে না। মাননীয় বলে সম্বোধনও করেনা। বিশ্বের কোন দেশেই সেটি হয়না। আদিকাল থেকে প্রতিটি ভদ্রলোকের সেটিই রীতি। কিন্তু চুরি-ডাকাতিকে ঘৃণা করার সে নীতি মারা পড়েছে শুধু বাংলাদেশের পুলিশ বিভাগ, আদালত, প্রশাসন, মিডয়া জগত এবং রাজনীতির  অঙ্গণে নয়, জনগণের মাঝেও। মারা পড়েছে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও বুদ্ধিজীবী মহলেও। ফলে ডাকাত সর্দারনীকে ঘৃনা না করে তাকে মাননীয় বলাও সংস্কৃতিতে পরিণত হয়েছে। সমগ্র বিশ্বমাঝে বাঙালীদের এ এক নয়া রেকর্ড। বিশ্ববাসী ভাবছে এমন কাজ একমাত্র বাংলাদেশীদের পক্ষে্‌ই সম্ভব। কারণ, এ শতাব্দীর শুরুতে বিশ্বের তাবত রাষ্ট্রকে পিছনে ফেলে পর পর ৫ বার দুর্বৃত্তিতে প্রথম হয়ে তারা বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল।

তবে ভোটডাকাতিতে প্রথম হওয়ার বিষয়টি দুর্বৃত্তিতে ৫ বার প্রথম হয়ে চেয়েও জঘন্য। কারণ ভোটডাকাতিটি কোন সাধারণ দুর্বৃত্ত নয়। কিছু ঘুষখোর অফিসার বা চোরডাকাত থাকলে সেটি করা যায় না। বরং সেজন্য চাই দেশের প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রীবাহিনী, সেনাবাহিনী, পুলিশ বাহিনী, প্রশাসন, আদালত এবং মিডিয়ার সংঘবদ্ধ রাষ্ট্রীয় দুর্বৃত্তি। কোন গ্রামের সবাই চোর-ডাকাত হয় না। তেমনি বিশ্বের কোন দেশের সবগুলো প্রতিষ্ঠানই ডাকাতির সাথে জড়িত হয়না। এ ইতিহাস একমাত্র বাংলাদেশের। মানুষ রূপে বেড়ে উঠায় বাঙালীর ব্যর্থতা যে কতটা বিশাল -এ হলো তার নজির।

কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালীর মানুষ রূপে বেড়ে উঠার ব্যর্থতাটি হাড়ে হাড়ে বুঝেছিলেন। তাই বলেছিলেন, “হে বিধাতা! ৭ কোটি প্রাণীরে রেখেছো বাঙালী করে মানুষ করোনি।” তবে রবীন্দ্রনাথের ভ্রান্তি হলো, এ ব্যর্থতার জন্য তিনি বিধাতাকে দায়ী করেছেন। বাঙালীকে দায়ী করেননি। এখানেই রবীন্দ্রনাথের বিচারে ব্যর্থতা। ভাল মানুষ হওয়া বা দুর্বৃত্ত হওয়াটি আল্লাহতায়ালা মানুষকে তার নিজের এখতিয়ারে দিয়েছেন। নইলে রোজ হাশরের বিচার দিনে বিচার করবেন কি করে? বুঝতে হবে, বাংলাদেশের জনগণের সমস্যাটি রাস্তাঘাট, পশুপালন, মৎসপালন বা শিল্প নিয়ে নয়। বরং তাদের নিজেদের বেড়ে উঠা নিয়ে। তাই তাদের মনযোগী হ্ওয়া উচিত মানুষ রূপে বেড়ে উঠায়। কারণ  মহান আল্লাহতায়ালার কাছে রাস্তাঘাট, পশুপালন, মৎসপালন বা শিল্পে কতটা উন্নতি হলো সে হিসাব দিতে  হবে না। বরং হিসাব দিতে হবে মানুষ রূপে বেড়ে কাজটি কতটা হয়েছিল সেটির।

 

৩. জরুরী রাষ্ট্রের সংশোধন

 
চালক ভাল হলে বাসের সকল যাত্রী মাতাল হলেও গাড়ি গন্তব্যে পৌঁছে। সেটি সত্য রাষ্ট্র্রের ক্ষেত্রেও। রাষ্ট্রের চালক চোর-ডাকাত বা ভোটডাকাত হলে দেশের সকল মসজিদগুলি নামাযী দিয়ে ভরে উঠলেও তাতে দেশে শান্তি আসে না। বরং দেশ তখন দুর্বৃত্তিতে ভরে উঠে।এজন্যই নবীজী (সাঃ) খোদ রাষ্ট্রনায়কের আসনে বসেছিলেন। এবং তাঁর ইন্তেকালের পর শ্রেষ্ঠ সাহাবীগণ বসেছেন। কিন্তু নবীজী (সাঃ) ও সাহাবাদের সে সূন্নত বাংলাদেশে বেঁচে নেই। বরং যে চোর-ডাকাত ও ভোটডাকাতদের স্থান হওয়া উচিত কারাগারে তারা দখলে নিয়েছে দেশের প্রশাসন, রাজনীতি, আদালত, পুলিশ ও প্রশাসনকে।  জনগণের অপরাধ হলো, তারা রাষ্ট্রের চালকের আসন থেকে দুর্বৃত্তদের  না হটিয়ে স্রেফ মসজিদ মাদ্রাসা গড়ায় মনযোগ দিয়েছে।

 

৪.কামেল ইনসানের ভ্রান্ত ধারণা

মহান আল্লাহতায়ালা চান মানুষ তার যোগ্যতা ও সামর্থ্যে পূর্ণতা পাক। ইসলামে এরূপ পূর্ণ মানুষকে বলা হয় কামেল ইনসান। কিন্তু তা নিয়ে ভ্রান্তিও কম নয়। কামেল তাকে বলা হয় যার মনযোগটি স্রেফ নামায়,রোজা,হজ,যাকাত ও তাসবিহ পাঠে। যে স্রেফ ঘর থেকে মসজিদে যায় এবং মসজিদ থেকে ঘরে আসে। রাজনীতি, সমাজকর্ম এবং দেশ ও বিশ্ব নিয়ে চিন্তা-ভাবনাকে দুনিয়াবী বিষয় মনে করা হয়। অথচ এমনটি নবীজী (সাঃ)’র সূন্নতের বিরোধী। মানব মাত্রই এ পৃথিবী পৃষ্টে মহান আল্লাহতায়ালার খলিফা। তাই তাকে ভাবতে  হয় শুধু নিজেকে নিয়ে নয়, বরং মহান আল্লাহর অন্য সৃষ্টিকে নিয়েও। স্রেফ নিজেকে নিয়ে ভাবাটি পরম স্বার্থপরতা ও ধর্মহীনতাও। তাকে ভাবতে হয় নিজের প্রতিবেশী, পরিবেশ, সমাজ ও নিজ দেশবাসীর পাশাপাশী বিশ্ববাসীকে নিয়েও। ভাবনার পাশাপাশী তাকে সমাজ ও রাষ্ট্রের কল্যাণে লড়ায়েও নামতে হয়। প্রয়োজনে জান ও মালের কোরবানীও পেশ করতে হয়। তারই নমুনা যেমন মহান নবীজী (সাঃ), তেমনি তাঁর সাহাবাগণ।

৫.বেঈমানীর রূপ

শান্তি ও কল্যানের লক্ষ্যে মহান আল্লাহতায়ালা দিয়েছেন পরিপূর্ণ ইসলামী বিধান -যাতে রয়েছে ইসলামী রাষ্ট্র,শরিয়ত, হুদুদ এবং অন্যায় নির্মূলের জিহাদ। তাই বেঈমানী হলো, এ বিধান ছাড়াই শান্তি ও কল্যানের কথা ভাবা। তাই যারা শরিয়তি বিধান ছাড়াই শান্তি ও কল্যাণের কথা ভাবেন -তারা সে ভাবনার মধ্য দিয়ে অনাস্থার প্রকাশ ঘটায় মহান আল্লাহর বিধানের প্রতি। এটি হলো সুস্পষ্ট বেঈমানী।বাংলাদেশে এমন বেঈমানদের সংখ্যাটি বিশাল। এরা নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাত পালন করে বটে, তবে রাষ্ট্রের আদালতে শরিয়তের প্রতিষ্ঠার ঘোরতর বিরোধী। তারা শরিয়তকে প্রয়োজনীয় মনে করে না।    

অথচ মহান আল্লাহতায়ালা চান ঈমানদারগণ তাঁর দেয়া ইসলামী বিধানের পূর্ণ প্রতিষ্ঠা দিক এবং দূরে থাকুক কাফেরদের বিধান, রীতিনীতি ও সংস্কৃতি থেকে। প্রশ্ন হলো, মুসলিমগণ মহান আল্লাহতায়ালার দরবারে কি নিয়ে মুখ দেখাবে? কাফেরদের থেকে তাদের ভিন্নতাই বা কতটুকু? কাফেরদের ন্যায় তারাও কি আল্লাহতায়ালার শরিয়তি আইনের বদলে কুফরি আইনকে প্রতিষ্ঠা দেয়নি? অন্যায় নির্মূলের জিহাদ বাদ দিয়ে তারাই কি অন্যায়কে প্রতিষ্ঠা দেয়নি? আল্লাহর কাছে হিসাব দেয়ার আগে এ হিসাব কী তারা নিবে না?

