The Arab World: a valley of death for Islamists and a paradise for tyrants

Dr. Firoz Mahboob Kamal

Why so much enmity to democracy and Islam?

The USA has lost confidence to win any war. Further war can only precipitate economic collapse and no victory. This is the lesson that the USA has learned from its humiliating defeat in Afghanistan. But the issue for the USA still remains. It can leave Afghanistan, but can’t leave its agenda of global dominance –its core business in world politics. So, it takes the alternative strategy. It is through collaboration with Islam’s internal enemies in each Muslim country. Therefore, the market price of the Arab tyrants in the US eyes goes very high. Because these tyrants can be easily used as stooges to dominate the oil-reach Arab World as well to guarantee the security of Israel. Since these tyrants possess no power base amidst their own people, depend solely on foreign powers like the USA for survival. So they can be easily drawn into the USA’s war on Islam. But they can’t do the same with the popular democratic government. Hence the USA and its allies find it the best strategy to invest more money and more intelligence to make a coup d’état against any democratic government in the Muslim World. So, the USA and its allies stand as the worst enemy of democracy in the Muslim World –especially the Arab World. Since democracy is the common enemy of both the USA and the Arab tyrants, the tyrant rulers of Saudi Arabia, UAE, Bahrain, Kuwait, Jordan, and Oman are ever-ready to co-operate with the USA’s anti-democratic project in the Arab World with their petrodollar -as they did in Egypt in 2012 and now in Tunisia.

The tyrannical rule is the most effective way to obstruct the civilizational progress of mankind. It is the most powerful tool to keep people de-empowered, morally shattered, and mentally subservient. It keeps people away from the path of moral, social, and political development. This is why the enemies of Islam love autocrats. The history of such love affairs is huge. All the dictators of the Arab World enjoy the support of the USA and Israel without any exception. The USA and its allies never attempted any coup d’état against the worst dictators like President Jamal Abdul Nasser of Egypt, President Habib Bourguiba of Tunisia, Hafez al-Assad of Syria, or any tyrant King of Saudi Arabia. But they always attempted coup d’état against the democratic government of the Muslim World without any exception. In 1953, they engineered a coup d’état against the elected government of Iran -the only democratic government in the whole of the Middle East. They removed Iran’s elected Prime Minister Sharif Musaddeq and installed the deposed Shah Muhammad Reza Pahlavi. In 2012, they supported the coup d’état against Dr. Mohammed Morsi -the only elected ruler in Egyptian history. Now the same gang celebrates the overthrow of the democratic government of Tunisia -the only remaining elected government in the whole of the Arab world. On 15 July 2016, they also made a coup attempt against the elected government of Rajab Taiyeb Erdogan of Turkey. Not surprisingly, the hawkish neo-con like John Bolton –the former Security Adviser to President Donald Trump runs a think-tank called the Turkish Democracy Project to hatch plans to overthrow Turkey’s democratic government. But none in the USA runs any project to promote democracy in the tyrant-infested Arab World.

 

 The calamity of the enemy occupation 

Even if a tree dies, it leaves a strong stump and deep roots in the ground. So, no new tree can grow there. The growth of a new tree is only feasible after a deep uprooting of the old one. This is exactly true about an enemy rule in a country. The long colonial rule in the Muslim World has ended, but its strong stump and deep roots still exist. These cause huge obstacles in the democratic governance of the former colonies. Each colonial government of the European imperialists built massive infrastructures of cultural, educational, and ideological engineering to make people subservient to their rule. These are the educational, cultural, and training institutions, the state-owned media, the bureaucracy, the Army, the judiciary, the literature, the theatre, and many others. Later on, these colonial institutions built up a deep state -a powerful club of former mercenaries inside every formal colonial state. It survived as the remnant of the colonial legacy of the long occupation. Because of this deep state, the democratic regimes couldn’t function in newly independent states like Pakistan, Egypt, Sudan, Algeria, Tunisia, Nigeria, Indonesia, and many other former colonies. In fact, this deep state paved the way for internal occupation by the native enemy invaders. This is why the dictators like Ayyub Khan in Pakistan, Nasser in Egypt, Habib Bourguiba in Tunisia, Ben Bella in Algeria, and Zafar Numeri in Sudan could have such a long rule. And they could keep the civilians –their enemy out of the power structure.

The ancient Pharaohs of Egypt could bring huge behavioral, attitudinal, and cultural changes among the people. Because of such a change, they could establish themselves as gods. Such tamed people were so much corrupted intellectually that they developed deep disdain even against the great prophets like Musa (peace be upon him) and Harun (peace be upon him). Thus it proves that if the thinking faculty of the people are damaged then they even worship any human, cow, snake, or idol. More than a billion people do that in India. To be worshipped by such domesticated people, it doesn’t need to be super-human. This is why the most inhuman dictators like Jamal Abdel Nasser of Egypt and Habib Bourguiba of Tunisia could easily attain that status.

All the tyrants apply the same methodology to tame people. In reality, these tyrants were so poor in quality that they couldn’t show any talent in any field. Even the worst democrat is far better than a tyrant. Because a fair democrat gets power only after showing his talent in public. More a democrat fears accountability in the court of people in elections. But a tyrant doesn’t have that.  Jamal Abdel Nasser failed in every sector of his countries like its defense, health, economy, education, and Arab unity. In the 1967 war, Nasser couldn’t stand against Israel even for 6 days. He lost the whole of the Sinai Peninsula to Israel. He could only over-perform in rhetorical demagoguery and election manipulation. He won plebiscites (there was no election under his rule) in 1956, 1958, and 1965 -while he was the sole candidate. He disbanded all opposition parties, gaged all independent media, and barred all opposition candidates from election. He deprived people of their political rights and right to free expression. He took all power in his own hand. He had a parliament, and its only duty was to ratify his every decision.

 

Arab World: a valley of death for Islamists

 The Arab world has turned to a Valley of Death for the Islamists. All Arab tyrants possess one thing in common. It is their toxic venom against the Islamists. No rule of law, no fair justice, and no human rights provision work for the Islamists. As if, killing Islamists is like killing dogs and cats on the streets. In all Arab countries –without exception, Islamists are labeled as terrorists. Islam that entails Islamic state, sharia, hudud, jihad, pan-Islamic unity, and rule by shura is labeled as terrorism cum barbarism. Jihad –the highest ibada in Islam is made a taboo in the Arab world. The imams of the mosques, columnists of the newspapers, academics of the universities do not dare appreciate jihad in public. Islamophobia cum jihad-phobia run very high in the Arab World. Distancing from Prophet (peace be upon him)’s original Islam that raised the first and the finest civilizational state in human history has become a norm in public. The cities like Aleppo, Mosul, Raqqa, Dera Zour, Ramadi, Falluja, Tikrit, and many others were razed to the ground by the USA carpet bombing. But the anti-Islamist propaganda hype is so high in the Arab World that these destructions are described as the works of the Islamists. The photos of the destroyed cities are shown in Arab World’s television networks with Islamists’ emblems.

The toxic venom against Islam and the Islamists was firstly injected into the Arab psyche by Jamal Abdel Nasser of Egypt and later on by Habib Bourguiba of Tunisia. The radical secularism of Nasser and Bourguiba has a stipulated political aim. Nasser aimed at eliminating his political enemy – Ikhwan ul Muslimeen. Habib Bourguiba’s disdain against Islam’s fundamental ritual was extremely toxic. He made Tunisia a bastion of radical secularism in the Arab World. In the month of Ramadan, he used to eat in public to ridicule Islam’s teaching. He didn’t give any political space to the Islamists. His protégé Zain el Abedin ben followed in his footsteps. The largest Islamic party En Nahda (the Islamic resurgence party) was banned. Jamal Abdel Nasser’s enmity against the Islamist party Ikhwan-ul Muslim was very terrific. He indeed declared a full-fledged war on the Islamists. In that war, he wanted to bring the Egyptian people on his side. For that, he staged a false flag shoot-out drama to hit two targets with one stone.  Firstly, to manufacture a myth about himself; secondly, to defame Ikhwan-ul Muslim –the largest Islamic party in the public eyes.

It is alleged that on 26 October 1955 some Abdul Latif fired 8 shots from a distance of 25 feet to assassinate Nasser. Not surprisingly, not a single bullet hit him. Because none of the bullets was targeted at him. It had only a political target, and the whole drama was displayed for political consumption. In the midst of the engineered chaos, Nasser delivered a very high-spirited speech, “My countrymen, my blood is for you and for your country. I live for you and die for the sake of your freedom and honor…” Truly, Nasser never gave any freedom to his countrymen. They were given only one freedom, and that is to praise him. His above speech was put on the air numerous times to boost his image among the public. The shooter was projected as a man of Ikhwan ul Muslimeen, and the ploy was used to hang eight senior leaders of the party and to put thousands of its workers in prison. The famous scholar Syed Qutb was put on a 15-year jail sentence and later on hanged. 140 pro-Islamic Army officers were also sacked from the job. So, the whole drama had a singular objective. It was to eliminate the top leaders of Ikhwan-ul Muslimeen and to band the party. And Nasser did that.

Like Jamal Abdel Nasser, General Abdel Fatah al-Sisi, too, couldn’t tolerate the elected Islamist President Dr. Mohammad Morsi. Dr Mors was a member of Ikhwan-ul Muslimeen. Hence, he did a coup d’état against him and grabbed the power in his own hand. On 14 August 2012, thousands of men and women came to the streets to protest against the Army take-over. To crush the protest, General al-Sisi rolled tanks and heavy artillery guns on the street against the unnamed protestors. More than two thousand people were slaughtered by the Army. It was a genocide against innocent civilians. But no one was punished. As if, the Islamists do not deserve any justice. As if, the killers who killed so many people don’t deserve any punishment. Rather, those who survived the carnage were arrested on terror charges. The USA government and its western allies kept tongue-tied silence –as if they have seen nothing and heard nothing. And this is indeed American justice and morality.

Even a killer thug gets affection from his pet dogs and cats. Such animal behavioral norms also work in humans. This is why the ancient tyrant Pharaohs were worshipped by the domesticated Egyptian people. Nasser revived that Pharaonic methodology to make Egyptian people deeply submissive to him. He launched his social, cultural, and ideological engineering to cultivate hero-worshipping. And the projected hero was Nasser himself. He used the media, writers, singers, dancers, sportsmen, theatre performers as his foot soldiers to raise him to that status. And it worked. This is why when this tyrant autocrat died, millions of Egyptians joined his funeral.

The current tyrant General Abdel Fatah al-Sisi follows the footsteps of Nasser. He also runs the same social, cultural, and intellectual engineering. All the TV channels and newspapers work for him. He has gaged the opposition voice. He has banned Ikhwan-ul Muslims. Its leaders and workers are now languishing in jails. Many of them faced execution. In fact, Jamal Abdel Nasser, Hosni Mubarak, and Abdel Fatah al-Sisi appeared as modern Pharaohs in Egypt. They caused massive cultural and ideological captivity cum molding of people. As a result, a large number of Egyptians developed incompatibility with the democratic norm of governance. This is why coup d’état against President Morsi was celebrated so wildly in the streets of Cairo. The same wild celebration took place in Tunis after the dissolution of the democratic government of Tunisia. This owes to the fact that although the Islamists could get electoral victory both in Egypt and Tunisia, they couldn’t eliminate millions of radical anti-Islamists from society. So they were ready to celebrate the Army take-over. These anti-Islamists are indeed the grave security threat for Islam and Muslims everywhere.

 

Arab World: a paradise for hedonist tyrants

The Arab World has turned into a paradise for the debauched tyrants. It looks that the Arab people have returned back to square one –the days of pre-Islamic tribalism. The 1.4 billion Chinese have one country called China. The 1.3 billion Indians have one country called India. 280 million Indonesians with more than 15 thousand islands have one country called Indonesia. But 400 million Arabs with the same land have built 22 countries. Even an Arab oilfield gets a flag, a map, and a name of statehood. Jews from Russia, Poland, Germany, and the USA, the UK, Iraq, Morocco, Ethiopia, and many other countries with different languages, dresses, food habits, and cultures could live in a single country of Israel. But the Arabs with the same language, the same landmass, and the same ethnicity can’t live in a single country. Instead of unity, division and feudal feuds have become part of the Arab culture and identity. Unity gives strength and division gives weakness. So defeating 400 million Arabs of 22 Arab states is nothing more than a cakewalk for 8 million Israelis. In the 1967 War, the joint armies of Egypt, Syria, and Jordan couldn’t stand even for 6 days. They surrendered with huge humiliation. The Arabs can celebrate only their divisions. They have indeed no victory or glory to celebrate.

Higher human identities like democracy, basic human rights, free media, free writings, free talks, open meetings, and street rallies are the common features even in countries like Turkey, Pakistan, Sri Lanka, Nepal, Peru, Bolivia, and many others, but such practices are punishable crimes in all Arab countries. Out of 22 Arab countries, not a single one is democratic. The only one was Tunisia, and recently that has also been dismantled. What a shame! Democracy, human rights, free thoughts, and free expression have never been the stuff of tribal life. These are indeed the accurate marker of civilizational progress and maturity of human development. The Arabs score very low on those development indicators. Unfortunately, these crucial issues are seldom discussed in the intellectual circles of the Arab World. One can find hardly any discussion on these issues in the Arab newspapers.

When Muslims built the finest civilization on the earth, they built not only mosques and madrasas. They developed social policies on the basis of basic human rights. They also implemented a democratic way of governance. So, the rulers of the Islamic State like Abu Bakar (RA), Omar (RA), Osman (RA), and Ali (RA) need not have any familial inheritance from the former ruler. They were directly elected by the people. Whereas, tribalism restricts such democratic rule of governance. Here, the tribal inheritance of blood and the power of savagery decide who should rule the tribe. The perfect rule of jungle works here. Hence a killer like Mohammad bin Salman who organized a gang for cutting into pieces Jamal Khashoggi –a prominent journalist can also claim the throne of Saudi Arabia. Saudi Arabia leads the club of Arab dictators. Hence Saudi Arabia is the first country to congratulate the coup d’état in Tunisia.

In tribalism, man’s piety, honesty, morality, and education don’t count. Because of tribal occupation, the holiest sites of Islam now stand occupied by the most unholy people. Hence, there exists no space for decency, morality, and the rule of law in the tribal Arab World. People enjoy rights of protest and can through stones even under the Israeli occupation, but such right doesn’t exist in the Arab World. Iraq and Algeria are the only two rare exceptions. In such a permissive milieu, General Abdel Fatah al-Sisi could roll tanks and artillery guns on Cairo’s streets to kill about two thousand innocent protesters. And the killer didn’t face any prosecution, let alone punishment.

The Arab World is known for its abundance of debauched tyrant rulers. No other part of the planet is embedded with so many tyrants. Fascists like Jamal Abdel Nasser of Egypt, Habib Bourguiba of Tunisia, Hafez al-Assad of Syria and King of Saudi Arabia, Shaikh of UAE, and Bahrain are the prototypes of the worst tyrants in Arab history. Thieves breed thieves. And tyrants breed tyrants. Hence with the death of a tyrant, tyranny doesn’t end. Another tyrant takes his place. Hence the Arab people couldn’t get rid of the tyranny of the autocrats. Abdul Fatah al-Sisi of Egypt, Basher al-Assad of Syria, King Salman of Saudi Arabia, and recently Kais Saeid of Tunisia are the latest brand of Arab tyrants.

 

 The only way out

 What people eat and drink decide their physical health. What they read decides the moral health. If the shops run out of food and drinks, famine starts. And if the quantity and the quality of books, journals, newspapers, and media deteriorate, moral health worsens. Sadly, the Arab World runs a severe shortage of readable stuff like books, journals, and newspapers. Books, journals, and newspapers generate knowledge and make people thoughtful. Civility, morality, and civilizational process start from such a thought-generating process. Awfully, this is the most restricted sector in the Arab World. This way the tyrant Arab rulers restrict the intellectual growth of the Arab people. The government keeps an eye on every page of the published book, journal, or newspaper. In the early years of this current century, the UNDP published a report that exposed a horrendous scarcity in the intellectual treasure of the Arabs. The number of books that are published by a single country like Spain is not published even by 22 Arab states. It tells a lot to understand the intellectual ill-health of the Arab people. It amply explains why autocracy flourishes and democracy fails in Arab countries.

The Arab people have already tried Arab nationalism, tribalism, monarchism, secularism, socialism, and western liberalism. All these ideologies have led to failures. These have proved to be the pathology of the disease and not the solution. In the past, the people of the Arab World could build the best civilization in human history. In fact, that is the only golden part of Arab history. The past glory doesn’t owe to Arab nationalism, tribalism, monarchism, secularism, socialism, and western liberalism. It was only possible because of their adherence to Islam. But the Arab people have abandoned that tested path of success. Instead, they have taken the tested path of failure. Still, they persist to follow the same wrong track. Thus they engage in betrayal against Islam and Allah Sub’hana wa Ta’la. They read Qur’an only for the sake of recitation, but not for following its teaching in real life. In real life, they follow secularism, tribalism, Arab nationalism, monarchism, and hedonism. Instead of unity, they celebrate division and feuds. If they have an iota of faith in the Qur’an they would have run their judiciary according to the Qur’anic law called sharia. They would compete with each other to be more Islamist rather than celebrating the defeat of Islamists. By celebrating the defeat of Islamists they can only placate Satan and other enemies of Islam. This way they can only invite the wrath of Allah Sub’hana wa Ta’la.

The Israeli occupation of Palestine, the US-led occupation, and the destruction of Iraqi and Syrian cities to rabbles have never been the signs of Allah Sub’hana wa Ta’la’s blessing. These are the parts of the promised punishment –as revealed many times in the Holy Qur’an. The Arab Muslims must understand the simple truth that as long as they stay away from Islam and adhere to evil ideologies like secularism, tribalism, Arab nationalism, monarchism, and hedonism, they will only continue to invite terrible failures and the Divine punishment. To understand this simple truth, it doesn’t need to be a scholar, simple crude common sense is enough. But unfortunately, the Arabs are persistently failing to display such common sense.  This owes to deep mental invasion by evil ideologies. Numerous clubs, pubs, casinos, and sea beeches of the Arab countries display symptoms of such mental invasion. Minds can’t work normally with such deep invasion. The tyrant Arab rulers of nationalist, monarchist, Ba’athist, and secularist brands have promoted only such mental invasion.

The days of physical colonization by the enemies have ended but the process of mental invasion and colonization still continues. Now the enemies have started a new cold war against Islam and the Muslims globally. The war aims at re-enforcing the pre-existing mental colonization. The Muslim secularists, nationalists, socialists, and monarchists are the partners of the ongoing US-led war on Islam and Muslims. All these partners proved to be fascists and radical anti-Islamists. These internal enemies of Islam -recruited by the external enemies are helping the kuffar enemies for ideological, cultural, and political takeover of the Muslim countries. For the imperialist enemies, this is more cost-effective than physical occupation. Now it has become the multi-national imperialist expansion project of the west. The USA spent more than a trillion dollars in its 20-year old war in Afghanistan. After the humiliating defeat there, the USA is now focused to make occupation by coup d’état in collaboration with the internal enemies. Hence, the ouster of President Dr. Mohammad Morsi of Egypt and the dissolution of the Islamist-controlled ministry and parliament of Tunisia is not isolated events. These are the well-planned stipulated outcomes of the US-led coalition’s insidious war. To encounter this ongoing war of the enemies, it needs a large number of intellectual fighters. Only this way the Muslims can mobilize enough diehard fighters on the street. Only this way, the Turkish Islamists made a brilliant history by foiling a coup d’état against President Erdogan’s government.

Prophet Mohammad faced the enemy’s cold war during his initial 13 years of prophethood in Mokka. His faith was mocked and abused. His identity, integrity, and honesty were constantly attacked. The enemies used lies and fabrication to assassinate his character and the mission. The Prophet (peace be upon him) had no other weapon except the Holy Qur’an to fight that enemy’s cold war. The enemy’s hot war started only after the migration to Medina. The Holy Qur’an proved its stern effectiveness in fighting the enemy’s intellectual war.  It proved to be the only way to end the mental occupation of false beliefs and to strengthen Islamic spiritual roots. Even today, only strong fortification with the Qur’anic knowledge can protect Muslims from constant enemy onslaughts with evil ideologies. Only this way one can disconnect his soul from Satan and his ploys and connect with the agenda of Allah Sub’han wa Ta’la. This is indeed the most powerful legacy that Prophet (peace be upon him) left for his ummah. The Muslims possess no other option but to follow this legacy. In fact, this shows the only way out from the current quagmire. 31/07/2021.

 




The brutal Army occupation of Egypt

Dr Firoz Mahboob Kamal

The terror industry and the crimes

The Muslim World’s worst tragedies owe not only to foreign occupations but also to internal occupations by the home-grown tyrants. Many of the horrendous massacres and atrocities in Muslim countries are committed by these internal enemies. Egypt and Syria are the two recent examples. On 2 February 2011, Husni Mubarak –three-decade old Army dictator of Egypt was removed by 14 days’ street protest. But after a gap of only a year following the electoral victory of Egypt’s first democratic President Dr Mohammad Morsi on 24 June in 2012, the Egyptian Army again took back the power on 3 July 2013. The country got again trapped under the brutal rule of the Army –led by General Abdel Fatah al-Sisi. The country is now highly polarised with a deep internal split. It is divided into two main camps: one belongs to the Islamists and the other belongs to the secularists.

Like any other Muslim country in the world, the Egyptian Army is the bastion of the secularists and plays the role of defender of secularism. The secularists also have a profound love for these Army tyrants. Hence they celebrated the Army coup against Islamist President Dr. Molrsi. Like most Muslim countries, Egypt, too, has strong foreign stakeholders. These are the USA, the EU and Israel. Because of its border with Israel, Egypt has special importance in the club of foreign stakeholders. They have a heavy investment in Egyptian politics. The USA alone invests 1.3 billion US dollars annually. All these stakeholders –along with the Army consider Islamists as the common enemy. The Army is more aligned with the external stakeholders. Hence, whenever the Islamists get closer to power, the Army –with the approval of the external stakeholders come out of the garrison to take control. Once it was a common phenomenon in Turkey. The same happened in Algeria in 1991 when the Army made a coup to foil an emerging landslide electoral victory of the Islamists. The USA and the EU are ever-ready to support such coups.

The polarization in Egyptian politics is not new. But the war-like mobilisation, the intensity of polarization, and the cruelty of killings are new. The army has manufactured a full-fledged war out of the divisive ingredients in politics. It has named its anti-Islamists campaign as a “war on terror”. Thus the Army hits two birds by one stone. Firstly, it could create enough ideological cum political ground to align with the USA-led war on Islam and to qualify for the USA’s strong diplomatic and economic support. Secondly, it could manufacture reasons to commit massacre against the Islamists. The Army has turned cities like Cairo, Alexandria, Port Said, Arish and the whole of Sinai Peninsula into war zones. Hence, tanks, artillery guns, helicopters, armoured vehicles, machine guns and thousands of war-ready troops get back in the streets. They could also make the police and the judiciary parts of the killing machine.

The army claims that they returned to power only to fight terrorism and promote democracy. But the emerging events in Egypt tell otherwise. Terrorism has never been a tool of the unarmed street protestors. It has always been the weapon of the armed thugs and the Egyptian Army. The unarmed street protestors are the innocent victims. Since the fascist rule of Col. Gamal Abdul Nasser in the fifties, the Egyptian Army proved to be the country’s most brutal terror industry. Now they fight to protect the same legacy. Using the state-run terror, the Army ruled Egypt for more than 70 years and never bothered to go for a fair election. A fair election could happen only in 2012 after the end of Husni Mobarak’s autocratic rule. As a result, Dr Muhammad Morsi could emerge as the first elected president in whole Egyptian history. But such election victory made him the number one enemy of the Army.

 

The Army: the ruling clan of Egypt

Egypt’s Army is much more than a professional army. It is a powerful ruling clan. Like monarchs and feudal aristocrats, the Egyptian Army developed its own powerful organisational bureaucratic culture through its 70 years of rule. In that cultural domain, a civilian receives little respect and recognition. They follow only their own Army chain of command. The Army was not ready to accept even Husni Mobarak’s civilian son Jamal Mubarak as their future ruler. Because Jamal was out of that command chain. This is why the Army didn’t give any fight for Husni Mobarak against the protestors. So, his downfall was surprisingly quick.

Dr Muhannad Morsi’s civilian and Islamic background made him incompatible with that cultural milieu, too. So they desperately needed to remove him. In such a move, Dr Morsi -the unarmed President of Egypt become the first victim of the Army’s so-called war against terror. The question is: What can be the more blatant act of terror than this ugly use of military terror against a civilian president? Autocrats support autocrats. They take democracy as the common enemy. Hence, like the Saudi monarch, all the autocrats of the Arab World were very quick to support General Abdel Fatah Sisi’s coup against President Morsi. But the irony is: very few democratic leaders of the world condemned the coup against an elected President! What a shame that President Obama of the USA called the coup Army’s restoration of democracy!

In Egypt, only the Army has the necessary weapons to terrorise people. The whole of Egypt now stands under the occupation of this terrorist outfit called the Army. To terrorise the unarmed civilians, the Army has deployed its huge war machines on the streets of major Egyptian cities. Only on one day, on Wednesday, 14 August in 2012 and only in one square named Rabaa al Adabiya, the army killed more than two thousand unarmed men and women, and injured many more thousands. According to Muslim Brotherhood –President Morsi’s party, the number of martyrs is 2600. Such a huge massacre in a single day never happened in the whole modern history of Egypt. Again on Friday, on 16 August, after two days of the Rabaa al Adabiya massacre, they killed more than two hundred protestors all over Egypt –one hundred only in Ramsees square in Cairo. On July 7, 2021, more than a hundred unarmed protestors were killed by the republican guards while they gathered in front of the republican guard head-quarter in Cairo. After all these horrendous killings of the unarmed protesters, the Army must answer the question: is it a war against terror or war against unarmed civilians? Can such massacres be part of the roadmap towards democracy, as was envisaged by General Abdul Fattah Sisi –the Army chief?

The Arab spring in 2011 brought some promising positive changes in the Arab world. This part of the world was known for army coups, autocratic fascist rulers and corrupt monarchs. In most Arab countries, basic human rights are conspicuously extinct. However, change started with the ouster of Ben Ali of Tunisia. After Tunisia, a revolution came to Egypt. On 25 January in 2011, sixty years of brutal military rule was ended by the ouster of Husni Mobarak by the street protestors. In Egypt, the Army rule started in 1952 with a coup by Col. Gamal Abdul Nasser and was followed by Anwer Saadat and then came Husni Mubarak. Such a long military rule helped the Egyptian Army to establish itself more as a powerful ruling clan than a professional army. It has a huge vested interest in Egypt’s politics, society and business which they are reluctant to desert. The common people were not given any access to the corridor of power. Neither were they given the basic human rights of free expression and free participation in politics. The USA and the European imperialist power were very happy to work with these repressive military rulers for the last six decades. Now, many Americans like John Bolton –the former security adviser to President Donald Trump run Democracy Project for Turkey. But no democracy project exists for Saudi Arabia, Egypt, UAE and other Arab countries run by the autocrats. Rather, these Arab tyrants are used as trustworthy partners in suppressing any democratic movement there. Democracy in the Arab World is taken as a threat to the national security interest of the west and the interest of Israel.

The investment of the USA in Egypt is huge. Since the signing of the Camp David Treaty in 1979, the USA invested 66 billion US dollars in military and non-military sectors. More than 500 Egyptian army officers receive training in the USA annually. General Abdul Fattah –the current ruler attended the US Army War College in Pennsylvania. Another high profile recipient of such training is the Air Force Chief Reda Mahmoud. The main purpose of such training is not to enhance their war skills, rather boost up their compatibility with the US policies of imperialistic hegemony through a deep paradigm shift in thoughts–especially through radical secularisation, deep de-Islamisation and indoctrination with the western world-views. Such indoctrination is giving enormous outcomes for protecting the imperialist interest of the West –not only in Egypt but also in other Muslim countries like Pakistan, Bangladesh, Saudi Arabia and others.

The cultural converts of the Muslim Armies look-alike to their western trainers and stand far alienated from the Islam-loving common people of their own country. Therefore what happened in Baghdad, Basra, Fallujah, Ramadi, Kabul or Kandahar by the US army, are also common occurrences in other Muslim cities by the so-called Muslim armies. They feel trigger happy to kill their own people –as now get commonly displayed in the streets of Cairo, Alexandra, Port Said and other Egyptian cities. Such a massacre of the Islamists also happened in Dhaka’s Shapla Square in Motijheel in Bangladesh on 5 May in 2013 and in Islamabad’s Lal Masjid in Pakistan in July 2007 during General Musharraf’s era.

 

The pet army and the imperialist strategy

The USA fought its longest war in Afghanistan. The defeat in this 20 years’ war has shattered the US confidence. That has brought a major shift in US policy. The USA and her ally are now reluctant to deploy their own forces in a foreign land. They don’t want to see more body bags of their own dead soldiers. Therefore they train and indoctrinate others to fight their wars in Muslim lands. To raise such mercenaries, the USA government donates 1.3 billion US dollars annually to the Egyptian army. Such money and training proved very effective to kill the moral and the cultural immunity of the Muslim trainees. As a result, they turn quickly genocidal. So, they don’t hesitate to launch genocidal massacres against their own people. Since they are doing the job, the USA and her ally do not need to deploy their own troop to kill the anti-Imperialists in any Muslim city. The Egyptian army is a true example of that.

This is why the end of the Army rule in Egypt in January 2011 was so unpalatable to the USA government. The USA’s trusted army generals were thrown out of the central stage of politics. It damaged their strategic goal. Since Dr Mohammad Morsi did not receive any Army training and indoctrination from the USA, they didn’t have any trust in him. Because of the democratic empowerment of the people and democratic institutions like the elected Presidency, the parliament, the common mass emerged as the main stakeholders of the politics –not the army generals. It was difficult both for the USA and the Egyptian army to accommodate such a revolution. Therefore, it became the prime objective of the USA and its ally to bring back the Army to the helm of affairs again. The USA did the same in Iran in the mid-fifties. They installed the deposed Mohammad Reza Shah after removing the elected Prime Minister Sharif Musaddesq. The USA did exactly the same in Chilli in the seventies.

Hence, from day one of the overthrow of Hosni Mubarak, the Army and their foreign patrons were waiting in ambush to reclaim the power and punish the people for taking part in the revolution. They drew a battle line between the secularists and the Islamists. They started with inciting the secularists against the Islamist President Morsi. Egypt’s deep state, the Army, the former cronies of the deposed Hosni Mubarak, and the secular media aligned with the secularists. During Dr Morsi’s short rule, the deep state created artificial gas, oil, electricity, and water crisis to make him unpopular. Huge money from Saudi Arabia, UAE and the USA flooded the political circles in Egypt to draw more people to the street. The final opportunity came on 3 July 2012 when the army Chief General Abdul Fattah Sisi overthrew Dr Muhammad Morsi.

After capturing the power, the Army turned its guns towards the people to take full revenge. Tanks, heavy artillery guns and other killing machines were rolled on the streets to massacre the unarmed anti-coup protesters –as seen in Rabaa al-Adabiya square of Cairo. General Sisi also dishonoured the popular election verdict by dissolving the elected parliament and throwing the approved constitution to the bin. The USA and its western ally proved again that they do not have any love for democracy in Muslim countries. They relish brutal autocracy there. So, the USA and its ally didn’t condemn even the worst brutality of the Army in Egypt. Thus the Arab World has become the free land for autocrats -protected by the USA-led west. No space is left for democracy. Recently on 25 July 2021, Tunisia -the only surviving democracy in the Middle East also suffered almost the same fate as happened in Egypt in 2012. The Arab secularists and their western allies were not happy with the Islamist al-Nahda’s dominance in the Tunisian parliament.  The secularist President Kais Saied froze the parliament and took all power in his own hand. Thus, he appears as an unfettered dictator. So it becomes a pure coup. The Arab Spring thus gets assassinated in its birthplace. The anti-democratic axis of Saudi Arabia, Egypt, UAE, Bahrain, and Jordan now gets another big success to celebrate. The Middle East proved again to be the Death Valley for democracy. And the US President continues to display the old robust immorality. He fails to tell that coup is a coup, genocide is genocide, and autocracy is autocracy.  President Obama showed such immorality in case of the coup in Egypt by General Abdel Fatah al-Sisi and President Biden shows the same in the case of Tunisia.

 

The Return of Mubarak Era

The Egyptian Army could never win any war. In 1967, the Israeli Army could easily take over the whole of Sinai Peninsula. They could only win over the unarmed countrymen. The generals have no love for democracy and no love for democratic values and institutions. In a democracy, the legality of the rule comes only through an election, not by any military coup. In a democratic country, a member of the army does not enjoy any extra power or privilege than any other citizen. But the Egyptian army generals have proven that they are not ready to comply with such equalising norms and values. Rather they have chosen the path exactly opposite to that. They have killed not only the legality of an elected president but also denied the existence of the elected parliament. The rule of law doesn’t work here. Hence the current President doesn’t feel any need to get his appointment through a general election. Democracy also entails a constitutional rule. But the Army also made it non-functional. Hence no such constitution exists in Egypt now. Here, only the military might sets the law of governance. The Army is applying it with full force.

After the removal of Husni Mubarak, the democratic government of Egypt went very fast to establish democratic institutions and procedures to ensure civilian rule. Pakistan took 9 years to frame a constitution. But in Egypt, in a period of only one year, not only a civilian president was elected by a highly contested election, but also a constituent assembly was voted to frame a constitution -which did its job successfully within a few months. The newly made constitution was put to a referendum and the people ratified it by a huge majority. But such achievements did not impress the Army. Rather they were infuriated by the huge empowerment of the people and their Islamic adherence. They did not like the newly built civic institutions like the elected presidency and the parliament either. Hence they pushed the wheel backwards.

Like a tyrant king, the Army Chief dismantled all the progress made in the last year by a single dictatorial announcement. Millions of votes of the people, the newly made constitution, the new constituted parliament and the newly elected President -all were thrown into the bin and the country started being ruled by day to day decrees given by an Army general. All the money, all the time, all the efforts and energy spent to hold so many elections, to run so many sessions and to write a constitution went totally in vain. This is a huge wastage. The country is taken back again to square one. The old autocratic Mubarak era returned back with all of its vices. Is it not enough to kill the confidence in democracy?

 

President Obama’s moral depletion

The US policy towards the Army coup in Egypt fully exposed the moral depletion of President Barak Obama. The US approval of the coup tells that loudly. The Army take-over was a 100 per cent military coup. It removed an elected President. In any form of democracy, it is a grave crime. An elected government may have a crisis, but a military coup must not be the solution. It must be solved within the democratic norms. But President Obama supported a crime against democracy. His narratives on Egypt looked heavily biased and charged with pro-Army overtone -as if the US government wished and worked for such a coup. Like Gen. Abdul Fattah Sisi, President Obama, too, claimed that the military take-over was made to promote democracy. What could be more childish ridicule than this? Did any Army make any coup in any part of the world to promote democracy? How could he nurture such a wishful optimism about the military coup? It beggars belief that how can a man with such a poor understanding of history be a President of the USA?

