Globalism and the calamity of Muslims’ localism

Dr. Firoz Mahboob Kamal

Localism: the strategy of the enemy

The US political elites and their allies have two prescriptions for mankind. One for themselves; that is globalism. They have another prescription for the Muslims; that is localism in the form of various races, region, clan, sect and language. In 2006, Ralph Peters –the US veteran and strategist argued in his an article “Blood Borders” published in the Armed Forces Journal that the borders of the Muslim countries do not conform with the sectarian, linguistic and ethnic realities on the ground. So he gave a blueprint of dismemberment of the Muslim countries as per various dissimilarities based on race, language and sect. He suggested that the countries like Pakistan, Iraq, Syria, Turkey, Sudan, Saudi Arabia, Yemen, and Somalia should be divided. He put a map of the new countries in his article. As per his suggestion, Pakistan should be dismembered at least into four; one for each linguistic group. He gives implicit legitimacy to the separatists’ war in Balochistan. He prescribed three states in Iraq: one for the Shia Arabs, one for the Sunni Arabs and the third one for the Kurdish people.

But Mr. Peters conveniently ignored the fact that the Muslim countries are not the only multi-ethnic, multi-sectarian and multi-religious countries. Most countries of the world like the USA, the UK, Russia, China, and India have the same type of diversity. The political maps of these non-Muslim countries, too, don’t reflect the ground realities of the diversity. More than 200 million people in India are Muslim. Kashmir –larger than most of the countries of the world is still in India. Xin Xiang province of China –larger than the largest country of Europe is Muslim populated. A large part of Russian is also Muslim. But Mr. Peters didn’t prescribe the same dismemberment formula for the non-Muslim countries. The reason is simple. Since the USA has declared its war on Islam, its strategy must be a strategy to win the war and it is through weakening the Muslim Ummah. And the disintegration of the Muslim countries is the best way to do that. Now it appears that the USA and its allies are working with the same blueprint.

On the other hand, globalism is gaining huge popularity among the non-Muslims. Despite all the ethnic and linguistic differences, the Hindus of India are united. Russia and China are also united despite the divisive diversities. The USA has been working on globalism with its allies since World War I. After World War II, in order to put a strong defence against Soviet Russia, all the western capitalist countries formed a military alliance called NATO. The Europeans formed the EU. Now to resist China, the USA and its allies have made a new alliance called AUKUS; the USA, the UK and Australia are its members.

Globalism is also getting strong advocates among the western academics. Andrew Roberts –a conservative historian recently suggested in the Wall Street Journal in its article “It’s Time to Revive the Anglosphere” that all the English speaking countries like the UK, the USA, Canada, Australia and New Zealand must unite.

 

Tide of localism in the Muslim World

While the non-Muslims are pursuing the path of globalism, the Muslims are bogged down with localism. In the aftermath of colonialism, the three fathers cum gurus of localism have harmed the Muslim Ummah catastrophically. They are Mr. Kamal Pasha –the father of Turkish nationalism, Mr. Sharif Hussain –the father of Arab nationalism, and Mr. Shaikh Mujibur Rahman –the father of Bengali nationalism. Kamal Pasha with his radical secularism and Turkikh nationalism has successfully dismantled Osmania caliphate and took the Turkish people away from Islam. He could heavily appease the western ruling elites by fulfilling their anti-Caliphate agenda. As a token of their satisfaction, Turkey was taken as a trusted member of the western military alliance of NATO. Betrayal of Islam and the Muslim cause turned so toxic in the Turkish psych that Turkey became the first country to recognise the illegitimate state of Israel in the Muslim heartland. Such Turkish localism precipitated the collapse of the Caliphate. It worked in tandem with the Arab localism to damage the unity and honour of Muslim Ummah. Because of hatred against Islam and Arabs, the Arabic script and calling azan (call for prayers) in Arabic were banned in republican Turkey. They showed their love for western culture, western dress, western laws and even western script. Distancing from Islam and the Muslim Arabs and celebrating the Turkish ethnic glory became the state policy.

Sharif Hussain –a former Osmania governor of Hejaz promoted Arab localism in the Arab World. He allied with the English and the French colonialists to dismember the Caliphate and to raise an Arab Empire. He failed to establish an Arab Empire but succeeded in dismantling the Caliphate. The disintegration of the Arab World into 22 states, ethnic cleansing of Palestine and the creation of the west’s watchdog Israeli state owes not only to the victory of the new European crusaders but also to the crimes of the people of Arab localism.

Shaikh Mujibur Rahman of Bengali localism aligned with the Hindutva forces of India to promote his power-grabbing personal agenda. For that, he dismembered Pakistan –the largest Muslim country of the contemporary world. As a result, Bangladesh now stands as a vassal state of India. The Indian goods enjoy free access to its markets. In fact, Bangladesh is the largest market of Indian products. The Indian transport vehicle gets access to its sea ports. India’s civil and military logistics to the war-prone seven Indian eastern provinces get a safe corridor through Bangladesh. Moreover, India can engineer any political coup in Bangladesh through its embedded civil and military agents. So Bangladesh pays its heavy price for localism.    

 

Globalism and localism: the Islamic perspectives

All humans –like all the living and non-living beings of the universe are the creations of Allah Sub’hana wa Ta’la. The All-Merciful Almighty has intense love for every human. For peace and success of the mankind, He prescribed Islam. It is the only roadmap of ultimate success both here and in the hereafter. It is indeed the greatest gift of the Almighty. For success, unity is indispensable. And the disunity makes it impossible. Hence, Islam makes unity a religious obligation. But Satan wants chaos, calamities and failure; hence wants division and wars. Therefore promoting localism is a satanic agenda. It is made haram in Islam.

As per the Holy Qur’an, killing an innocent man is a crime equivalent to killing all humans. Hence a full guarantee of equal security and welfare for every human being and the people of every locality is the crucial matter in Islam. So, ensuring such safety for everyone –rich or poor is ibadah –the servitude unto Allah Sub’hana wa Ta’la. Islam encourages people to fight for justice for everyone and prohibits politics on localism. The discrimination on the basis of race, ethnicity, skin colour and faith is haram (forbidden). It is a punishable crime to spread hatred and make war on the basis of ethnic, linguistic, and skin-based dissimilarities. Prophet Mohammad (peace be upon him) never tolerated such divisive politics. It was treated as a punishable offence. Islam promotes globalism–called pan-Islamism. Under the Prophet (peace be upon him)’s rule, the Arabs, the Iranians, the Ethiopians and the Romanians worked as fellow brothers, there was no divisive border.

The politics of localism is not a modern invention. It is the old practice of ancient ignorance –jaheliyah. Before Islam, the Arabs didn’t have any state nor any civilisation. They were known by their own localities. They were divided into tribes and used to fight tribal wars for years after years. They didn’t have any global outlook. Islam gave the Arabs a new vision, a new mission and a new insights to look at people around them. It was a trans-tribal, trans-language and trans-locality paradigm. Such globalism could dismantle the divisive walls that survived among them for centuries. Localism promotes weakness and wars. And globalism generates unity, gives strengths and promotes peace. Islam proved that in its golden days. As a result, the Arab Muslims could form a state, could stand a World Power and could raise the finest civilisation in human history.

 

The calamity of localism

The calamity of localism is catastrophic. Most horrendous crimes in the modern Muslim history are committed by the promoters of localism. The Arab nationalists killed thousands of non-Arabs –especially the Turks in 1917-18 and the Bengali nationalist killed tens of thousands of non-Bengalis in 1971. Hundreds of the Muslim women have been raped and their houses and businesses are gutted by the so-called Muslims for dissimilar race and language.

The decadence of the Muslims indeed started when they left the path of globalism and followed localism. About 200 million Bengali Muslims (of both Bangladesh and West Bengal) now suffer from Hindutva Hindus’ hegemony. The 400 million Arabs –despite the huge resources – stand as the most weak and defenceless people on the planet. They can’t even stand against 6 million Israeli Jews. Their localism has devastated their power. As a result, the Arab people of Palestine, Iraq, Syria, Libya, Yemen, and Lebanon still face the worst miseries. On the Day of Judgment, the people will be judged only on the parameter whether adherent to the Divine Truth or adherent to the satanic wrongs. The Divine Truth is global; hence those who adhere to the Truth, they also get global. On the other hand, falsehood has different brands based on the place of origin, the source of origin, and the ingredients of origin. Hence localism is embedded in non-Islamic faith. In the paradise, there will be no division no racial, religious, ethnic oor linguistic identities. There will be only one identity; that is Islamic global identity. Hence those who aspire to enter paradise must attain the attribute of heavenly globalism.

The old days of jahiliya of localism have returned back to the Muslim World. The Arabs are its worst victims. They celebrate localism. Even a small piece of land with a few oil fields claims statehood and celebrates localism. Therefore disunity, defeat and humiliation have become the integral parts of Arab life. Their decadence has gone so low that the Arabs are not even Arab nationalist. They now represent sub-nationalism, tribalism, and other worst forms of localism. This is indeed the worst calamity of localism in the Muslim World. This has proved enough to invite the Divine punishment. London, 29/09/2021.                     

 

 

 




সালাফিদের ইসলাম ও নবীজী (সা:)’র ইসলাম

ফিরোজ মাহবুব কামাল

সালাফি মতবাদের উৎপত্তি ও বিচ্যুতি

নবীজী (সা:) এবং খোলাফায়ে রাশেদার শাসন শেষ হওয়ার পর মুসলিমদের মাঝে নানা রূপ বিদয়াত, বিভ্রান্তি ও বিচ্যুতি ছড়িয়ে পড়ে। শুরু হয় কবর পূজা, মাজার পূজা ও সৌধ পূজার ন্যায় নানা রকম শিরক। সরাসরি মহান আল্লাহতায়ালাকে ডাকার বদলে শুরু হয় পীরদের মাধ্যমে করুণাময়ের দরবারে দোয়া পেশ। প্রবলতর হয় শিয়া মতবাদ ও সুফি ধারণা। সেসব বিদয়াত ও বিচ্যুতি থেকে মুক্তি দেয়ার জন্যই সংস্কার আন্দোলন শুরু করেন নজদের মহাম্মদ বিন আব্দুল ওহাব। তাঁর জন্ম হয় নজদে ১৭০৩ সালে (তবে কারো কারো মতে ১৭০২ সালে) এবং মৃত্যু ১৭৯৭ সালে। তিনি একজন আলেম দ্বীন ছিলেন এবং বসরা ও বাগদাদে শিক্ষকতা করেছেন। তিনি প্রভাবিত হয়েছিলেন ইমাম তায়মিয়া ও ইমাম আহমেদ ইবনে হাম্বলীর দ্বারা। সে সাথে প্রভাবিত হয়েছিলেন একজন ভারতীয় আলেমের দ্বারাও। ভারতীয় সে আলেম হলেন মহম্মদ হায়াত আল সিন্ধি। ভারতে তখন মোঘল শাসনের অতি দুর্বল অবস্থা। ভারতীয় মুসলিমগণ তখন হিন্দু উত্থানের ফলে নির্মূলের মুখে। মহম্মদ হায়াত আল সিন্ধি মহাম্মদ বিন আব্দুল ওহাবকে বুঝান, আদি ইসলামের দিকে ফিরে যাওয়া ছাড়া মুসলিমদের মুক্তির পথ নাই। মহাম্মদ বিন আব্দুল ওহাব নিজেও দেখতে পান, মুসলিমগণ বিচ্যুৎ হয়ে পড়েছে ইসলামের মূল ধারা থেকে। নানারূপ বিদয়াত ঢুকেছে তাদের ধর্ম-কর্মে। তিনি হাত দেন মুসলিমদের আক্বিদা পরিশুদ্ধির কাজে। তাঁর মূল লক্ষ্য ছিল, মুসলিমদের তাওহিদের দিকে ফিরিয়ে আনা। এ নিয়ে তাঁর বিখ্যাত কিতাবটি হলো “কিতাব আল তাওহিদ।” তার প্রচারিত ধর্মমতকেই বলা হয় সালাফি ইসলাম। অনেকে সেটি ওয়াহাবী ইসলামও বলে। বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও ভারতে তারা আহলে হাদীস রূপে পরিচিত। আধুনিক কালে সালাফি মতের বিখ্যাত আলেম হলেন মহম্মদ নাসিরউদ্দীন আলবানী ও আব্দুল আজীজ বিন বায।  

তবে মহম্মদ বিন আব্দুল ওয়াহাব শুধু ধর্মীয় সংস্কারের কথাই বলতেন না, তিনি রাজনৈতিক সংস্কারের কথাও বলতেন। তাই বলা যায়, তিনি রাজনীতি বর্জিত সেক্যুলার ছিলেন না। রাজনৈতিক পরিকল্পনাকে বাস্তবায়নের জন্যই তিনি ১৭৪৪ সালে কোয়ালিশন গড়েন নজদের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও গোত্রীয় নেতা মহম্মদ ইবনে সউদের সাথে। মহম্মদ বিন আব্দুল ওয়াহাবকে মহম্মদ ইবনে সউদ নিজের ধর্মগুরু রূপে গ্রহণ করেন। মহম্মদ ইবনে সউদকে বলা হয় সৌদি আরবের বর্তমান রাজবংশের জন্মদাতা। ১৭৭৩ সালে মহম্মদ ইবনে সউদ নজদ দখল করতে সমর্থ হন এবং দিরি’য়াকে রাজধানী করে এক স্বাধীন রাজ্যের প্রতিষ্ঠা দেন। কিন্তু ১৮১৮ সালে উসমানিয়া খলিফার বাহিনী সে রাজ্যকে দখলে নিয়ে নেয়। কিন্তু ইবনে সউদের বংশধরগণ নিজেদের রাজ্য নির্মাণের আশা ছাড়েনি। ব্রিটিশের সহায়তা নিয়ে আব্দুল আজীজ বিন সউদ উসমানিয়া খেলাফতের স্থানীয় প্রতিনিধিকে হত্যা করে আধুনিক সৌদি আরবের প্রতিষ্ঠা দেয়। সৌদি আরব প্রতিষ্ঠার পর সালাফিদের হাতে দায়িত্ব পড়ে ধর্মীয় পুলিশ বিভাগের। প্রশাসনে সালাফিগণ পরিচিতি পায় মুতায়’য়ুন রূপে। ধর্মীয় ব্যাপারে ফতওয়া দান, মসজিদের আযানের সাথে সাথে দোকানপাট বন্ধ, মসজিদে জামায়াতে নামায, মহিলাদের হিযাব, মহিলাদের একাকী রাস্তায় বেরুনো, নারী-পুরুষের পৃথকীকরণ, অশ্লিলতা থেকে সমাজকে মুক্তকরণ ইত্যাদি বিষয়ে কড়া নজরদারী রাখার কাজটি ছিল সালাফিদের।

সালাফিদের পূর্বের ক্ষমতাকে সাম্প্রতিক বছরগুলিতে বহুলাংশেই খর্ব করা হয়েছে। সৌদি সরকার এখন নিজেই নানা শহরে সিনেমা হল করার পরিকল্পনা নিয়েছে। পাশ্চা্ত্য সংস্কৃতিকে নিজ দেশ ডেকে আনাই এখন সরকারের পলিসি। যুবরাজ মহম্মদ বিন সালমানের নেতৃত্ব সৌদি আরব পাশ্চাত্যমুখী একটি আধুনিক ট্যুরিজমের দেশে পরিণত হতে যাচ্ছে। যে সংস্কারের উদ্দেশ্য নিয় মহম্মদ বিন আব্দুল ওয়াহাব আন্দোলন শুরু করেছিলেন সে উদ্দেশ্য এখন আর বেঁচে নাই। সালাফিগণ এখন পরিণত হয়েছে সৌদি রাজবংশের খাদেমে। ইসলাম বাঁচানোর বদলে এখন তাদের লক্ষ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে সৌদি রাজবংশকে বাঁচানো। সৌদি বাদশাহ এখন সালাফিদেরকে নিজেদের রাজনৈতিক মতলব হাছিলে ব্যবহার করছে। সরকারী বাহিনীর হাতে নৃশংস হত্যাকান্ড ঘটলেও সালাফী আলেমদের কাজ হয়েছে সেটিকে জায়েজ ঘোষণা দেয়া। সেটি দেখা গেছে আশির দশকে মক্কায় বহু শত ইরানী হাজীদের হত্যার ঘটনায়। মক্কার পবিত্র শহরে হজ্জের মাসে সংঘটিত বর্বর হত্যাকাণ্ডকে নিন্দা না করে সেটিকে বরং সালাফি আলেমগণ সমর্থন করেছে। সৌদি সরকার মক্কা-মদিনার এ পবিত্র ভূমিত মার্কিনীদের ন্যায় বিদেশী কাফেরদের ঘাঁটি গড়তে দিলেও এসব সালাফিগণ সেটির প্রতিবাদ করেনা। বিন লাদেনের সাথে সৌদি সরকারের বিতণ্ডার মূল কারণ হলো এটি। এরূপ নানা বিচ্যুতির মাঝে এখন সালাফি আলেমদের বসবাস। যারা সাহস করে সৌদির নীতির বিরোধীতা করে সৌদি সরকার তাদের নির্মূলে লেগে যায়। শত শত আলেম এখন সৌদি আরবের জেলে। বহু আলেমকে হত্যাও করা হয়েছে। সৌদি শাসক গোষ্ঠির নীতি এখন প্রচণ্ড সেক্যুলার। রাজনীতির অঙ্গণে আলেমদের কোনরূপ ভাগীদার করতে তারা রাজী নয়। সৌদি শাসকদের কৌশলটি হলো, মানুষের আক্বিদা মেরামতের কাজে সালাফি আলেমদের ব্যস্ত রেখে সমগ্র দেশকে নিজেদের পৈত্রিক সম্পত্তিতে পরিণত করা। সে কাজে তারা সফলও হয়েছে। দেশবাসীকে তারা বঞ্চিত করেছে স্বাধীন ভাবে কথা বলা, লেখালেখী করা ও রাস্তায় প্রতিবাদের ন্যায় মৌলিক অধিকার থেকে। মসজিদের ইমামদের স্বাধীনতা নাই নিজের ইচ্ছামত খোতবা দেয়ার। তাদের তাই পাঠ করতে হয় যা সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে তাদের হাতে পৌঁছে দেয়া হয়।

 

যে পাপ বিভক্তি গড়ার

সৌদি সরকার ধর্মকে ব্যবহার করছে মুসলিম বিশ্বজুড়ে নিজেদের প্রভাবকে শক্তিশালী করার কাজে। সে লক্ষ্যে সৌদি সরকার দেশের অভ্যন্তরে কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়গুলির কাজ হলো বিভিন্ন দেশ থেকে ছাত্রদের ডেকে এনে তাদের সালাফি মতবাদের প্রচারকে পরিণত করা। এজেন্ডা হলো, আক্বিদার শুদ্ধির নামে অন্যদের সালাফি আক্বিদায় গড়ে তোলা। এ সালাফি চেতনায় রাজনৈতিক ভাবনা নেই। এখানে রাজনীতি ছেড়ে দিতে হয় স্বৈরাচারি বাদশাহদের হাতে। সৌদি সরকারের বৃত্তি পেয়ে ছাত্রদের অধিকাংশই আসছে বাংলাদেশে, পাকিস্তান, ভারতের ন্যায় হানাফী মজহাবের দেশ থেকে। হানাফীদের প্রতিটি নামায যে সূন্নত মোতবেক হয় -তা নিয়ে শাফেয়ী, মালেকী বা হাম্বলী মজহাবের লোকদেরও এতকাল কোন অভিযোগ ছিল না। ইমাম আবু হানিফাকে বলা হয় ইমামে আযম। অথচ সালাফিদের পক্ষ থেকে নবীজী (সা:)’র একটি বিশেষ সূন্নতকে প্রতিষ্ঠা দিতে গিয়ে অবজ্ঞা বা তাচ্ছিল্য বাড়ানো হচ্ছে অন্য একটি সূন্নতের বিরুদ্ধে। ফলে হানাফীদের মধ্যে বাড়ছে বিভাজন। হানিফা মজহাব থেকে নতুন দীক্ষাপ্রাপ্ত সালাফিদের আক্বিদাই শুধু পাল্টে যাচ্ছে না, পাল্টে যাচ্ছে তাদের পোষাক পরিচ্ছদ ও মাথার টুপি-চাদরসহ নামায আদায়ের ধরণও। যেন এগুলিই মুসলিমদের মূল সমস্যা। এতো কাল বাংলাদেশ বা পাকিস্তানের মহ্ল্লার মসজিদের নামাযীগণ যেরূপ একই নিয়মে নামায পড়তো ও তাসবিহ-তাহলিল করতো -এখন সেটি হচ্ছে না। বাড়ছে নামায পড়ার ধরণ নিয়ে দ্বন্দ। যে বিবাদ এক কালে সৌদি আরবে সীমিত ছিল, সালাফিগণ সে বিবাদকে বিশ্বময় করছে। এবং সেটি শুধু নামাযের মধ্যে গুটিকয়েক সূন্নত পালন নিয়ে। বিভিন্ন মুসলিম দেশে সে ধর্মীয় বিবাদকে তীব্রতর করতে সৌদি আরব বিপুল অর্থ তুলে দিচ্ছে সে সব দেশের সালাফিদের প্রতিষ্ঠিত মসজিদ-মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির হাতে। কথা হলো, সূন্নত নিয়ে এরূপ বিবাদ বাড়ানো হলে ইসলামকে বিজয়ী করার ফরজ জিহাদের সুযোগ সৃষ্টি হবে কীরূপে? এরূপ বিভক্তি ও বিবাদ তো ভয়ানক পাপের পথ। এতে খুশি হয় শয়তান। এবং ভয়নাক আযাব নামিয়ে আনে মহান আল্লাহতায়ালার।  

নবীজী (সা:)’র কোন একটি সূন্নতের বিরুদ্ধে অবজ্ঞা গড়া যেমন হারাম, তেমনি হারাম হলো তা নিয়ে বিভক্তি গড়া। অথচ সালাফিগণ সে দুটি হারাম কাজের পরিচর্যা দিচ্ছে বিভিন্ন মুসলিম দেশে। কথা হলো, মুসলিমদের মাঝে আর কতো বিভক্তি? এভাবে বিভক্তি গড়ে কি মুসলিমদের কল্যাণ করা যায়? একতা গড়া নামায-রোযা ও হজ্জ-যাকাতের ন্যায় ফরজ। অথচ মুসলিমগণ সে ফরজ বাদ দিয়ে অতি ব্যস্ত বিভক্তির ন্যায় হারাম কাজ নিয়ে। তাবলিগ জামায়াত প্রতিষ্ঠা করেছে নানা দেশে বিশাল বিশাল মারকায। তাদের লক্ষ্য জনগণকে নামাযের পথে আনা। তাবলিগ জামায়াত এ কাজে বড় বড় ইজতেমা করে এবং নিজ কর্মীদের সে সব ইজতেমায় প্রশক্ষিণ দেয়। অথচ ইসলামী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা, আদালতে শরিয়ত পালন, ছাত্রদের কুর’আন শিক্ষা –এসব ফরজ বিষয় নিয়ে তাদের তেমন ভাবনা নাই। সে লক্ষ্যে কোন চেষ্টাও নয়। নির্বাচন এলে বাংলাদেশে এসব তাবলিগীগণ ইসলামী দলের প্রার্থীদের হারাতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে ভোট দেয়। রাজনীতি যে তারা করে না -তা নয়। তাদের রাজনীতি হলো ইসলামের শত্রুদের বিজয়ী। তারা এতেই খুশি যে, দেশের সেক্যুলারিস্ট ও ন্যাশনালিস্ট নেতাগণ ইজতেমার আখেরী মুনাজাতে হাজির হয়। দেওবন্দীগণ প্রতিষ্ঠা দিয়েছে ভারত, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান জুড়ে অসংখ্য মাদ্রাসা্। তাদের ইসলামেও রাজনীতির জিহাদে নাই। ইসলাম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ভাবনা নাই। তাদের ব্যস্ততা স্রেফ মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠা নিয়ে। ভারতে এরা কংগ্রেসকে ভোট দেয়। এসব বহুবিধ ফেরকার অনুসারীদের মেহনতে বিশ্বজুড়ে শুধু নানাবিধ ফিরকার প্রসার বেড়েছে। ইসলামের বিজয় বাড়েনি। বাংলাদেশের বহু গ্রামে ও প্রতি জনপদে এখন সালাফি আলেম পাওয়া যায়। তাবলিগী ও দেওবন্দী ফেরকারও বহুলোক পাওয়া যায়। কিন্তু সে সকল জায়গায় ইসলামের বিজয়ে জানমালের কুর’বানী দিতে রাজী এমন মুজাহিদ নেই। নবীজী (সা:) যেরূপ দ্বীনের বিজয়ে লড়াকু ঈমানদার গড়ে তুলেছিলেন সেরূপ ঈমানদার গড়ার কাজে ব্যর্থতাটি আজ বিশাল। ফলে দ্বীনের নামে নানা মতের প্রসার বাড়লেও নবীজী (সা:)’র বিশুদ্ধ ইসলাম কোথা্ও বেঁচে নাই। নবীজী (সা:)’র বিশুদ্ধ ইসলামের অর্থ তো ইসলামী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা, শুরা ভিত্তিক নেক বান্দাদের শাসন, শরিয়ত ও হুদুদের প্রতিষ্ঠা, অন্যায়ের নির্মূল, ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা, মুসলিম ঐক্য, শুরা ভিত্তিক শাসন এবং জিহাদ। কিন্তু এ ব্যর্থতা নিয়ে সালাফিদের ভাবনা নাই। তাদের ভাবনা মানুষের আক্বিদার মেরামত নিয়ে।  

 

সালাফিদের ইসলাম ও নবীজী (সা:)র ইসলাম

সালাফিদের গর্ব ও ভাবনা সৌদি আরবকে নিয়ে। এমন ভাবে তারা সৌদি আরবের প্রশংসা করে যেন তাদের চেতনা ও আক্বিদার প্রতিফন ঘটিয়েছে সৌদি আরব। এটি ঠিক যে সৌদি আরবের সালাফিগণ বহু শত মাযার ও স্মৃতিসৌধ ধ্বংস করেছে। গুড়িয়ে দিয়েছে সাহাবায়ে কেরামের কবরের চিহ্নগুলোও। কিন্তু দ্বীন বলতে কি শুধু কবরস্থান, মাযার ও স্মৃতিসৌধ ধ্বংস বুঝায়? নবীজী (সা) শুধু মুর্তিই ভাঙ্গেননি, তিনি পূর্ণাঙ্গ ইসলামকে প্রতিষ্ঠা দিয়েছেন। নবীজী (সা:)’র নবুয়তী জীবন ছিল মাত্র ২৩ বছরের। এই ২৩ বছরের মধ্যে তিনি শুধু মানুষের আক্বিদাকে বিশুদ্ধ করেননি, বিশুদ্ধ করেছেন পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রকেও। মজবুত করেছেন মুসলিম উম্মাহর একতা। রাষ্ট্রীয় পরিশুদ্ধির কাজে নবীজী (সা:) ১০ বছর রাষ্ট্রীয় প্রধানের আসনে বসেছেন। সৌদি আরবে সালাফিদের শাসনকাল এক শত বছরের বেশী হয়েছে। তারা রাষ্ট্রকে বিশুদ্ধ করা দূরে থাক তারা কি নিজেদের আক্বীদাকেও বিশুদ্ধ করতে পেরেছে?  বরং তারা নিজেরা বিচ্যুৎ হয়েছে সে আক্বিদা থেকেও যা নিয়ে মহম্মদ বিন আব্দুল ওহাব তাঁর সংস্কার আন্দোলন শুরু করেছিলেন।

রাষ্ট্র হলো মানব সভ্যতার সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান। আক্বিদার বিশুদ্ধ করণের কাজে এ প্রতিষ্ঠানটি যেমন সবচেয়ে শক্তিশালী হাতিয়ার, তেমনি শক্তিশালী হাতিয়ার হলো আক্বিদার দূষিত করণের কাজে। আক্বিদা থেকেই নিয়ন্ত্রিত হয় ব্যক্তির আমল, আচরণ, বুদ্ধিবৃত্তি ও রাজনীতি। কে হবে দুর্বৃত্ত স্বৈরাচারী এবং কে হবে ন্যায় পরায়ন শাসক -সেটি তো আক্বিদাই ঠিক করে দেয়। মানুষের আক্বিদা তাই শুধু ইবাদত-বন্দেগী ও বিশ্বাসের বিষয় নয়, সেটি মানুষের কর্ম, আচরণ ও রাজনীতির বিষয়ও। এসবের মধ্য দিয়েই ব্যক্তির আক্বিদা দৃশ্যমান হয়। রাষ্ট্রের শাসক যদি বিশুদ্ধ ইসলামী আক্বিদার হয় তবে রাষ্ট্রের রাজনীতি, প্রশাসন, শিক্ষা নীতি, আইন-আদালত, মিডিয়া সে সুস্থ্য আক্বিদার প্রচারে ও দূষিত আক্বিদার বিলোপে শক্তিশালী ভূমিকা রাখে। আক্বিদার পরিশুদ্ধিতে এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠার কাজে রাষ্ট্রের শক্তি ও গুরুত্ব যতটা মহান নবীজী(সা:) বুঝেছিলেন -তা কি এসব সালাফিগণ বুঝে? রাষ্ট্রকে স্বৈরাচারী দুর্বৃত্তদের হাতে অধিকৃত রেখে কি জনগণের আক্বিদা ঠিক করা যায়? তাই মানুষের আক্বিদায় শুদ্ধি আনায় সামান্যম তাড়না থাকলে সালাফিদের উচিত ছিল সৌদি রাজবংশের আক্বিদায় পরিবর্তন আনা। উচিত ছিল, স্বৈরাচারী শাসকের বদলে মহান আল্লাহতায়ালার খলিফা ও জনগণের খাদেমে পরিণত করা। আক্বিদা সঠিক হলে কেউ কি স্বৈরাচারী রাজতন্ত্রের প্রতিষ্ঠা দেয়?

নবীজী (সা:) শুধু নামায-রোযা, হজ্জ-যাকাত, তাসবিহ-তাহলিল ও আচার-আচরণের সূন্নত রেখে যাননি, অতি গুরুত্বপূর্ণ সূন্নত রেখে গেছেন রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে। রাষ্ট্র যেমন জনগণকে জান্নাতে নেয়ার বাহন হতে পারে, তেমনি জাহান্নামে নেয়ার বাহনও হতে পারে। তাই রাষ্ট্রের পরিশুদ্ধিটি ব্যক্তির পরিশুদ্ধির চেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। তাই কোন ঈমানদারই এ গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানটিকে কোন দুর্বৃত্তের হাতে অধিকৃত হতে দেয় না। মদিনায় হিজরতের পর নবীজী (সা:) যতদিন বেঁচে ছিলেন ততদিন তিনি নিজে রাষ্ট্রীয় প্রধানের আসনে বসছেন। তাঁর ওফাতের পর সে আসনে বসেছেন তাঁর শ্রেষ্ঠ সাহাবীগণ। কোন স্বৈরাচারি দুর্বৃত্ত সে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার ধারে কাছেও ভিড়তে পারিনি। সাহাবাগণ সে আসন পাহারা দিয়েছেন। খোলাফায়ে রাশেদার আমল পর্যন্ত সে নীতি বহাল ছিল। ঈমানদারের আক্বিদার অঙ্গণে নবীজী (সা:)’র এ সূন্নতকে অবশ্যই স্থান দিতে হয়, নইলে আক্বিদা পরিশুদ্ধ হয় কি করে? পবিত্র কুর’আনে মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষণা, “মাই ইইতির রাসূলা ফাকাদ আতাল্লাহ”। অর্থ: যে অনুসরণ করে নবীকে সেই অনুসরণ করে আল্লাহকে। অথচ কি বিস্ময়, সালাফিদের আক্বিদায় নবীজী (সা:)’র সূন্নতের অনুসরণ কই? খলিফার বদলে তারা হয়েছে নৃশংস স্বৈরাচারী রাজা।

 

কারা প্রকৃত সালাফ?

খোলাফায়ে রাশেদার খলিফাগণ হলেন মুসলিম ইতিহাসের আসল সালাফ। “সালাফ” শব্দটি একটি আরবী শব্দ। এর অর্থ, যারা অগ্রবর্তী তথা প্রথম যুগের বা প্রথম সারীর। তাই প্রকৃত সালাফি কখনোই আজকের সৌদি আলেমগণ নন, তারা হলেন সাহাবায়ে কেরাম বিশেষ করে খোলাফায়ে রাশেদার খলিফাগণ। আজ যারা সালাফী হওয়ার গর্ব করে তাদের চেয়ে অধিক সালাফী তো ইমাম হানিফা (রহ:)। যারা প্রকৃত সালাফি হতে চায় তাদের অনুসরণ করা উচিত নবীজী (সা:) ও তাঁর প্রথম সারীর সাহাবাদের -যারা মক্কাতে ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন। রাষ্ট্র পরিচালনায় তারা যে সূন্নত রেখে গেছেন তাতে গুরুত্ব পেয়েছিল তাকওয়া ও রাষ্ট্র পরিচালনায় যোগ্যতা। তাতে রক্তের, বংশের বা গোত্রের কোন প্রভাব বা যোগসূত্র ছিল না। তাই খলিফা হযরত আবু বকর (রা:) ও হযরত উমর (রা:)’য়ের মৃত্যুর পর তাদের সন্তানদের কেউ খলিফা হননি। অথচ তারা নিঃসন্তান ছিলেন না।  অন্যরা অধিক যোগ্যবান ছিলেন বলেই তাঁরা নিজ সন্তানদের খলিফার পদে বসাননি। এটিই তো প্রকৃত সালাফিদের রীতি। কিন্তু আজকের সৌদি সালাফিদের মাঝে কোথায় ইসলামে আসল সালাফিদের আক্বিদা? সৌদি বাদশাহগণ যা প্রতিষ্ঠা দিয়েছে তা রোমান ও পারসিক রাজাদের সূন্নত। ফলে সৌদি সালাফিদের সালাফি হওয়ার দাবীটি যে ভূয়া –তা নিয়ে কি সন্দেহ থাকে?

