Tsunami of Secularism in the Muslim World & the Damage

Secularism: the vile ideology

Secularism stands inimical to the whole project of Islam. Although claim to be Muslim, the secularists in the Muslim World are the real distractors from the Divine vision, mission, and roadmap. In the golden days of Islam, the Muslims could stand united to promote Islamic vision only because of the strong pan-Islamic brotherhood. But the deep de-Islamisation through secularisation badly eroded such ideological glue. As a result, the body of the Muslim Ummah got deeply fractured and became unable to stand on the feet. Because of the corrosive impact, the secularised Muslim Ummah developed extreme incompatibility against the basic tenents of Islam. In the name of the language, tribe, sect, and geographical identity, they returned back to the days of the old jahiliyyah. So the Osmania Caliphate dismantled. The Arabs divided into 22 pieces. The united Pakistan project of the South Asian Muslims also collapsed. Such a state of crippling divisions of the Ummah gave a golden opportunity to the enemies to have a full reign on Muslims’ land, lives, resources, and dignity. The secularists, because of their deep detachment from Islam, prefer to ignore Islam’s golden past and celebrate their tribal, racial, linguistic or geographical identity. Like the known external enemies, they too perceive the emergence of Islam as a threat to their own political, ideological and cultural survival. During the colonial rule of the European imperialists, they got ideological cum cultural nurture in their secular educational institutions; as a result of such secular upbringing, millions of these ideological converts worked as footsoldiers both at home and abroad to protect the colonial rule. The colonial-era has ended; but the imperialists didn’t end their ideological, political, cultural and business enterprises in the former colonies. In fact, they have forged a coalition with the native secularists to protect their interests in the Muslim World. With the recent wave of Islamic resurgence in the Muslim World, they feel threatened and it has given them new impetus to develop a common ground to foil it. Such a coalition with the imperialists has given the ruling secularists a new opportunity to sustain their own rule and protect their own vested privileges.

To spread the ideological disease, the secularised education system works as the main vehicle. Devil doesn’t need to approach individuals to whisper into the ears; the secularised education system is doing the job. Through education, they alienate people from Islam’s core vision, mission, and objective. The students are taught to use profession, politics, culture, media and intellectual endeavors only for the worldly success. The subjects like Qur’anic education, moral development and Islamisation of state are kept out of the public domain. As per the plan, the issue of attaining success in the endless life in the hereafter is kept out of the focus. Even the Qur’anic concept of the worldly life as an exam period for the promotion or the demotion in the hereafter is kept out of the curriculum. Even the faith of Islam has been heavily corrupted. As a result, the religion of Islam -as practiced by the secularist Muslims is altogether different from Islam of the Prophet Muhammad (peace be upon him). Whereas unlike other religions, Islam is known for its clarity.   The Prophet of Islam (peace be upon him) didn’t leave any ambiguity or obscurity vis-à-vis how Islam should be practiced in private or public life, in politics or warfare, in judiciary or administration, in culture or education. He showed the distinct roadmap –as revealed in the Holy Qur’an and all the rightly guided Caliphs followed it. And it is obligatory on every Muslim to follow it. How one can deny the historical fact that immediately after the migration from Mokka to Medina, the Prophet Muhammad (peace be upon him) founded an Islamic state. He was himself the head of the state. And every Muslim, Jew, Christian and the kuffars living in that state recognized that. He also raised a state Army and took part in many war campaigns. He sent ambassadors to the foreign states. He also delivered justice as per sharia law. How can one follow the Prophet (peace be upon him) without following such prophetic practices?  Because of the deviation, the Qur’anic Islam and such prophetic teachings don’t exist anymore in any of the Muslim countries. The Muslims are living without Qur’anic Islam and the Prophet’s teachings. The secularists call such Islamic practice of the Prophet Muhammad (peace be upon him) and the early Muslims as the political Islam. As if, politics is forbidden in Islam! As if, Prophet Muhammad (peace be upon him) worked as the head of the Islamic State and led the Muslim Army without engaging in politics!    

In order to promote their selfish worldly agenda, the secularists brought a huge shift in Muslims’ conceptual paradigm. It is indeed a 180-degree shift against Islam. However, such a secular world-view is not modern either, rather as old as the origin of humans on earth. Humans had always the temptation of being focussed only on immediate worldly successes and ignoring the distant hereafter. The Holy Qur’an is also very explicit on such human tendency. Today’s Muslims have fallen into the same trap. The pre-Islamic Arab kuffar also had the same conceptual disease. They believed in Allah. They even named their son Abdallah -meaning a slave of Allah. They believed that Ka’ba is the house of Allah SWT and was built by His prophet Ibrahim (peace be upon him). But they did not believe in the hereafter. Hence they did not have any fear of accountability of the bad deeds. So the concept of hereafter with its hells and heavens had no place in their life. Their only agenda of survival was to enhance their worldly gains.

 

The crimes of the secularists

The most catastrophic defeat of the Muslims did not take place in any battle-field. They lost their war on the conceptual premise. The defeats on the geopolitical frontiers came later on. The Muslims lost the war of ideas only because of the secularisation of their thought. The early Muslims used Qur’an as the most powerful ideological weapon. But the secularists ignored its importance. So they were ideologically defeated before the war started. Secularism is defined as a “system of social organization and education where religion is not allowed to play a part in civil affairs.”–(Collins COBUILD Advanced Learner’s Dictionary). Therefore, the prime political objective of the secularists is to restrict religions playing any role in the system of social organizations, politics, education, and warfare. In fact, here starts the conflict between the secularists and the believers. Islam is known for its all-inclusive global vision and objective. It is the greatest blessing of Allah SWT for the whole of mankind. Humans can get peace on earth and access paradise in the hereafter only through the path shown by Islam. Allah SWT has labeled it as siratul mustaqeem in the Holy Qur’an. And the Qur’anic path must be followed not only in five-time prayers, fasting, haj, and charity, but also in education, politics, judiciary, trade, administration, economics, and warfare. These are indeed the playing fields where the destiny of a people -both here and in the hereafter gets decided. But if Islam is kept out of the playing fields –as it’s the plan of the secularists, how can it deliver such blessings to the mankind? In order to take the blessings of Allah SWT to every man and woman, all the social, religious, political, judicial, cultural and educational institutions must work together –as was the case during the golden days of Islam.

Awfully, the secularists work in the opposite direction. They keep the statecraft and its institutions free from the Islamists’ control. This is their worst crime against humanity –worse than any worst war crimes in the history. Nuclear bombs instantly burn people to death but do not take people to burn eternally in hell. But the vile secularists take people to hellfire by putting an obstruction on the heaven-bound Divine roadmap. Moreover, they use the secular education system to immunize students’ minds against any Islamic influence. Thus they raise a barrier against the Islamisation of individuals, states, and societies. In the geopolitical arena, it raises divisive walls in the name of different language, ethnicity, geography and culture. Thus, the secularist forces could easily dismantle the unity of the Muslim Ummah and could restrict the spread of Islamic influence from one country to another. In addition, they execute other  strategies, too. They keep the Qur’anic lessons out of the classrooms, throw out the laws of Allah SWT off the courtrooms and restrict the practice of Islam only within the mosques. Because of such works against Islam and the Muslims, they could easily qualify as the trustworthy friend of the known anti-Islamic forces all over the world. Hence, many of them are taken as partners to occupy Muslim lands. So the Americans, the British, the Russians and the Indians were never alone in their occupational wars in the Muslim lands like Afghanistan, Palestine, Iraq, Syria, Pakistan and many others.

The moral, cultural, behavioral and political revolutions always start in people’s minds. The ideas generated in mind indeed work as the real engine of any revolution. Hence, the pre-Islamic Arabs did not remain the same after the acceptance of Islam. Prior to Islam, engaging in various crimes was not morally disapproved, rather many moral perversions worked in the name of religion. But after the acceptance of Islam, the people understood the agenda of life differently. Investment of time, talent, energy, and money for the promotion of the good and for the eradication of the wrong was considered an investment for profit trillions of times higher in the hereafter. Only such an investment can buy a place in a paradise for infinity. So they engaged in doing good deeds with all of their physical, financial and intellectual abilities. Because of such a strong passion to do the highest investment, more than 70 percent of the companions of the prophet (peace be upon him) preferred to sacrifice their lives.

Bu today’s  Muslims live with other paradigms in their hearts. As a result, they take a different path in their strategies of survival, politics, and ibadah. Although they recite the same Qur’an and read the same narratives of the prophet (peace be upon him), the missing element is the proper and deeper understanding of these two greatest sources of knowledge. Such a lack of understanding indeed caused the most paralyzing damage to the Ummah. And it owes to the secularisation of education. Because of that, the focus of all thoughts and activities shifts from the hereafter to the worldly life. Therefore, gratifying the personal whims gets the preference over satisfying Allah (SWT).

Since in a secular state the implementation of the Qur’anic law and its principles is not an objective, the understanding of the Qur’an gets heavily compromised. Who is going to study Qur’an, when there is no scope for the practice? In such a secularised context, the people are forced only to study and practice the law in operation. But the question arises, how can one sustain his faith if he ignores Allah SWT’s law? This way one can only forfeit his own faith and turns a rebel against Allah SWT. In fact, such a crucial point is made explicit in the Holy Qur’an. So, it is revealed, “Those who do not run judiciary as per my revealed law are kafir, … zaleem and …fasiq.” –(Sura Maida, verses 44, 45 and 47). Therefore, the Holy Qur’an keeps no ambiguity that whoever wants to live as a Muslim must live with sharia. There exists no exemption. This is why, prior to the occupation by the colonialists, the Muslims never spent a single day without the practice of sharia law. The occupation of the kuffar colonialists has ended, but the occupation of the native secularists still continues. So the crime of the colonial era still survives. As a result, the law of Allah SWT stays outside the courtroom in His own land! How can a Muslim please Allah SWT with such a rebellious act?   

 

The awful disservice

How to learn is education. And knowledge is the product of all educational endeavors. But what is the benefit of the knowledge if it imparts wrong objectives, wrong roadmap and wrong priority in life? Even criminals do have skills in reading, writing, and arithmetic. But for success here and in the hereafter, humans need the right vision, the right objective, the right role model and the right roadmap. More than a hundred thousand prophets were sent by the Almighty Allah SWT not only to show the right path but also to work as the role model. The Muslims have no option but to follow the prophetic model. In the early days of Islam, the Muslims didn’t have any university or college but have the institutions to show the right path and showcase the right role model as per Qur’anic and prophetic teachings. The Islamic state, the mosques, the madrasas, and the families worked jointly to promote the Divine agenda. But the secular education system does the opposite. In the name of education, it hides the Divine path (siratul mustaqeem) and the right role models from public eyes. Even the prophets –the greatest teachers and reformers in the history of mankind are not mentioned in the classrooms. This is indeed the greatest disservice in the name of education.

The educational institutions are committing colossal crimes by showing the wrong directions in life and presenting the wrong people as the model figure of highness to follow. Hence with the increasing number of colleges and universities, the deviation from siratul mustaqeem is getting much wider. As a result, the failures of Muslims are also getting much deeper. This is why, the secular universities –though in hundreds, couldn’t add any single glory to the Muslim history. In fact, some of the Muslim countries, with a higher number of university graduates earned the highest disgrace by ranking as the most corrupt country in the world.

The secular education is helping the greedy, the corrupt and the clever predators to gain more skills to do more harm to the societies. Wars, World Wars, colonial occupational wars, ethnic cleansing, dropping nuclear bombs and other genocidal crimes in the past are indeed the works of such secular university graduates. In fact, their knowledge, skills, and efforts get exhausted only to attain the worldly aims and nothing is left over to invest for the hereafter. Allah SWT labels these people as the ultimate loser and said, “Say (O Muhammad), “Shall we tell you who the greatest losers in respect of their deeds are? It is they whose labor has been wasted in this world’s life, while they think that they are doing good works. These are the people who deny the signs of their Lord and deny the fact of meeting with Him in the Hereafter. Vain will be their works. Nor shall We, on the day of judgment raise any scale to weigh their deed.”-(Sura Kahaf, verses 103-105).  Because of secular education, the Muslim World is full of such failed people. And awfully, the ever-increasing number of these failed people are adding more failures to the Muslim Ummah.

 

Failures are breeding more failures

Success starts with education. And its failure breeds more failures. Hence ensuring Islamic education for children is the most fundamental responsibility of the parents as well of the states. Education decides how children will grow up in the future. If such an Islamic obligation is ignored or delegated to a non-Muslim or a secularist enemy, it brings disaster -both here and in the hereafter. Since the Muslims’ mission of survival is different from that of the non-Muslims, their educational objective and need are also altogether different. Service of a non-Muslim can be acceptable in the field of medicine, engineering, agriculture or other non-ideological arenas, but not in the field of education. It is the duty of the Muslims themselves. So, the Muslims living in non-Muslim or secular Muslim countries face a catastrophic problem. In such countries, the aim of becoming a doctor, accountant, engineer or scientist can be easily met, but growing up with Islamic education, vision and ideology remain in great danger. A Muslim can never deserve any Islamic education from a non-Muslim.

Education is also the most powerful tool of indoctrination. In the occupied Muslim lands, the Christian missionaries used it as a tool of subversion against Islamic faith for ages. They opened hundreds of missionary schools not as a part of charity rather as a ploy to increase the speed of cultural and ideological conversion. Failing to make any significant gain in religious conversion, the Christian colonialists found such ideological and cultural conversion as the most successful means to harm Islam and the Muslims. Because of such colonial strategy, all the Muslim countries are now under the occupation of these ideological and cultural converts aligned with the old masters. In fact, more damages are done and being done to Islam and the Muslims by these ideological and cultural products of the colonialists. Because of them, the unity of the Muslim countries, the practice of sharia and reclaiming the lost glory stay almost impossible.     

The children of Muslim immigrants in non-Muslim countries are the easy prey of the anti-Islamic ideological predators. Since the Muslims started to send their children to non-Muslim schools at home and abroad, their downfall as a civilizational power also took a start.  The collapse of Osmania Khilafah is an example. The unifying force of the Osmania Khilafah was pan-Islamism. The Turks, the Arabs, the Kurds, the Albanians, the Kosovans, the Moors –all live in the same country for more than five hundred years. But the corrosive hatred against each other reached an explosive proportion while the Turks and the non-Turks were sent to European colleges for education. In those days, the West was the breeding ground of radical nationalism and secularism. They even fought a war of a hundred years to prove their tribal or national superiority. Therefore, while these Muslims returned back, they were already heavily infected with the toxic viruses of secularism and nationalism. As a result, they turned their faces against Islam. As two blades of the same scissors, nationalism, and secularism could cut the great Muslim empire into more than twenty-five pieces. The foreign military interventions during World War-I only expedited the process.

Another success story of the secular ideological converts in a Muslim land was the breakdown of Pakistan –the largest Muslim country in the contemporary world. This country was born out of India to meet the Muslims’ ideological, educational, cultural and civilizational objectives – as was envisioned by the great philosopher like Allama Iqbal. The foundation was also based on pan-Islamism. But the country did not have enough intellectuals and political leaders to understand such a profound vision. Such a huge void was filled with people who have little understanding of Islam’s civilizational need and goal. In the name of promoting education, the Bengali and non-Bengali academics and the army personnel were given scholarships to the western countries for education and training. The west got the golden opportunity to inculcate them with anti-Islamic venom. As a result, they returned back as the ideological and cultural converts. Their mind was so much embedded with the toxic virus of nationalism, secularism and western hedonism that they become highly incompatible among themselves.  The army cantonments and the civil and military officers’ club turned to be the protected islands of the western culture and ideologies. Drinking wine on taxpayers’ money and womanizing become the pastime of many army and civil officers. Drinking wine in Pakistan Army’s officers’ mess was firstly stopped by Gen. Ziaul Haque in the late seventies. The ideological converts in the universities were not idle either. They turned the university campuses into fertile breeding grounds for the radical secularists and the nationalists. So, the pan-Islamic glue of unity was eroded quickly and Pakistan become ripe for quick dismemberment from the inside. In 1971, the known enemy like India only played a midwife’s role.

The disease in remaining Pakistan still continues. The moral, political and economic crisis in Pakistan still owes to its educational failure. It has failed to mobilize people around Islam’s core vision and values. Because of the eroded pan-Islamic glue, the fracture lines in Iraq, Syria, Sudan, and Turkey are also getting deeper on ethnic and linguistic fault lines. If the colleges and universities of the Muslim World continue to breed the enemies of Islam and the Muslims men and women fail to fulfill their Islamic obligation, many more failures are waiting in the line. Allah SWT never helps those who do not help themselves. How the Muslims can help themselves while they are not equipped with Islamic knowledge and not imbued with the Islamic vision and mission? The first thing must be done first. But awfully, such first thing has been neglected from the very beginning. 23/05/12; re-edited 27/11/2019.

 




ভারতে মসজিদ ধ্বংস ও মুসলিম নির্মূল প্রকল্প

উৎসব অসভ্য কর্মে

মসজিদ বা অন্য কোন ধর্মের উপাসনালয় ধ্বংস করা কোন কালেই এবং কোন দেশেই সভ্যকর্ম রূপে বিবেচিত হয়নি। সভ্যকর্ম রূপে বিবেচিত হয়নি কোন একটি ধর্মের অনুসারিদের হত্যা করা, তাদের মহিলাদের ধর্ষণ করা এবং শিশুদের আগুণে ফেলে উল্লাস করা। এটিও কোন সভ্য কর্ম নয় যে, কে গরুর মাংস খেলো বা কে শুকর বা শাপ খেলো তার ভিত্তিতে রাস্তায় পিটিয়ে কাউকে হত্যা করা। এরূপ হত্যাকান্ড চিরকালই বিবেচিত হয়েছে অতিশয় বর্বর ও অসভ্য কর্ম রূপে। অথচ এরূপ অসভ্য ও বর্বর কর্মগুলি ভারতে নিয়মিত উৎসবভরে হচ্ছে।  এরূপ অসভ্যতা ভারতে যে কতটা ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে তারই প্রমাণ হলো, এ বর্বরতা নিছক কোন দলের দুর্বৃত্ত নেতাকর্মীদের মাঝে সীমিত নেই। বরং সেটি ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে ভারতের সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দু জনগোষ্ঠির মাঝে। ফলে মসজিদ ভাঙ্গার ন্যায় বর্বর কর্মটি কোথাও শুরু হলে সে অসভ্যতাটিও লাখ লাখ মানুষের উৎসবে পরিণত হয়। সেটি ১৯৯২ সালে সেরূপ একটি উৎসব দেখা গেছে অযোধ্যায় বাবরি মসজিদ ধ্বংসকালে। এ বর্বরতাটি এতটাই পবিত্র গণ্য হয়েছে যে, কোন পুলিশ, কোন প্রশাসনিক কর্মকর্তা বা মন্ত্রী ঘটনাস্থলে এসে সেটি থামানোর চেষ্টা করেনি। আরো লক্ষ্যণীয় হলো, মুসলিম নারী, পুরুষ ও শিশুদের হত্যা এবং মহিলাদের ধর্ষণের লক্ষ্যে কোন শহরে মুসলিম জনবসতির উপর হামলা শুরু হলে সেখানেও লাখ লাখ হিন্দুর ঢল নামে। যেন সেটিও একটি পবিত্র কর্ম। ১৮৮৩ সালে আসামের নেলীতে, ১৯৯২ সালে মুম্বাইয়ে, ২০০২ সালে গুজরাতে এবং ২০১৩ সালে উত্তর প্রদেশের মুজাফ্ফর নগরে তো সেটিই হয়েছে। সে অসভ্য বর্বরতায় অপরাধীদের পূর্ণ সুযোগ দিতে পুলিশ, প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং সেনবাহিনীও সচরাচর ঘটনাস্থল থেকে পরিকল্পিত ভাবেই অদৃশ্য থেকেছে। যেন তারা কিছু দেখেনি এবং শুনেনি।

মূল সমস্যাটি তাই শুধু অসভ্য অপরাধ কর্মগুলিতে বিপুল সংখ্যক হিন্দুর অংশ গ্রহণ নয়, বরং সে বর্বর কর্মগুলিকে ঘৃণা না করে সর্বমহলে সেগুলিকে পবিত্র জ্ঞান করা। সে সাথে কাপুরুষের ভূমিকায় নেমেছে দেশের লেখক, সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবী সম্প্রদায়। এমন কি ভারতের মুসলিম আলেমগণও।ভারতীয় মুসলিমদের অতিশয় দুশ্চিন্তার কারণ মূলতঃ এখানেই্। দুশ্চিন্তা এতটাই বেড়েছে যে, মায়েরা তাদের সন্তানদের মাথায় টুপি দিয়ে মসজিদে যেতে নিষেধ করে এ ভয়ে যে, বজরং দল, বিজিপি, আর.এস.এস বা বিশ্ব হিন্দু পরিষদের গুন্ডারা পথে তাদের পিটিয়ে লাশ বানিয়ে ফেলবে। কিছু দিন আগে কলকাতার মুসলিম মেয়র ফিরহাদ হাকিম এমন একটি পরিস্থিতির কথা তুলে ধরেছেন তার এক বক্তৃতাতে।  মুসলিম ব্যবসায়ীগণ হাটে গরু বেঁচতে যেতেও ভয় পায়, না জানি গো-রক্ষক ভলেন্টেয়ারেরা পথে তাদের হত্যা করে ফেলে। কারণ, এগুলিই তো অহরহ হচ্ছে। লক্ষণীয় হলো, যে নৃশংস অসভ্যতার শিকার হচ্ছে মুসলিম নর-নারী ও শিশুগণ, তা থেকে এখন বাদ পড়ছে না ভারতের ঐতিহাসিক মসজিদগুলিও।    

২০১৪ এবং ২০১৯ সালে নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদির দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজিপি)র বিপুল ভোটে বিজয়ী হওয়ার কারণটি এ নয় যে, দলটি ক্ষমতায় এসে ভারত থেকে দারিদ্র্য দূর করেছে। বরং বাস্তবতা হলো, দারিদ্র্য ও বেকারত্ব ভারতে দিন দিন বেড়েই চলেছে। এক্ষেত্রে দলটির ব্যর্থতা বিশাল। বিশ্বের সর্ববৃহৎ দরিদ্র জনগোষ্ঠির বাস এখনো ভারতে। প্রতি বছর বহু হাজার কৃষক আত্মহত্যা করে স্রেফ ঋণের অর্থ পরিশোধ না করতে পেরে। বহুকোটি মানুষ ভিটামাটি হারিয়ে বস্তিতে বসবাস করে। এবং বহুকোটি আদিবাসী বেঁচে আছে বনজঙ্গলের জীব, ফলমূল ও কচু-ঘেচু খেয়ে। বিজিপির জনপ্রিয়তার মূল কারণটি অন্যত্র। সেটি ভারতীয় হিন্দুদের মাঝে চরম মুসলিম বিদ্বেষ সৃষ্টিতে দলটির সফলতা। যে রাজনৈতিক দলটি মুসলিম নির্মূল ও মসজিদ নির্মূলে অধীকতর নৃশংস হওয়ার দৃষ্টান্ত রাখছে -ভারতীয় হিন্দুগণ সে দলকেই বিপুল ভোটে বিজয়ী করছে। সমগ্র ভারত জুড়ে হিন্দুদের মাঝে এরূপ মুসলিম বিদ্বেষের কারণেই গুজরাতের মুসলিম গণহত্যার নায়ক নরেন্দ্র মোদি আজ ভারতের প্রধানমন্ত্রী। নির্বাচনে বিজিপির পক্ষে জোয়ার সৃষ্টির আরো কারণ, এ দলটিই নেতৃত্ব দিয়েছিল ১৯৯২ সালের ৬ই ডিসেম্বর প্রায় ৫ শত বছরের পুরনো ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদটিকে মাটির সাথে মিশিয়ে দেয়ার কাজে। এবং ১৯৯২ সালে ও ২০০২ সালে নেতৃত্ব দিয়েছিল যথাক্রমে মুম্বাই ও গুজরাতে মুসলিম গণহত্যায়।

ভারতীয় মুসলিমদের জন্য ভয়ানক বিপদ এজন্যও যে, মুসলিম নির্মূল এবং মসজিদ নির্মূলের নৃশংস চেতনাটি শুধু বিজিপি,আর.এস.এস, শিব সেনা, বিশ্বহিন্দু পরিষদ, বজরং দলের গুন্ডাদের মাঝে সীমিত নয়। ছড়িয়ে পড়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারকদের মাঝেও। এবং সেটিরই সুস্পষ্ট আলামত পাওয়া যায় সুপ্রিম কোর্টের গত ৯ নভেম্বরের রায়ে। ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের বিচারকগণ আজ থেকে ২৭ বছর আগে যে চেতনার পরিচয় দিয়েছিল তা থেকে তারা অনেক দূর পিছু হটেছে। ২৭ বছর আগে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের বর্বরতাটিকে তারা একটি জঘন্য ফৌজদারি অপরাধ রূপে গণ্য করেছিল। সে অপরাধে উস্কানি দেয়ার অপরাধে বিজিপির নেতা এবং সাবেক কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী লাল কৃষ্ণ আদভানিসহ অনেকের বিরুদ্ধেই আদালত থেকে সমন জারি করা হয়েছিল। অথচ সে বিচারকগণই এখন মসজিদ ধ্বংসকারি গুন্ডাদের সাথে সুর মিলিয়ে রায় দিল বাবরি মসজিদের ভিটাতেই মন্দির হবে। ফলে ২৭ বছর আগে যে অপরাধকর্মটি অপরাধ রূপে গণ্য হয়েছিল এখন সেটি আর অপরাধ থাকছে না। বরং গ্রহনযোগ্য ধর্মীয় কর্ম রূপে গণ্য হচ্ছে। এরই ফলে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের অপরাধ নিয়ে যে মামলাগুলি এখনও আদালতে ঝুলছে, সে গুলি সত্ত্বর তুলে নেয়ার জন্য হিন্দু সংগঠনগুলির পক্ষ থেকে দাবিও উঠছে। সেদিনও দূরে নয় যখন সে মামলাগুলি সত্যই তুলে নেয়া হবে। এবং আসামীগণ চিত্রিত হবে হিরো রূপে।   

 

বিচারের নামে ভূমি বিনিময়ের সালিশ

বাবরি মসজিদ ধ্বংসের রায়ে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের বিচারকগণ ন্যায়বিচারের বদলে নিছক ভূমি লেনদেনের সালিশী পেশ করলো। এবং আদালতের এ রায়ে বিচারকদের আসল মতলবটিও প্রকাশ পেল। এখন এটি সুস্পষ্ট যে, বিচারের মূল লক্ষ্যটি ছিল ফ্যাসিস্ট হিন্দুত্ববাদীদের মনবাসনা পূর্ণ করা। বিচারের রায়ে হিন্দু ফ্যাসিস্টদের বিজয়টি তাই বিশাল। ১৯৪৭ সালে স্বাধীনতা পেয়ে ভারতের হিন্দুত্ববাদীগণ এতটাই গর্বিত যে, তাদের কাছে অসহ্য হলো সাত শত বছরের মুসলিম শাসনের ইতিহাসকে হজম করা। আরো অসহ্য হলো, চোখের সামনে মুসলিম শাসনের স্মৃতি ধারণকারি প্রতিষ্ঠাগুলিকে বরদাশত করা। বস্তুতঃ এমন একটি ঘৃনার কারণে প্রতিটি মুসলিম এবং প্রতিটি মুসলিম প্রতিষ্ঠানই তাদের কাছে অসহ্য। যে মুসলিমগণ ভারত শাসন করেছিল তাদের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু তারা প্রতিশোধ নিতে চায় যারা বেঁচে আছে সে মুসলিমদের থেকে। এমন একটি সহিংস চেতনার কারণে ভারত ভূমি থেকে তারা শুধু মুসলিমদেরই নির্মূল চায় না, নির্মূল করতে চায় ইসলাম ও মুসলিম স্মৃতি নিয়ে বাঁচা প্রতিষ্ঠানগুলিকেও। তেমন একটি উদ্দেশ্য নিয়েই তারা গুন্ডামী করে নির্মূল করে দিল ৫ শত বছরের পুরানো ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদকে। অথচ এরূপ একটি গুরুতর বর্বরতাকে খাটো করতেই ভারতের সুপ্রিম কোর্ট মসজিদ ধ্বংসের ন্যায় গুরুতর এক সন্ত্রাসী অপরাধকে নিছক ভূমি সংক্রান্ত বিরোধ রূপে বিচার করলো। আদালতের বিচারকদের ধারণা, ৫ একর জমি দিয়ে মুসলিমদের সহজেই তুষ্ট করা যাবে এবং সে সাথে এ বীভৎস অপরাধের কান্ডকে ইতিহাস থেকে মুছে দেয়া যাবে। বিচারকদের রায়ে বাবরি মসজিদের ন্যায় ঐতিহাসিক মসজিদের মূল্য যেন ৫ একর জমি। যেন ভারতের ২০ কোটি মুসলিমের ৫ একর জমি কেনার সামর্থ্যও নাই। মুসলিমদের প্রতি এরচেয়ে বড় অবমাননা আর কি হতে পারে? ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং তার সাথি হিন্দুত্ববাদী অন্যান্য নেতাকর্মীগণ তাই সুপ্রিম কোর্টের বিচারের রায়ে প্রচন্ড খুশি। কারণ মুসলিমদের যেখানে প্রচন্ড পরাজয় ও অপমান –নরেন্দ্র মোদি ও তার সাথিগণ ততই খুশি হবে -সেটিই তো স্বাভাবিক?