 

৬. চোরডাকাত ও ভোটডাকাতদের কালো হাত ইতিহাসের উপর

ভোট-ডাকাতদের কালো হাত শুধু জনগণের ব্যালটের উপরই পড়েনি। হাত পড়েছে ইতিহাসের উপরও। এজেন্ডা এখানে সুস্পষ্ট। তাদের লক্ষ্য, চোর-ডাকাত, ভোটডাকাত, স্বৈরাচারি রূপে তাদের যে বিশাল কুখ্যাতি – ইতিহাসের পাতা থেকে সেটিকে বিলুপ্ত করা। লক্ষ এখানে যারা জ্ঞানী-গুনি ও দেশপ্রেমিক তাদের হটিয়ে চোর-ডাকাত, ভোটডাকাত ও স্বৈরাচারিদের জন্য ইতিহাসের পাতায় শূণ্য স্থান সৃষ্টি করা। মুজিব বর্ষের নামে হচ্ছে শত শত কোটির বিনিয়োগ। লক্ষ্য কী? মুজিবের মূল পরিচয়টি কি জনগণ জানে না? মুজিব ভোট-ডাকাত হাসিনা পিতা। পিতা বাকশালী স্বৈরাচারেরও। সে পিতা ভারতসেবী বাঁদী রাজনীতিরও। বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বপ্রথম গণতন্ত্র হত্যা হয় তারই হাতে। রাজনীতির অঙ্গণে ইসলামের পক্ষ নেয়াকে মুজিবই সর্বপ্রথম নিষিদ্ধ করে। তাছাড়া বাংলাদেশের বুকে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের পিতাও মুজিব।

হাসিনা চায় তার পিতার এসব কু-কর্মগুলিকে ঢাকতে। এজন্যই তার এ বিশাল বিনিয়োগ। এবং সেটি জনগণের রাজস্বের অর্থে। কোন সভ্যদেশেই মৃত মানুষের জন্য এতটাকা খরচ হয় না যা হচছে বাংলাদেশে মুজিবের নামে।অথচ দেশে করোনা ভাইরাস টেস্টের ব্যবস্থা নাই।অসভ্য ভোটডাকাতদের হাতে দেশ হাইজ্যাক হওয়ার এটাই বিপদ। হাজার হাজার টাকা খরচ করেও জনগণের স্মৃতি থেকে মুজিবের এ পরিচয় কি বিলুপ্ত করা যাবে? ১২/০৪/২০২০

 




The Deceptive Goal & the Earned Failures

 The genesis of failures

A journey without a destination takes nowhere. Similarly, survival for the sake of survival only kills time and adds little worth to survival. In fact, the worth of one’s survival is decided by the purpose of survival. A martyr thus makes a huge difference from a mercenary killer. It is indeed a tremendous loss of life if that greatest gift of Allah Subhana wa Ta’ala (SWT) is wasted only for the sake of survival. People make the most disastrous error not in earning the means of survival but in setting the right goal of survival. Even an excellent driving skill doesn’t help if it is in the wrong direction. Hence, even a Nobel Prize winner may make the same common error and spoil the whole purpose of life. This is why knowing the right philosophy of life is more important than acquiring skills in science and technology. The philosophy of life must help us to know not only the origin of life but also the purpose of life. In fact, most people will enter the hellfire for this fundamental error. However, there is a genuine reason to make such errors. There is a major gap in understanding that life never ends in death, rather it gets a new phase of endless life in the hereafter. For setting the correct goal of life and the right roadmap, one needs to know the whole terrain of the unending journey. Since most parts of life lie in the hereafter and stay out of humans’ understanding, no one can set a true goal. Neither can perceive about a roadmap to reach there. Even as an assembly of all Nobel Prize winners can’t do that either. The matter remains exclusively in the domain of the All-Knowing Allah SWT. Hence, it is revealed in the Holy Qur’an that guiding humans or setting the goal is no one’s job. It belongs only to Him: “Truly! Ours, it is to give guidance”. (Sura Lail, verse12).

So, mankind possess no option but to submit to Allah SWT for guidance. But the problem takes a disastrous turn when humans ignore their own ignorance. And, instead of Allah SWT’s guidance, they adhere to the deceptive goal of their own making. Such arrogance is indeed the mother of all awful failures of the humans. They fail to understand that they can never envisage the right goal and nor can they frame a roadmap of eternal success. In fact, all the forged religions and ideologies still survive as proof of their past failures. Since it is the most important issue for humans, the ultimate goal and the guidance to reach the goal were made clear by Allah SWT on the first day of humans’ habitation on earth. Moreover, thousands of prophets were sent to refresh the original message. It has also been reiterated that they can attain success in this life and in the hereafter only if they pursue the set goal and follow the recommended roadmap.

 

The goal and the betrayal

As regards to humans’ survival goal, Allah SWT provides the following guidance: “Tell (O Muhammad!), certainly my prayer, my sacrifices, my survival and my death all are for the sake of Allah.”–(Sura Al-An’am, verse 162). Here, Allah SWT prescribes the intended intention (niyah) of survival of a human. Hence, a believer not only makes a niyah for every good deed, but also for his every step in the worldly survival. Therefore, the life and death of a believer stay reserved only for the cause of Allah SWT. It is indeed the fundamental reason for a believer to be here on earth. Therefore, whenever it meets any infliction, a believer proclaims -as recorded by Allah SWT Himself in the Holy Qur’an, “innalillahi wa inna ilahi rajiun (certainly we are only for Allah and we return unto Him)”. Such insight of a true believer provides not only the direction of his or her survival but also the whole philosophical basis for it.

How to live for Allah SWT is indeed the most crucial and the most relevant question in everybody’s life. Living for Allah SWT means working for His agenda; the Holy Qur’an is very explicit on this issue. How to live for the cause of Allah SWT and attain success both here and in the hereafter is indeed the core subject of the Holy Qur’an. Moreover, Prophet Muhammad (peace be upon him) gave the field demonstration of the application of the Qur’anic guidance. Hence ignorance on these two key sources of knowledge is detrimental; it spoils the whole purpose of humans’ creation. It makes it impossible to live for the cause of Allah SWT. Such ignorance helps only the enemies to recruit people to promote their agenda. So, it is a great crime against the agenda of Allah SWT to hide those Qur’anic teachings from the public eyes. Awfully, this has been the most corrupted premise of human history. In the Holy Qur’an, Allah SWT severely condemned the religious scholars of the Bani Israel for hiding His message from the public eyes. For their own vested interest, they also corrupted the teachings of the previous prophets. As a result, the common people could be easily recruited by the evil forces as foot soldiers to promote their evil agenda. In this regard, the ulama of the Muslim World didn’t prove any better either. They built a huge deceptive world of fake religious practices to hide the right path –siratul mustaqeem. Because of them, the Qur’anic Islam survives only in the Holy Book and not in any of the Muslim lands.

The enemies of Islam is not ignorant of Islam’s source of strength. They do not find any problem with the rote recitation and memorization of the Qur’an. But they find existential threat from the dissemination of the Qur’anic knowledge. Therefore, dismantling the mosques and the madrasas is not the key strategy of the enemies. Rather they turn these core institutions non-functional or dysfunctional. This way, they create a social, cultural and political milieu for the Muslims to live without Islam. The outcome is obvious. The Prophet Muhammad (peace be upon him)’s Islam with its model of an Islamic state, sharia, hudud, shura, unity, khilafa, jihad no more exists even in predominantly Muslim majority countries.

 

The assigned role and the neglect

The survival for the cause of Allah SWT has a wider and deeper implication. Such an intention brings moral, political, social and spiritual revolution among the believers. Allah SWT raised the great human creation to work as His khalifa (viceroy) on earth. It is indeed the core reason for humans’ presence on this planet. But for such a Divine assignment, the humans need to equip themselves with the necessary intellectual, spiritual, behavioural, material and military capabilities. Hence needs the higher quality of educational and skill-developmental projects. Even an agent of a state or business needs some specific education and skills. But a Muslim’s role is the highest on earth. He or she has to work as the viceroy of All-Powerful and All-Wise Allah SWT. So, the role of a Muslim is highly important and huge. It amounts to bring an overwhelming revolution in the fields of theologies, ideologies, politics, judiciary, administration, culture, education and warfare. There exists no territorial limit to such a revolution. His or her quality and the role indeed decide the fate in the hereafter. The prize for sacrificing life, wealth and all abilities in such a mission is huge. It brings the never-ending pleasure in paradise; even the whole world full of gold can match its value.  Hence a true believer never stands idle in His cause.

In order to generate the needed competence, the first thing must be done first. Hence, seeking knowledge on Qur’anic revelations is made obligatory on every man and woman much earlier than the obligatory five-time prayer and month-long fasting. Such Qur’anic knowledge plays the most important role in consolidating the faith. It builds the mounting morality and personality of a believer. On the other hand, the lack of Quranic knowledge makes one not only unfit to play any role in the Divine mission but also easy prey for the devil. In fact, such people readily turn mercenary for the devil and qualify for the hellfire. Because of them, the European imperialists could recruit millions of mercenaries in their civil and military establishment to run their colonial exploitation in the Muslim World. For the same reason, ideologies like nationalism, fascism, tribalism, socialism, and capitalism could also run havoc; they got millions of foot soldiers to occupy the Muslim lands and de-Islamise the Muslims.

 

The evil takeover

Like a plant, corruption too needs a fertile seed. And the seed lies in humans. It is indeed the corruptive and deceptive objective of survival that takes over the intellectual premise of the humans. Then the people with the evil intention set breeding institutions to breed all forms of corruptive ideologies, faiths, cults, and religions to cause massive moral degradation of the people. Of all such institutions, the state and its institutions are the most powerful ones. These are the real barriers against any moral reconstruction and healthy societal change. So the prophet of Islam (peace be upon him) not only taught the right objective of humans’ survival but also dismantled all the corruptive social and state institutions. He formed an Islamic state with 100 percent compliance with sharia and sat on the driving seat himself. Because of his revolutionary role as the head of the state, the most corruptive institution on earth becomes the most corrective institution in the whole human history. Therefore, not only he could stop the breeding of devils, but also he could start the mass-scale production of people with the level of morality that the world never saw before. As a result, the foundation of the finest civilisation on earth in the whole human history could have a robust start. It is indeed the most valuable legacy of Islam that still remains the only solution for the current malice. 

As per the Qur’anic verse mentioned earlier, a Muslim not only lives for the cause of Almighty Allah SWT, is also expected to die for it. If he or she wants to please Allah SWT, there exists no second option. Otherwise, his survival wouldn’t add any real worth to it. Rather, his long life would earn more fuel for the fire for himself in hell. Hence, it is forbidden that any human should invest any part of his or her life, time, intellect, energy or assets in the service of any evil faith, deity, religion, ideology or political power. These are the amanah (entrusted endowment) on behalf of his or her Almighty Lord; hence can’t think of becoming a mercenary of imperialists, monarchists, despots or any enemies of Islam. Such acts are indeed the khiana (betrayal) of the amanah (trust). Such forbidden (haram) acts are indeed the ugliest crime in Islam. It is the greatest betrayal of the whole purpose of his or her being here on earth. Such a betrayal takes ones only into the hellfire –as repeatedly mentioned in the Holy Qur’an.