সালাফিগণ রাজনৈতিক কর্মকান্ড এবং সরকার বদলের আন্দোলন থেকে সযত্নে দূরে থাকে। তাদের যুক্তি, এরূপ সরকার বদলে নাকি দেশে গোলযোগ, প্রাণনাশ ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। অথচ তাদের আসল চিত্রটি ভিন্ন। নিজেদের স্বার্থে সরকার বদলের কাজে গোলযোগ, গণহত্যা ও বিশৃঙ্খলা ঘটনাও তাদের কাছে জায়েজ গণ্য হয়। সৌদি সালাফিগণ বিকট গণহত্যায় সমর্থণ ও সহযোগিতা দিয়েছে ২০১৩ সালে মিশরে সামরিক বাহিনীর সন্ত্রাসের রাজনীতিতে। সে দেশে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের মাধ্যেমে ক্ষমতায় এসেছিল ইখওয়ানুল মুসলিমুনের নেতা ডক্টর মুহম্মদ মুরসী। ডক্টর মুহম্মদ মুরসী ছিলেন হাফিজে কুর’আন। ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর। ছিলেন অতি ভদ্র ও শান্তিবাদী জনপ্রিয় নেতা। মিশরের ইতিহাসে তিনিই হলেন জনগণের ভোটে নির্বাচিত প্রথম প্রেসিডেন্ট। তাঁর অপরাধ তিনি ইসরাইলের বন্ধু ছিলেন না। তাঁর আরো অপরাধ তিনি ছিলেন ইসলামী। তাঁর নির্বাচিত হওয়াকে সৌদি রাজ পরিবার পছন্দ করেনি। তিউনিসিয়ায় বিন আলীকে সরানোর মধ্য দিয়ে আরব জগতে গণতান্ত্রিক বিপ্লবের যে বসন্ত শুরু হয়েছিল তা সৌদি সালাফিদের পছন্দ হয়নি। তাদের মনে ভয় ঢুকেছিল, গণবিপ্লবের জোয়ার সৌদি আরবেও আঘাত হানবে এবং তাতে উৎখাত হবে সৌদি রাজবংশ। ফলে সৌদিগণ সচেষ্ট হয় সে জোয়ার মিশরের আটকে দেয়ায়। সে জন্যই সৌদি আরবের রাজা প্রেসিডেন্ট মুরসির বিরুদ্ধে জেনারেল আব্দুল ফাতাহ সিসির সামরিক অভ্যুত্থানকে সমর্থন করে। এভাবে সমর্থণ করে সামরিক বাহিনীর গণহত্যা ও নির্যাতনের পথ।

প্রেসিডেন্ট মুরসিকে ক্ষমতা থেকে সরিয়েই জেনারেল সিসি শুরু করে ইসলামপন্থীদের বিরুদ্ধে হত্যাকান্ড, জেল-জুলম ও নির্যাতন। ৭০ হাজারের বেশী ইখওয়ান কর্মীকে কারাবন্দী করে। ২০১৩ সালের ১৪ আগষ্ট কায়রোর রাবা আল আদাবিয়া চত্ত্বরে এক রাতে সিসির সেনাবাহিনী প্রায় দেড় হাজার মানুষকে হত্যা করে। নিহতদের মধ্যে ছিল নারী, পুরুষ ও শিশু। মুরসীর অপসারণের প্রতিবাদে শত শত পরিবারের নারী-পুরুষ-শিশু সবাই মিলে সে সন্ধায় রাবা আল আদাবিয়ার চৌরাস্তায় অবস্থান নিয়েছিল। ব্যক্তির পরিশুদ্ধ আক্বিদা সব সময়ই তাকে খুন, জুলুম ও নির্যাতনকে ঘৃণা করতে শেখায়। কিন্তু সালাফিগণ সেদিন কোন বিশুদ্ধ আক্বিদার প্রমাণ রাখতে পারেনি। তারা বরং খুনি জেনারেল সিসির পক্ষ নিয়েছে। এটিই কি তবে পরিশুদ্ধ আক্বিদার নমুনা? এখানে আক্বিদাটি তো নিরেট জালেম দুর্বৃত্তদের।

কায়রোর রাবা আল আদাবিয়া চত্ত্বরের গণহত্যায় কামান ও মেশিন গান ব্যবহার করা হয়। নিরস্ত্র মানুষের বিরুদ্ধে এ ছিল মিশরীয় সামরিক বাহিনীর যুদ্ধ।  হিউমান রাইটস ওয়াচের হিসাব মতে সে নৃশংসতায় আহতের সংখ্যা ছিল হলো ৩,৯৯৪ জন। যারা আহত হয়নি তাদের জেলে নেয়া হয়। সৌদি সরকার ও সালাফিগণ সে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসকে সন্ত্রাস বলেনি, নিন্দাও করেনি। বরং সন্ত্রাসী বলেছে নিরস্ত্র ইখওয়ানুল মুসলিমকে। রাষ্ট্র ও রাজনীতির অঙ্গণে পরিশুদ্ধির কাজটি না হলে রাষ্ট্র যে কতবড় ভয়ানক দুর্বৃত্ত দানবীয় শক্তির হাতিয়ারে পরিণত হতে পারে, তার উদাহরণ হলো সৌদি আরব, মিশর, বাংলাদেশ, বাইরাইনের ন্যায় স্বৈরশাসন কবলিত দেশগুলা। তাই নবীজী (সা:) শুধু আক্বিদা পরিশুদ্ধির কাজ করেননি, রাষ্ট্রের পরিশুদ্ধির কাজও করেছেন।এবং রাষ্ট্রের পরিশুদ্ধির কাজটিই হলো মানব ইতিহাসের সবচেয়ে উপকারী এবং সবচেয়ে ব্যয়বহুল কাজ। এ কাজে শতকরা ৬০ ভাগের বেশী সাহাবীকে শহীদ হতে হয়েছে। কিন্তু সালাফিদের এ কাজে রুচি নাই। নিজেদের সামর্থ্যের বিনিয়োগও নাই।      

 

সালাফিদের জিহাদ বিরোধীতা

জিহাদের বিরুদ্ধে সালাফিদের যুক্তি হলো, জিহাদ ঘোষণা ও পরিচালনার দায়িত্বটি  কোন একটি দেশে সরকার প্রধান বা আমীরের; কোন ব্যক্তি বা দল জিহাদের ঘোষনা দিতে পারেনা। সালাফিরা একথা বলে তাদের প্রভু সৌদি বাদশাহদের ন্যায় জালেমদের গদি বাঁচানোর স্বার্থে। কারণ, জিহাদের এরূপ ব্যাখা দিলে সৌদি রাজাদের ন্যায় স্বৈরাচারী শাসকদের লাভ হয়। এ কথা বলে জনগণকে জিহাদ থেকে দূরে রাখা যায়। আফগানিস্তানে জিহাদ চললো ৩০ বছেরর বেশী কাল ধরে। প্রথম ১০ বছর সে জিহাদ চলেছে সোভিয়েত রাশিয়ার বিরুদ্ধে এবং পরে ২০ বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের বিরুদ্ধে। বিশ্বের মুসলিম  আলেমগণ এ জিহাদকে শতভাগ জিহাদ বলেছে। এমনকি আশির দশকে সৌদি আরবের সরকারও সে যুদ্ধকে জিহাদ বলেছে ও বিপুল আর্থিক সহায়তা দিয়েছে। প্রশ্ন হলো, সে জিহাদ কি তখন কোন রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে পরিচালিত হয়েছে? সে জিহাদ পরিচালিত হয়েছে কিছু ব্যক্তি ও দলের পক্ষ থেকে। তখন সালাফিদের এসব যুক্তি কোথায় ছিল? আফগানিস্তানের তালেবানগণ সম্প্রতি  যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন ৫০টি দেশের বাহিনীকে পরাজিত করে বিজয় লাভ করলো। সমগ্র মুসলিম উম্মাহর জন্য এটি বিশাল বিজয়। কিন্তু তালেবানদের এ বিজয়ে সৌদি আরব খুশি নয়। বরং তাদের দুশ্চিন্তা বেড়েছে।  অখুশি ও দুশ্চিন্তার বিষয়টি প্রকাশ করেছে সৌদি আরবের পররাষ্ট্র মন্ত্রী।  

তাছাড়া সালাফিদের যুক্তিটি কুর’আন বিরোধীও। সুরা নিসার ৭১ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে,”হে ঈমানদারগণ,তোমরা সতর্কতা অবলম্বন করো, (জিহাদে) বেরিয়ো পড় দলে দলে বিভক্ত হয়ে অথবা সমবেত ভাবে।” এখানে কোন রাষ্ট্রের সংশ্লিষ্টতার কথা বলা হয়নি। রাষ্ট্রীয় সেনাবাহিনীর কথাও বলা হয়নি। জিহাদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে জনগণকে। তারা সে জিহাদ যেমন নানা দলে বিভক্ত হয়ে করতে পারে, তেমনি এক সাথেও শুরু করতে পারে।

সাবা’র ৪৬ নম্বর আয়াতে বিষয়টি আরো পরিস্কার। উক্ত আয়াতে বলা হয়েছে, “(হে নবী) বলুন, তোমাদের প্রতি আমার একটাই ওয়াজ (নসিহত), সেটি হলো (জিহাদে) খাড়া হয়ে যাও জোড়া বেঁধে, অথবা (সেটি সম্ভব না হলে) একাই।”জিহাদ শুধু অস্ত্র দিয়ে হয় না। অর্থ দিয়ে ও বুদ্ধিবৃত্তিক সামর্থ্য দিয়েও হয়। দৈহিক বল, বুদ্ধিবৃত্তিক বল ও আর্থিক বলের ন্যায় জিহাদের নানাবিধ সামর্থ্য মহান আল্লাহতায়ালা সবাইকেই দিয়েছেন। ঈমানদারের দায়ভার হলো সে সামর্থ্যকে ইসলামের বিজয়ে কাজে লাগানো। কথা হলো, নিজ দেশে জালেম শাসকের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর জন্য আরেক শাসকের অনুমতি লাগবে কেন? রোজ হাশরের বিচার দিনে প্রতিটি ব্যক্তিকে মহান আল্লাহতায়ালার সামনে একাকী কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। রাষ্ট্রকে সেখানে হাজির করা হবেনা। নিজের পক্ষ থেকে জিহাদ কতটা পালিত হয়েছিল -সেদিন সে হিসাব অবশ্যই দিতে হবে। তাই জিহাদের ঘোষণাটি কোন রাষ্ট্র না দিলে ব্যক্তি সে দায়িত্ব থেকে মুক্তি পায় কি করে? তাছাড়া কোন দেশে জালেম শাসক ক্ষমতায় থাকলে জিহাদ ঘোষণার জন্য কি আরেক শাসক হাওয়ায় নির্মিত হবে? ঘোড়ার আগে গাড়ি জোড়া যায় না। জিহাদে বিজয়ী না হয়ে কি জিহাদের পক্ষে কোন সরকার গঠন করা যায়?

 

আক্বিদাটি দুর্বৃত্ত স্বৈরশাসকের

আক্বিদা শুধু ঈমান, আমল ও শিরক-বিষয়ক ধ্যান-ধারণার বিষয় নয়। সেটি রাজনীতি, বুদ্ধিবৃত্তি ও রাষ্ট্র পরিচালনার বিষয়ও। মুসলিম জীবনের অতি অপরিহার্য ইবাদত হলো রাজনীতি ও বুদ্ধিবৃত্তি। রাজনীতি ও বুদ্ধিবৃত্তি হলো মু’মিনের জীবনে ইসলামকে বিজয়ী করার পবিত্র জিহাদ। সত্যিকার ঈমান থাকলে সে জিহাদ থাকবেই। বস্তুত ঈমানদারের ঈমান দেখা যায় দুর্বৃত্ত শাসকের বিরুদ্ধে জিহাদে অংশ নেয়ার মধ্য দিয়ে। আর বেঈমানী দেখা যায় স্বৈরাচারী শাসকের প্রতি আনুগত্যের মধ্য দিয়ে। রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা নিজ হাতে রাখার জন্য নবীজী (সা:) বহু যুদ্ধ করেছেন। নিজে আহত হয়েছেন; শত শত সাহাবী সে কাজে শহীদ হয়েছেন। আজীবন নামায-রোযা-যাকাত পালন করে কেউ জান্নাত পাবে -সে নিশ্চয়তা নাই। কিন্তু শত্রুর বিরুদ্ধে কয়েক মুহুর্তের জিহাদে কেউ যদি শহীদ হয়ে যায় -তাঁর জন্য গ্যারান্টি রয়েছে জান্নাতের। সে গ্যারান্টি নিয়ে সন্দেহ করাই হারাম। সালিফিগণ সে জিহাদ থেকে যে শুধু দূরে থাকছে তা নয়, বরং কাফেরদের সাথে সুর মিলিয়ে সে পবিত্র জিহাদকে সন্ত্রাস বলছে। এমন কি ইখওয়ানুল মুসলিমীনের নিরস্ত্র রাজনীতিকেও তারা সন্ত্রাস বলছে। ইখওয়ানুল মুসলিমীন শান্তিপূর্ণ ভাবে ইসলামের বিজয় ও প্রতিষ্ঠা চায়। তাদের সে নিরস্ত্র রাজনৈতিক লড়াই রুখতে সৌদি সালাফিগণ কোয়ালিশন গড়েছে আরব বিশ্বের সকল নৃশংস স্বৈরাচারী দুর্বৃত্ত শাসকদের সাথে।

সালাফিগণ জিহাদ থেকে দূরে থাকার পক্ষে সামাজিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার কথা বলে। অথচ জিহাদের মধ্য দিয়েই রাষ্ট্রে শান্তি, সমৃদ্ধি, দুর্বৃত্তমুক্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা পায়। সন্তানের জন্ম দানে যেমন প্রসব বেদনা থাকে তেমনি শান্তি, দুর্বৃত্তমুক্তি ও স্থিতিশীলতার প্রতিষ্ঠায় জিহাদের বেদনা তথা জান-মালের কুর’বানী অনিবার্য। সামাজিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার নামে নবীজী (সা:) যদি শুধু মানুষের আক্বিদা পরিশুদ্ধি নিয়ে ব্যস্ত থাকতেন এবং নিজের কর্মকে মসজিদে সীমিত রাখতেন -তবে কি ইসলামী রাষ্ট্র কখনো নির্মিত হতো? তা হলে মুসলিমগণ কি গড়ে উঠতো পারতো বিশ্বশক্তি রূপে? জন্ম দিতে পারতো কি মানব ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতা? সভ্যতা-সংস্কৃতি কখনোই তাঁবুতে, মসজিদ-মাদ্রাসা ও সুফি খানকায় গড়ে উঠে না। সে জন্য বিশাল ও শক্তিশালী রাষ্ট্র লাগে। হযরত ঈসা (আ:) ও হযরত মূসা (আ:) খোলাফায়ে রাশেদা গড়তে পারেনি। তাঁরা দ্বীনের দ্রুত প্রসারও দিতে পারেননি। ফলে তাঁদের অনুসারীগণ কোন বিশ্ব শক্তি এ বিশ্ব সভ্যতাও গড়তে পারিনি। কারণ, তাঁরা ব্যর্থ হয়েছেন রাষ্ট্র গড়তে। হযরত মূসা (আ:)’র ব্যর্থতার মূল কারণ তাঁর অনুসারীদের সালাফি চেতনা। তাদেরকে যখন মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে নির্দেশ দেয়া হলো অধিকৃত কানানকে (ফিলিস্তিন) দখলদার মুক্ত করে সেখানে শরিয়তী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা দেয়ার, তারা বলেছিল, “হে মুসা, তুমি ও তোমার আল্লাহ গিয়ে যুদ্ধ করো, আমরা অপেক্ষায় রইলাম।” আজকের সালাফিদের ন্যায় সেদিনের  ইহুদী সালাফিদেরও যুদ্ধে গিয়ে শত্রুদের হত্যা করা ও নিজেদের নিহত হওয়ার কাজটি ভাল লাগেনি। তারা সেদিন নিজেদেরকে শান্তিবাদী রূপে জাহির করেছিল। তারা বেছে নিয়েছিল সামাজিক স্থিতিশীলতা ও শান্তির পথ। এরূপ বিদ্রোহের ফলে তাদের উপর নেমে আসে ভয়ানক আযাব। তাদের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছিল কানানে প্রবেশ; ৪০ বছর যাবত তাদেরকে সিনা উপত্যাকার মরুভূমিতে ঘুরতে হয়েছে। হযরত ঈসা (আ:)’র মৃত্যুর প্রায় ৩০০ বছর পর রোমান রাজা কন্সটান্টাইন নিজে খৃষ্টান হয়ে খৃষ্টান ধর্মকেই দারুন ভাবে কলুষিত করে। ধর্মের বলে নয়, বিশাল সামরিক বাহিনীর অস্ত্রের বলে সে তার রাজ্যের সকল প্রজাকে খৃষ্টান হতে বাধ্য করে। যারা খৃষ্টান হতে চায়নি তাদের হত্যা করে। সে নৃশংস স্বৈর শাসক পৌত্তলিক রোমান সংস্কৃতিকে খৃষ্টান ধর্মের ভিতরে ঢুকিয়ে দেয়। ফলে শুরু হয় পৌত্তলিক কায়দায় যীশুর মুর্তিগড়া ও গীর্জার মাঝে মুর্তিপূজা। কিন্তু সে দূষিতকরণের কাজটি ইসলামের ক্ষেত্রে হয়নি। কারণ ইসলাম যখন বেড়ে উঠে ও প্রতিষ্ঠা পায় তখন রাষ্ট্র স্বৈর শাসকদের হাতে অধিকৃত হয়নি। রাষ্ট্রের উপর দখল প্রতিষ্ঠা করেন খোদ নবীজী (সা:) ও তাঁর নিজের  হাতে গড়া মহান সাহাবাগণ। ইসলামের ইতিহাসে এটিই হলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পর্ব। এরই ফলে ইসলাম তার কুর’আনীক বিশুদ্ধতা নিয়ে বেড়ে উঠতে পেরেছে।

সব ধর্মেই রাজা-বাদশাহদের স্বভাব অভিন্ন। তারা কাজ করে নিজেদের শাসন বাঁচানোর এজেন্ডা নিয়ে, ধর্মীয় বিধানের সেখানে গুরুত্ব থাকে না। রোমান সম্রাটগণ খৃষ্টান ধর্মকে যেরূপ দূষিত করেছিল, ইসলামকেও সেরূপ দূষিত করেছে পরবর্তী কালের  স্বৈরাচারি মুসলিম রাজা-বাদশাহগণ। সেটি শুরু হয় রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা ইয়াজিদের ন্যায় স্বৈরাচারী শাসকদের হাতে কুক্ষিগত হওয়াতে। তখন ইমাম হোসেন (রা:)’র ন্যায় তৎকালীন ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ ব্যক্তি ও জান্নাতের যুব-সর্দারকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়। তখন সরকারের এজেন্ডা হয় ন্যায় ও সুবিচারের বদলে অন্যায় ও অবিচারের প্রতিষ্ঠা। সৌদি আরবের সালাফিগণ রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে যাদের অনুসরণ করে সেটি যেমন নবীজী (সা:)’র সূন্নত নয়, তেমনি খোলাফায়ে রাশেদারও নয়। তারা অনুসরণ করে ইয়াজিদ, হাজ্জাজ বিন ইউসুফের ন্যায় স্বৈরাচারী শাসকদের। অপরদিকে সালাফি মতবাদের দরবারী আলেমদের কাজ হয়েছে তাদের নৃশংস স্বৈরাচারকে সমর্থণ করা। মসজিদের ইমামদের কাজ হয়েছে এ দুর্বৃত্ত শাসকদের “জিল্লুল্লাহ” অর্থাৎ আল্লাহর ছায়া বলে মসজিদে মসজিদে খোতবা পাঠ করা। দেশ স্বৈরশাসকের দখলে গেলে মসজিদ ও ধর্মকর্ম কীরূপে দুর্বৃত্তদের অধীনে যায় -এই হলো তার নমুনা।

একজন মুসলিম শাসককে দেশ শাসনে সর্বদা ঈমানদারীর পরিচয় দিতে হয়। তাঁর এজেন্ডা হয়, দেশ থেকে দুর্বৃত্তদের নির্মূল, এবং ন্যায় ও সুবিচারের প্রতিষ্ঠা। অথচ সৌদি সালাফিদের কাজ হয়েছে নিজেদের শাসন বাঁচাতে মানব হত্যার ন্যায় জঘন্য অপরাধকে সংঘটিত করা। এরই উদাহরণ হলো, কিছু কাল আগে ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে প্রখ্যাত সৌদি কলামিস্ট জামাল খাসোগীর নৃশংস হত্যা। অথচ খোশেগী কোন সন্ত্রাসী ছিলেন না। কোন রাজনীতিকও ছিলেন না। তিনি শুধু তাঁর লেখাতে সৌদি নীতির সমালোচনা করতেন। তাঁকে হত্যা করার জন্য এক দল খুনিকে ইস্তাম্বুলে বিমান যোগে পাঠানো হয়। সৌদি কনস্যুলেটের মধ্যে জামাল খাসোগীকে খুন করে তার দেহকে কেমিক্যাল দিয়ে গলিয়ে দেয়া হয়। এ খুনের পরিকল্পনা ও নেতৃত্বের সাথে জড়িত ছিল যুবরাজ মহম্মদ বিন সালমান। নইলে কি সেই হত্যাকান্ড সৌদি কনস্যুলেটে সম্ভব হতো? যে খুনির প্রাণদন্ড হওয়া উচিত ছিল, সে খুনিই হতে যাচ্ছে সৌদি আরবে বাদশাহ। বিশ্বব্যাপী এ খুনের নিন্দা হয়েছে। কিন্তু সে খুনের নিন্দা হয়নি সৌদি সালাফি মহলে। বরং সেই খুনিকে “মোজাদ্দেদ” বলে বয়ান দিয়েছেন ক্বাবা শরীফের ইমাম এবং সালাফি মতের বিশেষ ধর্মীয় নেতা শেখ সুদায়সী। এই হলো সালাফি ইসলামের আক্বিদা। এবং এরাই নাকি মুসলিমদের আক্বিদাকে ত্রুটিমুক্ত করবে!    

নামায-রোযা প্রতিষ্ঠায় রক্তের খরচ হয় না, কিন্তু জান, মাল, মেধা ও শ্রমের বিপুল খরচ হয় ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায়। রাষ্ট্র পরিচালনায় মহান নবীজী (সা:) তাঁর ১০ বছরের শাসনে যে সূন্নতগুলির প্রতিষ্ঠা দিয়েছেন, প্রতিটি মুসলিম শাসককে সে সূন্নতগুলিরই প্রতিষ্ঠা দিতে হয়। সেগুলি বাদ দিয়ে নিজেরা ইচ্ছামত কিছু প্রবর্তন করাই হলো বিদয়াত। সৌদি সালাফিগণ বিদয়াতের বিরুদ্ধে যুদ্ধের কথা বলে, কিন্তু রাষ্ট্র পরিচালনার গুরুত্বপূর্ণ খাতে তারাই প্রতিষ্ঠা দিয়েছে রাজতন্ত্র ও স্বৈরশাসনসহ অসংখ্য বিদয়াত। প্রশ্ন হলো, সে বিদয়াতের বিরুদ্ধে সালাফিদের যুদ্ধ কই?

 

কেন এতো গণতন্ত্র বিরোধীতা

সালাফীগণ গণতন্ত্রের বিরোধীতা করে। কারণ দেখায়, নবীজী (সা:) গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা দেননি। প্রশ্ন হলো, নবীজী (সা:) কি তবে রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠা দিয়েছেন? রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠা দিয়েছেন কি খোলাফায়ে রাশেদাগণ? শরিয়তে মুহাম্মদীতে রাজতন্ত্রের কোন স্থান নাই। তাই সেদিন খলিফার পুত্র খলিফা হননি। অথচ সৌদি সালাফিগণ সূন্নতবিরোধী রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠা দিয়েছে। নবীজী (সা:)’র জীবদ্দশাতে গণতন্ত্রের প্রয়োজন ছিল না বলেই তিনি গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠা দেননি। গণতন্ত্র হলো সরকার নির্বাচন ও দেশ শাসনের একটি প্রক্রিয়া। নবীজী (সা:) নির্বাচিত হয়েছিলেন মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে। যখন শাসক নির্বাচনের ক্ষেত্রে মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে রায় এসে যায় তখন জনগণের রায় দেয়ার কোন হক থাকে না। সেটি হলে তাতে চ্যালেঞ্জ করা হয় মহান আল্লাহতায়ালার রায়ের বিরুদ্ধে।  হযরত দাউদ (আ:) এবং হযরত সুলাইমান (আ:) ছিলেন নবী। তারাও শাসক হিসাবে নিয়োগ পেয়েছিলেনর মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে। ফলে তাদের ক্ষেত্রেও জনগণের রায় দানের হক ছিল না। জনগণের রায় তো তখন লাগে যখন ওহী মারফত মহান আল্লাহতায়ালার রায় আসা বন্ধ হয়ে যায়। সে সমস্যাটি দেখা গিয়েছিল নবীজী (সা:)’র ওফাতের পর। তখন সাহাবাগণ সর্বসম্মতিতে একটি পদ্ধতি গড়ে তুলেন। সেটিই ছিল সাহবাদের এজমা তথা সন্মিলিত সিদ্ধান্ত। নিঃসন্দেহে সে পদ্ধতিটি রাজতন্ত্র ছিল না। সেটি ছিল শুরা ও বাইয়েত ভিত্তিক শাসক নির্বাচন। এভাবেই তারা সেদিন অস্ত্রের জোরে বা রক্তের উত্তরাধিকার সূত্রে ক্ষমতা দখলের পথ বন্ধ করে দিয়ে শাসক নির্বাচনের নতুন একটি পদ্ধতি গড়েন। এবং সে পদ্ধতির বাইরে যাওয়াই হলো বিদয়াত। অথচ সে বিদয়াত প্রতিষ্ঠা দিয়েছে সউদী রাজতন্ত্র।

সময়ের তালে যুদ্ধাস্ত্রের ধরণ, গুণ ও মানে ব্যাপক পরিবরর্তন এসেছে। নবীজী(সা:) নিজে ঢাল, তরবারী ও বর্শা দিয়ে যুদ্ধ করতেন। কিন্তু এখন নবীজী(সা:)সে সূন্নতটি যুদ্ধে প্রয়োগ হয়না। এখন প্রয়োগ হয় মেশিন গান, ট্যাংক, কামান, মিজাইল, বোমা ও যুদ্ধ বিমানের। বিজয়ের স্বার্থে তাই নতুন অস্ত্রকে বেছে নিতে হয়। সময়ের প্রভাবকে তাই এড়ানো যায় না। তেমনি প্রশাসনে জনগণের সম্পৃক্ততা বৃদ্ধির সাথে আধুনিক পদ্ধতি গ্রহণ করার বিকল্প নাই। খোলাফায়ে রাশেদার আমলে রাষ্ট্র মদিনা ভিত্তিক ছিল। জনসংখ্যাও ছিল কম। ফলে মুসলিমদের মাঝে পরামর্শ করা বা মতামত জানা সহজ ছিল। সহজ ছিল তাড়াতাড়ি বায়াতের আয়োজন করা। এখন রাষ্ট্রের বিস্তৃতি হাজার হাজার মাইল জুড়ে। ফলে দেশের কোটি কোটি নাগরিককে এক জায়গায় রায় গ্রহণের বা মতামত জানার জন্য একত্রিত করা সহজ নয়। জনমত জানার আধুনিকতম পদ্ধতি হলো তাদের রায়শুমারী। এছাড়া অন্য যে দুটি পদ্ধতি অবশিষ্ঠ থাকে তার একটি হলো রাজতন্ত্র এবং অপরটি হলো যুদ্ধবিগ্রহ করে ক্ষমতা দখল। সাহাবায়ে কেরামের সময় সে দুটি পদ্ধতিই বিভিন্ন দেশে প্রতিষ্ঠিত ছিল। কিন্তু নবীজী (সা:)’র মহান সাহাবাগণ সে দুটি পদ্ধতি কোনটিই গ্রহণ করেননি। ফলে আজ সে পরিত্যক্ত দুইটি পদ্ধতি গ্রহণযোগ্য হয় কি করে?

গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে সালাফিদের যে অভিযোগ, সেটি নবীজী (সা)’র সূন্নতের প্রতি দরদের কারণে নয়, বরং সে আচরণটি স্বৈরাচারী রাজা বাদশাহদের প্রতি দরদের কারণে। গণতন্ত্রকে তারা বিদয়াত বলে, কিন্তু রাজতন্ত্রকে বিদয়াত বলে না। ইসলামই প্রথম রাজতন্ত্রকে দাফন করে গড়ে তোলে খেলাফত প্রথা। পাশ্চাত্য জগতে গণতন্ত্র আবিষ্কারের ১৩ শত বছর আগেই ইসলাম জনগণকে ইজ্জত দেয়। এভাবে শুরু থেকেই ইসলাম জনগণের ক্ষমতায়ন করে এবং তাদের রায়ের গুরুত্ব দেয়। কিন্তু রাজা-বাদশাহগণ সব সময়ই জনগণকে শত্রু মনে করে। জনগণের সে ইজ্জত ও ক্ষমতা এজিদগণ প্রতি যুগেই কেড়ে নিয়েছে। এবং প্রতিষ্ঠা দিয়েছে হারাম রাজতন্ত্র। ইয়াজিদের সে হারাম সূন্নত নিয়েই দেশ শাসন করছে সৌদি রাজবংশ।

সালাফিদের শত্রুতা তাই শুধু গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে নয়, বরং তাদের প্রকৃত শত্রুতাটি জনগণের রায়ভিত্তিক যে রাজতন্ত্র বিরোধী পদ্ধতিটি ইসলাম শুরু থেকেই গড়ে তুলেছিল তার বিরুদ্ধে। সৌদি সালাফিগণ এজন্যই গণতন্ত্রের এতো বিরোধী। এভাবে তারা দীর্ঘায়ীত করছে মুসলিম বিশ্বে দুর্বৃত্তদের স্বৈরশাসন ও বাড়িয়ে চলেছে জনগণের নিদারুন দুর্গতি। এবং বাধাগ্রস্ত করছে ইসলামী রাষ্ট্রের নির্মাণ ও শরিয়তের প্রতিষ্ঠা। এভাবেই তারা অসম্ভব করছে নবীজী (সা:)’র প্রবর্তীত সনাতন ইসলামের দিকে মুসলিম জনগণের ফিরে যাওয়া। ২৪/০৯/২০২১।

 

 




Thoughts on the calamity of 1971

Dr. Firoz Mahboob Kamal

The earned occupation

Some alarming news is circulating in the media. Now in police, civil administrations and ministerial secretariats of Bangladesh, Hindus are getting jobs at disproportionately higher proportion than the Muslims. Hundreds of thousands of Indians are working legally or illegally in Bangladesh. Now it is no secret that Shaikh Hasina’s government is doing everything to appease the Hindu minority. She takes it as a strategy to appease the Hindutva rulers in Delhi – her real masters and promoters in politics. Muslims are about 15 percent in India, but in government services, they are only about 3 percent. The exclusion of Muslims from government jobs is the government policy since independence of India in 1947. The ruling party gets changed but the anti-Muslim policy stays.

The same Hindutva policy of excluding Muslims is working in Bangladesh. The Indian occupation is taking place in every form and everywhere in Bangladesh. India could take transit through Bangladesh. It enjoys access to the country’s sea ports. It withdraws water from more than 50 rivers. It can kill any number of unarmed Bangladeshis on the border; but it can’t dare kill Pakistanis or Nepalese or Bhutanese in the same way. But the Bangladesh government maintains its conspicuous silence. As if the caged pigeon has no choice. What else could be the worst symptoms of the Indian occupation? Even those who fought against Pakistan shoulder to shoulder with the Indian Army are raising the voice against such occupation.

War of a country has never been a charity for any other country or people. It is an investment of money and blood. War is always used as a tool of geopolitical dominance.  Hence, India’s war in 1971 was not a gift for Bengali people. It was not only to dismember Pakistan; but also to put a shackle at the neck of the Bangladeshis. It was not only to dismember and weaken Pakistan –its arch enemy; but also to put a shackle at the neck of the Bangladeshis. It was to capture the greatest market for Indian goods in Bangladesh. It was also to use its soil as a backyard and logistic route to fight its war against the insurgency in Hindu deficient north-eastern seven states. But the secularised Bengalis foolishly believe that India fought for their independence. They yet fail to understand that they earned only occupation and not independence.

To live with geopolitical independence is the most costly enterprise in the world. For that, Pakistan had to bear economic hardship to make nuclear bombs. The European countries had to form the European Union and join NATO to minimise the cost of defence. For the same reason, the wise Bengali Muslim leaders of the 1940s forged unity with the West Pakistanis to form united Pakistan. But Shaikh Mujib -like Mir Zafar of the 1750s had only one agenda; it was to grab power by any means. Defence or independence of Bangladesh wasn’t not an issue for him. He was even ready to accept slavery of India if he is kept in power. This is why he became part of the India inspired Agartala conspiracy in the 1960s. Her daughter Hasina is following the same strategy. And India, too, knows very well that Bangladesh will never have the ability to bear the huge cost of defence against India. Bangladesh possesses only one option and that is to accept the Indian hegemony. In fact, Tajuddin’s acceptance of 7 point and Mujib’s acceptance of 25 point treaty of surrender with India testify to such vulnerability.

Shaikh Mujib: the icon of betrayal

In 1966 in Lahore, when Shaikh Mujib declared a 6 point formula, there was an apprehension in the political circle that it would break Pakistan. But Mujib responded to that allegation by telling that the 6 point formula will not break rather strengthen Pakistan. But the reaction inside Awami League was quick. Out of 17 districts of East Pakistan, in 13 districts the Awami League leaders resigned from the party in protest. It was on 11 January 1970, the first election rally of Awami League was held in Dhaka’s Race Course Ground (now called Suhrawardy Uddayan). I was there. Mujib told emphatically, “I am blamed that I want to break Pakistan. (He asked people) You raise the slogan Pakistan Zindabad so loud that it reaches Rawalpindi.” It was again on the same ground on 10 January 1972. After the return from Pakistani jail, Mujib said, “My struggle for liberation of Bangladesh didn’t start in 1971. It was from 1947. This is the level of his betrayal and hypocrisy. This time I was not present on the ground, but listened to the whole speech as it was put on live broadcast on the radio.

Professor GW Chowdhury was the former professor of political science in Dhaka University. He was the federal minister of President General Yahiya Khan cum his political adviser. He wrote in his book “The last days of united Pakistan ” that Pakistan military intelligence handed over a cassette to Yahiya that revealed Mujib’s plan in his own voice about the dismemberment of Pakistan in a circle of his closed comrades. But Yahiya was so much mesmerised by Mujib’s false promise that he will be made the constitutional President of Pakistan, he ignored the first proof of his treachery. Rather General Yahiya took a policy of appeasing Mujib. He allowed him to let loose his murderous fascist thugs on the streets of East Pakistan to dismantle political rallies of all the parties that were committed for united Pakistan. The election rallies of Fazlul Qader Chowdhury’s Muslim League, Nurul Ameen’s Pakistan Democratic Party and Jamaat-e-Islami in Dhaka’s iconic Paltan Maidan were totally vandalized by the Awami League thugs. On 18 January 1970, two workers of Jamaat-e-Islami were killed and hundreds were injured in its election rally there. The venue of carnage was adjacent to the Governor House. None was arrested or prosecuted.  Such vandalism took place all over East Pakistan against pro-Pakistani parties. The Governor House of Governor Admiral Ahsan was the regular gossip centre of the Awami League leaders. Dr. Kamal Hussain -a close comrade of Mujib and later the Foreign Minister of Bangladesh was a regular guest -as her daughter told one of friends while studying in one of the British universities. So Shaikh Mujib won the election before Election Day. Because of close collaboration with Yahiya’s government, Mujib won the number of seats that he never thought of.   

The separation of East Pakistan was never mentioned in Mujib’s electoral campaign. He fought the 1970 election on the issues of provincial autonomy, poverty and eradication of regional disparity. He gave electoral promise to bring down the rice price to 0.50 taka per ser (a ser is equal to almost a kilo). These promises were highly popular issues to catch votes. Hence in election, these lucrative promises worked. But when Mujib won the election, he changed the goal post. On the last day of the dialogue on 23 March 1971, Mujib asked President General Yahia Khan to withdraw martial law from East Pakistan and hand over power to him. He was no more interested to form the constitution of Pakistan, neither to form central government. Whereas prior to the election, Shaikh Mujib –like all other parties signed the 8 point legal frame work (LFW) which required framing a constitution of Pakistan in 120 days prior to handover of the power to a civil government. But Mujib disobeyed the agreement; thus betrayed his own written promise. Acceptance of Mujib’s demand was tantamount to dismemberment of Pakistan. So a negotiated settlement failed.

 

The fortunate India

India is working with the strategy to occupy Bangladesh from 1947. It was a great success in 1971. India is fortunate to get millions of armed and unarmed collaborators to execute its strategy. India didn’t get such collaborators in other neighbouring countries –not even in Hindu majority Nepal. It is a shame that most of the Bangladeshis couldn’t see India’s covert and overt agenda. It is also a shame that they took a proven Indian agent and the killer of democracy as the father and friend of Bengalis (father of nation and bangabandhu).  

Not surprisingly, the de-Islamised secularists and the Bengali nationalists celebrate Indian occupation as liberation. They sing a song of an idol worshiper like Indian Tagore as the national anthem. In 1972, India withdrew its occupational forces but had enough internal collaborators to sustain the Indian occupation. So to kill anti-Indians like Abrar Fahad of BUET, India didn’t need to send any Rashtriya Sevak Sangh (RSS) thugs, the Bangladesh branch of RSS does the job. They can kill and kidnap anybody from anywhere in the country.

 

Telling the truth: a holy jihad

The de-Islamised and secularised collaborators of India have successfully killed truth in Bangladesh. In a Tsunami of lies even a university professor sells popular lies of 1971’s 30 million deaths with a loud voice and a pious man feels hesitant to speak even the simple and straightforward truth. In Bangladesh, most of the people analyse political events of 1971 with a prism of Bengali nationalism and secularism. Their nationalist and secularist prisms help them hide even the horrendous crimes of the Bengali nationalists. They can’t see the genocide of Bihari men, women and children, the rape of the non-Bengalis women, and the killing of thousands of unarmed pro-Pakistani razakars in 1971.

If anyone of Bangladesh sees things through an Islamic perspective, he or she is blamed to have Pakistani prism and labelled as razaker. Whereas in any form of analysis, to have an Islamic prism is an Islamic obligation. A Muslim differ from a non-Muslim not only in beliefs but also in prisms of visualising and analysing facts. In fact, faith in Islam brings changes not only in beliefs and lifestyle, but also in ideological perspectives of the embedded prism. This is why the people of different beliefs living in the same place don’t see things the same way. This is why an Islamist sees differently from a secularist, liberalist or a nationalist. 

We must tell the most unpalatable truth about 1971. Even a thief can tell a popular truth to raise his credibility in society. But a man who offers five prayers and keeps a month-long fasting may not say the most unpopular truth. There is a risk of being abused or killed by the false mongers. Even the great Prophet (peace be upon him) was labelled as lunatic for telling the truth. It is the reality that terrorism works not only in politics but also in the intellectual discourse. Bangladesh is under the rule of the worst cultural and intellectual terrorists. All the books that are written on the events of 1971 tell the narratives of Awami League. Those who differ with their fabricated story are not allowed to publicise their views. This is intellectual fascism.

This is why telling truth is given and extra credit in Islam.  It is jihad in Islam. Allah Sub’hana wa Ta’la gives reward for those who take the risks of telling the most unpopular truth. In the history of Bangladesh there are many such truths that are hidden and rarely told in public. And a lie can only survive if truth is suppressed. A lot of lies have been manufactured around the events of 1917. The lie of the liberation of Bangladesh by Mukti Bahini, 3 million deaths and 300, 000 rapes could get a huge market only because the truth has been suppressed. It is claimed that Mukti Bahini has liberated Bangladesh but it is not said that they could not liberate a single district and not even sub-district (mahakuma), let alone the whole Bangladesh. East Pakistan was taken over by the Indian Army and not by Mukti Bahini. The people have been listening to that fabricated stuff all the time since 1971 both from Bangladesh Awami League (BAL), Bangladesh Nationalist Party (BNP) and other secular camps.   

