Category Archives: ই-বুকস

image_pdfimage_print

অধ্যায় কুড়ি: একাত্তরের মিথ্যাচার

প্লাবন মিথ্যাচারের একাত্তরকে ঘিরে বাঙালী সেক্যুলারিস্টদের মূল অস্ত্রটি হলো মিথ্যাচার। বাঙালী জাতীয়তাবাদীদের দাবী,পাকিস্তান সরকার বাঙালীদের কখনোই বিশ্বাস করতো না।সে দাবী যে কতটা মিথ্যা সেটি প্রমাণ করে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের ক্যান্টনমেন্ট গুলোতে বহু হাজার বাঙালী সৈন্যের অবস্থান।মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকার ইরাকীদের বিশ্বাস করেনি।সেটির প্রমাণ,ইরাক দখলে নেয়ার সাথে সাথে তারা ইরাকী সেনাবাহিনীকে বিলুপ্ত করে দেয়। ইরাকী সৈন্যদের হাত […]

অধ্যায় একুশ: গণহত্যার কিছু নৃশংস চিত্র

ইতিহাসে অপূর্ণাঙ্গতা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর হাতে সংঘটিত হত্যাকান্ড নিয়ে বহু লেখালেখি হয়েছে, তা নিয়ে বহু ছায়াছবিও নির্মিত হয়েছে। কিন্তু বাঙালীর ইতিহাসে শ্রেষ্ঠ বাঙালী রূপে যাদেরকে পেশ করা হয় তাদের নৃশংস চরিত্র কি কখনো আলোচিত হয়েছে? নিষ্ঠুরতা, লুন্ঠন, হত্যাকান্ড  ও স্বৈরাচারে তারা যে কতটা নিচে নেমেছিল-তা নিয়ে কি কখনো গবেষণা হয়েছে? বাংলাদেশে প্রকাশিত কোন গ্রন্থে সে বীভৎসতার […]

অধ্যায় বাইশ: একাত্তরে নারীধর্ষণ

মহামারি নৈতিক পচনের একমাত্র হত্যা,ধর্ষণ বা চুরি-ডাকাতিই অপরাধ নয়, অতি চরিত্রধ্বংসী ও মানবতাধ্বংসী অপরাধ হলো মিথ্যা বলা ও তার প্রচার। দেহের খাদ্য দুষিত হলে তাতে স্বাস্থ্যহানী ঘটে। আর আত্মার খাদ্য তথা জ্ঞানে মিথ্যার দূষণ হলে আসে নৈতিক পচন। মহান নবীজী (সাঃ) মিথ্যা কথনকে একারণেই সকল পাপের মা বলেছেন। কারণ, সর্বপ্রকার পাপের জন্ম তো মিথ্যাচর্চা থেকেই। […]

অধ্যায় তেইশ: ভারতের পরিকল্পিত যুদ্ধ ও এজেন্ডা

 অসত্য দাবী বাংলাদেশের স্বাধীনতায় আওয়ামী লীগ ও মুক্তিবাহিনীর অবদান নিয়ে বহু কিছুই লেখা হয়েছে। সেগুলির বেশীর ভাগই তাদের নিজেদের লেখা। এ ময়দানে নিরপেক্ষ ইতিহাসবিদ নেই। ফলে ইতিহাসের সবগুলি গ্রন্থই তাদের বিজয় গাঁথা। তাদের দাবীর বস্তুনিষ্ঠ সমীক্ষা আজও হয়নি। শেখ মুজিবের ক্ষমতায় থাকা কালে সেটি সম্ভবও ছিল না। সে সময় যা সম্ভব ছিল তা শুধু শেখ […]

অধ্যায় চব্বিশ: রাজাকার ও মু্ক্তিযোদ্ধা

কারা রাজাকার ও কারা মুক্তিযোদ্ধা? মিথ্যাচার,দূর্নীতি ও স্বৈরাচার কখনোই কোন দেশে একাকী আসে না। নৈতিক এ রোগের মহামারিতে মৃত্যু বরণ করে জনগণের বিবেক।মিথ্যা বলা বা মিথ্যা লেখাও তখন অভ্যাসে পরিণত হয়। দেশের ইতিহাসও তখন মিথ্যাচারে পূর্ণ হয়। স্বৈরাচার প্রতিষ্ঠা দেয় ব্যক্তিপুঁজার।ফিরাউনের ন্যায় দুর্বৃত্তগণও তখন পুঁজণীয় হয়। তাছাড়া ইতিহাসের পাতায় স্বৈরচারী দুর্বৃত্তদের বাঁচার খায়েশটিও বিশাল। একারণেই […]