But, it is a great irony that despite all the Qur’anic warnings, the survival with an inimical agenda against Islam has been the culture of the ruling elites in the Muslim World today. Therefore, the evil coalition of the US-led imperialists could recruit a large army of mercenaries from the Muslims to occupy the Muslim lands. Because of these mercenaries, the invading enemies could easily occupy the Muslim lands. And they could also kill and evict millions of the Muslims and turn hundreds of cities to rubbles.

In a milieu of corruptive ideologies and political culture, some unbelievable things happen. Even the evil people with the inimical agenda against Islam and the Muslims become the leader. More astonishingly, even those who join the foreign kuffars to dismantle any attempt of establishing an Islamic state in any part of the Muslim World also get a label of a Muslim! It is also strange that the corrupt rulers who collaborate even with the established enemies of Islam claim to be the custodian of Islamic holy sites! The early Muslims didn’t face such a big problem of internal enemies; the contemporary Roman and the Persian Empires didn’t have the Trojan horses inside the Ummah. Neither did those enemies have their own cantonments inside the Muslim World -as they have today. In fact, most of the Muslim countries are now ruled by the embedded enemies who vehemently oppose any step to return back to the Prophet (peace be upon him)’s Islam! Moreover, their strong opposition to the Qur’anic prescription of sharia, hudud, shura, Muslim unity and jihad against enemy occupations is not hidden. Still, they sustain as the rulers of the Muslims! Because of these embedded enemies, the Vision of Allah SWT and His prescribed laws and the Qur’anic code of life stay badly defeated even in Islam’s heartlands. And space is seized by the laws, politics, judiciary, culture, and ideologies that are inimical to Islam. As a result, the decline of the Ummah continues. 11/04/2020

 




বিবিধ প্রসঙ্গ -১১

১. শরিয়তের প্রতিষ্ঠা ও হুজুরদের নিরবতা

বাংলাদেশে হুজুরগণ ঘন্টার পর ঘন্টা ওয়াজ করতে রাজী, কিন্তু শরিয়ত প্রতিষ্ঠার দাবী নিয়ে মুহুর্তের জন্যও রাস্তায় নামতে রাজী নন। কারণ, ওয়াজে অর্থ মেলে, খ্যাতিও বাড়ে। অপর দিকে শরিয়তের প্রতিষ্ঠার কাজে নামাতে রয়েছে জেল-জুলুমের ভয়। এতে দ্বন্দ সৃষ্টি হয় সরকারের সাথে। অথচ শরিয়ত নিয়ে বাঁচাটি প্রতিটি ঈমানদারের উপর ফরজ। শরিয়তের পালন না হলে পূর্ণ ইসলাম পালনই হয় না। তাই শরিয়তের প্রতিষ্ঠার দাবী নিয়ে রাস্তায় নামাটি জিহাদ। লক্ষণীয় বিষয় হলো, হুজুরগণ তাদের ওয়াজে নানা বিষয়ে দীর্ঘ আলোচনা করলেও দেশের আদালতে ব্রিটিশ কাফেরদের রচিত আইন মানা যে হারাম এবং শরিয়ত অনুযায়ী বিচার করা যে ফরজ সে বিষয়টিও তারা ওয়াজে তুলে ধরেন না।

কওমী মাদ্রাসার হুজুরদের কাছে নিজেদের স্বার্থ হাছিলের বিষয়টি যে কতটা  গুরুত্বপূর্ণ তা দেখা গেছে শেখ হাসিনার কাছ থেকে একখানি সার্টিফিকেট পাওয়ার পর। শেখ হাসিনা ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতা এসেছে তা বাংলাদেশের শিশুরাও বুঝে। তার নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে দেশ জুড়ে গুম, খুন, সন্ত্রাস, ব্যাংক লুট্ ও ফাঁসির রাজনীতি। মুর্তিতে মুর্তিতে বাংলাদেশকে বিন্দাবন বানানো হয়েছে। অথচ তা নিয়ে কওমী মাদ্রাসার হুজুরগণ নিরব। বরং এ ভোটডাকাতকে কওমী জননী খেতাবে ভূষিত করেছে। প্রশ্ন হলো, কোর’আন হাদিস থেকে কি তারা এটিই শিখেছেন?

পবিত্র কোর’আনে আল্লাহতায়ালা মুসলিমদের শ্রেষ্ঠ জাতি বলেছেন। সেটির কারণ এ নয় যে, তারা বেশী বেশী নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাত পালন করে। নামায-রোযা, হজ্ব-উমরাহ বহু ধোকাবাজ, ঘুষখোর, সূদখোর, ব্যাভিচারিকে পালন করতে দেখা যায়। বরং আল্লাহতায়ালার নিজের বর্ণনায় মুসলিমদের শ্রষ্ঠত্বের মূল কারণটি হলো, তারা ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা দেয় এবং অন্যায়ের নির্মূল করে। যেমনটি বলা হয়েছে সুরা আল ইমরানের ১১০ নম্বর আয়াতে। অথচ বাংলাদেশের কওমী হুজুরগণ অন্যায়কারীদের নির্মূলে না নেমে ভোটডাকাতের ন্যায় এক অন্যায়ের জননীকে ‘কওমী জননী’ খেতাব দিয়েছে! প্রশ্ন হলো এরূপ বিচার জ্ঞান নিয়ে তারা কোর’আন হাদীসের ব্যাখ্যা দেন কি করে? ইমামতিই বা করেন কি করে?


সুরা নাছে সর্বশক্তিমান মহান আল্লাহতায়ালা তাঁর নিজের পরিচয়টি দিয়েছেন “মালিকিন নাছ” তথা মানব জাতির রাজা রূপে। রাজার রাজত্ব চলে আইনের উপর। তাই প্রশ্ন হলো, আইনের প্রয়োগ ছাড়া রাজত্ব চলে কি করে? মহান আল্লাহতায়ালার সে আইন হলো শরিয়ত। অথচ ৫৭টি মুসলিম দেশের কোথাও শরিয়ত মানা হয় না। প্রশ্ন হলো, মহান আল্লাহতায়ালার এ শরিয়তি আইন নাযিল হয়েছে কি স্রেফ কোর’আনে লিপিবদ্ধ থাকার জন্য? নবীজী (সাঃ) ও তাঁর মহান সাহাবাগণ শরিয়তের প্রতিষ্ঠা করে দেখিয়ে গেছেন শরিয়তের প্রতিষ্ঠা কত জরুরী। নবীজীর (সাঃ)র জীবনে এটিই হলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সূন্নত যার কারণে মুসলিমগণ বিশ্বশক্তিতে পরিণত হয়েছিল। হুজুরগণ বহু সূন্নতের ওয়াজ করেন। অথচ নবীজী (সাঃ)র এ অতি গুরুত্বপূর্ণ সূন্নতটি নিয়ে তাদের মুখে কোন কথা নেই। বাংলাদেশের রাজনীতিতে ইসলামের নামেও অনেক দল। যারা নিজেদের সেসব ধর্মীয় দলের নেতাকর্মী রূপে জাহির করেন, তাদের মুখেও এ নিয়ে কোন কথা নেই।আইন অমান্য করাটি প্রতি রাজ্যেই কঠোর শাস্তি যোগ্য অপরাধ। প্রশ্ন হলো, শরিয়ত অমান্যের বিশ্বজুড়ে যে তান্ডব, তাতে কি আযাবই অনিবার্য করে না? আযাব যেমন ভূমিকম্প, সুনামী, ঘুর্ণিঝড় রূপে আসতে পারে, তেমনি আসতে পারে মহামারি রূপেও। প্রশ্ন হলো, আজকের করোনা ভাইরাসের মহামারী কি আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে রহমত বলা যাবে?


২. জ্ঞানার্জনের গুরুত্ব

কোর’আনে মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষণা, “ইন্নামা ইয়াখশাল্লাহা মিন ইবাদিহিল ওলামা” অর্থঃ ‘সৃষ্টিকূলের মাঝে শুধু জ্ঞানীরাই আল্লাহকে ভয় করে।’ এখানে জ্ঞান বলতে যা বুঝানো হয়েছে তা হলো কোর’আনের জ্ঞান। এর অর্থ দাঁড়ায়, যার মধ্যে কোর’আনের জ্ঞান নাই, তার মধ্যে আল্লাহর ভয়ও নাই। আল্লাহর ভ্য়ই ইবাদতের মাঝে প্রাণ সৃষ্টি করে। অপরদিকে জ্ঞানের অভাবে নামায়-রোযার ন্যায় ইবাদতও প্রাণহীন ও ভয়শূণ্য হয়। জ্ঞানী হওয়ার কাজটি তাই সবার উপর ফরজ। এটিই মুসলিম হওয়ার পথ। তাই নামায়-রোযা ফরজ করার বহু বছর আগে জ্ঞানার্জন ফরজ করা হয়েছে।

 ৩. নেতার যোগ্যতার বিষয় ও জনগণের দায়ভার

ইমামের কাজ সুষ্ঠ ভাবে নামায পড়ানো। তেমনি মুসলিম দেশে নেতার কাজ হলো, দেশকে ইসলামের নির্দেশিত পথে পরিচালনা করা। দায়িত্ব এখানে আল্লাহর আইনের প্রতিষ্ঠা। এটি এক গুরু দায়িত্ব। সে দায়িত্বের খেয়ানত হয় যদি রাষ্ট্বের ড্রাইভিং সিটে বসে দেশকে সেক্যুলারিজম, জাতীয়তাবাদ, সমাজবাদ বা অন্য কোন মতবাদের পথে চালানো করা হয়। প্রশ্ন হলো, যে নামাযই ঠিক মত পড়ে না তাকে কি কখনো ইমাম বানানো যায়? তেমনি যে ব্যক্তির রাজনীতিতে শরিয়ত প্রতিষ্ঠায় কোন অঙ্গীকার ও কোরবানী নাই -তাকে কি মুসলিম দেশের নেতা বানানো যায়? নেতা নির্বাচনে দেখতে হয় ইসলামের প্রতিষ্ঠা ও মুসলিমের বিজয় বাড়াতে তার অবদান কতটুকু। সে কাজে তাঁর যোগ্যতাই বা কতটুকু? যে ব্যক্তি কোনদিন ইসলামের পক্ষে রাস্তায় নামলো না এবং একটি কথাও বললো না -সে ব্যক্তি মুসলিমের নেতা হয় কি করে? জনগণের কাজ স্রেফ রাজস্ব দেয়া নয়। সে রাজস্বের মাধ্যমে কাকে প্রতিপালন করা হচ্ছে -সেদিকেও কড়া দৃষ্টি দেয়া। নইলে নিজেদের রাজস্বের অর্থে নিজেদেরই বিপদ ডেকে আনা হয়। বাংলাদেশে কি তাই হচ্ছে না?