ভারতের প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং আদালতের হিন্দুদের এ বিষয়টি নিশ্চয়ই জানা নেই যে, কোন ভূমিতে যখন মসজিদ নির্মিত হয় তখন সে ভূমির মালিকানা কোন ব্যক্তি, সরকার বা ওয়াক্বফ বোর্ডের থাকে না। প্রতিটি মসজিদই মহান আল্লাহ রাব্বুল আ’লামীনের নিজের ঘর। এবং প্রতিটি মসজিদের ইমারত এবং জমির তিনিই একমাত্র মালিক। তাই ভারতীয় হিন্দুগণ মহান আল্লাহতায়ালার মালিকানায় হাত দিয়েছে। তবে আল্লাহতায়ালার ঘরে কেউ হাত দিলে প্রতিটি মুসলিমের দায়িত্ব হয় তাঁর খলিফা রূপে সে ঘরের পাহারা দেয়া। তাই ৫ একর জমির বিনিময়ে সে ঘরের জমি মন্দির নির্মাণে হিন্দুদের দিয়ে দেয়াটি ঈমানদারি হতে পারে না। এ নিয়ে আপোষ করার কোন এখতিয়ার কোন মুসলিম রাজনৈতিক দল বা ওয়াকফ কমিটিরও থাকে না। হাদীসে বলা হয়েছে, পৃথিবী পৃষ্টে যারা আল্লাহর ঘর গড়েন, আল্লাহতায়ালাও তাদের জন্য জান্নাতে ঘর গড়েন। এবং আল্লাহর সে ঘরের পাহারা দেয়ার কাজটিও তাই কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। এক্ষেত্রে ভারতের ২০ কোটি মুসলিমের ব্যর্থতাটি বিশাল। তারা আল্লাহতায়ালার ঘরের নিরাপত্তা দিতে পারিনি। প্রশ্ন হলো, এখন কি তারা আল্লাহর ঘরের ভিটায় মুশরিকদের মন্দির নির্মাণকে মেনে নিবে?   

 

বিচারকদের অবিচার

আদালতের রায়ে বিচারকগণ একথা বলতে বাধ্য হয়েছে যে, এ প্রমাণ কোথাও পাওয়া যায়নি যে মসজিদের নীচে মন্দির ছিল। অতীতে এমন দাবী এমন কি তুলসী দাস, শিবাজী, বিবেকান্দ, গুরু গোবিন্দ, স্বামী দয়ানন্দ সরস্বতী এবং অরবিন্দ ঘোষের ন্যায় যারা ভারতের ইতিহাসে প্রখ্যাত হিন্দু পন্ডিত, নেতা বা বুদ্ধিজীবী -তারাও কখনো করেনি। অথচ ১৯৯২ সালে বাবরি মসজিদ ভাঙ্গার পিছনে মূল কারণ রূপে দেখানো হয়েছে, মসজিদটি নির্মিত হয়েছিল মন্দিরের উপর। বাবরি মসজিদ ভাঙ্গার মূল হোতা বিজিপি নেতা লাল কৃষ্ণ আদভানীর দাবি ছিল, মসজিদের ইমাম যে মেম্বরের উপর দাঁড়িয়ে খোতবা দেন, রামের জন্মস্থান ছিল তারই নীচে। মসজিদ ভেঙ্গে সেখান মন্দির নির্মাণ ছাড়া অন্য কোন প্রস্তাবে সে কিছুতেই রাজি ছিল না। তবে বাবরি মসজিদ ভাঙ্গার মধ্য দিয়েই বিজিপি ও তার অঙ্গ সংগঠনগুলির প্রকল্প শেষ হয়নি। মুসলিম বিরোধী সে ঘৃনাকে বাঁচিয়ে রাখার প্রয়োজন আরো অনেক মসিজদের তলায় মন্দিরের তত্ত্ব শোনাচ্ছে। এবং সেটি ঘৃনাভিত্তিক ক্ষমতা দখলের রাজনীতিকে আরো তীব্রতর করার প্রয়োজনে। তাই বিজিপির এ অপরাজনীতি যতদিন বেঁচে থাকবে ততদিন মসজিদ নির্মূলের রাজনীতিও তীব্রতর হবে। অবিকল সে কথাটিই বলেছেন ভারতীয় হিন্দুদের এক আধ্যাত্মিক গুরু স্বামী অগ্নিবেশ। বলা হচ্ছে মথুরার শাহী মসজিদটি নাকি শ্রীকৃষ্ণের জন্মভূমির উপর। তলায় মন্দিরের কিসসা শোনানো হচ্ছে বারানসির জ্ঞানবাপি মসিজদের বিরুদ্ধেও। কল্পনা করতে তো আর ইতিহাস লাগে না, প্রত্নতাত্তিক প্রমাণ লাগে না। লাগে শুধু কল্পনাবিলাসী মন। এবং গাঁজার কল্কের ন্যায় সেরূপ মনের অধিকারীদের সংখ্যা কি ভারতে কম? এমন কি বলা হচ্ছে, তাজমহলও আগে একটি মন্দির ছিল। সোসাল মিডিয়াতে ইতিমধ্যেই চার শতটি মসজিদের তালিকা পেশ করেছে। বলা হচ্ছে, বাবরি মসজিদের ন্যায় সেগুলিও একের পর এক ধ্বংস করা হবে। তাছাড়া মিথ্যার শক্তি তো বিশাল। একবার রটিয়ে দিলে সে মিথ্যা কোটি কোটি অনুসারি পেয়ে যায়। গরুকে দেবতার আসনে বসানো হয়েছে এবং গো-মুত্রকে পবিত্র পানীয় রূপে প্রতিষ্ঠা দেয়া হয়েছে এরূপ মিথ্যা রটিয়েই। ইবলিসের বিশ্বজোড়া বিশাল অনুসারি তো এ মিথ্যার উপরই।

ভারতের বিখ্যাত প্রত্নতত্ত্ব বিশারদ হলেন দিল্লির জওহারলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ভারমা। তার গবেষণালদ্ধ আবিস্কার হলো, বাবরি মসজিদের নীচে যে পুরোন ইমারতের আলামত পাওয়া গেছে সেটি হলো একটি পুরোন মসজিদের, মন্দিরের নয়। তার যুক্তি, একটি পুরোন ছোট মসজিদের ভিটায় বিশাল মসজিদ নির্মাণ করা হয়। আদালতের বিচারকগণও তাদের রায়ে মিস্টার ভার্মার সে অভিমতটি মেনে নিয়েছেন। কিন্তু লক্ষণীয় হলো, প্রফেসর ভার্মার সে আবিস্কারটি মেনে নিলেও সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিগণ সে সত্যের ভিত্তিতে ন্যায়বিচার প্রদানে নৈতিক বলের প্রমাণ দিতে পারেননি। সেটি সম্ভবতঃ ফ্যাসিবাদী সরকারের ভয়। কারণ বিচারপতিগণও ক্ষুদ্র মানব। দুর্বলতার উর্দ্ধে তারা কোন ফেরেশতা নন। তাদেরও সংসার চালাতে হয় সরকার থেকে পাওয়া বেতন দিয়ে। তাদেরকে যারা নিরাপত্তা দেয় তারা সরকারেরর পুলিশ। তাদের সন্তানদের রাস্তাঘাটে চলাফেরা করতে  হয়, হাটেবাজারে ও স্কুল-কলেজে যেতে হয়। পথে ঘাটে হিন্দু ফ্যাসিস্টদের হাত থেকে কে তাদের নিরাপত্তা দিবে? একারণেই দুর্বৃত্ত ফ্যাসিস্টদের হাতে দেশ অধিকৃত হলে, যে প্রতিষ্ঠানটির সর্বপ্রথম মৃত্যু ঘটে সেটি হলো দেশের আদালত ও ন্যায় বিচার। আদালত তখন ব্যবহৃত হয় ফ্যাসিবাদী সরকারের খায়েশ পুরণে। এরূপ নতজানু আদালতের রায়কে মান্যতা দেয়াও বস্তুতঃ আরেক নৈতিক অপরাধ। এবং সে অপরাধটি করতে জনগণকে তখন বাধ্য করে ফ্যাসিবাদী সরকার। আদালতের রায় যত ন্যায়বিচার-বিবর্জিত হোক না কেন -সে রায় মেনে নেয়াকে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার নসিহতও শোনানো হয়। এবং সেরূপ গর্হিত কাজ যেমন ভারতে হচ্ছে তেমনি বাংলাদেশেও হচ্ছে। বাংলাদেশের সুপ্রিম কোর্ট এভাবেই ব্যবহৃত হয়েছে দেশের সকল রাজনৈতিক দলের সর্বসম্মতিতে গৃহিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিধান বিলুপ্ত করার ন্যায় এক বিবেক-বিবর্জিত কাজে। কারণ স্বৈরাচারি শেখ হাসিনার ভোট ডাকাতিকে সহজ করার জন্য সেটি জরুরী ছিল। ভারতেও একই ভাবে আদালত ব্যবহৃত হলো বাবরি মসজিদ ধ্বংসের ন্যায় অতি অসভ্য কাজকে জায়েজ করতে।

অথচ রাজনৈতিক ময়দানে  বিগত ২৭ বছরেও কোন সরকারের পক্ষেই এরূপ গর্হিত কর্মকে জায়েজ করা সম্ভব হয়নি। এমন কি নব্বইয়ের দশকে বাজপেয়ীর নেতৃত্বাধীন অটল বিহারী বাজপেয়ীর সরকারও পারেনি। কারণ রাজনীতিতে একটি লজ্জাশরমের ব্যাপার থাকে। সে সাথে নৈতিক দায়বদ্ধতার বিষয়ও থাকে। ফলে বিজিপি ও তার অঙ্গসংগঠনগুলি ১৯৯২ বাবরি মসজিদ মাটির সাথে মিশিয়ে দিতে পারলেও পরবর্তী কোন সরকার থেকেই সে অপরাধ কর্মের পক্ষে বৈধতা আদায় করতে পারেনি। ফলে মসজিদের ভূমিতে মন্দির নির্মাণের এজেন্ডাও সফল হয়নি। গুজরাতে মুসলিম গণহত্যার নায়ক নরেন্দ্র মোদির বিজয়টি এক্ষেত্রে বিশাল। তার শাসনামলেই নিজের ও তার সঙ্গিদের হাতে সংঘটিত মসজিদ ধ্বংসের ন্যায় এক গুরুতর অপরাধকে সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের দিয়ে বৈধ করে নেয়া হলো।

অথচ মসজিদ ধ্বংসের বিষয়টি ছিল পুরাপুরি একটি ফৌজদারি অপরাধের বিষয়। দেশে আইনের শাসন থাকলে, কোন ফৌজদারি অপরাধই শাস্তি এড়াতে পারে না। কিন্তু ভারতের আদালতে সে অপরাধের কোন বিচারই হলো না। দেশে আইনের শাসন কতটা অনুপস্থিত এ হলো তারই প্রমাণ। ভারতের সুপ্রিম কোর্ট বিষয়টিকে অপরাধের বিষয় রূপে না দেখে সেটিকে হিন্দু-মুসলিমদের মাঝে ভূমি সংক্রান্ত বিরোধ রূপে খাড়া করেছে। বিচারও করেছে স্রেফ সে গন্ডির মধ্যে থেকে। সে বিরোধ মিটাতে গিয়ে এক দিকে যেমন মসজিদ ধ্বংসের গুরুতর অপরাধকে লঘু করে সেটিকে জায়েজ বা গ্রহণযোগ্য করার চেষ্টা করেছে, তেমনি মুসলিমদের ঘুষ দিয়ে তুষ্ট করার চেষ্টাও হয়েছে। সেটি করতেই মসজিদের পবিত্র ভূমিতে মন্দির করার অনুমিত দিয়ে অন্যত্র ৫ একর ভূমি মুসলিমদের দেয়ার প্রস্তাব রেখেছে। কিন্তু ন্যায় বিচার তো কখনোই এভাবে হয়না। একটি মসজিদকে যে গুড়িয়ে দেয়া হলো সে অপরাধের শাস্তি কোথায় গেল? আদালত যদি মনে করে, বাবরি মসজিদের ভূমিতে শুরুতেই মন্দির ছিল; তবে আবার ৫ একর জমি দেয়ার প্রয়োজন পড়লো কেন? অন্য দিকে আদালত যদি মনে করে মসজিদের নীচে মন্দিরের কোন প্রমাণ নাই এবং মসজিদটি তার নিজস্ব ভূমিতেই ছিল -তবে কেন সেখানে মন্দির নির্মিত হবে?  ৫ একর জমি দেয়ার কারণটি কি তবে মসজিদের জমিটি মন্দিরে জন্য গুন্ডামী করে কেড়ে নেয়ার মূল্য? এটি তো বিচারের নামে দুর্বৃত্তি। মুসলিমগণ সে দুর্বৃত্তিকে বিচারের নামে মেনে নিবে কেন?     

 

ভেসে গেছে সেক্যুলার দলগুলিও

ভারতের অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যেও বিগত ২৭ বছরে আমূল পরিবর্তন এসেছে। তারাও মসজিদ ধ্বংসের ন্যায় অসভ্য কুকর্মকে ঘৃণা করার সভ্য চেতনাটি হারিয়ে ফেলেছে। ভারতীয় কংগ্রেস, উত্তর প্রদেশের সমাজবাদি দল, রাষ্ট্রীয় জনতা দল, দলিতদের দল বহুজন সমাজ পার্টি, তামিলদের দল তেলেঙ্গু দেশম পার্টির ন্যায় সংগঠনগুলি যারা এতদিন নিজেদের সেক্যুলার রূপে পরিচয় দিয়েছে তারাও বিজিপি,আর.এস.এস, শিব সেনা, বিশ্বহিন্দু পরিষদ, বজরং দলের গুন্ডাদের সাথে সুর মিলিয়ে মসজিদের ভিটাতেই মন্দির নির্মাণকে সমর্থণ দিচ্ছে্। অথচ ১৯৯২ সালে যখন বাবরি মসজিদ ধ্বংস করা হয় তখন অবস্থা এমনটি ছিল না। তখন সে ঘটনাকে নিন্দা করে বিবৃতি দিয়েছিলেন ভারতের তৎকালীন কংগ্রেস দলীয় প্রধানমন্ত্রী নরসীমা রাও। নিন্দার পাশাপাশি তিনি এ ওয়াদাও দিয়েছিলেন, সরকার আবার সেখানে বাবরি মসজিদ নির্মাণ করবে। সে প্রতিশ্রুতি যে স্রেফ মুসলিমদের শান্ত করার লক্ষ্যে ছিল -তা নিয়ে কি আদৌ সন্দেহ থাকে? ইসলাম ও মুসলিমদের বিরুদ্ধে সংঘটিত এ অপরাধগুলি নিছক বর্বরতা নয়, নৃশংস প্রতারণাও। সে প্রতারণা যেমন ২৭ বছর আগে করা হয়েছিল, তেমনি আজও হচ্ছে।  লক্ষণীয় হলো, যে নাশকতাটি ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের কাছে ফৌজদারি অপরাধ রূপে গণ্য হয়েছিল -সে অপরাধ রুখতে ঘটনাস্থলে কোন পুলিশ আসেনি। যে অপরাধকে ১৯৯২ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নরসিমা রাও নিন্দা করলেন, সে অপরাধ দমনে তার কেন্দ্রীয় সরকারও কোন ব্যবস্থাই নেয়নি। সে অপরাধের সাথে যারা জড়িত ছিল তাদেরকে কোন রূপ শাস্তিও দেয়নি। এবং আদালতও বিগত ২৭ বছরে তার চরিত্র হারিয়েছে। যে আদালতে মসজিদ ভাঙ্গার অপরাধটি একটি ফৌজদারি মামলা রূপে গৃহিত হয়েছিল, সে আদালতই সহিংস গুন্ডামীর মাধ্যমে যারা মসজিদ ভাঙ্গলো তাদেরকে ৯ নভেম্বরের রায়ে পুরস্কৃত করলো।

 

অপরাধে সংশ্লিষ্ট হলো আদালতও

ভারতে অহরহ যা কিছু হচ্ছে তা সভ্য রীতি-নীতি থেকে বহু দূরে। কোন ভূমির উপর যদি মসজিদের ন্যায় পবিত্র একটি ইমারত থাকে এবং তা নিয়ে যদি আদালতে মামলা থাকে -তবে সে বিতর্কে সংশ্লিষ্ট একটি পক্ষের কি এ অধীকার থাকে যে বিতর্কিত মসজিদটিকে তারা গুন্ডামী করে ভেঙ্গে দিবে? তারপর মসজিদের ভিটায় মন্দির নির্মাণের দাবী তুলবে? এবং মসজিদ ভাঙ্গার কিছু দিন পর দেশের সুপ্রিম কোর্টও সেখানে মন্দির নির্মাণের অনুমতি দিবে? কোন সভ্য সমাজে কি এমনটি ভাবা যায়? এসব তো নিরেট গুন্ডাতন্ত্রের কথা। এরূপ ক্ষেত্রে যে কোন সভ্য দেশেই সরকার ও আদালতের দায়িত্বটি বিশাল। এক্ষেত্রে আদালতের দায়িত্বটি ছিল, বাবরি মসজিদের ভূমিটি কি আদৌ রামের জন্মভূমি তা নিয়ে নিরপেক্ষ ফয়সালা দেয়া। এবং ভারতের সরকার ও তার পুলিশ বাহিনীর  দায়িত্ব ছিল, আদালতের সে ফয়সালা না হওয়া পর্যন্ত বাবরি মসজিদকে নিরাপত্তা দেয়া। যে সভ্য সমাজের সেটিই তো রীতি। কিন্তু বাবরি মসজিদের ক্ষেত্রে সে সভ্য রীতি আদৌ মানা হয়নি। আদালতের ফয়সালা ছাড়াই একটি পক্ষকে আইন নিজ হাতে নিতে দেয়া হয়েছে। পরে আদালত নিজেই অপরাধীদের পদাংক অনুসরণ করেছে। তাই ১৯৯২ সালে মসজিদ ভাঙ্গার গুন্ডামীটি যে গুরুতর অপরাধ ছিল – আদালত সে বিষয়টি সে সময় মেনে নিলেও ৯ ই নভেম্বরের রায়ে সেটিই ঘোষিত হয়েছে যা অপরাধীগণ সব সময় চেয়ে এসেছে। ফলে সুপ্রিম কোর্টের এ রায়ের মধ্য দিয়ে বিচারকদের গুন্ডা-তোষণ নীতিই সুস্পষ্ট হয়েছে। আদালতের বড় ব্যর্থতা হলো, মসজিদ ভাঙ্গার ফৌজদারি অপরাধের মামলাটি বিগত ২৭ বছর যাবত ঝুলে থাকলেও সে অপরাধের জন্য কোন অপরাধীকেই শাস্তি দেয়া হয়নি। প্রশ্ন হলো, তবে কি অপরাধীদের পুরস্কৃত করার জন্যই মামলাটি নিয়ে দীর্ঘকার গড়িমসি করা হচ্ছিল? অবশেষে রায়ে আইনের শাসনের বদলে গুন্ডাদের শাসনকেই বিজয়ী কর হলো। মসজিদর ভাঙ্গার পূর্বে উগ্রহিন্দুদের আস্ফালন ছিল, বাবরি মসজিদের স্থানেই মন্দির হবে। আদালত অবশেষে সে উদ্ধত আস্ফালনকেই পূরণ করলো। এরূপ অবস্থায় মুসলিমগণ কাদের কাছে বিচার চাইবে? তাদের নিজেদের জানমাল এবং মসজিদ-মাদ্রাসারই বা কীরূপে নিরাপত্তা পাবে?      

বাবরি মসজিদ ভাঙ্গা হলো এ যুক্তিতে যে, মসজিদটি গড়া হয়েছিল রামের জন্ম ভূমিতে। প্রশ্ন হলো, কোথায় এবং কোন বছরে রামের জন্ম -সে বিবরণ কি কোথাও কোন কিতাবে লেখা আছে? সেটি কোথাও নাই। অনেকের মতে রামের ধারণাটিই হলো গনেশের নাক বা ঋষিদের রথে চড়ে আকাশে উড়ার মত পৌরাণিক কল্প -কাহিনী মাত্র। বাস্তবে কোন রাম অযোধ্যায় জন্ম নেয়নি। তার নামে কোন মন্দিরও ছিল না। বাবরি মসজিদের জমির পরিমাণ ২.৭ একর। কথা হলো, এত বড় বিশাল জমির উপর রামের জন্ম হলো এবং সেখানে একটি বিশাল মন্দির নির্মিত হলো –এরূপ এক বিশাল কাজ ভারতীয় ইতিহাস থেকে বিলুপ্ত হয় কি করে? তাছাড়া বাবরি মসজিদ তো নির্মিত হয়েছিল ১৫২৮ সালে। ভারতে ইতিহাস লেখার কাজের শুরু তারও বহুশত বছর আগে থেকে। হিন্দুদের দাবী সত্য হলে বাবরি মসজিদ নির্মিত হওয়ার পূ্র্বে এ বিশাল ভূমিতে রামের নামে বিশাল ও গুরুত্বপূর্ণ মন্দির থাকার কথা। সে বিশাল মন্দির ভাঙ্গার কর্মটিও তো ইতিহাসে স্থান পাওয়ার কথা।  কিন্তু আদালতে হিন্দুগণ এরূপ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কোন প্রমাণই পেশ করতে পারিনি। তাছাড়া জমির মালিকানা নিয়ে কোন বিরোধ থাকলে সে বিষয়টির নিষ্পত্তি হওয়া উচিত ছিল মসজিদটি ভাঙ্গার বহু পূর্বেই। সভ্য সমাজে সে নিষ্পত্তি করার জন্য তো আদালত। কিন্তু ভারতে সেটিও হয়নি। লক্ষণীয় হলো, মসজিদ ধ্বংসের লক্ষ্যে প্রতিটি অপরাধ ঘটানো হয়েছে ধাপে ধাপে এবং পরিকল্পনা মাফিক। প্রথমে মসজিদের ভূমিতে রামের জন্মভূমির মিথ্যাচার, এরপর ১৯৪৯ সালে মসজিদে মুর্তি রেখে অপবিত্রকরণ। এরপর ১৯৯২ সালে মসজিদের বিনাশ। এবং ২০১৯ সালে এসে দেশের সুপ্রিম কোর্ট থেকে মন্দির নির্মাণের পক্ষে রায় লাভ। কথা হলো, মসজিদ না ভাঙ্গলে কি ঐ স্থানে মন্দির বানানোর জন্য আদালত অনুমতি দিতে পারতো? এবং রাম জন্মভূমির মিথ্যা না ছড়ালে কি মসজিদ ভাঙ্গার কাজে লাখ লাখ হিন্দুদের জড়ো করা যেত?

বাবরী মসজিদ ধ্বংসের বর্বরতাটি বিচ্ছিন্ন কোন ঘটনা নয়। এ বর্বরতার মধ্যে দিয়ে প্রকাশ পেল ভারতীয় হিন্দুদের মুসলিম বিরোধী অসভ্য ও সহিংস মনের আসল রূপটি। ভারতে এরূপ ঘটনা যেমন এই প্রথম নয়, শেষও নয়। যারা হাজার হাজার মুসলিম নর-নারী ও শিশুদের উৎসবভরে হত্যা করতে পারে, মুসলিম শিশুদের আগুনে ফেলতে পারে, মুসলিম নারীদের উপর গণধর্ষণ করতে পারে এবং গরুর গোশতো খাওয়ার সন্দেহে মুসলিমদের পিটিয়ে হত্যা করতে পারে -তাদের কাছে ইট-পাথরের প্রাণহীন মসজিদ গুড়িয়ে দেয়াটি মামূলী ব্যাপার মাত্র। ভারতীয় মুসলিমদের মাথার উপর কীরূপ ভয়াবহ বিপদ -সেটি বুঝতে কি এরপরও কিছু বাঁকি থাকে?  তাছাড়া বিষয়টি শুধু বিজিপি, আর. এস. এস, বিশ্ব হিন্দুপরিষদ, শিব সেনা বা বজরং দলেরও নয়। সে ভয়ানক মুসলিম বিদ্বেষ ঢুকেছে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভারতীয় হি্ন্দুদের চেতনায়। ফলে নির্বাচনে বিজয়ী হচ্ছে মসজিদ ভাঙ্গায় অংশ নেয়া দলগুলি। 

 

ভারত জুড়ে অক্ষত হিন্দু মন্দির ও অহিংস মুসলিম নীতি

ভারতে ইতিহাসের পাঠটি কখনোই নিরেপক্ষ ভাবে দেয়া হয় না। ব্রিটিশ আমল থেকেই ইতিহাস পাঠ হয়েছে মুসলিমদের ভিলেন রূপে দেখানোর জন্য। নিরপেক্ষ বিচার হলে প্রকাশ পেতো  ভারতে মুসলিম শাসন অন্যান্য দেশ ও সভ্যতার তুলনায় কতটা অহিংস ও উন্নত ছিল। মুসলিম বাদশাহগণ নিজেদের মাঝে যতই ঝগড়া-বিবাদ বা লড়াই করুক না কেন ভারতীয় হিন্দুদের নির্মূলে তারা কখনোই হাত দেয়নি। পৃথিবীর অন্যান্য দেশের ইতিহাসের দিকে নজর দিলে ভারতে মুসলিম শাসনের এ শ্রেষ্ঠ দিকটা অবশ্যই নজরে পড়ার মতো। অথচ জাতি, বর্ণ ও ধর্মভিত্তিক গণনির্মূল মানব ইতিহাসে নতুন কিছু নয়। কোটি কোটি মানুষ সে নির্মূল প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে ইতিহাস থেকে হারিয়ে গেছে। স্পেন এবং পর্তুগালে গেলে মনেই হবে না যে, সেখানে মুসলিমগণ ৭ শত বছর শাসন করেছিল এবং ইউরোপীয়দের সভ্যতর করতে মুসলিমদের প্রতিষ্ঠিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। এবং ভারতের দিকে তাকালেও মনে হবে না যে এখানে বৌদ্ধদের রাজত্ব ছিল। খৃষ্টান শাসকগণ যেমন ইউরোপ,আমেরিক ও অস্ট্রেলিয়া থেকে অখৃষ্টান আদিবাসীদের নির্মূল করেছে, হিন্দুগণও তেমনি ভারত থেকে বৌদ্ধদের নির্মূল করেছে। কিন্তু মুসলিম শাসন আমলে এরূপ কোন বর্বরতা ঘটেনি। মুসলিম শাসনামলে ভারতে হিন্দু নির্মূলে গণহত্যা হয়েছে –ইতিহাসে সে প্রমাণ নাই। তাদের হাতে নির্মূল হয়েছে এমন কোন হিন্দু প্রতিষ্ঠানের কোন দৃষ্টান্ত নাই। ফলে ভারতের শতকরা ৮০ জনগণই হিন্দু থেকে গেছে; অক্ষত থেকে গেছে তাদের মন্দিরগুলিও। এবং সাত বছর শাসন করেও মুসলিমগণ রয়ে গেছে সংখ্যালঘু। অথচ রোমান সম্রাট কন্সটান্টাইন চতুর্থ শতাব্দীর গোড়ায় খৃষ্টান ধর্ম গ্রহন করে তার সাম্রাজ্যের সবাইকে জোর করে খৃষ্টান বানায়। রাশিয়ার জারও সেটিই করেছে।

তাছাড়া কোন ধর্মের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলি ভাঙ্গা কি কোন সভ্য কর্ম? অমুসলিমদের উপাসনালয় ভাঙ্গা দূরে থাক, তাদের উপাস্যদের গালি দেয়াও ইসলামে নিষিদ্ধ। নবীজী (সাঃ)র হাদীস, অমুসলিমের দেবদেবীকে গালি দিলে তারাও মুসলিমদের মহান আল্লাহকে গালি দিবে। ইসলামে মসজিদ গড়া একটি পবিত্র কর্ম। এবং এ কাজটির মধ্যে থাকে মহান আল্লাহতায়ালাকে খুশি করার পবিত্র প্রেরণা। এমন পবিত্র প্রেরণা নিয়ে কোন মুসলিম কি অন্য ধর্মের উপাসনালয় ধ্বংসের ন্যায় অপরাধে জড়িত হতে পারে? মুসলিমগণ শুধু ভারতই জয় করেনি, এশিয়া, আফ্রিকা ও ইউরোপের বহু দেশ জয় করেছে। সে সব দেশে অমুসলিমদের বিশাল বিশাল উপাসনালয় ছিল। তারা যে সেগুলিকে ধ্বংস করেনি বা সেগুলির স্থলে মসজিদ গড়েনি তারই প্রমান হলো, ইস্তাম্বুল, জেরুজালেম, আলেকজান্দ্রিয়ার ন্যায় বহু শহরে বিশাল বিশাল গির্জা এখনো খৃষ্টান ধর্মের স্মৃতি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। ভারতীয় মুসলিম শাসকগণ ভারত জুড়ে বহু শহরের পত্তন ঘটিয়েছে। সে সময় জনসংখ্যা কম হওয়াতে শহরের ভিতরে ও বাইরে বহু খালি জায়গাও ছিল। ফলে মোগলদের কি প্রয়োজন পড়লো যে, বিস্তর খালি জমি পড়ে থাকতে তারা মন্দির ভেঙ্গে মসজিদ গড়বে? তাতে কি ছওয়াব পাওয়া যায়?