The haram politics

A Muslim must have his or her politics fully halal like halal foods and drinks. There must not be any compromise on that. Taking haram food is the rebellion against the order of Allah Sub’hana wa Ta’la; hence it makes a man kafir. Likewise, haram politic is the disobedience of Allah’s guidance in statecraft; hence it also makes one kafir. This is why secularist and nationalist politics are haram in Islam. These are sheer ideological corruption and disobedience. A Muslim must incorporate all the Islamic guidance in his politics. There is no scope of excluding any Islamic rule from any space of life –be it political or non-political. It is the full submission to Islam. It is the Qur’anic decree: “ud’khulu fis slime ka’ffa” (enter into Islam fully). Hence nothing of life should be outside the rule of Islam.

But a secularist doesn’t give space for the implementation Islamic principles in politics, judiciary, culture, dress code and other affairs. They call it medieval barbarism. They call it communalism and superstition. This is exactly happening in Bangladesh. They are restrictive against Islam. So the secularists become monarchist, fascist, nationalist, socialist and liberalist. Unfortunately, like prostitution and riba (interest) this haram stuff like secularism, nationalism, and liberalism thrive in countries like Bangladesh. Trading such evil ideologies has become a staple of the secularist parties like Bangladesh Awami League (BAL) Bangladesh Nationalist Party (BNP) and many other secular parties.  

In the secular paradigm even adultery (jina) is appreciated as love if done with consent. But in Islamic paradigm, it is punishable by stoning to death in public if they are married. Those who are unmarried have to face lashes. Those who disagree with such Qur’anic verdict instantly turn to be kafir -as revealed in surah Maida verse 44. The same is true about breaking a Muslim country.  It is a punishable crime by death. If not punished here, will be punished in the hereafter. Pakistan was not a perfect Islamic state. But it was Muslim state. A house may have some poisonous snakes in it. For that, the house must not be burnt. Instead, the snakes should be killed. The same is about a Muslim state. The Umaiya, Abbasiya and Osmani caliphates were not perfect Islamic states like khulafa-e Rashida. Even some rulers burnt kabah. Despite all the inadequacies, no believer tried to dismember those caliphates; so the caliphate survived for more than 13 hundred years. The Muslim Army had to fight wars only on the frontiers against the alien kuffars, they didn’t face any internal separatists. Later on it became the crime of the nationalist devils and in 1971, Pakistan too, had to face them. But the secularists don’t bother about sharia. They only want power by any means –even aligning with the kuffars, as Mujib and his comrades did in 1971. The Arab World is divided into 22 states. But that is not Islamic, it is the sign of old Arab tribalism. The crimes of Arabs cannot justify the crimes of Bengalis in 1971. 

Politics is an ibadah in Islam. It must be used as a tool only to please Allah Subhana wa Tala by bringing victory to Islam and Muslims. In Islam, politics is not power-grabbing enterprise; it is a holy jihad to defend Islamic ideology, sharia and the Muslim land. It must not be used to appease any national, tribal, personal or party aspirations. 

So a true Muslim always does politics to build and expand a Muslim country and never engage to break it. This is why in 1971, not a single Islamic party or a single alim supported the break of Pakistan. They all called it haram. 

Breaking Pakistan was the project of India and pro-Indian BAL, NAP, communist party and Hindus. Of course they won; but that doesn’t mean that they were right. Victory is never a marker of rightfulness. Many devils like Pharaoh won and ruled for long years in history. A Hindu never supports any good for the Muslims. India’s support in 1971 proved that it was wrong and harmful for the Muslims.

The lost opportunity

Pakistan has its own problems. But the Bengalis -the majority of Pakistan didn’t try to help solve those problems. Rather the nationalist and secularist Bengalis abused those problems to fulfil the Indian agenda and their own narrow parochial goal. Serving Islam and the Muslims didn’t receive any priority in Mujib’s politics in 1971. 

Pakistan was the largest Muslim country in the world and now a nuclear power. Pakistan gave the Bengali Muslims a golden opportunity to shine in the world and play a significant role in world politics. Breaking Pakistan was not the solution of the problems of Bengali Muslims, it could be strengthened by democratisation. Pakistan’s strength was Bengali Muslims’ strength. But fascist Shaikh Mujib and his ilk didn’t have any iota of love for democracy. He proved that while got power. He harmed both Pakistan and Bangladesh. Now Pakistan has achieved the democratic goal but democracy is dead in Bangladesh. 

The BAL people described East Pakistan as a colony of West Pakistan. It is totally wrong. The man who sat on the chair of the Head of the State of Pakistan after the death of Jinnah was Khawja Nazimuddin of Dhaka. Pakistan had three Bengali Prime Ministers in 23 years. But these BAL Bengalis do not understand what colonial rule does mean -although Bengal had the longest colonial rule in the whole span of the Muslim history. The Bengalis enjoyed more democracy in Pakistan than in Bangladesh. The politics of naked fascism, killing political opponents, forced disappearance, hanging through fabricated trials as currently inundate Bangladesh didn’t exist in Pakistan.  

As a Muslim, one must try to be a pan-Islamist. Any secularist or nationalist inclination must not enter into believers’ hearts. This is an Islamic obligation. A true believer must hate to be a nationalist as he or she hates idol worshipping. It doesn’t need any moral strength or ideological correctness to flow with the wave of toxic nationalism, even a thief or killer can amply follow such a political trend. But it is haram in Islam. If a Muslim is alone, even then he or she must stand against such a deviant trend. 

So my analysis on 1971 definitely differs from that of those who are nationalist, secularist and non-conformist with Islam. My cherished Muslimness is responsible for such a distinctiveness from others. I admire those wise Bengali Muslim leaders of the 1940s who created a golden opportunity for the Bengali Muslim to play a significant role in the global stage by building the largest Muslim Country in the world. 

In February 2020, I went to present a research paper in an international conference arranged jointly by the University of Paris and the University of Normandy. I felt very proud as a Bengali while an Indonesian professor in his paper on Bandung Spirit in non-aligned movement mentioned the name of Bengali Mohammad Ali Bogra who attended the NAM conference in Bandung in Indonesia as the Prime Minister of Pakistan -along with Prime Minister Nehru, President Naser, President Shukarno, Marshal Tito and many others. In that hall, it came to mind that the Bengali Muslims could have played a more important role on the world stage if they had been a part of Pakistan. At least they could escape the ongoing Indian hegemony. Those who damaged that golden opportunity in 1971 will face harsh condemnation if not today at least a hundred years later. 

The new hope and the challenge

However, the paradigm in the Muslim World is rapidly shifting. The nationalists and secularists are now recognised as the deviants and internal enemies of the Muslim Ummah. Even a school kid with little Islamic knowledge understands that. All the damages that are done to the Muslim Ummah in the recent history are done by these nationalists and secularists and not by the non-Muslims. Those who have love for Islam understand their crimes. Once, Mr. Sharif Musaddeque of Iran was a great hero of the Iranian nationalists. He was an elected Prime Minister of Iran in 1953 and admired for ousting the King Mohammad Reza Shah Pahlavi and nationalising Iranian oil. After the revolution in 1979, the famous road of Tehran was immediately renamed after him. But now he lives only in the midst of historical garbage. His crime is nothing but adherence to secularism and Iranian nationalism. In the near future, the nationalists and secularists will face the same fate all over the Muslim Ummah. 

So the Mujib’ite or the Zia’ite Mukti Bahini people who danced with the victorious Indian Army in 1971 and killed thousands of innocent Bengali and non-Bengali people for their love for Islam and Pakistan will be condemned for their heinous crime against Islam and Muslims.  In the history of Islam they will be remembered as the destroyers of the largest Muslim Country of the world and for serving Hindutva agenda of India. In every age Satan gets his own agents to harm Islam and the Muslims. Once they were the Mongol killers, the Christian crusaders and the European colonists. They caused horrors of genocides, plunders and destructions in the Muslim World. Now the new crops of criminal agents are the home-grown nationalists, racists and secularists. The most potential political structure of Islam like Osmania caliphate and Pakistan are damaged by these criminals. They are still active in all Muslim countries. Every Muslim has a moral duty to take the fight against these criminals. 22/09/2021   




স্বাধীনতার বসন্ত কীরূপে সম্ভব বাংলাদেশে?  

ফিরোজ মাহবুব কামাল

অধিকৃতি অসভ্য শক্তির

বাংলাদেশের জন-জীবনে চলছে দুর্বৃত্ত শাসনের নৃশংস বর্বরতা। চলছে চুরি-ডাকাতি, ভোটডাকাতি, গুম, খুন, ধর্ষণ, সন্ত্রাস ও ফাঁসীর রাজনীতি। চলছে ভারতের প্রতি আত্মসমর্পিত গোলামী। বাঙালী জনগণ এরূপ অসভ্য শাসন কোন কালেই দেখেনি। এমন কি ঔপনিবেশিক ব্রিটিশ আমলেও নয়। হাসিনার সবচেয়ে বড় সাফল্য হলো সে তার নিজের, তার নিজ পিতার ও তাদের প্রভু ভারতের কদর্য চেহারাকে অতি উলঙ্গ রূপে বাংলাদেশের জনগণের সামনে  তুলে ধরেছে। হাসিনা ও তার সঙ্গিরা যে কতটা নৃশংস দুর্বৃত্ত -সেটি বুঝানোর জন্য কোন রাজাকারের বই বা বক্তৃতা দেয়ার প্রয়োজন নাই। হাসিনা নিজেই সেটি তার কর্ম ও আচরণের মধ্য দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে। এতো কুখ্যাতি স্বৈরাচারি আইয়ুব বা এরশাদেরও ছিল না। তাদের রাজনীতিতে এরূপ গুম, খুন, ধর্ষণ ও ফাঁসি ছিল না। মুজিবকে ভারতের চর জেনেও পাকিস্তানী কর্তৃপক্ষ তার গায়ে একটি আঁচড়ও দেয়নি। বরং মাসিক ভাতা দিয়েছে তার পরিবারকে। 

মানুষকে চেনার শ্রেষ্ঠ উপায়টি হলো তার বন্ধুদের চেনা। কারণ বন্ধু নির্বাচনের ক্ষেত্রে সবাই নিজের চেতনা ও চরিত্রের সাথে সম্ভাব্য বন্ধুর মনের ও চরিত্রের মিলটা দেখে। মদখোর ব্যক্তি তাই মদখোরকে বন্ধু রূপে বেছে নেয়। ডাকাত বন্ধুত্ব করে ডাকাতের সাথে। তেমনি ইসলামের দুশমন বেছে নেয় ইসলামের জঘন্যতম দুশমনকে। মনের ও চরিত্রের সে গভীর মিলটার কারণেই হাসিনার ঘনিষ্ট বন্ধু হলো ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। নরেন্দ্র মোদীর ৭১তম জন্ম দিনে ৭১টি গোলাপ দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়ে হাসিনা সে বন্ধুত্বের প্রমাণ রেখেছে। তাই খুনি নরেন্দ্র মোদির চরিত্র দেখে বুঝা যায় হাসিনার আসল চরিত্র। মনের এ মিলের জন্যই ইসলাম ও মুসলিমদের দমিয়ে রাখার যুদ্ধে নরেন্দ্র মোদীর ঘনিষ্ট পার্টনার হলো ভোটডাকাত হাসিনা।

নরেন্দ্র মোদীর হাতে হাজার হাজার মুসলিমের রক্ত। মোদী যখন গুজরাতের মুখ্য মন্ত্রী ছিল তখন প্রায় ৩-৫ হাজার মুসলিম নারী, পুরুষ ও শিশুকে হত্যা করা হয়। মোদী সে মুসলিম নিধন বন্ধ করতে পুলিশ পাঠায়নি। মুসলিমদের ঘরে আগুন দিয়ে সে আগুনে জীবন্ত শিশুদের নিক্ষেপ করা হয়। শত শত মুসলিম মহিলাকে ধর্ষণ করা হয়। ভারতীয় পত্রিকাতেও সে খবর ছাড়া হয়েছে। মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে দাড়ি রাখা বা মাথায় টুপি দেয়ার জন্য পথে ঘাটে মুসলিমদের উপর নির্যাতন করা হয়। বাবরী মসজিদ ধ্বংসের নেতৃত্ব দিয়েছিল এবং গুন্ডা সংগ্রহ করেছিল মোদী। এখন নাগরিকত্ব রেজিস্ট্রীভূক্ত করার নামে ষড়যন্ত্র করছে লক্ষ লক্ষ মুসলিমদের বাংলাদেশী বহিরাগতের লেবেল লাগিয়ে ভারত থেকে বহিস্কারের।

 

দায়িত্ব দুর্বুত্তদের ইতিহাসকে বাঁচিয়ে রাখার

সমাজকে সভ্যতর ও নিরাপদ করার স্বার্থে শুধু ভাল মানুষদের চিনলে চলে না, মানবরূপী হিংস্র পশুদেরও চিনতে হয়। চিনিয়ে দেয়ার কাজটি বুদ্ধিজীবীদের। এটি নিশ্চিত করা, মানবরূপী দানবগণ যে কতটা অমানুষ, নৃশংস ও দুর্বৃত্ত হতে পারে ইতিহাসের পাঠকগণ যেন হাসিনার কাহিনী পড়ে যেন জানতে পারে। বর্বরতার এরূপ ইতিহাস তুলে ধরাটি মহাজ্ঞানী মহান আল্লাহতায়ালার সূন্নত। মহান আল্লাহতায়ালা ফিরাউনের নৃশংসতার ইতিহাস পবিত্র কুর’আনে লিপিবদ্ধ করে তা ক্বিয়ামত অবধি বাঁচিয়ে রাখার ব্যবস্থা করেছেন। এখানে লক্ষ্য, মানুষ যাতে হিংস্র পশুদের চেনার সাথে নৃশংস দুর্বৃত্তদের চিনতেও ভূল না করে। তাই মহান আল্লাহতায়ালার পবিত্র সূন্নত হলো এসব দুর্বৃত্তদের নৃশংসতার বিবরণগুলি ইতিহাস থেকে কখনোই হারিয়ে না যেতে দেয়া।

ইতিহাসে শেখ হাসিনা শত শত বছর বেঁচে থাকবে তার পিতার ন্যায় নৃশংস বর্বরতার কাহিনী নিয়ে। আজ থেকে বহু শত বছর পর বাঙালী প্রজন্ম যখন ইতিহাসের বই পড়বে তখন তারা বিস্মিত হবে ও ধিক্কার দিবে একথা ভেবে, বাংলার মাটি এমন বর্বর, অসভ্য ও নৃশংস অমানুষও জন্ম দিতে পারে! এবং বিব্রত হবে এ দেখে, হাসিনার ন্যায় এ অমানুষগণ গুম, খুন, ধর্ষণ, ফাঁসি ও মিথ্যচারকেও রাজনীতির হাতিয়ার বানিয়েছিল! এরাই গণ্য হবে দুর্বৃত্ত মানুষদের আইকন রূপে। তাই দায়িত্ব হলো, শেখ হাসিনার বর্বরতার এ কাহিনীগুলোক ইতিহাসে বাঁচিয়ে রাখা।

কাশ্মির ও ভারতের মজলুম মুসলিমদের দুঃখ-বেদনা হাসিনা মনে সামান্যতম সহানুভূতি সৃষ্টি করেনি। বরং সেগুলি অভিন্ন মিশনে ঘনিষ্টতর করেছে খুনি নরেন্দ্র মোদীর সাথে হাসিনার বন্ধুত্বকে। এ কলংক বাংলাদেশীদের জন্যও। হাসিনার কারণেই বাংলাদেশের নাগরিকগণ ভারতীয় নির্যাতিত মুসলিমদের পক্ষে দাঁড়াতে পারছে না। তাদের পক্ষে কথা বলা ও রাস্তায় মিছিল করাও হাসিনা নিষিদ্ধ করেছে। কথা বললে আবরার ফাহাদের ন্যায় তার দলীয় গুন্ডাদের হাতে লাশ হতে হয়। নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফর কালে হাজার হাজার পুলিশ রাস্তায় নামানো হয় মোদী বিরোধী মিছিল বানচাল করতে।

 

মুসলিম ইতিহাস ও বাঙালী মুসলিমের ইতিহাস

মুসলিমদের ইতিহাস তো বড় বড় সাম্রাজ্য ও বিশ্বশক্তি নির্মূলের ইতিহাস। ইতিহাসটি সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতা নির্মাণের। রোমান সাম্রাজ্য, পারসিক সাম্রাজ্য, সোভিয়েত সাম্রাজ্য ও মার্কিন সাম্রাজ্য –এরূপ বড় বড় বিশ্বশক্তিকে পরাজিত করতে পেরেছে একমাত্র মুসলিমগণই। সমগ্র বাংলাকে জয় করেছে মাত্র ১৭ জন মুসলিম সৈনিক। এসবই ইতিহাস। এসব বিজয় এসেছে একমা্ত্র মহান আল্লাহতায়ালার সাহায্যের ফলে। যারাই মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনের বিজয় ও মুসলিমদের ইজ্জত বাড়াতে খাড়া হয়, তাদের বিজয় বাড়াতে তিনিও নিজের বাহিনী দিয়ে সাহায্য করতে সদা প্রস্তুত। সে প্রতিশ্রুতির কথা তো পবিত্র কুর’আনে বার বার এসেছে। তাই  ভারত কেন, বিশ্বের ৫০টি দেশের সন্মিলিত বাহিনী পরাজিত করাও তখন সহজ হয়ে যায়। সম্প্রতি তালেবানগণ তো সে ঐতিহাসিক সত্যটিই চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিল। তারা যে শুধু মার্কিনীদের হাতে গড়া ৩ লাখ সৈন্যের আফগান বাহিনীকে পরাজিত করেছে -তা নয়। তারা পরাজিত করেছে মার্কিন নেতৃত্বাধীন ৫০টি বেশী দেশের সেনা বাহিনীকেও। ফলে ২০ বছর যুদ্ধ করেও তারা জিততে পারিনি।  

অথচ পরিতাপের বিষয় হলো বাঙালী মুসলিমগণ ইতিহাস গড়েছে ভিন্ন পথে। বিগত ১৪ শত বছরের মুসলিম ইতিহাসে বাঙালী মুসলিমগণই একমাত্র মুসলিম জনগোষ্ঠি যারা যুদ্ধ করেছে পৌত্তলিক কাফের শক্তির কমান্ড মেনে নিয়ে তাদের অনুগত তাবেদার রূপে। তাদের অর্থে ও খাদ্যে প্রতিপালিত হয়ে। এবং সেটি একটি কাফের শক্তির এজেন্ডা পূরণে বিশ্বের সর্ববৃহৎ মুসলিম রাষ্ট্র পাকিস্তানকে খণ্ডিত করে। সেটি করেছে ১৯৭১’য়ে মুজিবের ন্যায় একজন ইসলাম বিরোধী ভারতীয় গোলামের নেতৃত্বে। এবং ভারতীয় সে দাসকে সন্মানিত করেছে জাতির পিতা ও বঙ্গবন্ধু রূপে। বাঙালী মুসলিমের পৌত্তলিক তোষণের এ জঘন্য পাপ কি মহান আল্লাহতায়ালার খাতায় লিপিবদ্ধ হয়নি?

অথচ মুসলিম জীবনে শুধু উপার্জন ও পানাহার হালাল হলেই চলে না, হালাল হতে হয় তার রাজনীতি, যুদ্ধবিগ্রহ ও জন্ম। রাজনীতি ও যু্দ্ধবিগ্রহে কোনটি হালাল এবং কোনটি হারাম তা সুনির্দিষ্ট করে দিয়েছেন খোদ মহান আল্লাহতায়ালা। এবং সেটি পবিত্র কুর’আনে। কোন পৌত্তলিক কাফেরদের কমান্ড মেনে নেয়া দূরে থাক তাদেরকে বন্ধু রূপে গ্রহন করাকে মহান আল্লাহতায়ালা কঠোর ভাবে হারাম করেছেন সুরা মুমতাহিনার ১ নম্বর আয়াতে এবং সুরা আল ইমরানের ২৮ নম্বর আয়াতে। অথচ সে হারাম কাজের মধ্য দিয়েই ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের জন্ম। সে হারাম জন্ম ও ভারতের বিজয় নিয়ে আজ বাঙালী মুসলিমের প্রতি বছরে বিশাল উৎসব। কাফেরদের বিজয়কে তারা নিজেদের বিজয় রূপে দেখে। ১৪ শত মুসলিম ইতিহাসে কখনো কি এমনটি হয়েছে? মুসলিমের মুখে যারা কালিমা লেপন করে এবং পৌত্তলিক কাফেরদের উৎসব  বাড়ায়, তাদেরকে কি আল্লাহতায়ালা কখনো সুখ বা আনন্দ দেন। তখন তো তাদের পাওনা হয় শেখ মুজিব ও শেখ হাসিনার ন্যায় দুর্বৃত্তদের শাসন। তখন জুটে ভারতের ন্যায় কাফের শক্তির গোলামী। জুটে দুর্ভিক্ষ। এবং জুটে আন্তর্জাতিক অঙ্গণের তলাহীন ভিক্ষার ঝুলির অপমান। বাংলার ইতিহাস এরূপ নৃশংস বর্বর শাসন ও এরূপ বিশ্বজুড়া অপমান কি আর কোন কালে জুটেছে? এসবই তো একাত্তরের অর্জন। এবং তা নিয়েই বাঙালীর অহংকার ও উৎসব।

প্রতিটি হারাম কাজই প্রতিশ্রুত আযাব ডেকে আসে। ভাল ফসলের ন্যায় ভাল নেতাও মহান আল্লাহতায়ালার বিশেষ নেয়ামত। মহান রাব্বুল আলামীন শুধু ভূমিকম্প, ঘুর্ণিঝড়, সুনামী বা মহামারী দিয়ে আযাব দেন না, আযাব দেন জালেম শাসককে ঘাড়ে চাপিয়েও। মহান রাব্বুল আলামীনের অনুমতি ছাড়া গাছের একটি পাতাও পড়েনা। তাই তাঁর অনুমতি ছাড়া এরূপ বিশাল ও ভয়ানক কান্ডগুলি কি কখনো ঘটতে পারে? অবাধ্য ইহুদীদের ঘাড়ে তাই বার বার চাপানো হয়েছে নৃশংস জালেমদের শাসন। সুরা মুমতেহানার ৫ নম্বর আয়াতে উল্লেখ করা হয়েছে হযরত ইব্রাহীম (আ:) জালেম শাসনের সে আযাব থেকে বাঁচতে তিনি কীরূপ দোয়া করেছিলেন। তাই ভারতের গোলামী এবং মুজিব ও হাসিনার নৃশংস শাসন বাঙালী মুসলিমের জীবনে নিয়ামত রূপে আসেনি, এসেছে হারাম রাজনীতির কারণে অর্জিত আযাব রূপে। এরূপ জালেম শাসকগণ নৃশংস শাসন, শোষণ, গণহত্যা, ধর্ষণ, চুরিডাকাতি ও সন্ত্রাস উপহার দিবে -সেটিই কি স্বভাবিক নয়? তাই যতদিন হারাম রাজনীতি বেঁচে থাকবে ততদিন আযাবও আসতে থাকবে। তখন দুর্বৃত্ত মুজিব বা হাসিনার পতন বা মৃত্যু হলে আরেক হাসিনাকে ক্ষমতায় বসানো হবে প্রাপ্য আযাবকে দীর্ঘায়ীত করা প্রয়োজনে।

 

বিপ্লবের মোক্ষম লগ্ন

মহান আল্লাহতায়ালা যেমন অর্জিত আযাবগুলি নিশ্চিত করেন, তেমনি পাপ মোচনেরও পথ করে দিন। সুযোগ করে দেন  তাওবার ও পবিত্র জিহাদের। মুসলিমের রাজনীতিই মানেই পবিত্র জিহাদ। এটি দুর্বৃত্তির নির্মূল ও সভ্যতর সমাজ নির্মাণের লড়াই। বাংলাদেশীদের সামনে তেমন একটি সুযোগ আবার এসেছে। পোষমানা কিছু কুকুর ছাড়া দুর্বৃত্ত ডাকাতকে কোন ভাল মানুষই পাহারা দেয় না। বরং সবাই চায় তার আসন্ন বিনাশ। তেমনি একটি অবস্থা প্রতিটি দুর্বৃত্ত শাসকের। তাই হাসিনার পাশে একমাত্র কিছু মানবরূপী পোষা পশু ছাড়া কেউ নাই। হাসিনার পিতা শেখ মুজিবকেও কেউ নিরাপত্তা দেয়নি। হাসিনার ভিতটি তাই আজ নড়বড়ে। বাংলাদেশীদের জীবনে সেই দিনটি হবে দারুন খুশির, যখন ক্ষমতা থেকে  হাসিনার পতন হবে। সাথে সাথে তখন জনগণের জীবনে দারুন উৎসব নেমে আসবে -যেমন এসেছিল হাসিনার ফ্যাসিস্ট পিতা শেখ মুজিবের  মৃত্যুতে। তখন জনগণ পাবে ফিরাউনের জেলের দুর্দিন থেকে মুক্তি পাওয়ার বিশাল আনন্দ। ঘরে ঘরে তখন আসবে ঈদের খুশি। দেশবাসী তেমন একটি খুশির দিনের জন্য অপেক্ষা করছে।

বিপদের মুখে পড়েছে হাসিনার প্রভু ভারত। হাসিনার জন্য তাই এখন আরো দুর্বল মুহুর্ত। ভারতীয় নেতাদের মনে এখন প্রচণ্ড তালেবান ভীতি। কাশ্মিরে তালেবান ঢুকবে -সেটি এখন নিশ্চিত। কারণ জালেম কাফেরদের নির্যাতন থেকে কাশ্মিরের মজলুম মুসলিমদের মুক্তি দেয়া তো প্রতিটি মুসলিমের ঈমানী দায়িত্ব। মুসলিম কি সে দায় এড়াতে পারে? ঈমানের বলে বলীয়ান তালেবানগণ যে সে কাজে নিশ্চিত এগিয়ে আসবে -ভারত সেটি জানে। ইসলামের গৌরব কালে জিহাদ যেমন আরবে সীমিত থাকেনি, তেমন আজ সীমিত থাকবে না আফগানিস্তানে। এখানেই ভারতের আসন্ন পরাজয়ের ভয়। তাছাড়া ভারত যদি নিজ এজেন্ডা নিয়ে ১৯৭১’য়ে পূর্ব পাকিস্তানে ঢুকতে পারে, যুক্তরাষ্ট্র যদি আফগানিস্তান ও ইরাকে ঢুকতে পারে তবে তালেবান কেন ভারতে ঢুকতে পারবে না?

ভারতের তালেবান ভীতির কারণ: তালিবানদের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তার ৫০টির বেশী মিত্র দেশ যুদ্ধেশোচনীয় ভাবে হেরে গেছে। ভারত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন জোটের চেয়ে শক্তিশালী নয়। এবং ভারত বলতে গেলে একা। হাসিনা ছাড়া তার পাশে আর কেউ নাই। হাসিনার সামর্থ্য নাই যে সে অস্ত্র নিয়ে তার বন্ধু মোদীর পাশে খাড়া হবে। ফলে কাশ্মিরে ভারতের পরাজয় সুনিশ্চিত। কাশ্মিরে মোতায়েনকৃত ৬ লাখ ভারতীয় সৈন্য শুধু তাদের ক্ষয়ক্ষতিই বাড়াবে। পরাজয়ের সাথে ধ্বস নামবে ভারতের অর্থনীতিতে। কারণ যুদ্ধ মানেই রক্তপাত; সেটি যেমন দেহে, তেমনি অর্থনীতিতে।

নিজ দেশের বিপদের কারণে মোদী কি পাবে হাসিনার পাশে দাঁড়ানোর শক্তি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিপালিত আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গণি ও তার সৈনিকগণ যেমন অস্ত্র ছেড়ে পালিয়েছে তেমনি পালাবে হাসিনা ও তার পোষা রক্ষীরা। দুর্দিনে স্বৈর শাসকের কোন বন্ধু থাকে না। তাই হাসিনার পিতাকে বাঁচাতে কেউ এগুয়নি, হাসিনাকে বাঁচাতেও কেউ এগুবে না। এমন কি মুজিবের মৃত্যুতে আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল মালিক উকিল বলেছিলেন, “ফিরাউনের পতন হয়েছে।” ইতিহাসের সেটিই শিক্ষা। বাংলার দোয়ারে তাই বসন্তের সুবাতাসের যথেষ্ট সম্ভাবনা। কিন্তু বাংলাদেশীগণ কি পারবে এই অনুকুল পরিস্থিতি থেকে ফায়দা নিতে? সে প্রস্তুতিটা কই? 

হাসিনার বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ -সেটিই শুধু হাসিনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ নয়, সেটি ভারতের মুসলিম হত্যাকারী শক্তির বিরুদ্ধে যুদ্ধও। তাই এ যুদ্ধ কোন সাধারণ যুদ্ধ নয়, এটি হলো শতভাগ জিহাদ। বাংলাদেশকে হাসিনার পরিণত করেছে আরেক কাশ্মিরে। তাই বাংলাদেশীদের যুদ্ধটি হলো ভারতের দখলদারী থেকে মুক্তির পবিত্র লড়াই। আর কোন লড়াই পবিত্র জিহাদে পরিণত হলে সে যুদ্ধের পরাজয় অসম্ভব হয়। কারণ জিহাদের মালিকানা তখন জনগণের থাকে না, সেটির মালিকানা মহান আল্লাহতায়ালার নিজে নিয়ে নেন। জনগণের দায়িত্ব হলো এ জিহাদের নিজেদের জান ও মালের বিনিয়োগ বাড়ানো। আর বান্দার সে বিনিয়োগ দেখে মহান আল্লাহতায়ালার বাড়ান তাঁর নিজের বিনিয়োগ। তখন বিজয় নিশ্চিত করতে ফিরিশতাগণ রণাঙ্গণে নেমে আসে। অতএব বাঙালী মুসলিমদের সফলতা শতভাগ নির্ভর করছে, তাদের লড়াইকে তারা কতটা নির্ভেজাল জিহাদে পরিণত করতে পারলো -তার উপর।

 

সামনে দুটি পথ

প্রশ্ন হলো, বাঙালী মুসলিমগণ কি হাসিনার ন্যায় ভারতের এক পুতুলকেও সরাতে পারবে না? ৩ কোটি ৮০ লাখ আফগানের তুলনায় ১৬ কোটি মুসলিম কি এতোই শক্তিহীন। অথচ কাজটি অতি সহজ। স্রেফ শর্ত হলো, সে কাজের জন্য বাঙালী মুসলিমদের প্রথমে সত্যিকার মুসলিম হতে হবে। কারণ মহান আল্লাহতায়ালার সাহায্য পাওয়ার জন্য এটিই হলো পূর্বশর্ত। আর মহান আল্লাহতায়ালার সাহায্য ছাড়া কোন বিজয় আসে না। মুজিবের ন্যায় ইসলাম বিরোধী দুর্বৃত্ত ও ভারতের দালালকে যারা জাতির পিতা ও বঙ্গবন্ধুর আসনে বসিয়ে জপ করে তারা কি মহান আল্লাহতায়ালার সাহায্য পাওয়া যোগ্য বিবেচিত হয়? তখন তা জুটে তা তো আযাব। তখন শেখ হাসিনার ন্যায় নৃশংস জালেমকে শাসক রূপে চাপানো হয় প্রতিশ্রুত আযাব প্রদানের হাতিয়ার রূপে।

মুসলিম হতে হলে প্রথমে বিশ্বাস ও কেবলা পাল্টাতে হয়। পূজার পুতুলগুলি সরাতে হয় মনের ভূমি থেকেও। চেতনার ভূমিতে সেক্যুলারিজম, জাতীয়তাবাদ ও লিবারিলাজিমের আবর্জনা বাড়িয়ে কি মুসলিম হওয়া যায়? মুসলিমকে চেতনার ভূমিকে শতভাগ সুরক্ষিত রাখতে একমাত্র মহান আল্লাহতায়ালা ও তাঁর দ্বীন ইসলামের জন্য। বাঙালী মুসলিমের এখানেই নিদারুন ব্যর্থতা। সে ব্যর্থতার কারণে যে বিজয় তালেবানগণ অর্জন করলো তা অসাধ্য ও অকল্পনীয় থেকে যাচ্ছে ১৬ কোটি বাঙালী মুসলিমের জীবনে। বাঙালী মুসলিমদের সামনে দুটি পথ। একটি একটি বিজয় ও স্বাধীনতার পথ। অপরটি পরাজয়, গোলামী ও আযাবের পথ। বিজয়ের পথটি হলো সত্যিকার মুসলিম রূপে নিজেদের গড়ে তোলা এবং ঈমানী দায়িত্ব পালনে নিজের জান ও মাল নিয়ে ময়দানে নেমে পড়ার পথ। এ পথটিই পবিত্র জিহাদের। এ পথেই মহান আল্লাহতায়ালার সাহা্য্য জুটে এবং বিজয় জুটে। যারা বিজয়ের পথ পরিহার করে তাদের জন্য যা অনিবার্য হয় তা হলো ভয়ানক আযাবের পথ। সে পথটি ভারত ও হাসিনার ন্যায় ভারতীয় সেবাদাসদের নৃশংস শাসন প্রাপ্তির পথ। কোন পথটি বেছে নিবে -সে চুড়ান্ত সিদ্ধান্তটি নিতে হবে বাংলাদেশীদেরই। ১৯/০৯/২০২১।  

 




উপেক্ষিত জিহাদ ও পরাজিত মুসলিম

ফিরোজ মাহবুব কামাল

ঈমানী বাধ্যবাধকতা

মুসলিম হওয়ার জন্য কারো উপরই কোন বাধ্যবাধকতা নেই। “লা ইকরাহা ফিদ্দীন” কুর’আনের এই বহুল প্রচারিত আয়াতের অর্থ হলো: দ্বীনের ব্যাপারে কোন জবরদস্তি নেই। নবীজী (সা:)’র আমলেও আরবের হাজার হাজার মানুষ অমুসলিম থেকেছে। মিশর, লেবানন, ইরাকসহ আরব দেশগুলির লক্ষ লক্ষ মানুষ আজও যে অমুসলিম –তারা তো তাদেরই বংশধর। কোন মুসলিম সেনাবাহিনী কোন কালেই তাদেরকে মুসলিম হতে বাধ্য করেনি। এরই আরেক প্রমাণ, ভারতের ৬ শত বছরের বেশী কাল মুসলিম শাসন। দীর্ঘ কাল মুসলিম শাসনের পরও রাজধানী দিল্লী ও তার আশেপাশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ হিন্দুই থাকে যায়। তেমনটি ঘটেছে স্পেনে। সেদেশে মুসলিমগণ ৭ শত শাসন করে। কিন্তু সংখ্যা গরিষ্ঠ জনগণ খৃষ্টানই থেকে যায়। কিন্তু যারা জেনে বুঝে মুসলিম হয় তাদের মাথার উপর অলংঘনীয় দায়িত্বও এসে যায়। অনেকটা সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার মত। সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে কাউকে বাধ্য করা হয় না। কিন্তু যোগ দিলে সেনাবাহিনীর বাইরের লোকদের থেকে তার দায়িত্বটা ভিন্নতর হয়। তখন প্রাণ হাতে রণাঙ্গণে যাওয়াটি তার মৌলিক দায়িত্ব ও কর্তব্যের মধ্যে এসে যায়। যুদ্ধে না গেলে বা নির্দেশ পালনে অবাধ্যতা দেখালে তার কোর্ট মার্শাল হয়। বিচারে কঠোর শাস্তি হয়, এমনকি প্রাণদন্ডও হয়।

প্রশ্ন হলো, মুসলিম হওয়ার পর সে অর্পিত বাধ্যবাধকতাটি কি? সেটি হলো, মহাশক্তিমান আল্লাহতায়ালার সাথে এক অলংঘনীয় চুক্তিতে আবদ্ধ হওয়া। এবং চুক্তিটি হলো, একমাত্র আল্লাহতায়ালাকে সে মাবুদ বা উপাস্য রূপে মেনে নিবে এবং নিজে তাঁর একান্ত আবেদ বা দাসরূপ প্রতিটি হুকুমকে প্রতিনিয়ত মান্য করে চলবে। সেটি শুধু নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাতের ন্যায় ইবাদতে নয়, বরং যেখানেই মহান আল্লাহতায়ালার হুকুম তৎক্ষনাৎ তাঁকে সঁপে দিতে হবে সে হুকুম পালনে। মহান আল্লাহতায়ালার হুকুম পালনের দায়িত্ববোধ তাকে সর্বক্ষণ নিবিষ্ট করবে সে হুকুমের অনুসন্ধানে। অনুসন্ধানের সে কাজটি প্রতিটি ঈমানদারের উপর ফরজ। কারণ, আল্লাহর হুকুমটি যে জানে না, সে ব্যক্তি হুকুমের অনুসরণ করবে কীরূপে? পবিত্র কুর’আনের মধ্যেই রয়েছে মহান আল্লাহতায়ালার নির্দশাবলী। পবিত্র কুর’আনের জ্ঞানার্জন এ জন্যই ফরজ। অজ্ঞতা একারণেই সবচেয়ে ভয়ানক কবীরা গুনাহ। অজ্ঞতা নিয়ে তাই মুসলিম হওয়া যায় না, মুসলিম থাকাও যায় না। পথের অজ্ঞতা নিয়ে সঠিক রাস্তায় পথচলা অসম্ভব। অজ্ঞতায় যা অনিবার্য হয় সেটি পথভ্রষ্টতা। কুর’আনী জ্ঞানের অজ্ঞতা নিয়ে তাই অসম্ভব হলো আল্লাহর প্রদর্শিত সিরাতুল মোস্তাকিমে চলা।