ইমামতির চেয়েও বহুগুণ গুরুত্বপূর্ণ পদটি হলো মুসলিম দেশের প্রধানমন্ত্রী বা প্রেসিডেন্টের। ইমামের ভূলে রাষ্ট্র ধ্বংস হয় না, দেশবাসীও বিপদে পড়ে না। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী বা প্রেসিডেন্ট ইসলাম ও মুসলিম স্বার্থ্যের প্রতি অঙ্গীকারহীন হলে নাশকতা বাড়ে ইসলামের বিরুদ্ধে। তখন মহা সংকটে পড়ে দেশবাসী। এবং বিজয় ও উৎসব বাড়ে ইসলামের শত্রুশক্তির। বাংলাদেশের অঙ্গণে সেটিই ঘটেছে। হাসিনার ভারতসেবী রাজনীতিতে বিপদ বেড়েছে ইসলামের পক্ষের শক্তির এবং উৎসব বেড়েছে ভারতের।

 ৪. আগ্রাসন হিন্দু সংস্কৃতির


মুর্তি, মিনার বা ছবিকে ফুল দিয়ে সন্মান দেখানো নিরেট হিন্দু সংস্কৃতি। এটি মুর্তি পূজা। বাঙালী মুসলিম জীবনে এরূপ পৌত্তলিকতা পূর্বে কখনো ছিল না। সাহাবাগণ এমন কি নবীজী (সাঃ)র কবরে ফুলের মালা নিয়ে হাজির হননি। মুসলিম বাঙালীর জীবনে এ পৌত্তলিক আচারটি ঢুকিয়েছে সেক্যুলারিস্টগণ। এবং তারা একা নয়। রাজনৈতীক অঙ্গণে এরূপ পৌত্তলিকতায় উৎসাহ দিচ্ছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও বামপন্থিগণ। লক্ষ্য, মুসলিম বাংলার বুকে কালাচারাল জেনোসাইড। ভারত ভূক্তির জন্য এভাবেই ক্ষেত্র প্রস্তুত করা। বাংলাদেশ পৃথক মানচিত্র পেয়েছে তার জলবায়ু্ ও আলোবাতাসের জন্য নয়। বরং বাঙালী মুসলিমের ইসলামী বিশ্বাস ও মুসলিম সংস্কৃতির কারণে। বাঙালী মুসলিমের সে বিশেষ সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ঠটি তারা ধ্বংস করতে চায়। এ পৌত্তলিক প্রকল্পের শুরুটি ভাষা আন্দোলনের নামে। শুরু হয় ২১শে ফেব্রেয়ারিতে স্তম্ভের পদতলে ফুলের মালা দেয়া। এখন সে পৌত্তলিকতা শুধু ২১ শে ফেব্রেয়ারিতে সীমিত নয়। সীমিত নয় স্তম্ভের পদতলেও। এখন হচ্ছে প্রতি দিন। এবং ঘরে বাইরে সর্বত্র।

প্রশ্ন হলো, মুসলিম ইতিহাসে বিখ্যাত ব্যক্তির সংখ্যা কি কম? কিন্তু কাউকে কি এভাবে সন্মান দেখানো হয়? লক্ষ্য এখানে মুসলিমদের ইসলাম থেকে দূরে সরানো। লক্ষণীয় হলো, হুজুরগণ হিন্দু সংস্কৃতির এ আগ্রাসনের বিরুদ্ধে নিশ্চুপ। তারা ব্যস্ত নিজ নিজ ফেরকা ও দলের নামে নিজেদের ব্যবসা বাঁচা্নো নিয়ে। কারণ তারা জানে, এ পৌত্তলিকতার বিরুদ্ধে কিছু বললে সেক্যুলার মহলে তাদের ব্যবসায়ে ক্ষতি হবে। নিশ্চুপ সেসব তথাকথিত ইসলামী দলের নেতাকর্মীগণও যারা নিজেদের ইসলামের রক্ষক রূপে দাবী করে।

৫. ধর্মব্যবসায়ীদের থাবা


ধর্মব্যবসায়ীদের ৫টি প্রধান লক্ষণ: ১). এরা শরিয়ত প্রতিষ্ঠার কথা মুখে আনে না। প্রতিবাদ নাই, প্রচলিত কুফরি আইনের বিরুদ্ধেও। ২). ধর্মীয় ফিরকা, মাযহাব, ভাষা ও এলাকার নামে গড়ে উঠা বিভেদের দেয়াল ভাঙ্গার কথাও তারা বলে না। তাদের হৃদয়ে দুঃখ জাগে না মুসলিম উম্মাহর বিভক্তিতে। বরং বিরোধীদের বিরুদ্ধে গালীগালাজ করে বিভক্তিকে তারা আরো গভীরতর করে ৩). মুসলিম দেশগুলি শত্রুর হাতে অধিকৃত হলেও জিহাদের পক্ষে ওয়াজ করে না। ৪). দেশ স্বৈরাচারি জালেম শাসকদের হাতে অধিকৃত হলেও তাদের বিরুদ্ধে এরা নিশ্চুপ। ৫). কোর’আন বুঝাার পক্ষেও তারা বলে না। বরং জোর দেয় স্রেফ তেলাওয়াত করা এবং হিফজ করায়।

৬. ঈমানদারের যুদ্ধ

ঈমানদারকে শুধু নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাতের হুকুম মানলে চলে না। মানতে হয় যুদ্ধের হুকুমও। তাই সাহাবাদের জীবনে শুধু নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাত ছিল না, যুদ্ধও ছিল। পবিত্র তেমন একটি হুকুম হলো: “কি হলো তোমাদের যে যুদ্ধ করছো না আল্লাহর রাস্তায় এবং সে সব দুর্বল লোকদের মুক্ত করতে যাদের মধ্যে রয়েছে পুরুষ, মহিলা ও শিশু -যারা বলছে হে আমাদের রব, মুক্ত করুন জালেম অধিকৃত এ জনপদ থেকে; এবং আপনার পক্ষ থেকে আমাদের জন্য প্রেরণ করুন একজন অভিভাবক এবং আপনার পক্ষ থেকে পাঠান সাহায্যকারী।” -(সুরা নিসা, আয়াত ৭৫)। মজলুম মুসলিমদের পক্ষ থেকে এমন ফরিয়াদ বিশ্বের নানা জালেম অধিকৃত দেশ থেকেই আসছে। কিন্তু মুসলিমদের মাঝে তা নিয়ে আলোড়ন কই?

৭. সবচেয়ে বড় জনসেবা

মানব সেবার সবচেয়ে বড় খাতটি স্কুল-কলেজ ও মসজিদ-মাদ্রাসা গড়া নয় এবং মিসকিন খাওয়ানোও নয়। এ ধরণের কাজগুলি মুনাফিকও করতে পারে। বরং সেবার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাতটি হলো দেশকে দুর্বৃত্তদের দখল থেকে মুক্ত করা। তখন জনসেবার সে প্রয়োজনীয় কাজগুলি রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলি করে।

৮.আগ্রাসী ভারত ও বিপন্ন স্বাধীনতা

দক্ষিণ এশিয়ার মুসলিমগণ স্বাধীনতা নিয়ে বাঁচুক সেটি ভারতীয় হিন্দুগণ কোন কালেই চায়নি। তারা চায় অখন্ড ভারত। সে বিষয়টি কোন গোপন বিষয়ও নয়। নাগপুরে বিজিপির আদি সংগঠন আর.এস.এস’য়ের কেন্দ্রীয় অফিসে দক্ষিণ এশিয়ার যে মানচিত্রটি ঝুলানো রয়েছে সেখানে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান নামে কোন দেশই নাই। (সূত্র: আল জাজিরা ইংলিশ)। তাই ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সৃষ্টি হোক সেটি যেমন চায়নি, দেশটি বেঁচে থাকুক সেটিও চায়নি। কাশ্মিরী মুসলিমদের স্বাধীনতা হরণের সে লক্ষ্য নিয়েই ৭ লাখ ভারতীয় সৈন্য যুদ্ধ করছে কাশ্মিরে। এটি শুধু বিজিপি’র লক্ষ্য নয়, কংগ্রেসসহ সকল ভারতীয় সংগঠনেরই।

১৯৭১’য়ে ভারতীয়দের যুদ্ধের মূল লক্ষ্য ছিল,সর্ববৃহৎ মুসলিম রাষ্ট্র পাকিস্তান ভাঙ্গা ও পূর্ব পাকিস্তান দখলে নিয়ে এক বাঁদি রাষ্ট্র জন্ম দেয়া। তাই একাত্তরের যুদ্ধে মুজিবকে রণাঙ্গণে থাকতে হয়নি। তাকে স্বাধীনতার ঘোষণাও দিতে হয়নি। মুক্তি বাহিনীকে কষ্ট করে একটি জেলা বা মহকুমাও স্বাধীন করতে হয়নি। তারা ছিল সাইড শো রূপে। বাংলাদেশের জনগণ স্বাধীনতা নিয়ে বেঁচে থাকুক সেটি ভারত যেমন একাত্তরে চায়নি, আজও চায় না। তারা চায় বাংলাদেশে একটি নতজানু সরকার। এমন একটি সরকার ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতায় আসলেও ভারত তাতে খুশি।

৯. প্রকৃত বুদ্ধিমত্তা

জীবনটি ঘন অন্ধকারে এমন এক ব্রিজ পাড়ি দেয়ার ন্যায় যাতে রয়েছে অসংখ্য বড় বড় ছিদ্র। কার পা কখোন কোন ছিদ্রে পড়বে তা কেউ জানে না। যার পা পড়বে সে আর ফিরে আসবে না, সরাসরি মৃত্যুর কোলে গিয়ে পড়বে। দেরিতে হলেও কারোই এ ছিদ্রে পড়া থেকে রক্ষা নাই। সে ছিদ্রগুলো যেমন করোনা ভাইরাসের হতে পারে, তেমনি হতে পারে হার্ট স্ট্রোক, ব্রেন স্ট্রোক, নেউমোনিয়া, ক্যান্সারের ন্যায় মারাত্মক ব্যাধির। হতে পারে ভূমিকম্প, সুনামী, টর্নেডোর। প্রকৃত বুদ্ধিমত্তা তো এটাই, সব সময় সে ছিদ্রে পড়ার জন্য মানসিক প্রস্তুতি নেয়া। ভয়টি এখানে মৃত্যুর নয়, বরং সেটি হতে হবে মহান আল্লাহর কাছে জবাবদেহীতার। মহান আল্লাহতায়ালার খলিফা রূপে যথাযথ দায়িত্ব পালনই সেদিনের সে মহা বিপদ থেকে রক্ষা দিতে পারে। মহান আল্লাহতায়ালার কাছে হিসাব দেয়ার আগেই তাই নিজের হিসাব নিজেই নেয়া উচিত।