President Obama told that the Egyptian Army has popular support. In a democracy, there are established norms to measure the popularity of a person or institution. That is through a free and fair elections. In a city of 15 million, huge money can make the huge rally. The brutal tyrants of the Arab World were not sitting idle to foil democracy in Egypt –their common enemy. They knew, if democracy survives in Egypt, their own survival will be at risk. The USA’s ruling clique was not ready to see the Mubarak-like fate of their comrades in the Arab World. They were all in a coalition to contain or roll back the Arab Spring as quickly as possible. Hence the city of Cairo was flooded with money by the USA, the UAE, Bahrain and Saudi Arabia to bring people to the streets to protest against an elected President.

In later years, through the fake elections with barred credible opposition candidates, General Sisi showed his disdain for democracy. He could corrupt the whole electoral process to get more than 95 per cent votes in the so-called presidential election. As if, he has done miracles for the people of Egypt. As if, more than 95 per cent of votes owe to those miracles. In comparison, the European and the US leader who won the World War for their countries couldn’t get even 60 per cent votes. Even Winston Churchill –the war-time British Prime Minister lost the post-war election.

The democracy that has been promoted by the Army in Egypt is pure and brutal autocracy. But President Obama put his full faith in the Army that it will promote democracy. What a poor understanding! The Army has its own history and culture. Even an average knows that. The army makes coups only to dismantle democratic institutions and to promote its own hegemony on the state. It only imposes Army’s internal occupation on the people and the state institutions. Even a man with little common sense could foresee such a doomed fate of democracy under the Army rule. But President Obama and his western colleagues couldn’t realise that. It owes to the fact that the agenda of imperialist hegemony and deep love for the Arab tyrants obscured their insight.

After the coup, the US envoy and the EU delegate made visits to Cairo. But they didn’t put any pressure on the Army to avoid eminent blood baths. Rather they tried hard to generate support for the coup. They even tried to persuade the Muslim Brotherhood leaders to accept the coup as a way forward for democracy and to support the Army’s road map. How a party with democratic values and people’s mandate can accept such a coup as a way forward for democracy and take part in an Army-engineered road map? The Army holds elections only to make way for its own people to get elected and to ensure a sure defeat for its political opponents. Rigging election is the finest political art of the autocrat. Hence, Husni Mubarak had no difficulty getting more than 95% votes in each election, and could easily extend his rule for 3 decades. It is sure that General Abdul Fattah Sisi will follow Mubarak’s legacy and will face no difficulty to win any number of elections in the future. He had already shown such skills in rigging two presidential elections in the past. Like Hosni Mubarak and Bashar al-Asad, General Sisi, too, faced no difficulty to get more than 95 per cent of votes in those two elections. Thus the Arab countries proved to be free land for the tyrants. They can manufacture any election result to feed their political craze.

General Sisi also manufactured the needed excuse to make Muslim Brotherhood –his number one political enemy constitutionally illegal. He even labelled Muslim Brotherhood as a terrorist organisation. Hence his war on terror was tantamount to a war on Muslim Brotherhood. Fake trials are being arranged to hang hundreds of Islamists. Egypt stands third in the execution of political opponents -after China and Iran. In the whole world, the war on Islam is nowhere so much intense as it is in Egypt. Hence, of all Muslim countries, Egypt receives the highest amount of aid and political support from the USA – the lead country in the war on Islam. The US money is thus being spent on eliminating the Islamists.

 

 

The agenda of political hegemony overrides morality

If Barak Obama had any interest in the democratic process in Egypt, he would have at least labelled the Army coup as a coup and asked for the restoration of the legally elected President and the constitution. This way he could frustrate the usurper of the democratic rights of the people by the Army and discourage further coups. But the US government is not taking that route. The imperialist agenda has overridden the democratic agenda. The dismissal of the elected President and the annulment of the constitution by the Army have no legality –neither in Egyptian law, nor in international law. The constitution is the property of the people. Only the people possess the right to make any change in it or discard it. They execute their rights through ballots. The people have not delegated such right to an Army General. Likewise, the President can only be removed by a general election. These are not only the norms in the USA but also in Egypt. In the USA, breaking such norms is a grave criminal offence. The USA constitution prohibits its government from sending any aids to such criminals operating in other countries. But President Obama has taken a different posture. For the sake of protecting such criminals from prosecution and to continue the US aid, he is not even ready to call the criminal a criminal. Nor is he ready to label the criminal act of coup as a coup. Here lies the serious moral deficiency of President Obama. With such sick morality, President Obama can go to any extent with the criminal coup makers. But how can he ask other sane people to support such an insane act?

President Obama didn’t consider the restoration of democratic rights of the common Egyptians helpful for his country’s national security interest. Protecting such interests is taken as a sacred item in US politics. But it is ignored to save the lives of millions of innocent people in another country. The issue of basic human rights also gets ignored. For securing so-called national interests, the US government never hesitated to execute even the worst barbaric option in the past. Other people’s life and right never matter to them. In the past, they did not bother even to drop nuclear atom bombs on the Japanese cities. Neither did they bother to invade counties like Vietnam, Afghanistan, Iraq, Syria, and others and destroy hundreds of cities and kill millions. Nor do they dislike working with autocratic devils like Saddam, Pinochet or Shah of Iran.

President Obama and his western colleagues must have congratulated the Egyptian Army for doing the same brutalities as the US-led NATO Army did in Afghanistan, Iraq, and Syria. For the USA, such a military coup is not a vice, rather the desired necessity. Hence it is will be naïve to believe that the Army made the coup without President Obama’s prior approval.  How the Army leader can make such a serious decision of a coup without the consent of their US paymaster -who made a payment of $66 billion since 1979. The Americans are not so foolish to keep any disobedient and disconnected officer in their payroll. 

 

The Grand Alliance

The coup leaders in Egypt are the long-time trusted partners of the USA. The American national interest lies in protecting not only the American interest but also the interest of Israel. It also entails protecting the oil-reach monarchs in Saudi Arabia, UAE, Kuwait, Bahrain, Qatar, Oman and others from the emerging Islamists. It implies preventing any Islamic resurgence in the Muslim World. This is why the “war on Islam” becomes so important in the USA-led western agenda. It is also a war on democracy, too. They know very well that democracy in Muslim countries means the victory of Islamists. So closing the door of democracy in the Muslim World is a prime agenda in the USA-led western foreign policy,

After the ouster of Tunisia’s Ben Ali, Egypt’s Husni Mubarak, Libya’s Gaddafi and Yemen’s Ali Abdullah Saleh, these monarchs of the Gulf countries were trembling for their own turn. The USA was worried not only about the vulnerability of these monarchs but also about their secure oil supply. So it was important for the USA and for her ally to stop the tide of the people’s up-rise without any further delay. Hence they planned and heavily invested in an Army coup in Egypt. This is why the coup in Egypt is not the Army’s own making, rather the joint venture of the USA-led grand alliance. And it became clearer after the coup. Instead of condemning the coup, the US government started giving economic and military aid. Along with US aid, a huge amount of money also started flowing from the Arab monarchs. Saudi Arabia alone gave $5 billion to the coup leaders; many more billions came from Kuwait and UAE.

                               

Imposed warpath

The Army and its secular comrades not only deposed the elected President and his democratic government but also imposed a very brutal war on the Islamists. In Egyptian history, such crimes of the army and the secularists will never be forgotten and forgiven. The Muslim Brotherhood entered into democratic politics and won the presidency and the majority parliamentary seats by peaceful elections. They even compromised on some sharia issues to make them acceptable to their Democratic colleagues. But the Army and its secular partners do not want them to take that democratic route. In fact, they have dragged them out of the newly-set democratic train. Now the Army and its secular allies are labelling them as Islamic fascists and terrorists. They are using the same allegations against the Islamists as were used by the Americans against Al Qaida affiliates after the nine-eleven and during the invasion of Afghanistan and Iraq. So the implied message to the Muslim Brotherhood and other Islamists is clear: “You –the Islamists, have no place in democracy –even if you get majority votes in elections. It is the sole domain of pro-western secularists and liberalists.” So, the question arises, is it an argument for political reconciliation cum peaceful co-existence? Such a notion can only provoke to political elimination of the Islamists. And the Army and its ally have already taken that route. So the agenda is clear, they are decided to take a warpath. They want to make another Afghanistan in the Middle East.

To justify their coup, the Army and its secular affiliates are spreading a lot of lies against the Islamists. They are telling that Muslim Brotherhood members are terrorists and they had weapons while had a sit-in in Rabaa Al Adweya and Al-Nahda squares. But there is no proof of such allegation. Many foreign journalists and human rights activists were there. None could find any trace of such arms among the Islamists. Moreover, how could they label Dr Muhammad Morsi and his supports as fascists and terrorists? While Dr Muhammad Morsi was the President, no massacre took place in any part of Egypt. No gun, no tank, no artillery and no helicopter gunship were deployed to terrorise and kill people in any city. On the contrary, Dr Morsi’s opponents caused havoc on Cairo’s streets. They killed Muslim Brotherhood’s many workers and destroyed many offices including the party’s headquarter. The ruling army and its secular bedfellows made it clear that they are not ready to give any pace for the Islamists in Egypt’s politics. Rather, they are desperate to break their backbone –as was tried by Gamal Abdun Nasser and Husni Mubarak in the past. Now the Islamists have their back on the wall. They have only two options: either to surrender or fight back. But the concept of surrender does not exist in Islamists’ vocabulary. So, resistance is not only eminent, rather it has already started. The tyrants can kill people, but can’t kill an ideology.  

So far, the Islamists’ resistance has been peaceful and non-violent. But the army does not want such non-violent protest to survive in the Egyptian cities. They are labelling such protests as Egypt’s security threat. They want to remove such threats by using indiscriminate firearms and thus killing thousands –as they did in Cairo’s Rabaa al Adabiya, An Nahda, and Ramsees squares. This way, they want to bring an end to the non-violent street protests. The Islamists are now realising that Gandhian non-violence is not going to work against helicopter gunships and tanks of the bloodthirsty generals. Many of them must be thinking about Islam’s own and only option –that is Jihad. So far, Muslim Brotherhood has worked as a huge firewall against such jihadi options. But now such a firewall is being dismantled by the Army’s tanks, artillery fires and helicopter gunships. 1st edition 18/08/2013; 2nd edition 28/07/2021.




  বিবিধ ভাবনা ৬৯

ফিরোজ মাহবুব কামাল

১. দুর্নীতি নির্মূলের পথ

কোন চোর বা ডাকাত যদি বলে, সমাজ থেকে সে অপরাধ দুর করবে –তবে তার চেয়ে বড় মশকরা আর কি হতে পারে? বাংলাদেশে সে কৌতুকও হয়। চোর-ডাকাতদের ন্যায় অপরাধীগণ শুধু অপরাধই বাড়াতে জানে, অপরাধের নির্মূল নয়। বাংলাদেশের ইতিহাসে তাই সবচেয়ে বড় কৌতুক হলো, ভোট ডাকাতি করে যে শেখ হাসিনা দেশকে হাইজ্যাক করলো -সে নাকি দেশকে দুর্নীতি মুক্ত করবে। বরং দেশ জুড়ে দুর্নীতির জোয়ার আজ যেরূপ প্রবলতর হচ্ছে -তার কারণ তো হাসিনার ন্যায় ভোটডাকাতের শাসন।

দেশকে তো তারাই দুর্নীতি মুক্ত করতে পারে যারা নিজেদের প্রথমে দুর্নীতিমুক্ত করে। দুর্নীতিবাজগণ সব সময়ই নিজেদের আশে পাশে বন্ধু বা সহকারি রূপে দুর্নীতিবাজদের বেছে নেয়। তাদের নিজেদের মনে থাকে সুনীতির ধারকদের বিরুদ্ধে প্রবল ঘৃণা। কারণ তারা জানে, তাদের বিরুদ্ধে সৎ ও সুনীতির ধারকদের ঘৃণাটিও অতি প্রবল। রাজনীতির ময়দানে তারা তাদের ঘোরতোর শত্রু। সৎ মানুষদের কাছে রাখলে যখন তখন তাদের দুর্নীতির গোপন বিষয় অন্যদের কাছে বলে বিপদ ঘটাতে পারে। এজন্যই সৎ মানুষদের নিজেদের আশে পাশে রাখাকে তারা নিজেদের জন্য বিপদ মনে করে। ফলে চোর-ডাকাত দেশের প্রধানমন্ত্রী হলে তার অন্যান্য মন্ত্রী ও সচিবগণ চোর-ডাকাত হয়। শাসক খুনি হলে, আশে পাশেও সে খুনিদের রাখে। কথায় বলে ঝাঁকের মাছ ঝাঁকে চলে। সেটি অতি সত্য দুর্নীতি পরায়ন ব্যক্তিদের ক্ষেত্রেও।

তাই দেশকে দুর্নীতি মুক্ত করতে হলে সে নির্মূলের কাজটি উপর থেকে শুরু করতে হয়। সরকারের সর্বোচ্চ আসনে সবচেয়ে বড় চোর বা ডাকাতকে বসিয়ে গ্রামের ছিঁছকে চোরকে জেলে পাঠিয়ে দেশ দুর্নীতিমুক্ত হয় না। বিষয়টি গাছের বিশাল কান্ডকে অক্ষত রেখে ছোট ডালা পালা কাটার ন্যায়। চোর-ডাকাতগণও তাদের আশে-পাশের সহচরদের মাঝে কিছু দান খয়রত করে। কিন্তু তাতে দেশের কল্যাণ হয়। সে দানখয়রাতের মাঝে রাজনীতি থাকে। এখানে লক্ষ্য, দুর্নীতিবাজ শাসকের পক্ষে চাটুকর বৃদ্ধি। এ চাটুকরগণ চোরডাকাত ও ভোটডাকাত সরকারের পক্ষে রাজপথে জিন্দাবাদ বলে। এবং চোরডাকাতকে ফেরেশতা বলে প্রচার করে। বাংলাদেশে সেটিই হচ্ছে। 

 

২. সংকট জনগণের স্তরে

সম্প্রতি বিশিষ্ঠ লেখক ও গবেষক ডাক্তার পিনাকী ভট্রাচার্যের একটি কঠোর মন্তব্য যথেষ্ট ভাইরাল হয়েছে। পিনাকী ভট্রাচার্য বলেছেন, “আওয়ামী লীগ দুনিয়ার সব চাইতে স্মার্ট পলিটিক্যাল পার্টি, এরা “গু”কেও হালুয়া বলে ওদের সাপোর্টারদের খাওয়ায়ে দিতে পারে।” এটি বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে তাঁর গভীর উদ্বেগ ও অতিশয় বেদনার কথা। আসলে বিষয়টি তা নয়। রোগটি আরো গভীরে। সারাতে হলে সেই গভীরে হাত দিতে হবে।

আসলে আওয়ামী লীগ স্মার্ট নয়। বরং বুদ্ধিবিবেচনাহীন আবাল হলো বাংলাদেশের জনগণ। অন্যরা জনগণের সে আবাল-অর্বাচীন অবস্থা থেকে ফায়দা নেয়না, কিন্তু আওয়ামী লীগ পুরাদমে নেয়। এ অপ্রিয় সত্য কথাটি বলতেই হবে। নইলে সত্য লুকানোর গুনাহ হবে। মহান আল্লাহতায়ালা পবিত্র কুর’আনে এক শ্রেণীর মানুষকে গরুছাগলের চেয়েও নিকৃষ্ট বলেছেন। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহতায়ালার নিজের কথাটি হলো, “উলাইয়েকা কা’আল আনয়াম, বাল হুম আদাল।” অর্থ হলো: তারাই গবাদী পশুর ন্যায়, বরং তার চেয়েও নিকৃষ্ট। মানুষ যে কতটা নীচে নামতে পারে -তা নিয়ে মহাজ্ঞানী মহান স্রষ্টার এই হলো নিজস্ব বয়ান। তাছাড়া বাঙালীর মানুষ রূপে বেড়ে উঠার ব্যর্থতা নিয়ে দারুন অভিযোগ ছিল রবীন্দ্রনাথেরও। তিনি লিখেছিলেন, হে বিধাতা সাত কোটি প্রানীরে রেখছো বাঙালী করে, মানুষ করোনি। ট্রান্সপেরেন্সি ইন্টার ন্যাশনালের জরিপে বাংলাদেশ এ শতাব্দীর শুরুতে বিশ্বের সকল দেশগুলির মাঝে দুর্নীতি পর পর ৫ বার প্রথম হয়েছে। এটি ভয়ানক চারিত্রিক অসুস্থ্যতার কথা। কিন্তু তা নিয়ে বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবী কথা বলে না। কথা বলে না রাজনীতিকগণও। যেন কিছুই হয়নি। অথচ এটি তো যে কোন সভ্য মানুষের মগজে ঝাঁকুনি দেয়ার কথা। বাঙালীর এ ব্যর্থতা রবীন্দ্রনাথের মগজে ঝাঁকুনি দিয়েছিল বলেই তিনি বিধাতার কাছে উপরুক্ত ফরিয়াদ তুলেছিলেন।   

ক্যান্সারের ন্যায় চারিত্রিক বা চেতনার রোগের সিম্পটমগুলোও গোপন থাকে না। সে সিম্পটমের কিছু উদাহরণ দেয়া যাক। হংকং’য়ের জনসংখ্যা ৮০ লাখ। চীনের স্বৈরাচারী সরকার সেখানে এতো দিন চলে আসা গণতান্ত্রিক অধিকারগুলি কেড়ে নিয়েছে। প্রতিবাদে ২০ লাখ নারী-পুরুষ প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছে। অর্থাৎ প্রতি ৪ জনের একজন রাস্তায় নেমে এসেছে। হাজার হাজার মানুষ কারাবন্দী হয়েছে। এ হলো মানুষের গণতন্ত্রের প্রতি ভালবাসা ও চেতনার মান। ঢাকা শহরের জনসংখ্যা প্রায় দুই কোটি। গণতন্ত্র বাংলাদেশেও কেড়ে নেয়া হয়েছে। নির্বাচন না হয়ে ভোট ডাকাতি হয়ে গেছে। কিন্তু ২০ লাখ দূরে থাক, ২০ হাজার মানুষও রাস্তায় নামেনি। মানুষ যখন তার মানবিক চেতনা হারিয়ে ফেলে তখন সে গণতন্ত্র নিয়ে ভাবে না।

বাংলাদেশের বিপুল সংখ্যক জনগণ যে কতটা আবাল – ইতিহাস থেকে তার কিছু প্রমাণ দেয়া যাক। শেখ মুজিব ১৯৭০ সালের নির্বাচনে ৮ আনা সের চাউল ও সোনার বাংলা গড়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট নিয়েছিল। ওয়াদা দিয়েছিল গণতন্ত্রের। কিন্তু খাইয়েছিল ৮ টাকা সের চাউল। গণতন্ত্রকে কবরে পাঠিয়ে একদলীয় বাকশালী স্বৈরাচার উপহার দিয়েছিল। শেখ মুজিব নিজেকে আমৃত্যু প্রেসিডেন্ট করার ব্যবস্থা করেছিল। এক দেশ, এক নেতার বাকশালী তত্ত্ব বাজারে ছেড়েছিল। তিরিশ হাজারের বেশী বিরোধী দলীয় রাজনৈতিক নেতাকর্মীকে হত্যা করেছিল। ইসলামপন্থীদের জন্য রাজনীতি নিষিদ্ধ করেছিল। সোনার বাংলার বদলে দুর্ভিক্ষের বাংলায় পরিণত করেছিল। বহু লক্ষ মানুষকে হত্যা করেছিল দুর্ভিক্ষ ডেকে এনে। স্বাধীনতার বদলে দিয়েছিল ভারতের গোলামী। শেখ মুজিব ভারতের সাথে মিলে আগরতলা ষড়যন্ত্র করেছিল। এ ষড়যন্ত্রের সত্যতা এখন আওয়ামী লীগের নেতাগণও স্বীকার করে। ভারতীয় পণ্যের বাজার নিশ্চিত করতে দেশীয় শিল্পকে ধ্বংস করেছিল। বিশ্বের সর্ববৃহৎ পাটকল আদমজী জুটমিলকে লোকসানী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছিল। মুজিবের ইতিহাসটিই তাই বিশ্বাসঘাতকতা ও জাতি-বিরোধী গুরুতর অপরাধের।  কিন্তু সে শেখ মুজিবকে আবাল বাঙালীগণ জাতির বাপ ও বঙ্গবন্ধু বলে? এমনটি কি কোন সভ্য দেশে ঘটে? সভ্য দেশে এরূপ অপরাধীদের তো ইতিহাসে আস্তাকুঁড়ে ফেলে। কখনোই বাপ বলে না। এরূপ আবাল জনগণকে হালুয়ার নামে বিশুদ্ধ “গু” খাইয়ে দিতে কি স্মার্ট হওয়া লাগে?

হাসিনা ২০১৮ সালে ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতা হাইজ্যাক করলো। এটি কি ভারত, পাকিস্তান, নেপাল বা শ্রীলংকার ন্যায় অন্য কোন প্রতিবেশী দেশে সম্ভব? সম্ভব নয়। কারণ ঐসব দেশের লোক এতো আবাল নয়। তাই ভোট ডাকাতির কথা সেসব দেশে কোন চোর বা ডাকাত ভাবতেই পারে না। সভ্য মানুষেরা ডাকাত দেখলে দল বেঁধে হাতের কাছে যা পায় তা দিয়ে হামলা করে। কিন্তু বাংলাদেশে সেটি ঘটে না। বরং ঘটে উল্টোটি। ডাকাত সর্দারনীর গলায় বিজয়ের মালা পড়িয়ে তাকে সন্মানিত করা হয়। শুধু আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীগণই নয়, দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর, আদালতের বিচারক, সংসদের সদস্য, সরকারের সচিব, মিডিয়া কর্মী, বু্দ্বিজীবী ও উকিলগণ যে কতটা আবাল সেটি বুঝা যায় যখন তারা একজন ভোটডাকাতকে সভা-সমিতির বক্তৃতায় বা লেখনীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলে। অথচ সভ্য মানুষ তো বাঁচে দুর্বৃত্তদের প্রতি প্রবল ঘৃণা নিয়ে। এটুকু বিলুপ্ত হলে কি সভ্যতা, মানবতা ও নৈতিকতা বাঁচে?      

 

৩. ডাকাতের উপর ভরসা

এক বক্তৃতায় শেখ হাসিনা জনগণকে তার উপর ভরসা করতে বলেছে। অথচ এক্ষেত্রে তার নিজের আচরণটি লক্ষণীয়। হাসিনা নিজে কিন্তু জনগণের ভোটের উপর কখনোই ভরসা করেনি। জনগণের ভোটের উপর ভরসা না করে রাতে ভোট ডাকাতি করে গদিতে বসেছে। কথা হলো, ডাকাতের উপর ভরসা করা কি কোন বু্দ্ধিমানের কাজ হতে পারে? এটি তো আবাল বেওকুপদের কাজ। কোন বুদ্ধিমান সভ্য ও সাহসী মানুষ কি কখনো ডাকাতের উপর ভরসা করে? তারা তো হাতের কাছে যা পায় তা দিয়ে ডাকাত তাড়াতে রাস্তায় নামে। হাসিনা যে ভাবে ক্ষমতায় এলো সেটি কি কোন সভ্য দেশে সম্ভব? হাসিনা বাংলাদেশীদের জন্য যা বাড়িয়েছে তা উন্নয়ন নয়, বরং সীমাহীন দুর্নীতি ও বিশ্বজুড়া অপমান।

 

৪. পরকালের ভয় থেকেই চারিত্রিক বিপ্লব

মিথ্যাচার, চুরি-ডাকাতি, সন্ত্রাস, খুন, ধর্ষণ ও ব্যাভিচারের ন্যায় নানারূপ পাপের পথে নামার মূল কারণটি হলো পরকালের ভয় না থাকা। সে রায়টি অন্য কারো নয়, সেটি মহাজ্ঞানী মহাপ্রভু মহান আল্লাহতায়ালার। বিষয়টি তিনি সুস্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন সুরা মুদাছছেরের ৫৩ নম্বর আয়াতে। কোন মানুষের মনে যদি এ ধারণা বাসা বাঁধে, সামান্য কিছু বছরের এ পার্থিব জীবনটি পাপ থেকে পবিত্র রাখলে অনন্ত অসীম কালের জন্য জাহান্নামের আগুনে দগ্ধিভুত হওয়া থেকে বাঁচা যাবে -তবে সে ব্যক্তি কখনোই গুনাহর পথে পা রাখে না।

এক ফোটা পানির সাথে মহা সমুদ্রের বিশাল পানির তুলনা করা যায়। কারণ দু’টোই সসীম। কিন্তু ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন বছরেও যে অনন্ত পরকালীন জীবন শেষ হওয়ার নয়, সে জীবনের সাথে কি ৭০ বা ৮০ বছরের জীবনের তুলনা হয়? তাই সামান্য ক্ষণের জন্য পাপে নেমে কেন সীমাহীন কালের জন্য জাহান্নামের আগুনে জ্বলবে? এটি তো গুরুতর ভাবনার বিষয়। এ ভাবনাটুকুই হলো তাকওয়া। প্রকৃত ঈমানদার প্রতি মুহুর্ত বাঁচে এ ভাবনা নিয়ে। এ ভাবনা ঈমানদারের জীবনে প্রতি  মুহুর্তে পুলিশের কাজ করে। এমন ব্যক্তিগণ তাদের সমগ্র সামর্থ্য বেশী বেশী নেক আমলে ব্যয় করে। এমন ব্যক্তিরাই ফেরেশতায় পরিণত হয়।

কিন্তু যার মনে জাহান্নামের ভয় নাই, পাপের পথে চলায় তার কোন নৈতিক বাধাই থাকে না। পাপের মধ্যে তখন তার জন্য আনন্দ-উৎসবের কারণ হয়। অথচ সামান্য পাপও ঈমানদারকে বেদনা দেয়। সে তাওবা করে সে পাপ থেকে বাঁচার। অথচ সে বোধ বেঈমানের থাকে না। তাই চোর-ডাকাত, ভোট-ডাকাত ও গুম-খুনের রাজনীতির নায়কদের দেখে নিশ্চিত বলা যায় এরা বেঈমান। এদের মনে আখেরাতের কোন ভয় নাই। ভয় থাকলে পাপ তাদের আনন্দ দিত না। পরিতাপের বিষয় হলো, বাংলাদেশে চলছে এ বেঈমানদেরই রাজত্ব।

পবিত্র কুরআনের বিশাল ভাগ ব্যয় হয়েছে বস্তুত আখেরাতের ভয়কে তীব্রতর করতে। বিশেষ করে মক্কায় নাযিলকৃত সুরা গুলিতে। তাই যারা নিজের মনে আখেরাতে ভয় সৃষ্টি করতে চায় তারা মনযোগী হয় বেশী বেশী কুর’আন বুঝতে। কিন্তু যারা না বুঝে কুর’আন তেলাওয়াত করে -তাদের মনে সে ভয় জাগে না। অথচ বাংলাদেশে না বুঝে কুর’আনের কাজটিই বেশী বেশী হচ্ছে। ফলে পবিত্র কুর’আন যে চারিত্রিক বিপ্লব আনে সেরূপ বিপ্লব বাংলাদেশে ঘটছে না।

 

৫. জীবনটাই পরীক্ষাময়

মানুষের মাঝে সম্পদ, সন্তান, বিদ্যা-বুদ্ধি ও স্বাস্থ্যের ন্যায় মহান আল্লাহতায়ালার নানা রূপ নিয়ামতের যে ভিন্ন ভিন্ন বন্টন তা নিয়ে যে ক্ষোভ –তা থেকেই জন্ম নেয় হিংসা-বিদ্বেষ। এটি মহান আল্লাহতায়ালার প্রজ্ঞা ও নীতির বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। তাই এটি বিশাল পাপ। এটি বস্তুত বেঈমানীর লক্ষণ। এ বন্টন নিয়ে রাজী থাকা এবং সন্তুষ্টির যে প্রকাশ –সেটিই হলো শুকরিয়া। সেটিই প্রকৃত ঈমানদারী ও তাকওয়া।

এ পার্থিব জীবনের প্রতিটি মুহুর্ত জুড়েই হলো পরীক্ষা। জীবনের প্রতিটি নিয়ামত ও বিপদ-আপদ বিনা উদ্দেশ্যে আসে না, আসে পরীক্ষা নিতে। সকল মানুষের ঈমানের ও যোগ্যতার মান যেমন সমান নয়, তেমনি এক নয় পরীক্ষাপত্রও। তাই প্রত্যেকের হাতে ভিন্ন ভিন্ন পরীক্ষাপত্র। কাউকে পরীক্ষা নেন সম্পদ, সন্তান ও স্বাস্থ্য দিয়ে। আবার কারো জীবনে পরীক্ষা আসে সেগুলি সীমিত করে বা না দিয়ে। জান্নাত পেতে হলে এ পরীক্ষায় পাশ করতেই হবে। ঈমানদারী তো এ পরীক্ষায় পাশ করার সার্বক্ষণিক চেতনা নিয়ে বাঁচা। প্রকৃত প্রজ্ঞা হলো, প্রতি মুহুর্তে সে পরীক্ষায় পাশের সামর্থ্য বাড়ানো। সেটি কুর’আনী জ্ঞান, সঠিক দর্শন ও বুদ্ধিবৃত্তিকে কাজে লাগিয়ে। এ কাজটি দেশের মসজিদ-মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ, মিডিয়া ও বুদ্ধিজীবীদের। কিন্তু বাংলাদেশে সে কাজটিই যথার্থ ভাবে হচ্ছে না।      

                                                                                                                         ৬. উন্নয়নের সঠিক ও বেঠিক মাপকাঠি

দেশে কতগুলি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়, কলকারখানা, রাস্তাঘাট, ব্রিজ ও বিল্ডিং হলো -সেটি উন্নয়নের সঠিক মাপকাঠি নয়। বরং সঠিক মাপকাঠিটি হলো, দেশে কতজন নর-নারী প্রতারক, চোর-ডাকাত, সন্ত্রাসী, খুনি ও ব্যাভিচারী না হয়ে সৎ, চরিত্রবান ও সৃষ্টিশীল মানুষ রূপে বেড়ে উঠলো -সেটি। এ মাপকাঠিতে বাংলাদেশের উন্নয়নের মান বিশ্বের দরবারে অতি নীচে। এ দিক দিয়ে সবচেয়ে দুরাবস্থা দেশের শাসক চক্রের। তারাই নীচের নামার দৌড়ে প্রথম সারীতে।

মহান আল্লাহতায়ালার দরবারে এ প্রশ্ন কখনোই তোলা হবে না, দেশে কতগুলি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়, কলকারখানা, রাস্তাঘাট ও বিল্ডিং গড়া হয়েছিল এবং সে গড়ার কাজে কার কি ভূমিকা ছিল। বরং যে প্রশ্নের জবাব দিতে প্রত্যেককেই কাঠগড়ায় অবশ্যই দাঁড়াতে হবে তা হলো, পাপচার থেকে জীবন কতটা পবিত্র ছিল এবং নেক আমলের ভান্ডার কতটা সমৃদ্ধ ছিল? বিপদের কারণ হলো, মুসলিমের জীবন থেকে আখেরাতের সে মাপকাঠিগুলোই ভূলিয়ে দেয়া হয়েছে। কারণ, সেক্যুলারিজমে আখেরাতকে গুরুত্ব দেয়াটি নীতি বিরুদ্ধ।  আখেরাতের ভাবনা গণ্য হয় পশ্চাতপদতা রূপে। উন্নয়নের এমন সব মাপকাঠি খাড়া করা হয়েছে যা উন্নয়ন নিয়ে শুধু বিভ্রান্তিই বাড়িয়েছে। এবং আখেরাতে যা গুরুত্বহীন সেগুলিকে অধিক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

মহাসড়কে গাড়ি চালনার সময় গন্তব্যস্থলকে সব সময় স্মরণে রাখতে হয়্ সেটি স্মরণে না থাকলে গাড়ি চালনাই ভিন্ন পথে হয়। তেমনি জীবন চালনায় সব সময় স্মরণে রাখতে হয় আখেরাতকে। এবং প্রস্তুত রাখতে হয় মহান আল্লাহতায়ালার দরবারে যে প্রশ্নগুলির সম্মুখীন হতে হবে -সেগুলির জবাব নিয়ে। অথচ বাংলাদেশের শিক্ষা, সংস্কৃতি, রাজনীতি ও বুদ্ধিবৃত্তির কাজ হয়েছে শুধু আখেরাতকেই ভূলিয়ে দেয়া নয়, বরং বিচার দিনের গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নগুলিকেও ভূলিয়ে দেয়া। যাতে মানুষ সে ভয়ানক দিনটির জন্য নিজেকে প্রস্তুত না করতে পারে। শয়তান তো সেটিই চায়।    

 

৭. বাঁচা ও মরার এজেন্ডা

মানব জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো বাঁচা-মরার এজেন্ডা। এটি এতোই গুরুত্বপূর্ণ যে এখানে ভূল হলে সমগ্র বাঁচাটিই ব্যর্থ হয়। অথচ মানব এই এজেন্ডা নির্ধারণেই সবচেয়ে বেশী ভূল করে। সে ভূল থেকে বাঁচাতে সে এজেন্ডাটি বেঁধে দিয়েছেন মহান আল্লাহতায়ালা। কুর’আনে সে এজেন্ডার কথাটি বলা হয়েছে এভাবে: “ক্বুল ই্ন্নাস সালাতি ওয়া নুসুকু ওয়া মাহইয়া’আ ওয়া মামাতি লিল্লাহে রাব্বিল আলামীন।” অর্থ: “বলো (হে মুহম্মদ) আমার নামায, আমার কুরবানী, আমার বাঁচা ও আমার মৃত্যু বিশ্ব প্রতিপালক আল্লাহর জন্য।”। তাই মুসলিম বাঁচে, লড়াই করে ও প্রাণ দেয় কোন নেতা বা দলের স্বপ্ন পূরণে নয় বরং একমাত্র মহান আল্লাহর ইচ্ছা পূরণে। একমাত্র এরূপ বাঁচাতেই প্রকৃত ঈমানদারী। যে বিশ্বাসটি মহান আল্লাহতায়ালার ঈমানদারের চেতনায় সর্ব সময়ের জন্য বদ্ধমূল করতে চান সেটি হলো: “ইন্না লিল্লাহি ও ইন্না ইলাইহি রাজিয়ুন।” অর্থ: “নিশ্চয়ই আমরা আল্লাহর জন্য এবং আল্লাহতেই আমাদের ফিরে যাওয়া।” মুমিনের বাঁচা ও মরার পিছনে এটিই তো মূল দর্শন। এই দর্শনই জীবনে সঠিক পথ দেখায়।

বাঁচা ও মরার এ কুর’আনী পথটিকেই বলা হয় সিরাতুল মুস্তাকীম। পথটি অন্য রূপ হলে সেটি জাহান্নামের অন্তহীন আযাবকে অনিবার্য করে। সেটিই হলো শয়তানের পথ। রাষ্ট্র দুর্বৃত্তদের হাতে অধিকৃত হলে যা অসম্ভব হয় তা হলো, আল্লাহর লক্ষ্যে বাঁচা ও প্রাণ দেয়া। তখন নিষিদ্ধ হয় জীবনে জিহাদ নিয়ে বাঁচা। জিহাদ তো মহান আল্লাহতায়ালা-প্রদত্ত ইসলামী বিধানকে বিজয়ী করার চেতনা নিয়ে বাঁচা ও প্রাণ দেয়া। ইসলামের শত্রুগণ সেরূপ জিহাদ নিয়ে বাঁচাকে সন্ত্রাস বলে। এভাবেই বাঁধা দেয় জান্নাতের পথে চলায়। শয়তানী শক্তির হাতে দেশ অধিকৃত হওয়ার এটিই হলো সবচেয়ে বড় বিপদ। ২৫/০৭/২০২১

 




The Rohingya Muslims: the largest stateless people on the earth

Dr. Firoz Mahboob Kamal

Shame on the UNO and the World Powers

It is a huge shame on the UNO and the big players of world politics that they failed badly to solve the “textbook case” of recent ethnic cleansing. As a result, the criminals who committed such crimes stand unpunished and continue to do the crime. Robbery on wealth, arson on homes, and evictions from homestead and businesses are all awful punishable crimes. But it is more awful to lose nationality. Nationality gives a man or a woman the identity. It is called citizenship. For living, moving, and accessing any legal right in a state, citizenship is crucial. It is so important that the physical existence of a person doesn’t get counted if there exists no citizenship.