তাছাড়া মুসলিমের দায়িত্ব শুধু এ নয়, সে শুধু নিজে বা নিজের পরিবারকে নিয়ে সিরাতুল মোস্তাকিমে চলবে। সেটি নবীজী (সা:)’র সূন্নত নয়, সাহাবায়ে কেরামেরও রীতি নয়। তাঁকে পালন করতে হয় মহান আল্লাহতায়ালার খলিফার দায়ভার। সে কাজে তাকে পথ দেখাতে হয় অন্যদেরও। পথ দেখা ও দেখানো, জাগা ও জাগানোই তাঁর জীবনের মিশন। সে সাথে সরাতে হয় রাষ্ট্রের বুক থেকে সত্যের বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠিত প্রতিটি বাধা এবং শয়তানী শক্তির প্রতিটি প্রতিষ্ঠান। নির্মূল করতে হয় দুর্বৃত্ত শক্তির প্রতিটি ষড়যন্ত্র। নবীজী (সা:) তাই শুধু ক্বাবার মধ্য থেকে মূর্তি সরাননি, সরিয়েছেন কাবার বাইরে থেকেও। মদ্যপান, সূদ-ঘুষ, বেশ্যাবৃত্তিসহ পাপের প্রতিটি প্রতিষ্ঠান নির্মূল করেছেন। রোগজীবাণু যেমন দেহের পতন ঘটায়, দুর্বৃ্ত্তগণ তেমনি পচন আনে সমাজ ও রাষ্ট্রে। মুসলিম জীবনের মূল মিশন তাই শুধু দুর্বৃত্ত-নির্মূল নয়, বরং নির্মূণ করতে হয় দুর্বৃত্ত উৎপাদনের প্রতিটি ক্ষেত্রকে। কারণ দুর্বৃত্তদের হাতে অধিকৃত ভূমিতে মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনের বিজয় অসম্ভব। সে বিজয় আনতে হয় পাপ ও পাপের প্রতিষ্ঠানগুলির বিলুপ্তি ঘটিয়ে। নির্মূলের এ কাজে নামলে মু’মিনের জীবনে জিহাদ তাই অনিবার্য হয়ে পড়ে। তাছাড়া একার পক্ষে জিহাদ গড়ে তোলা অসম্ভব। তখন তাঁকে দল গড়তে হয় এবং একাত্ম হতে হয় অন্য ঈমানদারদের সাথে। একতা গড়া এজন্যই নামায-রোযার ন্যায় ফরজ। জিহাদর শুরুর আগে নবীজী (সা:)কে একাজ মক্কায় ১৩টি বছর অবিরাম করতে হয়েছে। আজও এটিই দ্বীন প্রতিষ্ঠার অনুকরণীয় মডেল।

জিহাদ যে ইসলামে কতটা অনিবার্য সেটির প্রকাশ ঘটেছে কুর’আনের অসংখ্য আয়াতে এবং কুর’আন নাযিলের মূল উদ্দেশ্যটির মধ্যে। আল্লাহতায়ালা সত্য দ্বীনসহ রাসূল পাঠানোর মূল লক্ষ্যটি কখনই অস্পষ্ট রাখেননি। আজকের বহু আলেম সেটি বুঝতে না পারলেও নবীজী (সা:)’র যুগের নিরক্ষর বেদুঈনরাও সেটি বুঝতেন। তারা লাগাতর জিহাদ লড়েছেন এবং জান-মালের বিপুল কুরবানীও পেশ করেছেন। পবিত্র কুর’আনে ঘোষণা: “তিনিই (সেই মহান আল্লাহ যিনি) তাঁর রসুলকে পথনির্দেশ ও সত্যধর্ম দিয়ে প্রেরণ করেছেন যাতে তা সকল ধর্মের উপর বিজয়ী হয়। যদিও কাফেরগণ তা অপছন্দ করে।” – (সূরা সাফ, আয়াত ৬)। অবিকল একই রূপ ঘোষনা এসেছে সুরা তাওবা’র ৩৩ নম্বর আয়াত ও সুরা ফাতহার ২৮ নম্বর আয়াতে। অন্যান্য ধর্ম থেকে ইসলামের এখানেই ভিন্নতা। হুকুম এখানে অন্যান্য ধর্ম, আচার ও মতাদর্শের উপর ইসলামকে বিজয়ী করা। হযরত মূসা (আ:) ও হযরত ঈসা (আ:)’র উপর এমন নির্দেশ একবারও নাযিল হয়নি। অথচ হযরত মহম্মদ (সা:)’র উপর সে নির্দেশ এসেছে তিনবার। নবীজী (সা:)’র পূর্বে যে সব নবী-রাসূল এসেছিলেন তারা ছিলেন নিজ-নিজ গোত্রের জন্য। যেমন হযরত মূসা (আ:) ও তাঁর ভাই হযরত হারুন (আ:) তাদের নবুয়তি জীবনের সবটুকু সামর্থ্য ব্যয় করেছেন বনী ইসরাইলের মানুষদের ফিরাউনের জুলুম থেকে মূক্তি দিতে ও তাদেরকে সত্য দ্বীনের পথে আনতে। হযরত ঈসা (আ:) এসেছিলেন মূলত বনি ইসরাইলীদের মাঝে তাওরাতের বাণীকে পুনর্জাগরিত করতে। অপর দিকে নবীজী (সা:) এসেছেন সমগ্র বিশ্ববাসীর জন্য। যেমন বলা হয়েছে, “ওয়া আরসালনাকা লিন্নাসি রাসূলা।” অর্থ: “এবং আপনাকে রাসূল রূপে প্রেরণ করেছিল সমগ্র মানব জাতির জন্য।”

পবিত্র কুর’আনে নবীজী (সা:)কে বলা হয়েছে “রাহমাতুল্লিল আলামীন” তথা সমগ্র বিশ্বের জন্য রহমত। অন্য কোন নবীকে সে বিশেষ উপাধিতে ভূষিত করা হয়নি। অপর দিকে নবীজী (সা:)’র উম্মতকে খাড়া করা হয়েছে সমগ্র বিশ্ববাসীর জন্য। নবীজী (সা:)’র উম্মত রূপে মুসলিমদের কর্মের ক্ষেত্রটিও বিশাল। তাদের মিশন বিশ্ববাসীকে জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি দেয়া ও জান্নাতে নেয়া। মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে তাই সুরা আল-ইমরানের ১১০ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে, “কুনতুম খায়রা উম্মাতিন উখরিজাত লিন্নাসি তা’মুরুনা বিল মা’রুফি ওয়া তান হাওনা আনিল মুনকারি ওয়া তু’মিনুনা বিল্লাহি।” অর্থ: “তোমরা হচ্ছো সর্বশ্রষ্ঠ জাতি, তোমাদের উত্থান ঘটানো হয়েছে সমগ্র মানব জাতির জন্য। তোমরা ন্যায়ের হুকুম দাও এবং নির্মূল করো দুর্বৃত্তিকে এবং তোমরা বিশ্বাস করো আল্লাহকে।” এ বিশাল দায়ভার কোন একক ব্যক্তি, সমাজ বা গোত্র করতে পারে না। সমাজ বিপ্লবের সে বিশাল কাজে জরুরী হলো সহযোগী রাষ্ট্রীয় অবকাঠামো ও রাষ্ট্রীয় প্রাতিষ্ঠানিক জনশক্তির পূর্ণ সহযোগিতা। নইলে কোন বিপ্লবই সফল হয়। নবীজী (সা:)কেও তাই নিজ হাতে রাষ্ট্র গড়তে হয়েছে এবং তিনি নিজে সে রাষ্ট্রের প্রধান রূপে দায়িত্ব পালন করেছেন। সাহাবাগণ নবীজী (সা:)’র সূন্নত অনুসরণ করেছেন। ইসলামের দ্রুত প্রসার এবং সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতা রূপে মুসলিম শক্তির উত্থানের মূল কারণ তো সেই ইসলামী রাষ্ট্র। আজকের মুসলিমদের পরাজয়ের মূল কারণ তারা নবীজী (সা:)’র সে সূন্নতের উপর নাই। তারা গড়েছে নিজেদের পথ। তাদের লক্ষ্য, স্রেফ নিজেদের এজেন্ডাকে বিজয়ী করা; মহান আল্লাহতায়ালার এজেন্ডার সেখানে কোন স্থান নাই।

দ্বীন নাযিলের অর্থ এ নয় যে, সেটি কুর’আনের পাতায়, মসজিদের জায়নামাযে বা মাদ্রাসার শ্রেনীকক্ষে সীমাবদ্ধ থাকবে। বরং সেটি প্রতিষ্ঠা ঘটাতে হবে দেশের রাজনীতি, আইন-আদালত, শিক্ষা-সংস্কৃতি, অর্থনীতি ও যুদ্ধ-বিগ্রহসহ রাষ্ট্রের প্রতিটি অঙ্গনে। দ্বীন তো পূর্ণাঙ্গ প্রতিষ্ঠার জন্য, নিছক পাঠের জন্য নয়। নিছক ব্যক্তিজীবনে পালনের জন্যও নয়। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষণা: “তিনি তোমাদের জন্য দ্বীনের ক্ষেত্রে সে পথই নির্ধারিত করেছেন, যার নির্দেশ দিয়েছিলেন নূহকে, যা আমি প্রত্যাদেশ করেছি আপনার প্রতি এবং যার আদেশে দিয়েছিলাম ইবরাহীম, মুসা ও ঈসাকে এই মর্মে যে, তোমরা দ্বীনকে প্রতিষ্ঠিত করো এবং তাতে অনৈক্য সৃষ্টি করো না। -(সুরা আশ-শুরা, আয়াত ১৩)। কুর’আনে যেমন নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাতের আহকাম রয়েছে, তেমনি রয়েছে রাষ্ট্রপরিচালনা ও জিহাদের আহকামও। রয়েছে ফৌজদারি আইন, রয়েছে সম্পদের বন্টন নিয়ে আইন। রয়েছে পোষাক-পরিচ্ছদ, খাদ্য-পানীয় নিয়ে হারাম-হালালের বিধান। প্রতিবেশীর সাথে আচরণ কীরূপ হবে, কীরূপ আচরণ হবে শিশুদের সাথে, কীরূপ ব্যবহার করতে হবে পিতা-মাতা ও মুরব্বীদের সাথে –আল্লাহতায়ালার নির্দেশ এসেছে এসব বিষয়েও। ইসলাম একটি পরিপূর্ণ বিধান। এটি আল্লাহর দেওয়া এক পূর্ণাঙ্গ রোডম্যাপ। জীবনের প্রতিক্ষেত্রে এটি পথ দেখায়। মুসলিমের কাজ হলো সেটির পূর্ণাঙ্গ অনুসরণ। কুর’আনে একথাও বলা হয়েছে, “ইন্নাদ্দীনা ইন্দাল্লাহিল ইসলাম”। অর্থ: নিশ্চয়ই আল্লাহর কাছে একমাত্র স্বীকৃত দ্বীন বা ধর্ম হলো ইসলাম। এর অর্থ দাঁড়ায়, ইসলামের বাইরে ধর্মের নামে যত ধর্ম বা মতবাদই থাক না কেন -সেগুলি মহান আল্লাহতায়ালার কাছে আদৌ গ্রহণযোগ্য নয়। সেগুলি অবশ্যই পরিতাজ্য। মানব জাতির বিপর্যয়ের বড় কারণ, বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রাণনাশ ও সম্পদের সবচেয়ে বেশী ক্ষয়ক্ষতি ঘটেছে বহু পরিতাজ্য ধর্ম ও আদর্শকে বিজয়ী করতে। বহু কোটি মানুষের প্রাণনাশ হয়েছে শুধু কম্যুনিজমের ন্যায় একটি ভ্রান্ত মতবাদকে প্রতিষ্ঠা দিতে। অথচ ইসলাম জানমালের অতি কম খরচেই মানব ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতার জন্ম দিয়েছে।  

রাষ্ট্রবিপ্লব ও জিহাদের অনিবার্যতা

রাষ্ট্র কোন শূণ্য স্থান নয়। বিশেষ একটি সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা সেখানে পূর্ব থেকেই প্রতিষ্ঠিত থাকে। ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত থাকে সে সমাজ ও রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার কর্ণধারেরা। সেটি যেমন হযরত ইব্রাহীম (আ:) ও হযরত মূসা (আ:)’র সময় ছিল, তেমনি ছিল হযরত মুহম্মদ (সা:)’র সময়ও। নমরুদ, ফিরাউন, আবু জেহল ও আবু লাহাবগণ ছিল আল্লাহ-বিরোধী পক্ষের সমকালীন কর্ণধার। ধর্মের নামে তাদের নিজেদের বিশ্বাস ও প্রথা ছিল। সেগুলির বাইরে অন্য বিশ্বাসকে –তা যত সত্যই হোক না তারা তা মানতে রাজী ছিল না। মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনের বিরুদ্ধে তারাই ছিল প্রবল প্রতিপক্ষ। ফলে মুসলিমদের নির্মূলে সংঘাতকে তারা অনিবার্য করে তুলেছিল। অথচ বিশ্বটি মহান আল্লাহতায়ালার। তাঁর নিজের গড়া এ বিশ্বে সে দখল জমানোর অধিকার তাদের ছিল না। ঈমানদারের দায়িত্ব হলো, এ অধিকৃত ভূমিকে শয়­­­­তানী শক্তির দখলদারী থেকে মূক্ত করা। এবং সে সাথে আত্মনিয়োগ করা আল্লাহর দ্বীনের বিজয়ে। এ দায়িত্ব মহান আল্লাহতায়ালার খলিফাদের। একাজের জন্যই মুসলিম উম্মাহকে বলা হয় হিযবুল্লাহ বা আল্লাহর দল। তাই খলিফা, উম্মাহ ও হিযবুল্লাহ –এ বিশেষ শব্দগুলি কোন রাজনীতিকের বা সমাজ বিজ্ঞানীর আবিস্কৃত শব্দমালা নয়, বরং মহান আল্লাহতায়ালার কুর’আনী পরিভাষা।

খলিফা, উম্মাহ, হিযবুল্লাহ, জিহাদ, শরিয়ত –এরূপ প্রতিটি শব্দের মধ্যে লুকিয়ে আছে ইসলামের কুর’আনী দর্শন এবং সে সাথে প্রতিটি ঈমানদারের উপর অর্পিত এক বিশাল দায়ভার। এ দায়িত্ব পালনের মধ্যেই পরিচয় মেলে একজন মুসলিমের প্রকৃত ঈমানদারী। সে দায়িত্বপালনের তাগিদেই প্রতিটি মুসলিম পরিণত হয় মহান আল্লাহর সার্বক্ষণিক সৈনিকে। দায়িত্ব পালনের সে মিশনে মহান আল্লাহর সাথে ঈমানদারের চুক্তিটি ঘোষিত হযেছে এভাবে: “নিশ্চয়ই আল্লাহ ক্রয় করে নিয়েছেন মু’মিনদের কাছ থেকে তাদের জান ও মাল, এই মূল্যে যে তাদের জন্য নির্ধারিত থাকবে জান্নাত। তারা যুদ্ধ করে আল্লাহর রাস্তায়, অতঃপর (আল্লাহর শত্রুদেরকে) হত্যা করে ও নিজেরাও নিহত হয়। তাওরাত, ইঞ্জিল ও কুর’আনে তিনি এ সত্য প্রতিশ্রুতিতে অবিচল। আর আল্লাহর চেয়ে প্রতিশ্রুতি রক্ষায় কে অধিক? সুতরাং তোমরা আনন্দিত হও সে লেন-দেনের উপর যা তোমরা করছ তাঁর সাথে। আর এ মহান সাফল্য।” –(সুরা তাওবাহ, আয়াত ১১১)।

মুসলিম তাই মহান আল্লাহতায়ালার ক্রয়কৃত সৈনিক বা দাস। তাঁর জান-মালের উপর নিজের কোন মালিকানা নাই, সেটি মহান আল্লাহতায়ালার। মহান আল্লাহতায়ালা জান্নাতের দরে তাদের জানমালকে ক্রয় করে সেটিকে বান্দার কাছেই জিম্মা রেখেছেন। ঈমানদারের দায়িত্ব হলো, মহান আল্লাহর ক্রয়কৃত এ আমানতকে খেয়ানত থেকে বাঁচানো। এ আমানত ব্যয় করতে হবে একমাত্র তাঁরই  নির্দেশিত পথে। এখানেই তার জীবনের মূল পরীক্ষা। নামায-রোযার কাজ হলো সে পরীক্ষায় পাশের সামর্থ্য সৃষ্টি করা। পাঁচবার মসজিদে ডেকে নামায মূলত সে চুক্তির কথাকেই স্মরণ করিয়ে দেয়। সে চুক্তির কথা সর্বক্ষণ চেতনায় নিয়ে বাঁচাই হলো প্রকৃত যিকর। সে চুক্তিটি নামাযের প্রতি রাকাতে ধ্বনিত হয় “ইয়্যাকা’নাবুদু ওয়া ইয়্যাকা’নাস্তায়ীন”য়ের মধ্য দিয়ে। এর অর্থ: আপনাকেই আমরা ইবাদত করি এবং আপনার কাছেই আমরা সাহায্য চাই। ইবাদতের অর্থ তো মহান আল্লাহতায়ালা প্রতিটি হুকুমের গোলামী। মুসলিমকে প্রতিটি মুহুর্ত বাঁচতে হয় সে গোলামী নিয়ে। তাই মুসলিম জীবনে অন্য কোন ধর্ম, মতবাদ বা ব্যক্তির গোলামীর কোন স্থান নাই।  নামায তো সেই গোলামী নিয়ে বাঁচার যিকর। পবিত্র কুর’আনেও নামাযকে যিকর বলা হয়েছে। যিকর এখানে স্রেফ মহান আল্লাহতায়ালার নাম ও তাঁর মহিমার যিকর নয়, বরং ঈমানদার রূপে দায়িত্ব নিয়ে বাঁচার যিকর। এ যিকরই নামাযীকে মুজাহিদ পরিণত করে। কথা হলো, আল্লাহতায়ালার সাথে কেনাবেচার এ দলিলটি শোনার পর কোন মুসলিম কি আল্লাহর রাস্তায় জিহাদ থেকে দূরে থাকতে পারে? দূরে থাকলে কি সে আর মুসলিম থাকে? মুসলিম হওয়ার অর্থই তো আল্লাহর সাথে সম্পাদিত এ পবিত্র চুক্তিকে মেনে চলা। যারা সে চুক্তি গলা থেকে ছুঁড়ে ফেলে দিল, কেবল তারাই এ চুক্তি অনুযায়ী অর্পিত দায়িত্বের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হতে পারে। এমন অবাধ্যদের পক্ষ থেকে নিজেদেরকে মুসলিম রূপে দাবী করা নিছক ধোকাবাজী। তবে আল্লাহপাক এমন ধোকাবাজী গোপন রাখার কোন পথ খোলা রাখেননি। তিনি তাদের মুখোশ উম্মোচন করেন তাদের জীবদ্দশাতেই। দাড়ি, টুপি, পোষাক ও মুসলিম নাম দিয়ে অন্যকে ধোকা দেয়া যায়, কিন্তু মহান আল্লাহতায়ালাকে নয়। মহান আল্লাহতায়ালা সেটি প্রকাশ করার ব্যবস্থা করেন জিহাদে ডাক দিয়ে। যারা সে জিহাদ থেকে দূরে থাকলো নবীজী (সা:) তাদেরকে মুনাফিক বলেছেন। এ প্রসঙ্গে হযরত আবু হুরাইরা (রা:) থেকে বর্ণিত হাদীসটি গুরুত্বপূর্ণ। হাদীসটি হলো: আল্লাহর রাসূল (সা:) বলেছেন, “যে ব্যক্তি মারা গেল অথচ আল্লাহর রাস্তায় কোন যুদ্ধই লড়লো না, এবং এটিও ভাবলো না যে যুদ্ধ লড়াটি তার দায়িত্ব ছিল, এমন ব্যক্তির মৃত্যু হয় মুনাফেকীর মধ্যে।” – আল মুসলিম।

আল্লাহতায়ালা পবিত্র কুর’আনে জিহাদকে বলেছেন এমন এক ব্যবসা যা ব্যক্তিকে মুক্তি দেয় জাহান্নামের আগুন থেকে। একাজ তাজমহল নির্মাণের কাজ নয়। নিছক ক্ষেতখামার, রাস্তাঘাট, স্কুল-কলেজ ও কলকারখানা নির্মাণের কাজও নয়। বরং দুনিয়ার বুকে জান্নাত নামিয়ে আনার কাজে। এটি কোটি কোটি মানব সন্তানকে জাহান্নামের আগুন থেকে বাঁচানোর কাজ। এ কাজের ফলেই মর্তের বুক থেকে সিরাতুল মুস্তাকীম গড়ে উঠে জান্নাতে পৌঁছার। ইসলামে এটিই সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত। পৃথিবী পৃষ্ঠের সকল কর্মের মাঝে এটিই হলো সর্বশ্রেষ্ঠ মানব-কল্যাণ মূলক কর্ম। নিছক নামায, রোযা, হজ্জ, যাকাত ও তাসবিহ-তাহলিল ব্যক্তিকে বীনা হিসাবে জান্নাতে নেয় না। নিহত হওয়ার পর রেযেকও দেয় না। বিচার দিনে শাফায়াতের অধিকারও দেয় না। কিন্তু জিহাদ দেয়। কারণ একমাত্র জিহাদই মহান আল্লাহতায়ালার ধরিত্রিকে শয়তানী শক্তির দখলমূক্ত করে এবং প্রতিষ্ঠা করে তাঁর সার্বভৌমত্ব। এর ফলেই শয়তানী শক্তির অধিকার মূক্ত হয় তাঁর ভূমি। মহান আল্লাহতায়ালার কাছে এ কাজ কত প্রিয় এবং এ কাজের পুরস্কার কত বিশাল -সে ঘোষণাটি বার বার এসেছে পবিত্র কুর’আনে। আখেরাতে মুক্তি ও পুরস্কারের সে সুখবরটি আল্লাহতায়ালা বাতলিয়েছেন এভাবে: “হে মুমিনগণ! আমি কি তোমাদেরকে এমন এক বাণিজ্যের সন্ধান দিব যা তোমাদেরকে যন্ত্রনাদায়ক শাস্তি থেকে মুক্তি দিবে? আর তা হলো, তোমরা আল্লাহ ও তাঁর রসুলের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করবে এবং আল্লাহর পথে নিজেদের ধন-সম্পদ ও জীবনপণ করে জিহাদ করবে। এটাই তোমাদের জন্য উত্তম -যদি তোমরা বুঝো। -(সুরা সাফ, আয়াত ১০-১১)।

 

বাঁচা কি স্রেফ বাঁচার জন্য?

মু’মিনের বাঁচাটি কখনোই স্রেফ বাঁচার জন্য হয় না। বাঁচার মধ্যেও পবিত্র লক্ষ্য ও এজেন্ডা থাকে। বাঁচার লক্ষ্য ও জীবনের মূল কাজ নিছক রুটি-রুজির তালাশ নয়। সম্পদের আহরণও নয়। সেটি মহান আল্লাহতায়ালাকে খুশি করা এবং বিনিময়ে জান্নাত লাভ। সে লক্ষ্যটি কি কখনো অবাধ্যতায় অর্জিত হয়? সে জন্য তাকে প্রতিটি কুর’আনী হুকুমের আনুগত্যে নামতে হয়। মু’মিনের জীবনে মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনের প্রতিষ্ঠায় আত্মনিয়োগ তখন অনিবার্য হয়ে উঠে। এটিই মু’মিনের জীবনে মূল লড়াই। এবং এরূপ লড়াই হলো জিহাদ। এমন জিহাদই নিশ্চিত করে আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে মাগফিরাত লাভ ও সীমাহীন পুরস্কার লাভ। সে প্রতিশ্রুতি এসেছে এভাবে: “তিনি তোমাদের পাপরাশি ক্ষমা করে দিবেন এবং এমন জান্নাতে দাখিল করবেন যার পাদদেশে নদী প্রবাহিত এবং বসবাসের জন্য জান্নাতের উত্তম বাসগৃহে। এটিই মহাসাফল্য।” -(সুরা সাফ, আয়াত ১২)।

মহাজ্ঞানী মহান আল্লাহতায়ালার কাছে এটিও অজানা নয়, তাঁর মু’মিন বান্দা শুধু ওপারের জান্নাতই চায় না, এপারের বিজয়ও চায়। আল্লাহতায়ালা তাঁর ঈমানদার বান্দাদের সে সুসংবাদও দিয়েছেন। সেটি এসেছে সুরা সাফার পরবর্তী আয়াতে। বলা হয়েছে, “এবং আরও একটি অনুগ্রহ যা তোমরা পছন্দ কর, (এবং সেটি হলো) আল্লাহর পক্ষ থেকে সাহায্য এবং আসন্ন বিজয়। (হে রাসূল!) মুমিনদেরকে এর সুসংবাদ দান করুন। -(সুরা সাফ, আয়াত ১৩)। আরো লক্ষণীয় হলো, মহান আল্লাহতায়ালা যে শুধু জিহাদের পথ বাতলিয়ে দিয়েছেন -তা নয়। বরং নির্দেশ দিয়েছেন সে জিহাদে অবশ্যই শামিল হওয়ার। সে নির্দেশটি হলো: “হে ঈমানদারগণ! তোমরা আল্লাহর সাহায্যকারি হয়ে যাও। যেমন ঈসা ইবনে মরিয়ম তাঁর শিষ্যদেরকে বলেছিলেন, আল্লাহর পথে কে আমার সাহায্যকারি হবে? শিষ্যবর্গ বলেছিল, আমরা আল্লাহর পথে সাহায্যকারী। অতঃপর বনী ইসরাইলীদের একদল বিশ্বাস স্থাপন করলো এবং একদল কাফের হয়ে গেল। যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছিল, আমি তাদেরকে শত্রুর মোকাবেলায় সাহায্য করলাম, ফলে তার বিজয়ী হলো। -(সুরা সাফ, আয়াত ১৪)।

আল্লাহতায়ালার এর নির্দেশের পর জিহাদের গুরুত্ব এবং সে জিহাদে অংশগ্রহণের অপরিহার্যতা নিয়ে কি আর কোন অস্পষ্টতা থাকে? এখানে যে বিষয়টি সুস্পষ্ট তা হলো, মুসলিম হওয়ার অর্থ শুধু নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাত আদায় নয়, বরং আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠার কাজে আল্লাহর সাহায্যকারি হয়ে যাওয়া। ফলে কোন ব্যক্তি শুধু আযানের ডাকে মসজিদে ছুটলেই তাকে পূর্ণ ঈমানদার বলা যায় না, তাকে বিপক্ষ শক্তির সাথে লড়াইয়েও নামতে হয়। লড়াইয়ের মাধ্যমেই তাকে অংশ নিতে হয় ইসলামের প্রতিষ্ঠায়। আল্লাহর সাহায্যকারি রূপে তার আসল রূপটি প্রকাশ পায় তো এমন লড়াইয়ের মাধ্যমেই। নামায, রোযা, ও হজ্জ-পালন ও ইসলামী জ্ঞানার্জনের মূল লক্ষ্য তো ব্যক্তির মধ্যে আল্লাহর সাহায্যকারি রূপে গড়ে উঠার প্রয়োজনীয় সামর্থ্য সৃষ্টি করা। কিন্তু মোমেনের জীবনে যদি সে সামর্থ্যই গড়ে না উঠে তবে সেগুলি কি আদৌ ইবাদত? নিছক নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাতের মধ্যে প্রকৃত ঈমানদার নিজের ধর্ম-কর্ম সমাপ্ত করে না, বরং আরো বহুদূর সামনে এগিয়ে যায়। আল্লাহর দ্বীনের বিজয়ের লক্ষ্যে যেখানে যা কিছু অপরিহার্য সেটিই সে করে। এ লক্ষ্যে দ্বীনের প্রচারে যেমন আত্মনিয়োগ করে এবং পাহাড়-পর্বত, সাগর-মহাসাগর অতিক্রম করে নানা দেশে যায়, তেমনি মানুষকে সুসংগঠিত করে এবং প্রশিক্ষণ দেয়। সে যেমন রাজনীতিতে অংশ নেয়, তেমনি বুদ্ধিবৃত্তি ও শিক্ষা-সংস্কৃতির ময়দানেও অবিরাম লড়াই করে। এরূপ আমৃত্যু জিহাদে থাকাটিই তো ঈমানদারী। এবং তা থেকে দূরে থাকাটিই হলো বেঈমানী ও মুনাফিকি।

 

যে নিয়েত বাঁচা ও মৃত্যুতে

ঈমানদারের নিয়েতটি শুধু নামায-রোযা-হ্জ্জ-যাকাতের ন্যায় ইবাদতের ক্ষেত্রগুলোতেই থাকলে চলে না, নিয়েত থাকতে হয় বাঁচা এবং মরার ন্যায় মৌলিক ইস্যুতেও। সে নিয়েতই ব্যক্তিকে পথ দেখায়, কী ভাবে বাঁচতে হবে এবং কোথায় প্রাণের কুর’বানী পেশ করতে হবে -সেটি। মহান আল্লাহতায়ালা সে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টিও শিখিয়েছেন পবিত্র কুর’আনে। বলা হয়েছে, “বল (হে মুহম্মদ), নিশ্চয়ই আমার নামায, আমার কুরবানী, আমার বেঁচে থাকা ও মৃত্যু একমাত্র রাব্বুল আলামিনের জন্য।” উপরুক্ত আয়াতে মহান আল্লাহতায়ালা ঈমানদারের জান, মাল ও সামর্থ্যের বিনিয়োগের লক্ষ্য নির্ধারণ করে দিয়েছেন। সেটি হলো, তাঁকে বাঁচতে হয়, একমাত্র মহান আল্লাহতায়ালার উদ্দেশ্য পূরণে।

প্রতিটি ব্যক্তির হাতে মহান আল্লাহতায়ালার আমানত রূপে তুলে দিয়েছেন তাঁর সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি রহস্যকে। এ পৃথিবীর সকল সৃষ্টির মাঝে একমাত্র মানুষের জন্মের শুরুটি পৃথিবীর উর্দ্ধে আসমানে এবং বসবাস ছিল জান্নাতে। সেখান থেকে নামানো হয়েছে এ পৃথিবীর বুকে। অন্য কোন জীবের ক্ষেত্র সেটি ঘটেনি। একারণেই পৃথিবীর সকল সৃষ্টির মাঝে মানব সর্বশ্রেষ্ঠ। প্রতিটি মানব-দেহে রয়েছে বহু হাজার কোটি জীবকোষ। এর একটিতে যে জটিল কম্পিপিউটর লুকিয়ে আছে সেটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় কম্পিউটারেও নেই। জীবকোষের ক্ষুদ্র জিনের মধ্যে লুকিয়ে থাকে বহু মিলিয়ন ডাটা। বিশ্বের তাবত বিজ্ঞানীদের সামর্থ্য নেই এমন একটি জীব কোষ নির্মাণের। মানব ভাগ্যবান যে মহান আল্লাহতায়ালা তাঁর সর্বশ্রেষ্ঠ এ সৃষ্টিকে গচ্ছিত রেখেছেন প্রতিটি ব্যক্তির কাছে। তার উপর অর্পিত দায়িত্ব হলো, আল্লাহতায়ালা-প্রদত্ত বিশাল এ বিস্ময়কর সামর্থ্য ও প্রতিভা নিয়ে একমাত্র মহান আল্লাহর ইবাদত করবে। তাঁর এ শ্রেষ্ঠ সামর্থ্যকে শয়তানের এজেন্ডায় লাগানোর চেয়ে বড় গাদ্দারী বা খেয়ানত আর কি হতে পারে? এবং তার শাস্তিও গুরুতর। এবং সেটি অনন্ত কালের জন্য জাহান্নামের আগুন।

পবিত্র কুর’আনে জীবেন মূল এজেন্ডাটি বেঁধে দেয়া হয়েছে এভাবে, “ওয়া মা খালাকুতুল জিন্না ওয়াল ইনসানা ইল্লা লি ইয়াবুদুন।” অর্থ: আমি মানুষ ও জিনকে এ ভিন্ন আর কোন কারণে সৃষ্টি করেনি যে তারা একমাত্র আমার ইবাদত করবে। কিন্তু সে আমানত যদি নিয়োজিত হয় মূর্তিপূজায় বা ইসলামের বিপক্ষ শক্তির বিজয় বা গৌরব বাড়াতে, তবে তার চেয়ে জঘন্য গাদ্দারী ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ আর কি হতে পারে? যে কোন আদালতে হাজার টাকার তছরুফে বা খেয়ানতেও কঠোর শাস্তি হয়। কিন্তু এখানে যে খেয়ানতটি হচ্ছে তা তো বহু লক্ষ বা বহু কোটি টাকার নয়। মানব দেহের একটি ক্ষুদ্র অঙ্গকেও দুনিয়ার তাবত সম্পদ দিয়ে কি কেনা যায়? সমগ্র হিমালয় যদি সোনা হয়ে যায়, তা ব্যয় করে কি একটি হৃৎপিন্ড বা মগজ তৈরী করা যায়? কিন্তু সে আমানত যদি ব্যয় হয় শয়তানী শক্তির গৌরব বাড়াতে, তবে সেটি কি ক্রোধ বাড়াবে না মহান আল্লাহতায়ালার? এটি তো মহান আল্লাহতায়ালার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। এমন খেয়ানতের পর সে কি মাফ পেতে পারে মহান আল্লাহর আদালতে? এমন অবাধ্য বান্দা কি জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি পেতে পারে? যার অন্তরে সামান্যতম ঈমান আছে -সে কি কখনো এমন অবাধ্যতায় লিপ্ত হতে পারে? ঈমানদার ব্যক্তি তাই রাজা-বাদশাহ-দল-নেতা-ভাষা-ভূগোল বা জাতীয় স্বার্থের বিজয়ে এ গচ্ছিত আমানতকে ব্যয় করেনা। বরং সেটিকে সে সদাসর্বদা নিয়োজিত রাখে একমাত্র আল্লাহর হুকুমের আনুগত্যে ও ইসলামের বিজয়ে।

দুনিয়াদার বা সেক্যুলার ব্যক্তির কাছে গুরুত্ব পায় চাকুরি-বাকুরি, ব্যবসা-বাণিজ্য, ঘরবাড়ী ও সন্তান-সন্ততির কল্যাণ, কিন্তু গুরুত্ব পায় না ইসলামের বিজয়। ইসলামের বিজয় তার কাছে চিহ্নিত হয় সাম্প্রদায়িক পশ্চাতপদতা রূপে। পার্থিব কল্যাণের আশায় এমন সেক্যুলারিস্টগণ নিজ গৃহ বা প্রতিষ্ঠানে মৌলভী ডেকে দোওয়ার মজলিস বসায়, পীরের মজলিসেও ধর্ণা দেয়। কিন্তু সে দোওয়ার জলসায় গুরুত্ব পায় না জিহাদের সামর্থ্য অর্জন বা সে পথে শহীদ হওয়ার আকাঙ্খা। অথচ সাহাবায়ে কেরাম শুধু নিজে নয়, অন্যকে দিয়ে দোয়া করাতেন যেন শাহাদত নসীব হয়। কারণ এটিকে তারা গণ্য করতেন জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন রূপে। পবিত্র কোরয়ানে বলা হয়েছে, “তোমরা ততক্ষন কোন কল্যাণই অর্জন করবে না যতক্ষণ না তোমাদের সবচেয়ে প্রিয় বস্তুটি কুরবানী  না করো।” –(সুরা  আল ইমরান, আয়াত ৯২ )। আর ব্যক্তির কাছে সবচেয়ে প্রিয় বস্তুটি হলো তার জীবন। লক্ষ লক্ষ মানুষ সে জীবন কুর’বানী করে নিজের দেশ, ভাষা, গোত্র, রাজা, নেতা, দল ও বিভিন্ন মতবাদের নামে। বিগত দুটি বিশ্বযুদ্ধে বহু হাজার মুসলিম জীবন দিয়েছে ব্রিটিশ ও ফরাসী সাম্রাজ্যবাদীদের বিজয়ী করতে। এরূপ প্রাণদান গুরুতর খেয়ানত।