১০.শ্রেষ্ঠ নেক কর্ম

জ্ঞানদান, অর্থদান, সেবাদান ও চিকিৎসাদান –এসবই উত্তম নেক আমল। এরূপ নেক আমলগুলির সামর্থ্য অর্জনও নেক আমল। তবে সবচেয়ে সেরা নেক আমলটি হলো ইসলামী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা। তখন রাষ্ট্রের প্রতিটি প্রতিষ্ঠান ও প্রতিটি কর্মী পরিনত হয় নেক আমলের হাতিয়ারে। তখন প্রতিষ্ঠা পায় শরিয়ত। এতে রাষ্ট্র পরিণত হয় একটি কল্যাণধর্মী রাষ্ট্র। নবীজী (সাঃ) মদিনায় হিজরতর পর এমন একটি রাষ্ট্রেরই প্রতিষ্ঠা দিয়েছেন। মানব জীবনের গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত হলো এমন একটি রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠায়  জান, মাল ও বুদ্ধিবৃত্তির বিনিয়োগ। নইলে রাষ্ট্র অধিকৃত হয় শয়তানী শক্তির হাতে। যেমনটি হয়েছে বাংলাদেশ। তখন গুম, খুন, ধর্ষণ, চুরি-ডাকাতি রাষ্ট্রীয় সংস্কৃতিতে পরিণত হয়।

১১.ভারতের বলদ বিজ্ঞানী
মুসলিমগণ আর কতকাল শত্রুর দলে যোগ দিয়ে মুসলিম মারতে থাকবে? এটি যে হারাম সে বোধই বা ক’জনের? যোগ্যতা থাকলে সেটি ব্যয় হওয়া উচিত ইসলাম ও মুসলিমের বিজয় বাড়াতে, শত্রুর শক্তি বাড়াতে নয়। তেমনি এক বলদ বিজ্ঞানীর নাম আবদুল কালাম। সে ভারতকে দিয়েছে মিজাইল প্রযুক্তি যার টারগেট হলো পাকিস্তান ও বাংলাদেশ। এটি কোন ফিলিস্তিনীর পক্ষ থেকে ইসরাইলী সেনাবাহিনীর জন্য মিজাইল তৈরী করে দেয়ার মত।

অথচ মুসলিমদের বিরুদ্ধে  ভারতীয় হিন্দুদের ঘৃনা এতটাই তীব্র যে, খবর বেড়িয়েছে ঘরে পানির কল বিকল হলে হিন্দু মিস্ত্রি সেটি সেরে দিতে রাজী হচ্ছে না। মুসলিম হওয়ার কারণে হাসপাতাল ভর্তি করছে না প্রসূতি মা’কে। সম্প্রতি তেমন একটি ঘটনা ঘটেছে রাজস্থানে। ভর্তি না করায় নবজাতক শিশুর জন্ম ও মৃত্যু হয়েছে এ্যামবুলেন্সের মাঝে। খবরটি ছেপেছে গত ৫ই এপ্রিল কলকাতার দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা। সম্প্রতি দিল্লিতে শত শত মুসলিমকে হত্যা করা হলো এবং তাদের ঘর-বাড়ী পুড়িয়ে দেয়া হলো পুলিশের চোখের সামনে। অপর দিকে বিজিপি সরকার প্রকল্প নিয়েছে ভারতের নাগরিক তালিকা থেকে পরিকল্পিত ভাবে মুসলিমদের বাদ দেয়ার। ৮/৪.২০২০




আমার সাম্প্রতিক ফেসবুক এবং টুইটার পোস্ট-১

১.

চোর-ডাকাতেরা কথা বলে ফেরেশতাদের মত, সেটি বুঝা যায় শেখ মুজিবের অসমাপ্ত আত্মজীবনী পড়লে ও শেখ হাসিনার ব্ক্তৃতা শুনলে। অথচ এরাই দেশে চুরি-ডাকাতি, ভোট-ডাকাতি, গুম,খুন, সন্ত্রাস ও ফাঁসির রাজনীতির জনক। মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে এরাই গণতন্ত্রকে কবরে পাঠিয়েছে। এবং সত্য কথা বলাকে শাস্তিযোগ্য অপরাধে পরিণত করেছে।

২.
A newly born baby had to die in an ambulance in the Indian state of Rajasthan for his parent’s Muslim identity. The pregnant mother was taken to a government hospital but was denied admission as she is Muslim. The baby was born inside the ambulance and later on, died. –(Source: Daily Anandabazar, 5.4.2020).

3.
ঈমানদারের লক্ষণ: তারা জান-মাল দিয়ে জিহাদ করে ও শরিয়তের প্রতিষ্ঠা দেয়।

ধর্ম ব্যবসায়ীদের লক্ষণ: এরা অর্থ দেয় না বরং অর্থ নেয়।এদের জীবনে শরিয়তের লক্ষে জিহাদ থাকে না, থাকে নিজ মত ও দলকে বড় করার লড়াই।

৪.
মুসলিমদের সংখ্যা ১৬০ কোটি। ১৬০কোটি গরু দুধ দিলে সাগর হয়ে যায়। ১৬০ কোটি গাছ ফল দিলে পাহাড় হয়ে যায়। অথচ ১৬০ কোটি মুসলিম কি দিচ্ছে? অথচ মুসলিমদের সংখ্যা যখন ১ কোটিও ছিল না তখন তারা বিশ্ববাসীকে সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতা ও শিক্ষা দিয়েছ।

৫.
বুদ্ধিবৃত্তির লড়াই’য়ে জরুরী হলো কোনটি সত্য এবং কোনটি মিথ্যা সেটিকে জনগণের সামনে সুস্পষ্ট ভাবে তুলে ধরা। সে সাথে জনগণের চেতনায় বাড়াতে হয় মিথ্যার মাঝে সত্যকে চেনার ক্ষমতা। এবং জনগণকে অন্যায় ও মিথ্যার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মুজাহিদ রূপে খাড়া করা। পবিত্র কোর’আন এবং নবীজী (সা:)র সূন্নত তো সেটিই শেখায়।
৬.
জিহাদে শুধু অস্ত্রই জরুরী নয়, অতি জরুরী হলো বুদ্ধিবৃত্তিক লড়াই। নইলে রণাঙ্গণে বিজয় জুটেনা। বুদ্ধিবৃত্তিক লড়াইয়ের মূল লক্ষ্যটি হলো জনগণকে ইসলামের শত্রুপক্ষের হাতিয়ার হওয়া থেকে বাঁচানো।

৭.
কোর’আনের আরেক নাম নূর তথা আলো। তাই যে কোর’আন বুঝলো তার জীবনে কখনোই অন্ধকার থাকে না। ফলে সে ব্যক্তি ধর্ম-ব্যবসায়ী ও ক্ষমতালোভী দুর্বৃত্ত রাজনীতিবিদদের ধোকায় পড়ে না। মনের অন্ধকার নিয়ে সঠিক পথ চেনা অসম্ভব। তাই কোর’আন চায় মনের অন্ধকার দূর করতে।

৮.
কোর’আনের আরেক নাম হিকমাহ। তাই দেয় গভীর প্রজ্ঞা। ফলে যে কোর’আন বুঝলো সে কখনোই বেওকুপের ন্যায় আচরন করে না। এবং রাজনীতির ময়দানে কোর’আনের জ্ঞানশূণ্য বেওকুপদের অনুসারীও হয় না।

৯.
কোর’আনের অন্য নাম হুদা -যা নানা ভ্রান্তপথের মাঝে সঠিক পথটি দেখায়। তাই যে কোর’আন বুঝে না -সে ব্যর্থ হয় জীবনের চলার পথে সঠিক পথটি খুঁজে পেতে।এরূপ পথহারাদের সারা জীবনের পথচলাটি  হয় জাহাননামের পথে। এরূপ পথভ্রষ্টরাই সেক্যুলারিস্ট, ন্যাশনালিস্ট, রেসিস্ট, স্বৈরাচারি রাজনীতির নেতাকর্মী হয়।

১০.
কোর’আনের আরেক নাম আয-যিকরা তথা স্মরণ। কোর’আনের পাঠ তাই স্মরণে আনে আল্লাহর মহিমা, করুণা ও তাঁর প্রতিটি মানবের দায়বদ্ধতার কথা। স্মরণে আনে রোজ-হাশরের বিচার দিন, জান্নাত ও জাহান্নামের কথা। তাই শ্রেষ্ঠ যিকর হলো অর্থ বুঝে কোর’আন তেলাওয়াত।

১১.
কোর’আনের আরেক নাম ফুরকান -যা সামর্থ্য দেয় কোনটি সত্য এবং কোনটি মিথ্যা এবং কোনটি ন্যায় এবং কোনটি অন্যায় সেটি বুঝার। তাই যে কোর’আন বুঝে না সে ব্যর্থ হয় সে সামর্থ্য অর্জনে। এরাই রাজনীতিতে দুর্বৃত্তদের পক্ষ নেয়।
১২.
কবিরা গুনাহ তথা সবচেয়ে বড় পাপ শুধু মানব হত্যা ও নারী ধর্ষণ নয়, বরং সত্য হত্যা ও মিথ্যার প্রচারও। এবং ভয়ানক পাপ হলো এ জীবনের বাঁচার এজেন্ডা থেকে ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা ও অন্যায়ের নির্মূলের ন্যায় জিহাদের ন্যায় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টিকে দূরে রাখা। এতে সমাজ নানা রূপ অসভ্যতা ও দুর্বৃত্তিতে ভরে যায়।

১৩.
Like killing a man, killing truth & telling a lie are also great crimes. It is also the worst crime to keep the most important issue in lifelike eliminating the wrong & enacting the right out of the focus. Most people will enter the hellfire for these crimes, not for killing people.