ভারতে মুসলিম শাসনের ইতিহাস প্রায় ৭ শত বছরের। দীর্ঘকালীন এ মুসলিম শাসনের পরও ভারতে যত মসজিদ তার চেয়ে বহুগুণ হলো মন্দিরের সংখ্যা। মন্দির ভাঙ্গা লক্ষ্য হলে বহু আধা ভাঙ্গা, আংশিক ভাঙ্গা ও ক্ষতবিক্ষত মন্দিরও দেখা যেত। প্রশ্ন হলো, সারা ভারত জুড়ে যে অসংখ্য বিশাল মাপের পুরোন মন্দির এখনো বিদ্যমান -তার কোন একটিও কি আধা বা আংশিক ভাঙ্গা? কোন একটি মন্দিরের গায়েও দেখা যায় কি মুসলিমদের পক্ষ থেকে নিক্ষিপ্ত গোলা বা কামানের দাগ?

মুসলিমগণ ভারত শাসন করেছে হিন্দুদের সহযোগিতা নিয়ে। মানসিংয়ের ন্যায় মুসলিম শাসকদের দরবারে বহু হিন্দু যেমন জেনারেল হয়েছে, তেমনি মন্ত্রী এবং উচ্চ পর্যায়ের প্রশাসনিক অফিসারও হয়েছে। মুসলিম রাজপুত্রদের সাথে তারা নিজেদের কন্যাদেরও বিয়ে দিয়েছে। তাদের সে সহযোগিতার কারণেই মুসলিম শাসন দীর্ঘকাল স্থায়ী হতে পেরেছে। আরো লক্ষ্যণীয় হলো, ভারতের সম্পদ পূর্ব-পুরুষদের দেশে নিয়ে সেখানে তারা তাজমহল বা প্রাসাদ গড়েনি। যা কিছু করার তারা ভারতেই করেছে। ইংরেজদের ন্যায় ভারতকে তারা ঔপনিবেশিক কলোনী মনে করেনি, বরং নিজের দেশ মনে করেছে। এদেশের প্রতিরক্ষায় তারা প্রাণ দিয়েছে। প্রশ্ন হলো, মন্দির ভেঙ্গে মসজিদ নির্মাণ করলে কি দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দু জনগণ কি মুসলিম শাসকদের সাথে সহযোগিতা করতো? অপর দিকে ভারতীয় হিন্দুদের নিজেদের কান্ডটিও চোখে পড়ার মত। হিন্দু রাজা শংকরাচর্যের আমলে ভারতীয় হিন্দুগণ বৌদ্ধ শাসনকেই শুধু নির্মূল করেনি, নির্মূল করেছে যেমন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের, তেমনি বিশাল বিশাল বৌদ্ধ মঠগুলিকে। প্রাণে বাঁচতে তাদেরকে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্ব এলাকায়, নেপাল, শ্রীলংকা ও বার্মায় পলায়ন করে।  

 

প্রকল্প মুসলিম-নির্মূল

ভারতীয় হিন্দুগণ অতীতে যেমন বৌদ্ধদের নির্মূল করেছে, এখন নির্মূল করতে চায় মুসলিমদের। ফলে তাদের লক্ষ্য শুধু মসজিদ নির্মূল নয়, মুসলিম নারী, পুরুষ এবং শিশু নির্মূলও। আর লক্ষ্য যখন নির্মূল-করণ, তখন তাদের কাছে মসজিদ বা মুসলিমদের বৈধ বা অবৈধ হওয়াটি কোন ব্যাপারই নয়। তাই বাবরি মসজিদ নিয়ে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের রায় শোনার মত ধৈর্য্য হিন্দুদের ছিল না। নরেন্দ্র মোদী যখন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী তখন ৩ হাজারের বেশী মুসলিম নর-নারী ও শিশুদের হত্যা করা হয়। জ্বালিয়ে দেয়া হয় মুসলিমদের শত শত ঘরবাড়ি ও ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান। প্রশ্ন হলো, তারা কি গুজরাতে অবৈধ ছিল?

মুসলিম নির্মূলের লক্ষ্যে বিজিপি ও আর.এস.এস ঘরানার লোকেরা চারটি বিশেষ প্রকল্প হাতে নিয়ে অগ্রসর হচ্ছে্। একাজে তাদের অনুকরণীয় আদর্শ হলো ফ্যাসিস্ট হিটলার। হিটলারের ইহুদী নির্মূলের সফলতাটি আর.এস.এস নেতা সাভারকারের খুব ভাল লেগেছিল। সাভারকার ইহুদী বিদ্বেষ নাই। তার তীব্র বিদ্বেষটি স্রেফ মুসলিমদের বিরুদ্ধে। মুসলিম নির্মূলের লক্ষ্যে যে প্রকল্পগুলি ভারতে চলছে তা হলোঃ এক). দাঙ্গা বাধিয়ে মুসলিম নির্মূল, দুই). ন্যাশনাল রেকর্ড অব সিটিজেন (এন, আর.সি) প্রকল্পের নামে মুসলিমদের ভারতীয় নাগরিকের তালিকা থেকে বাদ দিয়ে তাদেরকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয়া। ইতিমধ্যে আসামে ১৯ লাখ লোককে নাগরিকত্বহীন করা হয়েছে। একই প্রকল্প বাস্তবায়ীত করতে চায় সারা ভারত জুড়ে। পশ্চিম বাংলা বিজিপি’র সভাপতি দিলিপ ঘোষের দাবী, পশ্চিম বাংলার ২ কোটি মানুষ ভারতীয় নাগরিকের তালিকা থেকে বাদ পড়বে। এর অর্থ হলো, তাদের পাঠানো হবে বাংলাদেশে। তিন). মুসলিমদের হিন্দু ধর্মে ধর্মান্তরিত করা। এটিকে তারা বলছে “ঘর ওয়াপসি” -যার অর্থ হলো হিন্দুধর্ম থেকে মুসলিম হওয়া মুসলিমদের আবার হিন্দু ধর্মে ফিরিয়ে নেওয়া। চার). কালচারাল কনভার্শন। এ প্রকল্পের অর্থ হলো হিন্দু ছেলে বা হিন্দু মেয়েদের সাথে বিবাহের মধ্য দিয়ে করে হিন্দু সংস্কৃতির সাথে মিশে যাওয়া।      

 

বাংলাদেশীদের দায়ভার

২০ কোটি ভারতীয় মুসলিমদের সামনে আজ তাই মহা দুর্দিন। তবে এ দুর্দিনের মোকাবেলা তাদের নিজেদেরই সচেষ্ট হতে হবে। আর সে জন্য অপরিহার্য হৃদয়ে পবিত্র কোর’আনের শিক্ষা নিয়ে নির্ভেজাল মুসলিম পরিচয় নিয়ে বেড়ে উঠা। মনে রাখতে হবে সেক্যুলারিজমে দীক্ষা নিয়ে মুসলিমদের রক্ষা নাই। একমাত্র মুসলিম হলেই আল্লাহর সাহায্য তখন অনিবার্য হয়। আর আল্লাহর সাহায্য পেলে তখন কি আর অন্যের সাহায্যের প্রয়োজন পড়ে? সংকট যতটি তীব্র হোক, মধ্যপ্রাচ্যের ধনকুবের রাজা-বাদশাহদের কাছ থেকে পাওয়ার কিছু নেই। তারা এ বর্বরতার নিন্দাও করবে না। বরং যে নরেন্দ্র মোদির হাতে হাজার হাজার মুসলিমের রক্ত তাকে সৌদি আরব দিয়েছে সে দেশটির সর্বোচ্চ খেতাব। এবং ভারতের অর্থনীতি মজবুত করতে বিনিয়োগ করেছে ২২ বিলিয়ন ডলার। আরব আমিরাতও লাগাতর সমর্থন করছে নরেন্দ্র মোদির কাশ্মিরে গণহত্যার নীতিকে। শুধু প্রতিবেশী রূপে নয়, মুসলিম রূপে বাংলাদেশীদের দায়ভারটি বিশাল। কারণ, ২০ কোটি ভারতীয় মুসলিমদের সংকটটি শুধু ভারতীয় মুসলিমদের নয়, বরং সেটি সমগ্র উপমহাদেশের মুসলিমদের সংকট। তাছাড়া ঠোট উড়ে গেলে দাঁতেও বাতাস লাগে। তাই ভারতের ২০ কোটি মুসলিম নির্মূল হলে বাংলাদেশের মুসলিমগণও নিরাপদে থাকবে না।

তাছাড়া এক মুসলিম তো আরেক মুসলিমের ভাই। তাই ঈমানদারি শুধু নামায-রোয, হজ্ব-যাকাত পালন নয়,  হৃদয়ে অন্য মুসলিমকে নিজের ভাই জ্ঞান করে তার কল্যাণে কিছু করাও। এ প্রসঙ্গে মাওলানা আবুল কালাম আযাদের একটি বিশেষ উক্তি অতি স্মরণযোগ্য। সেটি ছিল উসমানিয়ায় খেলাফতের বলকান যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে। তিন তাঁর নিজের সম্পাদিত “আল হেলাল” পত্রিকাতে লিখেছিলেন, “বলকানের রণাঙ্গনে যুদ্ধরত কোন তুর্কি মুসলিম সৈনিকের পা যদি গুলিবিদ্ধ হয়, আর তুমি যদি সে গুলির ব্যথা হৃদয়ে অনুভব না করো, তবে খোদার কসম তুমি মুসলিম নও।” এটিই তো খালেছ বিশ্বজনীন মুসলিম ভাতৃত্বের কথা। তাই প্রশ্ন হলো, মুসলিম ও মসজিদের নির্মূলে ভারতে যে নৃশংসতা চলছে তার ব্যথা যদি কোন বাঙালী মুসলিম হৃদয়ে অনুভব না করে তবে কি সে মুসলিম? মৃত মানুষ যেমন ব্যথা অনুভব করে না, মৃত ঈমানের মানুষও তেমনি অপর মুসলিম ভাইয়ের ব্যথা অনুভব করেনা। তবে এখানে বিষয়টি শুধু ব্যথা পাওয়া নিয়ে নয়, বরং অতিশয় গুরুত্বপূর্ণ হলো সে বেদনা লাঘবে কিছু কাজ করা। বুঝতে হবে, ভারতীয় মুসলিমগণ শক্তিশালী হলে বাংলাদেশের মুসলিমগণও শক্তিশালী হবে।

তাছাড়া ভারতের তূলনায় বাংলাদেশ ছোট দেশ হলেও সন্ত্রাসী ভারতকে শিক্ষা দেয়ার বিস্তর সুযোগ রয়েছে বাংলাদেশীদের হাতে। বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে ভারতের করিডোর। বাংলাদেশ হলো ভারতের অতি গুরুত্বপূর্ণ বাজার। বহু লক্ষ ভারতীয় কাজ করে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে। ভারতের পণ্য বিদেশে যায় বাংলাদেশের বন্দর দিয়ে। ফলে বাংলাদেশীরা জেগে উঠলে ধ্বস নামবে ভারতের অর্থনীতিতে। কিন্তু সমস্যা হলো বাংলাদেশীরা নিজেরাই ফ্যাসিবাদী স্বৈরাচারের কারাগারে বন্দি। আর বন্দি মানুষ তো চোখের সামনে কাউকে ডুবে বা জ্বলে মরতে দেখলেও তাকে সাহায্যে করতে পারে না।

অথচ ১৭ কোটি স্বাধীন মানুষের সামর্থ্য তো বিশাল। কিন্তু সে সামর্থ্য তো কেড়ে নিয়েছে হাসিনার কারাগার। এবং এটি ভারতীয় স্ট্রাটেজীও। ভারত তার নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতেই হাসিনাকে দিয়ে সমগ্র বাংলাদেশকে একটি কারাগারে পরিণত করেছে –যাতে বাংলাদেশের মানুষ তাদের প্রতিবেশী ভাইদের বাঁচাতে কিছু করতে না পারে। তাই ভারতের মুসলিম ভাইদের জন্য ঈমানী দায়িত্ব পালন করতে হলে বাঙালী মুসলিমদের প্রথমে নিজ দেশের ফ্যাসিস্ট সরকারের কারগার থেকে মুক্তি পেতে হবে। ২৩/১১/২০১৯ (নিবন্ধটি লেখা হয় লন্ডনে আলেমদের এক সমাবেশে পেশের জন্য।)     

  

 

 




Islam’s Recipe for the Glory & the Betrayal

 The past glory

Islam’s main focus is to guide humans towards attaining the successes both here and in the hereafter. For that, Islam considers man’s conceptual, moral, spiritual and behavioral purification as the most important issue in life. Men and women engage in doing good deeds and detest doing bad deeds only after such a purification. No amount of material gains and scientific progress will bring such purification unless one pursues the correct path conceptually, morally, and spiritually. These are also the indispensable pre-requisites to build any sound civilization. Only a relentless pursuit in making purification of the self helps people qualifying for Allah SWT’s visible and invisible mercy –crucial for any success in one’s life. So it is revealed: “Indeed he succeeds who purifies his ownself” –(Sura As-Shams, verse 9). But such purification doesn’t come through foods, drinks, and money, but through knowledge. And the Holy Qur’an is the only source of such knowledge.

The key to bring revolution in deeds, character, and behavior in people lies in the hand of the individuals. The Holy Qur’an reveals, “Certainly Allah does not change the affairs of a people unless they change themselves.”–(Sura Ar-R’ad, verse 11). Hence, engaging in changing the state of affairs is the most important task that decides the fate of humans. And, education works as a real change-maker. Humans could add invaluable worth to their own understanding, morality, and character only through it. In fact, the highest value-adding process doesn’t work in industries but through education. Hence, from day one of the revelation of the Holy Qur’an, reading (iqra) which implies accessing the Holy Qur’an –the best source of the highest knowledge on earth becomes the first obligation in Islam. Other obligations like five-time prayer, month-long fasting, giving charity and hajj came a decade later. Hence, whoever ignores it, ignores Allah Subhana wa Ta’ala (SWT)’s prescription and methodology. In fact, the Qur’anic education worked as the most powerful tool to add the highest possible values to the early Muslims. In those early days, the Muslims didn’t have any school, college or university, but they had verses of the Holy Qur’an in their hearts. So every Muslim became a full-time moving student and a moving teacher of Islam. As a result, every mosque and every Muslim house turned into an effective learning institution. Because of such sacred educational inputs, the early Muslims grew up with the purified mind and could attain the status of the best people in the whole human history. In any part of the history, did any ruler of the largest country of the contemporary world make any journey of more than five hundred miles only with a single servant and a camel? Even a petty political leader or minister doesn’t walk alone. Did any head of the state ever alternate the ride on the camel with his servant? Did any ruler ever pull the rope of the camel while his servant is seated on it? Caliph Omar (R) did it while he made his journey from Medina to Jerusalem to take the city without any war. Prophet Muhammad (peace be upon him) and his companions not only talked about equality, justice and morality but also practiced those principles. Therefore, although the early Muslims didn’t build any pyramid, great wall or other wonders, but could raise an army of the best humans in the whole history. Because of them, Islam could raise the finest civilization on earth.

In those golden days of Islam, the Muslims added incredible value to humans. In no other segment of human history, men and women received such a huge uplift in their worth –as was the case of the early Muslims. What those Muslims could practice 14 hundred years ago, the non-Muslims couldn’t think even a hundred years ago. It is significant to note that the equality of man and women, the inheritance of assets by the daughters, the freedom of the slaves and the rule of law are not be included in the menu of social reformations in other faiths. Therefore, occupation of the foreign lands, the enslavement of the weak and ethnic cleansing of the occupied lands was not the savagery only of the ancient Greeks and the Romans, but also of the modern European Christian imperialists. Burning down the Persian capital Persepolis by Alexander –the great icon of western values still works as a legacy closely followed by the modern protagonists of Western civilization. So, the US Army could raze to the ground the historic cities of Mosul, Raqqa, Deira’zour, and many others without an iota of remorse. Hence, the ethnic cleansing of the Muslims from Spain, the Red Indians from America, the Aborigines from Australia, the Maoris from New Zealand and putting Jews in the gas chamber could be practiced in the West with huge jubilation. Even such colonial barbarity is celebrated as a mark of glorious victory. The Muslims also conquered many lands, but never indulged in ethnic or religious cleansing in those occupied lands. This is why, even after more than 6 hundred years of the Muslim rule in India, Spain, and the Balkan states, the Muslims preferred to stay minority rather than launching any religious or ethnic cleansing. But this has not been the case with the Christian rule in Europe, Americas, Philippines, and many African countries; the original people of these occupied lands were coerced to Christianity within decades. Because of Muslims’ tolerance towards other faiths, a significant number of non-Muslims could live peacefully even in Islam’s heartlands like Iraq, Syria, and Egypt. Islam brought not only a faith-change, rather moral, cultural and civilizational change. Such change still remains unsurpassed in the whole history.

The physical strength owes to healthy foods and drinks. But the moral strength owes to healthy knowledge and correct understanding. In the annals of human history, the Holy Qur’an indeed proved to be the best source of moral and spiritual nutrition. The relentless current decline of the Muslims also proved its importance; since the Muslims stand deeply detached from the Holy Qur’an, no amount of petrodollars and numerical numbers could arrest their ongoing downfall. In fact, without understanding the Holy Qur’an, moral and spiritual growth of humans is unthinkable. The Holy Qur’an showed its miracles in the life of the early Muslim. It was the first book in the Arabic language, but within a short span of time they could develop a huge wealth of knowledge in diverse fields. In fact, whatever glorious achievements the Muslims achieved in the fields of Tafseer, hadees, fiqh, Islamic jurisprudence, philosophy and moral science, are the works of these early Muslims. They studied and translated a huge number of books written by non-Muslims. Even the works of the Greek scholars reached to the west through their translation.

 

The mother of all revolutions

Islam teaches how to prioritize issues in life. The last prophet of Islam (peace be upon him) didn’t make any political issues out of the socio-economic backwardness of the Arabs. Nor did he prioritize to revolutionize the Arab economy. Rather he brought a 180-degree shift in the conceptual model: a shift in people’s thinking. The prophet (peace be upon him) made his followers fully focussed on akhera (the hereafter). When such a shift was accomplished, the revolution took a gigantic start. Such a shift in focus indeed worked as the mother of an overwhelming revolution in people’s thoughts, behavior, attitude, values, culture, spirituality, and politics. The same people, who were the arch-enemy of Islam and kill their own daughters, became the protectors of people and the devoted Khalifa (viceroy) of Allah SWT. As a result, promoting the sovereignty of Allah SWT and practicing His sharia became the way of their life. In fact, believing in the hereafter worked as a key to bring such a paradigm shift in the early Muslims’ minds. To succeed in the hereafter worked as a powerful inspiration to do the good deeds; they spent their wealth and sacrificed even their life to enjoin the good and annihilate the wrong. They considered the life on earth as if sitting in an exam hall and the good score a key to get more rewards in akhera. Therefore, in order to get a good score, a true Muslim spends every moment of his life doing good deeds. Such an akhera–cantered belief opened the flood gates of good deeds in the Muslim World. In fact, such an understanding added a tremendous speed to the civilization making efforts of the early Muslims.

Allah SWT has His own vision vis-à-vis the world and mankind. Such a vision has been repeated several times in the Holy Quran to frame it in Muslims’ minds. The Holy Qur’an reveals, “He it is Who has sent forth His Apostle with the task of spreading guidance and the religion of truth to that end that He makes it prevail over all other religions..” -(Sura As-Saf, ayah: 9, Surah Fatah, ayat:28; Sura Taubah, ayah: 33). As an indispensable part of faith, the prime duty of a Muslim is to align himself with the vision of Allah SWT. Hence, a Muslim’s aim of survival and his educational need is altogether different from that of a non-Muslim. A factory man cannot do the job of an army man; he needs special training and education for that. In the Holy Qur’an, the Muslims are proclaimed as the army of Allah. So they need special education and skills to do the job properly. So, the role of education in Muslim’s life is crucial. But the secularisation of education has made it almost impossible to generate such skills in the Muslims.

Allah SWT wants the victory of His religion only in the interest of mankind. Such a victory is indeed the most effective way as well as the only way to save people from the hellfire. Only this way the right path towards havens can be shown to the people. Only then, a civilization can take a heavenly turn. To play such a crucial life-saving civilizational role, Islam can’t work in solitude. Its works must not be restricted within the confines of mosques, madrasas, and houses, rather they must go all-encompassing to the highest point. To fulfill such a Divine vision, the whole statecraft, the politics, the culture, the educational institutions, the judiciaries, the army, the police, and other executive agencies must be integrated with the Divine mission -the mission of enjoining the good and eradicating the wrong. During the rule of the prophet of Islam (peace be upon him) and the early rightly guided caliphs, all such state and non-state institutions and faculties rendered their full and deliberate support to promote such Divine vision and mission. Otherwise, the job would have remained un-accomplished. Such a practice indeed stands as the most important legacy of the Prophet Muhammad (peace be upon him) that can shape the world as per Divine roadmap at any point in time.

As per prophetic legacy, incorporating every individual and every state-institution in the service of Allah SWT’s vision is not only a political need but also an Islamic obligation. Any detachment or non-compliance not only forfeits one’s Muslimness but also showcases his rebellion. A Muslim -like any other Muslim of any other age and place enjoys no other option but to align with Allah SWT’s vision and fulfill the Islamic obligation.  But the secularist forces in the Muslim World stand against the practice of the prophet (peace be upon him)’s legacy. They keep the statecraft and the powerful state institutions captive in their own hands to undo any attempt of Islam’s revival. If they foresee any imminent defeat, they even take the help of the non-Muslim mentors. The secularists in the Muslim World thus work as the enemy inside. They oppose the role of Islam in shaping their fate as well as the fate of mankind. The secularists thus block the Islamisation of state and individuals and put serious obstacles to carry out Allah’s prescribed mission. Awfully, all the Muslim countries currently stand occupied by these internal enemies.

 

The mother of all failures

The most awful failure of Muslims today doesn’t owe to the failure in industry or agriculture, but in education. Educational failure is indeed the mother of all other failures.  Such failure has caused them to forget even the main purpose of their creation. Hence they failed to carry out even the most fundamental duty as Muslims. Because of that, many people have even retreated back to the old jahiliyyah –the era of ignorance. Due to such a retreat, Allah SWT’s sharia law –as revealed in the Holy Qur’an has been replaced by the kufr law in almost all the Muslim countries. To put in practice such manifest falsehood, the enemies of Islam didn’t need to launch any war. The new converts to the old jahiliyyah did the job eloquently. Like any physical disease, jahiliyyah –the most lethal illness in the conceptual premise has indeed shown its awful impact. Not only does it damage people’s moral fabric, but it also kills the iman (the belief).  As a result, instead of pan-Islamic brotherhood, the culture of tribal feuds, wars, disunity, disintegration, and rebellion against Allah SWT’s sharia laws thrived in almost all Muslim countries. Islam survives only as lifeless rituals.

For moral and spiritual growth, learning the truth and de-learning falsehood should go hand in hand and must happen all the time. A Muslim needs constant renewal of his relation with Allah, otherwise death of his belief and spirituality is inevitable. Five times prayers, month-long fasting, zakat, haj, regular study of the Holy Qur’an and giving charity are the parts of the Islamic curriculum to prepare a believer for the assigned job. But the devils have their own institutions and methodology to take them away from Islam. The immoral practices like prostitution, gambling, drinking wine, pornography, vulgarity and obscenity are not the only vehicles to take people out of the Islamic roadmap. In fact, the educational institutions work as the main and the most powerful tools to do such harm. Hence with the increasing number of secular educational institutions, the process of de-Islamization has got a very high momentum all over the Muslim World. So, in most of the Muslim countries, each day the tide of jahiliyah is getting stronger and the Muslims are getting more away from the Divine path. The impact of such de-Islamization is so explicit that the most Muslims have already de-learned the Divine narrative that they are the people who have been appointed by Allah SWT as His viceroy (khalifa). What could be worst betrayal than dishonouring such a Divine assignment? It indeed amounts to dishonouring Allah SWT’s vision. It is also an ugly betrayal against Muslim’s own mission.