কিন্তু মুসলিমকে জান ও মালের কুরবানী পেশ করতে হয় অন্যায় ও অসত্যের নির্মূলে ও ইসলামকে বিজয়ী করতে। তবে একাজে ঈমানী বল চাই। সে বল আসে কুর’আনের জ্ঞান থেকে। তাই যার মধ্যে সে কুর’আনের চর্চা নেই, তার মধ্যে সে ঈমানী বলও নেই। তাই কোন দেশে কুর’আন-চর্চার কীরূপ বেহাল অবস্থা -সেটি বুঝার জন্য মসজিদ-মাদ্রাসার গণনা করার প্রয়োজন নেই, জিহাদের অনুপস্থিতিই সেটি বলে দেয়। সাহাবায়ে কেরামের আমলে কি এতো মসজিদ-মাদ্রাসা ছিল? কিন্তু সে আমলে কুর’আন-চর্চা যে কতটা গভীর ছিল -সেটি তাদের মাঝে শাহাদতের প্রেরণাই বলে দেয়। শতকরা ৬০ ভাগের বেশী সাহাবা সেদিন শহীদ হয়েছিলেন। ইসলামের বিজয় তো এসেছিল তাদের কুরবানী র বরকতে। তাদের নিজেদের বিপুল বিনিয়োগের ফলেই সেদিন সম্ভব হযেছিল আল্লাহর সাহায্য-লাভ -যার ওয়াদা মহান আল্লাহতায়ালা পবিত্র কুর’আনে বার বার দিয়েছেন। প্রকৃত মুসলিমের জীবনে সবচেয়ে বড় ভাবনাটি হলো, কি করে সে সামর্থ্য অর্জন করা যায় সেটি। নবীজী (সা:)’র আমলে সাহাবাগণ তাই বহু মাইল দূর থেকে মরুর কঠোর আবহাওয়া সহ্য করে নবীজী (সা:)’র কাছে কুর’আন শিক্ষার জন্য ছুটে আসতেন। সে প্রবল প্রেরণায় বহু নিরক্ষর সাহাবী সেদিন কুর’আনের হাফিয হয়েছিলেন।

মোমেনের ঈমানদারী ও তার জীবনের মূল সফলতা তো যাচাই হয় সে কুরবানী র মাপকাটিতেই; ‘আমিও মুসলিম’ -এ দাবীর ভিত্তিতে নয়।। নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাতসহ সকল ইবাদতের মূল লক্ষ্য তো সে সামর্থ্য অর্জনে সহায়তা দেওয়া। যে ব্যক্তি সারা জীবন ইবাদত করলো অথচ সে সামর্থ্য অর্জনে ব্যর্থ হলো -তবে সে ইবাদতের সফলতা কোথায়? মুসলিম বিশ্ব কি আজ এমন বিফল ইবাদতকারীদের দিয়েই পূর্ণ হচ্ছে না? ফলে আল্লাহর দ্বীনের বিজয় না বেড়ে বাড়ছে পরাজয়। অথচ মহান আল্লাহতায়ালা তাঁর সর্বশ্রেষ্ঠ পুরস্কার প্রস্তুত রেখেছেন তাঁর ঈমানদার বান্দার জন্য। সে পুরস্কারের মাধ্যমে তিনি তাঁরই সৃষ্ট মাটির মানুষকে প্রবেশ করাবেন জান্নাতে। তখন স্বল্প আয়ুর মানুষ লাভ করবে এক আনন্দময় অনন্ত জীবন। ব্যক্তির জীবনে এরচেয়ে বড় প্রমোশন আছে কি? এবং এর বিপরীতে সবচেয়ে বড় পদস্খলন, ডিমোশন ও শাস্তি হলো জাহান্নাম-প্রাপ্তি।

প্রশ্ন হলো, পরীক্ষা ছাড়া কি কোন প্রমোশন হয়?  পরীক্ষা আসে তাই ঈমানদারের জীবনেও। বস্তুত দুনিয়ার জীবনটাই হলো সে পরীক্ষাকেন্দ্র। আল্লাহতায়ালা সেটিরই ঘোষণা দিয়েছেন এভাবে: “তিনি মৃত্যু ও জীবন এজন্য সৃষ্টি করেছেন যে, তিনি পরীক্ষা করবেন তোমাদের মধ্যে কে আমলের দিক দিয়ে শ্রেষ্ঠতর।” এ পৃথিবীটা তাই পরীক্ষা কেন্দ্র। এবং এ পার্থিব জীবনের মূল লক্ষ্য হলো, আমলে শ্রেষ্ঠতর হওয়ার পরীক্ষায় সফল হওয়া। এবং সেটি, আল্লাহর রাস্তায় জীবনের সবচেয়ে প্রিয় বস্তুটি পেশ করার মধ্য দিয়ে। নিরাপদ ঘরে নফল ইবাদত, অবসরে ওয়াজের মহফিলে যোগদান, কিছু কুর’আন তেলাওয়াত, কিছু দানখয়রাত, কিছু ঘরোয়া আলোচনা, আপোষের রাজনীতি – এসবে কি সবচেয়ে প্রিয় বস্তুর কুরবানী  হয়? সাহাবাগণ তাদের প্রিয় জান হাতে নিয়ে প্রবল কাফের বাহিনীর মুখোমুখি হয়েছেন। তাঁরা আহত হয়েছেন, শহীদ হয়েছেন বা বেঁচেছেন জিন্দা শহীদ রূপে। মুসলিমের জীবনে তাই দুই অবস্থা। হয় সে আল্লাহ-প্রদত্ত এ জীবনটি কুরবানী  করবে মহান আল্লাহর দ্বীনের বিজয় আনতে। সেরূপ নসীব যদি না হয়, তবে বেঁচে থাকবে আল্লাহর দ্বীনের সাক্ষীদাতা মুজাহিদ রূপে। এ দু’টি অবস্থা ছাড়া মুসলিমের জন্য তৃতীয় অবস্থা নেই। মৃত্যুর মধ্য দিয়ে সে যেমন আল্লাহর পক্ষে সাক্ষী দেয়, তেমনি প্রতিক্ষণ সাক্ষী দেয় জীবিত অবস্থাতেও। আর এটিই তো ঈমানদার হওয়ার দায়বদ্ধতা। এমন ব্যক্তি বিছানায় মারা গেলেও তার মর্যাদা শহীদের সমান বাড়িয়ে দেওয়া হয়। এবং সেটির উল্লেখ এসেছে নিম্মূক্ত হাদীসে। হযরত সাহলো বিন হুনাইফ (রা:)থেকে বর্ণিত: আল্লাহর রাসূল (সা:) বলেছেন, “যে ব্যক্তি শাহাদতের জন্য আল্লাহর কাছে আন্তরিক ভাবে দোওয়া করে আল্লাহ তার মর্যাদাকে বাড়িয়ে শহীদের মর্যাদার সমান করে দেন -এমনকি সে যদি বিছানায়ও মারা যায়।” –(আল মুসলিম))। একই রূপ বর্ণনা এসেছে হযরত আনাস (রা:) থেকে। তিনি বর্ণনা করেছেন: আল্লাহর রাসূল (সা:) বলেছেন, “যে ব্যক্তি আন্তরিক ভাবে আল্লাহর পথে শহীদ হওয়ার জন্য প্রার্থনা করে আল্লাহতায়ালা তাঁকে সে মর্যাদা দিবেন -এমনকি সে যদি যুদ্ধক্ষেত্রে মারা না যায় তবুও।” –(মুসলিম শরীফ)। মুসলিম হওয়ার অর্থই হলো আল্লাহর রাস্তায় জানমালের কুরবানী র সার্বক্ষণিক প্রস্তুতি এবং সুযোগ এলেই স্বতঃস্ফুর্ত ভাবে অংশগ্রহণ। নিজেকে মুসলিম রূপে নিজেকে পরিচয় দিল অথচ আগ্রহ নেই আল্লাহর রাস্তায় কুরবানী তে –সেটি কি ঈমানের পরিচয়? নবীজী (সা:)’র আমলে এমন কোন সাহাবা ছিলেন কি যার মধ্যে আল্লাহর রাস্তায় কুরবানী  পেশের আগ্রহ ছিল না? তারা অর্থ, সময় ও শ্রমদানেই শুধু নয়, দু’পায়ে খাড়া ছিলেন এমনকি প্রাণদানেও। আদর্শ মুসলিম সমাজ তাই জিন্দা শহিদদের সমাজ। এজন্যই প্রকৃত মুসলিম সমাজে অতি দ্রুত উন্নত মানুষ ও সে সাথে উন্নত সভ্যতা নির্মিত হয়। কারণ, শহীদ হওয়ার প্রেরণায় বিলুপ্ত হয় ব্যক্তির দুনিয়াবী লোভ-লালসা। কথা হলো, যে ব্যক্তি নিজের সম্পদই শুধু নয়, প্রাণটিও আল্লাহর রাস্তায় বিলিয়ে দিতে চায় সে অন্যের সম্পদে কেন হানা দিবে? এমন মানুষ সে সমাজে বৃদ্ধি পায়, সে সমাজকে দূর্নীতিমূক্ত করতে পুলিশের প্রয়োজন হয় না। এখানে প্রতিটি ঈমানদার পরিণত হয় দূর্নীতির বিরুদ্ধে অতন্দ্র প্রহরীতে। 

মহান আল্লাহতায়ালা মানুষের নিয়ত দেখেন। দেখেন আমল। হিসাব হয়, সে তার নিয়তে কতটা সাচ্চা ও সচেষ্ট। বান্দা তো পুরস্কার পায় তার নিয়ত ও নিয়ত অনুযায়ী প্রচেষ্ঠার প্রতিদান স্বরূপ। সফলতার জন্য নয়। কারণ সফলতা তো আল্লাহর দান। এখানে বান্দার করণীয় কিছু নেই, বাহবা পাওয়ারও কিছু নেই। ফলে সে সফলতার প্রতিদান স্বরূপ পাওয়ারও কিছু নেই। তাই প্রকৃত ঈমানদার সফলতা নিয়ে ভাবে না, ভাবে সাচ্চা নিয়েত ও আল্লাহর পথে নিজের বিনিয়োগটি নিয়ে। এখানে ব্যর্থ হলে তার বাঁচাটাই ব্যর্থ। খালিদ বিন ওয়ালিদের ন্যায় বহু সাহাবী মনেপ্রাণে শহীদ হতে চেয়েছেন। খালেদ বিন ওয়ালিদ সেনাপতি রূপে বহু যুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তাঁকে বলা হয় সাইফুল্লাহ তথা মহান আল্লাহতায়ালার তরবারী। কিন্তু শাহাদত তাঁর নসীবে হয়নি। সে নসীব হযরত আবুবকর (রা:)’র ন্যায় আরো অনেক প্রথম সারীর সাহাবীরও হয়নি। অপরদিকে অনেক সাহাবী তাদের জীবনের প্রথম জিহাদেই শহীদ হয়ে গেছেন। এজন্যই শাহাদতের প্রেরণা নিয়ে যারা আমৃর্ত্যু লড়াই করে তাদের সে নিয়ত ও মেহনতকেও মহান আল্লাহতায়ালা বিফল হতে দেন না। তাদেরও শহীদের সমপরিমাণ মর্যাদা দেন। সেটিরই ঘোষণা এসেছে উপরুক্ত হাদীসে।

কিন্তু আজ বাংলাদেশের মত দেশে যারা নিজেদের মুসলিম রূপে পরিচয় দিচেছ তাদের ক’জন সাক্ষী দিচ্ছে মহান আল্লাহতায়ালা ও তাঁর দ্বীনের পক্ষে?  ব্যক্তির ঈমানের সুস্পষ্ট প্রকাশ ঘটে কাকে সে ভোট দেয়, কার পক্ষে সে লাঠি ধরে এবং কার বিজয়ে সে ফুর্তি করে –তা দেখে। কারো পক্ষে ভোট দেওয়া বা রাজপথে নামার অর্থ কি এ নয়, যার পক্ষে বা যে বিধান ও মেনিফেস্টোর পক্ষে সে ভোট দেয় -তার বিবেচনায় সে ব্যক্তিটি বা সে বিধানটিই শ্রেষ্ঠ? কোন মুসলিম কি ইসলামে অঙ্গিকারহীন কোন সেক্যুলার দল, নেতা বা প্রার্থীর পক্ষে এমন রায় দিতে পারে? তাতে কি তার ঈমান থাকে? অথচ বাংলাদেশের ন্যায় অধিকাংশ মুসলিম দেশে বহু নামাযী, বহু রোযাদার ও বহু হজ্জ-পালনকারির দ্বারা সেটিই কি হচ্ছে না? এটি তো ইসলামের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট গাদ্দারী। এবং এমন ভোটদানের মধ্য দিয়ে বিদ্রোহের প্রকাশ ঘটছে মহান আল্লাহতায়ালার বিরুদ্ধে।

অধিকাংশ মুসলিম দেশে আজ আল্লাহর বিধান পরাজিত। সেটি কোন কাফের বাহিনীর দখলদারির কারণে নয়। বরং মুসলিম নামধারী সেক্যুলার শক্তির হাতে অধিকৃত হওয়ায়। এবং সেটি সম্ভব হয়েছে মুসলিম নামধারী জনগণের ভোটে ও রাজস্বদানে। সে সাথে প্রশাসন, অফিস-আদালত, রাজপথসহ রাজনীতি ও বুদ্ধিবৃত্তির প্রতিটি ময়দানে তাদের সক্রিয় সমর্থণদানে। ইসলামের যে শত্রু শক্তির বিরুদ্ধে জিহাদ প্রতিটি মুসলিমের উপর ফরজ ছিল –সে শত্রু পক্ষটিই পাচ্ছে তথাকথিত নামাযী-রোযাদারদের বিপুল সমর্থণ। এভাবে ইসলামের শত্রু পক্ষকে বিজয়ী করা কি কম অপরাধ? এক্ষেত্রে একজন মুর্তপূজারী থেকে পার্থক্যটি কোথায়? নিছক তাসবিহ পাঠ ও নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাতে কি অপরাধ থেকে মার্জনা মিলবে? এভাবে কি কখনো প্রতিষ্ঠা পাবে মহান আল্লাহর সার্বভৌমত্ব? কথা হলো, যারা অর্থ দিয়ে, ভোট দিয়ে এবং বুদ্ধি দিয়ে মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনকে পরাজিত করে এবং বিজয়ী করে ইসলামের শত্রুপক্ষকে -মহান রাব্বুল আলামীন কি তাদের উপর প্রসন্ন হবেন? স্রেফ নামে মুসলিম হওয়াতে কি তিনি খুশি হবেন? রোজ হাশরের বিচার দিনে মহান আল্লাহতায়ালা কি এরূপ গাদ্দারদের জান্নাত দিয়ে পুরস্কৃত করবেন? লন্ডন, ১৫/০৯/২০২১।




The new war in Afghanistan and a new turn in history

 Dr. Firoz Mahboob Kamal

A new war with a new strategy      

The enemies’ war never ends. They only change the strategies and the weapons. That is exactly true for the USA and its allies. The military war of the USA and its allies has ended in Afghanistan. But the Taliban is still perceived as an enemy. Hence, the war continues. But it is an economic cum ideological war. The USA and its allies are now behaving like wounded wolves. They are not in a mood to swallow the humiliating defeat. They are exploring every possible way to take revenge on the Taliban. They have killed directly and indirectly more than a million people in Afghanistan. They have dropped thousands of bombs to destroy cities, villages, and homes.

But a predator never stays silent in a cave. The appetite for causing more harm to the Taliban and to the Afghan people now guides US policy. Creating the worst famine in Afghanistan is now a lethal weapon in the US hands. To cause such a famine, the USA has blocked Afghanistan’s reserve of 8 billion US dollars in the USA’s monetary institutions. The USA-dominated World Bank has also blocked 6 billion US dollar aid for Afghanistan. Thus, making Afghanistan a failed state and discrediting the Taliban for the failure is their joint strategy. They didn’t bother about the deaths of innocent Afghans during the war of occupation; nor do they bother about the deaths during the ongoing economic occupation. 

Before the USA occupation, Afghanistan was not a country of the destitute.  The country’s economy was not that worse as it is now. In those days, the people were not so desperate to leave the country like today. The current dire economic crisis owes to 30 years’ war against foreign occupation. The war went on for10 years against Soviet Russia in the 1980s and 20 years against the USA. The long occupational wars of the foreign invaders made Afghanistan a country of destruction, deaths, refugees, and severe economic crisis.

The USA and its allies have left Afghanistan. But the worst consequences of the long war stay there to aggravate the pains of the people and cause terrible hurdles for the Taliban administration. It is widely acclaimed that with the victory of the Taliban, the law and order situation has drastically improved. Peace has returned back. Men and women can move without fear of being killed or robbed outside the home. But the war-fatigued Taliban fight the imposed economic war.

But it is a shame that the western media and the western leaders are blaming the Taliban for all the ongoing miseries in Afghanistan. Moreover, the west’s ideological foot-soldiers are let loose in the streets of Kabul to protest against the Taliban for western values cum feminist rights. They are not ready to give the Taliban a war-free time to restore the peace, tranquillity, and economy of the country. They conveniently forget that Afghanistan is a war-torn country. Not surprisingly, the UN Human Rights Council is now vocal on women’s rights and human rights in Afghanistan. They look selective and biased against the Taliban. Whereas, they remain conspicuously silent on the survival rights of the Afghan people under the US occupation.   

 

The war on Islam

The USA and its western allies have their beloved legacies and ideologies. These western nations are raised in a culture of imperialism, colonialism, colonial exploitation, racism, nationalism, fascism, and ethnic cleansing. They need an enemy to feed their imperial war and war industries. In the past, they had a communist block led by the Socialist Soviet Union of Russia. After its collapse, they have identified Islam as the new enemy. These countries are now ruled by people who are intoxicated by Islamophobia. They hate everything that relates to the revival of Islam. Terrorism is now defined to fit into their war agenda. Islamists are now labeled as terrorists.

They consider the Islamists who want to return back to the original Islam of Prophet Muhammad (peace be upon him) that constitutes Islamic state, sharia, pan-Islamic unity, and jihad as a security threat to the west. Former British Prime Minister Tony Blair postulated such apprehension in a recent seminar in London. This way the people of his ilk justify the pre-emptive occupation of Muslim countries as a legitimate right. Thus, they legitimize the west’s perpetual war on Islam.

Mr. Tony Blair showed his strong distaste for the USA’s withdrawal from Afghanistan. He believes in a perpetual war against radical Islam and Islamists. After the US withdrawal, he even suggested a European war against the Islamists. For people like him, the occupation of Palestine, the demolition of Palestinians’ homes, the ethnic cleansing of the occupied land, and the settlement colonization in Palestine are the legitimate normal. Hence they don’t raise any voice against Israel. Any protest against the western or Israeli occupation is labeled as a war against western values, culture, and democracy –as was proclaimed by George W. Bush while launching the US war on Afghanistan. This way they raise the necessary foundation of a civilizational war.

 

No love for people

The USA and its allies have no love for the survival right or the economic wellbeing of the people of Afghanistan; nor for any other people in any of the Muslim countries. They don’t bother either about democracy, human rights, women’s rights, or health rights for these poor people. They make these issues only to sell their political and military objectives to others in the world.

The USA has invested 2.2 trillion US dollars in the war in Afghanistan. They have invested 2.1 trillion US dollars in the war in Iraq. If they have any love for the people of Afghanistan they would have invested a few billion to save lives. Currently, it is reported that more than 70 percent of people in Afghanistan live in poverty. Even a UNO official told in the UNO’s Security Council about a looming economic catastrophe there. But that is not an issue in the ruling circles of the west. They are worried about women’s burkha and feminist rights. In the name of inclusivity, they are desperate to put more pressure on the Taliban to take some political enemies in the cabinet. They are putting pressure to stop the implementation of the fundaments of Islam. This way they run an ideological war on Muslims.  

The USA and its allies celebrated the military victory of the USA in Afghanistan by killing and torturing thousands of people. They opened torture industries in Bagram, Guantanamo Bay, and Abu Ghraib, and in many client states. To escape international law, they even established torture cells in cargo ships floating in deep oceans. Hundreds of Islamists are kept in jail for about 20 years without any trial. These are the US standards. Those who have an iota of love for human life and dignity, can they indulge in such brutality?

Whereas on 15 August 2021, while the Taliban got the military victory, they showed their love and honor for human lives and dignity. None was killed. None was tortured. None was arrested. Such a peaceful victory didn’t happen in the whole span of western history. The Taliban announced general amnesty to everyone. Even those who collaborated with the US occupying forces in killing the Taliban fighters are given amnesty. Such a glorious history didn’t enjoy even a mention in the morally depleted western press. They are busy vilifying the Taliban.

 

The investment only in wars

The USA and its allies are ready to invest trillions of dollars in the war of occupation and geopolitical dominance. They invest to run socio-cultural engineering to produce mental slaves in third-world countries so that they can work as mercenaries. But they dislike investing in peace and development. In the last 20 years, they have created a huge number of mental slaves in Afghanistan to make them fully incompatible with the native people, native culture, and the Islamic faith. They are nurtured only to fight against Islam and the Islamists hands in hands with the foreign occupiers. These misfits are the people who are now queueing up to leave Afghanistan. This reveals how much the USA and its allies have corrupted people’s mind and culture and alienated from Islam. 

The US ruling elites love war-like deep polarization of the world. So the US President George W. Bush prescribed the dichotomy: either with us or against us. Neutrality in the US-led war and staying away from the war weren’t given an option. So they have divided the world into two poles: the US-led pole of anti-Muslim and the pole of Muslims. Afghanistan is deeply divided on that. It is good news for the Islamists that they could defeat the most powerful world power. The credit goes to the Taliban. They proved to be the great heroes of Islam.

 

The ray of new hope

Now it is the beginning of the end of the American Empire. In history, the Muslims have proved to be the destroyers of superpowers. They destroyed the Persian Empire, the Roman Empire, the Soviet Empire, and the British Empire. Now they are on a head-to-head collision against the American Empire. In dismantling the British Empire, the ending of British rule in India played a crucial role. Because the huge wealth of India played a major role to give sustenance to the British Empire. Its huge manpower also gave expansion to the British occupation in Africa and other parts of the world. The Indian Muslims played the most decisive role to drive the British out of India. In this regard, the Khilafat Movement against the British was the first mass movement in Indian political history. Mr. Ghandi of the Indian Congress didn’t see such a mass movement in India before. He also gave support to it. The Khilafat Movement was indeed the Indian Muslims’ strong retaliation against the British for their role in dismantling the Osmania Khilafa. That was the beginning of the quick end of the British Empire.

World history is now taking a sharp new turn. At least, the Muslims now have a state to showcase the beauty of Islam. It is the most significant turning point of modern history. Only those who earnestly love to sacrifice their lives to please All-Powerful Allah can change the fate of human history. Muslims proved that many a time in the past. The Taliban are proving it now. Almighty Allah Sub’han wa Ta’la becomes an integral part of such a Divine mission. The Taliban have shown that the blood of the martyrs is mightier than bombs, drones, and missiles. This is indeed the strength of Islam.11/09/2021.         




নামায কেন ব্যর্থ কাঙ্খিত লক্ষ্যে?

ফিরোজ মহাবুব কামাল

নামাযের কেন এতো গুরুত্ব?

যে ইবাদতটি বিশ্বের সকল অমুসলিম থেকে মুসলিমকে পৃথক করে -তা হলো নামায। হাদীসে বর্ণিত হয়েছে, নামায কাফের ও মুসলিমের মাঝে দেয়াল রূপে কাজ করে। নামায না থাকলে মুসলিম আর অমুসলিমের মাঝে কোন পার্থক্যই থাকে না, উভয়ে একাকার হয়ে যায়। ব্যক্তির ঈমান দেখা যায় না। রোযাও দেখা যায় না –যদি সে নিজে থেকে তা প্রকাশ না করে। তেমনই কে যাকাত দেয়, সেটিও বুঝা যায় না –যদি না সে ব্যক্তি অন্যদের জানিয়ে দেয়। আর হজ্জ তো সবার জন্য ফরজ নয়; ফলে হজ্জ না করাতে কেউ অমুসলিম হয় না। কিন্তু নামায দেখা যায়। কারণ নামাযে যে শুধু দৃশ্যমান ক্বিয়াম, রুকু, সিজদা ও বৈঠক আছে –তা নয়। নামায পড়তে হয় লোকালয়ের মসজিদে হাজির হয়ে এবং অন্যদের সাথে কাতার বেঁধে। ঘরে বা দোকানে নামায পড়লেও তা অন্যদের নজরে পড়ে। তাই কে নামাযী আর কে বেনামাযী -সমাজে সেটি গোপন থা্কে না। অপর দিকে নামাযই ব্যক্তির ঈমানের পরিমাপ দেয়; মুসলিম না অমুসলিম -সেটিও প্রকাশ করে দেয়। প্রতিদিনের প্রশিক্ষণে যদি কোন সৈনিক হাজির না হয় তবে সৈনিকের খাতায় তার নাম থাকে না। কারণ, সৈনিক জীবনে থাকে যুদ্ধের দায়বদ্ধতা। দায়িত্ব পালনের সে সামর্থ্য কখনোই প্রশিক্ষণ ছাড়া সৃষ্টি হয়না। ফলে প্রশিক্ষণে আগ্রহ নাই -এমন ব্যক্তির পক্ষে অসম্ভর হয় সৈনিক হওয়া। এমন ব্যক্তি বহিস্কৃত হয় সেনা বাহিনী থেকে। তেমনি মসজিদের জামায়াতে যে ব্যক্তি হাজির হয় না -তাকেও কি মুসলিম বলা যায়? মুসলিম মাত্রই তো মহান আল্লাহতায়ালার সৈনিক। তাঁর জীবনে আমৃত্যু যুদ্ধটি হলো অসত্য ও অন্যায়ের নির্মূলে এবং সত্য ও ন্যায়ের প্রতিষ্ঠায়। সে যুদ্ধেও তো সামর্থ্য ও কুরবানী চাই। প্রশিক্ষণও চাই। চাই তাকওয়ার বল। নামায-রোযা এবং হজ্জ-যাকাতের ন্যায় ফরজ ইবাদতগুলি তো ঈমানদারের মাঝে তাকওয়া বৃদ্ধি এবং সামর্থ্য বৃদ্ধির প্রশিক্ষণ। এরূপ প্রশিক্ষণে মুনাফিকদের অংশগ্রহণ থাকে না। ফলে তারা নিয়মিত হাজির হয়না মসজিদের ৫ ওয়াক্ত নামাযে –বিশেষ করে ফজর ও এশার নামাযে। তাদের দেখা যায়না ইসলামকে বিজয়ী করার জিহাদে। এভাবেই প্রকাশ পায় তাদের মনের মাঝে লুকানো মুনাফিকি।  

কোন বেনামাযী যে জান্নাতে যাবে না -তা নিয়ে বিতর্ক নাই। কারণ, জান্নাত তো একমাত্র ঈমানদারদের জন্য। সে পবিত্র স্থানে বেঈমানের কোন স্থান নেই। আর ঈমানদার তো সেই যে নামায পড়ে। আগুন জ্বললে, উত্তাপ দিবেই। তেমনি হৃদয়ে ঈমান প্রবেশ করলে, সে ব্যক্তির জীবনে নামায-রোযা আসবেই। আগুন থেকে যেমন তার উত্তাপকে আলাদা করা যায় না, তেমনি ঈমানদার থেকে পৃথক করা যায় না তাঁর নামাযকে। হাদীসে বলা হয়েছে, মহান আল্লাহতায়ালা সর্বপ্রথম যে ইবাদতের হিসাব নিবেন সেটি হলো নামায। সুরা মুলকে বলা হয়েছে, জাহান্নামবাসীদের জিজ্ঞাসা করা হবে তোমরা কীরূপে এখানে পৌঁছলে? সর্বপ্রথম যে কারণটিকে তারা উল্লেখ করবে তা হলো, তারা নামায পড়তো না। নামাযের মূল্য বেনামাযীগণ ইহকালে না বুঝলেও বুঝবে জাহান্নামে পৌঁছার পর। জাহান্নামবাসীদের সে বেদনাদায়ক উপলব্ধিকে মহান আল্লাহতায়ালা কুর’আনে উল্লেখ করেছেন গুরুত্বপূর্ণ একটি উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে। সেটি হলো, যাদের জীবনে এখনো মৃত্যু আসেনি তাদেরকে সাবধান করতে। জাহন্নামে পৌঁছার আগে তথা দুনিয়ার বুকে থাকতেই তারা যেন বুঝতে পারে নামাযের গুরুত্ব। নইলে জাহান্নামে পৌঁছে শুধু আফসোসই হবে, করার কিছু থাকবে না। কুর’আন মজীদ মানব জীবনের রোডম্যাপ। এ রোডম্যাপ শুধু জান্নাতের পথই দেখায় না, পথ চলায় ভূল হলে -সে ভূলটিও তুলে ধরে। তাই সামনে অপেক্ষামান জাহান্নামের বিপদের কথাও বলে।    

 

নামায কীরূপে ব্যর্থ হয়?                                                                 

চিনিকলে আঁখ দিলে তা চিনিতে পরিণত হয়। সেটি না হলে বুঝতে হবে চিনিকলে যান্ত্রিক ত্রুটি রয়েছে? নামাযের মধ্যেও তেমনি একটি প্রক্রিয়া কাজ করে -যা পরিশুদ্ধি আনে ব্যক্তির চিন্তা, চেতনা ও চরিত্র। সেরূপ পরিশুদ্ধি না এলে বুঝতে হবে নামাযে বড় রকমের ত্রুটি আছে। এবং ত্রুটি কোথায়, সেটি বুঝতে হলে নামাযকে মিলিয়ে দেখতে হয় নবীজী (সা:) ও তাঁর সাহাবীদের নামাযের সাথে। কারণ, তাঁরাই হলেন নামাযসহ সকল ইবাদত-বন্দেগীর অনুকরণীয় মডেল। নামাযের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ শুধু ক্বিয়াম, রুকু, সিজদা বা বৈঠক নয়। স্রেফ সুরা পাঠ, তাশাহুদ পাঠ, দরুদ ও তাসবিহ পাঠও নয়। বরং সেটি হলো মহান আল্লাহতায়ালার সাথে নামাযীর মনের সংযোগ। এবং সে সংযোগটি ঘটে তাঁর রহমত, কুদরত, ফজিলত ও আয়াত সমূহের স্মরণের মধ্য দিয়ে। সুরা বাকারা’য় বলা হয়েছে, “ফাযকুরুনি আযকুরুকুম” অর্থ: “তোমরা আমাকে স্মরণ করো, আমিও তোমাদের স্মরণ করবো।” এটি বান্দার প্রতি মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে ঘোষিত পবিত্র ওয়াদা। আর ওয়াদা পালনে তাঁর চেয়ে আর কে শ্রেষ্ঠতর হতে পারে?

সুরা যুখরুফে বলা হয়েছে, কারো মন থেকে যখন আল্লাহতায়ালার স্মরণ বিলুপ্ত হয় তখন তার উপর শয়তান নিযুক্ত করে দেয়া হয়। এবং সে শয়তান তাকে জাহান্নামে নেয়। সুরা হাশরে বলা হয়েছে যারা মহান আল্লাহতায়ালাকে ভূলে থাকে তাদের অন্তর থেকে ভূলিয়ে দেয়া হয় নিজেদের  কল্যাণের বিষয়গুলি। নামাযের মুল কাজ তো ঈমানদারের মনে মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণকে কম পক্ষে দিনে ৫ বার জাগ্রত করা। সেটি শুরু হয় নামাযের আযান ও ওযু থেকে। নামাযে দাঁড়িয়ে মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণের মাধ্যমে ঈমানদার নিজেও স্থান করে নেয় মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণে। এটিই তো নামাযের সর্বশ্রেষ্ঠ কৃর্তি। ব্যক্তির চেতনা রাজ্যে নামাযের সে গভীর আধ্যাত্মিক আছড় সেটি শুরু হয় আযান থেকে। আযানের মধ্যে ধ্বনিত হয় মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে উদাত্ত আহবান -যা হৃদয়বান মানুষের হৃদয়ে টান দেয়। সম্প্রতি একটি জরিপ চালানো হয়েছে ইউরোপ-আমেরিকার নও মুসলিমদের উপর। তাদের জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল তারা কীরূপে ইসলামে আকৃষ্ট হলো? জরিপে বেড়িয়ে আসে, ইসলামের প্রতি তাঁদের আকৃষ্ট হওয়ার সবচেয়ে বড় কারণটি হলো আযান। তুরস্ক, মরক্কো, মিশর, তিউনিসিয়ার মত মুসলিম দেশে বেড়াতে গিয়ে তাঁরা জীবনে প্রথম মসজিদ থেকে ভেসে আসা আযান শুনে। সে মধুর আযানই নাকি তাদের হৃদয়ের গভীরে নাড়া দিয়েছিল। পরবর্তীতে তাদের অধিকাংশই পবিত্র কুর’আন পড়ে মুসলিম হয়। অর্থাৎ যেখানেই মহান আল্লাহতায়ালার নিজের বাণী সেখানেই তার বিশাল মোজেজা।     

কিন্তু নামাযীর মন থেকে মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণ বিলুপ্ত হলে কি সে নামাযের কোন মূল্য থাকে? সেটি তো মনের এক চেতনাহীন বেহাল অবস্থা। সেরূপ অবস্থা থেকে মুক্তি দিতে পবিত্র কুর’আনে বলা হয়েছে,“হে ঈমানদারগণ, তোমরা মাদকাসক্ত অবস্থায় নামাযের নিকটবর্তী হয়োনা -যতক্ষণ না তোমরা যা পড় তা বুঝতে না পারো…”। –(সুরা নিসা, আয়াত ৪৩)। উপরুক্ত আয়াতে রয়েছে চিন্তা-ভাবনার এক গুরুতর বিষয়। আয়াতটি যখন নাযিল হয়, মদ তখনও হারাম হয়নি। ফলে নবীজী (সা:)’র কোন কোন সাহাবী মাতাল অবস্থায় মসজিদে হাজির হতেন। মদপানের কুফল হলো, এতে বিলুপ্ত হয় চিন্তা-ভাবনার ক্ষমতা। তখন নামাযীর মন থেকে বিলুপ্ত হয় মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণ। এবং বিলুপ্ত হয় মহান মা’বুদের সাথে বান্দার মনের সংযোগ। ফলে নামাযে পবিত্র কুর’আন থেকে যা কিছু তেলাওয়াত হয় -তাতে মনযোগ দেয়া তখন অসম্ভব হয়। তখন অসম্ভব হয় চেতনায় জাগরন বা পরিশুদ্ধি। আর চেতনায় পরিশুদ্ধি না আসলে চরিত্রে পরিশুদ্ধি আসবে কীরূপে? অথচ কুর’আন নিজেই যিকরের কিতাব। সে যিকরের সাথে নিজেকে জড়িত করতে তো যিকির রত মন চাই। সুরা ক্বাফে বলা হয়েছে, “ইন্না ফি যালিকা লা যিকরা লিমান কানা লাহু ক্বালবুন আও আলকাস সাময়া ওয়া হুয়া শাহীদ।” অর্থ: নিশ্চয়ই এ কিতাব (কুর’আন)’র মধ্যে রয়েছে যিকর; (এবং সেটি) তাদের জন্য যাদের রয়েছে ক্বালব এবং যারা কাজে লাগায় শ্রবনশক্তিকে এবং সাক্ষ্য দেয় সত্যের পক্ষে। –(সুরা ক্বাফ, আয়াত ৩৭)। অর্থাৎ কুর’আন থেকে শি্ক্ষা নিতে চাই জাগ্রত ক্বালব, তীক্ষ্ণ শ্রবনশক্তি এবং সত্যকে সত্য রূপে দেখার দৃষ্টিশক্তি। মাদক-সেবন এর সবগুলিই কেড়ে নেয়। ফলে ব্যহত হয় সুস্থ্য বিবেক নিয়ে এবং সজ্ঞান মুসলিম রূপে বেড়ে উঠা। পবিত্র জায়নামাযে নামাযীর এরূপ মাদকাসক্তি ও মনযোগহীনতা মহাজ্ঞানী মহান আল্লাহাতায়ালার কাছে ভাল লাগেনি। তাই হুকুম দিয়েছেন মদ-জনিত চেতনাহীনতা নিয়ে নামাযে না দাঁড়াতে। তবে মদ যেরূপ কুর’আনের আয়াত বুঝা ও তা নিয়ে ভাবনার সামর্থ্য কেড়ে নেয়ে, অবিকল সে ক্ষতিকর কাজটিই করে কুর’আন বুঝার অক্ষমতা। বিপদের আরো কারণ, মদের আসক্তি কয়েক ঘন্টায় দূর হয়, কিন্তু মুসলিম মনে সে অক্ষমতার আছড় থাকে আমৃত্যু। তাই মদ পান পরিহার করা যেমন ফরজ, তেমন ফরজ হলো কুর’আনী জ্ঞানের অজ্ঞতা দূর করা। এজন্যই ইসলামের নামায-রোযা ফরজ হওয়ার প্রায় ১১ বছর আগে কুর’আনের জ্ঞানার্জন ফরজ করা হয়েছে। “ইকরা” অর্থাৎ “পড়” হলো পবিত্র কুর’আনে ঘোষিত প্রথম নির্দেশ। কুর’আনের জ্ঞানে মুর্খ থাকা কি তাই কোন ঈমানদারের সাজে? সাহাবাদের সকল সাফল্যের মূলে ছিল জ্ঞানার্জনের ফরজ পালনে সফলতা। কিন্তু আজকের মুসলিমদের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা হচ্ছে এ ফরজ পালনে। এটি যে ফরজ -সে হুশই বা ক’জনের? ক’জন বুঝে পবিত্র কুর’আনের আয়াত? মাদসাক্ত মাতালদের চেয়ে এ ব্যর্থতা কি কম? মুসলিম জীবনে কাঙ্খিত সাফল্য আনতে নামায ব্যর্থ হচ্ছে মূলত কুর’আন বুঝার এ নিদারুন অক্ষমতা থেকেই।   