১৪.
ভোট-ডাকাতদের কথা অন্যরা দূরে থাক খোদ শয়তানও বিশ্বাস করে না। কারণ শয়তান জানে তার অনুসারিরা কতটা মিথ্যাবাদী। তাই বিপদ হলো বাংলাদেশে কতজন করোনায় মারা যাবে সেটি আদৌ জানার উপায় নাই।

১৫.
চাকুরি নিয়ে কাজ না করলে কি চাকুরি থাকে? তেমনি ঈমানী দায়ভার পালন না করলে কেউ কি মুসলিম থাকে? সে দায়ভার কি শুধু নামায়-রোযা পালন? সেটি তো ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা এবং
অন্যায় নির্মূলের জিহাদ।

১৬.
In the name of re-education, the Chinese government is committing a terrible crime of forced de-Islamisation & cultural conversion of the Uighur Muslims. How such criminals get welcomed in any of the Muslim countries? How the friends of such criminals dare rule in any of the Muslim countries?

১৭.
মুসলিমগণ একে অপরের ভাই। এ ঘোষণাটি মহান আল্লাহর। তাই যার মধ্যে সে চেতনাটি নাই, বুঝতে হবে তার মধ্যে ঈমানও নাই।  নিজের ভাই বা বোনকে যদি হত্যা করা হয় বা জেলে রাখা হয় তবে প্রতিক্রিয়া কি হয়? চীন, ভারত, কাশ্মির, ফিলিস্তিন, মায়ানমারে মুসলিমদের সাথে কীরূপ বর্বরতা হচ্ছে সেটি তো গোপন বিষয় নয়। ভাই কোন মুসলিম কি নীরব বা নিষ্ক্রীয় থাকতে পারে? সেটি কি ঈমানের লক্ষণ?

১৮.
মরার ভয়ে বহু মানুষ বিবেকহীন পশুর চেয়েও নিকৃষ্ট জীবে পরিণত হয়। বাংলাদেশে এমন পশুদের সংখ্যাটি যে বিশাল সেটিই প্রকাশ পাচ্ছে। পশুরা কা্‌উকে দাফনে বাধা দেয় না। বাধা দেয় না হাসপাতাল নির্মাণেও। অথচ পত্রিকায় প্রকাশ, বহু মানবরূপী পশুরা দল বেঁধে রাস্তায় নেমেছে। তারা করোনার রোগীকে গোরস্তানে দাফন করতে দিচ্ছে। করোনা রোগীর চিকিৎসার জন্য নিজ এলাকায় হাসপাতালও নির্মাণ করতে দিচ্ছে না।

১৯.
শয়তানের জিদ, আল্লাহর প্রিয় সৃষ্টি মানুষকে সে জাহান্নামে নিবেই। সে লক্ষ্যে দেশে দেশে কাজ করছে শয়তানের এজেন্টাগণ। শয়তানের এজেন্ডদের চেনার আলামত হলো: তারা বাঁধা দেয় জান্নাতের পথে চলায় তথা কোর’আন বুঝায় ও শরিয়ত পালনে। বাংলাদেশে তাই কোর’আনের তাফসির, ওয়াজ মহফিল ও জুম্মার খোতবার উপর নিয়ন্ত্রন বসিয়েছে। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে ইসলামী টিভি চ্যানেল। এবং শাস্তি যোগ্য অপরাধ হলো শরিয়ত প্রতিষ্ঠার জিহাদ। অপর দিকে অবাধ লাইসেন্স দেয়া হয়েছে শয়তানের এজেন্টদের। তাই ব্যাপক ভাবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে গুম, খুন, সন্ত্রাস, চুরি-ডাকাতি, ভোটডাকাতি ও ফাঁসির রাজনীতি।  

 

২০.
মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচানোর আয়োজনটি বিশাল।এজন্য রয়েছে বহু হাজার হাসপাতাল। এটি ভাল দিক। কিন্তু অনন্ত কালের জাহান্নামের আযাব থেকে বাঁচানোর আয়োজনটি কই?এটি কি ভয়ানক বেওকুপি নয়?

২১.
অসভ্য সরকার জনগণকেও অসভ্য করে। ভারতে এতদিন মুসলিমদের হত্যা করে আসছে। এখন হামলা হচ্ছে ডাক্তার ও নার্সদের উপর। বাড়ীর মালিকেরা তাদেরকে বাড়ী ছাড়তে বাধ্য করছে। অথচ ইংল্যান্ডের জনগণ জানালায় দাঁড়িয়ে হাততালি দিয়ে ডাক্তারদের সাবাশ দিচ্ছে।

২২.
“অতএব আমাকে স্মরণ করো,আমিও তোমাদের স্মরণ করবো।এবং আমার প্রতি কৃতজ্ঞ হও এবং কাফের হয়ে যেয়ো না”-(সুরা বাকারা)। তাই আল্লাহর স্মরণে থাকা বা তাঁর আরজি পেশের জন্য কি কোন পীর বা মাওলানার দরকার আছে?




My Days with Brother Maulana Abdul Mohymen

My first acquaintance with Abdul Mohymen Bhai happened in the second week of January 1999. Brother Dr. Abdul Bari –the former Sectary General of the Muslim Council of Britain introduced me to him. At that time, he was the Imam of Tottenham Masjid. Our first meeting took place in the mosque office. At my first meeting with him, I was deeply impressed by his warm brotherly attitude towards me. Since then, I lived in the mosque premise for about two and a half years, As a result, I had an opportunity to see him from close proximity. In those days I was alone in London. But my stay in the premises of the mosque bestowed on me huge blessings. In those days, I was passing through some of the most distressful days of my life. He is senior to me. Because of my stay in the mosque, I was relieved of my loneliness. It gave me the opportunity to enjoy the warm and brotherly comfort of Abdul Mohymen Bhai and his family. I also enjoyed the opportunity to be friendly with many multi-ethnic musallies of the mosque,

In those days, I used to cook my own food myself. Since I wasn’t a good cook, it wasn’t a good and pleasant experience for me. In those difficult days, it was a blessing to enjoy the brotherly hospitality of Mohaimen Bhai and especially our respected bhabi. May Allah Subhana Wa Ta’la bless on her for her kind hospitality. I have been invited so many times to his home and every time bhabi used to cook varieties of excellent items. I would never forget those days. In any of the family functions, I used to be invited there. As an imam, it was very common for him to be invited by many of his friendly musallies. If I was free, he used to take me with him to those invitations. In those days, Mohaimen Bhai has the family of his deceased elder brother living in Tottenham near to the mosque. His newly married daughter also used to live near his house. I used to be invited to their family events. As if, I was the family member. It is memorable that in the month of Ramadan, the bhabi used to make my favorite iftari like chola muri (roasted gram and fried rice). I never felt any iota of diminished brotherly feeling towards me.   

I found Mohaimen Bhai thoroughly and profoundly a gentleman. He is a man of simplicity and humbleness. His interpersonal skills and empathy for other people are impressive. Many people used to visit him every day in his office. Sometimes he looked tired, but he was never found deficient in a highly warm and welcoming smile.  He used to make a cup of tea by his own hand and present some cakes or biscuits to the visitors. It didn’t need an important person for that. While I firstly observed such hospitality by an imam, it was indeed a cultural shock for me. In Bangladesh, I have hardly seen any imam making tea by his own hand for a visitor. Moreover, he used to invite many of the misallies at his home. In Bangladesh, imams are mostly at the recipient end of any such event and not the provider. So, he appeared to be highly exceptional and impressive.

Abdul  Mohymen Bhai was very keen to disseminate the Qur’anic knowledge to others. Because of his personal initiatives, unlike many other mosques in London, the community could found the Tottenham mosque as a vibrant learning premise. I took some Qur’an tajweed lessons from him. He used to run several learnings session in the mosque for the men and women living in the community. Five sessions used to take place in the mosque premise every week: three were for the men, one for the women and one for the girls. For males, there were two sessions on Sunday: the morning study circle and the Qur’an tafseer after the noon prayer. On every Saturday, there used to have an afternoon study circle. The women used to have a session in the morning on Sunday. He used to teach Qur’anic Arabic each week after Isha prayer. And every month, the used to have a special seminar addressed by some invited guests followed by a free meal for the attendants.

Sometimes Abdul Mohymen Bhai used to give me some opportunities to share my views in some of those sessions. Moreover, in his office we used to hold informal discussions on various social and Islamic issues. Truly, during my stay in the mosque, I was blessed with a rare environment of continuous learning and teaching facilities. I developed a good circles of friends who were very committed to learning. At that time, I used to edit a monthly journal named “Alor Path” and Abdul Mohymen Bhai sometime helped me to check the spelling errors. In those days, I completed a post-graduation course in dermatology at London University. Despite my absence from my family, I still remember those sweet memory of the mosque. And those memories indeed owe to the pleasant company of Abdul Mohymen Bhai. May Allah Subhana wa Ta’al bless him with a long and healthy life. Ameen.  (Author: Medical consultant, columnist, and writer)   




যে বিপদ শত্রুশাসন ও ভ্রষ্ট ঈমানদারীর

ইতিহাস ভ্রষ্টতার

নবীজী (সাঃ)র যুগে প্রচন্ড অভাব ছিল মুসলিম জনশক্তির। বহু বাধাবিপত্তি অতিক্রম করে মক্কার কাফেরদের মধ্য থেকে একজন একজন করে তাঁকে মুসলিম করতে হয়েছে। নবুয়তপ্রাপ্তির ১৫ বছর পর বদরের যুদ্ধে মাত্র ৩১৩ জন সাহাবী নিয়ে হাজির হতে পেরেছিলেন। বাংলাদেশের একটি থানায় যত মুসলিমের বাস মহান নবীজী (সাঃ) ততজন মুসলিমও জীবনের শেষ দিনগুলিতেও দেখে যেতে পারেননি। অথচ আজ প্রায় ১৬০ কোটি মুসলিম তাঁর উম্মত রূপে সারা বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। কিন্তু  এ বিপুল সংখ্যক মুসলিমের অর্জন কতটুকু? মূল সমস্যাটি হলো, মুসলিমদের সংখ্যা বিপুল ভাবে বাড়লেও অভাব বেড়ছে ঈমানদারীর। প্রাথমিক যুগের মুসলিমদের পথটি ছিল পবিত্র কোর’আনে বর্ণিত সিরাতুল মুস্তাকীম -যাতে ছিল ইসলামী রাষ্ট্র, শরিয়ত, হুদুদ, খেলাফত, একতা, শুরা ভিত্তিক শাসন ও জিহাদ। কিন্তু সে পথ থেকে তাদের ভ্রষ্টতাটি বিশাল। তাদের ইতিহাসটি ছিল স‌রর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ জাতি ও বিশ্বশক্তি রূপে বেড়ে উঠার। কিন্তু  আজকের মুসলিমদের ইতিহাসটি বড়ই অগৌরবের। সেটি শুধু শত্রুর হাতে পরাজয়, অপমান, নিহত বা ধর্ষিতা হওয়ার নয়, বরং অশিক্ষিত, অসভ্য ও দুর্বৃত্ত রূপে বেড়ে উঠারও। এর চেয়ে বড় অপমানের আর কি হতে পারে যে, দুর্বৃত্তিতে বিশ্বের প্রথম দশটির দেশের বেশীর ভাগই হবে মুসলিম অধ্যুষিত। প্রায় শতকার ৯০ ভাগ মুসলিম নিয়ে বাংলাদেশ এ শতাব্দীর শুরুতে দুর্বৃত্তিতে বিশ্বে পর পর ৫ বার প্রথম হয়েছে।