The word “Muslim” carries a very meaningful historical connotation. It doesn’t mean merely to be a believer, rather a very committed actor to fulfil the Wish of Allah (SWT). His or her role is not to invent any new roads, but to follow the Qur’anic roadmap (siratum mustaqeem) -already shown by the prophet of Islam 1400 hundred years ago. Failing to do so leads only towards the most disgraceful failure -both here and in the hereafter. Such failure takes straight only to the hellfire. The most important task of education is indeed to generate a deep awareness of this Divine responsibility and showcase the failure of the evil people and the success of the believers. But, in almost all Muslim countries, education has failed to accomplish such a seminal duty. The current education system –even the religious one in madrasas, has failed to nurture such a sense of Divine responsibility. Awfully, the worst crime is being committed every day in the Muslim World in the name of education. As a result, Islam–as practised today by the most Muslims, looks spectacularly dissimilar to the Islam of the early Muslims. Therefore, the outcomes of these two sets of the Muslims couldn’t be similar, either. Today, the glory of the early Muslims stands terribly replaced by the ongoing decline. 18.11.2019




সাম্প্রতিক ভাবনা-৭

১. যে মহাবিপদ সেক্যুলারিজমে

ব্যক্তির ঈমানদারি, বেঈমানি ও মুনাফিকি গোপন থাকার বিষয় নয়। সেগুলি সুস্পষ্ট ধরা পড়ে ব্যক্তির বাঁচার লক্ষ্য, কর্ম ও বিনিয়োগের মাঝে। মহান আল্লাহতায়ালা প্রত্যেক ব্যক্তিকেই কিছু জ্ঞান, কিছু অর্থ-সম্পদ, চিন্তা-ভাবনার  কিছু সামর্থ্য, কিছু দৈহিক বল এবং বিবেক দিয়েছেন। এসবই মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে অতি গুরুত্বপূর্ণ আমানত। এসব সামর্থ্যের তথা এ পবিত্র আমানতের কোথায় ব্যয় হয় তাতেই প্রকাশ পায় ব্যক্তির ঈমানদারি, বেঈমানি ও মুনাফিকি।

ঈমানদারের পক্ষ থেকে আল্লাহতায়ালা-প্রদত্ত এ সামর্থ্যগুলির বিনিয়োগ ঘটে আখেরাতের ভাবনাকে হৃদয়ে রেখে। সে ভাবনার মূল কথা, আল্লাহর জমিনে তাঁর সার্বভৌমত্ব ও তাঁর আইন তথা শরিয়তকে বিজয়ী করা। এ লক্ষ্যে সকল বিনিয়োগ গণ্য হয় মহান আল্লাহর পথে জিহাদ রূপে। অপরদিক সেক্যুলারিস্টদের অর্থ, বুদ্ধিবৃত্তি ও জীবনের সকল সামর্থ্যের বিনিয়োগটি হয় সেক্যুলারিজমকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে। তাদের রাজনীতিটি হয় চেতনায় পার্থিব জীবনের আনন্দ বাড়ানোর এজেন্ডাকে ধারণ করে। সে রাজনীতিতে গুরুত্ব পায় শরিয়তকে পরাজিত রাখা। সে লক্ষ্যে সেক্যুলারিস্ট যেমন ভোট দেয়, তেমনি রাজনীতি করে ও যুদ্ধ করে। নামায-রোযা পালন এবং তাবলিগের এজতেমাতেও হাজির হলেও তাতে তাদের সামর্থ্যের বিনিয়োগের উপর কোন প্রভাব পড়ে না।

পরিনামে সেক্যুলারিস্টদের সকল বিনিয়োগ যে শুধু ব্যর্থতাই বাড়ায় -সে ঘোষণাটি এসেছে মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে সুরা কাহাফের সুরা ১০৩ ও ১০৪ নম্বর আয়াতে। এ দুটি আয়াতে বলা হয়েছে, “বল (হে মুহম্মদ), তোমাদের কি বলে দিব, কারা কাজ-কর্মের দিক দিয়ে সবচেয়ে ক্ষতির মধ্যে? এরা হলো তারা যারা তাদের সকল প্রচেষ্টা ব্যয় করে দুনিয়ার আয়োজন বাড়াতে এবং মনে করে তাদের কর্মগুলি কতই না উত্তম।”  উপরুক্ত দুটি আয়াতের মাঝে রয়েছে সেক্যুলারিষ্টদের জন্য জাহান্নামের খবর। তাদের আমলগুলি এতই বিনষ্ট ও মূল্যহীন হবে যে, রোজ হাশরের বিচার দিনে সেগুলি ওজনের জন্য দাড়িপাল্লা খাড়া করারও প্রয়োজন হবে না। সে ঘোষনাটি এসেছে এ সুরার ১০৫ নম্বর আয়াতে। এবং ১০৬ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে, তাদের স্থান হবে জাহান্নামে।   

সেক্যুলারিজমের আভিধানিক অর্থ ইহজাগিতকতা। অতএব এতে পারলৌকিক ভাবনার কোন স্থান নেই। পারলৌকিক ভাবনাটি গণ্য সাম্প্রদায়িকতা রূপে। সেক্যুলারিষ্টদের মূল কথা হলো, রাজনীতি, শিক্ষা-সংস্কৃতি, বিচার-আদালতের মাঝে কোনরূপ ইসলামী চেতনা ও পারলৌকিক ভাবনা আনা যাবে না। ফলে সেক্যুলার রাজনীতিতে নির্মিত হয় স্রেফ জাহান্নামের রাস্তা। অপর দিকে ইসলামের শিক্ষা, দুনিয়ায় চলতে হবে প্রতি মুহুর্তে আখেরাতের ভাবনাকে হৃদয়ে নিয়ে। দুনিয়া একটি পরীক্ষা কেন্দ্র মাত্র; আসল ঠিকানাটি আখেরাতে। সেক্যুলারিস্টদের গুরুতর অপরাধ, আখেরাতের জীবনকে সফল করার মহা কল্যাণকর ইসলামী মিশনকে তারা বিফল করে দেয়। সেক্যুলারিস্টদের যুদ্ধটি তাই যেমন ইসলামের বিরুদ্ধে, তেমনি মহান আল্লাহতায়ালার বিরুদ্ধেও। এ অপরাধটি মানব খুনের চেয়েও গুরুতর। খুনি খুন করলেও তারা সমাজের বুকে জান্নাতের পথে চলাটি রুদ্ধ করে না। কিন্তু সে বিপদটি সেক্যুলারিস্টগণ ঘটায়। এবং সেটি হৃদয়ে আখেরাতের ভাবনা নিয়ে রাজনীতি, শিক্ষা-সংস্কৃতি, বিচার-আদালত পরিচালনাকে সংবিধান বিরোধী করে।          

২.
সন্তানকে পশু-পাখিও নিয়মিত পানাহার দেয়। কিন্ত মানবকে বাড়তি যেটি জোগাতে হয় সেটি হলো শিক্ষা। সেটি না হলে মানব সমাজও পশু সমাজে পরিণত হয়। ইসলামে তাই জ্ঞান অর্জনকে নামায-রোযা ফরজ হওয়ার ১১ বছর আগে ফরজ করা হয়েছে। এবং শ্রেষ্ঠ জ্ঞান হলো পবিত্র কোর’আনের জ্ঞান। এ জ্ঞান জীবনের প্রতি পদে পথ দেখা। এ জ্ঞানে অজ্ঞ থাকা তাই কবিরা গুনাহ।

৩.
ঈমানদারের মিশনটি বিশাল। সেটি স্রেফ নামায়-রোযায় শেষ হয়না। তাকের বাঁচতে হয় শরিয়ত প্রতিষ্ঠা ও দুর্বৃত্ত নির্মূলের আমৃত্যু জিহাদ নিয়ে। আগুনে যেমন উত্তাপ দেয়, ঈমানও তেমনি জিহাদ দেয়। যার জীবনে জিহাদ নাই, তার মাঝে ঈমানও নাই।  তাই নবীজী (সাঃ)র এমন কোন সাহাবী ছিলেন না যার জীবনে জিহাদ ছিল না। সাহাবাদের মাঝে ৭০%’য়ের বেশী শহীদ হয়েছেন। বাংলাদেশের ন্যায় ইসলামের এ ইতিহাসকে পড়ানো হয় না।

৪.
গাছের পাশে যেমন আগাছা থাকে, তেমনি মানুষের পাশেও অমানুষ থাকে। আগাছা নির্মূল না করলে ফসল বাঁচে না।  তেমনি অমানুষ নির্মূল করলে শান্তি প্রতিষ্ঠা পায় না। দেশ তখন বাসের অযোগ্য হয়। সুরা ইমরানের ১১০ নম্বর আয়াতে মুসলিমদের সমগ্র মানব জাতির মাঝে সর্বশ্রেষ্ঠ জাতি রূপে ঘোষণা দিয়েছেন। তবে সেটি এজন্য নয় যে তারা বেশী বেশী নামায-রোযা, হজ্ব-যাকাত পালন করে। বরং এজন্য যে তারা ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা দেয় এবং দুর্বৃত্তিকে নির্মূল করে।  দুর্বৃত্ত নির্মূলের সে লড়াইটি হলো জিহাদ।এটিই ইসলামে শ্রেষ্ঠ ইবাদত। জিহাদ না থাকলে দেশে গুম, খুন, ধর্ষণ, চুরি-ডাকাতি, ভোট-ডাকাতি ও বিরোধী দল নির্মূলের রাজনীতির জোয়ার আসে। বাংলাদেশ তারই উদাহরণ।

৫.
নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার বদলের যারা স্বপ্ন দেখে তারা বিবেক-বুদ্ধিহীন। দেশের পুলিশ, আদালত, সেনাবাহিনী, সরকারি প্রশাসন পরিণতি হয়েছে ভোট ডাকাতির হাতিয়ারে। এ অবস্থায় কি নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়?  দেশ এখন ভোট-ডাকাতদের হাতে অধিকৃত। ঘর থেকে ডাকাত তাড়াতেও যুদ্ধ লাগে। দেশ থেকে ডাকাত নির্মূলের খরচটি আরো বেশী।সভ্য তো তাঁরাই যারা সে খরচ বহন করে।

৬.
আল্লাহতায়ালার শরিয়তি বিধান না মানা এবং সে অনুযায়ী রাষ্ট্র চালনা না করা কাফেরদের কাজ। ইসলামের বিজয় এবং শরিয়ত প্রতিষ্ঠার ৩টি উপায়। ১. ভোট, ২. গণ-আন্দোলন ও ৩. জিহাদ। নবীজী তৃতীয় পথটি বেছে নিয়েছিলেন।

৭.
খাদ্যের অভাবে দেহের মৃত্যু হয়। আর কোর’আনী জ্ঞানের অভাবে ঈমানের মৃত্যু হয়।তাই যে দেশে কোর’আন বুঝার আয়োজন নাই সে দেশে বেঈমানের সংখ্যা বেশী।যে ব্যক্তি ঈমান বাড়াতে চায়, সে কোর’আনের জ্ঞান বাড়াতে মনযোগী  হয়। অর্থ-সম্পদ দুর্বৃত্তরাও পায়, কিন্তু তারা ঈমান ও জ্ঞান পায় না। ঈমান ও জ্ঞান ছাড়া কি জান্নাত পাওয় যায়?

৮.

বেঈমান মানুষের পরিচয়: আল্লাহতায়ালা কোর’আনে কি বললেন সেটি জানায় অনাগ্রহ। ঈমানদারের পরিচয়: কোরআন কি বলে সেটি জানার জন্য পেরেশানী। এ পেরেশানীটিই ঈমানের পরিমাপ দেয়।

৯.
এক মুসলিম অন্য মুসলিমের ভাই -এটিই আল্লাহতায়ালার দেয়া পরিচয়। এ পরিচয় নিয়ে না বাঁচাতেই মুসলিম উম্মাহর মাঝে বিভক্তি। নানা ভাষা ও নানা বর্ণের কাফেরগণ এক দেশে বাস করে এবং বিশ্বশক্তি হয় –যেমন যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত। সে গুণ মুসলিমদের নাই। অথচ সে পরিচয়টি প্রতিষ্ঠা পেয়েছিল প্রাথমিক যুগের মুসলিমদের জীবনে। ফলে তারা বিশ্বশক্তিতে পরিণত হতে পেরেছিল।

১০
ত্রাস সৃষ্টির নীতিই সন্ত্রাস। মহল্লায় সন্ত্রাস করে ডাকাতেরা। দেশ জুড়ে সন্ত্রাস করে ভোট-ডাকাত সরকার। ডাকাতদের ক্ষমতায় বসিয়ে কি তাই সন্তাস বিলুপ্ত হয়? সন্ত্রাস হলো বাংলাদেশে সরকারি নীতি। এ ভোট-ডাকাত সরকার বলে, দেশ থেকে তারা দুর্নীতি নির্মূল করবে। সেটি চাইলে সে কাজের শুরু হওয়া উচিত তাদের নির্মূলের মধ্য দিয়ে।  

১১.
কোর’আন না মেনে চলাতেই মুসলিমদের পতন। পথ না চিনলে গন্তব্যস্থলে পৌঁছা যায় না। কোর’আন হলো জান্নাতের রোড ম্যাপ। অতএব কোর’আনের পথে না চললে কীরূপে জান্নাতে পৌঁছা সম্ভব? কোরআন শিক্ষা এজন্যই মুসলিম জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই সেটি নামায-রোযার আগে ফরজ হয়েছে।

১২.
দেশ শয়তানী শক্তির দখলে। আদালতে আল্লাহর আইনের কোন স্থান নেই। বিচার হচ্ছে কুফরি আইনে। এসবের নির্মূলে জিহাদ নাই। অথচ মোল্লা-মৌলভীগণ ব্যস্ত নিজ নিজ ফিরকার মুরিদ বাড়াতে। তারা এমন এক ইসলাম নিয়ে ব্যস্ত যেখানে নবীজী (সাঃ)র ইসলাম নাই। নবীজী (সাঃ)র ইসলামে ইসলামি রাষ্ট্র ছিল, খেলাফত ছিল, শরিয়ত ছিল, জিহাদ ছিল, এবং মুসলিম উম্মাহর একতা ছিল। কিন্তু তাদের ইসলামের এসবের কোন কিছুই নাই।  

১৩.
সমগ্র বাংলাদেশ এখন মুজিব-আদর্শের পাঠশালা। এ পাঠশালায় যতই বাড়ছে মুজিব-আদর্শের পাঠ, ততই বাড়ছে দেশ জুড়ে হত্যা, গুম ও চুরি-ডাকাতির রাজনীতি।মুজিব আট আনা সেরের চাউল ১০ টাকায় খাইয়েছে। আর হাসিনা পেঁয়াজ ২৫০ টাকা সের খাওয়াচ্ছে।

১৪.
গরু-ছাগল নিজের পানাহার ছাড়া দেশ নিয়ে ভাবে না। সে অভিন্ন চরিত্র পশু চরিত্রের মানুষেরও। অথচ মানব মহামানব হয় এবং পরকালে জান্নাত পায় দেশকে সভ্যতর করার কাজে নিজের জান-মালের বিনিয়োগের মাধ্যমে। ইসলামে এটিই পবিত্র জিহাদ।




বাঙালী মুসলিম চেতনায় মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ

পাকিস্তানের উপনিবেশ তত্ত্ব

বাঙালী সেক্যুলারিস্টদের দাবী, ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ সাল অবধি পূর্ব পাকিস্তানে ছিল ঔপনিবেশিক পাকিস্তানের একটি কলোনি বা উপনিবেশ মাত্র। এক্ষেত্রেও মিথ্যাচার কি কম হয়েছে? কিন্তু কিভাবে পাকিস্তানের উপনিবেশ রূপে বাংলাদেশের সে পরাধীনতাটি শুরু হলো সে বিবরণ তারা দেয় না। কীভাবেই বা পাকিস্তান একটি ঔপনিবেশিক দেশে পরিণত হলো সে বর্ণনাও তারা দেয় না। উপনিবেশ স্থাপনেও তো যুদ্ধ করতে হয়। ১৭৫৭ সালে বাংলাকে পরাস্ত করতে বহু হাজার ইংরেজ সৈন্য সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে পলাশীর রণাঙ্গণে এসেছিল।কিন্তু ১৯৪৭ সালে পূর্ববাংলা জয়ে এসেছিল কি কোন পাকিস্তানী সৈন্য? এসে থাকলে কোথায় হয়েছিল সে যুদ্ধটি? তেমনি ঔপনিবেশিক পরাধীনতার জন্যও তো পলাশীর পরাজয় লাগে। সে সাথে মীর জাফর লাগে। তখন কে ছিল সিরাজউদ্দৌলা, আর কে ছিল মীরজাফর? কীরূপে প্রতিষ্ঠা পেল সে ঔপনিবেশিক শাসন? ইতিহাসের এসবের কোন উত্তর নাই। তবে কী পূর্ব পাকিস্তানী বাঙালীগণ স্বেচ্ছায় পশ্চিম পাকিস্তানীদের পদতলে নিজেদেরকে পরাধীন দাস রূপে সঁপে দিয়েছিল?  

কথা হলো, কলোনি বা উপনিবেশ বলতে কি বুঝায়-সেটি বুঝতে বাঙালীদের কি কোন বক্তৃতার প্রয়োজন আছে? ১৯০ বছর যাবত বাংলাদেশ ছিল ব্রিটিশের উপনিবেশ। এ দীর্ঘ ১৯০ বছরে এ ব্রিটিশ উপনিবেশ থেকে কোন বাঙালী কি এক দিনের জন্যও গ্রেট ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী দূরে থাক কোন ক্ষুদ্র মন্ত্রীও হতে পেরেছে? কায়েদে আযম মুহম্মদ আলী জিন্নাহকে বলা হয় পাকিস্তানের জাতির পিতা। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর তিনিই হন পাকিস্তানের রাষ্ট্রপ্রধান। তখন সে পদের নাম ছিল গভর্নর জেনারেল। প্রেসিডেন্ট খেতাবটি তখনও পাকিস্তানে প্রতিষ্ঠা পায়নি্, সেটি আসে ১৯৫৮ সালে। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার মাত্র তের মাসের মাথায় কায়েদে আযমের ইন্তেকাল ঘটে। তাঁর মৃত্যুর পর গভর্নর জেনারেলের সে আসনে যিনি বসেন তিনি কোন পাঞ্জাবী, সিন্ধি, পাঠান বা বেলুচ ছিলেন না। সে ব্যক্তিটি ছিলেন ঢাকার খাজা নাজিমুদ্দীন। পূর্ব পাকিস্তান থেকে প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন তিনবার। লক্ষ্যণীয় হলো, অখন্ড পাকিস্তানের ২৩ বছরে কোন পাঞ্জাবী, সিন্ধি, পাঠান বা বেলুচ তিন বার প্রধানমন্ত্রী হতে পারেনি, হয়েছে বাঙালীই। কেন্দ্রীয় সরকারের মন্ত্রীসভায় বহু সদস্য হয়েছেন পূর্ব পাকিস্তানী। ১৯৫৮ সালে দেশটির প্রথম প্রেসিডেন্ট রূপে ক্ষমতায় বসেন জেনারেল এসকেন্দার মীর্যা। তিনি ছিলেন মুর্শিদাবাদের।    

পূর্ব পাকিস্তান পশ্চিম পাকিস্তানের কলোনি বা উপনিবেশ ছিল এটি নেহায়েতই একাত্তর-পরবর্তী আবিষ্কার। পাকিস্তান যখন প্রতিষ্ঠা পায় তখন রাষ্ট্রপ্রধানকে প্রেসিডেন্ট না বলে বলা হত গভর্নর জেনারেল। শেখ মুজিব তার রাজনৈতিক জীবনে পাকিস্তানের দুই প্রদেশের মাঝে বৈষম্যের কথা বলেছেন; কিন্তু পূর্ব পাকিস্তান পশ্চিম পাকিস্তানের উপনিবেশ ছিল এমন আজগুবি কথাটি তিনি একটি বারের জন্যও বলেননি।পাকিস্তানের ২৩ বছরের জীবনে রচিত শত শত নিবন্ধ,কবিতা,গল্প ও উপন্যাসেও এমন কথা একটি বারের জন্যও লেখা হয়নি।অথচ সাহিত্য হলো একটি দেশের চেতনার প্রতিচ্ছবি। সাহিত্যে মধ্য দিয়ে একটি জনগোষ্ঠীর চেতনা কথা বলে। ১৯৪৭ সালের পূর্বে বাংলাদেশসহ সমগ্র ভারত ছিল পরাধীন। ১৯৪৭ সালে আসে স্বাধীনতা।তাই ১৯৪৭-পূর্ব পরাধীন যুগের বাংলা সাহিত্যে দেখা যায় ঔপনিবেশিক ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে প্রচণ্ড ক্ষোভ। সাহিত্যে ছিল বিদ্রোহের সুর। বহু কবিতা ও গানে ছিল পরাধীনতা শিকল ভাঙ্গার গান। সে বিদ্রোহের কারণেই কাজী নজরুল ইসলামকে জেলে যেতে হয়েছে। কিন্ত পাকিস্তান আমলে পূর্ব পাকিস্তানী কবি সাহিত্যিকদের লেখনীতে সে ক্ষোভ এবং সে বিদ্রোহ কি নজরে পড়ে? শোনা যায় কি কোন শিকল ছেঁড়ার গান?

পাকিস্তান আমলে যে ক্ষোভটি নজরে পড়ে সেটি ছিল মূলত রাজনৈতিক ময়দানে। সেটির কারণ হলো, একদিকে যেমন স্বৈরাচারী শাসন ও দুর্নীতি পরায়ন রাজনীতিবিদদের ক্ষমতার মোহ, তেমনি বিদেশী শত্রুর ষড়যন্ত্রের সাথে এসব স্বার্থপর রাজনৈতিক নেতাদের সংশ্লিষ্টতা। শেখ মুজিব জেলে গেছেন ও মামলায় জড়িয়েছেন, সেটি ভারতের সাথে আগরতলা ষড়যন্ত্রে জড়িত হওয়ার কারণে। স্বৈরাচার নির্মূল বা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য নয়। তিনি নিজেই ছিলেন ভয়ংকর স্বৈরাচারী -তা তো তিনি ক্ষমতায় যাওয়া মাত্র প্রমাণ করেছেন। ফলে স্বৈরাচার নির্মূলে তার সামান্যতম আগ্রহ থাকার কথা নয়। সেটি বার বার প্রমাণিতও হয়েছিল। সেটি যেমন ১৯৬৯ সালে আইয়ুব খানের আয়োজিত গোল টেবিল বৈঠকের সময়,তেমনি ১৯৭০ সালে ইয়াহিয়ার সাথে আলোচনার বৈঠকে। তার ষড়যন্ত্রের মূল এজেন্ডাটি ছিল পাকিস্তান ভেঙ্গে পূর্ব পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করার,বিচ্ছিন্নতার লক্ষ্য স্বাধীনতা অর্জন ছিল না। বিচ্ছিন্নতা এবং স্বাধীনতা এক বিষয় নয়। একটি স্বাধীন দেশকে খন্ডিত করা হয় সে দেশকে দুর্বল করার জন্য, ক্ষুদ্র টুকরোগুলোকে স্বাধীন ও শক্তিশালী করার জন্য নয়। বিচ্ছিন্ন টুকরোগুলোর তখন পরাধীনতা বাড়ে শক্তিশালী প্রতিবেশীর হাতে। আজকের বাংলাদেশ তারই নমুনা। এজন্যই বিচ্ছিন্নতার প্রকল্পটি ছিল একান্তই ভারতের। যারা জড়িত ছিলেন সে ষড়যন্ত্রের সাথে তার সে ষড়যন্ত্রের কথা পরবর্তীতে প্রকাশ্যে স্বীকার করেছেন। সে ষড়যন্ত্রগুলি হয়েছে পাকিস্তানের আজন্ম শত্রু ভারতের গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে, মুজিবের নেতৃত্বে নয়। ১৯৭০’য়ের যুদ্ধটিও হয়েছে ভারতের নেতৃত্বে, মুজিব বা আওয়ামী  লীগের কোন নেতার নেতৃত্বে নয়।  পাকিস্তানের শত্রুরা তখন কাজ করেছেন ভারতীয় চরদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে। তাদের মাঝে প্রচণ্ড ভাবে যে বিষয়টি তখন কাজ করেছিল সেটি হলো,যে কোন ভাবে ক্ষমতালাভ। একারণেই পাকিস্তানী আমলের মূল্যায়নে সে সময়ের কবি-সাহিত্যিকদের মাঝে যতটা সততা দেখা যায় সেটি রাজনৈতিক মহলে ছিল না। সেরূপ সততা আদৌ ছিল না ভারতমুখী আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক নেতা-কর্মী ও বুদ্ধিজীবীদের মাঝে।  

ফলে পাকিস্তান আমলে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ কি ভাবতো সেটি জানতে হলে সে আমলের সাহিত্যের দিকে নজর দিতে হবে। ইতিহাস পাঠের নামে আওয়ামী লীগ ও তার মিত্রদের প্রচরণার জোয়ারে ভাসলে আসল সত্যটি অজানাই থেকে যাবে। অথচ আজ ইতিহাস পাঠের নামে বাংলাদেশের স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে মিথ্যার জোয়ারে ভাসানোর কাজটিই হচ্ছে। একাত্তরের পর ইতিহাস চর্চায় দখলদারি গেছে রাজনীতিবিদদের হাতে। এসব ভারতসেবী রাজনীতিবিদ ভারতের প্রতি তাদের দাসসুলভ চরিত্রকে আড়াল করতে পাকিস্তান আমলের সাহিত্য ধ্বংসে হাত দিয়েছে। এমন একটি অসৎ উদ্দেশ্যের কারণেই আওয়ামী লীগ ও তার মিত্রদের ফ্যাসীবাদী সন্ত্রাস শুধু রাজনীতির ময়দানে সীমিত নয়,বরং তার প্রবল বিস্তার শিক্ষা,সাহিত্য ও ইতিহাস চর্চার ক্ষেত্রেও। তারা শুধু বিশ্ববিদ্যলয়ে মনোগ্রাম থেকে কোরআনের আয়াতকে সরিয়ে দেয়নি,লাইব্রেরী ও পাঠ্যপুস্তকের সিলেবাস থেকে বহু লেখকের বইও সরিয়ে দিয়েছে। বিশেষ করে তাদের যারা ভারতসেবী রাজনৈতিক প্রকল্পের সহযোগী নয়।

 

একাত্তরপূর্ব বাংলা সাহিত্যে স্বাধীনতার প্রসঙ্গ

পাকিস্তান আমলে পূর্ব পাকিস্তান ঔপনিবেশিক কলোনি ছিল না স্বাধীন দেশ ছিল এবং দেশের বুদ্ধিজীবী শ্রেণী ও কবি-সাহিত্যিকগণ তা নিয়ে কি ভাবতো -সেটির পরিচয় মেলে সে আমলের বাংলা সাহিত্যে। সাহিত্যের মধ্য দিয়েই এভাবেই দেশের ইতিহাস জানা যায়। সাহিত্যের মাঝে এজন্যই স্বাধীনতা বা পরাধীনতা –জনগণের উভয় অবস্থারই বর্ণনা পাওয়া যায়। ভারতে ঔপনিবেশিক ব্রিটিশ শাসনের প্রতিষ্ঠাতা হলো লর্ড ক্লাইভ ও ব্রিটিশ ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী।লর্ড ক্লাইভ ও তার কোম্পানীকে উদ্দেশ্য করে একখানি কবিতাও কি কেউ লিখেছে? ১৯০ বছরের ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের প্রশংসা করে কোন মুসলিম কবি কি একটি কবিতাও লিখেছে? কারো প্রশংসায় কবিতা চর্চায় আবেগ ও অনুপ্রেরণা আসে অন্তরের গভীর ভালবাসা থেকে। অথচ সেরূপ গভীর ভালবাসার প্রমাণ মেলে পাকিস্তান ও পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতার স্মরণে লেখা অসংখ্য কবিতা ও প্রবন্ধে।

একাত্তরের পর মুজিবামলে অতি ক্ষোভ ও আক্রোশ নিয়ে লেখা হয়েছেঃ “ভাত দে, নইলে মানচিত্র খাবো” ইত্যাদি জাতীয় কবিতা। পাকিস্তানের ২৩ বছরে দেশটির মানচিত্র খাবার সাধ নিয়ে কেউ কি কবিতা লিখেছে? অথচ সেটি লেখা হয়েছে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার মাত্র ৩ বছরের মধ্যেই। যে দেশের সরকার দুর্ভিক্ষ ডেকে এনে লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু ঘটায় -সে দেশের সরকার ও মানচিত্রের বিরুদ্ধে আক্রোশ জাগাই স্বাভাবিক। শেখ মুজিবের পিঠের চামড়া দিয়ে ঢোল বানানোর আক্রোশে বক্তৃতা দেয়া হয়েছে। সে সব বক্তৃতা দিয়েছে খোদ ছাত্রলীগের নেতারা, কোন রাজাকার নয়। কিন্তু পাকিস্তানের ২৩ বছরে বাংলা ভাষায একটি কবিতাও কি লেখা হয়েছে যাতে প্রকাশ পেয়েছে পাকিস্তান ও তার নেতা কায়েদে আযম মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর প্রতি ঘৃণা ও আক্রোশ।পাকিস্তান ভাঙ্গা হয়েছে,একাত্তরের পর বাংলাদেশের যেসব প্রতিষ্ঠানের সাথে জিন্নাহর নাম জড়িত ছিল সেখান থেকে তার নামও সরানো হয়েছে, কিন্তু সে আমলের কবিতা ও সাহিত্যকে কে নির্মূল করবে? বরং লক্ষণীয় হলো,কায়েদে আযমের প্রশংসায় বাংলা ভাষায় যত কবিতা লেখা হয়েছে তা বাংলাদেশের কোন রাজনৈতিক নেতার কপালে জুটেনি।

 

বাংলা কবিতায় কায়েদে আযম

পূর্ব পাকিস্তানকে যারা পাকিস্তানের উপনিবেশ ভাবেন সে পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন কায়েদে আযম মোহম্মদ আলী জিন্নাহ। তাঁকে উদেশ্য করে বাংলা ভাষায় যেসব কবিতারচিত হয়েছে তার কিছু উদাহরণ দেয়া যাক।পাকিস্তান আমলে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের যারা প্রধানতম কবি ছিলেন তাদের মধ্য অন্যতম হলেন ফররুখ আহমদ,সুফিয়া কামাল,তালিম হোসেন,বেনজির  আহমেদ, গোলাম মোস্তাফা, আ.ন.ম.বলজুর রশিদ, কাজী কাদের নেয়াজ, সিকান্দার আবু জাফর, শাহাদৎ হোসেন খান, বন্দে আলী মিয়া, সৈয়দ আলী আহসান,আশরাফ  সিদ্দিকী,মাজহারুল ইসলাম, মুফাখখারুল ইসলাম, আবু হেনা মোস্তাফা কামাল, সৈয়দ এমদাদ আলী এবং আরো অনেকে। এসব কবিদের রচিত সাহিত্যে কায়েদে আযমকে নিয়ে যে চেতনা ও উপলদ্ধিটি ফুটে উঠেছে তার কিছু উদাহরণ দেয়া যাক। বেগম সুফিয়া কামাল লিখেছেন,

“তসলীম লহ,হে অমর প্রাণ!কায়েদে আজমজাতির পিতা!