 

শ্রেষ্ঠ যিকর

মু’মিনের উত্তম যিকর হলো তাঁর নামায। এরূপ পবিত্র যিকির পীরের খানকায়, সুফি হালকায় বা বনে-জঙ্গলে সম্ভব নয়। তাই পবিত্র কুর’আনে  সে সব খানকায়, হালকায় ও বনে-জঙ্গলে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়নি। বরং নির্দেশ এসেছে নামাযে ছুটে যাওয়ার। সুরা জুম্মায়াতে বলা হয়েছে, “যখন জুম্মার দিনে নামাযের জন্য ডাকা (আযান দেয়া) হয়, তখন তোমরা আল্লাহর যিকিরে ( অর্থাৎ নামাযে) ছুটে যাও।” নামায ঈমানদারকে প্রতিদিন ৫ বার সে যিকরে হাজির করে। ঈমানদার ব্যক্তি এভাবে শুধু নিজেই মহান আল্লাহতায়ালার যিকর করে না, বরং অন্ততঃ দিনে ৫ বার মহা প্রভুর স্মরণে জায়গা করে নেয়। এভাবেই গড়ে উঠে মহান মা’বুদের সাথে বান্দার গভীর সম্পর্ক।

বস্তুত প্রতিটি ইবাদতই হলো মহান আল্লাহতায়ালার যিকর। রোযার যিকর হয় সমগ্র দিন ব্যাপী এবং সেটি সমগ্র রমযানের মাস জুড়ে। হজ্জে সে যিকর চলে হজ্জের ইহরাম বাধাকালীন সময়ে। মহান আল্লাহতায়ালার যিকর তখনও হয় যখন বান্দা যাকাত দেয়। এদিক দিয়ে নামায অনন্য; যিকরের আয়োজন হয় কম পক্ষে দিনে ৫ বার এবং চলে আমৃত্যু। যারা তাহাজ্জুদ ও নফল নামায পড়ে -তাদের জীবনে যিকরের মাত্রা আরো অধিক ও দীর্ঘ। অপর দিকে একমাত্র নামাযেই যিকরের কিতাব তথা পবিত্র কুর’আন থেকে পাঠ করাটি বাধ্যতামূলক; রোযা, হজ্জ বা যাকাতের ন্যায় অন্য কোন ইবাদতে সেটি হয়না।

সর্বকালে ও সর্বজনপদে মানবের মনে যিকর তথা ধ্যানমগ্নতাকে প্রতিষ্ঠা দেয়াই হলো মহান আল্লাহতায়ালার নীতি। কারণ, এ যিকরই দেয় ব্যক্তির মনে জান্নাতের পথে নিবিষ্ট হওয়ার আগ্রহ। মজবুত করে মহান আল্লাহতায়ালার সাথে আত্মীক বন্ধন। মনের গভীরে সর্বদা জাগ্রত রাখে রোজ হাশরের বিচার দিনে জবাবদেহীতার ভাবনা। বলা হয়েছে নামায হলো মু’মিনের মীরাজ। মীরাজ গড়ে মহান আল্লাহতায়ালার সাথে সরাসরি সংযোগ –যা সাধিত করেছিল নবীজী (সা:)’র জীবনে। মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণ ও তাঁর সাথে সংযোগ প্রতিষ্ঠায় প্রতি যুগেই নামায গণ্য হয়েছে শ্রেষ্ঠ মাধ্যম রূপে। তাই হযরত মূসা (সা:)’র সাথে প্রথম বাক্যালাপেই তাঁকে যে নির্দেশটি দেয়া হয় সেটি হলো নামাযের। হযরত মূসা (সা:)’র সাথে মহান আল্লাহতায়ালার প্রথম বাক্য বিনিময় হয় পবিত্র তুয়া উপত্যাকায়। নিজ পরিবারকে নিয়ে তখন তিনি মিশরে ফিরছিলেন। হযরত মূসা (সা:)কে নির্দেশ দেয়া হয়, “নিশ্চয় আমিই আল্লাহ এবং আমি ছাড়া আর কোন ইলাহা নাই। অতএব আমার ইবাদত করো এবং প্রতিষ্ঠা দাও নামাযকে –যাতে আমার যিকর করতে পার।” –(সুরা ত্বাহা, আয়াত ১৪)। 

নামাযে যিকরের মূল ভূমি হলো কুর’আনের আয়াত। পবিত্র কুর’আনের আয়াতগুলির মাধ্যমে নামাযীর মনের গভীরে মহান আল্লাহাতায়ালা তাঁর পবিত্র বাণীগুলি গেঁথে দেন। তখন আলোকিত তাঁর অন্তর। নামাযের মাধ্যমেই ঘটে মু’মিনের চেতনার সাথে মহাপ্রভুর একান্ত সংলাপ। সেটি পবিত্র কুর’আনের সুরা পাঠের মাধ্যমে। তখন ধ্যানমগ্ন হয় নামাযীর মন। কিন্তু ধ্যানের সে সামর্থ্য মাতাল ব্যক্তির অবচেতন মনের থাকে না। সে সামর্থ্যটি শুধু মদই কেড়ে নেয় না, সেটি বিলুপ্ত হয় কুর’আন বুঝায় অক্ষমতার কারণেও। এমন নামাযীগণ ব্যর্থ হয় তাদের নিজ জীবনে কাঙ্খিত চারিত্রিক, আধ্যাত্মিক ও নৈতিক বিপ্লব আনতে।

তাই কত কোটি লোক নামায পড়লো সেটিই বড় কথা নয়। কতজন দুর্বৃত্তকে নামায চরিত্রবান করলো, কতজনকে ফিরালো পাপকর্ম থেকে এবং কতজনকে মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনকে বিজয়ী করার মুজাহিদে পরিণত করলো -সেটিই মূল কথা। এক্ষেত্রে মুসলিম দেশগুলির কোটি কোটি নামাযীর ব্যর্থতাটি বিশাল। ব্যর্থতার দলিল হলো: নামায পড়েও কোটি কোটি মানুষ মিথ্যা বলছে, ঘুষ খাচ্ছে, সূদ খাচ্ছে, দুর্নীতি করছে এবং শরিয়ত প্রতিষ্ঠার বিরুদ্ধে রাজনীতিও করছে। বাংলাদেশের ন্যায় মুসলিম দেশ রেকর্ড গড়ছে দুর্বৃত্তিতে। এক্ষেত্রে ব্যর্থতাটি নামাযের নয়, বরং যারা নামায পড়ে তাদের। নামাযী ব্যর্থ হচ্ছে নামাযে দাঁড়িয়ে ধ্যানমগ্ন হতে। নামাযী ব্যর্থ হচ্ছে নামাযে দাঁড়িয়ে নিজ জীবনের হিসাব নিতে। ব্যর্থ হচ্ছে মহান আল্লাহতায়ালার সংলাপ ও তাঁর এজেন্ডার সাথে একাত্ম হতে। এ ব্যর্থতার মূল কারণ, নামাযীদের কুর’আন বুঝার অক্ষমতা। এ অক্ষমতা ডেকে আনে মানব জীবনের সবচেয়ে ভয়ানক পরিনতিটি। সেটি জাহান্নামে পৌঁছার।

নামাযীকে নামাযের প্রতি রাকাতে কুর’আনের কিছু অংশ পাঠ করতে হয়। নইলে নামাযই হয় না। নামাযের অতি গুরুত্বপূর্ণ অংশটি হলো ক্বিয়াম অর্থাৎ জায়নামাযে দাঁড়িয়ে থাকাকালীন সময়। এ সময়টিতে কুর’আন থেকে কিছু অংশ পাঠ করা হয়। কুর’আন পাঠের সে কাজটি রুকু, সিজদা বা বসাকালীন সময়ে হয় না। তাই যে নামাযে দীর্ঘ সময় ক্বিয়ামে কাটানো হয় -সে নামাযের ওজন অধিক। নবীজী (সা:) ও সাহাবায়ে কেরাম রাতের প্রায় অর্ধেক বা এক-তৃতীয়াংশ দাঁড়িয়ে আস্তে আস্তে তারতিলের সাথে কুর’আন পাঠে কাটিয়ে দিতেন। নামাযের সাথে কুর’আনের গভীর সম্পর্কের বর্ণনাটি এসেছে সুরা আরাফে। বলা হয়ছে, “এবং যারা শক্তভাবে আঁকড়ে ধরলো কুর’আনকে এবং প্রতিষ্ঠা দিল নামাযকে, নিশ্চয়ই আমরা (এরূপ) সৎকর্মশীলদের প্রতিদানকে নষ্ট করিনা।”–(আয়াত ১৭০)। একই রূপ বর্ণনা এসেছে সুরা আনকাবুতে। বলা হয়েছে, “(হে মুহম্মদ), তোমার উপর ওহী রূপে যা নাযিল করেছি তা পাঠ করো কিতাব থেকে (অর্থাৎ কুর’আনকে) এবং প্রতিষ্ঠা দাও নামাযকে। নিশ্চয়ই নামায বাঁচায় ফাহেশা (অশ্লিলতা, জ্বিনা, পাপাচার) ও দুর্বৃত্তি থেকে। এবং নিশ্চয়ই আল্লাহর যিকরই সর্বশ্রেষ্ঠ কর্ম। এবং আল্লাহ জানেন -যা কিছু তোমরা করো। –(সুরা আনকাবুত, আয়াত ৪৫)। উপরুক্ত দুটি আয়াতে  পবিত্র কুর’আন এবং নামাযে কুর’আন পাঠের গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। দিনের অন্য সময়ে কুর’আন পাঠের সুযোগ না মিললেও সেটিকে ৫ বার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে নামাযে সুরা তেলাওয়াতের মাধ্যমে। রোগের ভ্যাকসিন নিলে সে রোগ থেকে বাঁচার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তখন শরীরে বৃদ্ধি পায় সে রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা। কুর’আনের জ্ঞান ব্যক্তির চেতনা রাজ্যে তেমনি এক ভ্যাকসিনের কাজ করে। তখন বাড়ে দুষ্ট মতবাদ, মিথ্যা ও ফাহেশার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা। ফলে যে ব্যক্তি কুর’আন বুঝার সক্ষমতা নিয়ে প্রতিদিনে ৫ ওয়াক্ত নামায আদায় করে সে বাঁচে সকল প্রকার অশ্লিলতা, জ্বিনা, মিথ্যাচার, পাচার ও দুর্বৃত্তি থেকে।

পাঁচ ওয়াক্ত নামায ফরজ হয়েছে মিরাজের পর অর্থাৎ হিজরাতের মাত্র এক বা দেড় বছর আগে। প্রশ্ন হলো, এর আগে প্রায় ১১ বছর যাবত মক্কায় অবস্থান কালে কি ছিল নবীজী (সা:) ও তাঁর সাহাবাগণের ইবাদতের ধরণ? সে সময়ের ইবাদত ছিল পবিত্র কুর’আন পাঠ তথা কুর’আনের জ্ঞানার্জন। জ্ঞানই পরিশুদ্ধি আনে চেতনা ও চরিত্র। গড়ে তাকওয়া। তাই অজ্ঞ ও জ্ঞানী ব্যক্তির চেতনা-চরিত্র কখনোই একই রূপ হয়না। সাহাবায়ে কেরাম যেরূপ সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব গড়ে উঠতে পরেছিলেন তার মূলে ছিল পবিত্র কুর’আনের গভীর জ্ঞান। নবুয়ত লাভের পর প্রথম যে কয়েকটি সুরা নাযিল হয়েছিল তার মধ্যে অন্যতম হলো সুরা মুজাম্মিল। এ সুরায় নবীজী (সা:)’র উপর নির্দেশ এসেছে যেন তিনি রাতের অর্ধেক অংশ বা তার চেয়ে কিছু বেশী বা কম অংশ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পবিত্র কুর’আন থেকে আস্তে আস্তে তেলাওয়াত করেন। সাহাবাগণও সেটিই করতেন। ৫ ওয়াক্ত নামায ফরজ হওয়ার পূর্বে ১১ বছর ধরে সে কাজ অবিরাম ভাবে চলতে থাকে। এভাবেই সাহাবাদের হৃদয়ে গভীর ভাবে স্থান করে নেয় পবিত্র কুর’আনে র জ্ঞান। সে জ্ঞানের উপর নির্মিত হয় তাদের বিস্ময়কর আধ্যাত্মিক, নৈতিক ও চারিত্রিক কাঠামো। এভাবে তারা বেড়ে উঠেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব রূপে।

 

যে নামায কল্যাণ আনে

নামায মুসলিম জীবনে কল্যাণ দিবে -সেটিই তো কাঙ্খিত। কিন্তু আজকের মুসলিম জীবনে নামাযের সে কল্যাণ কতটুকু? বাস্তবতা হলো, কোটি কোটি মানুষ নামায পড়লেও সবার নামায একই রূপ হয় না। সকল নামাযীর চেতনায় ও চরিত্রে একই রূপ বিপ্লবও আসে না। বরং অনেক নামাযীর জীবনে আসে মারাত্মক স্খলন। নামাযকে সফল করতে হলে যত্নবান হতে হয় নামাযের প্রতিটি ধাপে। প্রতি ওয়াক্ত নামাযের জন্য রয়েছে সুনির্দিষ্ট সময়; খেয়াল রাখতে হয় ওয়াক্তের দিকে। যেমন বলা হয়েছে, “নামায নির্দিষ্ট সময়ে আদায়ের জন্য মু’মিনদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।” –(সুরা নিসা, আয়াত ১০৩)। তবে জরুরি শুধু নির্দিষ্ট সময়ই নয়, বরং গুরুত্বপূর্ণ হলো নামাযের জন্য নির্দিষ্ট স্থান মসজিদে গিয়ে নামায আদায়। এজন্যই জরুরি হলো, নামাযের আযান শুনে মসজিদের দিকে ধাবিত হওয়া। তাই মসজিদে নামায পড়া ও সঠিক ওয়াক্তে নামায পড়ার ক্ষেত্রে যারা গাফেল -তাদের রোগটি ঈমানে।

হাদীসে বলা হয়েছে, “যখন কোন মু’মিন ব্যক্তি নামাযের জন্য মসজিদ অভিমুখে রওয়ানা দেয়, তখন থেকেই সে নামাযের মধ্যে দাখিল হয়ে যায়। প্রতি কদমে বৃদ্ধি করা হয় তাঁর মর্যাদা। মসজিদে গিয়ে নামাযের অপেক্ষায় বসে থেকেও সে নামাযের সওয়াব পায়।” মসজিদে নামায আদায়ের সওয়াব ঘরে নামায আদায়ের চেয়ে ২৭ গুণ অধিক। এমন কি অন্ধ ও পঙ্গুদেরও মসজিদে গিয়ে নামায আদায়ের উৎসাহ দিয়েছেন। আব্দুল্লাহ ইবনে উম্মে মকতুম (রা:) ছিলেন অন্ধ। তিনি নবীজী (সা:)কে বল্লেন, “আমি তো চোখে দেখিনা, ফলে মসজিদে গিয়ে নামায আদায় করা কঠিন। আমি কি অনুমতি পেতে পারি ঘরে নামায পড়ার?” নবীজী (সা:) জিজ্ঞেস করলেন, “আপনি কি ঘর থেকে আযান শুনতে পান?” বল্লেন, “হাঁ, আমি আযান শুনতে পাই।” নবীজী (সা:) বল্লেন, “তবে আপনাকে মসজিদে এসেই নামায পড়তে হবে।” –(আবু দাউদ শরীফ)। হযরত আবু হুরায়রা (রা:) থেকে বর্ণীত হাদীস: নবীজী (সা:)  বলেন, “আমার ইচ্ছা হয়, জ্বালানী কাঠ সংগ্রহের নির্দেশ দেই্। এরপর আযানের পর কাউকে ইমামতির দায়িত্ব দিয়ে ঐসব লোকদের বাড়ীতে যাই যারা মসজিদে নামাযে আসেনি এবং তাদের ঘরগুলি জ্বালিয়ে দেই।”–(বুখারী ও মুসলিম শরীফ)। আবু দাউদ শরীফের হাদীস: “যদি কোন মহল্লায় তিন জন মুসলিমও বাস করে তবে তাদের উচিত জামায়াতবদ্ধ ভাবে নামায আদায় করা।

তাছাড়া মসজিদে নামায আদায়ে মনের যে একাগ্রতা ও ধ্যানমগ্নতা থাকে -তা ঘর, অফিস বা দোকানের নামাযে থাকে না। কারণ, ঘর, অফিস ও দোকানে অন্যদের শোরগোল, কথা-বার্তাসহ দৃষ্টি কেড়ে নেয়ার মত অনেক কিছুই থাকে। ফলে সেখানে থাকে না যিকিরের পরিবশে। কিন্তু মসজিদ সাঁজানো হয় নামাযের জন্য। তাছাড়া মসজিদে বসে অন্যের নামায দেখে শেখারও অনেক কিছু থাকে। নামাযরত পাশের ব্যক্তির একাগ্রতা, ধ্যানমগ্নতা ও দীর্ঘ রুকু-সেজদা দেখে নিজের মনেও ভাল নামায আদায়ের আকাঙ্খা জাগে। তাছাড়া নেকড়ের পাল যেমন বিশাল মহিষকে একাকী পেলে ঘিরে ধরে, তেমনি ঈমানদারকে একাকী পেলে ঘিরে ধরে শয়তানও। তখন বান্দাহর উপর শয়তানের বিজয় সহজ হয়ে যায়।

 

মুসলিমের মিশন ও নামায

ইসলাম শুধু ব্যক্তির জীবনে পরিশুদ্ধি চায় না। পরিশুদ্ধি চায় সমাজ ও রাষ্ট্রের চৌহদ্দিতেও। চায়, দুর্বৃত্তির নির্মূল ও ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা। সে লক্ষ্যে চায়, ইসলামী রাষ্ট্রের নির্মাণ। সেরূপ একটি প্রকল্পকে বিজয়ী করতে সকল ঈমানদারদেরকে তাই অভিন্ন ভিশন, মিশন ও একতা নিয়ে বাঁচতে হয়। মুসলিমের মিশন তো তাই যা মহান আল্লাহতায়ালার ভিশন। পবিত্র কুর’আনে ঘোষিত মহান আল্লাহতায়ালার সে পবিত্র ভিশনটি হলো “লি’ইউযহিরাহু আলাদ্দিনি কুল্লিহি” অর্থাৎ সকল দ্বীনের উপর তাঁর দ্বীন তথা ইসলামের বিজয়। ঈমানদারের দায়বদ্ধতা হলো সে ভিশন নিয়ে বাঁচা। ফলে মুসলিমের বাঁচার মিশনে লড়াই তখন অনিবার্য হয়ে পড়ে। কারণ, ইসলামের শত্রুপক্ষের দখলে যে ভূমি সেটি তারা বিনা যুদ্ধে ছাড়তে রাজী নয়। ফলে জিহাদ ছাড়া মহান আল্লাহতায়ালার ভিশন নিয়ে সামনে এগুনোর আর কোন রাস্তা থাকে না। যুদ্ধ যেখানে অনিবার্য, সেখানেই অপরিহার্য হলো সৈনিকের রিক্রুটমেন্ট, দুর্গ, সৈন্য ও সৈন্যের প্রশিক্ষণ। মসজিদ হলো সেই কাঙ্খিত দুর্গ, প্রতিটি নামাযী হলো সৈনিক এবং ৫ ওয়াক্ত নামায হলো সেই প্রশিক্ষণ। অস্ত্র চালানোর সামর্থ্যই সৈনিকের মূল গুণ নয়, সেটি হলো ব্যক্তির নিষ্ঠা, শৃঙ্খলা ও আত্মদানে তাঁর আগ্রহ। নামায এসব গুলোই করে। ব্যক্তির নামাযই বলে দেয়, সৈনিক রূপে সে কতটা সাচ্চা। যে ব্যক্তি মসজিদের ৫ ওয়াক্ত নামাযে হাজির হতে পারে না, সে কি ইসলামের সৈনিক হতে পারে?  

প্রশিক্ষণের অর্থ শুধু সামরিক কলাকৌশল শেখানো নয়, বরং মূল বিষয়টি হলো ইসলামের বিজয়ে জান, মাল, মেধাসহ সকল সামর্থ্যের বিনিয়োগে নামাযীকে মানসিক ভাবে প্রস্তুত করা। যে কোন যুদ্ধের জন্য এ প্রস্তুতিটা অতি গুরুত্বপূর্ণ। এবং লক্ষ্য, নামাযীদের মাঝে সিসাঢালা দেয়ালসম অটুট ঐক্যের প্রতিষ্ঠা দেয়া। অতীতে মুসলিমগণ যখন একের পর বিজয় এনেছে, তখন মসজিদ ছাড়া তাদের কোন দুর্গ বা ক্যান্টনমেন্ট ছিল না। নামায ছাড়া তেমন নিয়মিত কোন প্রশিক্ষণও ছিল না। মসজিদের জায়নামাযে বসে জিহাদের প্রস্তুতি নেয়া হতো। রাজস্বের সিংহভাগ খরচ করে তখন কোন সেনাবাহিনী পালতে হয়নি। ক্যান্টনমেন্টও গড়তে হয়নি। নামাযীগণ তখন নিজ অর্থ, নিজ খাদ্য, নিজ বাহন ও নিজ অস্ত্র নিয়ে রণাঙ্গণে হাজির হতো। এ ছিল তাদের মানসিক প্রস্তুতির নমুনা। জিহাদকে তারা জান্নাতে প্রবেশের বাহন মনে করতো। মুসলিমদের মাঝে একতা, শৃঙ্খলা, আত্মনিয়োগ ও কুরবানীর সে বিস্ময়কর সামর্থ্য গড়ে উঠেছিল নামাযের জায়নামাযে। আজ মুসলিম দেশগুলিতে বিপুল অর্থ ব্যয়ে ক্যান্টনমেন্টের সংখ্যা বেড়েছে। সৈন্য সংখ্যা ও তাদের প্রশিক্ষণের আয়োজনও বেড়েছে। কিন্তু তাতে বিজয় বাড়েনি। বরং বেড়েছে পরাজয়। বেড়েছে সেনাবাহিনীর হাতে দেশের অধিকৃতি ও দেশবাসীর পরাধীনতা। তাদের চেতনায় আত্মত্যাগের সামর্থ্য বাড়েনি। বরং বেড়েছে স্বার্থসিদ্ধির দুর্দম্য নেশা। ফলে বহু মুসলিম দেশে সৈনিকেরা পরিণত হয়েছে দুর্বৃত্ত ফ্যাসিস্ট শাসকচক্রের চাকর-বাকরে। এরই উদাহরণ বাংলাদেশ। নৃশংস ফ্যাসিস্ট শাসকের গদি বাঁচাতে ঢাকার শাপলা চত্ত্বরে ২০১৩ সালে ৫মে তারিখে নিরীহ মুসল্লীদের উপর বাংলাদেশের সেনাবাহিনী গণহত্যা চালিয়েছে।  

অন্য ধর্মের অনুসারিগণ ক্লাবে বা মদ্যশালায় বন্ধুত্ব গড়ে ও জোটবদ্ধ হয়। মুসলিমগণ ভাতৃত্বের বন্ধন গড়ে মসজিদের পবিত্র মেঝেতে। জায়নামাযে ভাষা, গোত্র, বর্ণ ও এলাকাভিত্তিক কোন বিভক্তি থাকে না। সব নামাযীকে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাতার বাঁধতে হয়। হাদীসে বলা হয়েছে, কাতারে ফাঁক থাকলে সেখানে শয়তানের অনুপ্রবেশ ঘটে। জামাতবদ্ধ হওয়ার এ রীতি মুসলিমগণ তাদের গৌরব কালে শুধু জায়নামাযে সীমিত রাখেননি, প্রতিষ্ঠা দিয়েছেন সমাজ ও রাষ্ট্রীয় অঙ্গণেও। প্রতিষ্ঠা দিয়েছেন রণাঙ্গণে। জামাতবদ্ধ নামাযের সেটিই তো গুরুত্পূর্ণ  শিক্ষা। মুসলিম মনে এমন একটি প্যান-ইসলামিক চেতনা বলবান হলে মুসলিমদের ভৌগলিক মানচিত্র বিশাল ভাবে বাড়লেও তাতে ভূগোল খন্ডিত হয় না। মুসলিম জীবনে নামায তো এভাবেই সাংস্কৃতিক বিপ্লব এনেছে। সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে একতা ও ভাতৃত্ব নিয়ে বাঁচার।

কিন্তু আজ মুসলিম উম্মাহর মাঝে যে বিভক্তি, তা দেখে নিশ্চিত বলা যায়, নামায থেকে তারা কোন শিক্ষাই গ্রহণ করেনি। একতার চেতনা তারা মসজিদের বাইরে আনতে পারিনি। তাদের নামায ব্যর্থ হয়েছে তাদের মাঝে সীসাঢালা দেয়ালসম একতা গড়তে। ফলে মুসলিম উম্মাহ আজ ৫৭টি রাষ্ট্রে খন্ডিত। অথচ বিভক্তি গড়া যেমন হারাম, তেমনি হারাম হলো উম্মাহর বিভক্ত মানচিত্র নিয়ে বাঁচা। এবং পবিত্র ইবাদত হলো বিভক্তির দেয়াল ভেঙ্গে একতা গড়া –সেটি যেমন রাজনৈতিক অঙ্গণে, তেমনি ভৌগলিক অঙ্গণে। মুসলিম রূপে বাঁচায় শুধু পানাহার হালাল হলে চলে না, হালাল হতে হয় দেশের রাজনীতি ও ভৌগোলিক মানচিত্রও। নইলে বিপর্যয় অনিবার্য। পরিতাপের বিষয় হলো আজকের মুসলিমগণ নিজ দেশে শুধু সূদি ব্যাংক, পতিতাপল্লী, মদের ব্যবসাকেই প্রতিষ্ঠা দেয়নি, প্রতিষ্ঠা দিয়েছে হারাম রাজনীতি ও হারাম মানচিত্রও। হারাম পরিত্যাগের চেতনাই যেন বিলুপ্ত হয়েছে। মুসলিম মানচিত্রের ভিত্তি হতে হবে প্যান-ইসলামিক মুসলিম ভাতৃত্ব; ভাষা, বর্ণ, গোত্র ও আঞ্চলিকতা ভিত্তিক বিভক্তি নয়। নবীজী (সা:) তাঁর সাহাবাদের যুগে কি ভাষা, অঞ্চল ও গোত্রের নামে এরূপ বিভক্তির দেয়াল গড়ার কথা ভাবা যেত? অথচ তাদের গড়া সে আমলের বিশাল ভূগোল ভেঙ্গে ৫০টির বেশী বাংলাদেশ গড়া যেত। কিন্তু তারা সেরূপ হারাম মানচিত্র নির্মাণের পথে পা বাড়াননি। তারা বেছে নিয়েছেন একতা ও গৌরবের পথ। এবং এ পথই তো হলো, মহান আল্লাহতায়ালাকে খুশি করার পথ। এটিই তো নামাযের সংস্কৃতি। অপরদিকে বিভক্তি তো শয়তানকে খুশি করার পথ। আজকের মুসলিমগণ মুসলিম বিশ্বের ভৌগলিক আয়োতন এক ইঞ্চিও বাড়ায়নি, বরং বাড়িয়েছে রাষ্ট্রের সংখ্যা। বিভক্তির সে হারাম পথ বেছে নেয়ায় ঘটেছে ভাতৃঘাতী গভীর রক্তপাত এবং নিজ দেশে ডেকে আনা হয়েছে কাফের শত্রুদের। পরিতাপের বিষয় হলো মুসলিমগণ আজ শয়তানকে খুশি করার পথই বেছে নিয়েছে। এজন্যই ১৯৭১য়ে গড়া বাংলাদেশের মানচিত্রে ভারত উৎসব করে। এবং ২২ টুকরায় বিভক্ত আরবের মানচিত্র  প্রচণ্ড খুশি হয় ইসরাইলসহ তাবত কাফের শক্তি।

             

যে নামায আযাব আনে

নামায শুধু ঈমাদারগণই পড়ে না। মুনাফিকগণও পড়ে। মহান আল্লাহতায়ালা খুশি হন মু’মিনদের নামাযে এবং প্রচণ্ড অখুশি হন মুনাফিকদের নামাযে। এমন নামাযীর উপর মহান আল্লাহতায়ালা তখন অভিসম্পাত দেন।তাই শুধু নামায পড়লেই চলে না, নজর রাখতে হয় নামায যেন মুনাফিকের নামাযে পরিণত না হয়। সওয়াবের বদলে যেন আযাব ডেকে আনে। কি ধরণের নামায মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে ধ্বংস ও অভিসম্পাত ডেকে আনে -সে বিষয়টি জানানো হয়েছে সুরা মাউনে। বলা হয়েছে, “ফা ওয়াইলুল্লিল মুছাল্লীন। আল্লাযীনা হুম আন সালাতিহিম সা’হুন। আল্লাযীনা হুম ইউরাউন।” অর্থ: “অতঃপর ধ্বংস ঐসব নামাযীদের জন্য -যারা অমনযোগী বা দেরীতে নামায আদায় করে। তারা নামাযে খাড়া হয় লোক দেখানোর জন্য।”- (সুরা মাউন, আয়াত ৪-৬)।

নামায না পড়লে গর্দান থেকে ইসলামের রশি ছিন্ন হয়ে যায়। নবীজী (সা:)’র জামানায় নামায গণ্য হতো মুসলিমের মূল পরিচিতি রূপে। যারা নামায পড়তো না, তারা গণ্য হতো কাফের রূপে। মুসলিম সমাজে কাফের রূপে পরিচিত হওয়ার বিপদ বুঝে মুনাফিকগণও তখন নামাযকে বেছে নিত ঢাল রূপে। তারা শুধু নামাযই পড়তো না, বরং নবীজী (সা:)’র পিছনে প্রথম কাতারে খাড়া হতো। লোক-দেখানো সে নামাযের মধ্য দিয়ে তারা মুসলিমদের ধোকা দিত। এবং ধোকা দিত মহান আল্লাহতায়ালাকেও। নামায নিয়ে মুনাফিকদের সে ষড়যন্ত্রকে ফাঁস করেছে সুরা নিসা। বলা হয়েছে, “নিশ্চয়ই মুনাফিকগণ আল্লাহকে ধোকা দেয়, আসলে তিনিই (আল্লাহ) তাদেরকে ধোকা দেন। এবং যখন তারা নামাযে দাঁড়ায়, দাঁড়ায় আলস্য নিয়ে এবং লোক-দেখানোর উদ্দেশ্য। আল্লাহকে তারা সামান্যই স্মরণ করে।” –(আয়াত ১৪২)।

তাই নামায বা অন্য কোন নেক আমল করলেই মহান আল্লাহতায়ালার কাছে তা গৃহিত হবে -বিষয়টি তেমন সহজ সরল নয়। নেক আমল কবুলের কিছু শর্ত আছে। সে শর্তের কথা শুনানো হয়েছে সুরা তাওবাতে। বলা হয়েছে, “তাদের দান আল্লাহর কাছে গৃহিত হওয়া থেকে কোন কিছুই বাধা দেয় না -একমাত্র এছাড়া যে, তারা অস্বীকার করে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলকে, নামাযে দাঁড়ায় আলস্য নিয়ে এবং দান করে অনিচ্ছা নিয়ে।” –(আয়াত ৫৪)। ইবাদত রূপে গ্রহণযোগ্যতা পেতে হলে নামাযীকে তাই জায়নামাযে দাঁড়াতে হয় মহান আল্লাহতায়ালার প্রতি গভীর আত্মনিবেদন ও আত্মসমর্পণ নিয়ে। পবিত্র কুর’আনে সে ঘোষণাটি এসেছে এভাবে, “নিশ্চয়ই কামিয়াবী মু’মিনদের জন্য। যারা নামাযে আত্মনিবেদিত।”–(সুরা মু’মিনুন, আয়াত ১-২)। এবং সে আত্মনিবেদন ও আত্মসমর্পণ শুধু নামাযে সীমিত রাখলে চলে না, প্রতিষ্ঠা দিতে হয় নামাযের বাইরেও। সে আত্মসমর্পণের প্রকাশ ঘটাতে হয় রাজনীতি, শিক্ষা-সংস্কৃতি, আইন-আদালত ও ব্যবসা-বাণিজ্যসহ সর্বত্র। নইলে গাদ্দারী হয়। নামাযের সাথে সে নগ্ন গাদ্দারীটি ধরা পড়ে যখন রাজনীতিতে সেক্যুলারিজম, জাতীয়তাবাদ ও স্বৈরাচার, অর্থনীতিতে সূদ, সংস্কৃতিতে অশ্লিলতা, সরকারি অফিসে ঘুষ এবং আদালতে শরিয়তী আইনের বদলে কুফরি আইনকে প্রতিষ্ঠা দেয়া হয়।

 

নামায দেয় দোয়ার পরিবেশ

মহান আল্লাহর দরবারে দোয়া সর্বাবস্থায় করা যায়। চলতে ফিরতে, কর্মস্থলে, এমন কি বিছানায় শুয়েও তাঁর কাছে আরজী পেশ করা যায়। মু’মিনের জন্য মহান আল্লাহতায়ালার দরবার সব সময়ই খোলা। তবে দোয়ার শ্রেষ্ঠতম সময় যেমন নামায, তেমনি নামায শেষে জায়নামায। মহান আল্লাহতায়ালার সংযোগ গড়তে পীর বা দরবেশের মধ্যস্থতা লাগে না। তিনি সংযোগে সরাসরি লাইন বান্দার হাতে তুলে দিয়েছেন। মহান দয়াময়ের নাম ধরে ডাক দিলেই তিনি তাঁর স্মরণের জায়গাতে মু’মিনের জন্য সাথে সাথে স্থান করে দেয়। এবং সেটিই হলো পবিত্র কুর’আনে বর্ণিত মহান রাব্বুল আলামীনের প্রতিশ্রুতি। নাময তো দোয়া পেশের তেমন একটি পবিত্র পরিবেশ সৃষ্টি করে। মহান আল্লাহতায়ালা চান, নামাযের মাধ্যমে তাঁর ঈমানদার বান্দাহ তাঁর দরবারে আবেদনটি পেশ করুক। এটিই হলো বান্দার জন্য নামাযের সবচেয়ে বড় অবদান। নির্দেশ দেয়া হয়েছে, “হে ঈমানদারগণ, তোমরা ছবর ও নামাযের সাহায্যে সাহায্য চাও। নিশ্চ্য়ই আল্লাহ ধৈয্যশীলদের সাথে।” –(সুরা বাকারা, আয়াত ১৫৩)। মহান আল্লাহতায়ালা থেকে মাগফিরাত লাভের এটিই হলো তাঁর নিজের দেখানো পথ। তাই দয়াময় রাব্বুল আ’লামীনের দরবারে দোয়া পেশের জন্য যেমন ছবর চাই, তেমনি চাই নামায। নামায ছেড়ে যারা পীরের মাজারে বা সুফি হালকায় দোয়া কবুলের জন্য ধর্না দেয়, তাদের জন্য এ আয়াতে রয়েছে চরম হুশিয়ারি।

দোয়ার গুরুত্ব কি, দোয়া কি ভাবে করতে হয় এবং কোন দোয়াটি শ্রেষ্ঠ সেটিও শিখিয়েছেন মহান আল্লাহতায়ালা। সে শিক্ষাটি দেয়া হয়েছে সুরা ফাতেহা’তে -যা পাঠ করতে হয় নামাযের প্রতি রাকাতে। এ সুরা পাঠ না করলে নামাযই হয় না। তাই জরুরি শুধু সুরা ফাতেহা পাঠ নয়, বরং এ সুরার প্রতিটি বাক্যের অর্থ হৃদয়ে গভীর ভাবে ধারণ করা। সুরা ফাতেহা’র মূল বিষয় তিনটি। প্রথমে বর্ণিত হয়েছে মহান আল্লাহতায়ালার মর্যাদা। বলা হয়েছে,“আল হামদু লিল্লাহি রাব্বিল আ’লামীন”।  অর্থ: সকল প্রশংসা একমাত্র মহান আল্লাহতায়ালার। তিনিই “রাহমানির রাহীম”, তিনিই “মালিকি ইওয়ামিদ্দিন।” অর্থাৎ আল্লাহতায়ালা হলেন সবচেয়ে দয়াময় এবং দয়া করাই তার নীতি। এবং তিনিই রোজ হাশরের দিনের সর্বসময় কর্তা। দ্বিতীয় যে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি এ সুরায় বর্ণিত হয়েছে তা হলো মুসলিম জীবনের মিশন। সে মিশনটি হলো: “ইয়্যাকা না’বুদু ওয়া ইয়্যাকা না’স্তায়ীন।” অর্থাৎ আমরা ইবাদত করি একমাত্র মহান আল্লাহর এবং একমাত্র আল্লাহ থেকেই আমরা সাহায্য ভিক্ষা করি।

সুরা ফাতেহার তৃতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো দোয়া। এবং সে দোয়াটি হলো “ইহদিনাস সিরাতাল মুস্তাকীম”। অর্থ: “(হে মহান আল্লাহ), আমাকে সিরাতুল মুস্তাকীম তথা জান্নাতের পথটি দেখান।” এটিই হলো মানব জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দোয়া। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চাওয়াটি সম্পদ ও সন্তান চাওয়া নয়, সেটি এই সিরাতুল মুস্তাকীম। যে ব্যক্তি সিরাতুল মুস্তাকীম পেল, সেই তো জান্নাত পেল। এর চেয়ে বড় পাওয়া মানব জীবনে আর কি হতে পারে? ধনসম্পদ, সন্তান-সন্ততি ও সুঠাম স্বাস্থ্য তো কাফেরও পায়। কিন্তু তা কি জান্নাতে নেয়? যে ব্যক্তি ব্যর্থ হলো সিরাতুল মুস্তাকীম পেতে, সে পৌঁছে জাহান্নামে। এর চেয়ে বড় ক্ষতিই বা কি হতে পারে? মহান আল্লাহতায়ালা অশেষ রহমত হলো, মানব জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চাওয়া-পাওয়ার বিষয় কি এবং কি ভাবেই বা সেটি রাব্বুল আলামীনের কাছে চাইতে হয় -সেটি তিনি সুরা ফাতেহাতে শিখিয়ে দিয়েছেন। নামায এভাবে জীবনের সবচেয়ে বড় ক্ষতিটি থেকে যেমন বাঁচতে শেখায়, তেমনি দেখায় সবচেয়ে বড় কল্যাণের পথ। নামায এভাবেই কাজ করে জান্নাতে চাবি রূপে। লন্ডন, ১০/১২/২০২০।




The Indian war on Muslims and the occupied Kashmir

Dr. Firoz Mahboob Kamal

The war on the Indian Muslims

India’s war on Muslims is not new. It is ongoing since the country’s independence in 1947 from British rule. The Indian Hindutva leaders can’t reconcile the old wounds of defeat by the Muslims. They conveniently forget that such wounds are not specific to the Hindus, every nation on the earth has scars of such defeats. They consider the long Muslim rule in India as a denigrating stigma on their religious identity that haunts them all the time. The Muslims not only built the Taj Mahal and scores of other monuments in India but also built the Indian economy that could constitute at the time of Mughal Emperor Aurangzeb about 27 per cent of the global GDP. Whereas when the British left India, India could constitute only 3 per cent of the world GDP. (Shashi Tharoor: Inglorious Empire). British historian William Dalrymple wrote, “In 1600, when the British East Indian Company was established, Great Britain had 1.8 per cent of the world GDP, and India had 22.5 per cent. (Professor Amartya Sen’s article published in Ananda Bazar).  The Muslim rulers never caused any famine in India; but the British caused a devastating famine in Bengal in 1769-70 -the richest province of India to kill one-third of its population. The British created another famine in Bengal in 1943 that killed 3 million.