এতবড় চারিত্রিক ও ঈমানী বিপর্যয়ের পরও এ নিয়ে ভাবনা ক’জনের? কী করে এ পতন থেকে মুক্তি -তা নিয়েই বা ক’জন ভাবে? নিজেদের মুসলিম রূপে দাবী করলেও তারা বাঁচে নবীজী (সাঃ)র আমলের ইসলাম ছাড়াই। অধিকাংশ মুসলিম দেশই অধিকৃত বর্বর স্বৈরাচারিদের হাতে অধিকৃত; গণতন্ত্র বলে কিছু নাই। বাংলাদেশের ন্যায় অধিকাংশ মুসলিম দেশেই জনগণকে বাঁচতে হয় ন্যূনতম মৌলিক মানবিক অধিকার ছাড়াই। ফলে অসম্ভব হয়েছে সভ্য ভাবে বাঁচা। রাষ্ট্র বা সমাজ কতটা সভ্য বা অসভ্য -সে বিষয়টি ধরা পড়ে সে দেশে আইনের মান, বিচারের মান এবং আইন প্রয়োগে সরকার ও দেশবাসীর আগ্রহ ও সামর্থ্য থেকে। জঙ্গলে সভ্য জীবন অসম্ভব, কারণ সেখানে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার কেউ থাকে না। খুন, ধর্ষণ বা ডাকাতি হলেও সেখানে পুলিশ যায় না, আদালতও  বসে না। জঙ্গল তাই জঙ্গলই। সভ্যতর সমাজ নির্মাণে অতি গুরুত্বপূর্ণ হলো যেমন রাষ্ট্রের নির্মাণ, তেমনি সে রাষ্ট্রে আইনের শাসন। সভ্য দেশের আলামত তো এই, সেখানে কারো সম্পদ, ইজ্জত বা শরীরের উপর হামালা হলে বা কোন আইন অমান্য করলে জেল-জরিমানা হয়। রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করলে ফাঁসি হয়। অথচ অসভ্য দেশে এসবের বালাই থাকে না, সেখানে আইন ও আদালত চলে অসভ্য স্বৈর-শাসকের খেয়াল খুশি অনুযায়ী। এমন রাষ্ট্রের কোষাগার, ব্যাংক, শেয়ার মার্কেট থেকে কোটি কোটি টাকা চুরি হলে বা জনগণের ভোটের উপর ডাকাতি হলেও কোন বিচার হয় না। তখন সমাজে নেমে আসে বন-জঙ্গলের অসভ্যতা। জোর যার রাজত্ব তার –এমন এক বন্য অসভ্যতাই তখন রীতি হয়ে দাঁড়ায়।

সভ্য ভাবে বাঁচার খরচটি তাই বিশাল। শুধু পুলিশ পাললে বা আদালতের প্রতিষ্ঠা দিলে চলে না, জনগণকেও  তখন নিজ অধিকারের অতন্দ্র পাহারাদারে পরিণত হতে হয়। নইলে পুলিশ এবং আদালতের বিচারকগণও ডাকাতদের দলে শরীক হয়ে লুটেপুটে খায়। সে জন্যই ইসলামে জিহাদ প্রতিটি ঈমানদারের উপর নামায-রোযার ন্যায় ফরজ। জিহাদ হলো দুর্বৃত্তদের অসভ্যতা থেকে বাঁচার আমৃত্যু লড়া্ই। বনের হিংস্র পশু তাড়ানোর ন্যায় এটি হলো সমাজের  পশু তাড়ানোর লড়াই। নামায-রোযায় ক্বাজা আছে, কিন্তু এ জিহাদে ক্বাজা নেই। তাই যে সমাজে জিহাদ নাই সে সমাজ মসজিদ-মাদ্রাসায় ভরে উঠলেও সভ্য সমাজ সেখানে নির্মিত হয় না। জঙ্গলে এক পশু আরেক পশুকে ভ্ক্ষণ করলেও যেমন বিচার বসে না, তেমনি অসভ্যতা নেমে আসে তখন রাষ্ট্রে। গুম, খুন, ফাঁসি, চুরি ডাকাতি, ভোট ডাকাতি তখন দেশের সংস্কৃতিতে পরিণত হয়।

মহান আল্লাহতায়ালা এ বিশ্বের একমাত্র স্রষ্টা। তিনিই একমাত্র রাজা। সে সত্যটি পবিত্র কোর’আনে একবার নয়, বহুবার বলা হয়েছে। বলা হয়েছে, “হুয়াল্লাযী খালাকাস সামাওয়াতি ওয়াল আল আরদ”। অর্থঃ তিনিই সেই মহান সত্ত্বা যিনি সৃষ্টি করেছেন আসমান ও জমিন। বলা হয়েছে, “লাহু মুলকুস সামাওয়াতে ওয়াল আরদ”। অর্থঃ “আসমান জমিনের রাজত্ব একমাত্র তাঁর অর্থাৎ আল্লাহর”। আল্লাহতায়ালার চান তাঁর নিজের এ রাজ্য পরিপূর্ণ শান্তি ও শৃঙ্খলা। সে শান্তি ও শৃঙ্খলাকে সুনিশ্চিত করতেই তিনি চান আইনের শাসন। এবং সে আইনী বিধানকেই বলা হয় শরিয়ত। বস্তুতঃ শরিয়ত হলো সমাজ থেকে সর্বপ্রকার দুর্বৃত্তির নির্মূলে মহান আল্লাহতায়ালার দেয়া মূল হাতিয়ার। দুর্বৃত্তির নির্মূলের সে কাজটি নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাত করতে পারে না। তাই যে রাষ্ট্রে নামায-রোযা ও হজ্ব-যাকাত আছে অথচ শরিয়তের প্রতিষ্ঠা নাই –সে সমাজে দুর্বৃত্তি ও অসভ্যতা বাড়বে সেটিই স্বাভাবিক। কারণ শরিয়তের বিকল্প শরিয়তই। শরিয়তের আরেকটি অভিধানিক অর্থ হলো “পথ”। এ পথটি মূলতঃ মহান আল্লাহতায়ালার বিধানের আনুগত্যের মধ্য দিয়ে জান্নাতে পৌঁছার। এবং এ পথটিই হলো পবিত্র কোর’আনের পরিভাষায় সিরাতুল মুস্তাকীম। শরিয়তের সে আইনগুলি অতি সুস্পষ্ট ভাবে বর্ণিত হয়েছে পবিত্র কোর’আনে। মুসলিমদের কাজ শুধু সে আইনের পাঠ বা মুখস্থ্য করা নয়, বরং প্রতিষ্ঠা। তাই স্রেফ নামায-রোযা ও হজ্ব-যাকাতে ঈমানদারের দায়ভারটি আদৌ শেষ হয় না। বরং মূল দায়িত্বটি হলো তাঁর দেয়া শরিয়তের পূর্ণ প্রয়োগ। এ কাজের জন্যই সে এ পৃথিবী পৃষ্ঠে মহান আল্লাহতায়ালার খলিফা তথা প্রতিনিধি। বস্তুতঃ শরিয়ত পালন ও প্রতিষ্ঠার  সামর্থ্যের মধ্যেই প্রকাশ পায় ব্যক্তির ঈমানী সামর্থ্য। ঈমানদার ব্যক্তি তখন বেড়ে উঠে মহান আল্লাহতায়ালার  সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি (আশরাফুল মখলুকাত) রূপে। মুসলিমদের আজকের ব্যর্থতার কারণ, তাদের মাঝে নামাযী, রোযাদার ও হাজীদের সংখ্যাটি বিশাল। কিন্তু কোথাও নাই শরিয়তের প্রতিষ্ঠা। এ বিশাল ব্যর্থতা কি নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাত দিয়ে দূর করা যায়?

 

অপরিহার্য কেন ইসলামী রাষ্ট্র?