অধ্যায় পঁচিশ: পাকিস্তানের অখণ্ডতার পক্ষ নেয়া ও জালেমের সমর্থন প্রসঙ্গ

গদির চেয়ে দেশ বড় অনেকের যুক্তি, একাত্তরে পাকিস্তানের সমর্থনটি ছিল জালেমের সমর্থন। অতএব হারাম। তাদের কথা, পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান ও সেনাবাহিনী যেহেতু জালেম, দেশটিকে তাই বাঁচিয়ে রাখা যায় না। ফলে তারা সর্বশক্তি বিনিয়োগ করে পাকিস্তানের বিনাশে। এ যুক্তিতে ইসলামের শত্রুশক্তি বা কাফের শক্তির সাথে জোট বাঁধাটাও তাদের কাছে আদৌ দোষের মনে হয়নি। ফলে তারা […]

অধ্যায় ছাব্বিশ: বাঙালী মুসলিম চেতনায় কায়েদে আজম মুহম্মদ আলী জিন্নাহ

 পাকিস্তানের উপনিবেশ তত্ত্ব বাঙালী সেকুলারিস্টদের দাবী,১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ সাল অবধি পূর্ব পাকিস্তানে ছিল ঔপনিবেশিক পাকিস্তানের একটি কলোনি বা উপনিবেশ মাত্র। কিন্তু কিভাবে পাকিস্তানের উপনিবেশ রূপে বাংলাদেশের সে পরাধীনতা শুরু হলো সে বিবরণ তারা দেয় না। কীভাবেই বা পাকিস্তান একটি ঔপনিবেশিক দেশে পরিণত হলো সে বর্ণনাও তারা দেয় না। উপনিবেশ স্থাপনেও তো যুদ্ধ করতে হয়। ১৭৫৭ […]

অধ্যায় সাতাশ: শেখ মুজিবের ষড়যন্ত্রের রাজনীতি

ষড়যন্ত্র শুরু থেকেই ১৯৪৭ সালে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার পর থেকেই পাকিস্তানে প্রচুর সমস্যা ছিল। ভৌগলিকভাবে দুটি প্রদেশের মাঝে হাজার মাইলের বেশী ব্যবধান থাকায় সে সমস্যায় জটিলতাও ছিল।পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের মধ্যে প্রচুর বৈষম্যও ছিল। সে বৈষম্যের শুরু ১৯৪৭ সাল থেকে নয়, দেশটির জন্মের শত বছরপূর্ব থেকেই। দিল্লির মোগল শাসনের পতন হয় ১৮৫৭ সালে, আর বাংলায় মুসলিম […]

অধ্যায় আঠাশ: শেখ মুজিবের অপরাধনামা

অপরাধ মানবহত্যার শেখ মুজিবকে একবার একই টেবিলে সামনা-সামনি বসে কিছুক্ষণ তাকে দেখা ও তার মুখের কিছু কথা শোনার সুযোগ হয়েছিল এ লেখকের। সেটি ছিল ১৯৭০’য়ের জানুয়ারীর প্রথম সপ্তাহ; স্থানটি ছিল পুরোন পল্টনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় অফিসের দো’তালায়। সেখানে সন্ধায় হাজির হয়েছিলাম আমার নিজ এলাকার আওয়ামী লীগের দুই নেতার দৈবাৎ সহচর হয়ে। তাদের একজন ছিলেন আমাদের […]

অধ্যায় উনত্রিশ: ভারতের নাশকতা

 এজেন্ডাঃ অখণ্ড ভারত নির্মাণ পাকিস্তান ভাঙ্গাটি ভারতের কাছে এতোটাই গুরুত্বপূর্ণ ছিল যে,ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধির কাছে একাত্তরে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠা চিহ্নিত হয় ভারতের জন্য স্বাধীনতা লাভের দ্বিতীয় পর্ব রূপে।পাকিস্তান ভাঙ্গার পর মনের সে সে তীব্র আনন্দটিই ইন্দিরা গান্ধি ১৯৭২ সালের ৮ই জানুয়ারি লক্ষৌতে এক বক্তৃতায় প্রকাশ করেন।আনন্দটি ছিল হাজার সালের বদলা নেয়ার।পরের দিন ইন্দিরার সে উল্লাসভরা […]