It is a universal norm since the prehistoric date of human civilization that every human is born somewhere on the planet with the guaranteed citizenship right. A man or woman doesn’t need to fight for that. But such an old civilized practice doesn’t work in Myanmar. More than a million Rohingya Muslims are deprived of their citizenship right -although they have lived there for centuries. They are stripped of the right by a military dictator in 1982. As a result, they are the largest stateless people on the earth. And the consequence is awful; the whole planet looks alien to them. Now they stand deprived of both human rights as well as citizenship right. It is appalling that such a horrendous crime could happen in the modern world! Although it is against all universal norms, values, and civility, the world community didn’t do anything to undo such a crime.

Deprivation of citizenship worked as a prelude to ethnic cleansing. Since the Rohingya people were declared non-citizens in 1982, instantly labeled unlawful to stay in Myanmar. In fact, they made laws to legalize eviction. On such a manufactured pretext, the ethnic cleansing of the Rohingya Muslims is going on for more than three decades. Only at the finishing stage, the issue has become a global issue because of its catastrophic proportion. Now the Myanmar government -as well as other complicit patrons of the crime, wants to quickly scale it down. The best way of doing that is to make it a bilateral issue only with Bangladesh. On the Kashmir issue, former Prime Minister Indira Gandhi of India could seduce Zulfiqar Ali Bhutto- the former Prime Minister of Pakistan to fall into the same trap. Hence on the liberation of Kashmir, Pakistan cries alone in the UNO and on other global stages. The Kashmiri people are not given the peaceful democratic choice to decide their fate. They are left with no option but to take the path of armed struggle. Now it seems Bangladesh is being enticed to fall into the same trap of so-called bilateralism.

The Myanmar Government is so insensitive to the humanitarian element of the Rohingya crisis that even the UN Secretary-General failed to convince the Myanmar government to allow some neutral observers to oversee what is going on in Rakhine state. Even the International Red Cross boss couldn’t convince these rogues to allow some relief goods and medicines for the displaced and sick Rohingya people. They have proven to be stubborn liars and killers. Even Aung San Suu Kyi –the former de-facto leader, didn’t prove better either. Even she denied any ethnic cleansing or killing of the Rohingya Muslims in Myanmar. As if, about a million Rohingya people descended from the heaven on the soil of Bangladesh! How can one negotiate with such killers, deniers, and liars?

Since genocidal cleansing of a population is a gross violation of universal human rights, it is always a global issue. The Bangladesh government can’t solve the human rights issue inside another country like Myanmar. It has already signed many bilateral agreements with Myanmar, for example, one in 1992. So far, none has worked. As a result, more than 400,000 Rohingya Muslims -who came in previous years, never could return back. They are living in refugee camps in Bangladesh for decades. Hence, one can easily guess that any future bilateral agreement with Myanmar will also fail to convince Myanmar to take back the recent arrivals. Moreover, the Myanmar government is in a state of total denial of the crime of ethnic cleansing and genocidal cleansing that has been committed to the Rohingyas. So they will surely put resistance to bear the burden of the alleged crime. In fact, they have made such a position clear by embedding the Myanmar-Bangladesh border with thousands of mines. It is done only to obstruct the return of the refugees.

The ethnic cleansing of the Rohingya Muslims must be put on the global stage. Since the genocidal regime of Myanmar is not the creation of Bangladesh, therefore Bangladesh government can’t take the burden of solving the problem on her own. It is a burden on all fellow humans. Moreover, the Bangladesh government must deploy its all wisdom and political acumen to turn Rohingya Muslims’ case into a pan-Islamic as well as a pan-humanitarian rallying cry. Only this way they could fight China, Russia, and India – the main complicit patrons of Myanmar. No one can deny the political, economic, and strategic importance of 1.5 billion Muslims of the world. China needs to run its so-called economic belt through Muslim countries like Pakistan, Uzbekistan, Kazakhstan, Iran, Turkey, and other Muslim countries. India’s largest foreign market is in Bangladesh and its trucks and trains need to run along routes amidst its Muslim villages and townships. Indian police or Army can’t protect her business in Bangladesh. And Russia has its own huge Muslim population. The largest anti-Myanmar protest rally was not held in Dhaka, Karachi, or Jakarta, but in Grozny –the capital of Chechnya. Even the USA can’t run its empire taking a side against the Muslims. So it will be suicidal for their own economic and political interest if these friends of the genocidal regime of Myanmar want to continue their support. All Muslim countries have a crucial role to play in solving this huge humanitarian catastrophe.  

Mere repatriation of the Rohingya people back to Myanmar is not the best option. Is it conceivable or viable with the current policy of the Myanmar Government which is bent upon ethnic cleansing? Currently, under the pressure of the international community, the Myanmar government has signed a memorandum to repatriate the refugees. But the Myanmar government has proven to be a persistent backtracker from such promises in the past. They want to continue only with the policy of ethnic cleansing. It is now clear that they may accept some pauses in the cleansing, but are not ready to fully abandon it. Now, if the Rohingyas are pushed back to Myanmar, they will be kept only in concentration camps. Their lands and homesteads will remain seized only for building more army barracks or industrial zones –as have been done in cases of previous evictions. Hundreds of thousands of such victims of the past eviction episodes still live in such unhygienic shanty concentration camps. These are the perfect tools to keep the Rohingya Muslims captivated, and de-empowered without giving them the legal rights of citizenship and other civil liberties. This way, they force people to slowly die unattended by any doctor or silently disappear from Myanmar through its porous border. Such a coercive process of decimation is already in place for more than 40 years; and was exacerbated in 1982 when their citizenship was taken away and was made stateless.

 

The UN policy of palliation

The UN could display sympathy only in building some shanty tents and supplying some relief goods or medicines for these victims. Such aids are giving some palliation only to die in tents. But the root causes of the problem still thrives. Hence, providing tents and relief goods is not going to solve the problems.  Even, the relief goods would stop flowing if the TV camera is taken off from the horrific scenes of cleansing. The Myanmar Government is waiting for such days. Those who imposed some soft embargo on the ruling military despots for human rights violations in the past have already been lifted after the national election in 2015. Now, the countries like China, Russia, and even Pakistan are selling weapons to these killers. Is it not the part of terrorism to support these perpetrators of state terrorism by delivering arms? Now the question arises if the UNO and other international players fail to solve the problem peacefully, what option will remain open for these Rohingya people? Is it to die a slow death in a tent? In such a desperate situation, an arms struggle would be the only legitimate option. To get back the robbed basic survival rights, they will need to fight a long battle. How long Rohingya people should keep waiting in Bangladesh while no one has shown hope that their own birthplace, lands, and assets in Myanmar will be returned back to them.

It is the core responsibility of the UNO and other international actors to fix the problem as soon as possible. If they fail to solve the problem peacefully, they must help the Rohingya Muslims to fight for their legitimate right. The ultra-nationalist Burmese racists of Myanmar understand only the language of war. Hence they have taken that route. Surrender to the perpetrators of genocide is never a civilized option. The Rohingya Muslims must not be forced to live in concentration camps. In the name of the settlement, the refugees must not be handed over to the killers who are determined only to kill, rape, and blaze everything that belongs to Muslims. Such pushback would be tantamount only to put them back into a cage full of hungry wolves. Such a step was taken in 1978 but didn’t work. It only increased the number of deaths, rapes, and torture cells for the Rohingyas. Any amount of appeasement of such killers would only mean complicity in the crime. The world leaders who fail to bring any peace for the Rohingyas don’t possess any right to lecture them on peaceful tolerance of such appalling brutality either. The legitimate battle of the victims for their own survival can’t be labeled as terrorism either. Terrorism –as per any standard lexicon, is the use of force or threat to frighten any people to get political, economic or other gains at the expense of others. It can be practiced both by the state and non-state actors. And in Arakan, it is being exclusively deployed by the Myanmar Army, the security forces, and other state outfits to ethnically cleanse the Rohingya Muslims from their birthplace in Arakan (currently named Rakhine state).

 

War of narratives

All forces of coercion, occupation, and imperialism tell their own narratives to suit their political agenda. In their vocabulary, even occupying countries, bombing cities to rubbles, and killing men, women and children are labeled as promotion of liberal values and democracy –as is the case of the US and its partners in Afghanistan, Iraq, and Syria. India in Kashmir, China in Xin Xiang, and Russia in Syria are doing the same. Whereas standing against such pure evil is called terrorism. The genocidal regime of Myanmar also uses such a narrative to pursue its evil agenda. They could even invent justification to snatch citizenship from the Rohingya Muslims on the ground that they belong to a different faith, ethnicity, and language. Therefore, like Adolf Hitler, they could forge fabricated ground for total ethnic cleansing of these marginalized minorities.

But the question arises, whether the Muslims should accept such fabricated political narratives? Such narratives are indeed the expression of some specific political faith and ideologies. This is why the people of different faith differ not only in their beliefs and cultures but also in narratives. As per narratives of the nationalists, racists, and ethnic cleansers, any attempt of standing against ethnic cleansing is called terrorism. On the other hand, Islam has its own narrative, vocabularies, and criteria to judge right and wrong. Islam also prescribes the right path of action.

 

Another staff for cold storage

As long as the TV camera is focused on the Rohingya refugees, the international community will feel some moral responsibility. As soon as the camera is taken off, the situation will change. The international bodies will forget the responsibility to put pressure on the Myanmar government to take back the refugees. The same happened in the case of Palestine and Kashmir. The issue of plebiscite in Kashmir, and the return of Palestinian refugees to their houses now stay in cold storage. In the same way, the return of the Rohingya Muslims to their own homes is turning to be another cold storage staff. Instead of solving the problems, the secularist elements in Muslim countries have a mastery of sweeping the key issues under the carpet -as PLO did with the Palestinian cause. The secularist forces in Bangladesh is ready to take that route to deal with the Rohingya issue.

It is very unfortunate that so far the world powers have failed to devise any fair and acceptable solution to the problems. They have their own vocabulary vis-à-vis such crisis. Even occupying other countries, bombing cities to rubble, and killing men, women and children are publicized as legal. That happened in Afghanistan, Iraq, and Syria. Whereas standing against such pure crimes is called terrorism. Such narratives help only the ruling perpetrators. The brutal regime of Myanmar fully abused such a permissive political milieu of the world, hence got emboldened to cause a total genocidal cleansing of the Rohingyas. But the question arises whether the Rohingya Muslims will accept such narratives of the criminals?

 

Economics overrides morality and humanity

World politics suffers from a serious moral collapse. The Rohingya Muslims are indeed the victims of such a collapse. While economic greed works as the only guiding compass, humans become pure economic animals. Then, the survival of the fittest and the destruction of the weak become the norm in politics and warfare. In such an inhuman milieu, higher values like morality, humanity, empathy, and honesty go to the bin. Exactly that happened in the case of Rohingya Muslims. Because of economic interest, the brutal ethnic cleansing of the Rohingya Muslims couldn’t draw any sympathy from Russia, China, India, and Japan.

In 2004, a huge deposit of oil and gas was discovered in Arakan’s (currently known as Rakhine state) coastal bed. Hence, the greedy eyes of the economic predators became glued to those new resources. The strategic location of Arakan is also very important. It can open doors to the land-locked southern part of China and the eastern provinces of India. China alone takes oil of 1.5 billion dollars per year from this oil field through the Arakan-China pipeline. India is building a deep seaport to connect Mizoram and other 6 eastern Indian provinces. Hence, they are not interested to see human or moral issues. Such moral ills of the economic animals is not unknown to the Burmese ethnic cleansers; hence they could go any length to execute their crimes.

Because of the same economic reason, even Saudi Arabia stays deaf and dumb. Saudi Arabia is competing with Russia to find its oil market in China. According to London’s Independent newspaper (21/09/2017), Saudi Arabia runs a 479-mile long Burma-China pipeline across this Arakan state to Yunan province of China. It is a joint venture of a Saudi company called Aramco and a Chinese company called Petro-China. It pumps 200, 000 barrels of oil daily from the Bay of Bengal for China. It cuts the voyage time by 7 days, avoiding the Strait of Malacca. Therefore, Saudi Arabia does not want to annoy the Myanmar government by condemning its crime. Thus the economic predators continue to appease their greed in collaboration with the killers of the Myanmar government.  But the Rohingya Muslims continue to suffer grave consequences. It is indeed the worst disgrace for the whole of mankind that the poor Rohingya Muslims are forced to bear the burden of the immorality of the inglorious global powers. 1st edition 27/10/2017; 2nd edition 24/07/2021.     




বিবিধ ভাবনা ৬৮

ফিরোজ মাহবুব কামাল

১. শুধু কিছু ভাল কাজ দিয়ে কি সভ্য দেশ গড়া যায়?

শুধু ভাল কাজ করলেই দেশ সভ্য হয় না। শান্তিও আসে না। ভাল কাজের সাথে দুর্বৃত্ত নির্মূলেরও লাগাতর লড়াই থাকতে হয়। পবিত্র কুর’আন তাই শুধু আমারু বিল মারুফ (ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা)’র কথা বলে না, নেহী আনিল মুনকার (অন্যায়ের নির্মূল)’র কথাও বলে। এ দুটি কাজ একত্রে চালাতে হয়। ইসলামে অন্যায় তথা দুর্বৃত্তদের নির্মূলের কাজটিই হলো পবিত্র জিহাদ। যে দেশে জিহাদ নাই সে দেশ দুর্বৃত্তদের দখলে যায়। যেমন শুধু বিজ ছিটালেই না, আগাছা নির্মূলের কাজটি নিয়মিত না হলে সেখানে গাছ বাঁচে না। তেমনি দেশ দুর্বৃত্তদের দখলে গেলে সুনীতি নিয়ে সভ্য মানুষের বাঁচাটি অসম্ভব হয়। এমন একটি দেশের উদাহরণ হলো বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ পুরাপুরি দখলে নিয়েছে চোর-ডাকাত, ভোটডাকাত এবং গুম-খুন-সন্ত্রাসের নৃশংস হোতারা। তাদের নির্মূলের কোন আয়োজন নাই। বন-জঙ্গলে যেমন বিনা বাধায় ঝোপ-ঝাড়-আগাছা বেড়ে উঠে, বাংলাদেশে তেমনি বিনা বাধায় দুর্বৃত্তগণ বেড়ে উঠে। যারা ইসলামকে ভাল বাসে তারা ভেবে নিয়েছে, মসজিদ-মাদ্রাসা গড়লে এবং নামায-রোযা আদায় করলেই দেশ শান্তিতে ভরে উঠবে। অথচ সেটি ইসলামের রীতি নয়। মহান নবীজী (সা:)’র সূন্নতও নয়। নবীজী (সা:) যেমন নামায-রোযা করেছেন, মসজিদ গড়েছেন এবং নানাবিধ ভাল কাজ করেছেন, তেমনি দুর্বৃত্তদের নির্মূলে জিহাদে নেমেছেন। অথচ বাংলাদেশের মানুষের মাঝে নবীজী (সা:)’র সে ইসলাম বেঁচে নাই। তারা জিহাদমুক্ত এক বিকৃত ইসলাম আবিস্কার করে নিয়েছে। সে ইসলামে নবীজী (সা:)’র আমলের ইসলামী রাষ্ট্র নাই, শরিয়ত নাই, জিহাদ নাই এবং কুর’আন শিক্ষার রাষ্ট্রীয় আয়োজন নাই। দুর্বৃত্তদের দখলদারী নিয়ে বাঁচাটি তারা অভ্যাসে পরিণত করেছে। ফলে চোখের সামনে ইসলাম ও ইসলামপন্থীদের নির্মূল হতে থাকলেও তাদের মাঝে কোন প্রতিক্রিয়া নাই।

অপর দিকে দেশের চোরডাকাত ও ভোটডাকাত সরকারের পক্ষ থেকে লাগাতর যুদ্ধ শুরু হয়েছে জিহাদের বিরুদ্ধে। জিহাদকে বলা হচ্ছে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস। জিহাদ বিষয়ক বই রাখাকে দন্ডনীয় অপরাধ গণ্য করছে। পুলিশের কাজ হয়েছে জিহাদ বিষয়ক বই বাজেয়াপ্ত করা। যেমন জিহাদ বলে কুর’আন-হাদীসে কোন কথাই নাই। এটি নিতান্তই তাদের নিজেদের বাঁচার স্বার্থে। কারণ তারা জানে, জিহাদ হলো মুসলিমের হাতিয়ার। তাদের মত চোরডাকাত ও ভোটডাকাত দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে ঈমানদারের যুদ্ধকে বলে জিহাদ। এমন একটি যুদ্ধ তারা চায় না। তাই নিজেদের বাঁচাটি নিরাপদ করতে তারা ইসলামের শিক্ষাকেই বিকৃত করছে। নবীজী (সা)’র ইসলামকে ভূলিয়ে দিতে তারা নামায-রোযা, মিলাদ মহফিল ও দোয়া-দরুদের মাঝে ইসলামকে সীমিত রাখছে। এটি হলো তাদের ইসলামের জিহাদ নির্মূলের যুদ্ধ।  

২. শেখ হাসিনার সবচেয়ে বড় অপরাধটি প্রসঙ্গে

দেশ কতটা সভ্য সেটি দালান-কোঠা, রাস্তা-ঘাট ও কল-কারখানা দেখে বুঝা যায় না। কারণ এগুলি ন্যায়-নীতি, সত্য-মিথ্যা ও সভ্য-অসভ্যতার কথা বলে না। এগুলির নিজস্ব কোন চরিত্র থাকে না। এগুলি কথা বলে না। চরিত্র থাকে এবং সরবে নীতি-নৈতিকতা ও দুর্নীতির বয়ান দেয় দেশের আদালত।  আদালতের রায়ের মধ্য দিয়ে সভ্য-অসভ্যতা, ন্যায় নীতি, দুর্বৃত্তি, ও বিবেক বোধ কথা বলে। একটি সভ্য জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টিটি কখনোই প্রাসাদ, রাস্তাঘাট বা কল-কারখানা নয়। সেটি হলো ন্যায় বিচারের আদালত। অসভ্য দেশে সেটি থাকে না। অসভ্য জাতির অসভ্যতা শুধু পতিতাপল্লী, মদ-গাঁজার আসর, ডাকাত পাড়ায় ধরে পড়ে না, সে অসভ্যতা দেখা যায় দেশের আদালতে। বাংলাদেশে সেটি দেখা গেছে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের নামে। দেখা গেছে হাসিনার ন্যায় ভোটডাকাতকে বিচারের বাইরে রাখাতে।

তাই জাতির সভ্যতা ও অসভ্যতার বিচারে ঘরে ঘরে নেমে গবেষণার প্রয়োজন পড়ে না। পুলিশের খাতায় দুর্বৃত্তদের তালিকার খোঁজ নেয়ারও প্রয়োজন পড়ে না। সেটি দেশের আদালতের দিকে নজর দিলেই সুস্পষ্ট বুঝা যায়। সূর্য দেখে যেমন দিনের পরিচয় মেলে তেমনি আদালতের ন্যায় বিচার দেখে সভ্যতার পরিচয় মেলে। সভ্য মানুষের কাছে দুর্গন্ধময় আবর্জনা যেমন অসহ্য, তেমনি অসহ্য হলো আদালতের বিচারকদের দুর্বৃত্তি ও অবিচার। এটিকেই বলা হয় অবিচারের বিরুদ্ধে সভ্য মানুষের জিরো টলারেন্স। এটিই ঈমানদারের গুণ। কিন্তু দুর্বৃত্ত, অসভ্য ও বেঈমানদের সে রুচি থাকে না। মশামাছি যেমন আবর্জনায় বাচে এরাও তেমনি দুর্বৃত্তি নিয়ে বাঁচে। দুর্বৃত্তির মাধ্যমে ক্ষমতায় যাওয়া ও ক্ষমতা ধরে রাখাই যেমন তাদের রীতি, তেমনি তাদের বড় দুর্বৃত্তি হলো আদালতে অবিচারের প্রতিষ্ঠা দেয়া।

অথচ সভ্য শাসকদের সর্বশ্রেষ্ঠ গুণটি রাস্তাঘাট ও কলকারখানা গড়া নয়, সেটি হলো দেশে ন্যায় বিচারকে প্রতিষ্ঠা দেয়া। মহান নবীজী (সা:) দশ বছর রাষ্ট্র-প্রধান ছিলেন। তিনি প্রাসাদ, কলকারখানা ও রাস্তাঘাট গড়েননি, প্রতিষ্ঠা দিয়েছেন ন্যায় বিচারকে। মহান আল্লাহতায়ালা রোজ হাশরের বিচার দিনে কোন শাসককে প্রাসাদ, কলকারখানা ও রাস্তাঘাট গড়া নিয়ে কাঠগড়ায় তুলবেন না। কিন্তু অবশ্যই কাঠগড়ায় তুলবেন ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় ব্যর্থতা নিয়ে। এবং সে ন্যায় বিচারের জন্য তিনি আইনও দিয়েছেন। পবিত্র কুর’আনে ঘোষিত সে আইনকে বলা হয় শরিয়ত। যারা সে শরিয়ত অনুসারে বিচার করে না তাদেরকে কাফের, জালেম ও ফাসেক বলা হয়েছে। তাই শাসকের ঈমানদারী ধরা পড়ে রাষ্ট্রে শরিয়তী আইনের বিচার দেখে। এবং বেঈমানী ধরা পড়ে নিজেদের গড়া কুফরি আইনের অবিচার দেখে। 

বাংলাদেশে সবচেয়ে অসভ্য ও ব্যর্থ খাতটি হলো বিচার ব্যবস্থা। জেনারেল এরশাদ বন্দুকের জোরে পুরা দেশ ডাকাতি করে নিল তার কোন শাস্তি হলো না। শেখ হাসিনাও পুলিশ ও সেনাবাহিনী দিয়ে জনগণের ভোট ডাকাতি করে নিল, তারও কোন শাস্তি হলো না। অথচ ফাঁসি দেয়া হলো বিরোধী দলীয় নেতাদের। কথা হলো যে দেশের আদালতে নিরপরাধদের ফাঁসি দেয়া হয়, দন্ডপ্রাপ্ত খুনিকে জেলখানা থেকে মুক্তি দেয়া হয় এবং ভোটডাকাতকে প্রধানমন্ত্রী রূপে রায় দেয়া হয় -সে দেশকে কি আদৌ সভ্য বলা যায়? শেখ হাসিনার সবচেয়ে বড় অপরাধ এই নয় যে সে জনগণের ভোটের উপর ডাকাতি করেছে। বরং তার সবচেয়ে বড় অপরাধটি হল, দেশের আদালতে অবিচারকে প্রতিষ্ঠা দিয়েছে। এবং আদালতের বিচারকদের মানুষ খুনের লাঠিয়ালে পরিনত করেছে। এভাবে বাংলাদেশকে একটি অসভ্য দেশের পর্যায়ে নামিয়েছে। এভাবে বাংলাদেশীদের জন্য বাড়িয়েছে বিশ্বজুড়া অপমান। এ অপরাধের স্মৃতি নিয়ে শেখ হাসিনা বহু শত বছর ইতিহাসে বেঁচে থাকবে। বাংলাদেশীদের যদি কোন দৃর্বৃত্তকে যুগ যুগ ধরে সর্বাধিক ঘৃনা করতে হয় তবে সে দুর্বৃত্তটি যে নিশ্চয় শেখ হাসিনাই হবে -তা নিয়ে কি সামান্যতম সন্দেহ আছে?  

 

৩. সময়টি কি ঘুমিয়ে থাকার?

কোন পথে জাতির ধ্বংস ও অপমান এবং কোন পথে বিজয় ও গৌরব -সেটি কোন জটিল রকেটি সায়েন্স নয়। ইতিহাসের বইগুলি সেসব কাহিনীতে ভরপুর। যে কোন শিক্ষিত ব্যক্তিই তা থেকে শিক্ষা নিতে পারে। তবে ইতিহাস থেকে শিক্ষা না নেয়াই মানব জাতির ইতিহাস। রোগের মহামারি অসংখ্য মানবের জীবনের মৃত্যু ডেকে আনে। তবে মহামারিতে লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু ঘটলেও তাতে কোন দেশ বা জাতি ধ্বংস হয় না। কিন্তু দেশবাসীর ভাগ্যে ধ্বংস, পরাজয় ও অপমান আনে দুর্বৃত্তদের শাসন। তারা সভ্য ভাবে বাঁচাটাই অসম্ভব করে। তাই দুর্বৃত্ত শাসকগণই হলো জাতির সবচেয়ে বড় শত্রু। সাধারণ ছিঁছকে চোর-ডাকাত, সন্ত্রাসী ও খুনিদের কারণে দেশের এত বড় ক্ষতি হয় না।

তাই দেশ ও দেশবাসীর কল্যাণে মসজিদ-মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ ও হাসপাতাল নির্মাণের ন্যায় কাজগুলি করাই শুধু ভাল কাজ নয়, বরং সবচেয়ে সেরা ভাল কাজটি হলো দুর্বৃত্ত শাসন নির্মূলের জিহাদ। এটিই ইসলামের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত। দেশের মানুষ পুরাপুরি ইসলাম পালন করতে পারবে কিনা –সে বিষয়টি নির্ভর করে এই জিহাদের উপর। যে দেশে জিহাদ নাই সেদেশে ইসলামী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা থাকেনা এবং আদালতে থাকে নাশরিয়তের বিচার। আর শরিয়ত পালন ছাড়া কি ইসলাম পালন হয়?

একমাত্র জিহাদের মাধ্যমেই জাতি দুর্বৃত্তমুক্ত হয়। এবং বিজয়ী হয় ইসলাম। একাজ স্রেফ নামায-রোযা ও দোয়াদরুদে হওয়ার নয়। নবীজী (সা:)কে তাই শত শত ভাল কাজের সাথে জিহাদেও নামতে হয়েছে। এ জিহাদে নিহত হলে বিনা হিসাবে জান্নাত মেলে। এতবড় কল্যাণকর কাজ দ্বিতীয়টি নাই। একাজের পুরস্কারও তাই বিশাল। এ কাজে নিহত হলে বিনা হিসাবে মেলে জান্নাত। দুর্বত্ত শাসকগণ শুধু জনগণের শত্রু নয়, শত্রু মহান আল্লাহতায়ালার। যারা জিহাদ করে একমাত্র তারাই মহান আল্লাহতায়ালার শত্রুদের নির্মূল করে। এজন্য রাব্বুল আলামীন তাদের উপর এতো খুশি।

দুর্বৃত্ত শাসকের নির্মূল না করে কোন সভ্য রাষ্ট্র গড়ার কাজটি অসম্ভব। যেমন আগাছার শিকড় না তুলে সেখানে গাছ লাগানো যায় না। দুর্বৃত্তির বিশাল বট গাছটি স্বস্থানে রেখে কি ইসলামের চারা লাগানো যায়? ইসলামবিরোধীদের নির্মূলের পথ ধরতেই হবে। দুর্বৃত্ত শাসনের নির্মূলের মধ্য দিয়েই বিজয়ী হয় ইসলাম। মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনকে প্রতিষ্ঠা দেয়ার এটিই একমাত্র পথ।  শত শত মসজিদ-মাদ্রাসা, রাস্তাঘাট ও কল-কারখানা গড়ে দুর্বৃত্ত নির্মূলের কাজটি সমাধা করা যায় না। নির্মূলের কাজে যে জিহাদ তার কোন বিকল্প নাই। তাই যারা প্রকৃত ঈমানদার ও জ্ঞানী তারা দুর্বত্ত নির্মূলের জিহাদে মনযোগী হয়। সে জিহাদে বিনিয়োগ করে নিজেদের অর্থ, মেধা, বুদ্ধিবৃত্তি, ও রক্ত। এটিই নবীজী (সা:) ও সাহাবায়ে কেরামদের পথ। একাজে সাহাবাদের অর্ধেকের বেশী শহীদ হয়ে গেছেন। মসজিদ মাদ্রাসার নির্মাণে কোটি কোটি টাকা দিলেও বিনা হিসাবে জান্নাত প্রাপ্তির কোন প্রতিশ্রুতি নাই। কিন্তু সে প্রতিশ্রুতি আছে জিহাদে প্রাণদানে।

বাংলাদেশে যারা শাসন ক্ষমতায়, ইসলামের বিরুদ্ধে তাদের শত্রুতা কি কোন গোপন বিষয়? দ্বীনের এ শত্রুগণ কুর’আনের তাফসির হতে দিতে রাজী নয়। দেশের সবচেয়ে বড় তাফসিরকারক দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে আজীবন জেলবন্দী করার ব্যবস্থা করেছে। শেখ হাসিনার পিতা শেখ মুজিব স্কুলের সিলেবাস থেকে বিলুপ্ত করেছিল ধর্ম শিক্ষা। একই ভাবে হাসিনাও ইসলামের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করেছে। স্কুল-কলেজের পাঠদানে কুর’আন-হাদীস ও নবীজী (সা:)’র চরিত্রের উপর কোন পাঠের ব্যবস্থা নাই। ইসলামপন্থীদের ফাঁসি দিচ্ছে, জেলে নিচ্ছে এবং গুম করছে। ইসলামের বিরুদ্ধে হাসিনার যুদ্ধ দিন দিন তীব্রতর হচ্ছে। এ অবস্থায় ইসলামপন্থীদের কি ঘুমিয়ে থাকার সময়?

 

৪. কেন এ পরাজয় ও আযাব?

নিয়মিত নামায-রোযা করে এবং টুপি-দাড়ি আছে -এমন লোকের সংখ্যা বাংলাদেশে বহু কোটি। কিন্তু আল্লাহর হুকুম ও তাঁর শরিয়তি আইন প্রতিষ্ঠার জিহাদে লোক নাই। ঈমানের ফাঁকিটি এখানেই ধরা পড়ে। এরূপ ফাঁকিবাজীর ফলে দেশের রাজনীতি, প্রশাসন, আদালত ও শিক্ষা-সংস্কৃতির অঙ্গণে বিজয়টি শয়তানের পক্ষের শক্তির এবং পরাজয় ইসলামের। যার মধ্যে সামান্য ঈমান আছে সে কি শয়তানের এ বিজয় মেনে নিতে পারে? মেনে নিলে কি মহান আল্লাহতায়ালা খুশি হন?

ইসলামের পক্ষের শক্তির এখন বড়ই দুর্দিন। রাস্তায় নামলে এবং ইসলামের পক্ষে কথা বলেই তাদের গুম হতে হয়। অথবা জেল ও পুলিশী নির্যাতনের মুখে পড়তে হয়। এটি কি কম আযাব? অথচ এ আযাব তাদের নিজ হাতের কামাই। অনৈক্যের পথে এমন আযাব যে অনিবার্য -সে হুশিয়ারী তো মহান আল্লাহতায়ালা পবিত্র কুর’আনে বার বার শুনিয়েছেন। কিন্তু সে আযাব থেকে বাঁচায় ইসলামপন্থীদের আগ্রহ কই? অনৈক্যের পথটি  যে নিশ্চিত পরাজয় ও নৃশংস দুর্গতির পথ -সেটি জেনেও বাংলাদেশে ইসলামপন্থীগণ অনৈক্যের পথই বেছে নিয়েছে।   

কিন্তু কেন এতো অনৈক্য? কারণটি সুস্পষ্ট। মানুষ যখন একমাত্র মহান আল্লাহতায়াকে খুশি করার জন্য কাজ করে তখন একতা গড়া তাদের জন্য অতি সহজ হয়। তাই কোথাও লক্ষাধিক নবী-রাসূল একত্রে কাজ করলে তাদের মাঝে সীসাঢালা দেয়ালের ন্যায় একতা দেখা দিত। এবং ইসলামের গৌরবের দিনগুলিতেও দেখা গেছে। কিন্তু একতা অসম্ভব হয় যদি লক্ষ্য হয় দল, নেতা, ফেরকা, পীর, মাজহাবকে বিজয়ী করা। বাংলাদেশের ইসলামপন্থীদের ক্ষেত্রে সেটিই ঘটেছে। তাদের গরজ যতটা নিজ দল, নিজ ফেরকা ও নিজ পীরগিরি বিজয়ী করা নিয়ে সে গরজ মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনকে বিজয়ী করা নিয়ে নাই। ফলে অসম্ভব হয়েছে একতাবদ্ধ হওয়া ।

৫. ঈমানদারী ও বেঈমানী

ঈমান ও বেঈমানী সুস্পষ্ট দেখা যায়। সেটি ব্যক্তির চিন্তাধারা, রাজনীতি, বুদ্ধিবৃত্তি, কর্ম ও আচরনের মধ্যে। যার মধ্যে শরিষার দানা পরিমাণ ঈমান আছে সে কি কখনো জাতীয়তাবাদ, বর্ণবাদ, সেক্যুলারিজম, সমাজবাদের বিশ্বাসী হতে পারে? সে ভ্রান্ত মতবাদগুলি বিজয়ী করার জন্য লড়াই করতে পারে? এগুলিকে বিজয়ী করার অর্থ তো ইসলামকে পরাজিত করা। বাংলাদেশে তো সেটিই হয়েছে। বাংলাদেশে ইসলামের পরাজয় এবং শয়তানের বিজয় এসেছে তাদের হাতে যারা নিজেদের মুসলিম রূপে পরিচয় দেয়।

কথা হলো, শুধু নামায-রোযা ও হজ্জ-যাকাত পালন করলেই কি মুসলিম হওয়া যায়? তাকে তার রাজনীতি, বুদ্ধিবৃত্তি, শিক্ষা-সংস্কৃতি এবং যুদ্ধ-বিগ্রহকে ইসলামকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে হতে হয়। মুসলিমের জন্য এটি পুরাপুরি হারাম যে, সে বিশ্বাস করবে ইসলামে অথচ যুদ্ধ করবে জাতীয়তাবাদ, সমাজবাদ, সেক্যুলারিজম বা বর্ণবাদকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে। এমন কর্মগুলি মূলত ইসলামের সাথে গাদ্দারী।

৬. জিজ্ঞাস্য বিষয়

প্রতিটি বাংলাদেশীর নিজেকে জিজ্ঞাসা করা উচিত, সে কি সত্যিই মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনের বিজয় চায়? এবং চাইলে আদালতে শরিয়তের আইন নাই কেন? ব্যক্তি কি চায় এবং কি চায়না –তার মধ্যেই প্রকাশ পায় তার ঈমান বা বেঈমানী। ঈমানদার মাত্রই তাই ইসলামের বিজয় চায়। এবং বেঈমান মাত্রই ইসলামের পরাজয় চায়। কিন্তু শতকরা ৯০ ভাগ মুসলিমের দেশে সে বিজয়টি কোথায়?