কোন মতাদর্শই হাওয়ায় প্রতিষ্ঠা পায় না। চায় রাষ্ট্র। সেক্যুলারিস্টগণ তাই চায় সেক্যুলার রাষ্ট্র। কম্যুনিস্টগণ চায় কম্যুনিষ্ট রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা। তেমনি শরিয়ত পালনের জন্য অপরিহার্য হলো ইসলামী রাষ্ট্র। চাই, সে রাষ্ট্র জুড়ে পর্যাপ্ত প্রশাসনিক ও বিচার বিভাগীয় অবকাঠামো। তাই নবীজী (সাঃ)র জীবনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি নামায-রোযা ও হজ্ব-যাকাতের প্রতিষ্ঠা নয়, সেটি ছিল ইসলামী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা। তেমন একটি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা না পেলে ইসলামের প্রসার যেমন অসম্ভব হতো, তেমনি অসম্ভব হতো মুসলিমদের পক্ষে বিশ্বশক্তি রূপে বেড়ে উঠা। সাহাবায়ে কেরামদের জান ও মালের সবচেয়ে বড় খরচটি হয়েছে এ খাতে। বিষয়টি এতই গুরুত্বপূর্ণ যে মদিনায় হিজরতের প্রথম দিনেই নবীজী (সাঃ)কে তাই রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা দিতে হয়েছে এবং নিজেকে রাষ্ট্রনায়কের  আসনে বসতে হয়েছে। নবীজী (সাঃ) এবং তাঁর সাহাবা কেরাম যে সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতা সৃষ্টি করেছিলেন তার মূল ভিত্তিটি ছিল শরিয়তী আইনের পূর্ণ প্রয়োগ। সে আইনের বলেই সমাজ থেকে বিলুপ্ত হয়েছিল সকল প্রকার দুর্বৃত্তি। এবং প্রতিষ্ঠা পেয়েছিল হক ও ইনসাফ। বস্তুতঃ এ পৃথিবী পৃষ্টে এর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ দ্বিতীয়টি নাই্। দেশ স্কুল-কলেজ, মসজিদ-মাদ্রাসায় ভরে ফেললেও এরূপ সমাজ বিপ্লবের কাজটি হয় না। লক্ষ লক্ষ মোহাদ্দেস বা হাফিজ বানিয়েও হয় না। হয় না ঘরে ঘরে নামাযী-রোযাদের সংখ্যা বাড়িয়েও। এবং সেটি সম্ভব হলে মহাজ্ঞানী মহান রাব্বুল আলামীন শরিয়তের বিধান না দিয়ে স্রেফ নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাত, তাসবিহ-তাহলিলের বিধান দিতেন এবং নবীজীও ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় জিহাদে নামতেন না।

শরিয়তের বিধানই নিয়ে মহান আল্লাহতায়ালার যে দ্বীন তারই নাম ইসলাম। সুরা ইউসুফের ৭৬ নম্বর আয়াতে রাব্বুল আলামীন দ্বীন বলতে আইনকে বুঝিয়েছেন। তাই শরিয়তকে বাদ দিয়ে ইসলাম হয় না। এবং শরিয়ত পালন ছাড়া ইসলাম পালন হয় না। অথচ সে শরিয়ত পালিত হচ্ছে না কোন মুসলিম দেশেই। কারণ, মুসলিম বিশ্বে কোন ইসলামী রাষ্ট্র নাই। নামায ঘরে বা মসজিদে পড়া যায়, কিন্তু শরিয়ত পালন করতে হলে চাই রাষ্ট্র। সে ফরজ পালনের লক্ষ্যেই নবীজী (সাঃ)কে  ইসলামী রাষ্ট্র গড়তে হয়েছে। অথচ আজকের মুসলিমগণ ইসলামী রাষ্ট্র গড়া বাদ দিয়ে মসজিদ-মাদ্রাসা গড়ায় মনযোগ দিয়েছে। ফলে নামাযী, হাফিজ, ক্বারী, মৌলভী, মোহাদ্দেসের সংখ্যা বাড়লেও কোন দেশেই শরিয়ত পালন হচ্ছে না। এটি মূলতঃ বিপদগামী ও অভিশপ্ত ইহুদী ও খৃষ্টানদের পথ। এটি আযাবের পথ। মসজিদ-মাদ্রাসা গড়তে যুদ্ধ লাগে না, কিন্তু  রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা এবং সে রাষ্ট্রে শরিয়ত প্রতিষ্ঠার জন্য জিহাদ লাগে। নবীজী (সাঃ) ও তাঁর মহান সাহাবাগণ সে জিহাদের পথ বেছে নিয়েছিলেন বলেই তারা খেলাফায়ে রাশেদা ও বিশ্বশক্তি রূপে বেড়ে উঠার নিয়ামত পেয়েছিলেন। অথচ সে জিহাদের সে পথে বনি ইসরাইল নেয়নি। হে ভীরু কাপুরুষরা হযরত মূসা (আঃ)কে বলেছিল, “হে মূসা (আঃ) তুমি এবং তোমার আল্লাহ গিয়ে যুদ্ধ করো, আমরা অপেক্ষায় রইলো। ফলে তারা ইসলামী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা, খোলাফায়ে রাশেদা ও বিশ্বশক্তি রূপে বেড়ে উঠার ফজিলত থেকে বঞ্চিত হয়েছিল। ইসলামী রাষ্ট্র ও শরিয়ত পালনের জিহাদ থেকে পিছু হটার জন্য তাদের উপর এসেছিল শাস্তি; ৪০ বছর যাবত তাদেরকে ঘুরতে হয়েছে সিনা উপত্যাকার মরুভূমিতে। আজকের মুসলিমগণ বেছে নিয়েছে বনি ইসরাইলের পথ। ইসলামী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা ও শরিয়ত পালন ছাড়াই তারা ইসলাম পালনের বাহানা ধরেছে। ফলে শাস্তি আসছে তাদের ঘাড়েও। কোন মেশিন তখনই সুষ্ঠ ভাবে কাজ করে যখন সেটি চালানো হয় যিনি তৈরী করেছেন তার দেয়া নির্দেশাবলী মেনে। নইলে সে মেশিন বিকল হতে বাধ্য। শরিয়ত হলো ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্র পরিচালনার কাজে আল্লাহর দেয়া বিধান। সে বিধান না মানায় আযাব ঘিরো ধরেছে সমগ্র মানব জাতিকে। ফলে পৃথিবী পূর্ণ হচ্ছে মহামারী, যুদ্ধ, হত্যা, ধর্ষণ, গুম ও সন্ত্রাসে ।

 

ভ্রষ্টতা ঈমানদারীতে                 

মানব জাতির পাপের তালিকাটি বিশাল। তবে মহান আল্লাহতায়ালার বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় বিদ্রোহটি হচ্ছে শরিয়ত অমান্য’র মধ্য দিয়ে। বিদ্রোহীদের পুরস্কৃত করা কখনোই মহান আল্লাহতায়ালার সূন্নত নয়। বরং দেন ভয়াবহ আযাব। সে আযাব আসে মহামারী, ভূমিকম্প, ঘুর্ণিঝড় ও  সুনামীর বেশে। এবং পরকালে শাস্তি দেন জাহান্নামে নিয়ে। কিন্তু সে হুঁশ ক’জনের? অথচ সে আযাব ও শাস্তির হুশিয়ারিটি পবিত্র কোর’আনে একবার নয় বহুবার শোনানো হয়েছে। কিন্তু সে আয়াতগুলি নিয়েই বা ভাবনা ক’জনের? যারা নিজেদের আলেম, পীর, মোহাদ্দেস ও মুসলিম রূপে পরিচয় দিয়ে থাকেন তাদের মাঝে সে ভাবনাটি থাকলে তো মুসলিম দেশগুলিতে শরিয়তের প্রতিষ্ঠা নিয়ে বিরামহীন জিহাদ শুরু হয়ে যেতো। নামায-রোযা ও হজ্ব-যাকাত পালন ছাড়া মুসলিম থাকা যায় না –এ কথা সবারই জানা। কিন্তু শরিয়তি পালন ছাড়া যে মুসলিম থাকা যায় না –সে হুশ ক’জনের? অথচ এ নিয়ে মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে হুশিয়ারি এসেছে সুরা মায়েদার তিনটি আয়াতে। সুরাটির ৪৪, ৪৫ এবং ৪৭ নম্বর আয়াত বলা হয়েছে, “যারাই আমার নাযিলকৃত বিধান অনুযায়ী বিচারকার্য পরিচালনা করেনা তারাই কাফের। —তারাই জালেম। —তারাই ফাসিক।

অতীতের মুসলিমগণ বেঁচেছে সুরা মায়েদার উপরুক্ত আয়াতগুলি হৃদয়ে ধারণ করে। তারা শুধু নামায-রোযা ও হজ্ব-যাকাত নিয়ে বাঁচেননি।  শরিয়ত পালন ছাড়া নবীজী (সাঃ) ও সাহাবাদের জীবনের একটি দিনও অতিবাহিত হয়নি। অতিবাহিত হয়নি পরবর্তী কালের মুসলিমদের জীবনও। তাই ইউরোপীয় কাফেরদের হাতে অধিকৃত হওয়ার পূর্ব-পর্যন্ত প্রতিটি মুসলিম দেশের আদালতে তারা প্রতিষ্ঠা রেখেছে শরিয়তী আইনকে। মুসলিম ভূমির কোথাও কাফেরদের আইন অনুযায়ীই বিচার-আচারে এক দিনের জন্য হয়নি। সেটি যেমন সিরাজদ্দৌলার বাংলাতে হয়নি, তেমন হয়নি মোগলদের শাসনাধীন ভারতেও। কিন্তু ইউরোপীয় কাফেরদের হাতে অধিকৃত হওয়ার পর বিলুপ্ত হয় শরিয়ত পালনের স্বাধীনতা। কাফেরদের হাতে অধিকৃত হওয়ার এটিই হলো সবচেয়ে বড় বিপদ। তখন অসম্ভব হয় ইসলাম পালন। তাই সবচেয়ে সেরা সওয়াবের কাজটি হলো কাফেরদের হামলার বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষার জিহাদ। এ জিহাদে নিহত হলে পুরস্কার মেল সরাসরি জান্নাতে যাওয়ার।  

বিদেশী কাফেরদের শাসন বহু আগেই শেষ হয়েছে। কিন্তু শরিয়তী আইনের শাসন এখনো শুরু হয়নি। মুসলিম দেশগুলি অধিকৃত হয়ে আছে ইসলামের দেশী শত্রুদের হাতে। এরা ঔপনিবেশিক কাফেরদের শিক্ষায় বেড়ে উঠা তাদেরই অনুগত খলিফা। ফলে আদলতে এখনো চালু রয়েছে কাফেরদের প্রবর্তিত আইন। প্রশ্ন হলে মসজিদে মুর্তি বসানো হলে কি সে মজসিদে নামায হয়? তেমনি রাষ্ট্রের আদালতে শরিয়তের বদলে কাফেরদের আইন চালু থাকলে কি সে আদালতে কি কোন মুসলিম বিচার চাইতে যেতে পারে? তাতে কি ঈমান থাকে? মহান আল্লাহতায়ালার ইচ্ছা ও তাঁর বিধানকে হৃদয়ে নিয়ে বাঁচা এবং সে গুলির বাস্তবায়নে জিহাদে নামার মধ্যেই তো ঈমানদারী। কিন্তু মুসলিম মাঝে সে ঈমানদারী কই? ঈমানের প্রকাশ তো আমলে। প্রশ্ন হলো, কুফরি আইনের কাছে যেরূপ আত্মসমর্পণ -তাতে কি ঈমানের সে ভ্রষ্টতা কখনো গোপন থাকে? ২/৪/২০২০