মুকুট বিহীন সম্রাট ওগো!সকল মানব-মনের মিতা।

অমা-নিশীথের দৃর্গম পথে আলোকের দূত! অগ্রনায়ক!

সিপাহসালার!বন্দী জাতিরে আবার দেখালে মুক্তি-আলোক।”

          -(মাসিক মাহে নও। ঢাকা,ডিসেম্বর ১৯৫৯)।

অন্য এক কবিতায় তিনি লিখেছেন,

“জাতির পতাকা-তলে একত্রিত সকলে তোমারে

স্মরণ করিছে বারে বারে,

তোমার আসন আজও  সকলের হৃদয়ের মাঝে

তোমারে লইয়া ভরে আছে।

যুগে যুগে তুমি তব দানের প্রভায়

চিরঞ্জীব হয়ে র’বে আপনারী দিব্যি মহিমায়।

কায়েদে আজম। তবদান

মহাকাল-বক্ষ ভরি রহিবে অম্লান।”

-(মাসিক মাহে নও।ঢাকা,ডিসেম্বর ১৯৫৫)।

সুফিয়া কামাল আরেক কবিতায় লিখেছেন,

“হে সিপাহসালার! তব দৃপ্ত মনোরথে

ছুটাইয়া টুটাইয়া জিন্দানের দ্বার

আনিলে প্রদীপ্ত দীপ্তি ঘুচায়ে শতাব্দী অন্ধকার

মৃত্যু নাহি যে প্রাণের ক্ষয় নাহি তার দেয়া দানে

লভি আজাদীর স্বাদ,এজাতি-জীবন তাহা জানে

তোমার জনম দিনে,তোমার স্মরণ দিনে

কায়েদে আজম! তব নাম

কোটি কন্ঠে ধ্বনি ওঠে,কহে,লহ মোদের সালাম।”

–(পাক-সমাচার।ঢাকা ডিসেম্বর: ১৯৬৩)।  

কায়েদে কাযমের সম্মানে কবি ফররুখ আহমদ লিখেছেন:

“সে ছিল দিলীর,শক্তিমান এই দুনিয়ায়,

তর্জনী-সংকেতে যাঁর কাঁপিয়াছে একদা হিমালা;

অন্ধ জুলমাত-ম্লান শর্বরী শ্রান্ত তমসায়

এনেছিল সহজে সে জীবনের তীব্র জ্যোতির্জ্বালা

শৃংখলিত জনতার সে নির্ভীক নিশান-বর্দার-

বহু দিন বহু বর্ষ নিজেরে জ্বালায়ে তিলে তিলে

দিয়ে গেছে অনির্বাণ আজাদীর বিচিত্র সম্ভারঃ

দিশাহারা জাতিকে সে নিয়ে গেছে মুক্তির মঞ্জিলে।

 

সে মুক্তি,আজাদী সেই প্রমূর্ত একক সাধনায়,  

অদম্য,অনমনীয় যার মাঝে ছিল না সংশয়,

জাতিকে মঞ্জিলে এনে যদিও সে নিয়েছে বিদায়,

এ জাতির হৃদপিন্ডে রেখে গেছে আপন হৃদয়।

….

কায়েদের পথ চিনে বাঁচাবো এ পাক হুকুমত।

কলিজার খুন দিয়ে তিলে তিলে,কিম্বা এক সাথে

নির্ভীক জামাতবদ্ধ অকৃপণ রক্ত বিনিময়ে

বিজয়ী শত্রুর ‘পরে,অকম্পিত দুর্ধর্ষ সংগ্রামে

নেতার আদর্শ নিয়ে আজাদীর পূর্ণতার পথে

উদ্বুদ্ধ বাণীতে তার গ’ড়ে যাবো এ পাক ওতান,

বাঁচাবো মর্যাদা তার –যে মর্যাদা মহান পিতার

এ দেশের প্রতি পথ যার দীপ্ত স্মৃতির প্রতীক,

তার অসমাপ্ত কাজ আমাদের দায়িত্ব বিশাল।”

               -(বার্ষিকী) নয়া সড়ক

                (শাহেদ আলী সংকলিত, ১৯৮৯)

কায়েদে আজম স্মরণে সিকান্দার আবু জাফর লিখেছেন,

“ডোবেনি যে রবি,নেভেনি যে আলো

মুছিবে না কোন কালে,

এই কালে পৃথিবীর ভালে

জ্যোতি-প্রদীপ্ত উজ্বল সেই

সূর্য্যের প্রতিভাস

সে রচিয়া গেছে মৃত্যুবিহীন

আপনার ইতিহাস।

সে ছড়ায়ে গেছে মৃত্যুঞ্জয়ী

মহাজীবনের বীজ,

সে ফোটায়ে গেছে লক্ষ বুকের

তিমির সরসী নীরে

চির প্রভাতের আনন্দ সরসিজ।

মৃত্যু ‘অতীত জীবন তাহার

মৃত্যু সাগর তীরে

দিগন্তহীন সীমা বিস্তৃত জীবনের মহাদেশে

যুগ-যুগান্ত সে আসিবে ফিরি ফিরে।

বহু মৃত্যুর দিগন্ত হতে সে এনেছে কেড়ে

জীবনের সম্মান;

ক্ষয় নাহি তার নাহি তার অবসান।           

অযুত মৌন কন্ঠ ভরিয়া নব জীবনের গান

ফোটা যে বারে বারে

মৃত্যু কি তারে স্তব্ধ করিতে পারে? 

       -(শাহেদ আলী সংকলিত,১৯৮৯)

আওয়ামী লীগ আমলের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি এবং বাংলা এ্যাকাডেমীর সাবেক মহাপরিচালক ডঃ মাযহারুল ইসলাম লিখেছেন,

“সহসা আলোর পরশ লাগালো

প্রাণে প্রাণে এক চেতনা জাগলো

আধার দুয়ার খুলে গেল সম্মুখে

কে তুমি হে নব-পথ-সন্ধানী আলোকদ্রষ্টা?

কে তুমি নতুন মাটির স্রষ্টা?

যে এনেছে বুক জুড়ে আশ্বাস

যে দিয়েছে সত্তা নিয়ে বাঁচবার বিশ্বাস

অগণন মানুষের হৃদয়-মঞ্জিলে

-সে আমার কাযেদে আজম

আমার তন্ত্রীতে যার ঈমানের একতার

শৃঙ্খলার উঠিছে ঝংকার

সুন্দর মধুর মনোরম।”-(শাহেদ আলী সংকলিত, ১৯৮৯)

ড. মাজহারুল ইসলাম অন্য এক কবিতায় কায়েদে আযম সম্পর্কে লিখেছেন,

“আঁধারের গ্লানিভরা জাতির জীবন

কোথাও ছিল না যেন প্রাণ স্পন্দন

মৃত্যু­-তুহীন দিন গুণে গুণে এখানে ওখানে

শুধু যেন বারবার চলিষ্ণু পখের প্রান্তে ছেদ টেনে আনে

ম্লান পথ হয়ে ওঠে আরো ঘন ম্লান

আঁধারে বিলীন হলো মুক্তি-সন্ধান।

তারপর মৃত্যু-জয়ী সে এক সৈনিক

সৃষ্টির আনন্দ নিয়ে নেমে এলো আঁধারের পথে

চোখে মুখে অপূর্ব স্বপন

হাতে আঁকা অপরূপ নতুন দেশের রূপায়ন

এ মাটিতে সে এক বিস্ময়,

মৃত বুকে প্রাণ এলো

মুক্তির চেতনা এলো।

প্রাণ যাক তবু সেই স্বপ্ন হোক জয়

নির্বিকার ত্যাগের আহবান!

পথে পথে রক্তের আহবান।

 -মাটির ফসল, -(শাহেদ আলী সংকলিত,১৯৮৯)

কাজী নজরুল ইসলাম লিখেছেন,

“মুসলিম লীগের আন্দোলন যেরূপ গদাই-লস্করী চালে চলছিল, তাতে আমি আমার অন্তরে কোন বিপুল সম্ভাবনার আশার আলোক দেখতে পাইনি। হঠাৎ লীগ নেতা কায়েদে আজম যেদিন পাকিস্তানের কথা তুলে হুংকার দিয়ে উঠলেন -“আমরা ব্রিটিশ ও হিন্দু ফ্রন্টে ভারতের পূর্ণ স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করব” সেদিন আমি উল্লাসে চীৎকার করে বলেছিলাম –হাঁ, এতোদিনে একজন ‘সিপাহসালার’ সেনাপতি এলেন। আমার তেজের তলোয়ার তখন ঝলমল করে উঠলো।”-(শাহেদ আলী সংকলিত,১৯৮৯)

বাংলা একাডেমীর সাবেক মহাপরিচালক এবং ঢাকা ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জনাব আবু হেনা মোস্তাফা কামাল কায়েদে আজমের সম্মানে লিখেছেন,

“প্রদীপ্ত চোখে আবার আকাশকে দেখলাম

পড়লাম এক উজ্বল ইতিহাসঃ

সে ইতিহাসের পাতায় পাতায় একটি সোনালী নাম…

আবার আমরা আমরা চোখ তুলে তাই দেখলাম এ আকাশ।

 

তোমাকে জেনেছি আকাশের চেয়ে বড়—

সাগরের চেয়ে অনেক মহত্তর—

কেননা ক্লান্ত চোখের পাতায় নতুন আলোর ঝড়

তুমি এনে দিলে।নতুন জোয়ার ছুঁয়ে গেল বন্দর।

     -(মাসিক মাহে নও,ঢাকা ডিসেম্বর ১৯৫৩)     

কবি বন্দেআলী মিয়া লিখেছেন,

“জাতির জনক –তোমারে সালাম!

 পাক-ভারতের ইতিহাসে তোমার নাম লেখা রইলো।

 লেখা রইলো কালের পাতায়,          

 শতাব্দীর অন্ধ কারাগারের দ্বার ঠেলে

 হে জ্যোতির্ময়,পরাধীন মুসলিম জাহানে তুমি এলে।

 তোমার আবির্ভাবে খসে পড়লো গোলামীর জিঞ্জির।”  

     -(মাসিক মাহে নও,ঢাকা, ডিসেম্বর ১৯৫৩)

 

কায়েদে আজমের মৃত্যুতে সৈয়দ আলী আহসান লিখেছেন,

“অনুর্বর প্রহরে আমার-প্রাণ দিলে সুর দিলে তুমি,

আমার মৃত্তিকালদ্ধ ফসলের ভিত্তিভূমি তুমি।

প্রতিকূল প্রহরের প্রবঞ্চনা ফিরে গেল অসীম কুন্ঠায়,

আসলাম দীপ্ত পথে খরতর সূর্যের আশায়।

তুমি সে সূর্যের দিন,তুমি তার আরম্ভের প্রভা,

সবুজের সমারোহ জীবনের দগ্ধ দিন

প্রাণের বহ্নিব মোহে জেগে উঠে নতুন সঙ্গীতে-

অপূর্ণ জীবন আজ পরিপূর্ণ হলো বন্ধু তোমার ইঙ্গিতে।

মানব কন্ঠে যে সুর জাগালে তুমি,

সে সুরে এবার তুলে কল্লোল আমার জন্মভূমি।

–   নয়া সড়ক (বার্ষিকী),(সংকলনে শাহেদ আলী, ১৯৮৯)।

এমন কি প্রখ্যাত বামপন্থী তরুণ কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য কায়েদে আজমের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে যে কবিতাটি লিখেছিলেন সেটিও অনন্য। তার কিছু অংশ হলঃ

“তপস্যা শেষ,ভাঙ্গো আজ মৌনতা,

দুর্গের দ্বার খোলো বিনিদ্র দ্বারী,

শত্রুরা মূঢ়,সম্ভাষে স্বাধীনতা,

আমরা জয়ের সাগরে জমাবো পাড়ি,

আজকে এ-দেশ শুনেছে যে ব্রত কথা

সোনার খাঁচার সঙ্গে তাইতো আড়ি।”

সুকান্তের এ কবিতাটি প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৪৭ য়ের স্বাধীনতা পূর্বকালে দৈনিক আজাদ পত্রিকায়। পরে ড. আনিসুজ্জামানের সংগ্রহে প্রকাশিত হয় বাংলা একাডেমীর ত্রৈ মাসিক সাহিত্য পত্রিকা “উত্তরাধিকার” এর শ্রাবন-আশ্বিন ১৩৯১ (জুলাই-আগস্ট) সংখ্যায়।     

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের এক সময়ের চেয়ারম্যান মোহম্মদ মনিরুজ্জামান লিখেছেন কায়েদে আজমের জন্মদিন উপলক্ষে লিখেছেন,

“তুমি নেই,কি আশ্চর্য,তবু তুমি আছ-

এ অসীম বিস্ময়ে

চিনেছি আমার দেশ।অন্ধকারে

যেখানে জ্বালালে আলো,রাত্রির মিনারে

শোনালে সমুদ্র-বালী;সেই তাকে

যতই বাঁধুক বন্যা ঝড়-ঝঞ্ঝা যন্ত্রণার পাঁকে

সে শুধু প্রদীপ্ত মুখ,

দৃঢ়কন্ঠ উচ্চকিত।একাগ্র উৎসুক

আমি –ছিনেছি তোমাকে প্রতি শ্বাসের হাওয়ায়

মনে মনে

ঘাসের শিশিরে,মৃদু নক্ষত্রের রূপালি জীবনে

দেখিছি প্রোজ্বল হৃদয়ে।তাই

জন্মদিন প্রতিদিন,জেনেছি তোমারে।”

– মাসিক মাহে –নও,ঢাকা।ডিসেম্বর ১৯৫৬। 

কায়েদে আজমের স্মরণে কিরণশঙ্কর সেনগুপ্ত লিখেছেন,

“দিকে দিকে উদ্যত নিশানা;

নব রাষ্ট্র জাতীয় চেতনা,

অবজ্ঞার অন্ধকারে লুপ্ত কোটি প্রাণ,

আজ তা’রা আপনার শৌর্যে আস্থাবান

অসীম সাহস বুকে, বাহুতটে আসে নব বল;

কর্মদীপ্ত পাকিস্তানে কোটি প্রাণ তরঙ্গ চঞ্চল।”

বনে বনে পাহাড়ে ও ঘাসে

আজাদী বন্যা এন যাদুদণ্ড দিয়ে

জাগালেন সুপ্তিমগ্ন পাষাণ-পুরীকে

এই বিংশ শতকের কোন যাদুকর!

নবরাষ্ট্র গঠনের অমোঘ আহবান!

-মাসিক দিলরুবা, (সংগ্রহে শাহেদ আলী, ১৯৮৯।  

শিক্ষাবিদ, কবি ও গবেষক মোফাখখারুল ইসলাম কায়েদে আজমের মৃত্যুতে লিখেছেন,

“কায়েদে আজম! কায়েদে আজম! কে বলে মরেছ তুমি?

গুরু জিহাদের রণ-প্রস্তুতিতে হয়তো পড়েছ ঘুমি!

ঝড়-তুফানে ঝাপটা সয়েছ সারা রাত জেগে জেগে,

ভোরের পবনে ঢুলিয়া পড়েছ রাতের তন্দ্রাবেগে!

যাত্রা-ঘণ্টা তেমনি বাজিছে দূর পথে ঠুনঠুনি,

তোমার কন্ঠ সমান আবেগে আজো হেঁকে ওঠে শুনি!

আজো হেঁকে ওঠেঃ এক পা-ও নহে পিছুপানে কভূ নয়!

শাণিত জ্ঞানের তেগ হেনে চলো যেথা আছে সংশয়!

ছিলে সম্মুখে, এবার মোদের পশ্চাতে শুধু এলে,

তোমার মনের তাকত মোদের সমূখে দিতেছে ঠেলে।

 

তাই আজো চলি –আজো চলি তব পথ,

আমার যে নাই কাঁদিবার ফুরসৎ!

তুমি ত হুকুম করোনি এখনো থামিতে পথের মাঝে,

অশ্রু মছিয়া সমতালে তাই চলিতেছি রণ-সাজে।

 

এই ধরিলাম তোমার নিশান পুনঃ!

ঝঞ্ঝার বেগ, মৃত্যু-তুফান কোনো

নোয়াতে কখন পারিবে না এরে, পারিবে না লাজ দিতে;

আমরা রক্ত জিম্মা রহিল এর মান রক্ষিতে।”

-কাব্য বীথি, ১৯৫৪।

কায়েদে আজম স্মরণে কবি তালিম হোসেন লিখেছেন,

“জিন্দেগানীর মুক্তি দিশারী,হে জিন্দা মুসলিম!

তব রশ্মির সম্পাত আছে চাঁদ সিতারার পরে।

সে চাঁদ-সিতারা নিশান আমার –আলোকিত অন্তর,

গুমরাহা রাতে পথ হারাবো না-লহ এই নির্ভর।

 

জিন্দেগানীর মুক্তি দিশারী, হে জিন্দা মুসলিম!

রুদ্ধ আঁধার জিন্দারে দিলে আলোর তসলীম।

স্বেচ্ছা-বন্দী দীন আত্মারে দেখালে রাহে নাজাত,

মৃত্যু –তন্দ্র মুর্চ্ছাতুরের পিয়ালে আবহায়াত!

কার ইশকের পরশ ছোঁয়ালে, হে মোর আতশী সাকী?

নয়া জিন্দেগী তহুরা –নেশায় কোন মাশুকের লাগি

শত মৃত্যুর পারাইয়া আসি জীবনের ময়দানে-

বিজয় নিশান আধো-চাঁদ আঁকা নিশানের আহবানে।

…..

কোথা উড়ে যায় মৃত্যু-শংকা খুদীতে দৃপ্ত হয়ে

খুনের দরিয়া পাড়ি দিই আঁধি-তোফান মাথায় লয়ে।

অন্তরে লভি তোমার দিদার, বন্দরে বন্দরে

আলো-ঝলমল আকাশে আমার হেলালী নিশান ওড়ে।

-দিশারি (সংগ্রহে শাহেদ আলী, ১৯৮৯)

কবি বেনজির আহমদ লিখেছেন,

“হে কায়েদ নতুন দিনের,

এ-ও তব দান

মিথ্যার আঁধার টুটি আলোকের গান

এ-ও তব দান।

হে কায়েদ নতুন দিনের

মৃত্যু নহে তব অবসান,

জীবন্ত সূর্যের মতো বিশ্বের মানস লোকে

তুমিও যে মৃত্যু –জয়ী অমৃত-সন্তান।

-(কাব্য বীথি, ১৯৫৪)।    

কায়েদে আজমের স্মরণে কবি ফজল শাহাবুদ্দীন লিখেছেন,

“তুমি এলে হে নাবিক,প্রভাতের পানপাত্র হাতে

আঁধারে মুখর হোল জীবনের প্রদীপ্ত শপথে

রাত্রির বন্দর থেকে মৌসমীর হাসিন ঊষায়।

অনেক ঝড়ের পর মুঠি মুঠি প্রভাতের আলো

বিদীর্ণ রাত্রির শেষে রক্ত বীজ মাঠেতে ছড়ালো।”

-মাসিক মাহে নও,ঢাকা,ডিসেম্বর ১৯৫৬।

 

কেন এ অকৃত্রিম ভালবাসা?

কায়েদে আযম মোহম্মদ আলী জিন্নাহরপ্রতি বাঙালী মুসলিমের এরূপ গভীর ভালবাসার সুদীর্ঘ ইতিহাস আছে। ব্রিটিশের গোলামী থেকে মুক্তি লাভই বাঙালী মুসলিমের প্রকৃত স্বাধীনতা ছিল না। ব্রিটিশ শাসনের অবসানের সাথে সাথে তাদের জন্য অপেক্ষায় ছিল গোলামীর আরেকটি ভয়ংকর জিঞ্জির। সেটি আধিপত্যবাদি বর্ণ হিন্দুদের। ইংরেজের গোলামী থেকে মুক্তি পাওয়ার চেয়েও কঠিন ছিল অতি নিষ্ঠুর ও নির্দয় হিন্দুদের খপ্পর থেকে মুক্তি পাওয়া। ইংরেজদের আমলে  মুসলিম নারী-পুরুষদের হত্যা, মসজিদ ধ্বংস ও মুসলিম নারীদের ধর্ষণের লক্ষ্যে হাজার হাজার সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার আয়োজন হয়নি। কিন্তু ব্রিটিশ শাসনের অবসানের পর ভারতীয় রাজনীতির এটিই প্রবলতম সংস্কৃতি। হিন্দু নেতৃত্বাধীন কংগ্রেস চাচ্ছিল ভারতীয় মুসলিমদের পরাধীনতার খাঁচাতে পুরতে।বাঙালী মুসলিমদের জন্য তাই অপরিহার্য ছিল ইংরেজ ও হিন্দু –উভয়ের গোলামী থেকে স্বাধীনতা লাভ। ১৯৪৭ সালে সেটিই সম্ভব হয় পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে।কায়েদে আযম মোহম্মদ আলী জিন্নাহ ছিলেন সে আন্দোলনের মহান নেতা। গান্ধি না হলেও ভারত ব্রিটিশের শাসন থেকে স্বাধীনতা পেত। কিন্তু পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার জন্য প্রয়োজন ছিল কায়েদে আযমের ন্যায় যোগ্য নেতৃত্ব -যিনি একতাবদ্ধ করতে পেরেছিলেন বিশাল ভারতের নানা ভাষা, নানা অঞ্চল,নানা মজহাব ও নানা ফেরকার মুসলিমদের।

পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বাংলার মুসলিমদের যে উপকারটি মোহম্মদ আলী জিন্নাহ করেছেন তা ইখতিয়ার মোহম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজির বঙ্গবিজয়ের পর আর কেউ করেননি। মাতৃভাষার দিক দিয়ে তিনি ছিলেন গুজরাটি। বেড়ে উঠেছেন করাচি ও মুম্বাইতে। এরপরও বাঙালী মুসলমানের ভাগ্য পরিবর্তনে যে কোন বাঙালীর চেয়ে এই অবাঙালী ব্যক্তির ভূমিকাটিই সবচেয়ে বড় ।নইলে বাঙালী মুসলমানের স্বাধীন ভাবে বেড়ে উঠার স্বপ্নটি নিছক স্বপ্নই থেকে যেত। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠা পাওয়াতে একমাত্র ঢাকা শহরে যে সংখ্যক ডাক্তার, ইঞ্জিনীয়ার, শিক্ষক, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক, কৃষিবিদ, সামরিক অফিসার ও অন্যান্য শিক্ষিত পেশাজীবীদের বসবাস তা সমগ্র ভারতের ২০ কোটি মুসলিমের মাঝে নেই। ভারতের জনসংখ্যার ১৫% ভাগ মুসলিম, অথচ সরকারি চাকুরিতে তাদের অনুপাত শতকরা তিন ভাগও নয়। এ তথ্যটি এমনকি ২০০৬ সালে সাচার কমিটির ন্যায় দিল্লি সরকার কর্তৃক নিয়োগকৃত তদন্ত কমিটির রিপোর্টেও প্রকাশ পেয়েছে। ইখতিয়ার মোহম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজি বঙ্গ-বিজয় করে মুক্তি দিয়েছিলেন পৌত্তলিকতার অভিশাপ থেকে।তিনি সন্ধান দিয়েছিলেন জান্নাতের পথের।দুর্বৃত্ত হিন্দু রাজার কুফুরি শাসন বিলুপ্ত করে তিনি সুযোগ করে দিয়েছিলেন বঙ্গভূমিতে প্রথম শরিয়তের আইন প্রতিষ্ঠার। এভাবে বাংলার বিশাল জনগোষ্ঠী সেদিন সুযোগ পেয়েছিল মুসলিম রূপে বেড়ে উঠার। একই রূপ সুযোগ সৃষ্টি হয় পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে।

পরাধীন জীবনে কি ন্যায় বিচার ও ন্যায্য হিস্যা আশা করা যায়?ভারতে মুসলিম বিরোধী দাঙ্গাগুলোয় হাজার হাজার মুসলিম নিহত হয়, হাজার হাজার মুসলিম নারী তো ধর্ষিতা হয় -কিন্তু সে অপরাধে কি কারো শাস্তি হয়? দিন-দুপুরে ঐতিহাসিক বাবরী মসজিদ ধ্বংস হলেও পুলিশ সেটি রুখে নাই, কাউকে গ্রেফতারও করে নাই।এরপরও কি বুঝতে বাঁকি থাকে, হিন্দু ভারতে মুসলিমদের পরাধীনতা কতটা ভয়ংকর। মুসলিমদের জন্য ভারতের বুকে যা বরাদ্দ রাখা হয়েছে তা হলো পরাধীনতার শিকল। ১৯৪৭’য়ে পরাধীনতার জিঞ্জির থেকে মুক্তি না মিললে বাংলাদেশের মুসলিমদের অবস্থাও যে ভারতীয় মুসলিমদের মত হত -তা নিয়ে কি সন্দেহ আছে? অথচ বাঙালী সেক্যুলারিস্টদের কাছে পাকিস্তানী আমলের সে স্বাধীনতা পরাধীনতা মনে হয়েছে। বরং স্বাধীনতা গণ্য হয়েছে মুসলিমের বঞ্চনা ও নির্যাতনের ভারতীয় মডেল। ১৯৪৭’য়ের ভারত বিভক্তির বেদনায় এখনো তারা কাতর। একাত্তরে বাঙালী মুসলিমের গলায় পরাধীনতার শিকল পড়ানোর জন্যই শেখ মুজিব ও তার সহচরগণ ভারতীয় সেনাবাহিনীকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ডেকে এনেছিলেন। তাজুদ্দীনের ৭ দফা এবং মুজিবের ২৫ সালা চুক্তি ছিল মূলত পরাধীনতার সনদ; বাংলাদেশের স্বাধীনতার নয়।বাংলাদেশের ইতিহাসে যাদেরকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী রূপে পেশ করা হচ্ছে তারা তো বাংলাদেশের বেরুবাড়ী ধরে রাখতে পারিনি। তিনবিঘা করিডোরও ফিরিয়ে আনতে পারিনি। পদ্মার পানিও আনতে পারিনি। ক্ষমতায়থাকা কালে বড় বড় প্রতিষ্ঠানের নাম নিজের নামে করা যায়। অর্থ দিয়ে মুর্তিও গড়িয়ে নেয়া যায়।এমন কি চাটুকরদের দিয়ে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালীর উপাধীও নেয়া যায়। কিন্তু ভালবাসা নিংড়ানো কবিতাও কি লিখিয়ে নেয়া যায়?