লাখ লাখ সৈনিক পুষে লাভ কি যদি রাজার সার্বভৌমত্ব ও আইনই না চলে? মুসলিম মাত্রই তো মহান আল্লাহতায়ালার সৈনিক। তাদের উপর ঈমানী দায়ভার তো মহান আল্লাহতায়ালার সার্বভৌমত্ব ও তাঁর শরিয়তী আইনের প্রতিষ্ঠা দেয়া। সেকাজে ইসলামের গৌরব কালে মুসলিমদের জীবনে লাগাতর যুদ্ধ দেখা গেছে। কিন্তু সে কাজে বাংলাদেশের মুসলিমদের বিনিয়োগ কই? সাফল্যই বা কতটুকু? তারাই কি নিজেদের রাজস্বের অর্থে ও নিজেদের সমর্থনে ইসলামের শত্রুদের বিজয়ী করেনি? মুজিবের ন্যায় ইসলামের শত্রু কি অমুসলিমদের ভোটে নির্বাচিত হয়েছিল? ইসলামের বিরুদ্ধে মুজিবের শত্রুতা কি কোন গোপন বিষয়? মুজিবই তো স্কুল-কলেজে ইসলামের পাঠ নিষিদ্ধ করেছিল, কারাবন্দী করেছিল ইসলামী দলগুলির নেতাদের, নিষিদ্ধ করেছিল ইসলামের নামে সংগঠিত হওয়াকে এবং জাতীয় আদর্শ রূপে ঘোষণা দিয়েছিল জাতীয়তাবাদ, সেক্যুলারিজম ও সমাজবাদের ন্যায় হারাম মতবাদগুলিকে। তাজ্জবের বিষয় হলো, ইসলামের সে প্রমাণিত শত্রুকে আজও তারা বঙ্গবন্ধু ও জাতির পিতা বলে।

অথচ ব্যক্তির ঈমান তো তার কথা ও বিশ্বাসে ধরা পড়ে। যে হিন্দু পুরোহিতটি মুর্তিপূজা পরিচালনা করে -তার সে হারাম কর্মকে সমর্থন ও প্রশংসা করলে কি কেউ মুসলিম থাকে? তেমনি যে নেতা জাতীয়তাবাদ, সেক্যুলারিজম ও সমাজবাদের ন্যায় হারাম মতবাদকে দেশবাসীর উপর চাপিয়ে দেয় -তাকে জাতির পিতা ও বঙ্গবন্ধু বললে কি ঈমান থাকে? এরূপ হারাম কর্মে কি মহান আল্লাহতায়ালাকে খুশি করা যায়? ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন বিধান। ধর্মকর্ম, রাজনীতি, আইন-আদালত, প্রশাসন, শিক্ষা-সংস্কৃতি, ও যুদ্ধ-বিগ্রহের ন্যায় সর্বক্ষেত্রে রয়েছে ইসলামের দিক-নির্দেশনা। মুসলিমদের ঈমানী দায়বদ্ধতা তো একমাত্র ইসলামকে জীবনের প্রতি ক্ষেত্রে অনুসরণ করা। মুজিব ও হাসিনার ন্যায় কোন হারাম মতবাদকে অনুসরণ করা নয়। ইসলামকে পুরাপুরি বিশ্বাস করার মধ্যেই তো ঈমানদারী। অথচ বাংলাদেশীদের মাঝে সে ঈমানদারীটি কই? এ নিয়ে আপন মনে প্রশ্নই বা ক’জনের মনে? মহান আল্লাহতায়ালার কাছে হিসাব দেয়ার আগে এ হিসাব নেয়া কি জরুরি নয়? ২৪/০৭/২০২১

 




The mental invasion and the current civilizational crisis of the Muslims

Dr. Firoz Mahboob Kamal

The civilizational issues

How the people live, how they educate their men and women, how they run states and societies, how they frame laws and run judiciary, how they run social and economic policies, how they build homes, villages, and cities, and how they promote their vision, mission and identities are indeed called civilization. Civilization is an inclusive package that gives a collective identity to a people. It is a marker of the progress and maturity of human beings. All civilizations are not the same and equal. Because the composite ingredients that build civilization are not the same and equal. There exist huge qualitative differences among civilizations. Those who worship one Almighty Allah and receive a roadmap from Him build civilization altogether different from those who worship cows, snakes, idols, or are secularised.

The quality of core philosophies, moral qualities of people, quality of education, quality of culture, quality of homes and environment, quality of laws and values, and the status of human rights are the key factors to decide the quality of civilization. A civilization can be impregnated with the practice of nationalism, racism, supremacism, ethnic cleansing, slavery, slave-trading, fascism, imperialism, war of occupation, world wars, and dropping nuclear bombs –as is the case of western civilization. The civilization that was built by the idol-worshipping Hindus in India has its own distinctive features, too. Not only it legitimized the division of people into different castes but also sanctioned the burning of living widows to death with the dead husbands. The Hindu widows were saved by an edict by the British colonial rulers. But the caste system that made about two hundred Indians untouchables and blocked social mobility still survives. Whereas the Islamic civilization also showed its own distinctiveness. These are the trans-ethnic fraternity and brotherhood, the emancipation of slaves, unrestricted social mobility, the rights of the women, survival rights as well as religious rights for all, the rule of Divine laws, and the holy war for enjoining the rights and eradicating the wrongs.

 

The birth of civilization and the Islamic perspectives

How a civilization comes to its existence is a debatable issue. The British Professor Arnold Toynbee postulates in his famous book “A Study of History” that civilization is the outcome of challenges and responses. Challenges work as a stimulus to make civilization. But the question arises that challenge is not specific to a certain group of people; it is universal. Almost every people faced challenges, but everyone didn’t build civilization. Most people lived with some tribal practices and then disappeared without leaving any trace of civilization. It is also confusing when Arnold Toynbee argues that mankind’s goal is “written largely in the constitution of human nature”. If it is true then every man must be a civilization builder. But that didn’t happen either. Except for a few, most people didn’t build any civilization. Many humans in Nicobar Island still live like animals in the jungle. Arnold Toynbee also confuses when he makes a dichotomy of humans into “pre-human ancestors” and civilization-making human beings like ourselves. He put great men of human history like Prophet Adam (peace be upon him) –the first man and Prophet Noah (peace be upon him) in the category of “pre-human ancestors”. As if they were not proper humans! Can a believer in one God –whether a Muslim, a Christian, or a Jew accept such a demeaning view?    

Although all humans live on the same planet, their intellectual, ideological, cultural, and political worlds are not the same. They differ in the vision, mission, and objective of survival. They differ in the philosophy of life. Hence they build different societies, cultures, states, and civilizations. The qualitative differences of civilizations don’t owe to skin colors, lands, languages, race, or tribes, but to the embedded beliefs, philosophies, and visions of life. The most common marker of the secularists is their profound inability to see any role of Allah Sub’hana wa Ta’la in this world. So, they keep Almighty Creator outside the domain of humans’ worldly affairs like culture, education, laws, politics, wars, and social policies. Thus they deny Almighty Allah any role in the creation of civilization. And they define it as secularism.

Whereas Islam presents an altogether different world view. It is the core belief that everything depends on the wish of Allah Sub’hana wa Tala. He is the most decisive and the only invincible Power who can give victory even to the most powerless and destroy the most powerful in seconds. Guiding humans is the His sole responsibility (inna alainal huda). Every human has been given insight vis-à-vis the right and the wrong (fal’hama’ha fujura’ha wa taqwa’ha). Whoever He guides get the right path. And whoever disobeys His guidance goes down the road towards deviation and hellfire. And it is the methodology of Allah Sub’hana wa Tala that He guides people through His prophets, revelations, and holy Books.

Allah Sub’hana wa Tala plays a pivotal role in building a civilization that provides a conducive environment for a Muslim to practice full submission to Him. This is why the All-Wise Almighty Allah prescribes not only religious rituals, but also gives guidance to build society, state, culture, education, values, laws, and judiciary, and thereby a full-fledged civilization. In building such a civilization, the Holy Qur’an works as the book of guidance. It is the only uncorrupted Divine Book on the earth. The Holy Qur’an proved its potential to make the most revolutionary changes in people’s beliefs, behavior, character, culture, politics, and lifestyles. Because of Islam, Muslims could build the best civilization on the earth the whole human history. As a result, Islam could pull billions of people out of the path of hellfire. The moral, cultural and behavioral quality of Muslims proved much superior to that of any other people. Because of moral revolution, being a ruler of a state –larger than the whole continent of Europe, Caliph Omar (RA) -while making a journey from Medina to Jerusalem could walk with the rope of the camel in his hand while the servant was sitting on its back. The Caliph Omar used to carry food at midnight to poor families. And Caliph Omar (RA) was not alone with such high mortality, thousands excelled with the same moral standard. In the whole history, no other civilization could bring such a moral revolution.   

Such distinctiveness of the Islamic civilization owes to Muslims’ philosophy of life. Every moment of life is viewed as a Divine test that decides the fate in the indefinite life in the hereafter. There are two ways to add to the treasure in the hereafter: by worshiping Allah Sub’hana wa Ta’la (haqqullah) and by serving mankind (haqqul ibad). Both are crucial. There are prescriptive ways to worship Allah Sub’hana wa Ta’la. One can do it through learning Qur’an, five-time prayer, month-long fasting, zakat, and hajj. There also exists guidance to serve mankind. Giving money, building houses, delivering medical care are good ways to serve people. But the best way to serve mankind is to establish an Islamic state, Islamic societies, Qur’anic education, and enjoining the right and eradicating the wrong. Only this way one can save people from eternal life in hellfire. This is indeed a route towards making an Islamic civilization. Hence, every true Muslim is a civilization builder. In one way or other he or she invests his intellectual, physical, and financial capability to establish an Islamic state and civilization. Moreover, Muslims are the only people who are assigned to work as the Almighty’s viceroy amidst the whole mankind –as revealed in the Holy Qur’an. Hence, the civilization they build does not bear any racial, tribal to nationalist inclination, rather reflects the execution of vice-regency of the Almighty Creator.   

Muslims’ current civilizational failure woes to the fact that they no more work as the viceroys of Allah Sub’hana wa Ta’la. Nor do they grow their children, build state, and run education, culture, and judiciary as per the Qur’anic guidance. They have abandoned to grow up with the Islamic or Muslim identities. They work not to please Allah Sub’hana wa Tala but to promote tribal, racial, linguistic, and national agendas. They build states, raise societies and make institutions to serve those parochial objectives. Their philosophy, ideology, dreams do not represent Islam. Their minds are invaded with western thoughts that are vitriolic to Islamic beliefs. This indeed owes to the toxic effect of long kuffar colonial rule in the Muslim World.

 

The colonial occupation and the catastrophic damage

The kuffar colonialists occupied not only the Muslim lands but also their minds. The enemies occupied Muslim lands with weapons. They invaded the Muslims’ minds by means of a corrupt colonial education system. The education system they implemented in occupied lands is far different from the education system in their own country. The prime objective of colonial education was to produce mental slaves for giving sustenance to their colonial rule. Hence the graduates of Kolkata, Punjab, Bombay, or other Indian universities were morally, intellectually, politically, and culturally altogether different from those of Oxford, Cambridge, and other western universities. The universities in western countries produced patriotic scientists, researchers, philosophers, historians, critics, and writers to serve their national interests. But the colleges and universities of the occupied lands produced mercenaries to serve the imperialist masters. As a result, to rule a vast country like India, the British didn’t need to import their own people in large numbers. The native Indian mercenaries trained in colonial colleges and universities amply did the job. Even today, the situation hasn’t changed. The education system that the colonialists introduced in the colonies still work with the same objectives. Hence the imperialists find no difficulty to recruit mercenaries from the former colonies to run their global economic and cultural empire. So, the brain drain from these colonies is a common phenomenon.

The prime objectives of the Muslims are not to build mere mosques, madrasas, or states. It is their obligation to raise powerful civilization to showcase Islam to the whole of mankind –as the early Muslims did in their golden days. Only this way they can take the message of Islam to the doorsteps of the people of different land, language, and race. Otherwise, Islam becomes captive in the pages of the Holy Qur’an. No healthy civilization can be built in caves and tents. It needs to build good cities, states, societies, educational institutions, administration, and the Army. It also needs philosophers, thinkers, writers, preachers, researchers, reformers, warriors, and many others. This is why a Muslim can’t confine himself in rituals, rather needs to be a hard-core civilization builder.

 

Muslims’ failure

Building civilization as per the Qur’anic roadmap is itself the most important work. It is called jihad in Islam. It is indeed the greatest ibada in Islam. Muslims rise or fall depending on people’s participation in this great ibada. If there is no jihad, there will be no Islamic state, no Islamic societies, no Islamic education, no Islamic judiciary, and no Islamic civilization. It is indeed the worst catastrophic failure that can only invite the worst disaster like the kuffar occupation. It comes as a Divine punishment for betraying the duty of His vice-regency. As a result of enemy occupation, the Muslims can’t practice full Islam. Islam gets restricted only to rituals like five-time prayers, month-long fasting, charity, and hajj. The Islamic obligations like the Qur’anic education and the practice of sharia, hudud, shura, and jihad remain captivated in the pages of the Holy Qur’an.

A fish needs water. Likewise, a Muslim needs an Islamic state. Hence, the absence of an Islamic state is highly detrimental to Islam and Muslims. To avoid such a catastrophe, Prophet Mohammad (peace be upon him) left the most important legacy for the Muslims. It is a state-building cum civilization-building Sunnah of the Prophet (peace be upon him). In fact, the Prophet (peace be upon him) played the pioneering role as a state builder from day one of his migration to Medina. Not only he built a state but also gave its laws, judiciary, and administration ethics. He also framed education policy, foreign policy, and political cum social policy. He built mosques, raised Army, made alliances, and led more than a dozen war campaigns. Without such an Islamic state, one can’t practice full Islam. It is the worst intellectual failure of the Muslims that they failed to understand the importance of such a prophetic legacy. It is the common problem of the Muslims that they feel high complacency in building mosques and madrasas, but ignores Islamic state and civilization building. They also failed badly to defend Muslim states against the kuffar invasion. Whereas, like building an Islamic state, defending an Islamic or Muslim state is also very crucial. This is why, as per prophetic narrative, spending few minutes defending the border of an Islamic state is more valuable than spending a whole night in supplementary prayers.     

If Muslims fail to develop a state and its education, culture, media, institutions around the Islamic beliefs, they fail to become true Muslims. Then they also fail to raise an Islamic civilization. More awfully, they may not escape extinction as a civilization force. This is indeed the most alarming issue of Muslims today. This owes to the deep invasion of the Muslim minds by the enemies’ manipulative and corruptive thoughts, narratives, and perspectives. True Islamic faith does not get any space to grow in their already occupied minds. Thus it proves that the geopolitical occupation by the enemies doesn’t come alone. It leads to a catastrophic mental occupation.

 

The real threat against Muslims and Islam

Enemies’ occupation of Muslims’ minds works like the real security threat against Islam, Muslims, and the Islamic civilization. The occupation of mind leads to cultural change, value-change, and political change. And more awfully it leads to conceptual damage vis-à-vis foes and friends, the right and the wrong, and the worldly life and the life after death. As a result, they lose the moral compass. The figure of highness in their mind also gets changed. As a result, the great Muslim heroes do not get recognized as heroes. Instead, they take the worst enemies as the figure of highness. Even perverted thoughts and ideologies of the enemies get followers among the Muslims. Hence in most Muslim countries, the number of secularists, nationalists, racists, monarchists, socialists is more than the Islamists. Such people grow up as enemies to their own faith, own state, and own civilization. In the past, most of the damage to the Muslim World is done by these internal enemies.  

The intellectual occupation is more damaging and lasting. Hence, the satanic forces do not work only for geopolitical occupation but for mental occupation. They use lies and temptation to allure people towards evils. In the past, most of the decisive wars didn’t take place in war fields but in the intellectual premise. Now, most of the Muslim children are being conceptually killed in this intellectual battle. Hence those who fight the war against the enemy’s intellectual invasions are great soldiers of Islam. It is also a holy jihad. The Holy Qur’an is the most powerful tool in this war.

The colonialists have rolled back their physical occupation, but they haven’t ended the mental occupation. So the occupation continues. The Army, the bureaucracy, the judiciary, and the media that were built by the enemies during their colonial rule still work as fortified bastions for Islam’s enemies. These mentally occupied people sabotage any civilization-building works of the Islamists. The case of Pakistan is an example of their great success. Pakistan –the largest Muslim country in the contemporary world was created by the Muslims of South Asia overcoming the sectarian, geographical, and linguistic barriers. But the whole project has been foiled by the embedded enemies that were produced by the colonial education system. They always work as Trojan horses for the enemies. In 2001, they worked as collaborators in the USA’s war in Afghanistan. Even now, their eyes are on Afghanistan. They are eager to dismantle the Islamisation project of Taleban in collaboration with the anti-Islamic coalition of the west. The same is true for Egypt, Sudan, Algeria, Syria, Indonesia, Bangladesh, and other former colonies. Now the true Muslims are left with no option but to fight the internal occupation of the home-grown enemies. It is indeed the survival issue of Islam and Muslims. 23/07/2021




হজ্জের লক্ষ্য ও মুসলিমদের ব্যর্থতা

ফিরোজ মাহবুব কামাল

হজ্জ কেন সর্বশ্রেষ্ঠ অনুষ্ঠান?

মানব জীবনে বহুবিধ ধর্মীয় অনুষ্ঠান। কিন্তু হজ্জ কেন সকল প্রকার ধর্মীয় অনুষ্ঠান থেকে শ্রেষ্ঠতর? কেন অনন্য? কোন অনুষ্ঠানই শুধু ধর্মীয় হওয়ার কারণে শ্রেষ্ঠতর হয় না। সেসব অনুষ্ঠানে লক্ষ লক্ষ মানুষের জমায়েত হওয়াতেও তা কল্যাণকর হয় না। উলুধ্বনি,শঙ্খা ধ্বনি ও বিচিত্র বেশধারনেও কল্যাণ আসে না। ভারতে লক্ষ লক্ষ মানুষ প্রতি বছর গঙ্গাস্নানে হাজির হয়। কিন্তু গঙ্গার পানিতে কি চেতনা ও চরিত্রের ময়লা পরিষ্কার হয়? পবিত্র হয় কি মন? বিপ্লব আসে কি চেতনালোকে ও চরিত্রে? চারিত্রিক বিপ্লব তো দেহ ধৌত করায় আসে না। বিচিত্র বেশধারণ বা দেব-দেবী, সাধুসন্নাসী ও ভগবানের নামে নানারূপ রূপকথা, লোককথা বা অলৌলিক কিচ্ছাকাহিনী পাঠেও আসে না।সে জন্য তো চাই এমন এক বিপ্লবী দর্শন যা মানব মনের গভীরে প্রবেশ করে এবং আঘাত হানে ও বিপ্লব আনে চেতনার মূল ভূমিতে। এবং বিলুপ্ত করে ধর্ম, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের নামে জমে উঠা অশিক্ষা, কুশিক্ষা ও কুসংস্কারের বিশাল আবর্জনাকে। এভাবেই তো পরিশুদ্ধি আসে মানবের চেতনা ও চরিত্রে। তখন বিপ্লব আসে সমাজ ও রাষ্ট্রজুড়ে। এভাবেই তো উচ্চতর সভ্যতা নির্মিত হয়। তবে সে বিপ্লবের জন্য শুধু বিপ্লবী দর্শনই জরুরি নয়, অপরিহার্য হলো এমন কিছু বিপ্লবী মহানায়ক যিনি শুধু কথা দিয়ে নয়, নিজের কর্ম, চরিত্র ও ত্যাগের মধ্য দিয়েও মানুষকে পথ দেখায়। এভাবেই তো সমাজে অনুকরণীয় আদর্শ গড়ে উঠে। মানব ইতিহাসের সে আদর্শ মহানায়কেরা হলেন নবীরাসূল।

মানবের কল্যাণে মহান আল্লাহতায়ালা শুধু আসমানী কিতাবই নাযিল করেননি, সমাজের মধ্য থেকে শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিকে নবী রূপে নিযুক্ত করেছেন। ইসলাম শুধু মহান আল্লাহর উপর বিশ্বাসকেই অনিবার্য করে না, বরং অনিবার্য করে নবীরাসূলদের বিশ্বাস করা ও তাদেরকে মেনে চলাকেও। নবীরাসূলদের মাধ্যমে মানুষকে পথ দেখানো এবং সমাজ জুড়ে বিপ্লব আনাই মহান আল্লাহতায়ালার সূন্নত। মানুষের দায়িত্ব হলো মহান আল্লাহর সে মিশনের সাথে একাত্ম হওয়া। কুর’আনে তাই বলা হয়েছে, “তিনিই সেই মহান আল্লাহ যিনি উম্মিদের মাঝে তাদের মধ্য থেকেই একজনকে রাসূল নিযুক্ত করেছেন যিনি তাদের সামনে পাঠ করে শোনান তাঁর আয়াত এবং তাদের মধ্যে আনেন পরিশুদ্ধি ও পবিত্রতা, এবং শিক্ষা দেন কিতাব এবং প্রজ্ঞা। এবং এর পূর্বে তারা ছিল সুস্পষ্ট বিভ্রান্তিতে।”–(সুরা জুমু’আ, আয়াত ২)। মানব জীবনে সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা বা বিপর্যয়টি খাদ্যাভাবে বা অর্থাভাবে আসে না। ভগ্ন স্বাস্থ্যেও নয়। সেটি আসে সত্য থেকে বিচ্যুতি তথা পথভ্রষ্টতার কারণে। অপর দিকে সত্যকে খুঁজে পাওয়া ও বিভ্রান্তু থেকে মুক্তির মাঝেই মানবের সর্বশ্রেষ্ঠ কল্যাণ। মানব সভ্যতার শ্রেষ্ঠ আবিষ্কার তাই উড়োজাহাজ, আনবিক বোমা, রেডিও-টিভি, রবোট বা কম্পিউটার নয়।সেটি হলো জীবন ও জগতের স্রষ্টা নিয়ে সত্যের আবিষ্কার। আর সবচেয়ে বড় ব্যর্থতাটি হলো সে সত্যকে না চেনা ও সেটিকে খুঁজে না পাওয়ার ব্যর্থতা। সত্য-আবিস্কারের সফলতাটিই ব্যক্তির জীবনে সবচেয়ে বড় সফলতাটি দেয়। সেটি হলো, অনন্ত অসীম কালের জন্য জান্নাতপ্রাপ্তি। আর  সত্য আবিস্কারে ব্যর্থ হলে সে ব্যর্থতাটি ব্যক্তিকে জাহান্নামে নিয়ে হাজির করে। সমাজ এবং রাষ্ট্র তখন দুর্বৃত্তদের দিয়ে ভরে উঠে। পৃথিবীর বুকেও তখন জাহান্নামের আযাব নেমে আসে।

সমগ্র মানব ইতিহাসে সত্য আবিস্কারে সবচেয়ে সফল ও শিক্ষণীয় ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন হযরত ইব্রাহীম (আ:)। এই একটি মাত্র কারণেই তিনি সমগ্র মানব ইতিহাসে একজন শ্রেষ্ঠ ব্যক্তি হওয়ার যোগ্যতা রাখেন। কোন পয়গম্বরের ঘরে তাঁর জন্ম হয়নি। বরং জন্ম হয়েছিল পৌত্তলিক এক পিতার ঘরে। মূর্তিপূজা ও মূর্তিনির্মাণই ছিল তার পেশা। কিন্তু  সে কলুষিত পরিবেশে জন্ম নিয়েও পৌত্তলিকতার স্রোতে তিনি ভেসে যাননি। বরং সত্যের আবিস্কারে নিজের সকল প্রতিভা ও সামর্থ্যকে নিয়োজিত করেছিলেন। জীবনের শুরু থেকেই তাঁর মনে অদম্য আগ্রহ ছিল, কে এই বিশাল বিশ্বজগতের স্রষ্টা -সে সত্যটি জানার? মানব জীবনের এখানেই শ্রেষ্ঠত্ব। পশু স্রেফ পানাহার নিয়ে ভাবে, সত্য নিয়ে তার ভাবনা নাই। সে স্বভাব পশুবৎ মানুষেরও। ইব্রাহীম (আ:)’য়ের শ্রেষ্ঠত্ব এখানেই যে তার মধ্যে দেখা যায় মানবিক গুণের পূর্ণতাটি। যখন তিনি সে সত্যকে খুঁজে পেলেন তখন শুরু হলো জীবনের প্রতি পদে সে পথে চলায় প্রচন্ড আপোষহীনতা। সত্যের পথে চলায় জীবনের কোরবানীও তাঁর কাছে অতি তুচ্ছ বলে মনে হয়। তাই নমরুদের বাহিনী যখন জ্বলন্ত আগুনের মাঝে ফেলে তাঁকে পুড়িয়ে হত্যার পরিকল্পনা করলো তখনও এ মহান ব্যক্তিটি সে সত্য থেকে সামান্যতম বিচ্যুত হননি। যথন নিজের একমাত্র শিশু ইসমাঈলের কোরবানির হুকুম এলো তখনও সে হুকুম পালনে তিনি সামান্যতম ইতস্তত করেননি। মানব ইতিহাসের এ শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিকে মহান আল্লাহতায়ালা সম্মানিত করেছেন নিজের বন্ধু রূপে গ্রহন করে। প্রশংসা করেছেন তাদেরও যারা তাঁর সে মহান আদর্শ কে অনুসরণ করে। তাই পবিত্র কুর’আনের ঘোষণা,“তাঁর অপেক্ষা দীনে কে উত্তম যে সৎকর্মপরায়ণ হয়ে আল্লাহর নিকট আত্মসমর্পণ করে এবং একনিষ্ঠ ভাবে ইব্রাহীমের ধর্মাদর্শ অনুসরণ করে? এবং আল্লাহ ইব্রাহীমকে নিজের বন্ধু রূপে গ্রহণ করেছেন।”- (সুরা নিসা, আয়াত ১২৫)। সত্যের অন্বেষণ ও অনুসরণে প্রবল সদ্বিচ্ছা ও লাগাতর প্রচেষ্টা থাকলে আল্লাহতায়ালার সাহায্যলাভও ঘটে। তখন সফলতাও জুটে। হযরত ইব্রাহীম (আ:)’য়ের জীবনের সেটিও আরেক শিক্ষা। মানুষ তো পুরস্কার পায় তার ইচ্ছা ও প্রচেষ্টার কারণে। সুরা আনকাবুতে তাই মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষণা, “আল্লাযীনা জাহাদু ফিনা, লা’নাহদি’আন্নাহুম সুবুলানা।” অর্থ: যারাই আমার রাস্তায় প্রচেষ্টা করে, আমরা অবশ্যই তাদের পথ দেখাই আমাদের রাস্তার।” হযরত ইব্রাহীম (আ:) মহান আল্লাহতায়ালার বন্ধু হওয়ার সৌভাগ্য পেয়েছেন তো সে মহান নিয়েত ও প্রচেষ্টার বলেই।

হযরত ইব্রাহীমকে মহান আল্লাহতায়ালা ভূষিত করেছেন মুসলিম মিল্লাতের আদি পিতা রূপে। অথচ মানব ইতিহাসে প্রতিভাধর ব্যক্তির সংখ্যা কি কম? তাদের হাতে আবিষ্কারের সংখ্যাও কি কম? কুর’আন নাযিলের শত শত বছর আগেও এসব প্রতিভাধরদের হাতে মিশরের পিরামিড, চীনের প্রাচীর ও ব্যাবিলনের ঝুলন্ত বাগিচা নির্মিত হয়েছে। ইতিহাসে সেগুলো বিস্ময়কর আবিস্কার রূপে স্বীকৃতিও পেয়েছে। কিন্তু মানব-প্রতিভার সে বিনিয়োগ নিয়ে মহান আল্লাহতায়ালা খুশি হননি, কারণ সে প্রতিভাবান মানুষেরা ব্যর্থ হয়েছে সত্যকে খুঁজে পাওয়ার ন্যায় অতি মৌলিক কাজে। এক্ষেত্রে তাদের মনযোগ ছিল অতি সামান্যই। আজও কি এরূপ প্রতিভাধারিদের ব্যর্থতা কম? বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারে তারা নবেল প্রাইজ পেলেও সত্যকে খুঁজে পাওয়ার ক্ষেত্রে তারা মুর্খ। তাদের সে মুর্খতা হাজার হাজার বছর আাগের গুহাবাসীর চেয়ে কি কম? ফলে তাদের জীবনে বেড়েছে সত্যচ্যুতি ও বিভ্রান্তি। অসভ্য গুহাবাসীর ন্যায় তাদের জীবনেও এসেছে তাই আদীম অজ্ঞতা ও পাপাচার। সনাতন মিথ্যা তো আজও  বেঁচে আছে মিথ্যার পক্ষে এসব প্রতিভাধারিদের অস্ত্র ধরার কারণে। এসব প্রতিভাবান আবিষ্কারকদের দুস্কৃতির কারণেই বিগত দুটি বিশ্বযুদ্ধে প্রাণ দিতে হয়েছে সাড়ে সাত কোটি মানুষকে। মানব সভ্যতার সবচেয়ে বড় বড় ক্ষতিগুলো হয়েছে সত্য আবিষ্কারে ব্যর্থতা ও ভ্রান্ত পথে মেধার বিপুল বিনিয়োগের ফলে। তাই সত্য আবিস্কারে হযরত ইব্রাহীমের নানা প্রচেষ্টার কথা পবিত্র কুর’আনে বার বার বর্নিত হলেও এসব প্রতিভাধর আবিষ্কারকদের নিয়ে এক ছত্রও উল্লেখ নাই। মহান আল্লাহর প্রিয় বন্ধু এবং মানব ইতিহাসের সে মহান নায়ক হযরত ইব্রাহীম (আ:)’য়ের মহান চরিত্রকে ঘিরেই হজ্জের পুরা অনুষ্ঠান। তাই হজ্জের গুরুত্ব ও শিক্ষাকে বুঝতে হলে হযরত ইব্রাহীম (আ:)’য়ের দর্শন ও কর্মকে বুঝতে হবে। তাঁর ন্যায় এক মহান সত্য-আবিষ্কারককে মধ্য মঞ্চে রেখে মহান আল্লাহতায়ালা সত্যপ্রেমিক মানুষদেরকে বহু কিছুই শেখাতে চান। সে শিক্ষাটি মূলত মহান আল্লাহর প্রতিটি হুকুমের কাছে আজীবন আত্মসমর্পণের। সেটিই হযরত ইব্রাহীম (আ:)’র সূন্নত। হজ্জের এখানেই অনন্যতা। হজ্জ এ জন্যই মানব ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ অনুষ্ঠান।

 

বিশ্বজনীন হজ্জ

হজ্জ বিশ্বজনীন। এক্ষেত্রটিতেও হজ্জের আরেক শ্রেষ্ঠত্ব। সত্যকে যেমন ভাষা, বর্ণ বা ভৌগলিকতা দিয়ে বিভক্ত করা যায় না, তেমনি বিভক্ত করা যায় না হজ্জকেও। পৃথিবীর নানা দেশের নানা ভাষা ও নানা বর্ণের মানুষ সেখানে জমা হয়। হজ্জের মঞ্চে পৃথিবীর সবচেয়ে কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তিটি যেমন জমা হয়, তেমনি তার পাশেই জমা হয় সবচেয়ে শেতাঙ্গ ব্যক্তিটিও। একই মঞ্চে জমা হয় নানা দেশের শিয়া-সূন্নী, হানাফী-শাফেয়ী, হাম্বলী-মালেকী, দেউবন্দী-বেরেলভীগণ। তাদের মাঝে ফেকাহগত বিরোধ থাকলেও হজ্জ নিয়ে কোন বিরোধ নাই। দিন-ক্ষণ নিয়ে বিরোধের কোন সুযোগও নেই। সেটি বেঁধে দিয়েছেন খোদ মহান আল্লাহতায়ালা। এমন মহামিলন ও এমন আচার কি আর কোন ধর্মে আছে? বাঙালী হিন্দুর দুর্গা পুজায় কি কোন বিহারী, গুজরাতী, মারাঠি বা পাঞ্জাবী হিন্দু যোগ দেয়? আবাঙালী হিন্দুর দেউয়ালীতেই বা ক’জন বাঙালী যোগ দেয়? তেমনি কাথলিক খৃষ্টানদের কোন অনুষ্ঠানে কি ইউরোপীয় প্রটেষ্টান্ট, মিশরীয় কপটিক, গ্রীক অর্থোডক্স বা আর্মেনিয়ান খৃষ্টানগণ নজরে পড়ে? খৃষ্টান ধর্মে কি এরূপ কোন অনুষ্ঠান আছে যেখানে ইউরোপীয় খৃষ্টানদের সাথে আফ্রিকান বা ভারতীয় খৃষ্টানদের যোগ দেয়াটি ফরজ? অন্য ধর্মের ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলি তো এভাবে বেঁচে আছে ভিন্ন ভিন্ন ভাষা, বর্ণ ও ভূগোল-ভিত্তিক বিভক্তির পরিচয় নিয়ে। কোথায় সে বিশ্বজনীন রূপ? হিন্দু ধর্ম, বৌদ্ধ ধর্ম, শিখ ও জৈন ধর্মের ন্যায় বহু ধর্মের ভিত্তিটা এতটাই বর্ণ ও আঞ্চলিকতায় আচ্ছন্ন যে এসব ধর্মের অনুসারিরূপে আফ্রিকার কৃষ্ণাঙ্গ ও ইউরোপ-আমেরিকার শ্বেতাঙ্গদের খুঁজে পাওয়া কঠিন। এভাবে এ ধর্মগুলি কাজ করেছে মানব সমাজে বিভক্তি ও অকল্যাণ বাড়াতে। অথচ হজ্জ শেখায় বিশ্বজনীন ভাতৃত্ব ও একতা। হজ্জ তাই পৃথিবীর সকল দেশ ও সকল ভাষার মুসলিমদের একই সময়ে, একই সাথে একই মঞ্চে হাজির করে। আল্লাহর বিধান যে কতটা নিখুঁত ও কল্যাণধর্মী -এ হলো তার নমুনা।

অন্য ধর্মের অনুষ্ঠানগুলির ন্যায় হজ্জ নিছক ধর্মীয় আচার নয়। পাদ্রী ও পুরোহিতের মন্ত্র পাঠে তা শেষ হয় না। বরং হজ্জ দেয় আত্মত্যাগের এক বিপ্লবী দর্শন। শুরুটি হয় দীর্ঘ যাত্রাপথের বিপুল অংকের অর্থব্যয় দিয়ে। এভাবে হজ্জ গড়ে সম্পদ ব্যয়ের অভ্যাস। শুরু হয় দৈহিক কসরতও। সে সাথে দেয় গভীর আধ্যাত্মিকতা, দেয় সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি রূপে বেড়ে উঠার মহাপ্রশিক্ষণ। প্রশিক্ষণের আয়োজনে হজ্জ বস্তুত অনন্য। এর কারণ, হজ্জে পালনীয় প্রতিটি বিধান বেঁধে দেয়া হয়েছে মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে। ইসলাম যেমন মহান আল্লাহতায়ালার দেয়া একমাত্র ধর্ম, হজ্জও তেমনি তাঁরই দেয়া পবিত্র ধর্মীয় অনুষ্ঠান। হজ্জের কোন বিধানই মানুষের পরিকল্পিত নয়। সমগ্র অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয় সর্বশক্তিমান মহান আল্লাহর পরিকল্পনা ও নির্দেশনায়, ফলে হজ্জের সাথে কি অন্য ধর্মের কোন অনুষ্ঠানের তুলনা হয়?