The Hindus can forget and forgive the British colonial rule, loot, genocide and the destruction of the Indian economy, but can’t appreciate the patriotic rule of the Muslims. The Muslim rulers never take back the wealth from India to build palaces and cities in their ancestral lands in central Asia as the British did to cause massive development in the UK. Moreover, for the independence of India from British rule, Muslims gave more blood than the Hindus. In the India gate of Delhi, there is a list of martyrs, in that list, the Muslims outnumber the Hindus by a huge margin. But propaganda continues to vilify Muslims as the enemies of India.

Such a toxic Hindu mindset against Muslims influences Indian politics decisively. The emergence of the extremist Hindutva forces in politics indeed owes to such a hostile mindset. They consider the creation of Pakistan a victory of the Muslims and inimical to the Hindutva dream of an undivided India. The Hindutva leaders use the history of past Muslim rule and the creation of Pakistan to fuel the anger of the common Hindus. As result, an average Indian Hindu has become incurably sadist. They enjoy everything that harms or damage Muslim life, honour and property. And any Muslim succss anywhere in the world makes them Islamophobic and gloomy. Such an Islamophobic impact is visible in the Indian media after the recent Taliban victory in Afghanistan. 

India is the home of the highest number of the poorest people in the world. The average life span, infant mortality, child mortality, per capita income and GDP growth are inferior to that of Bangladesh. The Hindu caste system makes social and religious disintegration and exclusion obligatory. Hence it makes the inclusion of people of different religions, colours, and ethnicity in its political fabric impossible. This is why more than 200 million Muslims and 200 million Dalits stay excluded from the hierarchy of power and politics. India was united only three times in its whole history; that too by the non-Hindu rulers. They are the Buddhist ruler Ashoka, the various Muslim rulers and the British colonialists. In the name of religion, they follow the ancient ignorance like idol worshipping cow worshipping, snake worshipping, etc. Surprisingly, such primitive ignorance has become a matter of huge hubris in the Hindu psyche. Since they find no real glory to celebrate, they have made it a euphoric sport to harm, kill, lynch, humiliate and rape Muslims. In such a toxic milieu of anti-Muslim hatred, the anti-Muslim riots, exclusion of the Muslims from government jobs, eliminating them from politics, annulment of their citizenship rights and pushing back the Muslims into a neighbouring country like Bangladesh enjoy huge popularity among the Hindu majority. The Indian war on Muslims gets fuel from such an ideological cum political build-up.

 

Two war fronts

In its war on Muslims, India has two frontiers of hostilities. One is on the border against Pakistan. The other one is the internal war against Muslims living inside India. The Hindutva Hindus don’t feel happy to give Muslims survival rights inside India. Such a mindset gets loudly expressed in the popular Hindutva slogan in the streets. They shout with rancour that the Indian Muslims have only two destinations: either to Pakistan or to kabaristan (graveyard). The current Bharatiya Janata Party (BJP) government of India pursues such a Hindutva policy of Muslims’ exclusion officially. The National Citizenship Registration (NCR) is in fact a ploy to exclude millions of Muslims as foreign infiltrators –blamed to be from Bangladesh. However, the Indian government doesn’t give any factual basis. Since the socio-economic condition of Bangladesh is better than India, infiltration of Bangladeshis into India is baseless rhetoric only to serve the political agenda of the Hindutva elements.

Nevertheless, the project like sending Muslims to kabaristan (graveyard) gets executed through frequent genocidal massacres in the form of anti-Muslim riots. Even many Indian politicians told in public that such whole massacres in daylight can only happen with direct government patronage. In 2002, such a massacre went on for about a week in the capital of Gujrat under Narendra Modi’s direct watch. The following few examples of massacres can give some glimpses on how the task of sending Muslims to kabaristan (graveyard) gets executed in India. These are the Hyderabad genocide in 1948, the Gujrat riot in 1969, the Moradabad massacre in 1980, the Nellie genocide in 1983, the Gujrat riot in 1985, the Hashimpura massacre in 1987, the Bhagalpur massacre in Bihar in 1989, the Bombay riot in 1992, the Gujrat genocide in 2002, the Malagao bombing in 2006, the Muzaffarnagar riot in 2013, the Assam massacre in 2014, and the Delhi riot in 2020. These are only a few of thousands of anti-Muslim riots.

 

The Indian wars of occupation

The Hindutva Hindus believe in undivided India. Hence they exploit every opportunity to grab new land to expand their border. The Hindutva forces are divided into two brands: the hardcore one called RSS-BJP-Bishwa Hindu Parisad axis and the softcore one that includes Indian National Congress and other Hindu dominated political parties. The occupation of Kashmir, genocide in Hyderabad, demolition of Babri Mosque and many genocidal massacres took place under the so-called softcore Hindutva parties like Congress. 

After its independence in 1947, India started its war of occupation against the weakly neighbouring Indian states. During British rule, India had 550 princely states. As per declared principle, the princely states were given the right to join either Pakistan or India or could remain independent. But India used its military might to override such rights of the individual states. The ruler of Hyderabad wanted to stay independent, but the Indian Army invaded Hyderabad and launched a genocidal massacre to annex it. The Indian Army and the Hindutva terrorist killed about 200,000 Muslims in Hyderabad. Since Vallabhbhai Patel led the annexation cum genocides there, became the most revered Hindutva icon of Hindutva politics in India. Prime Minister Narendra Modi’s government built Mr Patel’s statue in Gujrat which is the largest statue in the world. This way his anti-Muslim massacre has been glorified in India. 

India also annexed Junagarh and Manvadar by its military might in 1948. The Muslim rulers of both these states declared to join Pakistan. India justified the annexation of these two states on the basis of the majority Hindu population. But the Indian government reversed the same argument in the case of Kashmir. Kashmir is a Muslim majority state but India annexed it on the ground that its Hindu ruler acceded to India. The people were not given the right to join Pakistan or stay independent.  India also annexed Nagaland. Whereas Nagaland was never a part of India except for a brief period of the British occupation. India also occupied Sikkim, and it was done through political horse-trading and trickery.     

 

The genocide in Kashmir

India’s occupation of Kashmir is indeed a part of its constant war on Muslims and to expand its border. In Kashmir, the genocidal massacre, rape and torture is continuing since 1947. What happened to Muslims in Jammu in 1947 is catastrophic. It was a pure genocide. The Jammu region of Kashmir had a Muslim majority population before the massacre of 1947. The ruling Hindu Maharaja took a policy of Muslim cleansing of the state and started it from the southern district of Jammu. The RSS terrorists and Sikhs conducted the genocide with the Maharaja’s patronage. After the Muslim cleansing, Jammu becomes a Hindu majority district. Recently, Prime Minister Narendra Modi separated the Hindu majority Jammu from Kashmir and made it a federal territory. 

Horace Alexander while writing in The Spectator in January 1948 says, “Hindus and Sikhs of the Jammu area… apparently with at least the tacit consent of the Hindu state authorities, have driven many thousands of their Muslim neighbours from their homes”. Citing Gandhi –the Congress leader, he asserts that “some two hundred thousand are… not accounted for”. Christopher Sneddon, in his article “Kashmir: The Unwritten History” estimates that between 70,000 and 237,000 Muslims were killed in Jammu. (Quote from Karan Thapar’s article).

Arjun Appadurai and Arian Mack, in India’s World, believed that 200,000 could have been killed in Jammu and a further 500,000 have been displaced. Much higher figures were reported by the newspapers of the time. The Statesman suggested 500,000 Muslims were killed. The journalist Ved Bhasin and the scholar Ilyas Chattha claimed that the RSS was involved in the genocide -supported by Kashmir’s Maharaja Hari Singh. (Quote from Karan Thapar’s article).

Wajahat Habibullah in his “My Kashmir: The Dying of the Light” suggests two reasons. First, it occurred when communal riots and brutal massacres were happening right across northern India. In that bigger outrage, this smaller tragedy seems to have been forgotten. But the second reason is intriguing. It exposes the complicity of Sheikh Abdullah, then the undisputed leader of the Kashmir Valley in the crime. He could draw attention to this massacre, but he deliberately chose to ignore it because the Muslims of Jammu did not support his National Conference but were inclined towards Jinnah’s Muslim League. The Sheikh’s politics seems to have silenced his conscience! (Quote from Karan Thapar’s article). In the face of such a crime, silence or negligence is nothing but complicity in the crime. And Shaikh Abdullah committed that crime deliberately.

During the last three decades of the intensified war since the 1980s, the Indian Army have killed about 100,000 Kashmiris and raped hundreds of women. Torturing, killing and raping have become routine brutality of the Indian Army in Kashmir. What happened on January 21, 1990, in Gawkadal, Srinagar is horrific. Indian Army killed 52 unarmed civilians and injured 250 –reported by Human Rights Watch. On January 6 1993, the Indian Border Security Force (BSF) killed 43 unarmed civilians in Sopore in Kashmir who were travelling on a bus. On October 22, 1993, in Bijbehara, the BSF killed 51 civilians. It has been reported by Amnesty International. On 29 and 30 May 2009 at Bongam in Shopira district, the Indian Army men abducted, raped, and murdered two young women and their bodies were drowned in a stream. These are only a few examples and tips of an iceberg.

The Indian rulers have no shame, no integrity, no common sense and no honesty. Even the common Indians don’t show intellectual soundness either. What low morale and an ideological sense that they still worship cows, snakes, mountains, rivers, naked sadhus, etc., and drink cow urine. It is shame that they could elect a man like Narendra Modi who is the murderer of more than 3 thousand people in Gujrat. How a man with an iota of moral sense can do that? What a shame that Mr Modi still believes that his ancestral Indians could fly in the sky and could transplant elephants’ noses on humans. Surprisingly, these fantasies are taught in schools. Many Hindus also believe that cow urine contains gold and can cure Covid-19.

 

Peaceful solution blocked

India has blocked any sort of peaceful solution to the Kashmir issue. A peaceful solution is only possible if the legitimate rights of the people are honoured and justice is delivered. Justice is not the continuation of the military occupation. But the Indian government doesn’t show any interest in that. They have taken a warpath and want to sustain the occupation by continuous war. The Indians show their pride in democracy. They boast India as the largest democratic state in the world. But they don’t allow democracy to work in Kashmir.

Democracy means respecting people’s verdicts. But in Kashmir, India is imposing its own agenda and ignores people’s wishes. India claims that Kashmir is an integral part of India. That is the wish of the Hindutva Hindus. Do the people of Kashmir subscribe to such an Indian view? That could be only proven by a plebiscite that Jawaharlal Nehru promised to conduct in 1948 –as it was planned in the UNO Security Council proposal for the peaceful solution of the Kashmir problem. The UNO Security Council appointed the US Admiral Nimitz to conduct a plebiscite in Kashmir. But India didn’t allow Admiral Nimitz to enter Kashmir and to do that. Thus India betrayed its own promise with the support of Soviet Russia.

India reiterates bilateral dialogue with Pakistan to solve the Kashmir problem. But it puts a red line by saying that Kashmir is India’s integral part. Thus the wish of the Kashmiri people is kept off the table of any bilateral dialogue. Pakistan is not allowed to question that wishful claim of India. So the door of a negotiated solution to the Kashmir problem is unilaterally closed by India. Now there remains only a single option, and that is a liberation war. Even a Kashmiri child understand that. Such a liberation war is called jihad in Islam. But India –like any other occupying forces label such a liberation war as terrorism.  

 

The way-forward

The Indian war of occupation going on for more than 30 years in Kashmir.  India has deployed more than 600,000 troops to crush a few thousand mujahids. India has employed the most sophisticated weapons bought from the USA and Israel. But still, they see no success even in the distant future. It is already causing huge economic bleed to the poor Indian economy. The Indians have yet to learn that Islam’s jihad is undefeatable. The jihad of the mujahids has another undefeatable Power on the top of it. He is the All-Powerful Allah Sub’hana wa Ta’la. Any victory in war is decided only by Him.

If war is a perfect jihad, its ownership does not stay in the hands of mujahids. It is owned by Allah Sub’hana wa Ta’la. And All-Powerful Allah decides its fate. This indeed gives the undefeatable strength to jihad. The Army of Angels come down from the haven to fight with the mujahids to give victory. The Muslim history is full of such Divine help starting from the first war against the infidels in the field of Badar. This is why the ragtag poorly armed Muslims could defeat huge Armies of Roman and Persian Empires –the contemporary World Powers. It may look fantasy to a non-Muslim. But a Muslim can never be a true Muslim unless he or she believes in such an undefeatable Power of Allah Sub’hana wa Ta’la.

In jihad, the Mujahids have a solemn duty. They must make their war 100 per cent pure jihad. They must protect it from the toxic venom of nationalism, tribalism, secularism, and other vile ideas. Otherwise, such ideological pollution kills the spirit of jihad and causes delinking from Allah Sub’hana wa Ta’la. Then it causes deprivation of His help. Exactly that happened in the case of PLO. Mr Yasser Arafat and his secular colleagues under the influence of Jamal Abdel Nasser and other Arab nationalists made the war against Israeli occupation a secular nationalist war; therefore failed terribly. Instead of relying on Allah Sub’hana wa Ta’la, the leaders of the PLO now look for political, intellectual, and media support from the western secular liberals. They get euphoric seeing big pro-Palestine protest rallies in the streets of the west.

In order to sustain such support of the western secularists, they stay vigilant against the Islamisation of their struggle. As if, these liberals will bring victory against the Israeli occupation. Only the de-Islamised fools can subscribe to such a utopian wish. In fact, this is a ploy to allure Palestinians away from jihad. Such protest rallies in the western cities couldn’t reduce the Israeli atrocities. The Israeli settlement colonisation, eviction of the Palestinians and torture on Palestinian men, women and children continue unabated. And Gaza still remains as an open-air prison.

Jihad is the sure and quick gateway to paradise. This is the Qur’anic promise for those who engage in jihad. This is the defensive wing of Islam. Like Islamic faith, jihad is never limited by any ethnic or geographic border. Those who look for quick entry to paradise, rush at their own expense to find a field of perfect jihad. This is why the mujahids from all over the Muslim World joined the jihad in Afghanistan. So, if it is a pure jihad, the mujahids of Kashmir will not be left alone. Moreover, a true mujahid never retires; it is his life-long ibadah. Hence his struggle for paradise continues. That was the practice of the Muslims in the golden days of Islam. Hence, those who ended their jihad in Afghanistan will join the jihad in Kashmir. The Indian leaders understand that; hence they are now trembling. But the mujahids must keep perseverance and patience (sabr). To keep such perseverance and patience is indeed a major trial for every believer. If they keep continuing doing their jihad, Allah Sub’hana wa Ta’la surely does His Own job, too. He never breaks Hid promise.

 

The Afghan experience

The Kashmiri mujahids have a lot to learn from the Taliban. The Taliban waited for 20 years with perseverance and patience in their jihad. Thousands of them became Shaheed and maimed. In the end, they got Divine help and won the victory. An elephant can’t return alive if enters a den of dragons. Dragons can’t crush an elephant but take the strategy to make elephants bleed to death. The same way the aggressor Army can’t go victorious from the land of mujahids. The Afghan mujahids proved it three times. In 1842, the Afghan mujahids made the whole invading British Army vanish; only one soldier could return alive. In the 1980s, they caused Soviet Russia to bleed to collapse and disintegration. The same strategy worked against the mightiest World Power like the USA and its more than 50 partner countries. They got the most humiliating defeat in history. In the 1960s, the same strategy worked against a World Power like France in Algeria.

India is not stronger than the USA, Soviet Russia and France. So the Kashmiri mujahids must not underestimate themselves. They should apply the same strategy against India. It may take ten or twenty years, but the day will surely come when India –like the USA will beg for a safe retreat from Kashmir. One can’t end enemies’ occupation by a dialogue. It never worked in the whole of human history. There exists no political solution to military occupation. The military solution is the only solution. The Taleban in Afghanistan proved that. The PLO failed in its struggle because its secularist leaders worked for the political solution of military occupation. They neglected jihad. As a result, Mr Yasser Arafat met captivity and death under the Israeli occupation.

War is the only option against the enemy’s war. Even the most humble and peace-loving Prophet (peace be upon him) couldn’t make any peaceful political solution with the enemies. He had to take the military option. So it is the Prophet (peace be upon him)’s legacy to take that path. Secularist Shaikh Abdullah of Kashmir failed badly because he pursued a path of political solution with Prime Minister Jawaharlal Nehru of India. He didn’t meet any success but faced long-time jail and humiliation. Islam shows path not only in five times prayer and other rituals but also in struggles against the enemies. And it is jihad –the greatest ibadah in Islam. Those who live without jihad, have to live without dignity and freedom under the enemy’s occupation. How can Kashmiri Muslims take that path of humiliation and slavery? 05/09/2021      

   

 

 




শিক্ষাক্ষেত্রে ব্যর্থতা ও বিপর্যয়

ফিরোজ মাহবুব কামাল

কুশিক্ষার বিপদ

চেতনা, চরিত্র, কর্ম ও আচরণে মানুষ মূলত তাই যা সে শিক্ষা থেকে পেয়ে থাকে। তাই শিক্ষা পাল্টে দিলে মানুষের ধর্ম, কর্ম, সংস্কৃতি, রাজনীতি, সমাজনীতি এবং রাষ্ট্রও পাল্টে যায়। তাই মহাজ্ঞানী মহান আল্লাহতায়ালা মানুষকে মুসলিম করার কাজটি নামায-রোযা ও হজ্জ-যাকাত দিয়ে শুরু করেননি। সে কাজে জ্ঞানার্জনকে প্রথম ফরজ করেছেন এবং সেটি ৫ ওয়াক্ত নামায ফরজ হওয়ার প্রায় ১১ বছর আগে। ইকরা তথা পড়ো ও জ্ঞাবান হও -তাই পবিত্র কুর’আনে মহান আল্লাহতায়ালা পক্ষ থেকে মানব জাতির উদ্দেশ্যে প্রথম নির্দেশ। অথচ মুসলিমগণ সে কুর’আনী ইসলাম থেকে এতোটাই দূরে সরেছে যে তারাই বিশ্ববাসীর মাঝে সবচেয়ে অধিক অশিক্ষিত। শিক্ষা ক্ষেত্রে মুসলিমদের ব্যর্থতা ও বিপর্যয়ের এই হলো সবচেয়ে বড় দলিল। যেন অশিক্ষা নিয়েই তারা মুসলিম হতে চায়।

মানুষের সামনে শুধু শ্রেষ্ঠ একটি ভিশন বা মিশন পেশ করলেই চলে না। প্রতিটি ব্যক্তির মাঝে সে ভিশন ও মিশন নিয়ে বাঁচার সামর্থ্যও সৃষ্টি করতে হয়। নইলে সে ভিশন ও মিশন শুধু কিতাবই থেকে যায়। মুসলিম মাত্রই হলো, মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত খলিফা। মানব সৃষ্টির মূল কারণ এটিই। রাজার খলিফাগণ হলো দেশের নানা অঞ্চলে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রশাসকগণ। সে দায়িত্বপালনে তাদেরকে বিশেষ ভাবে প্রশিক্ষিত হতে হয়। তাদের অবহেলা ও অযোগ্যতায় রাজার রাজত্ব বাঁচে না। তেমনি মহান আল্লাহতায়ালার রাজত্বে তাঁর সার্বভৌমত্ব ও আইনের শাসন বাঁচাতে প্রতিটি মুসলিমের দায়ভারটি বিশাল। এবং অতি গুরুত্বপূর্ণ হলো সে দায়িত্ব পালনে মুসলিমদের যোগ্যতর রূপে গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজনীয় শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ। সে কাজে নির্ধারিত টেক্সটবুক হলো পবিত্র কুর’আন। কিন্তু বাংলাদেশে ন্যায় মুসলিম দেশগুলোর শিক্ষা ব্যবস্থায় সে পবিত্র কুর’আনে কোন স্থান নাই। শিক্ষার অঙ্গণে ব্যর্থতার মূল কারণ এখানেই। এবং শিক্ষার অঙ্গণে এ ব্যর্থতার কারণে সীমাহীন ব্যর্থতা ও বিপর্যয় নেমে এসেছে রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতি, প্রশাসন, আইন-আদালত ও সংস্কৃতির অঙ্গণে।

প্রস্তর যুগের আদিম মানুষটির সাথে আধুনিক মানুষের যে পার্থক্য সেটি দৈহিক নয়, বরং শিক্ষাগত। শিক্ষার কারণেই ব্যক্তিতে ব্যক্তিতে এবং জাতিতে জাতিতে ভিন্নতা সৃষ্টি হয়। তবে শিক্ষার পাশে প্রতি সমাজে প্রচণ্ড কুশিক্ষাও আছে। কুশিক্ষার কারণেই ধর্মের নামে অধর্ম, নীতির নামে দুর্নীতি এবং আচারের নামে অনাচার বেঁচে আছে। এবং সংস্কৃতির নামে বেঁচে আছে আদিম অপসংস্কৃতি। সুশিক্ষার কারণে মানুষ যেমন সঠিক পথ পায়, তেমনি কুশিক্ষার কারণে পথভ্রষ্ট বা জাহান্নামমুখি হয়। আজকের মুসলিমদের ভয়ানক ব্যর্থতাটি কৃষি, শিল্পে বা বাণিজ্যে নয়, বরং সেটি শিক্ষায়। শিক্ষাক্ষেত্রে এ থেকেই জন্ম নিয়েছে অন্যান্য নানাবিধ ব্যর্থতা। ভূলিয়ে দিয়েছে মানব-সৃষ্টির মূল উদ্দেশ্যটি। বহুলাংশে বিলুপ্ত করেছে আখেরাতে ভয়। ফলে মুসলিম ব্যর্থ হচ্ছে তার উপর অর্পিত খেলাফতের দায়িত্ব পালনে। অনেকেই ফিরে গিছে প্রাক-ইসলামিক যুগের জাহিলিয়াতে। ফলে আল্লাহর সৈনিকের বদলে বিপুল সংখ্যক মানুষ বেড়ে উঠছে শয়তানের সৈনিক রূপে। মুসলিম ভূমিতে মহান আল্লাহর শরিয়তী বিধানের আজ যেরূপ বিলুপ্তি এবং জেঁকে বসেছে যেরূপ কুফরি আইন –তার মূল কারণ তো এই শয়তানের সৈনিকেরা। তাদের কারণেই বিলুপ্ত হয়েছে প্যান-ইসলামিক মুসলিম ভাতৃত্ব। প্রতিষ্ঠা পেয়েছে গোত্র, বর্ণ, ভাষা ও ভূগোলভিত্তিক বিভক্তির দেয়াল। এবং বেড়েছে মহান আল্লাহতায়ালার হুকুমের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। ফলে শত্রুশক্তিকে মুসলিম ভূমিতে আজ কোন যুদ্ধই নিজেদের লড়তে হচ্ছে না। তাদের পক্ষে সে রক্তাত্ব যুদ্ধটি মুসলিম রূপে পরিচয় দানকারীরাই লড়ে দিচ্ছে। ফলে বেঁচে আছে শরিয়তী আইনের বদলে সাবেক কাফের শাসকদের প্রণীত কুফরী আইন। বেঁচে আছে সূদী অর্থনীতি, সেক্যুলার শিক্ষা, পতিতবৃত্তি, জুয়া এবং সংস্কৃতির নামে অশ্লিলতা। এবং ইসলাম বেঁচে আছে প্রাণহীন ও অঙ্গিকারহীন আনুষ্ঠিকতা রূপে। সংজ্ঞাহীন মুমুর্ষ রোগীর দেহে যেমন মাতম থাকে না, তেমনি মাতম নাই পরাজিত ও বিপর্যস্ত এ মুসলিমদেরও। কোন জাতির জীবনে এরচেয়ে ভয়ানক ব্যর্থতা আর কি হতে পারে?    

ঈমান বাঁচাতে সত্যকে জানা ও লাগাতর মেনে চলাটি যেমন জরুরি, তেমনি জরুরি হলো মিথ্যাকে মিথ্যা রূপে জানা এবং সেটি পরিহার করা। নইলে ঈমান বাঁচে না। পানাহার যেমন প্রতিদিনের কাজ, তেমনি প্রতিদিনের কাজ হলো জ্ঞানার্জন। একমাত্র তখনই লাগাতর সমৃদ্ধি আসে জ্ঞানের ভূবনে। মহান নবীজী (সা:) বলেছেন, “সে ব্যক্তির জন্য বড়ই বিপদ, যার জীবনে দুটি দিন অতিবাহিত হলো অথচ তাঁর জ্ঞানের ভাণ্ডারে কোন বৃদ্ধিই ঘটলো না।” তবে সে বিশেষ জ্ঞানটি হলো পবিত্র কুর’আনের জ্ঞান। এ জ্ঞান থেকেই ঈমান পুষ্টি পায় এবং মু’মিনের মনে প্রবলতর হয় মহান আল্লাহতায়ালার ভয় ও আখেরাতের ভয়। কুর’আন পাঠের সাথে মহান আল্লাহতায়ালার সাথে মু’মিনের সম্পর্ক এভাবেই নতুন প্রাণ পায়। আত্মায় পুষ্টি জোগানোর সে কাজটি নিয়মিত না হলে দৈহিক ভাবে বেঁচে থাকলেও ব্যক্তির াবেআধ্যাত্মিক মৃত্যু ঘটে। নিয়মিত কুর’আন পাঠের সাথে প্রতিদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামায, মাসব্যাপী রোযা, হজ্জ, যাকাত, তাসবিহ পাঠ ও দানখয়রাত –এগুলো হলো মানুষকে আধ্যাত্মিক ভাবে বাঁচিয়ে রাখা ও শক্তিশালী করার অপরিহার্য বিধান।

তবে মহান আল্লাহতায়ালার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করা এবং মিথ্যা, অধর্ম ও নানারূপ পাপাচারকে বাঁচিয়ে রাখার লক্ষ্যে শয়তানেরও নিজস্ব বিধান ও প্রতিষ্ঠান রয়েছে। মদ্যপান, পতিতাবৃত্তি, সূদ, জুয়া, অশ্লিলতা, ব্যাভিচার, পর্ণগ্রাফি, নাচ-গান এগুলো হলো শয়তানের সনাতন বিধান। তবে শয়তানের হাতে সবচেয়ে বৃহৎ ও আধুনিক হাতিয়ার হলো সেক্যুলার রাষ্ট্র ও রাষ্ট্রের পরিচালিত সেক্যুলার শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানগুলি। এজন্য মুসলিম দেশে যতই বাড়ছে সেক্যুলার শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান, ততই বাড়ছে ইসলাম থেকে মুসলিমদের দূরে সরা। বাড়ছে ডি-ইসলামাইজেশন। বাড়ছে ইসলামী বিধানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বদৌলতেই মুসলিম দেশে জাতীয়তাবাদ, গোত্রবাদ, সামন্তবাদ, সেক্যুলারিজম ও পুঁজিবাদের ন্যায় জাহিলিয়াত দিন দিন শক্তিশালী হচ্ছে। সিরাতুল মুস্তাকীম থেকে সরে এসব মানুষ দ্রুত জাহান্নামমুখি হচ্ছে। বাড়ছে সূদ, ঘুষ, অশ্লিলতা, উলঙ্গতা, ব্যাভিচার, হত্যা, গুম ও নানারূপ পাপাচারের সংস্কৃতি।

 

সবচেয়ে বড় বেঈমানি

মুসলিমদের আজকের বিভ্রান্তি এতোটাই প্রকট যে, পৃথিবীতে তারা যে মহান আল্লাহর খলিফা সে ধারণাটিও অধিকাংশের চেতনা থেকে বিলুপ্ত হয়েছে। পলায়নপর সৈন্য শুধু রণাঙ্গনই ছাড়ে না, সৈনিকের পোষাক এবং নিজ দলের ঝান্ডাও ছেড়ে দেয়। তেমনি আজকের মুসলিমগণ শুধু হাত থেকে ইসলামের ঝান্ডাই ফেলে দেয়নি, বরং তুলে নিয়েছে জাতীয়তাবাদ, সমাজবাদ, রাজতন্ত্র, স্বৈরাচার, পুঁজিবাদ ও সেক্যুলারিজমের ঝান্ডা তুলে নিয়েছে। এভাবে পরিণত হয়েছে শয়তানের সৈনিকে। মুসলিম ভূমিতে আল্লাহর শরিয়তী বিধান প্রতিষ্ঠা রুখতে তাই কোন কাফের সৈনিকদের মুসলিম দেশে নামতে হচ্ছে না, সে কাজটি তারা নিজেরাই করে দিচ্ছে। ফলে আল্লাহর কুর’আনী বিধান আজ প্রায় প্রতি মুসলিম দেশে পরাজিত। মহান আল্লাহর হুকুমের বিরুদ্ধে এর চেয়ে বড় বেঈমানি, কুর’আনের বিরুদ্ধে এর চেয়ে বড় অবমাননা আর কি হতে পারে?

অথচ “মুসলিম” শব্দটি কোন বংশীয় খেতাব নয়। মুসলিম হওয়ার অর্থই হলো ইসলামের বিপ্লবী বিশ্বাস নিয়ে বাঁচা। এবং সে বিশ্বাসে উৎস্য হলো পবিত্র কুর’আন। কিন্তু সমস্যা হলো সেক্যুলারিস্ট-অধিকৃত দেশগুলোতে ইসলামের সে বিপ্লবী চেতনা নিয়ে বাঁচাটাই অসম্ভব করা হয়েছে। কোন কাফেরের সন্তান যেমন মুসলিম হতে পারে, তেমনি মুসলিমের সন্তানও কট্টোর কাফির হতে পারে। সমগ্র মানব ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বিপ্লবটি এনেছিল ইসলাম। যুগে যুগে বড় বড় নীতি কথা অনেকে মনিষীই বলেছেন, কিন্তু তারা সেগুলি প্রতিষ্ঠা দিতে পারেনি। কারণ তাদের হাতে রাষ্ট্র ছিল না। কিন্তু মুসলিমগণই মানব ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ নীতিগুলি প্রতিষ্ঠা দিয়েছে। কারণ ইসলামের নবী হযরতর মুহাম্মদ (সা:) শুধু কুর’আনী নীতি কথা শিক্ষা দেননি, সেগুলি প্রতিষ্ঠার জন্য একটি শক্তিশালী রাষ্ট্রও প্রতিষ্ঠা দেন এবং দশ বছর তিনি সে রাষ্ট্রের শাসক ছিলেন। সে রাষ্ট্রই পরবর্তীতে বিশ্বশক্তিতে পরিণত হয়। তিনি প্রতিষ্ঠা দিয়েছেন ইসলামী শিক্ষা ব্যবস্থা এবং তা থেকে গড়ে তুলেছন ইসলামী রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় ঈমানদার জনশক্তি। ফলে দাসগণ তখন মুক্তি পেয়েছে, সাধারণ মানুষের সাথে নারীগণও অধিকার ও মর্যাদা পেয়েছে। প্রতিষ্ঠা পেয়েছে শরিয়তী আইনের পূণ্য শাসন। সাধারণ জনগণ পেয়েছে জানমাল নিয়ে বাঁচার নিরাপত্তা।

ইসলামের যে চেতনাটি বিপ্লব এনেছিল তার ভিত্তিটি হলো মহান আল্লাহ, তাঁর রাসূল, কুর’আন ও আখেরাতের উপর অটল বিশ্বাস। তবে মুসলিম হওয়ার অর্থ শুধু বিশ্বাসী হওয়া নয়, বরং সে বিশ্বাসকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে নিষ্ঠাবান সৈনিক হওয়াও। তাই মুসলিম তাঁর বিশ্বাসকে কখনোই চেতনায় বন্দী রাখে না; বরং কর্ম, আচরণ, রাজনীতি¸ অর্থনীতি, সংস্কৃতি ও যুদ্ধবিগ্রহসহ সকল ক্ষেত্রে সে বিশ্বাসের প্রকাশও ঘটায়।  তাঁর বিশ্বাস ও কর্মে থাকে এক সামগ্রীক রাষ্ট্র বিপ্লবের সুর। ১৪ শত বছর পূর্বে নবীজী (সা:) এবং তাঁর অনুসারি প্রতিটি মুসলিম সে বিশ্বাস নিয়ে নিজ নিজ ভূমিকা রেখেছিলেন। নিজেদের বিশ্বাস ও ধর্মকর্মকে তাঁরা নিজ ঘর ও মসজিদে সীমিত রাখেননি, বরং বিপ্লব এনেছিলেন সমগ্র সমাজ ও রাষ্ট্র জুড়ে। কোন গাছই পাথর খন্ড ও আগাছার জঞ্জালে গজায় না। গজালেও বেড়ে উঠে না। সে জন্য উর্বর ও জঞ্জালমুক্ত জমি চাই। গাছের বেড়ে উঠার জন্য নিয়মিত পরিচর্যাও চাই। রাষ্ট্র তো সে কাজটি করে মানব সন্তানের ঈমান ও নেক আমল নিয়ে বেড়ে উঠার ক্ষেত্রে। মানব শিশুর পরিচর্যার সে কাজটি করে শিক্ষা। নবীজী (সা:) তেমন একটি রাষ্ট্র গড়া এবং সে রাষ্ট্রের বুকে জনগণকে শিক্ষা দেয়ার কাজকে পবিত্র জিহাদে পরিণত করেন। সর্বকালের মুসলিমদের জন্য আজও সেটিই অনুকরণীয় আদর্শ। এবং সে আদর্শের অনুসরণের মধ্যেই দুনিয়া ও আখেরাতের কল্যাণ। অন্যথায় যেটি ঘটে সেটি মহান আল্লাহতায়ালার বিরুদ্ধে অবাধ্যতা। তাতে অনিবার্য হয় জাহান্নামের আযাব।

শিক্ষাদান, শিক্ষালয় ও শিক্ষার মাধ্যম হলো মানব-সভ্যতার শ্রেষ্ঠতম আবিস্কার। মানব-সংস্কৃতির এটিই সর্বশ্রেষ্ঠ অলংকার। সে সমাজে শিক্ষা নেই সে সমাজে সংস্কৃতিও নাই। শিক্ষার বলেই মানুষ পশু থেকে ভিন্নতর হয়। চেতনা, চরিত্র ও কর্মে ব্যক্তিতে ব্যক্তিতে যে বিপুল তারতম্য দেখা যায় সেটিও শিক্ষা ভেদে। শিক্ষার মাধ্যমেই মানুষ জানতে পারে মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে তাঁর উপর অর্পিত দায়িত্ব। জানতে পারে এ জীবনে বাঁচার মূল লক্ষ্য এবং সে লক্ষ্যে পৌঁছার সঠিক পথ। জ্ঞানার্জন ছাড়া তাই ইসলাম নিয়ে বাঁচা যায় না। শিক্ষাদান ও শিক্ষালাভের কাজ তাই অতি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। এ ইবাদতের ব্যর্থতায় ব্যক্তির অন্যান্য ইবাদতেও ভয়ানক অপূর্ণতা ও সমস্যা দেখা দেয়। তখন ব্যর্থতায় পূর্ণ হয় সমগ্র জীবন –সেটি যেমন ইহকালে তেমনি আখেরাতে। শিক্ষাদানের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ তাই মানব সমাজে দ্বিতীয়টি নেই। নবীরাসূলদের এটিই শ্রেষ্ঠতম সূন্নত।