অবাঙালীদের ঘৃনা করা ও বাংলাদেশীদের সকল ব্যর্থতার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করা –এটিই বাঙালী সেক্যুলারিস্টদের চরিত্রের প্রধানতম দিক। অথচ বাঙালী মুসলিমের রাজনৈতিক ইতিহাসে যে দুই জন ব্যক্তির দান সর্বাধিক -তাদের কেউই বাঙালী নন। তারা হলেন কায়েদে আযম মুহম্মদ আলী জিন্নাহ এবং ইখতিয়ার মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজি। তাছাড়া বাঙালী মুসলিমের হৃদয়ের সবটুকু জুড়ে যিনি বসে আছেন তিনিও বাংলাদেশ বা বাংলা ভাষার কেউ নন। তিনি হলেন মহান নবীজী, মানব সভ্যতার শ্রেষ্ঠ মানব এবং অবাঙালী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)। তাই ভাষার নামে প্রাচীর গড়ে বাংলার মুসলিমদেরকে কি তাদের অবাঙালী আপনজনদের থেকে দূরে রাখা যায়? ভাষা, বর্ণ, গোত্র বা ভূগোলের নামে বিভেদের দেয়াল গড়া ইসলামে এ জন্যই হারাম। অথচ সে জঘন্য হারাম কাজটি নিয়েই বাঙালী জাতীয়তাবাদীদের রাজনীতি ও শিক্ষা-সংস্কৃতি। মুসলিমের বন্ধনটি হলো ঈমানের। পাকিস্তানী আমলে ভাষার নামে সে নিষিদ্ধ দেয়াল গড়ার কাজটি হয়নি। বরং সে দেয়াল ভাঙ্গার কাজটিই হয়েছিল। তাই অসংখ্য পিতামাতা অবাঙালী জিন্নাহর নামে নিজ সন্তানদের নাম রেখেছেন। জিন্নাহর স্মৃতিকে স্মরণীয় করতে দেশের মানুষ তার নামে অসংখ্য প্রতিষ্ঠান গড়েছে। কোন হানাদার, দখলদার বা ঔপনিবেশিক শাসনের প্রতিষ্ঠাতার নামে কি সেটি হয়? কিন্তু যে বাঙালী সেক্যুলারিস্টদের চেতনার মানচিত্রটি আগ্রাসী শক্তির হাতে অধিকৃত -তারা কি ইতিহাসের এ সত্য বিষয়গুলি বুঝবার সামর্থ্য রাখে? এরূপ মানসিক বিকলাঙ্গতা নিয়ে পাকিস্তানের ২৩ বছরকে উপনিবেশিক যুগ বলবে -সেটিই কি স্বাভাবিক নয়? আর সেটি না করলে বাঙালীর মনে হিন্দু ভারতের বন্দনাকে জায়েজ করা যায় কি করে?

 




প্রাসঙ্গিক ভাবনা-৬

১.                 

ভারতের উচ্চবর্ণের হিন্দুগণ হিন্দুদের কল্যাণের মাঝে আনন্দ খোঁজে না। তারা আনন্দ খোঁজে মুসলিমদের ক্ষতি করে। বিজিপি সে চেতনা নিয়েই রাজনীতি করে। তেমন এক স্যাডিস্টিক চেতনার কারণেই বিজিপি সরকারের ব্যস্ততা হিন্দুদের কল্যাণ বৃদ্ধির বদলে কী ভাবে মুসলিমদের দুঃখ বাড়ানো যায় -তা নিয়ে। তারা জানে, মুসলিমদের দুঃখ বাড়ালে তাদের ভোটও বাড়বে। বিগত নির্বাচনগুলিতে তাদের সে ধারণা সঠিক প্রমাণিত হয়েছে। বিজিপি যতই মুসলিমদের খুন ও ধর্ষণ করছে এবং যতই আগুণ দিয়েছে তাদের ঘর ও দোকান-পাটে -ততই বাড়ছে তাদের ভোট। বিজেপির পক্ষে জনমতে বিশাল প্লাবন আসে ১৯৯২ সালে -যখন তারা বাবরি মসজিদের ন্যায় একটি ঐতিহাসিক মসজিদকে মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়েছিল। ফলে যে বিজেপির ভান্ডারে মাত্র কয়েক দশক আগে পার্লামেন্টে মাত্র দুইটি সিট ছিল, এখন সে পার্লামেন্টে তাদের বিশাল সংখ্যাগরিষ্ঠতা।  

ভারতীয় দলিত নেতা রাম বিলাস পাসওয়ান বলেছেন, বিজিপির এজেন্ডা হিন্দুদের উন্নয়ন নয়, বরং তাদের মূল এজেন্ডা হলো মুসলিমদের ক্ষতির পরিমান বাড়ানো। এজন্যই তাদের মনযোগ মসজিদ ভেঁঙ্গে ও মুসলিমদের ঘরে আগুণ দিয়ে মুসলিমদের মনে কষ্ট দেয়া এবং তা নিয়ে নিজেদের মধ্যে উৎসব করা। এমন একটি অসভ্য মানসিকতা শুধু আর.এস.এস বা বিজেপির গুন্ডাদের মাঝেই সীমিত নয়, বরং সেটি ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের মাঝেও বিকট। ফলে মসজিদ ভাঙ্গার ন্যায় অসভ্য অপরাধকে তারা পুরস্কৃত করলো মসজিদের ভিটায় মন্দির নির্মাণের পক্ষে রায় দিয়ে। সে অসুস্থ্য চেতনায় প্রকট ভাবে আক্রান্ত ভারতীয় পুলিশগণও। ফলে মুসলিমদের ঘরে আগুণ দিলে, মসজিদ ভাঙ্গলে, মুসলিমদের হত্যা বা ধর্ষণ করলে ভারতে পুলিশ সে গুলিতে বাঁধা দেয় না। তাই যে হাজার হাজার মানুষ বাবরী মসজিদ ভেঁঙ্গেছে তাদের পুলিশ বাধা দেয়নি। এবং গুজরাতে যখন শত শত মুসলিম ঘরে ও দোকানপাটে আগুণ দেয়া হলো এবং মুসলিমদের হত্যা ও ধর্ষণ করা হলো তখনও বাধা দেয়নি।

এরূপ অসভ্য মানসিকতা হিন্দুদের মাঝে প্রকট হওয়াতে বিশ্বের সর্বাধীক দরিদ্র জনগোষ্ঠির বসবাস ভারতে। পাকিস্তানে গরীব মানুষের জন্য যেরূপ ইদি ফাউন্ডেশন বা শওকত খানম কান্সার হাসপাতালের ন্যায় বিশাল বিশাল বে-সরকারি প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে এবং দরিদ্রদের জন্য সরকারি অর্থে যেরূপ লক্ষ লক্ষ ঘর বানানো হচ্ছে – ভারতে তা হচ্ছে না। ফলে ভারতে বহু কোটি মানুষকে রাস্তাঘাটে বসবাস ও পেশাব-পায়খানা করতে হয় এবং বহুলক্ষ মানুষকে বিনা চিকিৎসায় মারা যেতে হয়। এবং লোন পরিশোধ না করতে পেরে প্রতিবছর আত্মহত্যা করে বহু হাজার কৃষক। এমন কি বাংলাদেশের ন্যায় দেশেও হাজার হাজার কোটি টাকার যাকাত-ফিতরা প্রতি বছর গরীবের ঘরে পৌঁছে। ভারতের হিন্দুগণ ইসলামের সে নিয়ামত থেকেও বঞ্চিত। এরূপ নানা কারণে ভারতে শিশু ও প্রসূতি মায়ের মাঝে মৃত্যুর হার এমন কি বাংলাদেশের চেয়েও অধীক। এবং বাংলাদেশীদের চেয়েও কম ভারতীয়দের গড় আয়ু। সে অপ্রিয় সত্য কথাগুলো সম্প্রতি বেরিয়ে এসেছে অমর্ত্য সেনের কথায়।

২.
হিন্দুগণ পুলিশ, বিচারক বা মন্ত্রী হলেও তারা পক্ষপাতদুষ্ট গোঁড়া হিন্দুই থেকে যায়। ফলে তাদের চেতনায় থেকে যায় হিন্দু-সুলভ তীব্র মুসলিম বিরোধী হিংস্রতা। আজ অবধি তাই কি কোন হিন্দু বিচারক হিন্দুদের বিরুদ্ধে এবং ইসলাম ও মুসলিমের পক্ষে রায় দিয়েছে? তাই সাম্প্রতিক বছর গুলোতে গুজরাত, মোম্বাই, মুজাফ্ফর নগরে যখন দাঙ্গা বাধিয়ে মুসলিমদের হত্যা ও ধর্ষণ করা হলো, মুসলিমগণ পুলিশ থেকে যেমন নিরাপত্তা পায়নি, আদালত থেকেও তেমন কোন বিচার পায়নি। তবে শেখ মুজিব ও শেখ হাসিনার মত কেউ যদি এ আগ্রাসী হিন্দুদের বিজয় বাডাতে নিজ দেশের স্বাধীনতা উজাড় করে দেয় তবে তাকে তারা যেমন বাহবা দেয়, তেমনি প্রতিরক্ষাও দেয়। তাই ভারতে মুসলিম হত্যা ও মসজিদ ভাঙ্গলেও বাংলাদেশে তারা ভোট-ডাকাত হাসিনাকে বাঁচিয়ে রেখেছে।

৩.
হিন্দুগণ প্রথমে মিথ্যা রটায়, তারপর সে মিথ্যার পক্ষে পৌরাণিক কল্পকাহিনী খাড়া করে। এরপর সে মিথ্যাকে ধর্মীয় বিশ্বাস রূপে জনগণের মাঝে জনপ্রিয় করে। পরে আদালতও প্রমাণ ছাড়াই সে মিথ্যার পক্ষে রায় দেয়। মিথ্যাকে এভাবেই বিজয়ী করা হলো ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের সাম্প্রতিক রায়ে। এমন কি ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের রায়েও বলা হয়েছে তারা এ প্রমাণ পা্য়নি যে, বাবরি মসজিদ মন্দিরের উপর গড়া হয়েছিল। কিন্তু এরপরও মিথ্যাকে বিজয়ী করা হয়েছে। যুক্তি হিসাবে রায়ে বলা হয়েছে, জনগণের বিশ্বাস প্রমাণে কোন প্রমাণ লাগে না। তাই হিন্দুদের প্রচলিত বিশ্বাসকে মেনে নিয়েই মসজিদের ভূমিতে মন্দির নির্মাণর পক্ষে রায় দেয়া হয়েছে। অথচ মসজিদ যে কোন মন্দিরের উপর গড়া হয়নি -মুসলিমদের সে বিশ্বাস প্রমাণ করতে বিচারকদের পক্ষ থেকে প্রমাণ চাওয়া হয়েছে। এতে প্রমাণ মেলে, বিচারকগণ রায় দিয়েছেন পক্ষপাতদুষ্ট গোঁড়া হিন্দু রূপে, নিরপেক্ষ বিচারক রূপে নয়।
 

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলে বেড়ায়, তাদের ঋষিগণ স্পেস শিপে আকাশে উড়ে বেড়াতো। আরো বলে, প্রাচীন ভারতের হিন্দুগণ সর্বপ্রথম প্লাস্টিক সার্জারির প্রবর্তন করে এবং তারাই হাতির নাক গনেশের নাকের উপর বসিয়ে দিয়েছে। একই রূপ মিথ্যাচারের মধ্য দিয়ে তারা পুরুষের লিংগ, নিজেদের হাতে গড়া পুতুল ও গরুকে পূজনীয় করেছে। বাবরি মসজিদের ন্যায় ৪০০ মসজিদ গড়া হয়েছে মন্দির ভেঙ্গে এরূপ অসংখ্য মিথ্যাও যে তারা এভাবে জনগণের মাঝে জনপ্রিয় বিশ্বাস রূপে প্রতিষ্ঠা দিবে তাতেই বা অস্বাভাবিক কি? বাবরি মসজিদ ভাঙ্গার পর নতুন ভাবে বলা শুরু করেছে তাজমহলও মন্দিরের উপর গড়া হয়েছে। দাবী তুলছে সেখানেও মন্দির গড়া হবে।

৪.
দুনিয়ার এ জীবন পরীক্ষা নেয়ার জন্য। পবিত্র কোর
আনে তাই বলা হয়েছে, তিনিই (মহান আল্লাহ) মৃত্যু এবং জীবনকে সৃষ্টি করেছেন এজন্য যে, তিনি পরীক্ষা করবেন তোমাদের মধ্যে কে কর্মে উত্তম। -( সুরা মুলক, আয়াত ২)। তাই শুধু ঈমান আনলে বা নামায-রোযা পালন করলে চলে না, পরীক্ষায় পাশ করতে হয় নেক আমলের মাধ্যমে। এখানে পরীক্ষা হয় কে আখেরাতে জান্নাতের যোগ্য এবং কে জাহান্নামের যোগ্য -সে বিষয়টি জানার জন্য। ফলে এটি মানব জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা। চাকুরি জীবনে পরীক্ষা ছাড়া প্রমোশন মেলে না। আর আখেরাতের প্রমোশনটি তো বিশাল। তাই বিশাল ও নিখুঁত হলো পরীক্ষার আয়োজনটিও। পরীক্ষার হলে প্রতিটি ভাল ছাত্রের থাকে পাশের চিন্তা, তাই একটি মুহুর্তও সে অপচয় করেনা। পরীক্ষার হলে বসে তাই কেউ ঘুমায় না, গান-বাজনা শুনে না বা জানালার পাশে দাঁড়িয়ে প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করে না। বরং প্রতিটি মুহুর্ত ব্যয় করে পরীক্ষার খাতায় স্কোর বাড়াতে।

পরীক্ষায় পাশের একই রূপ চেতনা কাজ করে প্রকৃত ঈমানদারের জীবনে। তাই যারা প্রকৃত ঈমানদার, তাদের মাঝে থাকে নেক আমল বাড়ানোর বিরামহীন ব্যস্ততা। এবং সেটি কবরে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত। পরীক্ষায় পাশের মধ্যেই মাগফিরাত। পবিত্র কোরআনেও তাগিদ দেয়া হয়েছে সে মাগফিরাত লাভে প্রতিযোগিতা ও তাড়াহুড়া করতে (সুরা হাদিদ ও সুরা আল ইমরান দ্রষ্টব্য)। তাই মুমিনের জীবনে কোন রেটায়ারমেন্ট বা অবসর নাই। বড় দুটি নেক আমল হলো জ্ঞানলাভ ও জ্ঞান দান। এবং সর্বশ্রেষ্ঠ নেক আমলটি হলো জিহাদ। তাই যে দেশে প্রকৃত ঈমানদারদের সংখ্যা বেশী, সে দেশে জ্ঞানের রাজ্যে জোয়ারটি অনিবার্য। তেমনি অনিবার্য হলো ইসলামের শত্রুশক্তির বিরুদ্ধে লাগাতর জিহাদ। তারই প্রমাণ দেখা গেছে প্রাথমিক যুগের মুসলিমদের মাঝে। সে সময় এমন কোন সাহাবী ছিলেন না যিনি আলেম বা জ্ঞানী ছিলেন। এবং এমন কোন সাহাবা ছিলেন না যিনি নিজের জান ও মালের কোরবানী পেশ করতে জিহাদে যাননি।

আরবী ভাষায় কোরআনের আগে কোন লিখিত ব্ই ছিল না। কিন্তু সে আরবী ভাষাতে ১৪ শত বছর আগে সমগ্র বিশ্ব মাঝে জ্ঞানের সবচেয়ে বড় ভান্ডার গড়ে উঠেছিল। সে সাথে এসেছিল জিহাদের জোয়ার। জিহাদের সে তীব্র জোয়ারে পতন ঘটেছিল রোমান সাম্রাজ্য ও পারসিক সাম্রাজ্য সে সময়ের এ দুটি বিশ্বশক্তির। অথচ আজ মুসলিম জাহানের চিত্রটি সম্পূর্ণ ভিন্ন। নেক আমলের বিচারে তারা বড়ই দৈন্যতার শিকার। তারা যেমন জ্ঞানের রাজ্যে নাই, তেমনি  নাই জিহাদের রাজ্যেও। বরং জোয়ার এনেছে দুর্বৃত্তিতে এবং আল্লাহর হুকুমের বিরুদ্ধে বিদ্রোহে।

একটি দেশের জনগণ পরীক্ষায় কী হারে ফেল বা পাশ করবে -সেটির বিচারে কি সে দেশের মসজিদ-মাদ্রাসা বা মানুষের টুপি-দাড়ি গণনা করার প্রয়োজন পড়ে? দেশে কীরূপ দুর্বৃত্তি ও নেক আমল হচ্ছে -তা দেখেই তো নির্ভূল একটি ধারণা পাওয়া যায়। বাংলাদেশ এ শতাব্দীর শুরুতে ৫ বার দুর্নীতিতে বিশ্বে প্রথম হয়েছে। এখনও দেশ চোর-ডাকাতদের পুরাপুরি দখলে। দেশের প্রধানমন্ত্রী নিজেই একজন ভোট-ডাকাত। চুরি-ডাকাতির পাশাপাশি জ্ঞানার্জনের নেক আমল বিদায় নিয়েছে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। সেখানে পয়দা হয় খুনি, ঘুষখোর, ধর্ষক, চাঁদাবাজ ও নানারূপ দুর্বৃত্ত। দুর্বৃত্তের নায়ক-নায়িকায় পরিণত হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ভিসিগণও। মহান আল্লাহতায়ালার নির্ধারিত এ পরীক্ষার হলে বাংলাদেশীরা যে কীরূপ গণহারে ফেল করছে -সেটি কি দেশে দুর্বৃত্তির জোয়ার দেখে বুঝতে বাঁকি থাকে? দুর্বৃত্তিতে ডুবে থেকে কি নেক আমলের পরীক্ষায় পাশ করা যায়?

৫.

মানুষ তার ঘর থেকে বের  হয় কোথায় যাবে সে চিন্তাকে মগজে রেখে। তাই রাস্তায় এক কদমও কেউ ফেলেনা -কোথায় সে যাবে সেটি ঠিক না করে। আখেরাত হলো মানুষের জীবনের শেষ ঠিকানা। এখানে রয়েছে জান্নাত ও জাহান্নাম। প্রকৃত বুদ্ধিমান তো তাঁরাই যারা জীবনে পথ চলে হৃদয়ে জান্নাতের ঠিকানা রেখে। এবং যার হৃদয়ে জান্নাতের ঠিকানা
সেই তালাশ করে সে ঠিকানায় পৌঁছার সিরাতুল মুস্তাকীম তথা কোর
আনের পথ।

৬.
কারো মৃত্যুতে
ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহির রাজিয়ুন পড়া হয়। নিশ্চ্য়ই সবাই আল্লাহর জন্য এবং নিশ্চয়ই সবাইকে তাঁর কাছে ফিরে যেতে হবে -একজন ব্যক্তি মারা গিয়ে সেটিই অন্যদের শিখিয়ে যায়। প্রকৃত কল্যাণ তো এ চেতনাটি শুধু অন্যের মৃত্যুতে নয়, নিজ জীবনের প্রতি মুহুর্তে হৃদয়ে নিয়ে বাঁচায়।

৭.
ভারতের উগ্র হিন্দু সংগঠনগুলি সোসাল মিডিয়াতে ৪০০ মসজিদের তালিকা প্রকাশ করেছে। অনেকগুলি তাদের গয়া, কাশি ও মথুরাতে। সে গুলিকে ধ্বংস করা এখন তাদের নতুন টারগেট। উগ্র হিন্দু সংগঠনগুলির লক্ষ্য তিনটিঃ এক). দৈহিক ভাবে মুসলিমদের নির্মূল; দুই). মুসলিমদের চেতনা থেকে ইসলাম বিলুপ্তি; তিন). মুসলিম প্রতিষ্ঠানগুলি যেমন মসজিদগুলির নির্মূল। তারা ভাবছে এ ভাবেই ভারতভূমি মুসলিম শূন্য বা মুসলিমের প্রভাবশূন্য করা যাবে।  

৮.

মসজিদের মালিকানা একমাত্র মহান আল্লাহতায়ালার। যে ভূমিতে একবার মসজিদ নির্মিত হয় সে ভূমি আল্লাহর হয়ে যায়। কোন আদালতের এ অধিকার থাকে না যে, মসজিদের ভূমিতে কাউকে মন্দির নির্মাণের অধিকার দিবে। প্রতিটি মুসলিমের ঈমানী দায়ভার হলো, মহান আল্লাহতায়ালার সে মালিকানাকে প্রতিরক্ষা দেয়া। প্রশ্ন হলো, মুসলিমগণ আল্লাহর ঘরের প্রতিরক্ষা দেয়ার কাজে যদি দায়িত্বহীন হয়, তবে মহান আল্লাহতায়ালাও কি তাদের ঘরের নিরাপত্তা দিবেন? তাই ভারতীয় মুসলিমদের সামনে এখন এক বিশাল পরীক্ষা। আল্লাহতায়ালার ঘরের নির্মূল স্বচোখে দেখেও যদি ২০ কোটি ভারতীয় মুসলিম নীরব থাকে তবে তাদের উপর মহান আল্লাহতায়ালার আযাবও অনিবার্য হয়ে উঠবে। তখন বিপদে পড়বে তাদের নিজেদের ঘরও। ১২/১১/২০১৯




সাম্প্রতিক পরিস্থিতি ও ভাবনা-৫

১.

প্রকাশ্য দিবালোকে মসজিদ ভাঙ্গলে, মুসলিমদের হত্যা করলে এবং মুসলিম নারীদের ধর্ষণ করলে -ভারতের আদালতে তার বিচার হয় না। ২০০২ সালে একমাত্র গুজরাতের আহমেদাবাদ শহরেই ৩ হাজারের বেশী মুসলিম নারী, পুরুষ এবং শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। অনেককে হত্যা করা হয়েছে আগুণে ফেলে। ধর্ষিতা হয়েছে শত শত নারী। তখন নরেন্দ্র মোদী ছিল গুজরাতের মুখ্য মন্ত্রী। মোদী সে দাঙ্গা থামাতে কোন উদ্যোগই নেয়নি। সে হত্যাকান্ডে হাজার হাজার হিন্দু অংশ নিয়েছিল। কিন্তু ক’জনের শাস্তি হয়েছে? আসামী ছিল নরেন্দ্র মোদী ও তার ডান হাত অমিত শাহ। কিন্তু কোন মামলাতেই তাদেরকে হাজির হতে হয়নি। নরেন্দ্র মোদী এখন ভারতের প্রধানমন্ত্রী এবং অমিন শাহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী।

১৯৪৭ সালে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে বহু হাজার দাঙ্গা বাধানো হয়েছে।  মুসলিমদের ঘরে আগুন দেয়া ও মুসলিমদের হত্যা করা এখন আর শুধু দাঙ্গা নয়, পরিণত হয়েছে ভারতীয় সংস্কৃতিতে। গরুর গোশতো খাওয়ার অভিযোগে রাস্তায় পিটিয়ে হত্যা করা হচ্ছে। মুসলিমগণ রাস্তায় টুপি মাথায় দিয়ে বেরুতে ভয় পায়। তাদের মূল অপরাধটি হলো, ভারতে প্রায় ৭ শত বছরের মুসলিম শাসন। যারা শাসন করেছিল তাদের মৃত্যু হওয়াতে প্রতিশোধ নিচ্ছে আজকের মুসলিমদের হত্যা ও ধর্ষণ করে।

যে ভারত মুসলিম নির্মূলের এমন সহিংস রাজনীতি ও সংস্কৃতিকে প্রশ্রয় দেয় -সে ভারতকে অতি অন্তরঙ্গ বন্ধু মনে করতেন শেখ মুজিব। বন্ধু মনে করে একাত্তরে যারা ভারতের আশ্রয়ে, প্রশ্রয়ে ও অর্থে প্রতিপালিত হয়েছিল সে মুক্তিযাদ্ধারাও। সে ভারতের প্রশংসায় গদ গদ শেখ হাসিনা। বস্তুতঃ ভোট ডাকাত হাসিনার রক্ষক হলো ভারত। ফলে ভারতে যত মসজিদই ভাঙ্গা হোক না কেন, যত মুসলিমই নিহত বা ধর্ষিতা হোক না কেন -হাসিনা তার নিন্দা করতে রাজী নয়। নিন্দা করতে রাজী নয় সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী রূপে চিত্রিত করা হয় যে মুক্তিযোদ্ধাদের তারাও। বাংলাদেশী হওয়ার অর্থ যেন গলায় শেখ মুজিব ও শেখ হাসিনার ন্যায় ভারতের প্রতি গোলাম সুলভ দাসত্বের রশি নিয়ে বাঁচা। সে দাসত্ব চিত্রিত হচ্ছে একাত্তরে পাকিস্তান ভাঙ্গায় ভারতের ভূমিকার জন্য তাদের প্রতি অনিবার্য দায়বদ্ধতা রূপে।

অপরদিকে রাজাকারদের অপরাধ, তারা ভারতকে কোন সময়ই বন্ধু রূপে মেনে নেয়নি। ভারতকে তারা শত্রু গণ্য করেছে যেমন একাত্তরে, তেমনি আজও। ভারত সেটি পুরাপুরি জানে। তাই তারা রাজাকারদের মহাশত্রু মনে করে। এজন্যই ভারতের প্রতি আত্মসমর্পিত ভোট-ডাকাত হাসিনার উপর ভারতের পক্ষ থেকে অর্পিত মূল দায়ভারটি হলো, বাংলাদেশ থেকে রাজাকার নির্মূল। তাই সে কাজে ময়দানে দেশের পুলিশ, আদালত, সেনাবাহিনী, গোয়েন্দা বাহিনীর পাশাপাশি ছাত্রলীগের গুন্ডাদেরও নামানো হয়েছে। বুয়েটে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করার কারণ, ছাত্রলীগের গুন্ডাদের কাছে সে রাজাকার রূপে গণ্য হয়েছিল। কারণ, সে ভারতের বিরুদ্ধে ফেসবুকে স্টাটাস দিয়েছিল। তাদের ধারণা, এ কাজ একমাত্র রাজাকার ছাড়া অন্য কোন বাংলাদেশী করতে পারে না। চাকর-বাকর তো কাজ করে মনিবের এজেন্ডা অনুযায়ী। তাই দেশ থেকে চোর-ডাকাত, ধর্ষক, সন্ত্রাসী, শেয়ার মার্কেট লুটেরা ও ব্যাংক লুটেরাদের নির্মূল নিয়ে হাসিনার কোন আগ্রহ নেই। কারণ, সে কাজে ভারতের কোন নির্দেশ নাই।  