 

হজ্জের শিক্ষা ও মুসলিমদের ব্যর্থতা

কিন্তু হজ্জ যে মানব ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ অনুষ্ঠান -সে চেতনাটি মুসলিমদের মাঝে কতটুকু? মহান আল্লাহতায়ালার সর্বশ্রেষ্ঠ এ আয়োজন থেকে শিক্ষা হাসিলের আয়োজনই বা কতটুকু? হজ্জ পালিত হয় জিলহজ্জ মাসের ৮ তারিখ থেকে ১২ তারিখ পর্যন্ত লাগাতর নানা পর্ব দিয়ে। হজ্জের সাথে আসে ঈদুল আযহা। হজ্জ পর্বটি মক্কা শরীফে পালিত হলেও ঈদুল আযহা পালিত হয় সমগ্র বিশ্বজুড়ে। হজ্জের শিক্ষাটিই বিশ্বময় ছড়িয়ে দেয় এই ঈদুল আযহা। কিন্তু কি সে শিক্ষা? কি এর দর্শন? ঈদুল আযহা কি শুধু পশু কোরবানি? ছোট্ট একটি সামাজিক অনুষ্ঠানেরও সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য থাকে। হজ্জের লক্ষ্য কি স্রেফ হজ্জ পালন? বহু অর্থ ও বহু শ্রম ব্যয়ে বিশ্বের নানা দেশ থেকে তিরিশ-পঁয়ত্রিশ লাখ মানুষ কেন মক্কায় হাজির হয়? সামর্থবানদের উপর কেন এটি ফরজ? ক্বাবাকে ঘিরে কেন ৭ বার তাওয়াফ? কেন মিনায় তিন দিন অবস্থান? আরাফাতে কেন মহাজমায়েত? মোজদালেফায় খোলা অকাশের নিচে কেন শয়ন? শয়তানের স্তম্ভে কেন তিন দিন ধরে পাথর নিক্ষেপ? কেন সাফওয়া ও মারওয়ার মাঝে নারী-পুরুষ, যুবক-বৃদ্ধার দৌড়াদৌড়ি? সেটিও একবার নয়,সাতবার! কেন লক্ষ লক্ষ পশু কোরবানি? এগুলি কি নিছক আচার? এগুলির পিছনে গুরুত্বপূর্ণ কোন দর্শন ও উদ্দেশ্য থাকলে সেটিই বা কি? যে ইবাদতে এত অর্থব্যয়, শ্রমব্যয় ও সময়ব্যয় তা থেকে মুসলিম উম্মাহই বা কতটুকু লাভবান হচ্ছে? প্রতি বছর হাজী হয়ে ফিরছে প্রায় ৩০ লাখ মানুষ, তাতেই বা তাদের কি কল্যাণ হচ্ছে? বিষয়গুলি অতিশয় ভাবনার। কিন্তু মুসলিমদের মাঝে সে ভাবনা কই? হজ্জের প্রতি পর্বের প্রতিটি অনুষ্ঠানের মূল পরিকল্পনাকারি যে মহান আল্লাহতায়ালা সে হুশ বা ক’জনের?

যে পাঁচটি খুঁটির উপর ইসলামের ভিত্তি তারই একটি গুরুত্বপূর্ণ খুঁটি হলো হজ্জ। তাই হজ্জকে বাদ দিয়ে ইসলামের পূর্ণ ইমারত নির্মাণ করা যায় না। এবং ইসলামের এ বিশাল ইমারতটি ধ্বসিয়ে দেয়ার জন্য প্রয়োজন নেই পাঁচটি খুঁটির সবগুলি ধ্বংসের, যে কোন এই একটি খুঁটির বিনাশই সে জন্য যথেষ্ট? আল্লাহতায়ালার কাছে মানুষের সবচেয়ে বড় পরিচয়, সে মহান আল্লাহতায়ালার খলিফা। খলিফা রূপে তার দায়িত্বটি পৃথিবীর বুকে আল্লাহতায়ালার প্রতিনিধিত্বের। মানুষ আল্লাহতায়ালার সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্ঠি শুধু এ পরিচয়ের কারণেই, দৈহিক শক্তি বা অন্য কোন গুণের কারণে নয়। আর সে পরিচয়ে বেড়ে উঠা ও টিকে থাকার জন্য অপরিহার্য হলো লাগাতর প্রশিক্ষণ। সে প্রশিক্ষণের পূর্ণ নির্দেশনা এসেছে মহান আল্লাহতায়ালা থেকে। ইসলামের বিধানগুলো মূলত সে প্রশিক্ষণেরই পূর্ণ প্যাকেজ। সে প্রশিক্ষণ পূর্ণ করতেই নামায-রোযার বিধান যেমন এসেছে, তেমনি এসেছে হজ্জ-যাকাত ও জিহাদের বিধান। মহান আল্লাহতায়ালা চান, প্রতিটি ঈমানদার ব্যক্তি সে প্রশিক্ষন নিয়ে বেড়ে উঠুক। কারণ, একমাত্র সে ভাবে বেড়ে উঠার মধ্যেই মু’মিন ব্যক্তির সফলতা। তখন সে সফল হয় পৃথিবী পৃষ্ঠে খেলাফতের দায়িত্বপালনে। আল্লাহপাক তো মু’মিনের জীবনে সে সফলতাটিই দেখতে চান। মু’মিন জান্নাত পাবে খেলাফতের দায়িত্ব পালতে সফল হওয়ার বিনিময়ে। যার মধ্যে সে প্রশিক্ষণ নাই, বুঝতে হবে তার মধ্যে আল্লাহর খলিফা রূপে দায়িত্ব পালনের সামর্থও নাই। আর সে প্রশিক্ষণের অন্যতম এক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো হজ্জ। তাই সামর্থ থাকা সত্ত্বেও যার মধ্যে হজ্জ নাই, বুঝতে হবে আল্লাহর খলিফা রূপে দায়িত্ব পালনে তার কোন আগ্রহও নেই। আল্লাহর রাসূল (সা) বলেছেন, “সামর্থ্য থাকা সত্বেও হজ্জ না করে যার মৃত্যু হলো সে খৃষ্টানরূপে না ইহুদীরূপে মারা গেল -তা নিয়ে তাঁর কিছু যায় আসে না।” অর্থাং তার জন্য নবীজী(সা:) সুপারিশ করতে রাজি নন। বোখারী শরীফের হাদীসে বর্নীত হয়েছে, নবীজী(সা:) হযরত আয়েশাকে বলেছেন, হজ্জই তাঁর জন্য জিহাদ।

 

মর্যাদা শ্রেষ্ঠ ইবাদতের

ইসলামে কোনটি শ্রেষ্ঠ এবাদত -তা নিয়ে অনেকেরই প্রশ্ন। সে প্রশ্ন জেগেছিল ইমাম হযরত আবু হানিফার (রহ) মনেও। হজ্জ সমাপনের পর তিনি বলেছেন, হজ্জই শ্রেষ্ঠ ইবাদত। হযরত শাহ ওয়ালী উল্লাহ দেহলভী (রহ) বলেছেন, যাদের মনে আল্লাহর প্রতি প্রবল ভালোবাসা,তারা তৃপ্তি পেতে পারেন হজ্জে গিয়ে। কিন্তু তবুও প্রশ্ন থেকে যায়, হজ্জ কেন শ্রেষ্ঠতম ইবাদত? কেনই বা এটি আল্লাহর আশেকদের আত্মতৃপ্তি লাভের মাধ্যম? ইসলামে ইবাদত মূলত দৈহিক, শারিরীক ও আত্মিক। একমাত্র হজ্বেই ঘটে সবগুলোর সমন্বয়। হজ্জের শ্রেষ্ঠত্ব এখানেই। কালেমায়ে শাহাদত উচ্চারনে দৈহিক কসরত নেই। তাতে অর্থব্যয়ও নেই। এতে পাহাড়-পর্ব্বত, বিজন মরুভুমি, নদনদী বা সমুদ্র-মহাসমুদ্র অতিক্রমেরও প্রয়োজন পড়ে না। তেমন দৈহীক কসরত নেই জায়নামাযে দাঁড়িয়ে নামায আদায়ে। এতটা কষ্টস্বীকার, এতটা অর্থব্যয় ও সময়ব্যয় হয় না রোযাতেও। যাকাতে অর্থব্যয় হলেও তাতে হজ্জের ন্যায় অর্থব্যয় নেই। শ্রমব্যয় এবং সময়ব্যয়ও নেই। বস্তুত হজ্জের মধ্যে রয়েছে ইবাদতের সমগ্রতা তথা পূর্ণ প্যাকেজ। এযুগে বিমানযোগে হজ্জের যে সুযোগ সেটি নিতান্তই সাম্প্রতিক। বিগত চৌদ্দ শত বছরের প্রায় সমগ্রভাগ জুড়ে মুসলিমরা হজ্জ করেছে পায়ে হেঁটে বা উঠ, ঘোড়া ও গাধার মত যানবাহনে চড়ে। তখন দৈহিক ক্লান্তির ভারে হজ্জে গিয়ে অনেকেই আর নিজ ঘরে ফিরে আসতেন না,পাড়ী জমাতেন পরপারে। তাই সে আমলে শেষ বিদায় নিয়ে দূর-দেশের লোকেরা মক্কার পথে বেরুতেন। হজ্জ পালনে যে প্রচন্ড শারিরীক কসরত তার মূল্যয়াণ করতে হবে সে আঙ্গিকেই।

 

গড়ে হিজরতের অভ্যাস

ইসলামের আরেক গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত হলো হিজরত। আল্লাহর খলিফা রূপে গড়ে তোলার এটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশিক্ষণও। হিজরত এখানে নিজ ঘর, নিজ পরিবার-পরিজন, নিজ ব্যবসা-বাণিজ্য ও সহায়-সম্পদ পরিত্যাগ করে একমাত্র আল্লাহর রাস্তায় বেরিয়ে পড়ার। নবীজী(সা:) ও সাহাবায়ে কেরাম মক্কা ছেড়ে মদিনায় গিয়ে ঘর বেঁধেছিলেন। হযরত ইব্রাহীম (আ:) তাঁর জন্মভূমি ছেড়ে ফিলিস্তিন, মিশর ও হিজাজের পথে পথে হাজার হাজার মাইল ঘুরেছেন। হিজরত করেছেন হযরত ইউসুফ (আ:), হযরত ইয়াকুব (আ:) ও হযরত মূসা (আ:)’য়ে র ন্যায় আরো বহু নবী-রাসূল। নিজ দেশ, নিজ ঘর, নিজ ব্যবসা-বাণিজ্য ও পরিবার-পরিজনের বাঁধনে যে স্থবির জীবন, তাতে আবদ্ধ হলে আল্লাহর পথে চলাটি অসম্ভব। হজ্জ গড়ে তোলে সে স্থবিরতা ছিন্ন করে হিজরতের অভ্যাস। ব্যক্তিকে তার আপন ঘর থেকে হজ্জ বাইরে নিয়ে আসে। জীবনে আনে গতিময়তা। হিজরত ছাড়া উচ্চচতর জীবনবোধ ও সভ্যতার নির্মান কি সম্ভব? ইতিহাসের সবগুলো উচ্চতর সভ্যতাই তো মহাজিরদের সৃষ্টি। বলা হয়ে থাকে, ‘সফর নিছফুল ইলম।” অর্থ: ভ্রমন হলো জ্ঞানের অর্ধেক। জ্ঞানার্জন ইসলামে ফরজ। হজ্জ তো সফরকেও অনিবার্য করে তোলে। এভাবে সুযোগ করে দেয় অন্যদের দেখার এবং তাদের থেকে শেখার। হজ্জ দেয় নানা দেশের নানা জনপদের বিচিত্র পরিবেশে চিন্তাভাবনা ও ধ্যানমগ্নতার সুযোগ। সকাল থেকে সন্ধ্যা, সন্ধ্যা থেকে সকাল এরূপ বৃত্তাকারে ঘূর্ণায়নমান যে ব্যস্ত জীবন, সে জীবনে মহত্তর লক্ষ্য নিয়ে দীর্ঘকাল ব্যাপী ভাববার অবসর কোথায়? অথচ জীবনের সঠিক উপলব্ধি ও মূল্যায়নে চিন্তাভাবনার প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। এরূপ তাফাক্কুহ বা চিন্তাভাবনা ইসলামে শ্রেষ্ঠতম ইবাদত। নবীজীর হাদীস: “আফজালুল ইবাদাহ তাফাক্কুহ”। অর্থ: শ্রেষ্ঠ ইবাদত হলো চিন্তাভাবনা করা। চিন্তা ভাবনার অভাবে সুস্থ মানুষও ভারবাহী গাধায় পরিণত হয়। কুর’আনে বহু আয়াত নাজিল হয়েছে শুধু চিন্তাভাবনার গুরুত্ব বোঝাতে। “আফালা তাফাক্কারুন”, “আফালা তাদাব্বারুন”, “আফালা তাক্বীলুন” পবিত্র কুর’আনে এরূপ নানা প্রশ্ন। চিন্তা ভাবনার সামর্থ্য থাকা সত্বেও মানুষ কেন চিন্তাভাবনা করে না -পবিত্র কুর’আনে মহান আল্লাহতয়ালার সেটিই গুরুত্নবপূর্ণ প্রশ্ন। মোজাদ্দিদ শাহ ওয়ালীউল্লাহ দেহলভি এবং বাংলার হাজী শরিয়াতুল্লাহ দুদু মিয়া ও হাজী তিতুমীরের মত মহান ব্যক্তিবর্গ তাদের জীবনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছবক ও জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনা পেয়েছেন হজ্জে গিয়ে। হজ্জে গিয়েই ইরানের বিপ্লবী লেখক ড. আলী শরিয়তি এবং বিখ্যাত মার্কিন নওমুসলিম ম্যালকম এক্স’য়ের ন্যায় শত শত ব্যক্তি পেয়েছিলেন তাদের নিজ নিজ জীবনে নতুন পাঠ। হজ্জ শেষে তারা দেশে ফিরেছিলেন আমুত্যু মোজাহিদ রূপে। হজ্জে গিয়ে তারা পেয়েছিলেন আল্লাহর খলিফা রূপে দায়িত্ব পালনের এক অদম্য প্রেরণা এবং জীবনের মোড়-ফেরানো প্রশিক্ষণ। অথচ লক্ষ লক্ষ ভাবনাশূণ্য মানুষ হজ্জ থেকে ফিরে স্রেফ হাজির খেতাব নিয়ে। এটি কি কম ব্যর্থতা?

যাদের জীবনে আল্লাহর পথে গতিময়তা এবং ভাবনা নাই, তাদের জীবনে সিরাতুল মোস্তাকিমপ্রাপ্তিও নেই। সকাল থেকে সন্ধ্যা,সন্ধ্যা থেকে সকাল এক আমৃত্যু চক্রে তারা বন্দী। এ বন্দীদশাতেই অবশেষে তারা একদিন মৃত্যুর পথে হারিয়ে যায়। অসংখ্য উদ্ভিদ ও কীটপতঙ্গের ন্যয় এভাবেই অতীতের গর্ভে হারিয়ে গেছে শত শত কোটি মানুষ। মহান আল্লাহতায়ালা এ ব্যস্ত মানুষকে সব ব্যস্ততা ফেলে তার ঘরে জমায়েত হওয়ার ডাক দেন। মিনা, আরাফাত ও মোজদালিফায় অবস্থান তার জীবনে ধ্যান মগ্ন হওয়ার সুযোগ করে দেয়। আল্লাহর ডাকে এভাবে তাঁরই ঘরে গিয়ে লাব্বায়েক তথা ‘আমি হাজির’ বলার মাঝে আল্লাহ ও বান্দার মাঝে যে একাত্মতা ঘটে তা কি আর কোন ইবাদতে সম্ভব? আর এ একাত্মতার মাঝে আল্লাহপাক তাঁর বান্দাহর জীবনের মূল পাঠটি তার চেতনার সাথে মিশিয়ে দিতে চান। সেটি হলো মহান আল্লাহতায়ালার প্রতিটি হুকুমে লাব্বায়েক অর্থাৎ আমি হাজির বলা। একজন একনিষ্ট গোলামের জীবনে এর চেয়ে উত্তম আচরণ আর কি হতে পারে? এর বিপরীত হল অবাধ্যতা বা বিদ্রোহ, ব্যক্তির জীবনে তা নিরেট পথভ্রষ্টতা এবং পরিণামে তা জাহান্নাম ডেকে আনে। কথা হলো, যে মুসলিম রাষ্ট্রের সর্বস্তরে আল্লাহর অবাধ্যতা, আল্লাহর সার্বভৌমত্ব যেখানে ভূলুন্ঠিত, প্রতিষ্ঠিত যেখানে মানুষের সার্বভৌমত্ব এবং মুসলিমের রাজনীতি, পোষাক-পরিচ্ছদ,অর্থনীতি ও সংস্কৃতি যেখানে আল্লাহর বিরুদ্ধে অবাধ্যতার প্রতীক -সেখানে লক্ষ লক্ষ হাজীর মুখে লাব্বায়ক উচ্চারনের মূল্য কতটুকু? মহান আল্লাহতায়ালা কি বান্দাহর এমন ফাঁকা বুলিতে খুশি হন?

 

অভ্যাস গড়ে আল্লাহর হুকুমে ‘লাব্বায়েক’ বলার

ঈমান হলো আল্লাহর প্রতি হুকুমে সর্বাবস্থায় ‘লাব্বায়েক’ (আমি হাজির) বলার সামর্থ্য। সে সামর্থ্যটি না থাকলে আল্লাহর দ্বীন ও তাঁর নাযিলকৃত কুর’আন বোঝা যেমন অসম্ভব, তেমনি অসম্ভব হলো সে কুর’আনী হুকুমের প্রতিপালন ও পরিপূর্ণ মুসলিম হওয়া। মানব জীবনের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা ও সবচেয়ে বড় অসামর্থ্যতা হলো এটি। এই একটি মাত্র অসামর্থ্যতাই মানব জীবনের সকল অর্জনকে পুরাপুরি ব্যর্থ করে দেয়। আজকের মুসলিমরা যে কুর’আনকে বুঝতে ও তার বাস্তবায়নে ব্যর্থ হচ্ছে -তার মূল কারণ হলো আল্লাহর হুকুমে লাব্বায়েক বলার সামর্থ্যহীনতা। তাদের সামনে আল্লাহর কুর’আন আছে, কুর’আনের হুকুমও আছে এবং নবীজী (সা:)’র মহান সূন্নতও আছে, কিন্তু যা নাই তা হলো তাঁর হুকুমে লাব্বায়েক বলার সামর্থ্য। এমন অসামর্থ্যতাই মূলত আযাব ডেকে আনে। শুধু আখেরাতে নয়, দুনিয়াতেও। নামধারি মুসলিমরা তখন ইহুদীদের ন্যায় ভারবাহী পশুতে পরিণত হয়। মহান আল্লাহর নাযিলকৃত তাওরাত নিয়ে ইহুদীরা খুবই গর্ব করতো –যেমন আজকের মুসলিমরা পবিত্র কুর’আন নিয়ে করে। কিন্তু তাদের আগ্রহ ছিল না তাওরাতে বর্নিত মহান আল্লাহতায়ালার হুকুমগুলি পালনে। সে অপরাধে মহান আল্লাহতায়ালা ইহুদীদেরকে ভারবাহি গর্দভ রূপে আখ্যায়ীত করেছেন। পবিত্র কুর’আনে সে বর্ণনাটি এসেছে এভাবে, “যাদেরকে তাওরাতের দায়িত্বভার দেয়া হয়েছিল অথচ তারা সেটি বহন করেনি তাদের দৃষ্টান্তটি হলো ভারবাহি গর্দভের ন্যায়। কতই না নিকৃষ্ট সে সম্প্রদায়ের দৃষ্টান্ত যারা আল্লাহর আয়াতগুলিকে অস্বীকার করে। আল্লাহ যালিম সম্প্রদায়কে সৎপথে পরিচালিত করেন।” –(সুরা জুমু’আ, আয়াত ৫)। ভারবাহী পশুদের পিঠে মূল্যবান কিতাবের বিশাল বোঝা থাকলেও সে কিতাবের শিক্ষা ও হুকুম-আহকাম নিয়ে তারা ভাবে না। এরূপ ভারবাহি গর্দভদের কাছে সেগুলির প্রতিষ্ঠাও গুরুত্ব পায় না। ইহুদীগণ তাই শুধু তাওরাতকে যুগ যুগ বহন করেই বেরিয়েছি, কিন্তু তার প্রতিষ্ঠায় মনযোগী হয়নি। মহান আল্লাহর কাছে ইহুদীগণ একারণেই ভয়ানক অপরাধী। এরূপ অপরাধীগণ কি কোন পুরস্কার পেতে পারে? সিরাবতুল মোস্তাকীম থেকে পথভ্রষ্টতাই যে এরূপ ভারবাহি গর্দভদের প্রকৃত প্রাপ্তি –পবিত্র কুর’আনে সে হুশিয়ারিটিও বার বার এসেছে। আর সে পথভ্রষ্টতার পথ বেয়েই তাদের জীবনে ধেয়ে আসে মহান আল্লাহতায়ালার প্রতিশ্রুত আযাব। প্রশ্ন হলো, ইহুদীদের ন্যায় মুসলিম নামধারি ভারবাহি গর্দভও কি মুসলিম সমাজে কম? লক্ষ লক্ষ হাফেজ, আলেম ও মুসল্লি ব্যস্ত শুধু কুর’আনের আয়াতগুলি তেলাওয়াত ও মুখস্ত করা নিয়ে, কিন্তু সেগুলির পালনে কোন আগ্রহই নেই। ফলে তাদের জীবনে জিহাদ বা কোরবানিও নেই। ফলে ইহুদীগণ যেমন তাওরাতের বিধান পালনে ব্যর্থ হয়েছে, তেমনি ব্যর্থ হয়েছে ৫০টির বেশী মুসলিম রাষ্ট্রের দেড় শত কোটি মুসলিম। তাই এসব মুসলিম দেশের কোনটিতেও মহান আল্লাহতায়ালা প্রদত্ত শরিয়তি বিধানের প্রয়োগ হচ্ছে না। কোন রাষ্ট্রে কতটা ধর্ম পালন হলো সেটির হিসাব কি মসজিদ-মাদ্রাসার সংখ্যা গুণে হয়? নামাযী, রোযাদার ও হাজীদের সংখ্যা দিয়েও কি সে বিচার চলে? পশু কোরবানির আয়োজন দেখেও কি সেটি বুঝা যায়? সে বিচার তো হয় মহান আল্লাহর শরিয়তি বিধান কতটা প্রতিষ্ঠা পেল তা থেকে। এজন্য তো চাই মানুষের জানমালের কোরবানি।  নবীজী(সা:) ও তাঁর মহান সাহাবাগণ তো সে পথেই দ্বীনের বিজয় এনেছিলেন, স্রেফ মসজিদ-মাদ্রাসার সংখ্যা বাড়িয়ে নয়।           

অশিক্ষা, দারিদ্র্য ও দুর্বৃত্তিতে মুসলিমগণ যে বিশ্বে রেকর্ড গড়ছে তার মূল কারণ তো শরিয়তের প্রতিষ্ঠায় মুসলিমদের ব্যর্থতা। ফলে মুসলিম বিশ্বে তেলগ্যাস, ধন-সম্পদ ও জনসম্পদ বিপুল ভাবে বাড়লেও পরাজয় ও অসম্মান এড়ানো সম্ভব হচ্ছে না। নিছক কুর’আন পাঠ ও কুর’আনের মুখস্থ্য তেলাওয়াতে যেমন সে সামর্থ্য বাড়ে না, তেমনি বাড়ে না নিছক নামায-রোযা ও হজ্জ-যাকাত পালনেও। কুর’আন-পাঠ ও নামায-রোযা পালন এমন কি মুনাফিক, ফাসেক বা জালেমের পক্ষেও সম্ভব। আল্লাহপাক চান, তাঁর প্রতিটি হুকুমের প্রতি ঈমানদারের আনুগত্য ও অঙ্গিকার প্রকাশ পাক তার প্রতিটি কথা, কর্ম ও আচরণে। ইসলাম সেটিকেই মু’মিনের আজীবনের অভ্যাসে পরিণত করতে চায়। তাছাড়া যে ব্যক্তি আল্লাহর হুকুম পালনে “লাব্বায়েক” বলতে পারে না, সে ব্যক্তি কি তার নিজ বিবেকের ডাকে বা অন্য কোন ন্যায় কর্ম পালনে লাব্বায়েক বলতে পারে? আল্লাহর হুকুমে লাব্বায়েক বলার অভ্যাস গড়ে তোলার স্বার্থেই নামায-রোযা ও হজ্জ-যাকাতের ন্যায় ইবাদত পালনে রয়েছে ধর্মীয় বাধ্য-বাধকতা। যে শ্লোগানটিতে মহান আল্লাহতায়ালার হুকুমের প্রতি আনুগত্যের প্রবল প্রকাশ, সেটিই হলো ‘লাব্বায়েক’। তাই যেখানেই আল্লাহর নির্দেশ, সেখানেই ঈমানদার মাত্রই বলে “আমি হাজির”।

ঈমানদারের পুরস্কারটি বিশাল, তেমনি দায়বদ্ধতাও বিশাল। সে বিশাল পুরস্কারটি হলো অনন্ত অসীম কালের জন্য অফুরন্ত নিয়ামত-ভরা জান্নাত। আর দায়বদ্ধতা হলো, আমৃত্যু আল্লাহর সৈনিক রূপে কাজ করা। আল্লাহতায়ালা ঈমানদারের জানমাল কিনে নেন জান্নাতের বিনিময়ে। মহান আল্লাহর সে ঘোষণাটি এসেছে এভাবে,“নিশ্চয়ই আল্লাহ মু’মিনের জান ও মাল এ মূল্যে কিনে নিয়েছেন যে তাদের জন্য হবে জান্নাত।(এবং বিনিময়ে) তারা আল্লাহর রাস্তায় যুদ্ধে করে,সে যুদ্ধে তারা (শত্রুদের) হত্যা করে এবং (নিজেরাও শত্রুদের) হাতে নিহত হয়।” –(সুরা তাওবাহ, আয়াত ১১১)। মু’মিন মাত্রই তাই মহান আল্লাহর ক্রয়কৃত সৈনিক। তার উপর মালিকানা একমাত্র মহান আল্লাহর। তাঁর প্রতি হুকুমদাতা হলেন একমাত্র তিনিই। মহান আল্লাহর সে হুকুম আসে পবিত্র কোরআনের ফরমানের মধ্য দিয়ে। মহান আল্লাহর ক্রয়কৃত এ সৈনিক কখনোই কোন রাজা, স্বৈরাচারি শাসক বা সেক্যুলার নেতার ডাকে লাব্বয়েক বলে না। তাদের ডাকে যুদ্ধও করে না। যুদ্ধ করে না কোন বর্ণ, ভাষা বা ভূগোল-ভিত্তিক পরিচয়কে বড় করার জন্য। বরং যুদ্ধ করে একমাত্র মহান আল্লাহর দ্বীনের বিজয় আনতে।

আল্লাহর ডাকে সর্বাবস্থায় লাব্বায়েক বলতে গিয়ে ইব্রাহিম (আ:) পিতা-মাতা, ঘরবাড়ী, এমনকি দেশছাড়াও হয়েছেন। বিচ্ছিন্ন হয়েছেন একমাত্র পুত্র ঈসমাইল ও বিবি হাজেরা থেকে। আল্লাহর নির্দেশে তাদেরকে খাদ্য-পানীয়হীন অবস্থায় ছেড়েছেন জনবসতিহীন মক্কার মরুর প্রান্তরে। যখন হুকুম পেয়েছেন একমাত্র পুত্রের কোরবানির, তখনও তিনি দ্বিধাদ্বন্দে পড়েননি। প্রবল ঈমানী বল নিয়ে সে হুকুম পালনে লাব্বায়েক বলেছেন। আল্লাহতায়ালার হুকুমে এভাবে লাব্বায়েক বলার ক্ষেত্রে ইব্রাহীম (আ:) হচ্ছেন সমগ্র মানব ইতিহাসে এক মহান আাদর্শ। “লাব্বায়েক” বলেছেন হযরত ইব্রাহিম (আ:)’র স্ত্রী বিবি হাজেরা এবং শিশু পুত্র ঈসমাইল(আ:)ও। তাঁকেও যখন বলা হয়েছিল, আল্লাহ তোমার জানের কোরবানি চান তখন তিনিও সাগ্রহে বলেছিলেন, “লাব্বায়েক”। অথচ বাঁচবার স্বপ্নসাধ কার না থাকে? কিন্তু আল্লাহর ডাকে লাব্বায়েক বলার চেয়ে অধিক গুরুত্বপূর্ণ কাজ এ জীবনে আর কি থাকতে পারে? শিশু ঈসমাইলও সেটি বুঝেছিলেন। বুঝেছিলেন তাঁর মহান বিবি হাজেরাও। ফলে ঘরবাড়ী ও গাছপালা নেই,খাদ্য-পানীয় ও কোন প্রাণীর আলামত নেই -এমন এক মরুর বুকে শিশু পুত্রকে নিয়ে একাকী অবস্থানের হুকুম এলে তিনিও তখন লাব্বায়েক বলেছিলেন। অতি কষ্টে প্রতিপালিত একমাত্র সে শিশু ইসমাইলককে যখন কোরবানি করার হকুম হলো বিবি হাজেরা তখনও দ্বিধান্বিত হননি। আল্লাহর ডাকে লাব্বায়েক বলার চেয়ে বাঁচবার অন্য কোন উচ্চতর প্রেরণার কথা তিনি ভাবতেই পারেননি। তাই তিনি মহান আল্লাহর প্রতি নির্দেশে লাব্বায়েক বলেছেন সমগ্র অস্তিত্ব ও অঙ্গিকার নিয়ে। এভাবে আল্লাহর ডাকে সর্বাবস্থায় লাব্বায়েক বলার যে শিক্ষা ইব্রাহীম (আ:) এবং তাঁর পরিবার রেখেছেন তা সমগ্র মানব জাতির ইতিহাসে আজও অনন্য হয়ে আছে। প্রতি যুগের প্রতিটি মুসলিম বাঁচবে সে ইব্রাহীমী মিশন নিয়ে –সেটিই তো কাঙ্খিত। তিনিই তো মুসলিমের আদি পিতা ও মডেল। আল্লাহতায়ালা হযরত ইব্রাহীম (আ:) এবং তাঁর পরিবারের মিশনে ও আত্মত্যাগে এতোই খুশি হয়েছিলেন যে সেটিকে তিনি পবিত্র কুর’আনে বার বার উল্লেখ করেছেন। তাঁর সে মহান সূন্নতকে আল্লাহতায়ালা হজ্জ রূপে ফরজ করেছেন। এভাবে সুস্পষ্ট করেছেন, আল্লাহপাক মোমেনের কোন ধরণের আমলে খুশি হন -সে বিষয়টিও।

 

লাব্বায়েক শয়তানের ডাকে!