মানুষ কতটা মানবিক গুণের মানুষ হবে এবং কতটা বেড়ে উঠবে মহান আল্লাহতায়ালার খলিফা রূপে -তা নির্ভর করে জ্ঞানার্জন কতটা সঠিক ভাবে পালিত হলো তার উপর। ইসলামের পরাজিত দশা, মুসলিমদের পথভ্রষ্টতা এবং সমাজে পাপাচারের জয়জয়াকার দেখে এ কথা নিশ্চিত বলা যায় যে, মুসলিম বিশ্বে জ্ঞানার্জনের কাজটি সঠিক ভাবে হয়নি। এটিই হলো মুসলিমদের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা। অন্যান্য ব্যর্থতা হলো তার শাখা-প্রশাখা মাত্র। মসজিদ-মাদ্রাসার সংখ্যা বাড়লেও ইসলামের মৌলিক শিক্ষাগুলো তুলে ধরার ক্ষেত্রে সেগুলো সফলতা দেখাতে পারিনি। ফল দাঁড়িয়েছে, যে ইসলাম নিয়ে আজকের মুসলিমদের ধর্মকর্ম ও বসবাস -তা নবীজী (সা:)’র আমলের ইসলাম থেকে ভিন্নতর। নবীজী (সা:)’র ইসলামে ইসলামী রাষ্ট্র ছিল, সে রাষ্ট্রে শরিয়তের প্রতিষ্টা ছিল, দ্বীনের প্রচার ছিল, নানা ভাষাভাষী মুসলিমের মাঝে অটুট ভাতৃত্ব ছিল এবং শত্রুর বিরুদ্ধে লাগাতর জিহাদও ছিল। কিন্তু আজ সেগুলো শুধু কিতাবেই রয়ে গেছে। ফলে বিজয় এবং গৌরবের পথ থেকে তারা বহু দূরে সরেছে। বরং দ্রুত ধেয়ে চলেছে অধঃপতনের দিকে। পরাজয়, আযাব এবং অপমান ধেয়ে আসছে তাদের দিকে। সেনানিবাসে দিনের পর দিন প্রশিক্ষণ নিয়ে যে ব্যক্তি সৈনিকের বদলে শত্রুর বন্ধু ও গাদ্দার হয়, তবে বুঝতে প্রশিক্ষণে প্রচণ্ড ব্যর্থতা আছে। তেমনি বছরের পর বছর স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষায় কাটিয়ে কেউ যদি ঈমানদার হওয়ার বদলে মিথ্যাবাদী, ব্যভিচারী, ঘুষখোর, মদখোর, চোরডাকাত, ভোটডাকাত, সন্ত্রাসী, জাতীয়তাবাদী, সেক্যুলারিস্ট ও ইসলামের শত্রু হয় -তবে বুঝতে হবে প্রচণ্ড ব্যর্থতা রয়েছে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায়।      

 

সেক্যুলারিজমের বিপদ

সেক্যুলারিজম সর্বার্থেই প্রচণ্ড ইসলাম বিরোধী একটি মতবাদ। সেটি যেমন তত্ত্বে ও বিশ্বাসে, তেমনি রাজনৈতিক এজেন্ডায়। মুসলিম শুধু দুনিয়ার কল্যাণ নিয়ে ভাবে না, বরং বেশী ভাবে আখেরাতের কল্যাণ নিয়ে। কারণ দুনিয়ার জীবনটি অতি ক্ষুদ্র; কিন্তু আখেরাত মৃত্যুহীন তথা অন্তহীন। অথচ সেক্যুলারিস্টদের চেতনায় আখেরাতের গুরুত্ব নাই। ফলে তা নিয়ে ভাবনাও নাই। তাদের প্রায়োরিটি পার্থিব জীবনে সফল হওয়া নিয়ে। আখেরাতের ভাবনা নিয়ে রাজনীতি, অর্থনীতি, প্রশাসন, বিচার-আচার, সংস্কৃতি ও যুদ্ধ-বিগ্রহকে তারা পশ্চাদপদতা, কূপমণ্ডূকতা ও সাম্প্রদায়িকতা ভাবে। সেক্যুলারিস্টদের সাথে ঈমানদারদের মূল দ্বন্দটি এখানেই। জান্নাত লাভের চিন্তায় মুসলিমকে মহান আল্লাহতায়ালার প্রতিটি হুকুম পালনে একান্ত অনুগত ও নিষ্ঠাবান হতে হয়। কারণ, তাঁর চেতনায় সর্বক্ষণ কাজ করে কোনরূপ অবাধ্যতায় জাহান্নামে পৌঁছার ভয়। এজন্যই ঈমানদারের জীবনে ইসলামী রাষ্ট্র বিপ্লব ও রাষ্ট্রে শরিয়তের প্রতিষ্ঠার কাজে লেগে থাকাটি কোন নেশা বা পেশা নয়; বরং সেটি জাহান্নামের আগুণ থেকে বাঁচার একমাত্র অবলম্বন মাত্র। এটি তাঁর নিজের, নিজ সন্তানের ও আপনজনদের জন্য ঈমান ও নেক আমল নিয়ে বাঁচার নিরাপদ পরিবেশ নির্মাণের লড়াই। এ কাজে কোনরূপ আপোষ বা অবহেলার সামান্যতম সুযোগও নাই। কারণ সে কাজের হুকুম এসেছে মহান আল্লাহতায়ালা থেকে। কোন ঈমানদার কি সে হুকুম অমান্য করতে পারে? অমান্য করলে কি ঈমান থাকে? কিন্তু সেক্যুলারিস্টদের জীবনে সে ভয় নাই, সে ভাবনাও নেই। তাই আল্লাহতায়ালার হুকুম পালনে তাদের মাঝে কোন আগ্রহও নেই। ফলে নামে মুসলিম হলেও সেক্যুলারিস্টদের মনে ইসলামী রাষ্ট্র বিপ্লবের মিশন নেই। বরং তাদের রাজনীতি ও বুদ্ধিবৃত্তির লক্ষ্য হলো, সে জান্নাতমুখি মিশনে মুসলিমদেরকে অমনযোগী করা এবং সে সাথে সে পথ থেকে ধীরে ধীরে দূরে সরানো। একাজে তাদের মূল হাতিয়ারটি হলো সেক্যুলার শিক্ষাব্যবস্থা। শিক্ষার মাধ্যমেই তারা মানুষের চেতনার রাজ্যে হামলা করে, ভূলিয়ে দেয় আখেরাতের ভয় এবং ইসলামের মূল মিশন ও ভিশনটি। ইহকালীন সুখ-সমৃদ্ধি বাড়াতে যা কিছু গুরুত্বপূর্ণ একমাত্র তাতেই তারা আগ্রহ বাড়ায়। মনের ভূবনে এভাবেই তারা দুনিয়ামুখি পরিবর্তন আনে। আর সে দুনিয়ামুখিতাই হলো সেক্যুলারিজম। সেক্যুলারিজমের মূল বিপদটি এখানেই। নাস্তিকতা, মুর্তিপূজা ও শাপ-শকুন পূজার চেয়ে এর নাশকতা তাই কোন অংশেই কম নয়। জনগণের ক্ষতি শুধু চোর-ডাকাত, খুনি, ধর্ষক ও দুর্বৃত্তদের হাতে হয় না, বরং সবচেয়ে ভয়ানক ক্ষতিটি হয় সেক্যুলারিস্টদের হাতে।   

তবে এরূপ দুনিয়ামুখীতা মানব ইতিহাসে নতুন কিছু নয়। সেক্যুলারিজম কোন আধুনিক মতবাদ নয়। বরং মুর্তিপূজার মত সনাতম জাহিলিয়াতের ন্যায় এটিও অতি সনাতন ব্যাধি। একই রোগ বাসা বেঁধেছিল প্রাক-ইসলামিক আরব পৌত্তলিকদের মনেও। তারা যে আল্লাহর অস্তিত্বকে অস্বীকার করতো, তা নয়। তারা বরং নিজ সন্তানের নাম আব্দুল্লাহ, আব্দুর রাহমানও রাখতো। ক্বাবা যে আল্লাহর ঘর সেটিও তারা বিশ্বাস করতো। বরং এ কথাও বিশ্বাস করতো, ক্বাবা ঘরটি নির্মাণ করেছিলেন হযরত ইব্রাহীম (আ:), এবং তাঁকে সহায়তা দিয়েছিলেন পুত্র ইসমাঈল (আ:)। কিন্তু তারা বিশ্বাস করতো না পরকালে। জান্নাত ও জাহান্নামের কোন ধারণা তাদের মনে ছিল না। মৃত্যুর পর আবার জীবিত হবে -সে ধারণা তাদের ছিল না। ফলে পরকালের জবাবদেহীতার ভাবনাও ছিল না। আখেরাতের ভয় ব্যক্তির জীবনে পাপরোধে লাগামের কাজ করে, কিন্তু সে ভয় না থাকায় তারা পাপাচারে লিপ্ত হতো কোনরূপ ভয়ভীতি ছাড়াই। ফলে তৎকালীন আরবভূমি নিমজ্জিত হয়েছিল পাপাচারে। সেক্যুলারিস্টগণ আজও একই রূপ পাপের প্লাবন আনছে দেশে দেশে। তাদের কুকীর্তির বড় স্বাক্ষর হলো আজকের বাংলাদেশ। বাংলাদেশ যেভাবে এ শতাব্দীর শুরুতে দুনীর্তিতে বিশ্ব ৫ বার পর পর প্রথম হওয়ার রেকর্ড করলো তা কোন মোল্লা-মৌলবীর কাজ ছিল না। গ্রামের কৃষক, শ্রমিক, তাঁতীর কাজও ছিল না। বরং সেটি অর্জিত হয়েছিল আখেরাতের ভয়শূন্য সেক্যুলারিস্ট দুর্বৃত্তদের হাতে –যাদের হাতে অধিকৃত দেশের শিক্ষা, আইন-আদালত, পুলিশ বিভাগ, প্রশাসন, সেনাবাহিনী ও রাজনীতি।

 

বিপ্লব চেতনার মডেলে

আরবদের আর্থসামাজিক পশ্চাদপদতা নিয়ে ইসলামের শেষনবী (সা:) কোন রাজনৈতিক এজেন্ডা বানাননি। তাদেরকে তিনি অর্থনৈতিক বিপ্লবের প্রতিশ্রুতিও দেননি। নবী (সা:)’র এজেন্ডা ছিল তাদেরকে জান্নাতের উপযোগী রূপে গড়ে তোলা। লক্ষ্য ছিল, উচ্চতর মানবিক গুণে সমৃদ্ধ মানব বানানোর। সে লক্ষ্যে তিনি বিপ্লব এনেছিলেন তাদের চেতনা রাজ্যে। কারণ, চেতনা ও বিশ্বাসই হলো চরিত্র ও কর্মের নিয়ন্ত্রক। নবীজী (সা:)’র সে বিপ্লবটি ছিল ১৮০ ডিগ্রির। চেতনায় আখেরাতে বিশ্বাস ও মহান আল্লাহতায়ালার দরবারে জবাবদেহীতার ধারণাটি তিনি দৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠা করেন। ভাল কাজের প্রতিদান আছে এবং খারাপ কাজের শাস্তি আছে, মৃত্যুর পর জান্নাত ও জাহান্নাম আছে এবং সেখানে মৃত্যুহীন অনন্ত জীবন আছে -সে বিষয়গুলো তিনি তাদের মনে দৃঢ় ভাবে প্রতিষ্ঠা করেন। এতেই শুরু হয় ধর্মকর্মের সাথে তাদের চিন্তা-চরিত্র, কর্ম, সংস্কৃতি ও আধ্যাত্মিকতায় আমূল বিপ্লব। মনজগতের এরূপ বিপ্লবকেই বলা হয় প্যারাডাইম শিফ্ট। যে কোন সমাজ বিপ্লবের এ হলো পূর্বশর্ত। নবদীক্ষিত এ মানুষগুলো পরিণত হন নবীজী (সা:)’র একান্ত অনুগত সাহাবায়। তাদের হাতেই শুরু হয় সমাজ ও রাষ্ট্র জুড়ে মহাবিপ্লব। দুনিয়ার এ জীবনকে তাঁরা গ্রহণ করেন পরীক্ষা ক্ষেত্র রূপে এবং সে সাথে আখেরাতে পুরস্কার বৃদ্ধির ক্ষেত্র রূপে। তাদের জীবনে বাঁচা-মরা ও লড়াই-সংগ্রামের একমাত্র লক্ষ্য হয় আল্লাহকে খুশি করা। ফলে মিশন হয়, সর্বপ্রকার পাপ থেকে বাঁচা এবং প্রতিটি মুহুর্তকে নেক আমলে ব্যয় করা। শুরু হয় আল্লাহর মাগফেরাত লাগে প্রচণ্ড তাড়াহুড়া –যেমনটি বলা হয়েছে পবিত্র কুর’আনে। সুরা আল-ইমরানের ১৩৩ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে, “এবং তোমরা তাহাহুড়া  তোমাদের প্রতিপালকের পক্ষ থেকে মাগফেরাত লাভের জন্য এবং সে জান্নাতের জন্য যার বিস্তার আসমান ও জমিনের ন্যায় যা প্রস্তুত করা হয়েছে মুত্তাকীনদের জন্য।” সুরা হাদীদের ২১ নম্বর আয়াতে মাগফেরাত লাভ এবং জান্নাত লাভের জন্য মু’মিনদের প্রতিযোগিতার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সে প্রতিযোগিতা ও তাড়াহুড়ায় সে যুগের মুসলিমগণ নিজেদের সময়, সম্পদ, শক্তি এমনকি প্রাণের কোরবানী পেশেও কৃপণতা করেনি। ফলে আখেরাতমুখি সে তাড়াহুড়ায় দ্রুত নির্মিত হয়েছে ইসলামী রাষ্ট্র ও সভ্যতা। সমগ্র মানব ইতিহাসে মানবতা নিয়ে অতি দ্রুত উপরে উঠার সেটিই হলো সর্বোচ্চ রেকর্ড।      

মুসলিমের মূল পরিচয়টি হলো, সে মহান আল্লাহতায়ালার খলিফা তথা প্রতিনিধি। ঈমানের প্রকাশ ঘটে মূলত সে পরিচিতি নিয়ে বাঁচাতে। শিক্ষাদান ও শিক্ষালাভের মূল উদ্দেশ্য হলো খলিফার সে দায়িত্বপালনে নিজেকে যোগ্যবান করে গড়ে তোলা। এজন্যই মুসলিম ও অমুসলিমের শিক্ষাগত প্রয়োজনটা কখনোই এক নয়। মুসলিম ও অমুসলিম একই আলো-বাতাসে শারীরিক ভাবে বেড়ে উঠতে পারে, কিন্তু একই শিক্ষা ব্যবস্থায় বেড়ে উঠতে পারে না। কারণ, যে শিক্ষায় বেঈমান তার চেতনায় পুষ্টি পায়, মুসলিম তা পায় না। বরং বেঈমানের শিক্ষার যা সামগ্রী তাতে মৃত্যু ঘটে ঈমানী চেতনার। তাই নিজেদের গৌরব কালে মুসলিমগণ নিজ সন্তানদের শিক্ষাদানের দায়ভার কখনই কাফেরদের হাতে দেয়নি। কাফেরদের থেকে চাল-ডাল ও আলু-পটল কেনা যায়, কিন্তু শিক্ষা নয়। শিক্ষা ধর্মান্তরের বা সাংস্কৃতিক কনভার্শনের অতি শক্তিশালী হাতিয়ার। এখানে কাজ করে শয়তানের ফাঁদ। এজন্যই ঈমান নিয়ে বেড়ে উঠার জন্য মুসলিমদের জন্য আলাদা হয়ে ইসলামী রাষ্ট্র গড়া, সমাজ গড়া ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এতোটা অপরিহার্য। তেমন একটি প্রয়োজনেই ১৯৪৭ সালে ভারতীয় উপমহাদেশের মুসলিমগণ পাকিস্তান নামে একটি পৃথক রাষ্ট্রর জন্ম দেয়।

কাফেরগণ মুসলিম দেশে মিশনারি স্কুল-কলেজ চালায় জনসেবার খাতিরে নয়। বরং সেটি মুসলিম শিশুদের ধর্মান্তর করতে। এবং ধর্মান্তর সম্ভব না হলে মনযোগ দেয় মুসলিম সন্তানদের মাঝে সাংস্কৃতিক কনভার্শন তথা ইসলাম থেকে দূরে সরানোর কাজটি বাড়াতে। কুশিক্ষার পথ ধরেই ছাত্রদের মগজে কুফরি ঢুকে। শিক্ষাদানের নামে কুশিক্ষাটি তাই শয়তানের প্রধান হাতিয়ার। তাই মুসলিমদের শুধু হারাম পানাহারে সতর্ক হলে চলে না, হারাম শিক্ষা থেকেও অতি সতর্ক হতে হয়। কিন্তু সেক্যুলারিজম সে হারাম শিক্ষাকেই মুসলিম দেশগুলোতে সহজ লভ্য করেছে; এবং অতি কঠিন করেছে পবিত্র কুর’আন থেকে শিক্ষা লাভ। ইংরাজী ভাষা শেখানো গুরুত্ব পেলেও গুরুত্ব পায়নি পবিত্র কুর’আনের ভাষা। বুঝতে হবে বাংলাদেশের মত দেশগুলোতে  নাস্তিক, সূদখোর, মদখোর, ঘুষখোর, ব্যাভিচারী, ধর্ষক, চোর-ডাকাত, ভোটডাকাত, স্বৈরাচারী, সন্ত্রাসী ইত্যাদী দুর্বৃত্তগণ বনজঙ্গলে গড়ে উঠেনি, গড়ে উঠেছে দেশের সেক্যুলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে।

 

শিক্ষা যেভাবে বিপর্যয় আনে

ইসলামের জয়-পরাজয়ের যুদ্ধটি শুধু রণাঙ্গণে হয় না, সেটি হয় শিক্ষাঙ্গণেও। এটি হলো বুদ্ধিবৃত্তিক জিহাদের জায়গা। মুসলিমদের পরাজয়ের শুরু মূলত তখন থেকেই যখন তারা বুদ্ধিবৃত্তিক জিহাদে ইস্তাফা দিয়েছে। এবং শিক্ষার ন্যায় গুরুত্বপূর্ণ কাজটি নিজ দায়িত্বে না রেখে কাফের, ফাসেক ও সেক্যুলারিস্টদের হাতে ছেড়ে দিয়েছে। যখন আলেমদের কাছে গুরুত্ব হারায় শিক্ষাদানের ন্যায় অতি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। শিক্ষা ক্ষেত্রে ব্যর্থতার কারণেই ভেঙ্গে গেছে মুসলিমদের সর্ববৃহৎ রাষ্ট্র উসমানিয়া খেলাফত। অথচ ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান শুধু মসজিদ বা মাদ্রাসা নয়, সেটি হলো খেলাফার রাজনৈতিক কাঠামো। এটিই হলো ইসলাম ও মুসলিমদের সুরক্ষা দেয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান। এটি বিলুপ্ত হলে বিপন্ন হয় মুসলিমদের ইজ্জত, আবরু, ঈমান-আমল, জানমাল ও স্বাধীনতা।

মসজিদ বা মাদ্রাসা গড়তে অর্থ ও শ্রম ব্যয় হলেও তাতে রক্ত ব্যয় হয় না। অথচ রাষ্ট্রের ভূগোল এক মাইল বাড়াতে হলে প্রকাণ্ড যুদ্ধ লড়তে হয়। বহু লক্ষ মুসলিম সৈনিকের রক্ত ব্যয়ে নির্মিত উসমানিয়া খেলাফতের বিশাল রাষ্ট্রটি শত শত বছর ধরে মুসলিমদের জানমাল, ইজ্জত-আবরু ও ধর্মীয় বিশ্বাসের হেফাজত করেছে। বিশাল সে উসমানিয়া খেলাফতে তুর্কী, আরব, কুর্দি, মুর, আলবানিয়ান, কসোভান, বসনিয়ানগণ শত শত বছর একত্রে শান্তিতে বসবাস করেছে। ভাষাগত, বর্ণগত ও আঞ্চলিকতার বিভেদ ইউরোপকে শত বছরের যুদ্ধ ও যুদ্ধ শেষে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রাষ্ট্রে বিভক্তি উপহার দিলেও উসমানিয়া খেলাফতে তেমন দুর্যোগ দেখা দেয়নি। ভাষাগত, বর্ণগত ও আঞ্চলিক জাতীয়তাবাদ হলো মূলত ইউরোপীয় জাহিলিয়াত। সে জাহিলিয়াতের ভাইরাস থেকে মুসলিম ভূমি শত শত বছর মূক্ত ছিল। আলেমদের মাঝে নানা বিষয়ে মতভেদ তাকলেও জাতীয়তাবাদ, বর্ণবাদ ও আঞ্চলিকতা যে হারাম -তা নিয়ে কোন কালেই কোন বিরোধ ছিল না। ইসলামে অন্যায় ও জুলুমের বিরুদ্ধে আন্দোলনের অধিকার আছে, কিন্তু ভাষা, বর্ণ ও আঞ্চলিকতার নামে যুদ্ধ, বিভক্তি ও দেশভাঙ্গার অনুমতি নেই। রাষ্ট্রের সার্বভৌম মালিকানা একমাত্র মহান আল্লাহর, সে রাষ্ট্রের শাসক মহান আল্লাহতায়ালার খলিফা তথা  প্রতিনিধি মাত্র। তাই মুসলিম রাষ্ট্রের খণ্ডিত করার যে কোন উদ্যোগই মূলত আল্লাহর বিরুদ্ধে যুদ্ধ। সে যুদ্ধের শাস্তিও তাই অতি কঠোর। তাই উমাইয়া, আব্বাসী ও উসমানিয়া খেলাফতে শতবার খলিফার বদল হলেও তার ভৌগলিক অখণ্ডতা বেঁচেছিল হাজার বছরের অধিক কাল। সৈন্যরা লড়েছে সীমান্তের ওপারে বহিঃশত্রুর বিরুদ্ধে, কিন্তু দেশের ভিতরে ভূগোলের অখণ্ডতা বাঁচাতে যুদ্ধ করতে হয়েছে সামান্যই। কিন্তু বিদ্যাশিক্ষার নামে তুর্কি, আরব, কুর্দিগণ যখন ইউরোপে পা রাখে তখন থেকেই তারা বিভক্তির ভাইরাস নিয়ে দেশে ফিরাও শুরু করে। তখন অসম্ভব হয়ে উঠে তুর্কি, আরব, কুর্দি এরূপ নানা ভাষাভাষী মুসলিমদের পক্ষে এক রাষ্ট্রে বসবাস করা। শুরু হয় ভাষা ও আঞ্চলিকতার নামে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ। ফলে মুসলিমদের পরাজিত করতে শত্রুদের যুদ্ধ করতে হয়নি, সে যুদ্ধগুলো এসব জাতীয়তাবাদীরাই লড়ে দিয়েছে। এবং এখনও লড়ছে। এদের কারণেই খেলাফত ভেঙ্গে জন্ম নিয়েছে বিশের বেশী রাষ্ট্র। এবং বিভক্তির পরপরই জন্ম নেয়া নতুন রাষ্ট্রগুলি অধিকৃত হয়েছে ব্রিটিশ, ফরাসী, মার্কিনী ও ইসরাইলীদের হাতে। অথচ খেলাফতভূক্ত থাকার কারণেই মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিমগণ ইউরোপের ঔপনিবেশিক শাসন থেকে রেহাই পেয়েছিল। অথচ খিলাফত বা বিশাল কোন মুসলিম রাষ্ট্রের বাইরে থাকার কারণে সে সৌভাগ্য বাংলাদেশীদের জুটেনি। ইরাক, সিরিয়া, ফিলিস্তিন ইংরেজদের হাতে গোলাম হয় ১৯১৭ সালে। অথচ তার ১৬০ বছর আগেই বাংলা ব্রিটিশের গোলাম হয়েছে। ভূগোলে ক্ষুদ্রতর হওয়ার এটি হলো বিপদ। আরব মুসলিমদের বিপদের শুরু তো উসমানিয়া খেলাফত ভেঙ্গে যাওয়ার পর। পরিতাপের বিষয় হলো, খেলাফতের নেয়ামত তারা খেলাফত বেঁচে থাকতে বুঝেনি এবং রক্ষার চেষ্টাও করেনি।

 

সেক্যুলারিস্টদের অপরাধ

মুসলিমদের সবচেয়ে বড় পরাজয়টি রণাঙ্গণে হয়নি। সেটি হয়েছে শিক্ষার ময়দানে। ইসলাম সর্বপ্রথম তার দখলদারি হারিয়েছে মুসলিমদের চেতনার ভূমিতে, ভূগোলের উপর দখলদারিটি হারিয়েছে অনেক পরে। এবং সেটি ঘটেছে শিক্ষাব্যবস্থার সেক্যুলারাইজেশনের কারণে। সেক্যুলারিজমের মূল লক্ষ্য হলো, শিক্ষা, সমাজ, আইন-আদালত ও রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রগুলিতে ইসলামের ভূমিকাকে প্রতিহত করা। সেক্যুলারিস্টদের হাতে রাষ্ট্র অধিকৃত হলে বন্দীদশা নেমে আসে ঈমানদারদের উপর। অসম্ভব করা হয় পূর্ণ ইসলাম পালন। তখন রাষ্ট্রের সন্ত্রাস ও যুদ্ধটি শুরু হয় ধর্মের বিরুদ্ধে। শরিয়তের প্রতিষ্ঠার ন্যায় ইসলামের অতি মৌলিক ও ফরজ কাজটিও তখন শাস্তি যোগ্য অপরাধ গণ্য হয়। বাংলাদেশের ন্যায় সেরূপ পবিত্র উদ্যোগকে সন্ত্রাস বলা হচ্ছে। ফলে সেক্যুলারিজমকে ধর্মনিরেপক্ষতা বলে জাহির করাটি নিছক প্রতারণা মাত্র। অথচ মুসলিম দেশগুলিতে সে প্রতারণাটিই চলছে লাগামহীন ভাবে। এবং সে প্রতারকদের রুখবার কেউ নাই।

মানব কল্যাণে ইসলামের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি হয় শিক্ষার অঙ্গণে। শিক্ষার মাধ্যমেই ইসলাম মহান আল্লাহতায়ালা ও তাঁর পবিত্র মিশনের সাথে মানব সন্তানদের পরিচিতি ঘটায়। এবং সংশ্লিষ্ট করে সে মিশনের সাথে। এক্ষেত্রে ব্যর্থ হলে ঈমানদার তৈরীর কারখানাই বন্ধ হয়ে যায়। তখন পূর্ণ ইসলাম পালন ও রাজনীতি ও বুদ্ধিবৃত্তির ময়দানে ইসলামকে বিজয়ী করার সৈনিক থাকে না। তখন মহান আল্লাহতায়ালার মানব কল্যাণের মূল প্রজেক্টই ব্যর্থ হয়ে যায়। তখন ব্যর্থ হয়ে যায় নবী প্রেরণ ও পবিত্র কুর’আন নাযিলের মূল উদ্দেশ্য। তাই শয়তান ও তার অনুসারীদের মূল হামলাটি মুসলিমদের ক্ষেত-খামারে হয় না, সেটি হয় শিক্ষার অঙ্গণে। সেক্যুলারিস্টদের সবচেয়ে অপরাধটি এখানেই। তাদের অপরাধটি মহান আল্লাহতায়ালার বিরুদ্ধে।

জনগণ ও ছাত্র-ছাত্রীদের চেতনায় ইসলামের প্রবেশ রুখতে তাদের মনকে ইম্যুনাইজড করছে ঈমান বিনাশী দুষ্ট ধ্যানধারণার ভ্যাকসিন দিয়ে। সে কাজে তারা ব্যবহার করে মিডিয়ার সাথে দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে। সেক্যুলার শিক্ষায় শিক্ষাপ্রাপ্ত ছাত্রদের মনে ইসলামী ধ্যানধারণার প্রবেশ এজন্যই কঠিন হয়ে পড়ে। ফলে বাংলাদেশের মত দেশে যতই বাড়ছে সেক্যুলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মানুষ ততই ইসলাম থেকে দূরে সরছে। ফলে মুসলিমদের রাজস্বের অর্থে বিপুল সংখ্যায় ইসলামের শত্রু উৎপাদিত হচ্ছে। এবং এভাবে বাড়িয়ে চলেছে ইসলামের পরাজয়। জনগণ এভাবে নিজেদের পাপের পাল্লা ভারী করছে। দেশের শিক্ষানীতি, শিক্ষা ব্যবস্থা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি তাই দেশবাসীর বিপর্যয় বাড়াচ্ছে শুধু পার্থিব জীবনে নয়, আখেরাতেও। লন্ডন, ১ম সংস্করণ ০৫/০৬/২০১২; দ্বিতীয় সংস্করণ ০৩/০৯/২০২১।




The US sadism, the investment in death and destruction, and the looming global war

Dr. Firoz Mahboob Kamal

The US sadism and the crime

The US Americans proved to be a nation of sadists. Sadism is an incurable mental disease. Since its root is ideological and racial, no medicine works against it. Sadism has robust behavioral and cultural symptoms. Normal people get grieved with pain, death, and the sufferings of others. But a sadist enjoys and celebrates the death, destruction, and miseries of others. They love war and invest massively in wars. So the war of occupation, ethnic cleansing, genocide, indiscriminate bombing are the parts of the sadists’ culture. They hate other people’s happiness and pleasure. Hence, they distaste putting money in peace, stability, and other people’s welfare.

The sadists don’t simply kill other people, rather torture, lynch and even burn alive to death. They invent more brutal ways of torturing even the hand-cuffed powerless prisoners. So waterboarding of prisoners is a US invention. This is why Abu Gharib prison in Iraq, Baghram prison in Afghanistan, and Guantanamo Bay in Cuba could become torture industries. These prisons proved to be regular practicing grounds for the sadists. They urinated on the Qur’an –the holy book of the Muslims. They make people naked and made pyramids with their naked bodies and took selfies with the pyramid. These are done only to get an orgy of sadistic pleasure. For the same sadism, the USA dropped nuclear bombs on Nagasaki and Hiroshima. Powerful Germany surrendered without nuclear bombs. Japan was close to surrender, too. But the American sadists were not happy with mere surrender. They wanted a wild celebration by burning hundreds of thousands of Japanese alive to death with nuclear fire. This is the exact display of US sadism.     

Toxic venoms of racism, supremacism, and toxic hatred against people of other faith, race, and skin color cause such violent sadism. The Red Indians and the African Blacks became the worst victims of such sadism in the USA. In India, the Muslims are facing the same wild sadism of the Hindu supremacist RSS and BJP thugs. They can’t enjoy the simple death of Muslims. They celebrate lynching Muslims in public, raping their women in gangs, and throwing the Muslim men and women alive in the fire. In 2002, such a celebration of massacre happened in Gujrat in a week-long anti-Muslim pogrom under the watch of Norendal Modi –then the chief minister of Gujrat. Even the Indian media depicted horrendous pictures of such sadistic carnage. And it is very endemic in India.

 

The USA investment in war   

The US President Joe Biden told in his White House speech on 31/08/2021 that the USA has spent 2 trillion US dollars in 20 years’ war in Afghanistan. He also told that the USA has spent 300 million per day over a span of 20 years. But Afghanistan is not the only war front of the USA. After 9/11, the USA launched the war in Iraq, Syria, Yemen, Somalia, Libya, and also Pakistan. Recently the Brown University –a leading American research university published a report on the USA’s war cost. It gave an estimate that the USA has spent $8 trillion in the war since 9/11 and has killed directly at least 897,000 to 929,000 people. The researchers mentioned that it is a conservative estimate of deaths. The deaths may be more than a million.

The Brown University gave the following breakdown of $8 trillion war investment:

  • $2.3 trillion spent in Afghanistan and Pakistan sector.
  • $2.1 trillion in Iraq and Syria.
  • $ 355 billion in Libya, Somalia, Yemen, and other war zones.
  • $1.1 trillion on the USA Homeland Security
  • $2.2 trillion is estimated as the cost for taking future care of war veterans.

Of those killed, 387,000 are civilians, 207,000 are the Army and police personnel and 301,000 are opposition fighters killed by the troops of the USA and the allies. About 15, 000 US servicemen and contractors are also killed along with a similar number of deaths of the western allies. Prime Minister Imran Khan claims that 70,000 Pakistanis died because of Pakistan’s participation as an ally of the USA’s war on the Taliban. But there is a difficulty in calculating the actual number of deaths because the USA Army – the main agent in killings didn’t keep any account of the deaths.  

                                                       

The looming new USA war

The USA had declared the end of its war in Afghanistan. It has evacuated all of its forces from Afghanistan. But the consequences of war still remain and a new US war against an old enemy is looming. Taliban is still struggling to get full control over the whole of Afghanistan. The economy is rapidly collapsing. The World Bank, IMF, and the US government have blocked their funds. The banks in Afghanistan suffer from an acute cash crisis. Still, the Taliban couldn’t form a government. Hence a lot of things are yet to be seen. If all these are not quickly fixed the country is going to be a failed state.

The current situation gives a golden opportunity to ISIS-Khorasan to get more fighters and more territories –as ISIS could quickly establish in failed states of Syria and Iraq. In Syria and Iraq, ISIS didn’t enjoy conducive terrain for guerrilla warfare against a massive US and its allies’ bombardment. But such a convenient geographic terrain perfectly exists in Afghanistan. So the USA and its allies get highly worried about ISIS-Khorasan. ISIS-Khorasan recently killed 13 US soldiers. That has amplified the west’s worries. To take revenge, the USA killed 10 innocent civilians by a drone attack. Of them, 6 are children. The drone was aimed at killing ISIS-Khorasan fighters, but it is made known how many of the ISIS has been killed.     

 

The USA war now turns global

The USA has totally failed in its war on the Taliban. The USA couldn’t eliminate the Taliban, rather has strengthened the organization remarkably. Now the USA finds ISIS-Khorasan its new enemy. The USA can’t fight against ISIS-Khorasan alone. It has terribly lost its confidence; and also suffers from economic ill-health. The US Defence Secretary Lloyd Austin indicated in his Pentagon speech on 01/09/201 that the USA will build collaboration with the Taliban in its war on ISIS-Khorasan. President Biden in a speech on 31/08/2021 also recently appreciated the Taliban for their cooperation in the evacuation of the US forces from Afghanistan. It is true that the Taliban didn’t fire even a single bullet against any US soldier. Such appreciation tells a lot about the USA’s intended strategy to work with the Taliban.  

The Taliban and ISIS-Khorasan –although both the brands claim to be Islamists, are mutually fierce competitors. The Taliban have their own Achilles’ heel. They are based on more tribal and Afghan nationalist orientations. Whereas in Islam, causing division among the Muslims based on tribal, ethnic, or national identities is a forbidden and punishable crime as per sharia law. The Taliban believe in the Islamic Emirate of Afghanistan. Hence their focus is only within Afghanistan. So, they have no concern outside Afghanistan. Many Islamic Muslims don’t like such a nationalist mindset. Moreover, if the Taliban makes a coalition with the USA, it will drastically diminish its credibility. The USA is deeply hated in Afghanistan for its acts of killing and torturing millions of people there.

Whereas ISIS is pan-Islamic jihad. It doesn’t recognize national and tribal identities. This is why while ISIS established the Islamic State in Syria and Iraq, they first removed the border between Iraq and Syria. They invited Muslims all over the world to emigrate there. Even the richest Muslim country in the world will not give such an invitation. Thousands of people from Europe, Asia, and Africa responded to that ISIS call. ISIS aspires to raise Muslims as an Islamic global superpower. So it appears more identical to the original Islam of Prophet Muhammad (peace be upon him) and the early rightly guided caliphs –while the Arabs, the Iranians, the Africans, the Turks, and the Kurds lived and worked together. There was no tribal or national state in those golden days of Islam. This is why ISIS could become easily and rapidly a global Islamic brand with strong outposts in many countries in Asia and Africa. This is why the countries and the people that are based on radical secularism, nationalism, and tribalism like all Arab states, Turkey, Iran, Pakistan, and Bangladesh don’t like ISIS. They hate ISIS more than non-Muslims. This is why the USA gets these states as ever-ready partners in its war on ISIS.  

Therefore, the USA’s war on Islam shows no sign of ending. Rather the war on ISIS turns to be global. This is why President Biden told about a war over the horizon. Therefore, the USA war that was limited to Afghanistan, Iraq, and Syria is turning into a war over the whole Muslim World. So, every Muslim country, every Muslim city, every Muslim village, and every Muslim will be under the watch of the US rudder. The USA will be hunting and fighting ISIS members everywhere. But the country that couldn’t win a war with a coalition of more than 60 sixty countries in Afghanistan in 20 years, how can win a global war spread over tens of countries? 02/09/2021