২.
ভারতের সুপ্রিম কোর্ট আইনী দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো, এখন কোন ঐতিহাসিক মসজিদ ভাঙ্গলে সেখানে মন্দির গড়ার জন্য আদালত থেকে রীতিমত অনুমতি দেয়া হবে। ইতিমধ্যেই উগ্র হিন্দুরা সোসাল মিডিয়াতে অনেকগুলো মসজিদের তালিকাও প্রকাশ করেছে।

ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ ভাঙ্গা শেষ হয়েছে। আদালত থেকে মসজিদের জমির উপর মন্দির বানানোর অনুমতিও মিললো। কিন্তু বিজেপির রাজনীতি তো শেষ হয়নি। সে রাজনীতিকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে আরো মসজিদ ভাঙ্গা এবং আরো মুসলিম হত্যার রাজনীতিকে অবশ্যই তাদের এজেন্ডাতে রাখবে।

৩.
ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের রায়ে নরেন্দ্র মোদি, বিজেপি, আর.এস.এস, বিশ্বহিন্দু পরিষদসহ যাদের হাতে মুসলিমের রক্ত এবং যারা বাবরি মসজিদ ভাঙ্গার সাথে প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িত তাদের এখন ভারত জুড়ে বিপুল বিজয় উৎসবের দিন। মসজিদ গুড়িয়ে দেয়ার যে অপরাধ কর্মটি হিন্দুত্ববাদী গুন্ডারা শুরু করেছিল, সেটিই এখন জায়েজ করে দিল ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট। বিজেপি সরকারের স্ট্রাটেজি এভাবেই ষোলকলায় পূর্ণ হলো। লক্ষ্যণীয় হলো, এ ভারত সরকারই ভোট-ডাকাত হাসিনার মূল রক্ষক! তবে বাংলাদেশে বিজেপীর এজেন্ডা মসজিদ ভাঙ্গা নয়, রাজাকার নির্মূল।

৪.
ভারতে মুসলিম বিরোধী ঘৃণাটি শুধু বিজেপির নয়, সে রোগটি এখন ছড়িয়ে পড়েছে সে দেশের প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে। সমগ্র পুলিশ প্রশাসন সেটি প্রমাণ করেছিল মসজিদ ভাঙ্গার দিনটিতেও। মসজিদ ভাঙ্গার অপরাধীদের স্বপ্ন পূরণ করে ভারতের সুপ্রিম কোর্টও প্রমান করলো, শুধু রাজপথ নয়, ভারতের আদালতও মুসলিম বিদ্বেষীদের হাতে অধিকৃত।

৫.
মহান আল্লাহর যে কোন হুকুমের বিরুদ্ধে বিদ্রোহই হলো কবিরা গুনাহ। প্রতিটি কবিরা গুনাহই ভয়ানক আযাব আনে -যেমন ইহকালে, তেমনি আখেরাতে। মহান আল্লাহতায়ালার হুকুম হলো, মুসলিমদের মাঝে একতা গড়া। সে হুকুম এসেছে সুরা আল ইমরানের ১০৩ নম্বর আয়াতে। সে হুকুম মান্য করে আরব, কুর্দি, ইরানী,তুর্কী, বারবার ইত্যাদি নানা ভাষার মুসলিমগণ একতা গড়েছিল। বিলুপ্ত করেছিল তাদের মাঝে ভাষার নামে গড়ে উঠা বহু হাজার বছরের পুরনো দেয়াল। ফলে মুসলিমগণ সেদিন গৌরব পেয়েছিল বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী রাষ্ট্রের। 

কবিরা গুনাহ হলো মহান আল্লাহর সে হুকুম অমান্য করে ভাষা, বর্ণ ও এলাকার নামে অখণ্ড মুসলিম ভূমিকে খণ্ডিত করা। সে গুনাহর শাস্তির ঘোষণাটি শোনানো হয়েছে সুরা আল ইমরানের ১০৫ নম্বর আয়াতে। অথচ সে কবিরা গুনাহটি আরবগণ করেছে ১৯১৭ সালে ২২ টুকরায় বিভক্ত হয়ে। সে কবিরা গুনাহর শাস্তিও তাদের নিস্তার দেয়নি। ধ্বংসের আগুন জ্বলছে সমগ্র মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে। আরবগণ লাগাতর শাস্তি পাচ্ছে ইহুদী, মার্কিনী ও রুশদের হাতে অধিকৃত হয়ে। তারা নিজ দেশে যেমন বোমার আঘাতে হাজার হাজার মরছে, তেমনি অপমানিত হচ্ছে নানা দেশের পথে ঘাটে উদ্বাস্তু রিফিউজী হয়ে।

বাঙালী মুসলিমগণ মুজিবের নেতৃত্বে সে কবিরা গুনাহটি করেছে পাকিস্তান ভাঙ্গার কাজে ১৯৭১ সালে ভারতীয় কাফেরদের দলে ভিড়ে। সে গুনাহর শাস্তি রূপে এখন তারা পরিণত হয়েছে ভারতের গোলাম রাষ্ট্রে। সে গোলামীর সাথে মুজিব আমলে জুটেছিল বিশ্বমাঝে ভিক্ষার তলাহীন ঝুলির অপমান। বিশ্বমাঝে এরূপ অপমানও কি কম শাস্তি? এরূপ অপমান বাঙালী মুসলিমদের কোন কালেই সইতে হয়নি। আরেক অপমান হলো, ভারতের পক্ষ থেকে চাপিয়ে দেয়া ভোট-ডাকাতকেও এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলে শ্রদ্ধা জানাতে হচ্ছে। কোন সভ্য জাতি কি সেটি করে। অথচ দুনিয়ার সর্ববৃহৎ মুসলিম রাষ্ট্র পাকিস্তানের তিন বার প্রধানমন্ত্রী হয়েছিল বাঙালী মুসলিম। কায়েদে আযমের মৃত্যুর পর সে আসনে বসেছিল বাঙালী মুসলিম খাজা নাযিমুদ্দীন। 

নিজেদের কবিরা গুনাহকে জায়েজ করতে বাঙালীদের মুখে মুখে পশ্চিম পাকিস্তানীদের বিরুদ্ধে নানারূপ দোষের কথা। যেন বাঙালীরা নিজে ও তাদের ভারতীয় কাফের বন্ধুরা ফেরেশতা। তারা্ যে বহু লক্ষ বিহারীদের ঘরাড়ি ও ব্যবসা-বাণিজ্য কেড়ে নিয়ে পথে বসালো এবং হাজার হাজার বিহারীকে হত্যা করলো এবং বিহারী মহিলাদের ধর্ষণ করলো -সে কথা এসব ফেরেশতারা কখনোই মুখে আনে না। অথচ এসবও ইতিহাস। সে ইতিহাস বাঙালীদের পড়ানো না হলেও বিশ্বের বহু দেশে তা পড়ানো হয়।

আরবগণও ১৯১৭ সালে তুর্কি মুসলিমদের দোষ খুঁজেছিল এবং ঔপনিবেশিক ইংরেজদের ফেরশতা মনে করে গলা জড়িয়ে ধরেছিল। লক্ষণীয় হলো, তুর্কিদের বিশ্বমাঝে ইজ্জত বেড়েছে। তারা যে কোন আরব রাষ্ট্রের চেয়ে শক্তিশালী। পারমানবিক অস্ত্রধারী হওয়ার কারণে পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী মুসলিম রাষ্ট্র রূপে পাকিস্তানেরও ইজ্জত বেড়েছে। তুরস্ক ও পাকিস্তান –উভয় দেশেই গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। উভয় দেশেই একাধীক বর্ণ ও ভাষাভাষী মানুষের সভ্য সহ-অবস্থান। অথচ সে সভ্য আচরন বিহারীরা বাংলাদেশে পাইনি।  অথচ এসব কথা বাঙালীরা মুখে আনে না। প্রশ্ন হলো, কবিরা গুনাহর আসামী আরব ও বাঙালী মুসলিমদের ইজ্জতও কি বেড়েছে? পেয়েছে ফ্যাসিবাদমুক্ত গণতন্ত্রের স্বাদ? দর্জির কাজ, চিংড়ি মাছ আর বিদেশীদের ঘরে নারী রপ্তানী বাড়িয়ে কি ইজ্জত মেলে? এসব নিয়ে আল্লাহর কাছে হিসাব দেয়ার আগে নিজেদেরই হিসাব নেয়া উচিত।          

৬.
ইসলামের পরাজয় দেখার বেদনাটি অতি তীব্র। দেহের ব্যাথা ঔষধে সারে, কিন্তু হৃদয়ের এ ব্যথা সারে না। মুসলিম ভূমিতে শরিয়তের বিচার না থাকাটি মহান আল্লাহতায়ালার বিধানের এক বিদনাদায়ক পরাজয়। সে পরাজয়টি প্রতিটি মুসলিম দেশে।  সে পরাজয় বাংলাদেশেও। শরিয়তী বিধান ছাড়া প্রতিটি বিধানই হারাম। অথচ সে হারাম বিধান বিজয়ী মুসলিম দেশগুলিতে।  এতে আনন্দ বেড়েছে শয়তানের। এটি কি কম দুঃখের? একজন ঈমানদার মহান আল্লাহতায়ালার বিধানের এরূপ পরাজয় মেনে নেয় কি করে?

মৃত দেহে ব্যথা থাকে না। তেমনি ইসলামের পরাজয় নিয়ে ব্যথা থাকে না মৃত ঈমানেও। মহান আল্লাহর শরিয়তী বিধানের পরাজয় নিয়ে তাই মুসলিমদের মাঝে কোন মাতম নাই। মাতম নাই বাঙালী মুসলিমদেরও।

৭.
যারা মহান আল্লাহতায়ালার প্রকৃত আশেক (আল্লাহপ্রেমী) তারা যুদ্ধ করে এবং সে যুদ্ধে প্রাণ দেয় আল্লাহর ইচ্ছা পূরণে। আল্লাহতায়ালা তো চান শরিয়তের প্রতিষ্ঠা। অথচ ভূয়া আশেকদের সে ভাবনা নাই। তাদের এজেন্ডা স্রেফ নিজেদের বাণিজ্য ও পসার বৃদ্ধি।

৮.
আবরারকে যারা হত্যা করলো তারা কোন পতিতা পল্লী বা ডাকাত পাড়ায় বেড়ে উঠেনি।তারা শিক্ষা নিয়েছে নটারডাম ও বুয়েটে। বাংলাদেশের শিক্ষা নীতি যে কতটা ব্যর্থ এ হলো তার প্রমান। এ শিক্ষা নীতি ছাত্রদের পরীক্ষায় ভাল নম্বর পেতে শেখায়, কিন্তু শেখায় না চরিত্রবান ভাল মানুষ রূপে বেড়ে উঠতে। পরীক্ষায় ভাল নম্বর পাওয়া এবং চরিত্রবান মানব রূপে বেড়ে উঠা যে এক নয় -সে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি গুরুত্ব পায়নি বাংলাদেশের শিক্ষানীতিতে।   

৯.
সব সময় মহান আল্লাহতায়ালার যিকির নিয়ে না বাঁচার বিপদটি ভয়ানক। তখন ঘাড়ের উপর মহান আল্লাহতায়ালা শয়তান বসিয়ে দেন। শয়তানের কাজ হয় তাকে বিভ্রান্ত করা। তখন তার জীবনের পথচলাটি হয় জাহান্নামের পথে। সে হুঁশিয়ারিটি শোনানো হয়েছে সুরা জুখরূফের ৩৬ নম্বর আয়াতে।

শয়তানের হাতে অধিকৃত হওয়ার মহাবিপদ থেকে বাঁচতে প্রকৃত মুসলিমকে তাই প্রতি কর্মে, প্রতি পেশায় এবং জীবনের প্রতিক্ষণে আল্লাহতায়ালার যিকির বা স্মরণকে সাথে নিয়ে চলতে হয়। সেটি যেমন রাজনীতিতে, তেমনি বুদ্ধিবৃত্তি, শিক্ষা-সংস্কৃতি ও অর্থনীতিতে। রাজনীতিতে মহান আল্লাহতায়ালার সে যিকির বা স্মরণটি হলো তাঁর শরিয়তি আইন প্রতিষ্ঠার লাগাতর ফিকির ও প্রচেষ্টা। মুসলিম জীবনে সেটিই জিহাদ। একজন মুসলিমের পক্ষে রাজনীতিতে তাই ইসলামী চেতনাশূণ্য সেক্যুলার হওয়া অসম্ভব। কারণ, সেক্যুলার রাজনীতির অর্থই হলো মন থেকে ইসলামের প্রতি সর্বপ্রকার অঙ্গিকারকে বিদায় দেয়া। সে রাজনীতিতে ইসলামের প্রতি অঙ্গিকার চিহ্নিত হয় সাম্প্রদায়িকতা রূপে।

১০

বাংলাদেশে যারা ইসলামের নামে রাজনীতি করে তাদের একটি বিষয় পরিষ্কার করা উচিত। তারা কি শরিয়তের প্রতিষ্ঠা চায়? সেটি চাইলে এই একটি মাত্র বিষয়ে তারা কেন একতাবদ্ধ হতে পারে না? তাছাড়া শরিয়তের প্রতিষ্ঠা লক্ষ্য না হলে -সে রাজনীতি ইসলামী হয় কি করে? আওয়ামী লীগ ও বিএনপি –এ দুটি দলই সেক্যুলার দল। শরিয়তের প্রতিষ্ঠার বিষয়টি তাদের কোন এজেন্ডা নয়। তারা চায় দুনিয়ার কাফের মোড়লদের কাছে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা বাড়িয়ে রাজনীতি করতে। শরিয়তের কথা মুখে আনলে সেটি বিনষ্ট হবে। আল্লাহতায়ালার কাছে গ্রহণযোগ্য হওয়া তাদের কাছে কোন এজেন্ডা নয়। অতএব এ দুটি দলের রাজনীতির সাথে একাত্ম হয়ে কি শরিয়তের প্রতিষ্ঠা সম্ভব? বৃহৎ দু’টি সেক্যুলার দলের সহযোগী হয়ে তাদের নিজেদের স্বার্থসিদ্ধি হতে পারে, কিন্তু ইসলামের সাথে সেটি যে প্রচন্ড গাদ্দারি -তা নিয়ে কি কোন সন্দেহ থাকে? এমন গাদ্দারির কারণেই শরিয়ত প্রতিষ্ঠার কাজে বাংলাদেশে কোন অগ্রগতি হয়নি।

১১.

দেশ থেকে ঔপনিবেশিক কাফেরদের শাসন শেষ হয়েছে। কিন্তু ইউরোপীয় সাম্রাজ্যবাদীদের ভয় এখনও মুসলিমদের মনে রয়ে গেছে। ফলে মুসলিমগণ রাজনীতিতে থাকলেও তাদের সে রাজনীতিতে শরিয়ত প্রতিষ্ঠার কোন আন্দোলন নাই। অথচ সেটি মুসলিম রাজনীতির অতি গুরুত্বপূরর্ণ বিষয়। তাদের ভয়, শরিয়ত প্রতিষ্ঠার কথা বললে তাদের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদী প্রভুদের ক্রোধ বাড়বে। বাংলাদেশীদের ভয়, তাতে ক্রোধ বাড়বে ভারতেরও। তেমন একটি ভয়ের কারণেই অনেক গুলি ইসলামী দলও শরিয়তের কথা মুখে আনে না। শরিয়ত প্রতিষ্ঠা নিয়ে তারা কোন আন্দোলনেও নামে না। তারা ভয় করে সাম্রাজ্যবাদী কাফেরদের, আল্লাহতায়ালাকে নয়। অথচ মহান আল্লাহতায়ালার হুকুমঃ “লা তাখশাওহুম, আখশাওনি” অর্থঃ তাদের ভয় করো না, আমাকে ভয় কর”। ১০/১১/২০১৯

 




যে ভয়ংকর নাশকতা বাংলাদেশের শিক্ষানীতিতে

হাতিয়ার দেশধ্বংস ও চরিত্রধ্বংসের

বাংলাদেশে সবচেয়ে ভয়ংকর নাশকতাটি কৃষি, শিল্প, বাণিজ্য বা অর্থনীতিতে হচ্ছে না। বরং সেটি হচ্ছে শিক্ষাঙ্গণে। জীবননাশী সবচেয়ে হিংস্র জীবগুলো বাংলাদেশের বনেজঙ্গলে বেড়ে উঠেনি, বেড়ে উঠেছে কলেজ­-বিশ্ববিদ্যালয়ে। মানবরূপী যে পশুগুলো আবরার ফাহাদ ও বিশ্বজিং দাশের ন্যায় ছাত্রদের জীবন কেড়ে নিচ্ছে তারা বন-জঙ্গল থেকে বেরুয়নি, পতিতাপল্লী বা ডাকাত পাড়া থেকেও আসেনি। বরং এসেছিল কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস থেকে। অনেকে পড়াশুনা করেছে নটারডেম কলেজ ও বুয়েটের ন্যায় দেশের শ্রেষ্ঠতম প্রতিষ্ঠানে। বাংলাদেশের বনেজঙ্গলে হিংস্রপশুর সংখ্যা কমে গেলে কি হবে, দেশে মানবরূপী এ পশুদের সংখ্যা পঙ্গপালের ন্যায় বেড়েছে। বাংলাদেশ যে কারণে এ শতাবন্দীর শুরুতে বিশ্বমাঝে দূর্নীতিতে পর পর ৫ বার প্রথম স্থান অধিকার করেছিল -সেটি দেশের জলবায়ু,মাঠ-ঘাট ও আলোবাতাসের কারণে নয়। মানুষ কি খায়, কি পান করে বা কি পরিধান করে –সে কারণেও নয়। বরং কারণটি হলো দেশের শিক্ষা­ব্যবস্থা। দেশের মানুষ কীরূপ ধ্যান-ধারণা ও চরিত্র নিয়ে বেড়ে উঠবে, কীরূপ সংস্কৃতি নির্মিত হবে বা দেশ কোন দিকে যাবে -সে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি তো নির্ধারিত হয় দেশের শিক্ষানীতি থেকে।

দুর্বৃত্ত মানুষের কদর্য চরিত্র দেখে নিশ্চিত বলা যায়, তার জীবনে সুশিক্ষা লাভ হয়নি। তেমনি একটি জাতি যখন দুর্বৃত্তিতে বার বার বিশ্বরেকর্ড গড়ে তখন এ বিষয়টি আর গোপন থাকে যে, দেশে সুশিক্ষার ব্যবস্থা নাই। এরূপ বিশ্বজোড়া কুকীর্তির ইতিহাস গড়ার কাজটি দেশের দুয়েক হাজার মানুষের কাজ নয়। বরং এর সাথে জড়িত লক্ষ লক্ষ ডিগ্রিধারি ও লক্ষ লক্ষ পদবীধারি মানুষ। বাংলাদেশে শিক্ষার নামে যা কিছু হয়েছে বা হচ্ছে তা হলো, দেশধ্বংস ও চরিত্র ধ্বংসের হাতিয়ার রূপে শিক্ষা নীতি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির ব্যবহার। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষণা হলো,“নিশ্চয়ই আল্লাহ কোন জাতির অবস্থা পরিবর্তন করেন না যতক্ষণ না তারা নিজেরাই নিজেদের পরিবর্তনের কাজটি সমাধা না করে।” এ পবিত্র আয়াতের অর্থ দাঁড়ায়, রাষ্ট্রীয় পরিবর্তন বা বিপ্লবের কাজটি উপর থেকে চাপিয়ে দিয়ে হয় না, সেটির শুরু জনগণের স্তর থেকে হতে হয়। তাই যে জাতি বিপ্লব আনতে চায়, বিপ্লব আনে শিক্ষায়। এভাবেই বিপ্লবের জন্ম হয় শিক্ষাঙ্গণে। সে বিপ্লব ইসলামের পথে শুরু হলে মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকেও তখন সাহায্য জুটে। অথচ বাংলাদেশের শিক্ষাঙ্গণে সে কাজটি শুরু করা দূরে থাক, তা নিয়ে আদৌ ভাবা হয়নি।

সুশিক্ষায় মানুষ যেমন সত্যপথ পায় এবং সততা নিয়ে বেড়ে উঠে, কুশিক্ষায় তেমনি পথভ্রষ্ট হয় ও দুর্বৃত্ত রূপে বেড়ে উঠে। মানব জীবনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অর্জনটি হলো হেদায়াত লাভ। সেটি না পেলে প্রতিপদে, প্রতিকর্মে ও প্রতি সিদ্ধান্তে আসে ভ্রষ্টতা। সে ব্যর্থতা জাহান্নামে নিয়ে পৌঁছায়। সম্পদ-লাভ,সন্তান-লাভ বা ক্ষমতা-লাভ দিয়ে এ ব্যর্থতা দূর করা যায় না। তাই নামাজের প্রতি রাকাতে মহান আল্লাহর নাযিলকৃত যে দোয়া পাঠটি বাধ্যতামূলক, সেটি সন্তানলাভ, সম্পদলাভ, চাকুরিলাভ বা স্বাস্থ্যলাভের দোয়া নয়, বরং সিরাতুল মোস্তাকীম লাভের দোয়া। সে সাথে পাঠ করতে হয় পথভ্রষ্টতা থেকে বাঁচার দোয়া। এজীবনে প্রতি পদেই তো পরীক্ষা। সে পরীক্ষাটি হয় কে হেদায়েত পেল এবং কে পথভ্রষ্টতা থেকে বাঁচলো তা থেকে। সে পরীক্ষায় পাশের জন্য ব্যক্তির আন্তরিক প্রচেষ্ঠার সাথে জরুরী হলো আল্লাহর সাহায্য। মানব জীবনে হেদায়াত লাভের চেয়ে অধিক গুরুত্বপূর্ন কোন ইস্যু যেমন নেই, সে হেদায়াত লাভে মহান রাব্বুল আলামীনের কাছে দোয়ার চেয়ে কোন গুরুত্বপূর্ণ দোয়াও নেই। এবং শিক্ষার মূল কাজটি হলো, হেদায়াত লাভের সামর্থ্য বাড়ানো। কোনটি জাহান্নামের পথ, সুশিক্ষা সেটি চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়া।পথভ্রষ্টতা থেকে বাঁচার উপায়ও বলে দেয়। বিদ্যাশিক্ষার প্রকৃত গুরুত্ব তো এখানেই।

 

অধিকৃত শিক্ষাঙ্গণ

ইসলামের বিপক্ষ শক্তির হাতে বাংলাদেশের রাজনীতি, সংস্কৃতি, আইন-আদালত, পুলিশ ও প্রশাসনই শুধু অধিকৃত হয়নি, অধিকৃত হয়েছে দেশের শিক্ষাঙ্গণও। সে অধিকৃতিটা শুধু শিক্ষানীতি, সিলেবাস বা  পাঠ্যপুস্তকের উপর নয়, বরং সেটি আরো ব্যাপক ও বহুমুখি। ১৭ কোটি মুসলমানের দেশে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস,পরিণত হয়েছে বিদেশী ধ্যান-ধারণা, বিদেশী সংস্কৃতি, বিদেশী মূল্যবোধের চারণভূমি। সেক্যুলারিজম, জাতীয়তাবাদ, ফ্যাসিবাদ ও সমাজতন্ত্রের ন্যায় ভ্রষ্ট মতবাদগুলো যতটা প্রতিষ্ঠা পেয়েছে ইসলাম তা পায়নি। আর সে অধিকৃতিটা বাড়াতে শত্রুশক্তির বিনিয়োগও বিশাল। সে বিনিয়োগের ফলে ইসলামের শত্রুপক্ষ সৈনিক রূপে পেয়েছে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজার হাজার শিক্ষক ও ছাত্র।

শত্রুপক্ষের এ সৈনিকেরা ইসলামের মধ্যে নিজেদের মৃত্যু দেখতে পায়। ফলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মত বহু প্রতিষ্ঠানে ইসলামের পক্ষে কথা বলা, মিছিল করা ও সংগঠিত হওয়াকে তারা অসম্ভব করে রেখেছে। অধিকৃত এ ভূমিতে ইসলামের পক্ষে কথা বলার অর্থ যুদ্ধ শুরু করা। যারা ইসলামের পক্ষে কথা বলে তাদেরকে জঙ্গি বলা হয়। বহু ছাত্রকে শুধু ইসলামের পক্ষে কথা বলার জন্য কাম্পাসে লাশ হতে হয়েছে। জেলে যেতে হয় কাছে ইসলাম-বিষয়ক বই রাখার অপরাধে। জাহাঙ্গির নগর বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় প্রতিষ্ঠানে হিজাব পড়ে ছাত্রীদের ক্লাসে যোগ দেয়াও কঠিন হয়ে পড়েছে। গ্রেট ব্রিটেন,আমেরিকার যুক্তরাষ্ট্র, এমন কি ভারতেও অবস্থা এতটা নাজুক নয়, যতটা বাংলাদেশে। বিদ্যাশিক্ষার এ অধিকৃত ভূমিতে বেড়েছে অশ্লিলতা, বেড়েছে নারী-পুরুষের অবাধ মেলামেশা, বেড়েছে ড্রাগ-মদের ব্যবহার, বেড়েছে সন্ত্রাস ও চুরিডাকাতি, বেড়েছে ধর্ষণ। এমনকি ধর্ষনের সেঞ্চুরি উৎসবও হচ্ছে। যেমনটি নব্বইয়ের দশকে জাহাঙ্গির নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ কর্মীদের দ্বারা হয়েছিল।   

শিক্ষকের মর্যাদা ইসলামে অতি মহান। শিক্ষকের সে পবিত্র আসনে বসেছেন মহান নবী-রাসূলগণ। সমগ্র মানব ইতিহাসে বস্তুত তারাই তো সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষক। তাদের সে শিক্ষার কারণেই মানুষ যুগে যুগে সত্যপথ পেয়েছে। পেয়েছে উচ্চতর মানবতা,পেয়েছে পাপপঙ্কিলতা থেকে মুক্তি,পেয়েছে মহামানব রূপে বেড়ে উঠার পথ। এবং তখন নির্মিত হয়েছে উচ্চতর সভ্যতা। নবীজী(সাঃ) আগমনে আরবে কৃষি বা শিল্পে বিপ্লব আসেনি,জলবায়ু বা আলোবাতাসেও কোন পরিবর্তন আসেনি। বরং বিপ্লব এসেছিল তাদের চেতনায় এবং চরিত্রে। মানুষ এভাবে পাল্টে যাওয়ার কারণে মহান আল্লাহও তাদের ভাগ্য পাল্টে দেন। তাদের সে বিপ্লবের মূলে ছিল কোরআনী শিক্ষা। মুসলমানগণ সে শিক্ষা থেকে যতই দূরে সরেছে ততই নীচে নেমেছে। নীচে নামতে নামতে আজ  বিশ্বে সবচেয়ে পরাজিত ও অধ্বঃপতিত জাতিতে পরিণত হয়েছে।

 