শুধু নামায-রোযা পালন, কিছু অর্থদান, কিছু সময়দান বা হজ্জ করে যারা আল্লাহকে খুশি করার স্বপ্ন দেখেন ইব্রাহীম (আ:)’র শিক্ষা থেকে তাদের বোধোদয় হওয়া উচিত। আল্লাহতায়ালা চান, তাঁর হুকুমের প্রতি সর্বাবস্থায় ও সর্বসময়ে পূর্ণ-আনুগত্য। তাই শুধু হজ্জে গিয়ে লাব্বায়েক বলায় কল্যাণ নেই। আল্লাহর নির্দেশের প্রতি লাব্বায়েক বলতে হবে দেশের রাজনীতি, সমাজনীতি, অর্থনীতি, শিক্ষা-সংস্কতি, আইন-আদালত তথা সর্বক্ষেত্রে। তাই যে দেশে আল্লাহর শরিয়ত ও সংস্কৃতির প্রতিষ্ঠা নেই এবং সে লক্ষ্যে কোন চেষ্টাও নেই –বুঝতে হবে আল্লাহর হুকুমের ডাকে সেদেশে লাব্বায়েক বলার লোক নেই। জাতীয়তাবাদ যে দেশের রাজনীতি, সূদী ব্যবস্থা যে দেশের অর্থনীতি এবং পর্দাহীনতা, নাচ-গান ও অশ্লিল যাত্রা-সিনেমা যে দেশের সংস্কৃতি -সেদেশ তো বিজয়ের ঝান্ডা উড়ে আল্লাহর বিরুদ্ধে বিদ্রোহের। যে মহিলা হজ্জ করে অথচ বেপর্দা ভাবে জনসম্মুখে চলাফেরা করে, বুঝতে হবে হজ্জ-পালন কালে তার মুখে লাব্বায়েক ধ্বনিত হলেও তাতে সাচ্চা ঈমানদারী ছিল না। সেটি ছিল নিছক আচার, আল্লাহর প্রতি ঈমানদারী নয়। এমন হাজীরা তো শয়তানের ডাকেও লাব্বায়েক বলে। পোষাকে বেপর্দাগী, রাজনীতিতে জাতীয়তাবাদ ও সেক্যুলারিজম, অর্থনীতিতে সূদ ও পুঁজিবাদ, বিচারে কুফরি আইন –এসবই তো শয়তানের ডাকে লাব্বায়েক বলার আলামত। ভন্ডামি এখানে ইসলামের সাথে। এমন ভন্ডদের কারণেই বাংলাদেশে মত মুসলিম দেশগুলিতে হাজীর সংখ্যা বাড়লেও আল্লাহর শরিয়তী বিধানের প্রতিষ্ঠার জিহাদে লাব্বায়েক বলা লোকের সংখ্যা বাড়ছে না। বরং বিপুল ভাবে বাড়ছে শয়তানের হুকুমের প্রতি লাব্বায়েক বলার লোক। ফলে বাড়ছে সূদী ব্যাংক, বাড়ছে পতিতাপল্লি, বাড়ছে দূর্নীতি, বাড়ছে মদ্যপান, বেপর্দাগী ও ব্যভিচার । এমন ভন্ড মুসলিমগণ হজ্জ পালন করে নিছক ধর্মীয় আচার রূপে, আল্লাহর প্রতি আনুগত্যের মিশনকে নিজ জীবনে গ্রহণ করার আগ্রহ নিয়ে নয়। অথচ মুসলিমকে শুধু মহান আল্লাহতায়ালা ও তাঁর নবী-রাসূলদের প্রতি গভীর ভালবাসা নিয়ে বাঁচলে চলে না, তাকে বাঁচতে হয় শয়তান ও তার অনুসারীদের প্রতি আপোষহীন ঘৃনা নিয়ে। সে ছবকটিও হজ্জে শেখানো হয়। তাই হজ্জে শয়তানের প্রতিকী স্তম্ভে পাথর নিক্ষেপও ইবাদতের মর্যাদা দেয়া হয়েছে।

আল্লাহতায়ালা চান, তাঁর বান্দাহর ইসলামে পুরাপুরি প্রবেশ। ঈমানদারীর অর্থ শুধু নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাত পালন নয়, সেটি মিথ্যাচর্চা, সূদ-ঘুষ, ব্যাভিচারী, বেপর্দাগীর ন্যায় সকল প্রকার অবাধ্যতা থেকে দূরে থাকাও। নইলে নেমে আসে কঠিন আযাব। মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে সে কঠোর ঘোষণাটি এসেছে এভাবে, “তবে কি তোমরা কিতাবের কিছু অংশে বিশ্বাস কর এবং কিছু অংশকে প্রত্যাখান কর? সুতরাং তোমাদের মধ্যে যারা এরূপ করে তাদের একমাত্র প্রতিফল পার্থিব জীবনে হীনতা এবং কিয়ামতের দিন তারা কঠিনতম শাস্তির মধ্যে নিক্ষপ্ত হবে। তারা যা করে আল্লাহ সে সম্বন্ধে বেখবর নন।” –(সুরা বাকারা, আয়াত ৮৫)। ইসলামে পুরাপুরি প্রবেশের সে ছবকটি দেয় হজ্জ। সেটি লাব্বায়েক বলার সামর্থ্যটি চেতনার গভীরে প্রথীত করার মধ্য দিয়ে। তখন মু’মিন ব্যক্তিটি শুধু আযান বা হজ্জের ডাকে শুধু লাব্বায়েক বলে না, জিহাদের ডাকেও লাব্বায়েক বলে। তখন বিজয় এসেছে আল্লাহর দ্বীনের।   

মুসলিমদের আজ যে বিশ্বব্যাপী পরাজয়, পশ্চাদপদতা ও হীনতা, সেটি কি উপরে উল্লেখিত আয়াতকেই শতভাগ সত্য প্রমাণিত করে না? এ হীনতা যে আল্লাহর প্রতিশ্রুত আযাব -তা নিয়ে কি সামান্যতম সন্দেহ আছে? মুসলিম বিশ্ব বস্তুত সে প্রতিশ্রুত আযাবের গ্রাসে। বিশ্বের প্রায় ১৫০ কোটি মুসলিমের মানসম্মান ও ইজ্জতের এখনো কি কিছু অবশিষ্ঠ আছে? স্রেফ খাদ্য-উৎপাদন, শিল্প-উৎপাদন, সড়ক-উন্নয়ন বা শিক্ষার হার বাড়িয়ে কি এ হীনতা ও অপমান থেকে মুক্তি মেলে? মুসলিমদের মাঝে ইসলামের আংশিক অনুসরণ করে তথা নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাত পালন করে, এমন লোকের সংখ্যা আজ বহু কোটি। কিন্ত মুসলিম সমাজে সূদখোর, ঘুষখোর, মদখোর ও ব্যাভিচারীর ন্যায় আল্লাহর অবাধ্য মানুষের সংখ্যাও কি কম? মুসলিম রাষ্ট্রগুলির রাজনীতি, অথনীতি ও আইন-আদালতের সবটুকু জুড়ে আল্লাহর অবাধ্যতা, প্রতিষ্ঠা পায়নি শরিয়ত। ইসলামের নামে মুসলিমদের মাঝে যা বেড়েছে তা তো আংশিক অনুসরণ মাত্র। এমন আংশিক অনুসরণ মহান আল্লাহর আযাব ডেকে আনার জন্য যথেষ্ঠ। সে আযাবের স্পষ্ট প্রতিশ্রুতি শুনানো হয়েছে উপরুক্ত আয়াতে। চেতনার ভূমি কখনোই খালি থাকে না। আল্লাহর স্মরণ বা যিকর সেখানে স্থান না পেলে সে স্থান অধিকৃত হয় শয়তানের হাতে। তেমনটি ঘটে মত ও পথের অনুসরণের ক্ষেত্রেও। ইসলামের পূর্ণ অনুসরণ জীবনে স্থান না পেলে স্থান পায় শয়তানের অনুসরণ। এমন ব্যক্তিরাই রাজনীতি, শিক্ষাসংস্কৃতি ও কর্মক্ষেত্রে শয়তানের ডাকে ‘লাব্বায়েক’ বলে।

 

মহান আল্লাহতায়ালার ইনষ্টিটিউশন

হজ্জ মূলত মুসলিমদের আদি পিতা হযরত ইব্রাহীম (আ:) ও তাঁর পরিবারের আদর্শের সাথে পরবর্তীকালের মুসলিমদের একাত্মতার মহড়া। আল্লাহপাক তাঁর এই মহান বান্দাহ ও তাঁর পরিবারকে এভাবেই সন্মানিত করেছেন। আল্লাহ চান তার অনুগত বান্দাহগণ হযরত ইব্রাহীমের (আ:) আদর্শে গড়ে উঠুক। গড়ে তুলুক এমন এক বাহিনী যার প্রতিটি সৈনিক হযরত ইব্রাহীম (আ:)’র মতই আল্লাহর প্রতিটি নির্দেশে দ্বিধাহীন চিত্তে লাব্বায়েক বলবে।  আল্লাহতায়ালার অনুগত বান্দাদের জন্য তিনিই শ্রেষ্ঠতম মডেল। ইসলামের শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) যে ভাবে এ মডেলকে অনুসরণ করেছিলেন সেটি ফরজ সকল মুসলিমের জন্যও। বস্তুত হজ্জ হলো সূন্নতে ইব্রাহীম (আ:)’র আলোকে সত্যনিষ্ঠ মু’মিন গড়ার ইনষ্টিটিউশন। আল্লাহতে আত্মসমর্পণের ছবকই এর মূল পাঠ। আল্লাহর অনুগত বান্দারূপে ঈমানদারের কি দায়িত্ব সে বিষয়ে ঘর থেকে বহুদূরে একান্ত নিবিড়ে নিয়ে মিনায়, আরাফায় বা মোজদালেফায় বসিয়ে ভাববার সুযোগ করে দেয়।

হযরত ইব্রাহীম (আ:) এবং তাঁর স্ত্রী-পুত্রের সূন্নতকে হাজীদের পালন করতে হয়। অন্যথায় হজ্জ হয় না। বিবি হাজেরা তার শিশুপুত্রের তৃষ্ণা মেটাতে যেভাবে পানির খোঁজে সাফওয়া ও মারওয়ার মাঝে দৌড়িয়েছিলেন আজও  প্রতিটি হাজীকে -তা বৃদ্ধ হোক বা জোয়ান হোক, নারী হোক বা পুরুষ হোক, রাজা হোক বা প্রজা হোক, সকলকেই সেভাবে দৌড়াতে হয়। ‘সায়’ অর্থ প্রচেষ্ঠা। পানিহীন মরুভূমির মাঝেও হতাশ না হয়ে বিবি হাজেরা যেরূপ পানির খোঁজে স্বচেষ্ট হয়েছিলেন, তেমনি স্বচেষ্ট হতে হবে প্রতিটি মুসলিমকে তার জীবন-সমস্যার সমাধানে। তথা কল্যাণকর কাজে। এখানে কোন অলসতা চলে না। তাঁর সে নিরলস প্রচেষ্ঠাটি মানব জাতির জন্য এতটাই শিক্ষণীয় যে বিবি হাজেরার সে সূন্নত প্রতিষ্ঠা পেয়েছে হজ্জের ফরজ বিধান রূপে। সভ্যতা সভ্যতর হয় এবং মানব-জীবন উন্নততর হয় তো কল্যাণ কর্মে এমন প্রাণান্তকর প্রচেষ্ঠার কারণেই। এ চেতনাতেই মুসলিম তাই ভিক্ষুক হয়না, হতাশ ও হতোদ্যম হয় না এবং কর্ম থেকে অবসরও নেয় না। বরং সর্বাবস্থাতে আল্লাহর অনুগ্রহ তালাশে মেধা, শ্রম, সময় ও রক্ত বিনিয়োগ করে। অর্থাৎ মু’মিনের “সায়” শুধু সাফা ও মারওয়ার মাঝে শেষ হয় না, বরং সেটি আমৃত্যু চলে। মু’মিনের জীবনে এজন্যই কোন অবসর নাই। এটি সেক্যুলার ধারণা।

বিবি হাজেরা ছিলেন একজন দাসী। তাই ইব্রাহীম (আ:)’র নিঃসন্তান প্রথম স্ত্রী বিবি সারার আপত্তি ছিল না তাঁকে স্বামীর দ্বিতীয় স্ত্রী হিসাবে গ্রহণ করায়। আল্লাহর প্রতি নিষ্ঠাপূর্ণ আনুগত্যের কারণেই বিবি হাজেরা পুরস্কৃত হয়েছেন। আল্লাহপাক এভাবে সম্মানিত  করেছেন এক নারীকে। এমন মহাসম্মান কোন রাজাবাদশাহ বা সম্ভ্রান্ত বংশের কোন অভিজাত নর বা নারীর ভাগ্যেও জুটেনি। কোন পয়গম্বরের ভাগ্যেও জুটেনি। বরং পেয়েছে এমন এক মা যিনি তাঁর একমাত্র সন্তানের কোরবানির নির্দেশে নিঃসংকোচে লাব্বায়েক বলেছিলেন।। পিতা-মাতার সাথে একাত্ম হয়ে ইসমাইল (আ:) যে ভাবে নিজেকে কোরবানি করতে লাব্বায়েক বলেছিলেন সেটিও সমগ্র মানব-ইতিহাসে অনন্য। মানুষের আমল তো পুরস্কৃত হয় তার নিয়তের ভিত্তিতে। সে নিয়তে কি হযরত ইব্রাহীম (আ:) ও ইসমাইল (আ:)’য়ের মাঝে কোন কমতি ছিল। হযরত ইব্রাহীম (আ:) যখন নিজের চোখ বেঁধে পুত্র ইসলামের গলায় ছুড়ি চালাচিছলেন তখন তো হযরত ইব্রাহীম (আ:) ও ইসমাইল (আ:)-এ দুজনের কেউ জানতেন না যে আল্লাহতায়ালা হযরত ইসলমাঈল (আ:)’র বদলে ভেড়াকে সেখানে কোরবানির জন্য পেশ করবেন। তাই তাদের কোরবানি মহান আল্লাহর দরবারে সেদিন গৃহীত হয়েছিলে। পশু কোরবানির মধ্য দিয়ে তাদের সে আদর্শের সূন্নত পালন করতে হয় বিশ্বের মুসলিমদের। এটি না করলে হাজীদের হজ্জ পালনই হয় না।

হজ্জ নিজেই কোন লক্ষ্য নয়, মানুষকে একটি মহত্বর লক্ষে গড়ে তোলার প্রক্রিয়া মাত্র। আল্লাহর চুড়ান্ত লক্ষ্যটি হলো তার দ্বীনকে বিজয়ী করা। পবিত্র কুর’আনে যেমন বলা হয়েছে, “হিদায়াত ও সত্য দ্বীনসহ তিনি তাঁহার রাসূলকে প্রেরণ করেছেন এ জন্য যে দুনিয়ার সকল দ্বীনের উপর এটি বিজয়ী হবে।” -(সুরা ছফ, আয়াত ৯)। তবে এ বিজয় এমনিতে আসে না। এ কাজ ফেরেশতাদেরও নয়। বরং একাজ নিতান্তই মানুষদের। এ কাজ সমাধার জন্য ফেরেশতা হওয়ার যেমন প্রয়োজন নেই, তেমনি সুফি বা দরবেশ হওয়াও কাঙ্খিত নয়। বরং চাই জিহাদ। চাই সে জিহাদে অর্থদান, শ্রমদান, রক্তদান, এমনকি প্রাণদান। ইসলাম-বিরোধীদের নির্মূলে জরুরি হলো এমন এক বাহিনীর যারা আল্লাহর প্রতিটি নির্দেশের প্রতি নিষ্ঠার সাথে লাব্বায়েক বলবে। যেমনটি হযরত ইব্রাহীম (আ:) বলেছিলেন। নইলে বিজয় অসম্ভব। আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে ফেরেশতাকুল নেমে আসে একমাত্র তখনই যখন পৃথিবী পৃষ্ঠে এমন একটি বাহিনী আল্লাহর পথে জান ও মালের কোরবানিতে প্রস্তুত হয়ে যায়। আল্লাহর শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) এমন একটি বাহিনী গড়তে পেরেছিলেন বলেই তিনি বিজয়ী হয়েছিলেন। মুসলিমরাই হচ্ছে এ কাজে তাঁর একমাত্র বাহিনী। পবিত্র কুর’আনে আল্লাহতায়ালা সে বাহিনীকে আখ্যায়ীত করেছেন ‘হিযবুল্লাহ’ বা আল্লাহর দলরূপে। তবে নিছক দলই যথেষ্ট নয়। সে দলের জন্য লাগাতর ট্রেনিংও অপরিহার্য। সে ট্রেনিং শুধু দৈহিক নয়; আর্থিক ও আত্মিক হওয়াটাও জরুরি। নইলে অর্থ, রক্ত ও অর্থদানের জজবা সৃষ্টি হয়না। হজ্জের মধ্যে সমন্বয় ঘটেছে সবগুলীরই। লাব্বায়েক হলো বস্তুত এ বাহিনীর শপথ বাক্য। এখানে শপথ আল্লাহর প্রতি নিঃশর্ত আনুগত্যের। এটি হলো তাঁর লা-শরিক ওয়াহদানিয়াতের তথা শিরকমুক্ত একত্বের স্বীকৃতি এবং সে সাথে আল্লাহর ডাকে সদাসর্বদা লাব্বায়েক বলার। হাজীদের তাই বলতে হয়, “লাব্বায়েক, আল্লাহুম্মা লাব্বায়েক, লাব্বায়েক লা-শারিকা লাকা লাব্বায়েক, ইন্নাল হামদা ওয়ান নিয়ামাতা লাকাওয়াল মুলক, লা-শারিকা লাকা লাব্বায়েক।” 

 

ইতিহাসের উম্মূক্ত যাদুঘর

ইসলামের বিজয় আনার দায়ভারটি একার নয়, এ কাজ সমষ্টির। তাই প্রয়োজন, এ বাহিনীর অন্য সবার সাথে এক সাথে বসার। প্রয়োজন হলো, নানা বর্ণ, নানা ভাষা ও নানা দেশের এ বিশ্ববাহিনীর সৈনিকদের পারস্পারিক পরিচয়ের। প্রয়োজন হলো, মুসলিম সমস্যার পরস্পরে অনুধাবনের এবং একসাথে চিন্তাভাবনা ও স্ট্রাটিজী প্রণয়নের। এজন্য জরুরি হলো বিশ্বভাতৃত্ব। তাই মুসলিম হওয়ার অর্থই হলো প্যান-ইসলামিক চেতনায় দীক্ষা নেওয়া। বিশ্বভাতৃত্ব তাই মুসলিমের রাজনৈতিক শ্লোগান নয় -এটি তাঁর গভীর ঈমানের আত্ম-চিৎকার। ফলে ঈমানদার ব্যক্তি পুতুল-পূজাকে যতটা ঘৃনা করে, ততটাই ঘৃনা করে বর্ণবাদ, গোত্রবাদ ও জাতীয়তাবাদকে। কারণ, এগুলো হলো মুসলিমদের বিশ্বজনীন ভাতৃত্বের বুকে অনৈক্য সৃষ্টির ঘাতক ভাইরাস। আজ মুসলিমেরা  যেভাবে বিভক্ত, শক্তিহীন ও বিপর্যস্ত তা তাদের মাঝে কোন পুতুল পূজার কারণে নয়। বরং সেটি ভিন্ন ভিন্ন ভূগোল, ভাষা, বর্ণ ও গোত্র-ভিত্তিক জাহেলী চেতনার কারণে। হজ্জ সে পাপাচার থেকে দূরে সরিয়ে এনে মুসলিমদেরকে এক মহা-সম্মেলনে হাজির করে। এখানে ধনি-দরিদ্র, রাজা-প্রজা, সাদা-কালো সবার পোষাক যেমন এক, তেমনি এক হলো আত্মার আকুতি ও উচ্চরণও। লক্ষ্য একটিই এবং সেটি হলো আল্লাহর ডাকে সাড়া দেওয়া এবং তাঁকে খুশি করা। এমন এক মহা-সম্মেলনের লক্ষ্যেই আল্লাহপাক তার নিজের ঘর বায়তুল্লাহ গড়েছিলেন। সেটিও নির্মিত হয়েছিল ইব্রাহীম (আ:) ও তাঁর পুত্র ইসমাইল (আ:)’র হাত দিয়ে। এটি তাই ইতিহাসের কাদিম যাদুঘর, এবং সে সাথে ইন্সটিটিউশনও। এখানে পা রেখেছিলেন হযরত ইব্রাহীম (আ:), হযরত ঈসমাইল (আ:), বিবি হাজেরা, শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) ও তাঁর বিখ্যাত সাহাবাগণ। এ নগরের প্রতিটি প্রান্তর, প্রতিটি অলিগলি, প্রতিটি পাথর এবং প্রতিটি ধুলিকণায় জড়িত রয়েছে মানব ইতিহাসের শ্রেষ্ঠতম সন্তানদের স্মৃতি। এখানে রয়েছে হাজরে আসওয়াদ, মাকামে ইব্রাহীম, আরাফা, মিনা ও মোজদালেফা। মারেফাতের তথা আল্লাহকে জানা ও তাঁর সান্নিধ্যলাভের প্রানকেন্দ্র হলো এগুলি। আল্লাহর সৈনিকদের শপথ বাক্য উচ্চারণের এর চেয়ে পবিত্রতম আয়োজন আর কি হতে পারে? আল্লাহর শ্রেষ্ঠ সন্তানেরা মানব সভ্যতার এ শ্রেষ্ঠ ভূমিতে দাঁড়িয়েই আল্লাহর প্রতিটি নির্দেশে লাব্বায়েক বলেছিলেন। ফলে গড়ে উঠেছিল ফেরেশতাদের চেয়েও শ্রেষ্ঠতর মানব। এ পবিত্র প্রাঙ্গণের প্রতিটি ধুলিকণা আজও  মানুষকে সেই একই পথে চলতে নির্দেশ দেয়। ইতিহাসের সেই একই মঞ্চে দাঁড়িয়ে একই সূরে একই শপথ “আল্লাহুম্মা লাব্বায়েক”উচ্চারন করে বিশ্বের নানা কোন থেকে আগত আজকের ঈমানদারগণ। আত্মিক উন্নয়নের এর চেয়ে পবিত্রতম স্থান এবং এর চেয়ে পবিত্রতম আয়োজন আর কি হতে পারে? এর চেয়ে উত্তম মারেফতি ধ্যান আর কি কোথাও হতে পারে?

 

যে কারণে শ্রেষ্ঠ ইবাদত

আন্তর্জাতিক এ মহাসম্মেলনের আয়োজক মহান আল্লাহতায়ালা খোদ নিজে। নইলে ইতিহাসের সর্ববৃহৎ এ সম্মেলনটি চৌদ্দ শত বছর ধরে সম্ভব হত না। নানা যুদ্ধ-বিগ্রহ ও দুর্যগের মাঝেও এ বিশাল সম্মেলনটি সুচারুভাবে সম্পন্ন হয়ে আসছে যুগ যুগ ধরে। অন্যরা এখানে মেহমান, খোদ আল্লাহতায়ালা এখানে মেজবান। আল্লাহর উদ্দেশ্যে হওয়ায় এ সম্মেলনে যোগ হয় পবিত্রতা। লক্ষ্য যখন এক ও অভিন্ন, তখন দ্বন্দ থাকে না। দলাদলিও থাকে না। নানা বিভিন্নতা থেকে এসে এখানে এসে সবাই অভিন্ন হয়ে যায়। বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে ধর্মপ্রাণ মানুষ এখানে ছুটে আসে নিজস্ব অর্থে। কারো অনুদানের প্রয়োজন হয়না। হেজাজের পুণ্যভূমি যখন বৈষয়িক সম্পদে দরিদ্র্য ছিল তখনও এ হজ্জ আয়োজিত হয়েছে মানুষের নিজস্ব উদ্যোগে। মক্কা হলো ইসলামের মূক্ত নগরী। এখানে আসার জন্য অনুমতিরও প্রয়োজন নেই। আসতে বাধা দেওয়াই চরম অধর্ম। বাধা দিলে সে বাধা অপসারণ করা সকল মুসলিমের ধর্মীয় দায়িত্ব হয়ে পড়ে। এভাবেই নিশ্চয়তা বিধান হয়েছে এ বিশ্ব সম্মেলনের।

আরাফার মহা জমায়েত, মোজদালিফায় রাত্রিযাপন, কাব্বার তোয়াফ এবং শয়তানের স্তম্ভে পাথর নিক্ষেপের পর মুসলিম বিশ্বে আসে ঈদুল আযহা। আনে ঈদ তথা খুশি। প্রকৃত ঈদ বা খুশির প্রকৃত কারণটি নিজের বা অন্যের জন্ম নয়, বরং সেটি নিজের অর্জিত সাফল্য। মাতৃগর্ভ থেকে নিজের জন্মলাভে ব্যক্তির নিজের কোন কৃতিত্ব থাকে না, সে দানটি তো মহান আল্লাহর। ফলে প্রশংসা তো একমাত্র তারই প্রাপ্য। তাই নিজের বা অন্যের জন্মদিনে কেন সে খুশি করবে? তাই খৃষ্টান ধর্মে এবং অন্যান্যে ধর্মে ধর্মীয় নেতার জন্ম দিবস পালনের রীতি থাকলেও ইসলামে সেটি নাই। তাই সাহাবায়ে কেরাম নবীজী(সা:)’র জন্ম দিন পালনে করেছেন সে নজির নেই। মুসলিমের জীবনে প্রকৃত ঈদ মাত্র দুটি। একটি মাহে রমযানের, অপরটি ঈদুল আযহার। এ দুটি ঈদে উযপাপিত হয় ঈমানদারের জীবনের দুটি বিশাল বিজয়। একটি মাহে রমযানের মাসব্যাপী রোযা পালনের, অপরটি হজ্জ পালনের তথা আল্লাহর ডাকে লাব্বায়েক বলার সামর্থ্য অর্জনের। সে হজ্জ যেন রোজ-হাশর বা বিচারদিনের মহড়া। সর্বত্র এক পোষাক, এক বর্ণ, একই আওয়াজ। সবার মধ্যে একই পেরেশানী। নানা দেশের নানা ভাষার মানুষ এখানে এক মানবসমুদ্রে লীন। মাথায় টুপি নেই, পায়ে জুতা নেই, গায়ে জামা নেই, আভিজাত্য প্রকাশের কোন মাধ্যমও নেই। দুই টুকরো সিলাই হীন কাপড় নিয়ে সবাই এখানে একই সমতলে। কাফনের কাপড় পরে লাশেরা যেন কবর থেকে লাখে লাখে বেরিয়ে এসেছে। সাদা-কালো, আমির-ওমরাহ, নারী-পুরুষ সবাই এখানে একাকার। সবাই ছুটেছে একই লক্ষ্যে। বান্দার সুউচ্চ লাব্বায়েক ধ্বনি আল্লাহর উপস্থিতিকে যেন স্মরন করিয়ে দেয়। আল্লাহর স্মরণে কেঁপে উঠে বান্দার দেহ, মন তথা সমগ্র অস্তিত্ব। এখানে ভয়, বিনয় ও আনুগত্যের ভাব সর্বত্র। সবাই ঘুরছে আল্লাহর ঘরকে কেন্দ্র করে। রোজ হাশরের বিচার দিনে মানুষ যে কত অসহায় হবে হজ্জ সেটিই স্মরণ করিয়ে দেয়। মৃত্যূবরণ না করেও যেন মৃত্যুর অভিজ্ঞতা। ফলে প্রেরণা মেলে সময় থাকতে জীবনের পূর্ণাঙ্গ মূল্যায়নের। গুরুত্ব পায় আল্লাহর কাছে হিসাব দেওয়ার আগে নিজেই নিজের হিসাব নেয়ার। পরকালীন সাফল্য লাভে এ মূল্যায়নটুকুই তো মূল। এমন উপলব্ধি ছাড়া আল্লাহতে পূর্ণ আত্মসমর্পণ ও শয়তানের দাসত্বমূক্তি কি সম্ভব?  হজ্জ তো সে সুযোগই এনে দেয়। সম্ভবতঃ এ জন্যই এটি ইসলামের শ্রেষ্ঠতম ইবাদত। কিন্তু সে শ্রেষ্ঠ ইবাদতের সে শিক্ষা আজকের মুসলিমের জীবনে কই? আজকের মুসলিমদের জীবনে এটাই কি বিশাল ব্যর্থতা নয়? লন্ডন; ২০/১০/২০১২, দ্বিতীয় সংস্করণ ১২/১০/২০১৩।




বিবিধ ভাবনা ৬৭

ফিরোজ মাহবুব কামাল

১. পালিত হচ্ছে না পবিত্র কুর’আনের ফরজ

প্রতিটি ফরজ বিধান প্রতিটি মুসলিমের উপর বাধ্যতামূলক। কোন ফরজ বিধান পালন না করে কেউই মুসলিম রূপে গণ্য হওয়ার কথা ভাবতে পারেনা। তবে ইসলামে শুধু নামায-রোযা ও হ্জ্জ-যাকাতই ফরজ করা হয়নি। তার সাথে আরেকটি অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কেও ফরজ করা হয়েছে। সেটি হলো পবিত্র কুর’আন। সে ঘোষণাটি এসেছে সুরা কাসাসের ৮৫ নম্বর আয়াতে। বলা হয়েছে, “ইন্নাল্লাযীনা ফারাদা আলাইকাল কুর’আনা..”। অর্থ: নিশ্চয়ই (হে মুহম্মদ তিনি সেই মহান আল্লাহ) যিনি আপনার উপর ফরজ করেছেন কুর’আন।

প্রশ্ন হলো, কুর’আন ফরজ করার অর্থ কি? অন্ধকার গহীন জঙ্গলে বা বিশাল মরুর বুকে যে পথিক পথ হারিয়েছে তার কাছে রোডম্যাপের গুরুত্ব অপরিসীম। পথের সন্ধান না পেলে তার মৃত্যু অনিবার্য। তমনি গুরুত্বপূর্ণ হলো পথহারা মানুষের কাছে পবিত্র কুর’আন। একমাত্র এ কুর’আনই পথ দেখায় জান্নাতের। তাই যে ব্যক্তি কুর’আন পায়, একমাত্র সেই জান্নাত পায়। নইলে অনিবার্য হয় জাহান্নামে পৌঁছা। একজন বিবেকমান মানুষের কাছে জাহান্নামের আগুনে কোটি কোটি বছর দগ্ধিভুত হওয়া থেকে বাঁচাটি যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি গুরুত্বপূর্ণ হলো কুর’আন বুঝা এবং তা অনুসরণ করা।

মুসলিম উম্মাহর মাঝে বহু কোটি মানুষ আছে যারা নামায-রোযা ও হ্জ্জ-যাকাতের ন্যায় ফরজগুলি গুরুত্ব দিয়ে পালন করে। কিন্তু পালন করেনা পবিত্র কুর’আনের ফরজ। মুসলিম উম্মাহর মূল রোগটি এখানেই। ফলে তাদের জীবনে নামায-রোযা ও হজ্জ-যাকাত থাকলেও তারা কুর’আনের পথে তথা জান্নাতের পথে নাই। বাংলাদেশের মত মুসলিম দেশে কোটি কোটি মানুষ যে পথহারা তা নিয়ে সন্দেহ আছে? যারা জান্নাতের পথে থাকে তারা কি কখনো জাতীয়তাবাদ, সেক্যুলারিজম, লেবারালিজম ও সমাজবাদের পথে থাকে। তারা কি বিভক্ত হয় এবং নিজ হাতে নিজ দেশ ভেঙ্গে কাফেরদের সাথে নিয়ে উৎসব করে? আদালত থেকে কি বিলুপ্ত করে শরিয়ত? এগুলি তো শয়তানের পথ তথা জাহান্নামের পথ। জান্নাতের পথে শুধু নামায-রোযা ও হজ্জ-যাকাতই থাকে না, থাকে কুর’আনী জ্ঞান শিক্ষা, ইসলামী রাষ্ট্র, শরিয়ত, হুদুদ, জিহাদ, প্যান-ইসলামিক মুসলিম ঐক্য, শুরাভিত্তিক শাসন ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কিন্তু বাংলাদেশে এর কোনটিই নাই। অথচ নবীজী (সা:)’র আমলে এর সবগুলিই ছিল। এবং ঐগুলিই হলো জান্নাতের যাত্রাপথের মাইল ফলক। জান্নাতে পৌঁছতে হলে যাত্রাপথের এই সবগুলি মাইল ফলক অতিক্রমের নিয়েত থাকতে হয়। এবং সে লক্ষ্যে জিহাদও থাকতে হয়। 

কুর’আনের ফরজ কখনোই গ্রন্থ্যটিকে জড়িয়ে ধরে চুমু খেলে পালিত হয়না। না বুঝে তেলাওয়াতেও পালিত হয়না। সে ফরজ তো তখনই পালিত হয় যখন মহান আল্লাহতায়ালার দেয়া এ সর্বশ্রেষ্ঠ দানটি বুঝার চেষ্টা করা হয় এবং কুর’আনে বর্ণিত বিধানগুলিকে ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনে প্রতিষ্ঠা দেয়া হয়। মুসলিমদের গৌরব কালে তো সেটিই হয়েছিল। কুর’আনের ফরজ আদায় সে সময় এতটাই গুরুত্ব পেয়েছিল যে মিশর, সুদান, সিরিয়া, ইরাক, মরক্কো, আলজিরিয়া, লিবিয়া, তিউনিসিয়া ও মৌরতানিয়ার ন্যায় বহু দেশের জনগণ তাদের মাতৃভাষাকে দাফন করে আরবী ভাষাকে নিজেদের ভাষা রূপে গ্রহণ করেছিল। তারা বুঝেছিল, কুর’আন না বুঝলে ও না মানলে কুর’আনের ফরজ পালিত হয়না। এবং সে ফরজ পালিত না হলে জান্নাতেও পৌঁছা যায় না।

অথচ বাংলাদেশের ন্যায় বহুদেশের মুসলিমের মূল ব্যর্থতাটি এখানেই। পবিত্র কুর’আনের ফরজ পালন না করেই তারা মুসলিম হওয়ার দাবী করে! এটি অবিকল ডাক্তারী বই না পড়েই ডাক্তারী পেশায় নামার ন্যায়। এভাবে ব্যর্থ হচ্ছে মুসলিম রূপে বেড়ে উঠা। নামায-রোযা ও হজ্জ-যাকাতের ফরজগুলি তো তখনই কাঙ্খিত ফল দেয় যখন কুর’আনের ফরজটি প্রথমে পালিত হয়। কারণ কুর’আনের জ্ঞানই আমলে ও ইবাদতে ওজন বাড়ায়। আর মহান আল্লাহতায়ালা তো আমলের ওজন দেখেন, সংখ্যা নয়। জাহিল ব্যক্তির ইবাদত তাই কখনোই জ্ঞানী ব্যক্তির ইবাদতের সমান হয়না। ইসলামে জ্ঞানার্জনের মর্যাদা এত বেশী যে, হাদীসে বলা হয়েছে: যখন কোন ব্যক্তি জ্ঞানার্জনের লক্ষ্যে ঘর ছেড়ে পথে বের হয় তখন শুধু ফিরেশতাগণ নয় সকল জীবজন্তু, পশুপাখী ও পানির মাছ তার জন্য দরুদ পড়তে থাকে। এবং জ্ঞানীর যখন মৃত্যু হয় তখন যেন আসমান থেকে একটি নক্ষত্র খসে পড়লো। অথচ সে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টিকেই মুসলিম সমাজে গুরুত্ব দেয়া হয়না।

কুর’আনের ফরজ আদায়ের পথে সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে মোল্লা-মৌলভী-আলেমগণ। না বুঝে কুর’আন তেলাওয়াত করলেই বিপুল সওয়াব –এরূপ কথা বলে কুর’আনের ফরজ আদায়ের আগ্রহই তারা বিলুপ্ত করেছেন। এবং তারা ব্যর্থ হয়েছেন সাধারণ জনগণের মাঝে কুর’আন বুঝায় আগ্রহ সৃষ্টি করতে। তাদের কারণে মানুষ না বুঝে তেলাওয়াত করেই আত্মপ্রসাদ লাভ করে। নবীজী (সা:) ও সাহাবাদের আমলে কি সেটি ভাবা যেত? মহান আল্লাহতায়ালা তাঁর পবিত্র কুর’আনকে না বুঝে তেলাওয়াতের জন্য নাযিল করেননি। বরং এ জন্য নাযিল করেছেন যে মানুষ তা পড়বে, বুঝবে এবং পদে পদে তা অনুসরণ করবে। যেমনটি হয়ে থাকে পথ চলায় রোডম্যাপ অনুসরণের ক্ষেত্রে।

অথচ এ সহজ-সরল বিষয়টি বাংলাদেশের সাধারণ মুসলিমগণ যেমন বুঝতে পারিনি, তেমনি বুঝতে পারিনি দেশের সরকার, শিক্ষাবিদ ও মোল্লা-মৌলভী-আলেমগণ। এজন্যই বাংলাদেশের মত দেশে ঘরে ঘরে কুর’আন তেলাওয়াতের বিপুল আয়োজন থাকলেও তা বুঝার আয়োজন নাই। শয়তান তো এটিই চায়। শয়তান চায়, জনগণ কুর’আন চর্চাকে শুধু তেলাওয়াতের মাঝে সীমিত রাখুক। ফলে চলছে শয়তানকে খুশি করার আয়োজন। মহান আল্লাহতায়ালার দেয়া ফরজ বিধানগুলিকে পবিত্র কুর’আনের পৃষ্ঠাগুলিতে বন্দী রাখার এর চেয়ে মোক্ষম উপায় আর কি হতে পারে? প্রশ্ন হলো, বাংলাদেশের মত মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলিতে কি শয়তানকে খুশি করা ও শয়তানী প্রকল্পকে সফল করার এ কাজগুলিই লাগাতর চলতে থাকবে?

 

২. যুদ্ধময় জীবন ও শত্রু-মিত্রের পরিচয়

ঈমানদারের জীবনের প্রতিটি মুহুর্তই যুদ্ধময়। প্রতিটি আলোর যেমন উত্তাপ থাকে, তেমনি ঈমানদারের জীবনেও যুদ্ধ থাকে। বস্তুত যুদ্ধই পরিচয় দেয় সে কি আদৌ মুসলিম। মুসলিম রূপে নিজেকে পরিচয় দিল, অথচ জীবনে যুদ্ধ নাই -সেটি কি ভাবা যায়? তবে ঈমানদারের যুদ্ধটি শুধু পানাহারে বাঁচার যুদ্ধ নয়। বরং সেটি আদর্শ নিয়ে বাঁচার। মুসলিম জীবনে সে আদর্শটি হলো ইসলাম। এবং আরো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, মুসলিম যোদ্ধাকে শুধু যুদ্ধ জানলে চলে না, কে শত্রু এবং কে মিত্র -সেটিও সঠিক ভাবে জানতে হয়। নইলে ভাল যুদ্ধ করেও পরাজয় এড়ানো যায় না।

তবে ঈমানদারের জীবনে প্রতি মুহুর্তে যে যুদ্ধ -সেটি মূলত শয়তানী শক্তির পক্ষ থেকে চাপানো যুদ্ধ। বলা হয়ে থাকে, ঈমানদার যদি কোন পাহাড়ে বা বিজন মরুভূমিতে একাকী পথ চলে, সেখানেও তাঁর পিছনে শয়তান এসে হাজির হয়। শয়তান কখনোই তার শত্রু তথা প্রকৃত ঈমানদারকে চিনতে ভূল করেনা। তাই যার জীবনে শয়তানের আরোপিত যুদ্ধ নাই, বুঝতে হবে শয়তান এবং শয়তানের অনুসারিগণ তাকে শত্রু রূপে গণ্যই করে না। এবং শয়তানের দৃষ্টিতে সে ঈমানদার নয়।

নবীজী (সা:)’র চেয়ে অধিক শান্তিবাদী ও সত্যাবাদী মানব সে সময় সমগ্র আরবে আর কে ছিল? নবুয়ত লাভের পূর্ব থেকেই বিবাদমান গোত্রগুলির মাঝে তিনি মীমাংসা করে দিতেন। কিন্তু যখনই তিনি ইসলামের দিকে মানুষদের ডাকা শুরু করলেন, তখনই তাঁর উপর যুদ্ধ চাপিয়ে দেয়া হয়েছিল। প্রতি সমাজেই যুদ্ধের দুটি রূপ: এক). বুদ্ধিবৃত্তিক যুদ্ধ; দুই). অস্ত্রের যুদ্ধ। মক্বার ১৩ বছর চলে নবীজী (সা:)’র বুদ্ধিবৃত্তিক যুদ্ধ। শত্রুগণ তাঁকে বিনা বাঁধায় এক পাও এগুতে দেয়নি। শুরু হয় লাগাতর গালিগালাজ, হাসি-মস্করা, মিথ্যা অপবাদ আরোপের পালা। তাকে পাগল, যাদুকর ও জ্বিনের আছড়গ্রস্ত বলেও অভিহিত করা হয়। বয়কট করা হয় সামাজিক ভাবে। এসবই ছিল তাঁকে মানসিক ভাবে পরাস্ত ও পঙ্গু করার কৌশল।

সে বুদ্ধিবৃত্তিক যুদ্ধে নবীজী (সা:)’র হাতিয়ারটি ছিল পবিত্র কুর’আন। এবং কুর’আনকে হাতিয়ার রূপে ব্যবহারের হুকুমও এসেছে মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে। বলা হয়েছে “জাহিদু বিল কুর’আন”; অর্থ: কুর’আন দিয়ে জিহাদ করো। অথচ বাংলাদেশের মত দেশগুলিতে যারা ইসলামের পক্ষে লড়াই করে তাদের হাতে সে পবিত্র হাতিয়ারটি নাই। মহান আল্লাহতায়ালার ওয়াজের বদলে তারা নিজেদের ওয়াজ চালিয়ে যায়। অথচ মক্কার বুকে ১৩ বছর যাবত যুদ্ধে নবীজী (সা:) কুর’আনকে ব্যবহার করেছেন হাতিয়ার রূপে। শেষের দিকে ষড়যন্ত্র শুরু হয় তাঁর প্রাণনাশের। এ পর্যায়ে মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে তাঁকে মদিনায় হিজরতের নির্দেশ দেয়া হয়।

মদিনায় হিজরতের পরও নবীজী (সা:)’র জীবনে যুদ্ধ থেমে যায়নি। বরং শুরু হয় গালিগালাজের বদলে অস্ত্রের যুদ্ধ। লক্ষ্য, তাঁর ও তাঁর অনুসারীদের মদিনা থেকে সমূলে নির্মূল। নবীজী (সা:)ও থেমে যাননি। তাঁকে ইসলামের মিশন চালিয়ে যেতে হয়েছে বদর, ওহুদ, খন্দকের ন্যায় চুড়ান্ত যুদ্ধে বিজয় অর্জনের মধ্য দিয়েই। আজও মুসলিমদের সামনে যুদ্ধ ছাড়া কি ভিন্ন পথ আছে? যুদ্ধ থেকে দূরে থাকার অর্থ বিনা যুদ্ধে শয়তানী শক্তির কাছে পরাজয় মেনে নেয়া। অথচ এরূপ পরাজয় মেনে নেয়াতে ইসলাম বাঁচে না। ঈমানও বাঁচে না। তখন প্রতিষ্ঠা পায় শয়তানের বিধান। বাংলাদেশের মত দেশগুলিতে সেটিই হয়েছে। ফলে শয়তানী শক্তির হাতে বিলুপ্ত হয়েছে রাষ্ট্রের বুকে মহান আল্লাহতায়ালার সার্বভৌমত্ব, বিলুপ্ত হয়েছে শরিয়তী আইন এবং বিলুপ্ত হয়েছে নবীজী (সা:)’র আমলের ইসলাম এবং ইসলামী রাষ্ট্র। ফলে বিজয়ের মহোৎসব বেড়েছে সেক্যুলারিস্ট, ন্যাশনালিস্ট, ও ফ্যাসিস্টদের ন্যায় নানারূপ শত্রুশক্তির।

নিরাপদ জীবন শুধু পানাহারে নিশ্চিত হয় না। চিনতে হয় আশে পাশের হিংস্র পশু ও বিষাক্ত সাপ-বিচ্ছু ও পোকামাকড়দেরও। এ জ্ঞান না থাকলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি দিয়ে লাভ হয়না। তেমনি যুদ্ধে বিজয়ী হতে হলে কে শত্রু এবং কে মিত্র –সেটিও জানতে হয়। পবিত্র কুর’আনে তাই শুধু নামায-রোযা ও হজ্জ-যাকাতের বিধানই দেয়নি, নানা ভাবে পরিচয় পেশ করা হয়েছে ইসলামের শত্রুদেরও। ইসলামের শত্রুদের চেনার ২টি সহজ উপায় হলো: এক). ইসলামের শত্রুদের বিজয় ও ইসলামপন্থিদের ফাঁসি, নির্যাতন ও কারাবন্দী হতে দেখে তাদের উল্লাস আর গোপন থাকে না; বাঁধ ভাঙ্গা প্লাবনের পানির ন্যায় তা উপচে পড়ে। ইসলামপন্থিদের বিপদ দেখলেই তারা উৎসব করে। দুই). তারা কখনোই কুর’আন-হাদীস ও ইসলামী বিধানের প্রশংসা করে না। সে বিধানের প্রতিষ্ঠায় আগ্রহও দেখায় না। বরং তারা প্রশংসায় গদ গদ হয় ভারতের ন্যায় কাফের শক্তির এবং সে সাথে জাতীয়তাবাদ, সেক্যুলারিজম ও সমাজবাদের মত কুফরী মতবাদের।

যুদ্ধে পরাজয়ের আরেক কারণ হলো, নিজ দেশে ছদ্দবেশী শত্রুর উপস্থিতি। জিততে হলে এদেরও চিনতে হয়। নিজেকে এরা মুসলিম রূপে পরিচয় দেয় এবং জনসম্মুখে নামায-রোযাও পালন করে। এরাই হলো মুনাফিক। এবং এরাই বিশ্বাসঘাতক। মুসলিমদের বড় বড় পরাজয়ের কারণ হলো এ মুনাফিকগণ। কাফেরদের চেয়েও এরাই হলো ইসলামের বড় শত্রু। খোদ নবীজী (সা:)’র আমলেও তাদের সংখ্যা কম ছিল না। সে সময় যারা নিজেদেরকে মুসলিম রূপে পরিচয় দিত তাদের মাঝে তারা ছিল প্রায় শতকরা ৩০ ভাগ। তবে তাদের চেনাটিও কঠিন নয়। মুনাফিকদের চরিত্রের ২টি বিশেষ আলামত হলো: এক). ইসলামের শত্রুদের বিজয়, ইসলামী শক্তির পরাজয় এবং দেশের আদালত থেকে শরিয়তের বিলুপ্তি দেখেও তাদের মনে দুঃখ হয়না। শরিয়তের প্রতিষ্ঠা নিয়ে তথা ইসলামের বিজয় নিয়ে তাদের কোন আগ্রহ থাকে না। জিহাদের কথা কখনোই মুখে আনে না। দুই). ইসলামের যারা অতি পরিচিত শত্রু তারা কখনোই এ জীবদের নিজেদের শত্রু মনে করে না। তাদেরকে বরং বন্ধু মনে করে।

৩. চারিত্রিক বিপ্লব কীরূপে?

চরিত্রে আমূল বিপ্লব আনে আখেরাতের ভয়। সে বিপ্লব দেখা গেছে নবীজী (সা:)’র সাহাবাদের জীবনে। যেদেশে সে বিপ্লব আসেনি, নিশ্চিত বুঝতে হবে সে দেশের মানুষ যতই মসজিদ-মাদ্রাসা গড়ুক বা নামায-রোযা পালন করুক, তাদের মাঝে আখেরাতের ভয় সৃষ্টি হয়নি। কেউ যদি সত্যিই বিশ্বাস করতো, পৃথিবীর সামান্য ক’টি বছরের ভাল কাজের বদলে আখেরাতে জুটবে অনন্ত অসীম কালের জন্য জান্নাত এবং মুক্তি মিলবে কোটি কোটি বছরের জাহন্নামের আগুন থেকে, সে ব্যক্তি কখনোই চুরিডাকাতি, খুন-ব্যাভিচার, সন্ত্রাস ও দুর্বৃ্ত্তিতে নামতো না। তার জীবনে তখন শুরু হতো ভাল কাজে প্রতিযোগিতা। এবং আজীবন লেগে থাকতো জিহাদে। কারণ, জিহাদই হলো সর্বশ্রেষ্ঠ নেক কর্ম এবং জান্নাতে প্রবেশের অব্যর্থ চাবি। পবিত্র কুর’আনে মহান আল্লাহতায়ালা বার বার ওয়াদা করেছেন, যারা জিহাদে নিহত হবে তাদের বিনা হিসাবে জান্নাত দেয়া হবে। সে বিশ্বাসটি প্রবল ভাবে দেখা গেছে নবীজী (সা:)’র সাহাবাদের মাঝে। এমন চেতনা নিয়ে বাঁচায় নির্মূল হয় মিথ্যা ও দুর্বৃত্তি এবং প্রতিষ্ঠা পায় সত্য, সুবিচার ও শান্তি।

অতি শিক্ষণীয় একটি কাহিনী আছে। মানুষ যখন বহুশত বছর বাঁচতো তখন এক নবীর কাছে সন্তানহারা এক মা গিয়ে দুঃখভরে বলে, তারা পুত্রটি মারা গেছে। তখন সে নবী তাকে জিজ্ঞাসা করেন, তোমার পুত্রের বয়স কত ছিল? সে বলে আমার পুত্রের বয়স ছিল তিনশত বছরের কিছু বেশী। তখন উক্ত নবী তাঁকে বলেন, এমন এক সময় আসবে মানুষ যখন গড়ে ৭০ বছরেরও কম বাঁচবে। নবীর মুখ থেকে সে কথা শুনে উক্ত মা বিস্ময়ে বলেন, আমি সে সময় হলে ৭০ বছরের সে সময়টি সিজদাতেই কাটিয়ে দিতাম। অনন্তকালের জান্নাতের জন্য ৭০ বছরের সিজদা তাঁর কাছে অতি সামান্যই মনে হয়েছে। একেই বলে প্রজ্ঞা।

কিন্তু যারা নিজেদের ঈমানদার রূপে দাবী করে ও নিয়মিত নামায-রোযা পালন করে -তাদের মাঝেই বা সে প্রজ্ঞা কোথায়? সেটি থাকলে তো তাদের মাঝে নেক আমলের প্লাবন সৃষ্টি হতো। জিহাদের জোয়ার আসতো এবং দেশ থেকে বিলুপ্ত হতো ইসলামের শত্রুশক্তির শাসন। তখন বিজয় আসতো ইসলামের এবং প্রতিষ্ঠা পেত মহান আল্লাহতায়ালার সার্বভৌমত্ব ও শরিয়ত।

৪. ভিতটিই গড়া হয়নি

নেক আমলে অর্থ, জ্ঞান ও মেহনত লাগে। সবচেয়ে বড় নেক আমল হলো কাউকে জাহান্নামের আগুন থেকে বাঁচানো। সে কাজে জ্ঞান লাগে। এমন কি জ্ঞান অপরিহার্য হলো নিজেকে বাঁচানোর জন্যও। এবং সে অপরিহার্য জ্ঞানটি হলো পবিত্র কুর’আনের জ্ঞান। জ্ঞান তাই নেক আমলের সর্বশ্রেষ্ঠ হাতিয়ার। নিজের পরিশুদ্ধির জন্যও অপরিহার্য হলো এই জ্ঞান। জাহেলের জীবনে পরিশুদ্ধির কথা তাই ভাবাই যায়না। তার পক্ষে জান্নাতে পথ চেনা এবং সে পথে চলা অসম্ভব। জ্ঞানার্জন এজন্যই শ্রেষ্ঠ ইবাদত।  

দালান গড়তে যেমন ভিত থেকে শুরু করতে হয়, তেমন মানুষ গড়তে শিক্ষা থেকে শুরু করতে হয়। এজন্যই মহান আল্লাহতায়ালা নামায-রোযার আগে জ্ঞানার্জনকে প্রথম ফরজ করেছিলেন। কিন্তু মুসলিম দেশগুলিতে শতকরা কত ভাগ মানুষের আছে পবিত্র কুর’আনের জ্ঞান? এমন কি যারা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রিধারী তাদেরই বা ক’জন কুর’আন বুঝতে পারে? ২০ বছরের শিক্ষা বছরে ছাত্র-ছাত্রীদের কি একটি আয়াতও শেখানো ও বুঝানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে? এর অর্থ দাঁড়ায় মানব গড়া ও সভ্যতা গড়ার কাজে ভিত গড়ার কাজটিই করা হয়নি। মুসলিমদের সকল ব্যর্থতার মূল কারণ তো এখানেই। ১৮/০৭/২০২১




The Indian Muslims: the victims of Hidutva war savegery

Dr Firoz Mahboob Kamal

 The Hindutva war

The worst devastations in human history are not caused by earthquakes, cyclones, or tsunamis. These owe to wars -the crimes exclusively committed by humans. Only two World Wars killed 75 million people and caused unprecedented devastation of cities, industries, and human habitations. After the World Wars, millions are killed in Vietnam, Afghanistan, Iraq, and Syria. And the killing continues. The destructiveness of any war entirely depends on the toxicity of the ideologies of the warmongers. A virulent killer bug always causes killer disease. Likewise, a killer ideology produces criminal thugs. They cause deaths, rapes, and destruction. All the worst war crimes are indeed the works of the people instilled with toxic ideologies. In fact, ideologies like fascism, racism, nationalism, supremacism, imperialism, communism, and religious fanaticism never leave any segment of history without causing a bloodbath. Ethnic cleansing, genocidal massacres, wars of occupation, regional wars, domestic wars, and the World Wars indeed owe to these ideologies. Therefore, wherever these ideologies show their tide, one can be fully sure that some worst genocide is looming. In India, such a war has already been started since its inception; and it is against the Muslims with the embedded Hindutva fascism in its making.

War has its distinctive atrocities. It brings gang rapes, genocidal killings, arsons, occupations, deprivation of human rights, and mass-scale torture in the lives of the stipulated enemies. The Indian Muslims pass their days and nights amidst such war crimes. The ongoing war against the Muslims doesn’t run within some territorial frontiers, rather within the known Muslim enclaves. Fascism has shown its catastrophic fallout in Europe. The Muslims in India are now facing the same fate. The Hindutva fascists formed the world’s largest Non-Government Organisation (NGO) called Rashtriya Shevok Sangha (RSS) not to share goodwill with the minority compatriots, but to buildup ideological militancy among its members. And the targets of assault are the Muslims. They raise the slogan that the Indian Muslims have only two destinations: either to Pakistan or to the graveyard. It tells a lot about the virulence of the Hindutva ideology. It was created with the sole objective to make India a Hindu state. (Andersen, Walter; Damla, Shridhar, 1987). When M.S Golwalker became the RSS President in 1940, he set it a goal not to fight against the British. (M.S Golwalker, 1974). During the British raj, the aim was to gain strength and to make RSS war-ready fight the Muslims after the departure of the British. And now they are engaged in that.

Some people postulate that Hindutva ideology was a reaction to the creation of Pakistan. It is not true. There was a Hindutva hype even long before the creation of Pakistan. From day one of its inception in 1925, the RSS was focused on mobilizing and strengthening the Hindutva recruits with a singular objective to cleanse Muslims. In 1927, within two years of its creation, the RSS launched its first Muslim cleansing operation in its birthplace in Nagpur in Maharashtra. Its militants launched an organized attack against the local Muslims and the campaign went on for 3 days and forced the Muslims to leave the city. Truly, the creation of Pakistan in 1947 infuriated the RSS cadres further -as if Pakistan has cut into pieces their mother India. After end of the British colonial rule, they intensified their war against the captive Muslims. They consider every Indian Muslim a traitor cum termite and a Pakistani inside. (Ashish Nandi, 2002). For its terrorist activities, the RSS was banned 4 times: in 1947, 1948, 1975-77, and 1992.  During the British raj, it was banned for its communal terrorism by the provincial government of Punjab in 1947. In 1948, it was banned for killing Gandhi. In 1992, it had banned for destroying the historic Babri Mosque. Since Narendra Modi -a lifelong member of RSS, became the Prime Minister, everything changed. The RSS is no more alone in its mission. Along with this non-state fascist outfit, the whole state apparatus, the media, the police, and the army are now working hand in hand to attain the Hindutva objective.

 

The cross-party epidemic

War is fought not only on the battlefields but also on ideological, cultural, and economic premises. Hindutva literature tells about such an inclusive war against the Muslims. All RSS compounds all over India indeed work as mini cantonments to train fighters for such a war. In fact, such a war has already been imposed on all the sectors of Muslim life in India. They want not only the full surrender of the Muslims but also the full decimation, demoralization, and de-Islamisation of the Muslims. For that, they have even deployed violent criminals as fighters to lynch, rape, torture, and kill Muslims even on local streets, public premises, and domestic grounds. Thus, the Hindutva war has entered into every arena of Muslim presence and impacted every aspect of Muslim lives.

Malaria in India doesn’t differ from malaria in Europe. The same is true for an ideological disease. Therefore, whatever the German fascists did against the Jews in Europe, the Hindutva fascists are doing the same against the Indian Muslims. Like a virus, a toxic ideology too never stays confined within the premise of a single political, religious or terrorist outfit. It shows a cross-party, cross-country, and cross-border epidemic. India is a classic example. Therefore, its Hindutva epidemic has overwhelmed not only its culture, politics, media, and education but also the whole spectrum of life. Hence, the anti-Muslim hatred in Indian politics is not the monopoly of the RSS-BJP axis, the parties like the Indian National Congress and many others have also been infected with the same toxicity. Following examples may help understand the gravity of the issue.

The spell of the Hindutva venom on Congress politics was fully exposed during the election campaign of 1989. To appease the Hindu voters, Rajiv Gandhi –the Congress Party’s sitting Prime Minister attempted to snatch the Hindutva mantra from the RSS-BJP family by outplaying the issue. For that, he borrowed the Hindutva strategy of L.K. Advani –the BJP leader. He started his campaign from the district of Faizabad –known for its historic Babri Mosque. Dispelling the previous secular stand of the Congress, Rajiv Gandhi took the banner of the Hindutva agenda in his own hand. He promised to inaugurate Rama Rajya –the rule and the kingdom of Rama, in India. (Pradeep Nayak, 1993). It was a clear departure from the declared political ideology of Congress. He even opened the door of the Babri Mosque for the Hindu worshippers –which was strategically avoided by every Congress and non-Congress government in the past. But Rajiv Gandhi displayed his sheer lack of political wisdom and foresightedness. He gave preference to getting more Hindu votes over esteemed values, justice, and respect for the minority rights. Such siding with the Hindu majority and robust Hindutva radicalization of the Congress Party by Prime Minister Rajiv Gandhi prompted the Muslims to quickly leave the Congress. In the national election, his trick to amass Hindu votes didn’t work. He failed to defeat the old vanguards of the Hindutva like BJP. As a result of losing the Muslim votes, the Congress ceased to exist anymore as an electable contender of power in Indian national politics. It could only show up as an insignificant regional party in some smaller states.  

However, Rajiv Gandhi is not the only Congress leader to embrace the Hindutva ideology. It indeed runs through the veins of many of the prominent Hindu leaders. Even, Mr. Nehru -the first Prime Minister of independent India didn’t prove different from any other Hindutva communal leader. Only a thief can embrace a thief. Likewise, only a communal leader can embrace another communal leader. So, Nehru showed his Hindutva color by embracing Mr. Samya Prasad Mukherjee as a member of his first post-independence cabinet. Mr. Mukherjee was known as one of the most original gurus of Hindutva’s radicalization of Indian politics. He was the former President of Hindu Mahashava and the founder of Jana Sangha –the mother organization of today’s BJP. Embracing him in the cabinet tells a lot. It in fact means embracing his ideology.

Mr. Narasima Rao -another Congress Prime Minister of India, also displayed a very high level of anti-Muslim venom in his psyche. He joined politics as an armed terrorist against the Muslim rule in Hyderabad. (K.S. Komireddi, 2019). While he was the Prime Minister of India, he allowed the destruction of Babri Mosque by his premeditated malign inaction. As a Prime Minister, he had the full power to stop the day-long crime that was being committed in broad daylight. But he preferred to stay inactive. For a man in power, such deliberate inaction only proves complicity in the crime. Another anti-Muslim Hindutva radicals in Congress and in the highest echelon of India’s power structure was Mr. Pronab Mukherjee. He was the former President of India. He visited Nagpur to pay his deep homage to the RSS founder Mr. Hedgewar in 2018. The issue didn’t stop at his homage; Mr. Mukherjee went further. He exulted the RSS founder as a “great son of Mother India” in the visitor’s book. Only a man with the full endorsement of Mr. Hedgewar’s Hindutva ideology could write such a high eulogy. On behalf of the RSS, it was acknowledged that after the visit of Mr. Pronab Mukherjee, the membership of RSS went high.

Mr. Hedgewar’s ideology and his political objective were never hidden. Mr. Pronab Mukherjee must be knowing that. Mr. Hedgewar proclaimed that India was land only of the Hindus and consistently loathed the Muslims. He could never swallow the Muslims’ rule and their existence in India. He considered Muslims’ rule in India as a disgrace for the Hindus. His obsession to take revenge on the Muslims prompted him to form the RSS. His successor, Golwalkar, was an admirer of Hitler and his policies towards the Jews. He even wrote that Nazi Germany was a “good lesson for us in Hindusthan to learn and profit by.” In such writings of Mr. Golwalkar, the implied message is very clear. The Germans had the Jews and the Indians have the Muslims. Hitler had nothing to teach Indians about Hindutva. But he had a lot to teach the Hindus how he could spread the supremacist politics of hatred against the minorities like Jews. He could also teach how he mobilised and motivated the Germans to take millions of Jews to the genocidal gas chambers. Mr. Golwalkar was highly impressed by Hitler’s quick success in exterminating the Jews; hence asked his Hindu compatriots to apply the same politics of hatred and the genocidal methodology against the Indian Muslims. Can a man with an iota of morality endorse such a toxic ideology? But Mr. Pronab Mukharjee traveled to Nagpur to pay homage to an icon of such ideology. A Muslim can easily understand how dreadful to live amidst hordes of such wrathful indoctrinated people. In a conventional war, fear of death runs only through those who are on the battlefield. But for Muslims, the whole of India had turned into a battlefield. Hence all-time fear of death runs through every Muslim man, woman, and child.                                                                                                   

In 1954, a Congress MP named Seth Govind Das moved a resolution in the Indian parliament for imposing a total ban on cow slaughter. Mr. Vasan Sathe -another leading Hindutva fan in Congress, threatened to resign from the party if the party opposes the installation of a portrait of Mr. Savarkar –the original guru of Hindutva politics in India, in the parliament. (Naqvi, 2019). Moreover, the first post-independence genocidal massacre of the Muslims that took place in Hyderabad in 1948, wasn’t the work of RSS-BJP thugs. It happened under the watch of Congress Prime Minister Jawaharlal Nehru. More than 100 thousand Muslims were killed in that pogrom and thousands of Muslim women were raped. Even in Jammu –a southern region in united Kashmir, a massive genocide took place while the Congress and its leader Nehru were at the helm of affairs. Prior to the Indian occupation in 1947, Jammu had a 60 percent Muslim population. But by a planned pogrom in 1948, it was brought down to 30 percent. The genocide was carried out under the direct command of Dogra king Maharaja Hari Singh of Kashmir -as a part of the desperate move in his last days of the rule to make Kashmir a Hindu majority state. Prime Minister Nehru not only kept silent on such a heinous massacre rather gave a safe sanctuary to deposed Hari Singh in Mumbai.  

 

A mass murderer as a ruler       

The political appointments made by a ruling party always reflect its embedded ideology. Modi played a key role in mobilizing the cadres to destroy the Babri mosque. In early October 2001, the Indian Prime Minister Atal Bihari Vajpayee summoned Narendra Modi to his residence and offered him the chief minister’s job of Gujrat. (K.S. Komireddi, 2019). A party like BJP or RSS is always run by a co-operative of leaders with a strong ideological and cultural match. This is why a Muslim, a secularist, or communist is fully incompatible in BJP or RSS outfits. Mr. Vajpayee is usually projected as moderate in the RSS-BJP camp. But how a moderate man can match with an extremist killer? How can he appoint such a killer as a chief minister? Later on, Modi as a chief minister not only showed his own color but also revealed Mr. Vajpayee’s color as well.  A leader is rightly known by his close friends and political decision. Modi’s intention, ideology, and motive were not unknown to Mr. Vajpayee. Therefore, his appointment as the chief minister of Gujrat tells a lot about Mr. Vajpayee’s own ideology and motive.  It indeed exposed Mr. Vajpayee’s own Hindutva indoctrination and venom against Muslims.

Within 4 months of the appointment as the chief minister of Gujrat, Modi proved his lethal venom.  In 2002, a train carrying Hindu extremists returning from the site of demolished Babri mosque got fire. Fifty-eight people burned to death. Nobody knew the cause of the incident. Mr. Norendra Modi didn’t wait for the inquiry, rather grab it as a great opportunity to do what he wanted to do. He instantly called it the work of the Islamic extremists. Modi’s announcement was enough to incite a genocidal massacre against the Muslims in Gujrat. In one Muslim neighborhood, a mob of about five thousand Hindus made their way through a slum and hacked ninety-seven Muslims to death and a mosque was blown up with liquefied petroleum. Across the road from the scene of carnage, stood a reserve police quarters. But no one from there lifted a finger. (Human Rights Watch, 2002). Thus, as a chief minister, Modi showed his own complicity in the crime. He need not kill or rape anybody himself; but his robust inaction worked as a huge encouragement for the killers, the rapists, and the arsonists to commit such crimes in thousands.

In an anti-Muslim pogrom, a Muslim of any rank doesn’t make any difference to be the worst victim. Former member of the Indian parliament Mr. Ehsan Jafri was a very prominent Muslim leader of Gujarat. He had close acquaintance with Sonia Gandhi –the leader of Congress and personally known to Mr. Vajpayee -the sitting Prime Minister. Despite all such acquaintance, he was brutally tortured and slaughtered. Mr. Jafri was sheltering about 250 helpless Muslims in his residence. He spent hours making desperate calls to Modi’s office but received no help. Modi turned deaf. At the end, he urged the attackers, “Whatever you want to do with me, do it; but please don’t kill those who have taken shelter in my house.” But his appeal fell on deaf ears. Mr. Jafri was dragged out of his house by the Hindu mob, tortured with all possible cruelty, and sliced open with swords. In the end, he was burnt alive. Sixty-nine people seeking refuge inside Jafri’s house were killed in broad daylight over seven hours. In a civilized country, the police usually reach the crime scene within five to ten minutes. But during the long period of seven hours, the state police didn’t bother to show up on the scene to stop this preventable massacre. (Vinod Jose, 2012).

Under Modi’s supervision, more than three thousand Muslims (in some estimate it is more than five thousand) were butchered. Thousands of women were raped and more than a hundred thousand Muslims were made homeless. Only deliberate and premeditated inaction can justify such a crime. After such criminal inaction, how can Modi deny his complicity in the genocidal massacre? But still, he didn’t lose his job. Not a single police officer was sacked or punished for such criminal negligence. It is noteworthy that Prime Minister Vajpayee and the Home Minister Mr. Advani –godfathers of Mr. Modi, didn’t express any displeasure in public on such carnage. Instead, whatever carnage they could procure from this protégée, made them happy to hold the ladder at his footsteps to help him climb up to the Prime Ministerial post. It clearly shows how complicity in a genocidal massacre against Muslims gets hugely awarded in India.

 

Modi: a psychopath

Many men of morality usually resign from the ministerial posts for failing to prevent even a railway accident. But Mr. Modi never showed iota of repentance or remorse on the heinous massacre of thousands of defenseless people in Gujrat, let alone resigning from the post. Rather, while responding to a reporter on his failure, he only lamented on the failure to control the media. As if, the genocidal pogrom against the Muslims itself wasn’t any crime, rather a big success! He blamed the unfettered media for giving publicity to that crime. (K.S. Komireddi, 2019). He would have been very happy if this carnage had gone unnoticed. Ashish Nandi –a distinguished social theorist and a clinical psychologist had an opportunity to take an interview with Mr. Modi. Mr. Nandi gives a diagnosis on Modi’s psychiatric ill health based on some explicit and pathognomonic symptoms. Mr. Nandi wrote, “I still remember the cool, measured tone in which he (Mr. Modi) elaborated a theory of cosmic conspiracy against India that painted every Muslim as a suspected traitor and potential terrorist”. From the interview, Nandi emerged ‘shaken’. As if, “he has met a textbook case of a fascist and prospective killer and perhaps even a future mass murderer.”–(Ashish Nandi, 2002).

Modi’s role, through commission and deliberate omission, in an anti-Muslim pogrom in Gujrat in 2002, indeed gives enough evidence to prove the accuracy of Nandi’s diagnosis. Narendra Modi -as the chief minister of Gujrat, has the necessary power, police forces, and other security apparatus under his command to quickly control the carnage. When the people are being killed, the women are being raped and the houses are being blazed, the government must show its quick and decisive action. This is indeed the norm of civilized governance. In such a critical situation, the government’s inaction for few moments means more deaths, more rapes, and more arson. A single command of the chief minister was enough to bring all the security forces to the crime scenes and stop the genocide. But Mr. Modi preferred to stay silent. His silence worked as an implied message for the killers, the rapists, and the arsonists. They took it as an unlimited license to continue their crimes for weeks. Only a complicit criminal chief minister of a state can show such a role at a time when the anti-Muslim pogrom was going on with awful ferocity. Because of his role, thousands of Muslims were killed, thousands of Muslim women were raped and more than a hundred thousand people were made homeless destitute. All these crimes were done with full jubilation on the street by the Hindutva forces. It is difficult to disbelieve that the sadistic Modi will not be celebrating his own contribution in the carnage in private with close comrades.  

 

The genocidal war

Now the same Mr. Modi is the Prime Minister of India. When such a psychopathic Muslim-hater becomes the Prime Minister of a country with 200 million Muslims, the country is bound to enter into a bloodbath. A genocidal war then enters into its cities, villages, streets, mosques, markets, and households to kill the so-called enemies. Modi’s home minister Mr. Amit Shah called the Muslims termites. How can Mr. Modi, Mr. Shah, and the alike sleep in the night with 200 million termites in their midst? Such sleeplessness will surely make them more delusional and mad. So, Mr. Ashish Nandi’s diagnosis stands accurate not only for Mr. Modi but also for thousands of his Hindutva comrades. Because of such madness, they enjoy cow urine as a Holy drink but can’t drink water from the fellow humans of the so-called lower caste.

India stands as a textbook case of a war-infested country. India doesn’t have a war on its border against any foreign power. But it has deployed 700 hundred thousand soldiers to fight a war against an unarmed civilian population within its own border. It is unprecedented in human history. India has made the small valley of Kashmir the most militarized area in the world. Afghanistan is at least ten times bigger than Kashmir. But the USA never deployed more than 150 thousand soldiers in Afghanistan. Whereas, the USA has to fight a terrible war against the war-hardened and death-defying mujahids. Even the Soviet troops in Afghanistan were never that high either. The same is true for the USA army deployment in Iraq. Kashmir has a total population of about 9 million. In 1971, East Pakistan had a 75 million population. In 1971, the Pakistan Army had to fight a war in its eastern province against half a million strong Indian Army, Navy and Air Force, and the India-trained Bengali insurgents. But in East Pakistan, the Pakistan Army didn’t have even one-fifteenth portion of the Indian soldiers that are now deployed in Kashmir! It beggars belief! About the army deployment in East Pakistan, Lt. General A.A.K. Niazi –the Commander of Pakistan Army’s Eastern Command in 1971 wrote: “The total fighting strength available to me was forty-five thousand -34,000 from the army, plus 11,000 from CAF (Civil Armed Forces) and West Pakistan civilian police and armed non-combatants.” (A.A.K Niazi, 1998). 

The fascists are always obsessed with the elimination of those who are dissimilar to their faith, race, color, and ideology. So, their war strategy is totally different from other countries. They need all-time war in all cities, all villages, all bazaars, and all residential enclaves, and even in all forests. Because they see enemies (termites) everywhere. Therefore, to sustain the war, they need more soldiers in Kashmir. They also need curfew for an endless period. It is also true that under the occupation of the Hindutva fascists, the Muslims are not the only victims. A relentless war also continues against the Maoists, the Adivasi, the Naga, the Mizo, the Christians, the Sikhs, and many others. And, every war has its huge collateral costs, deaths, and damages. Therefore, with such warmongering madness, these Hindutva supremacists are killing their own people. They are destroying their own environment and economy. If 700 thousand soldiers stay in Kashmir for another ten years and another 400 thousand in north-east India and in other parts, the Indian economy will collapse automatically. Then, Pakistan or any proscribed enemy will seldom need to engage in any combat with India.

So India stands as the worst enemy of its own people. Along with the unending internal war, worshipping and protecting cows are the two other most important political agendas of the Hindutva leaders. Billions of dollars are being spent to build the world’s largest sculpture to glorify their Hindutva icons –as one built-in Gujrat for Sardar Ballav Bhai Patel. As a result, they do not have enough money to look after their own poverty-stricken people. India possesses not only the largest number of poor people on earth but also gets the largest number of suicidal deaths. In 2021, thousands of people died of Covid-19 because of no bed and oxygen in hospitals. Decomposed dead bodies are found in hundreds floating in rivers and consumed by dogs and foxes. Only an evil ideology like fascism with extreme depletion of humanity, morality, and human values can precipitate such awful disgrace for humans.

 

The culture of war-crimes

The Hindutva ideology has given birth to a strong culture of war crimes. Hence, India doesn’t need a full-fledged war on its border to have the wartime crimes of genocide, rape, and arson. The Indian Muslim men, women, and children have already become the victim of such crimes even without a war. Every belief or ideology has its own distinctive moral, cultural, and political expression. Hence the people of the same ideology show similar morality, culture, and politics almost everywhere. Therefore, the former Prime Minister Atal Bihari Vajpayee –the so-called moderate face of the RSS-BJP family, didn’t show any discernable difference from Mr. Modi. Like Modi, he too showed moral inability to condemn the bloodbath in Gujrat. While Gujrat was experiencing its most awful carnage in history, Mr. Vajpayee was the Prime Minister of a coalition of about two dozen political parties. He was under tremendous pressure by those parties to sack Modi from the chief minister post. But he didn’t listen to them. (K.S. Komireddi, 2019). Instead of sacking or rebuking Modi, he lashed out at the Muslim victims. While addressing a meeting in Goa, he told that the Muslims “are not interested in living in peace”. (Vinod Jose, 2012). What did he mean by “living in peace”? Probably, Mr. Vajpayee had a different connotation of “living in peace” for the Muslims. Is it living in graveyards with absolute peace? Or, did he want a very peaceful submission of the Muslims to rape, arson and massacre?

In a corruptive cultural cum educational milieu, even a man with the highest university degree turns out to be the worst killer, rapist, or arsonist. In such a situation, ideological sermons, political lectures, classroom teachings, and media reports work as powerful tools to kill people’s morality, humanity, and ethical values. Such corruptive and corrosive endeavors –both by the Hindutva government and the NGOs have badly impacted India. As a result, the extent of moral ill-health or death is huge. Because of that, even acts of raping, lynching, killing and even throwing children into fire have become an acceptable ethical, political or cultural norm in society. Therefore, those who are complicit in such crimes get elected by a huge margin to the parliament. For the same reason, former Prime Minister Atal Bihari Vajpayee and many top-ranking Indian political leaders and intellectuals failed to condemn rape, arson, and genocide committed against the Muslims in Gujrat in 2002. Because of the same moral death, most of the political parties in India could endorse not only the annexation of Kashmir but also support the Army’s barbaric atrocities there.

War breeds war crimes. And fascism promotes a permissive culture for war crimes. Because of that, the German fascists could procure the necessary manpower to run their politics, administration, genocidal war, gas chambers, and anti-Jews pogrom. In India, the Hindutva fascists have also been very successful to create such a conducive culture to run their Hindutva war and the anti-Muslim genocide. This is why, they could easily find a complicit media, Army, intellectuals to support endless curfew and war crimes in Kashmir. Under the fascists’ rule, the whole of Germany turned out to be a warzone for a Jew. The same has happened for a Muslim in India. The Hindutva war has engulfed Muslim lives everywhere.

Visibly, the psyche of the ruling Hindutva elite is now inundated with an intense form of immorality, inhumanity, and savagery. The Muslims now face a culture of deaths, rapes, tortures, destructions, and other horrors of collateral war crimes. In such an awful situation, peaceful survival for the Indian Muslims stands impossible. Establishing the rule of law and punishing the worst criminals like killers, rapists and arsonists no more exist as the priority of the government. Neither the police nor the judiciary shows any interest in such things. As if, the Muslims have are no entitlement for these! Even the Supreme Court awarded the people who dismantled the historic Babri Mosque with the land of the mosque. Thus justice runs in India. This is why the killers could kill more than three to five thousand Muslims and rape thousands in broad daylight in Gujrat in 2002 didn’t face any police arrest or judicial prosecution. The same happened in Nellie in Assam, in 1983. There, the killers could kill more than 5 thousand Muslims in 14 villages, but not a single killer was prosecuted and punished. Prime Minister Rajiv Gandhi made a pact with the political patrons of the killers and pardoned all the perpetrators. The police, the law, and the judiciary were kept defunct by the government only to appease the killers. Thus, the Hindu supremacist thugs are given the full license to do all heinous crimes against Muslims. As if, the Muslims are no more than lame ducks. In this regard, Congress seldom makes any discernible difference from the BJP. Hitler gave similar impunity to the German fascists to kill Jews. So it appears, the Hindu supremacists have taken lessons from Hitler –as was advised by their guru Mr. Golwalkar. 

 

Kashmir is now Gujrat

The anti-Muslim war has attained a new intensity in Kashmir. What happened in Gujrat under chief minister Narendra Modi’s direct watch in 2002, is now happening under Prime Minister Modi’s watch in Kashmir. But there is a difference. In Gujrat, the carnage was carried out by the Hindutva thugs, the police, and the provincial administration. In Kashmir, it is being carried out by the more powerful Indian Army and the central government. In the war zone, the common people are not allowed to come to the streets. The streets are usually taken over by the Army. Seven hundred thousand soldiers of the Indian Army are doing the same in Kashmir by enforcing more than 60 days’ curfew in Kashmir. Such an act of barbarity has never happened against any civilian people in the whole human history. As a result, the parents can’t go to the shops for buying milk. The kidney dialysis patients can’t go to the hospital for dialysis. Diabetic patients can’t go to the pharmacy for insulin. The injured patients can’t be taken to hospital emergencies. The people are strictly prohibited to do any work, run any business, earn any money or buy any food. Even in wartime, people are not deprived of such indispensable liberties. Even in prison, people are not subjugated with such barbarity.

Mr. Modi and his Hindutva cronies in media, administration, and politics call such subjugation of the Kashmiri people by force as the progression of peace. They call it a route to economic progress. And they deliberately hide the fact that along with 700,000 soldiers, the imposed curfew has become a powerful tool to torment the Kashmiri civilians. In reality, truth is more awful. What the Hindutva killers and rapists commit during anti-Muslim riots in other parts of India, has become every single day’s riot in Kashmir. The whole of Kashmir has been turned to genocidal Gujrat. The killing, rape, and arson in Gujrat have taken a pause, but such pause doesn’t exist in Kashmir. The barbarity is going relentlessly. Therefore, the Muslim men and women that are killed or raped in Gujrat, Kashmir have at least fifty times more than that. 

 

The war of terror

War starts and survives on vitriolic hatred against the enemies. For the Hindutva radicals of India, the perceived enemies are the Muslims. India has three wars against Pakistan. Every war against Pakistan was in fact anti-Muslim war. The war against Pakistan has now a pause but it continues against the Muslims inside India. War brings not only deaths, destructions, and pain, but also weaponized propaganda against the perceived enemies. India is inundated with such propaganda and war crimes. So, a war of terror has come to the Muslims at their doorsteps, streets, and businesses. On 28 September 2015, Mohammad Akhlaq, a fifty-year-old farm worker, was dragged out of his house in the town of Dadri, an hour drive from Delhi, by a violent crowd of young Hindu men incensed by the rumor that he had slaughtered a calf. They killed Mr. Akhlaq by striking him repeatedly with bricks. They beat his son to within an inch of his life, assaulted his elderly mother, and attempted to molest his younger daughter. (Indian Express, 26 December 2015).

Like the party thugs, the Hindutva leaders proved no less heartless. They displayed their moral inability to condemn such a heinous crime. Instead, the top-tier leader of the BJP issued a posthumous condemnation of Mr. Akhlaq for wounding the feelings of Hindus by eating beef. He also threatened that the Hindus should not be expected to remain silent when a cow is killed. So, the implied message for a Muslim is very clear: Hindus have every right to break their silence by killing Muslims whenever they believe that a cow has been killed. They need not wait for a probe to establish the allegation –as happened with Mr. Akhlaq. One BJP MP Mr. Shakhi Maharaj announced that he is ready to kill and get killed for mother (cow).” (News18, 6 October 2015). A similar statement came from the home minister of Gujrat; he equaled the killing of cow or cow progeny with the killing of a human. (Human Rights Watch, 2019)

But the Hindutva leaders conveniently forget the other side of the reality. India is the number one exporter of beef in the world. As a result, millions of Indian cows –worshipped as goddesses, turn into kebabs worldwide. Since the agenda is to bring foreign currency, mass slaughtering of their mother goddess becomes lawful and acceptable business activity. Using hides of these mothers to make shoes also becomes a part of their economics. Such acts don’t touch the religious or emotional fibers of the people like Mr. Shakhi Maharaj. Nor did Mr. Maharaj get killed for saving the mother cow from becoming kebabs. But while politically needed to target the Muslims for torturing, raping and killing, the narratives on cows take a 180-degree shift. Then, protecting a cow becomes a religious duty of a Hindu, and killing a Muslim for eating beef becomes a Holy act. In such a politicized context, any police arrest or probe against the perpetrators of crimes turn hugely unwelcome. This is why the BJP leaders could even intimidate the police to leave the perpetrators of murders alone. They could also tell that the Hindus are not in a mood to tolerate any harassment by the investigating police authorities. Then, the police inquiry and judicial probe –parts of the civilized norms are labeled as harassment! One of the legislators even blamed the family for the death of Mr. Akhlaq. The crime of the family was none else but eating beef. (Indian Express, 2 October 2015).

The weaponized propaganda has other horrendous dimensions. It is aimed at putting a tag of Islamic terrorism on the Muslims and justifies brutal police torture and long detention against them. Here is an example. In the summer of 2007, in Mecca Masjid in Hyderabad, an improvised explosive device went off in the ablution area and killed 11 people. About ten thousand people were praying in the mosque at the time of the incident. The authority instantly blamed Islamic extremists coming from Bangladesh and Pakistan. They were also linked with a Pakistani outfit. Immediately after the incident, 200 Muslims were arrested. After one year of nerve-wracking detention, 21 people were charged for prosecution. But all these initiatives were proved fake. The truth came to the surface only when a repentant Hindu priest -arrested by India’s National Investigation Agency, confessed that the explosion in Mecca Masjid was one of the many similar staged explosions by a militant Hindu group. He also told that the group is intimately connected with RSS -the parent body of the ruling BJP. The priest also acknowledged the involvement of an Indian Army officer. (Swami’s confession, Frontline, Vol 28, 3 Jan 29 Feb 2011). But in most cases, none of the Hindu priests come forward to tell the truth, hence the anti-Muslim barbarity continues without any pause. The Hindutva war thus continues. 1st edition 06/10/2019; 2nd edition 05/07/2021.

Reference

  1. J.Johnson (2010). A Dictionary of Hinduism. Oxford University Press. p. 142. ISBN978-0-19-861026-7.
  2. Jaffrelot, Christophe Hindu Nationalism: A Reader. Princeton University Press. pp. 14–15, 86–93.
  3. Jaffrelot, Christophe (1996). The Hindu Nationalist Movement and Indian Politics, Hurst & Co.
  4. Savarkar, Vinayak (1923). Hindutva: Who is a Hindu?
  5. Andersen, Walter; Damla, Shridhar, 1987. The Brotherhood in Saffron: Rashtriya Sawayamsevak Sangh and Hindu Revivalism, Delhi, Vistaar Publications, 1987.
  6. S Golwalker, 1974. Shri Guruji Samgra Darshan, Volume 4, Bharatiya Vichar Sadhna.
  7. Basu, Tapan & Sarkar, Tanika; 1993. Khaki Shorts and Saffron Flags: A Critique of the Hindu Right, Orient Longman.
  8. Chitkara, M.G; 2004. Rashtriya Sawayamsevak Sangh; National Upsurge, APH Publishing.
  9. Human Rights Watch, 2002. “We Have No Orders To Save You: State Participation and Complicity in Communal Violence in Gujrat”, Volume 14, No. 3C, 2002. pp. 15-17.
  10. Vinod Jose, 2012. The Emperor Uncrowned, Carawan, 1 March 2012.
  11. Ashish Nandi, 2002. Obituary of a Culture, Seminar, May, 2002.
  12. McKean, Lise 1996, Divine Enterprise: Gurus and the Hindu Nationalist Movement, University of Chicago Press.
  13. Chetan Bhatt, 2001. Hindu nationalism: origins, ideologies and modern myths. Berg. pp. 77 (context: Sura 4). ISBN978-1-85973-343-1.
  14. S. Komireddi, 2019, Malevolent Republic –A Short History of the New India, C. Hurst & Co. 41 Great Russel Street, London, WC1B 3PL.
  15. Human Rights Watch, 2019. Violent Cow Protection in India, 18 February, 2019, hrw.org/report/2019/02/18/violent-cow-protection-india/vigilante-groups-attack-minorities#
  16. A.K. Niazi, 1998. The betrayal of East Pakistan, Manohar Publishers & Distributors, 26 Ansari Road, Daryaganj, New Delhi 110002
  17. Only 4 percent of the Indian Muslims are graduates and only 5 percent have government employment. (Social, Economic and Educational Status of the Muslim Community of India: 2006uuuuu).
  18. “Social, Economic and Educational Status of the Muslim Community of India”, Prime Minister’s High Level Committee, November 2006:www.mhrd.gov.in/sites/upload_files/mhrd/files/Sachar_comm.pdf.
  19. “Swami’s confession”, Frontline, Vol 28, 3 Jan 29 Feb 2011.
  20. Ross Colvin and Satarupa Bhattachariya, “The remaking of Narendra Modi”, Reuters, 12 July 2013:htps://in.reuters.com/article/ india-modi-gujarat-bjp/special-report-the-remaking-of-narendra-modi-idINDEE96BOOY20130712.
  21. Javed Naqvi, Sept 17, 2019, Daily Dawn, Karachi, Pakistan.
  22. Stanley, Jason(2018). How Fascism Works: The Politics of Us and Them. New York: Random House. pp.14-15. 
  23. Pradeep Nayak, 1993. The Politics of the Ayodhya Dispute, Commonwealth Publishers, New Delhi, p.120.

 




The Rohingya Muslims: the victims of the worst war crimes

Dr. Firoz Mahboob Kamal 

The rampant war crimes

In terms of stipulated war-objective, the success of the Myanmar Army is huge. They could get a quick success only by committing horrendous war crimes. Their war was purely genocidal. Because of electronic social media, crimes were visible all over the world. The enemy of the Myanmar Army wasn’t a foreign power. The military objective of the war wasn’t to liberate any land from any enemy occupation. The declared enemy is an unarmed people of Myanmar called Rohingya Muslims. And the war objective was to cause genocidal cleansing of the Muslim people from their traditional homeland called Arakan –later on, named as Rakhine state.

The Army has left no political, social, educational, economic, and not even a survival space for the Rohingya Muslims in Myanmar. For saving a life, they had no other option but to make a desperate move to migrate to Bangladesh amidst extreme hardships. They even used ramshackle rafts made of plastic cans to cross a big river. Most of the Rohingya villages are burnt down, the homes are destroyed, the farmlands and businesses are occupied. Therefore, even if the Myanmar government is compelled to take them back by international pressure, there remains no infrastructure or emotional element in Arakan to give them shelter or a sense of comfort for returning back to their motherland. They only survive with a huge open wound in their traumatized psyche. The sharp memory of being killed, gang-raped, and brutally tortured by the Army personnel will survive through ages. How the Rohingya women can ever forget the pain of being raped day and night by the Buddhist sex predators at their wish. It is not a political or racial problem, rather an awful moral problem of the Myanmar government and the Army. They have shown no moral ability to acknowledge such ugliest crime as crime, let alone condemn it. No amount of political negotiation can remove this huge ugly scar from the traumatized psyche of the Rohingya Muslims.

The Rohingya people who are now labeled as the enemy of Myanmar are the people who were recognized as the sons of the soil and legal citizens for centuries. Even in the recent past, they took part in politics and became members of the parliament. They participated in the liberation movement against the colonial rule of the British. Such a historic status of the Muslims of Arakan was annulled 35 years ago in1982 by a military dictator. Thus they were made stateless. By any definition, it is itself a horrendous crime against humanity. Although such a politically and racially motivated annulment of citizenship of the Rohingya Muslims created the whole backdrop of the ongoing genocidal war, the UNO and other world powers showed little moral and humanitarian responsibility to put the necessary pressure on the Myanmar government to undo it. As a result, the whole Arakan –once peaceful land of a historic Muslim state, is the site of rampant war crimes against the local Muslims. 

 

The pathology of crime

Genocidal cleansing of a population never happens with the brutality of beastly animals. It is the premeditated war crime of the humans who proved again and again far beastlier than the man-eating animals. This is the work of the people who can build gas chambers, drop nuclear bombs, and can turn cities and villages into rubbles. The catalog of their crimes is huge. Because of such war criminals, more than 75 million people had to die only in two World Wars and more than a hundred thousand people were burnt to death in Hiroshima and Nagasaki. More disgustfully, the perpetrators celebrate those crimes as a great victory of democratic values! This could only happen because of moral death. And the moral death owes to deadly pathology in the conceptual premise of the people sitting in the driving seats of the big powers. Because of that, people could become criminal and genocidal on a large scale. The disease runs unabetted even now. Hence they could cause a horrendous era of deaths and destruction in Afghanistan, Iraq, Syria, Gaza, and now in Yemen. More than 300 thousand Syrians had to die and more than 6 million Syrians had to leave their homes. Millions of Palestinians have to live in camps for more than 70 years.  Because of the same war criminals, cities like Grozny in Chechnya, Mosul, Ramadi, Tikrit, and Fallujah in Iraq, and Raqqa, Homs, Hama, Deira Zur, and many other cities in Syria have been flattened to the ground.

It is a shame on the UNO that the worst war criminals always go unpunished. The UNO itself is hostage to these war criminals. Because of such a failed UNO, the Myanmar Army gets enticed to take the same route of terrible war crimes. The unpunished US war crimes in Afghanistan, Iraq, and Syria, the Russian war crimes in Chechnya and Syria, Narendra Modi’s war on Indian Muslims, and the Anti-Muslim rhetoric of the US President Doland Trump have heavily encouraged the Burmese war criminals to add more atrocities to the world’s criminal history. Therefore, mass killing, gang-raping, torturing, and setting fire to the Muslim properties, and evicting the Rohingya Muslims from their ancestral homes could be deployed as military tactics of war against the unarmed civilians. Adolf Hitler wasn’t the lone criminal to commit all the genocidal crimes. Millions of the Germans and other Europeans also joined as the partner in his crime. Likewise, the Burmese Army is not alone in their war crimes, either. Aung San Suu Kyi and her party “League for Democracy”, the whole civil and political institutions of Myanmar, the Buddhist monks, and the Myanmar media are directly and indirectly are the part of the same war crimes. Even the countries like China, India, and Russia stand firmly behind these killers, rapists, and arsonists. Because of their support, these worst war criminals couldn’t be condemned in the UN Security Council, let alone stopping or punishing them. As a result, the sufferings of the “most persecuted minorities on earth” –as described by the UN, continue unabated. 

Crime always breeds other crimes. Sometimes the new crime becomes more robust and horrendous than the original crime. This is why the crime of the Myanmar government which started with the annulment of the citizenship of the Rohingya Muslims in 1982 didn’t end there. It turned terribly genocidal in later years. Mass killing, gang-raping, arson, torture, and eviction of innocent people from their own homeland became parts of it. As part of the same crime, they have also built a lethal barricades to stop the return of the evicted people to their homes. Land mines are planted along the Bangladesh-Myanmar border to kill the returning refugees.

 

Failures of the international bodies

On 13 November 2017, Sky News showed some glimpses of horrendous genocidal crimes of the Myanmar government –taken under the cover of the deep darkness of the night from inside Rakhine state. Otherwise, the Myanmar government wouldn’t have allowed such reporting of the crime. No man or woman with moral sense can stop his or her tears after seeing the picture of such vitriolic crime against innocent men, women, and children. The failure of the UN Security Council and the world leaders is appalling. They even failed to show the minimal morality to call these terrible mass killings, mass rapes, and mass destruction of an ethnic cum religious group of Muslim population even a genocide, let alone stop it. This way the UN has provided the needed modus operandi of non-action for its member states against these worst war criminals.

On 13 November 2017, the ASEAN conference was held in Manilla. Three of its members are Muslim countries. About 40 percent population of the ASEAN countries are Muslims. Indonesia -the largest Muslim country in the world also happens to be its member. Malaysia and Brunei are the other two members. But the spineless and morally depleted leaders of these Muslim countries have even failed to include the genocidal issue of Rohingya Muslims in its business session, let it condemn or stop it. Rather, to appease the genocidal leaders of Myanmar -a member state of ASEAN, the leaders of these Muslim countries even shy away from pronouncing the word “Rohingya”. Since the Myanmar government calls them “illegal Bengali infiltrators” the Muslim member countries of the ASEAN fell in line to accept it. This is indeed the depth of moral collapse of the leaders of neighboring Muslim states. Even the common citizens of these Muslim countries didn’t display any moral responsibility towards these innocent victims. They are not found on the streets to protest against this genocide.

 

The mammoth lie and the pretext of genocide

The history of Arakan –the original name of today’s Rakhine state and the history of the Rohingya Muslims didn’t start with the military rule in Myanmar. Nor did it begin with the country’s independence in 1948. It has a long history and a huge Islamic legacy. Arakan was always open to the outside world –especially to the Muslim traders and the Islamic missionaries through its long coastal borders, which is much longer than that of Myanmar itself. Before the initiation of ethnic cleansing, the Rohingya Muslims were in majority in Arakan. Prior to the Burmese invasion in the eighteenth century, the forefathers of these Rohingya Muslim people had a Muslim sultanate there. The state even extended to the south-eastern part of Bangladesh. Chittagong –the largest port city of Bangladesh was part of it. In the fifteenth and sixteenth century AD, the Bengali language got a huge boost in the royal palace of Arakan. Most of the noted contemporary Bengali poets were related to its royal court. In the whole history of Arakan, even in the history of Myanmar, there doesn’t exist a single mention that the Rohingya Muslims were the foreign intruders. They are known as the son of the soil. On the contrary, the Burmese Buddhists -known as the Rakhine minority in Arakan, are immigrants from the central Buddhist heartland of Myanmar.

Building border on ethnic or linguistic lines is a very recent phenomenon in human history. Such a barrier didn’t exist in South Asia even 100 years ago. Therefore, a man from Yangon in Myanmar could easily travel to Kolkata in India or Dhaka in Bangladesh without any barrier and could build a house or open a business there. It was also true for a man journeying in the opposite direction. Hence, one can easily find ethnic, linguistic, or religious linkage or continuity spread over all the south Asian countries. And Myanmar is not an exception. Bangladesh itself is a multi-ethnic and multi-religious country with millions of people having ethnic and religious linkage with the people of various states of India, Pakistan, Afghanistan, Iran, Central Asia, Arab, Turkey, and Myanmar. Hence, one can easily discover trans-border ethnic, linguistic, or religious continuity spread over Bangladesh and its neighbors. Such linkage is also true for the people living in Myanmar. It is a process of slow social diffusion that takes place through ages. It is indeed the part of human history that caused such a mix-up of people of different races, languages, and religions through centuries.

Hence, such an ethnic linkage should not be used to commit “push-in”, forced eviction, or genocide against any people. Only the people with extreme racism and pathological hatred against people of other religions or races can deny such sociological reality. Awfully, the ultranationalist civil and military elite of Myanmar have proven to be infected with such toxic moral disease of racism cum radical nationalism. To make the situation much worse, they have powerful patrons like China, Russia, and India to support their crime. As a result, the UN, the International Criminal Court, and other international bodies fail to bring the terrible war criminals to justice. Therefore, the war criminals are let loose to do all the worst crimes on earth. And the Rohingya Muslims in Myanmar continue to suffer. The western leaders thought that keeping a blind eye on the Myanmar government was necessary to help Aung San Suu Kyi’s elected government to get strength. But such opportunity was not allowed to the democratically elected government in Palestine and Egypt. They didn’t need to commit any genocidal crime to get toppled by the west-sponsored military junta. However, Aung Sun Suu Kyi’s government now stands deposed and she herself is now in jail. Despite her advocacy for the military criminals in the Internationa Criminal Court, also became a victim of the Myanmar military. Friendship with wolves only can cause disaster; Aung Sun Suu Kyi proved that.

Aung San Suu Kyi –while in power showed her gross cognitive inability to see even the most robust crimes of the Army. On 2 November 2017, after more than a month of the initiation of the massive crime, she could take some time to visit Arakan. Strangely, visible evidence of war crimes of the Myanmar Army like mass murder, torture and rape, arson and wholesale destruction of villages, and forcible expulsion from their home appeared to her as the bipartisan quarrel between the Rohingya Muslims and the local Rakhine Buddhists. As if, the Rohingya Muslims are the equal partner of the same crime. As if, the Rohingya Muslims’ participation has caused similar mass murder, torture and rape, arson and wholesale destruction of villages and expulsion from their home on the local Buddhists, too.    

 

Islamophobia is the cause

Because of the politically motivated Islamophobia and the extreme form of hatred against the Muslims, the Myanmar government, the Buddhist monks, and the ultra-nationalist Burmese political elites wants to roll back the whole march of history and want to give a fabricated narrative with their sick ultranationalist motive. For that, they are not only inventing new lies but also committing appalling crimes. They have already demonstrated by their action that they want to destroy all the elements of existing Islamic history, legacies, icons, and the Muslim institutions of Arakan. They are committed to giving Arakan a new identity and want to make it a land exclusively for the Buddhist Rakhine tribe. Therefore, the genocidal cleansing of the Rohingya Muslims has been so fundamental to their political objective. To start the process decisively, they needed to put a new name for the old state of Arakan. Hence, it is renamed as Rakhine state after the name of the minority Buddhist Rakhine tribe. In order to attain full Bhuddhistisation of Muslim Arakan, they started genocidal cleansing of the Rohingya Muslims. This is why, along with dismantling the mosques and the Islamic schools, ethnic cleansing of the Rohingya Muslims became the central piece of their military operation.

 

A new Israel

The Myanmar government, the ultranationalist civil and military elites, and the Buddhist monks are not ready to accept the Rohingya Muslims as part of Myanmar. They label them illegal Bengali infiltrators from Bangladesh. As if Arakan –now Rakhine state was a land without any inhabitants in the past. What could be the worst fabrication of history than this? A lie always gives birth to evils. Thus lies can cause catastrophic crimes on earth. Such lies have always been manufactured and used by war criminals to ignite a war against others only to support their criminal motives. That has exactly happened in the case of the current war against the Rohingya Muslims. Here, the fabrication of history has indeed reached a massive proportion. A lot of lies are being used to perpetuate a mammoth crime like the genocidal cleansing of the Rohingya Muslims.  It is a ploy to bury all the traces of the Muslim history of Arakan and to manufacture legality to the newly created Buddhist Rakhine state –as are being done in Palestine by the Jews.

Myanmar has become a new Israel in South East Asia. It is bizarre and extremely inhuman that the whole ethnic group of Rohingya Muslims should lose their citizenship and meet the genocidal cleansing because of their ethnicity, skin color, language, and religious belief. The annulment of citizenship of the Rohingya Muslims was indeed an expression of a robust apartheid agenda of the Myanmar government. It was done only to invent the necessary pretext to portray these artificially made stateless people as the infiltrators from Bangladesh –thereby justifying their forced eviction.

In order to promote blatant lies, the Myanmar government is ignoring some basic historical facts. It is well known that before the annulment of citizenship of the Rohingya Muslims by the military rulers in 1982, the same Rohingya people used to be elected as the member of the parliament. They served in the government offices and even in the Army. The Rohingya children used to get admission in schools, colleges, and universities and enjoy other civic rights. But when the racially motivated Army grabbed the power, everything changed. By mass scale annulment of citizenship of more than a million of its known citizens, the Myanmar government has indeed made a pretext for the annihilation of a people with a dissimilar race, religion, and language from the Buddhist majority. So far, no country in the world has made its own known citizens stateless in such a huge number.

Myanmar is a country impregnated with many old insurgency wars. Many ethnic tribes want independence from Myanmar. It is worth noting that despite separatist war by many ethnic and linguistic entities for many decades, the citizenship of those insurgents has never been annulled. There is no proof that the Rohingya Muslims did any war against the state of Myanmar. But the government is behaving differently with the Rohingya Muslims. Not only they were deprived of citizenship, rather a genocidal war has been imposed on them. The war has caused torture, death, rape, arson, and eviction of more than 900,000 unarmed people.

In Myanmar, the Rohingya Muslims are portrayed as the enemy of the majority Buddhists. They are labeled as the infiltrators from neighboring Bangladesh and projected as the existential threat for the Buddhist people of Myanmar.  Thus, they created the fabricated justification for a war of ethnic cleansing of the Rohingya Muslims from Myanmar. The Army, the mainstream media, the political leaders, and the Buddhist monks worked hand in hand to distort history. All the consequential atrocities that are inflicted on about 2 million Rohingya people took their origin from such falsification of history. In 1982, Myanmar’s military government annulled the existing citizenship of the Rohingya Muslims. With a stroke of a pen, the military junta of Myanmar could create the largest number of stateless people on earth. As if, who should enjoy the entitlement of citizenship of a country is subject to the whim of the ruling elite. More than a thousand years’ history of the Rohingya Muslims proved pointless in deciding their entitlement in their own birthplace. What could be the worst injustice than such ethnically motivated annulment of citizenship of a population?

The story didn’t end there. They launched a hateful propaganda campaign to make people support the Army-run war against the Rohingya Muslims. The racist monks are also taken as partners in such toxic propaganda. Even Aung San Suu Kyi’s party “League for Democracy” also became a part of it. The Army’s genocidal war aimed at ethnic cleansing of the whole population of the Rohingya Muslims from their birthplace. The war could cause the fastest-growing refugees in human history; more than half a million were evicted only in 3 weeks. Thus the Myanmar Army could cause a man-made disaster of catastrophic proportions. It is worth noting that after the dismissal of Aung Sun Suu Kyi’s civilian government, hundreds of thousands of her supporters protested in the streets. But there was no protest on the streets while the worst genocidal crimes were being done against the Rohingya Muslims. This shows how racism, nationalism, and Islamophobia lethally damage the moral fabric of the common men and women. As a result, the people then lose the ethical instinct to condemn even the worst evil on the earth.  

The Army and other Islamophobes called the war against the Rohingya Muslims a legitimate campaign to free Myanmar from illegal infiltrators from Bangladesh. The enforced delegitimization of citizenship of the Rohingya Muslims is being used not only to use it as a ploy to justify the cancellation of all political, economic, educational, job, and health care entitlement of the Rohingya Muslims but also to launch a war on them. Thus, even the survival right of the Rohingya Muslims on the soil of their birth is taken away.     

 

The geopolitics and the ideological congruity

Hypocrisy and trickery have always been parts of the imperialists’ policy against Muslims. Justice, morality, and human rights have no space in their politics. The imperialist-led UNO promised a plebiscite for deciding the fate of Kashmir -whether to go to Pakistan or India or stay independent. But that didn’t happen. The UNO and all the western and the eastern powers promised the right of return to the evicted Palestinians to their ancestral homes. But that didn’t happen either. The Palestinians still live in concentration camps. These are ghettos in the occupied West Bank, Lebanon, Jordan, and Syria. On their cleansed lands, the Israeli government built luxurious apartments for Jewish immigrants from different parts of the world. Thus the foreign Jews are being enticed to settle in Palestine. Those who decide the fate of world politics pay blind eyes to such an awful show of obvious crimes. The same calamitous crime is being perpetrated against the Rohingya Muslims.

Arakan –the Rakhine state has enormous economic and geopolitical strategic importance. The ruling Burmese nationalist majority planned to confiscate 1.2 million hectares of land of Rakhine state. They need this land to build Special Economic Zones (SPZ) for Japanese, Chinese, Indian, and other multinational companies. They need land to build a deep seaport for China and another deep seaport for India. Till January 2017, China’s investment in Myanmar reached $18.53 billion and considers Myanmar an important tool in its One Belt, One Road initiative. China, India, and Russia also find strong ideological congruity to support the Myanmar Army. The Russians have their Muslim Caucasus, China has its Xin Xiang and India has its Kashmir to practice similar crimes against the native Muslims.

The Myanmar government needs a huge area of empty land to build barracks for the Army and the other security forces to ensure security to these economic establishments. Hence they needed to ethnically cleanse the originally settled Rohingya Muslims from the land. To show the justification of the crime, they needed to do another crime. In 1982, they deprived the Rohingya Muslims of their nationality right. Now they are telling the world that the Myanmar Army is evicting the foreigners who have no legality to stay in Myanmar. Whereas they have manufactured such illegality only for the political, racial, and economic interests. Now they have given the evicted people a new tag of identity called refugees.

The same crime happened against the Palestinians. Birth in Palestine, homes in Palestine, and thousands of years’ ancestral history in Palestine didn’t receive any importance to decide the rights of the Palestinians to stay in Palestine. They were made refugees in foreign lands. But those who were born in Europe, America, and other parts of the world and never lived in Palestine are given readymade citizenship rights. Thus an illegal state is built for the alien immigrants on a forcefully occupied Palestine. And such an illegal state was given legality by the UNO. Thieves, robbers, drug traffickers, women traffickers, and other mafias have their own clubs and societies. There they enjoy a cultural milieu to celebrate their most heinous crimes. They congratulate each other for their audacity in crimes. The same is true with war criminals. Awfully the UNO has become such a club for them. Hence the USA’s illegal occupation of Afghanistan and Iraq was never condemned but got duly ratified in that club. This is why the perpetrators of genocidal crimes in Myanmar don’t stand alone either. They have powerful patrons to appreciate their crimes. China, India, Russia, and Japan stand firmly on their side. Hence no one on the earth dare prosecute their crimes.

 

No ray of light in the tunnel

The Bangladesh government works on its own plan. The government is using all of its diplomatic channels to persuade the Myanmar government to take back the Rohingya refugees. But Bangladesh possesses little diplomatic muscle to influence the policy of the arrogant Myanmar Army. The UNO, the USA, the EU, and other world powers also failed to make any influence. A plan doesn’t work if it doesn’t possess enough political will and power of leverage. As a result, about a million Rohingya refugees still suffer in horrific refugee camps in Bangladesh.

In 1992, the Bangladesh government achieved some success with the collaboration of the UNO to persuade the Myanmar government to take back some of the refugees. But that didn’t help them to return back to their own ancestral homes. They are kept in prison-like concentration camps made for the displaced people. Their lands, homesteads, and business establishments still stay occupied by the Army, the Police, and other state institutions.

The restoration of citizenship of the Rohingya Muslims is the key to solve the problem. Only then they will be entitled to enjoy basic human rights and other legal entitlement. Otherwise, the mere return to Myanmar will not solve the problem. They will enter from a refugee camp in Bangladesh to another prison-like refugee camp in Myanmar. It is the grotesque failure of the UNO and other big players that didn’t go further to pressurize the Myanmar government to restore the citizenship right of the Rohingya people. As a result, the statement stays. China still stands firmly behind the Myanmar Army. So the suffering of the Rohingya people continues. They don’t see any ray of light in the long dark tunnel. 1st edition 15/11/2017; 2nd edition 17/07/2021.