জিম্মি পথভ্রষ্টদের কাছে

শিক্ষাকে কল্যাণকর করার লক্ষ্যে অরিহার্য হলো সরকারের রাজনৈতীক অঙ্গিকার। সে অঙ্গিকারটি হতে হবে সিরাতুল মোস্তাকীমে চলায়। সমাজতন্ত্রি বা সেক্যুলারিস্টগণ কখোনই দেশের শিক্ষাখাতকে ইসলামিস্টদের হাতে দেয় না। কারণ তাতে সমাজতন্ত্র, ফ্যাসিবাদ বা সেক্যুলারিজম বাঁচে না। তেমনি কোন মুসলিম দেশের শিক্ষাখাতকে সমাজতন্ত্রি বা সেক্যুলারিস্টদের হাতে দিলে ইসলামও বাঁচে না। মশামাছি যেমন রোগ ছড়ায়, পথভ্রষ্ট শি্ক্ষক ও বুদ্ধিজীবীগণও তেমনি রোগ ছড়ায় ভ্রষ্ট চিন্তা-চেতনার। এভাবেই ভ্রষ্টতা আনে কোমলমতি ছাত্রদের জীবনে। বাংলাদেশের কলেজ-বিশ্ববিদ্যায়গুলোতে লম্পট, ধর্ষক, সন্ত্রাসী, সমাজতন্ত্রি, জাতীয়তাবাদী ও সেক্যুলারিস্টগণ যেভাবে পঙ্গপালের মত বেড়ে উঠেছে -তা তো শিক্ষাক্ষেত্রে এরূপ জীবাণু বিস্তারের কারণেই। এরূপ পথভ্রষ্টদের দিয়ে বড় জোর কৃষিবিদ, প্রকৌশলী, চিকিৎস্যক বা রাস্তার ঝাড়ুদারের কাজ করানো যায়, কিন্তু শিক্ষাদানের কাজও কি চলে? সেটি চলে না বলেই ১৯৭৯ সালে বিপ্লবের পর ইরানের সরকার কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের দরজায় ৩ বছরের জন্য তালা ঝুলিয়ে রেখেছিল। এতে বহু হাজার ছাত্র পথভ্রষ্ট শিক্ষদের হাতে জাহান্নামের যাত্রী হওয়া থেকে বেঁচেছিল। অথচ এমন পথভ্রষ্ট শিক্ষকেদের হাতেই বাংলাদেশের ছাত্ররা জিম্মি। শক্তিশালী সেনাবাহিনী দিয়ে অন্য দেশ দখলে নেয়া যায়। কৃষি, শিল্প ও বাণিজ্য বাড়িয়ে অর্থনীতিও সমৃদ্ধ করা যায়। কিন্তু দেশবাসীর ঈমান-আমল ও চরিত্র বাঁচাতে হলে শিক্ষাব্যবস্থাকে অবশ্যই ইসলামী করতে হয়।

মুসলমানদের জীবনে পরাজয় ও বিপর্যয়ের তখন থেকেই শুরু, যখন শিক্ষার ন্যায় গুরুত্বপূর্ণ খাতটি অধিকৃত হয় পথভ্রষ্টদের হাতে। বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠার পর থেকেই শিক্ষাখাতের উপর তাদের দখলদারি। সেটি মুজিব আমল থেকেই। মুজিবের হাতে দেশের শিক্ষানীতির মূল লক্ষ্যটি ছিল ইসলামবিনাশ। কারণ মুজিব নিজেই ছিলেন পথভ্রষ্টতার শিকার। সে পথভ্রষ্টতা তার জীবনে যে কতটা গভীর ছিল সেটি ধরা পড়ে জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, সেক্যুলারিজমের ন্যায় ইসলাম-বিরোধী ভ্রষ্ট মতাবাদের প্রতি তাঁর দীক্ষা থেকে। সেটি আরো প্রকটতর হয় তাঁর বাকশালী স্বৈরাচার ও কাফেরদের সাথে ঘনিষ্ঠতা থেকে। অথচ কাফেরদের সাথে বন্ধুত্বের ব্যাপারে মহান আল্লাহতায়ালার নির্দেশনা হলো,“মু’মিনগণ যেন মুমিনদের ব্যতীত কাফিরদের বন্ধুরূপে গ্রহণ না করে। যারা এরূপ করবে তাদের সাথে আল্লাহর কোন সম্পর্ক থাকবে না।” –(সুরা আল ইমরান, আয়াত ২৮)। মুজিব এখানে বিদ্রোহ করেছেন মহান আল্লাহর এ কোরআনী হুকুমের বিরুদ্ধে। সে বিদ্রোহের পথ বেয়েই তিনি দিল্লির কাফের শাসকদের কোলে গিয়ে উঠেছেন, অপরদিকে নিজ দেশের ইসলামপন্থিদের জেলে তুলেছেন।

সত্যকে সত্য, মিথ্যাকে মিথ্যা এবং দুর্বৃত্তকে দুর্বৃত্ত বলার সামর্থ্য সবার থাকে না। অথচ সত্য ও সত্যবাদী সৎ ব্যক্তিকে ভালবাসা এবং মিথ্যা ও মিথ্যাবাদী দুর্বৃত্তকে ঘৃণা করার সামর্থ্যটুকুই মানব জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ সামর্থ্য। এ সামর্থ্য না থাকলে ঈমানদার হ্‌ওয়া যায় না। এবং সে সামর্থ্য বাড়ানোর জন্য চা্ই ইসলামী শিক্ষা। চাই চারিত্রিক বল। নমরুদ,ফিরাউন,আবু জেহেল ও আবু লাহাবের মত দুর্বৃত্তকে দুর্বৃত্ত রূপে চেনার সামর্থ্য তৎকালীন সংখ্যাগরিষ্ঠদের ছিল না। কারণ, যে শিক্ষা থেকে সে সামর্থ্য সৃষ্টি হয় -তা তাদের জুটেনি্। ফলে সে চারিত্রিক বলও তাদের গড়ে উঠেনি। এখানে অভাব ছিল ওহী-প্রদত্ত জ্ঞানের। একই ভাবে সে সামর্থ্য-অর্জন অসম্ভব হয়েছে বাংলাদেশের সেক্যুলার শিক্ষাব্যবস্থায় শিক্ষিত বিপুল সংখ্যক মানুষের জীবনে। ফলে যে ব্যক্তি বাকশালী স্বৈরাচার প্রতিষ্ঠা করলো, দেশজুড়ে দুর্নীতির প্লাবন সৃষ্টি করলো, নিষিদ্ধ করলো সকল ইসলামি সংগঠন এবং ভারতের আজ্ঞাবহ গোলামীই যার রাজনীতির মূল বৈশিষ্ঠ -সে ব্যক্তিকে ঘৃনা করার সামর্থ্যও বাংলাদেশের শিক্ষিতদের মাঝে সৃষ্টি হয়নি। বরং সৃষ্টি হয়েছে ডিগ্রিধারি এমন বহুলক্ষ মানুষ যারা তাঁকে দেশের বন্ধু এবং জাতির পিতা বলে সম্মান দেখায়। এমন একটি দেশের অফিস-আদালত,পুলিশ বিভাগ, প্রশাসন, ব্যাংক, রাজনৈতীক সংগঠন, পার্লামেন্ট, প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর দফতর, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ব্যাবসা-বাণিজ্য ভয়ানক দুর্বৃত্তদের দিয়ে পূর্ণ হয়ে উঠবে -সেটিই কি স্বাভাবিক নয়?

 

শয়তান যেখানে শিক্ষকের বেশে

জনগণ জান্নাতে যাবে না জাহান্নামে যাবে -সেটি নির্ধারণে শিক্ষার প্রভাব বিশাল। জাহান্নামের আগুণ থেকে জনগণকে যারা বাঁচাতে চায় তারা তাই শিক্ষা-সংস্কারে হাত দেয়। আবির্ভুত হন শিক্ষকের বেশে। নবীগণও আজীবন শিক্ষক ছিলেন। একই কারণে শয়তানও ক্ষেতেখামারে বা কলকারখানায় বসে না। সেও শিক্ষকের বেশ ধরে বিদ্যালয়ে বসে। ছাত্রদের পথভ্রষ্ট করে এবং জাহান্নামে টানে। পুতুল পূজাকে বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থে মন্দিরের হিন্দু পুরোহিতগণ তাই বিদ্যাদানের কাজকে শত শত বছর নিজ দায়িত্বে রেখেছিল। একই কাজ করেছে গীর্জার পাদ্রীরা। পথভ্রষ্টতা বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থে বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদী, সমাজতন্ত্রি ও সেক্যুলারিস্টরাও তাই শিক্ষামন্ত্রালয়ের উপর নিজেদের দখলদারি প্রতিষ্ঠা করে রেখেছে।

আল্লাহর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ বাড়াতে অতীতে শেখ মুজিবও শিক্ষাকে হাতিয়ার রূপে ব্যবহার করেছেন। সে লক্ষ্য পুরণে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর পরই শেখ মুজিব শিক্ষানীতির প্রণোয়নের দায়িত্ব দেন ড. কুদরতে খুদার নেতৃত্বে গঠিত একটি কমিটির উপর। এ কমিটির মূল লক্ষ্য ছিল এমন এক শিক্ষানীতি প্রণোয়ন যা সফলতা দিবে ছাত্রদেরকে ইসলামে অঙ্গিকারহীন করায়। তাই সে শিক্ষানীতির কোথাও বলা হয়নি, এ শিক্ষাব্যবস্থা ছাত্রদের মুসলিম রূপে বেড়ে উঠতে সাহায্য করবে। অথচ মুসলিম তার সন্তানকে শিক্ষা দেয় শুধু তার উপার্জন বাড়াতে নয়, বরং ঈমান বাড়াতে। এবং ঈমান বাড়লেই জাহান্নামের আগুণ থেকে বাঁচে। অথচ কুদরতে খুদা শিক্ষা কমিশনে বলা হয়,“নতুন সমাজতান্ত্রিক সমাজ সৃষ্টির প্রেরণা সঞ্চারই শিক্ষাব্যবস্থার প্রধান দায়িত্ব ও লক্ষ্য”–(অধ্যায় ১:১)। আরো বলা হয়,“শিক্ষার মাধ্যমে জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতাবোধ শিক্ষার্থীর চিত্তে জাগ্রত ও বিকশিত করে তুলতে হবে এবং তার বাস্তব জীবনে যেন এর সম্যক প্রতিফলন ঘটে সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে।”–(অধ্যায় ১:২)। ফলে ষড়য্ন্ত্র হয় শিক্ষানীতিকে ভয়ংকর নাশকতার হাতিয়ার রূপে গড়ে তোলা। এটিই ছিল শেখ মুজিবের রাজনীতির অন্যতম বড় নাশকতা।

শেখ মুজিবের মৃত্যুর পর রাজনৈতীক পট পাল্টে যায়, ছেদ পড়ে সে শিক্ষানীতির বাস্তবায়নেও। শেখ হাসিনা দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসে কুদরতে খুদা কমিশন কর্তৃক প্রণীত শিক্ষানীতির ইসলাম বিরোধী নীতি ও কৌশলগুলোকে আরো ধারালো ও ব্যাপক করার উদ্যোগ নেন। সে লক্ষ্যে একটি কমিটি বানানো হয়।সে কমিটির চেয়ারম্যান করা হয় অতি পরিচিত ইসলাম বিরোধী বুদ্ধিজীবী কবির চৌধুরিকে এবং কো-চেয়ারম্যান করা হয় ড. খলিকুজ্জামানকে। সে কমিটিতে নেয়া হয় জাফর ইকবালের ন্যায় আরেক ইসলামবিরোধী শিক্ষক ও লেখককে। কমিটি ০২/০৯/২০০৯ সালে তার চুড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করে। সে রিপোর্টে সুপারিশ করা হয়েছে সেক্যুলার শিক্ষার,বলা হয়েছে মাদ্রাসা শিক্ষার ১ম ও ২য় শ্রেণীতে বাধ্যতামূলক বিষয় রূপে থাকবে বাংলা,ইংরাজী এবং গণিত। এবং বাদ দিতে হবে আরবী। আরবীকে রাখা হয়েছে স্রেফ অতিরিক্ত বিষয় রূপে। মাধ্যমিক শিক্ষা থেকে বাদ পড়েছে ধর্মীয় ও নৈতীক শিক্ষা।কোরআন ও কোরআনের ভাষা শিক্ষার বিরুদ্ধে তাচ্ছিল্য আর কাকে বলে?

 

লক্ষ্য ক্যাডার তৈরী

কুদরতে খুদা কমিশন প্রণীত শিক্ষানীতির মূল লক্ষ্যটি ছিল, দেশের স্কুল­­­-কলেজ¸ বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদ্রাসাকে ভারতসেবীদের অবৈতনিক দলীয় ক্যাডার তৈরীর কারখানায় পরিণত করা। শিক্ষানীতির এটিই সোভিয়েত সোসালিস্ট রাশিয়ার মডেল। সে নীতির অন্যতম স্ট্রাটেজী হলো,রাষ্ট্রীয় প্রশাসনকে ধর্ম,ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব এবং ধর্মীয় সাহিত্য ও সংগঠনের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত করা। কম্যুনিস্ট বিপ্লবের শুরুতে রাশিয়ার বিশাল মুসলিম প্রধান এলাকায় বহু হাজার মসজিদ ও মাদ্রাসা ছিল। সেগুলোকে রাশিয়ার কম্যুনিস্ট সরকার ঘোড়ার আস্তাবলে পরিণত করে। ধর্মকে আফিম আখ্যায়ীত করে ইসলামচর্চাকে শাস্তিযোগ্য অপরাধে পরিণত করে। বাংলাদেশ সৃষ্টির পরপরই মুজিব সোভিয়ত রাশিয়ার অনুসারিতে পরিণত হন এবং সে সোভিয়েত নীতির বাস্তবায়ন শুরু করেন বাংলাদেশে। বিশেষ করে ধর্মের বিরুদ্ধে। সমাজতন্ত্রকে তিনি রাষ্ট্রীয় চার স্তম্ভের এক স্তম্ভে পরিণত করেন এবং নিষিদ্ধ করেন সকল ইসলামী দলগুলোকে। বন্ধকরে দেন সকল ইসলামি পত্র-পত্রিকা। বন্দী করেন ইসলামি দলসমুহের নেতাকর্মীদের। নিয়ন্ত্রিত করেন ইসলামের বই প্রকাশনা। রেডিও-টিভি ও পত্র-পত্রিকায় সংকুচিত হয় ইসলামের চর্চা।অথচ ক্ষমতাসীন হয়ে এমনটি যে তিনি করবেন,তা নিয়ে নির্বাচনি জনসভাগুলোতে জনগণকে কিছুই বলেননি?  

শিক্ষার শক্তি নিয়ে শয়তানী শক্তিরও কোন সন্দেহ নাই। শয়তানী শক্তি তাই মুসলিম দেশের মাঠঘাট, কলকারখানা, রাস্তাঘাট, ক্ষেতখামার, পশুপালন বা মৎস্যপালন নিয়ে ভাবে না। আল্লাহর দ্বীনের অনুসারিদের সাথে তার মূল যুদ্ধটি স্রেফ রণাঙ্গনে বা রাজনীতির ময়দানেও হয় না, বরং সেটি হয় শিক্ষানীতি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি দখলে নেয়ার ময়দানে। বাংলাদেশে সে যুদ্ধে এখন বিজয়ী শক্তি হলো শয়তানি শক্তি। বাংলাদেশের বুকে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য যারা একসময় লড়াই করতো,মস্কোপন্থি লেলিনবাদী হওয়া নিয়ে যাদের গর্ব ছিল, তাদের দখলে এখন বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রালয়। মুজিবের সাথে সে আমলের লেলিনবাদীদের যেমন ঐক্য গড়ে উঠেছিল, এখন সে অভিন্ন ঐক্য গড়ে উঠেছে এ আমলের লেলিনবাদীদের সাথে। ধর্মের নামে অধর্ম, সংস্কৃতির নামে অশ্লিলতা, সভ্যতার নামে নানা অসভ্যতা আজও  বিপুল প্রতিপত্তি নিয়ে বেঁচে আছে এবং দিন দিন যেরূপ শক্তিশালী হচ্ছে –তা তো দেশের শিক্ষাব্যবস্থা এরূপ ইসলামবিরোধী শক্তির হাতে অধিকৃত হ্ওয়ায়।

 

ঘরের শত্রু

মুসলিম ভুমি বার বার ইসলামের দুষমনদের হাতে বেদখল হয়েছে। কখনো বিদেশী শত্রুদের হাতে,কখনো বা ঘরের শত্রুদের হাতে। দেশী ও বিদেশী –এ উভয় প্রকার শত্রুই ইসলামের অনুসারিদেরকে নিজেদের জন্য সব সময়ই শত্রু মনে করেছে। অতীতে বিদেশী শত্রুদের হাতে দেশ দখলে যাওয়ায় দক্ষিণ এশিয়ার বুকে কলকারখানা বাড়েনি,কৃষি-উৎপাদনও বাড়েনি,বরং বেড়েছে দ্বীনের পথ থেকে দূরে ছিটকে পড়া পথভ্রষ্ট মানুষের উৎপাদন। ইসলাম থেকে দূরে সরানো লক্ষ্যে দেশের স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ব্যবহার করা ছিল তাদের প্রধানতম কৌশল। ঔপনিবেশিক বিদেশী শত্রুপক্ষ ১৯৪৭ সালে বিদায় নিয়েছে। কিন্তু তাদের দীর্ঘ শাসনের কারণে সৃষ্টি হয়েছে বিপুল সংখ্যক দেশীশত্রু। এসব দেশীরা কাজ করছে বিদেশী শত্রুদের খলিফা রূপে। ঔপনিবেশিক দেশগুলিও তাদের শাসিত কলোনিতে স্কুল­-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছিল। সেগুলির লক্ষ্য যতটা বিদ্যাদান ছিল তার চেয়ে বেশী ছিল মানসিক দাস উৎপাদন। ব্রিটিশ শিক্ষামন্ত্রি লর্ড ম্যাকলে ভারতে তাদের প্রণীত শিক্ষাব্যবস্থার কাঙ্খিত ফসলদের সম্পর্কে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে বলেছিলেন,“রক্ত-মাংসে ভারতীয় হলেও তারা চিন্তা-চেতনায় হবে ব্রিটিশ”। অর্থাৎ ইসলামের পথ থেকে দূরে সরা ও দেশবাসীকে দূরে সরানোর কাজে ব্রিটিশদের ন্যায় তারাও হবে আপোষহীন। এমন একটি শিক্ষানীতির লক্ষ্য ছিল,ভারতের ন্যায় উপনিবেশগুলোতে তাদের প্রত্যক্ষ শাসন শেষ হলেও তাদের সৃষ্ট মানসিক গোলামদের শাসন যেন থেকে যায়। সে নীতিটি ধরা পড়ে মিশরে ব্রিটিশ সরকারের প্রতিনিধি লর্ড ক্রোমারের কথায়। তিনি বলেছিলেন,“মুসলিম দেশগুলিতে সমচেতনার সেক্যুলার একটি শ্রেনী গড়ে না উঠা অবধি তাদের অধীনস্থ্ মুসলিম দেশগুলির স্বাধীনতা দেয়ার প্রশ্নই উঠে না।”

 

দাস-শাসন

লর্ড ম্যাকলে ও লর্ড ক্রোমারদের সে সাধ বৃথা যায়নি। মুসলিম দেশগুলি ঔপনিবেশিক প্রভূদের শাসন থেকে স্বাধীনতা পেলেও আজও  অধিকৃত রয়ে গেছে তাদের মানসিক গোলামদের হাতে। শুরু হয়েছে এক দাস-শাসন। তবে বাংলাদেশের মত দেশগুলিতে এসব দাসদের সবাই যে ঔপনিবেশিক ব্রিটিশের গোলাম -তা নয়। বরং কেউবা মার্কস-লেলিনের খলিফা, কেউবা দিল্লি ও ওয়াশিংটনের খলিফা। নামে মুসলিম হলেও তাদের চেতনায় মুসলিম হওয়ার দায়বদ্ধতার চেতনাটি শূণ্য। অথচ মুসলিম হওয়ার অর্থই হলো, একমাত্র মহান আল্লাহর খলিফা হয়ে যাওয়া এবং অন্যান্য শক্তির খলিফাদের বিরুদ্ধে লাগাতর যুদ্ধ লড়া। কিন্তু  বাংলাদেশে সেটি ঘটেনি। বিদেশী শক্তির এসব দেশী খলিফাদের হাতে বাংলাদেশের রাজনীতি, অর্থনীতি, প্রশাসন, ও আইন-আদালতই শুধু অধিকৃত হয়নি, অধিকৃত হয়েছে দেশের শিক্ষাব্যবস্থা ও শিক্ষালয়গুলোও। শিক্ষাব্যবস্থাকে তারা ব্যবহার করছে নিজেদের রাজনৈতীক ও সাংস্কৃতিক আধিপত্য প্রতিষ্ঠার কাজে। এসব খলিফাদের কারণে ঔপনিবেশিক আমলের ন্যায় আজও  অসম্ভব হয়ে আছে শরিয়তের প্রতিষ্ঠা। অসম্ভব হয়ে আছে ইসলামের শিক্ষা। বরং ইংরেজী ভাষা ও পাশ্চাত্যের সেক্যুলার জীবনবোধ, পোষাকপরিচ্ছদ ও সংস্কৃতি নতুন প্রজন্মের জীবনে আরো গভীর ভাবে জেঁকে বসেছে। সাবেক ঔপনিবেশিক শাসকগণ দায়িত্ব নিয়েছে তাদের এসব অনুগত খলিফাদের প্রতিরক্ষা দেয়ার। ফ্রান্সের সামরিক বাহিনী তাই উত্তর আফ্রিকার দেশ মালিতে ছুটে এসেছে ইসলামি বিপ্লবীদের হাত থেকে তাদের খলিফাদের শাসনকে বাঁচাতে। খলিফাদের বাঁচাতে মার্কিন বাহিনী ঘাঁটি আজও গেঁড়ে বসে আছে কাতার, কুয়েত, বাহরাইন, ওমান, সৌদি আরব, আফগানিস্তানসহ বহু দেশে । তেমনি ভারতও বাংলাদেশের অভ্যন্তরে তার নিজের খলিফাদের প্রতিরক্ষা দিতে দুই পায়ে খাড়া ।

তবে ইসলামের বিরুদ্ধে দুষমনিতে দেশীশত্রুরা কোন কোন ক্ষেত্রে বিদেশী শত্রুদেরও হার মানিয়েছে। ঔপনিবেশিক শাসন আমলে দেশের শিক্ষিতরা এতটা পাশ্চাত্যমুখি ছিল না। বিদেশী কাফেরগণ গায়ে ইসলামের লেবাস চাপিয়ে অধিকৃত দেশের মুসলিম জনগণকে ধোকা দেয়ার সুযোগ পায়নি। মুসলিম জনগণের কাছে এসব বিদেশী শাসকেরা পরিচিত পেয়েছিল বিদেশী কাফের রূপে। তাছাড়া তারা এসেছিল বহু হাজার মাইল দূরের অন্য মহাদেশ থেকে। সংখ্যায়ও ছিল অতি নগন্য। ফলে শক্তি থাকলেও জনগণকে নিয়ে তাদের মনে প্রচণ্ড ভয়ও ছিল। তাই ইসলামি চেতনা বিনাশে তারা প্রচণ্ড কৌশলী ছিল। কিন্ত ইসলামের দেশী শত্রুদের সে ভয় নাই। ঘরের ইঁদুর যত সহজে ভাণ্ডারে হানা দিতে পারে বাইরের চোর-ডাকাতেরা তা পারে না। শয়তান এজন্যই ইসলামের ক্ষতি সাধনে ঘরের ইঁদুরদের বেছে নেয়। হযরত ইমাম হোসনের হত্যায় এবং তার লাশের উপর ঘোড়া চালাতে এজন্যই শয়তান কোন কাফের-পুত্রকে বেছে নেয়নি, বেছে নিয়েছিল সাহাবী-পুত্র ইয়াজিদকে। তেমনি বাংলাদেশে ইসলামের ক্ষতিসাধনে ময়দানে নামানো হয়েছে মুসলিম সন্তানদের।

 

সবচেয়ে ভয়ংকর নাশকতা

শেখ মুজিব ও তার কন্যা হাসিনার হাতে বাংলার মুসলিমদের সবচেয়ে বড় ক্ষতিটি হয়েছে শিক্ষাক্ষেত্রে। মুজিব আমল থেকেই তার অনুসারিদের হাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের চত্ত্বরে ছাত্রদের লাশ পড়তে শুরু হয়। শুরু হয় টেন্ডারবাজি ও চাঁদাবাজি। শুরু হয় পরীক্ষায় সীমাহীন দূর্নীতি। নকলবাজির কারণে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা প্রহসনে পরিণত হয়। হাসিনার আমলে শুধু লাশ হওয়া নয়, ধর্ষণের সেঞ্চুরির রেকর্ডও নির্মিত হয়েছে। রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে স্কুলশিক্ষদের রাজপথে পুলিশ দিয়ে পিটানো ও তাদের চোখে মরিচের গুড়া নিক্ষেপের। বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ গুণ্ডাদের দিয়ে পিটানো হয়েছে প্রফেসরদের।বর্বরতার রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে পুলিশের সামনে ধারালো অস্ত্র দিয়ে বিশ্বজিত দাশের ন্যায় পথচারি হত্যায়। দেশের শিক্ষানীতি সন্ত্রাসী, ধর্ষক, চোরডাকাত ও খুনি উৎপাদনে কতটা সফল হয়েছে এ হলো তার নজির। পাকিস্তান আমলে কি এমনটি হয়েছে? সাম্রাজ্যবাদী ব্রিটিশ শাসনামলেও কি হয়েছে? সরকার আরেক রেকর্ড গড়েছে এসব অপরাধীদের বিচার না করে।

ছাত্রদেরকে দলীয় যোদ্ধা রূপে ব্যবহার করাটি পরিণত হয়েছে এক রাজনৈতীক শিল্পে। বিরোধী দলের কর্মীদের বিরুদ্ধে কে কতটা নির্দয় ও নিষ্ঠুর সেটির উপর ভিত্তি করে এসব লাঠিয়ালদের থেকেই নির্বাচিত হয় দলীয় নেতা। তারাই মনোনয়ন পায় নির্বাচনে। অনেককে মন্ত্রীও করা হয়। ফলে সন্ত্রাস, খুন ও চুরি-ডাকাতি ক্যাম্পাস থেকে উঠে এসেছে সংসদে ও মন্ত্রীপরিষদে। বিপর্যয় এসেছে চরিত্রে। ব্রিটিশের ১৯০ বছরের শোষণমূলক শাসনে বাংলার মুসলমানদের বিপুল আর্থীক ক্ষতি হলেও চরিত্রের ক্ষতিটি এতটা ব্যাপক হয়নি। ফলে সে সময় দুর্নীতিতে বিশ্বজুড়া বদনামও হয়নি। কারণ,তখনও দেশবাসী থেকে কোরআন-হাদীসের শিক্ষাকে এতটা কেড়ে নেয়া হয়নি যতটা নেয়া হয়েছে বাংলাদেশী আমলে। ইসলামি বইয়ের তল্লাশিতে তখন ঘরে ঘরে পুলিশ নামানো হয়নি। ব্রিটিশগণ মাদ্রাসা কারিকুলামে ইংরেজী শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করেনি, আরবীকে ঐচ্ছিক বা অতিরিক্ত বিষয়ও করেনি। অথচ বাংলাদেশের বর্তমান সরকার সেটি করেছে। মাদ্রাসার ছাত্রদের উপর ইংরাজী ভাষা বাধ্যতামূলক করার অর্থ কি মাদ্রাসা শিক্ষাকে সমৃদ্ধ করা?  লক্ষ্য কি ছাত্রদের যোগ্যতা বৃদ্ধি? এতে বাড়বে কি চারিত্রিক গুণাবলি? ইংরাজী ভাষা বাংলাদেশের স্কুল-কলেজগুলোতে শতাধিক বছর ধরে বাধ্যতামূলক,কিন্তু তাতে ছাত্রদের চারিত্রিক বল কতটুকু বেড়েছে? যেসব দুর্বৃত্তগণ অফিস-আদালত, রাজনীতি,ছাত্র-রাজনীতি ও ব্যবসা-বাণিজ্যকে দখলে নিয়েছে তারা কি মাদ্রাসা-শিক্ষিত? মাদ্রাসা-শিক্ষার দুর্বলতা কি আরবী ভাষা শিক্ষা? অথচ আরবী হলো কোরআনের ভাষা। আরবী ভাষার জ্ঞান ছাড়া যেমন পবিত্র কোরআন বুঝা যায় না, তেমনি আল্লাহ-প্রদর্শিত সিরাতুল মোস্তাকীমের সন্ধানও মেলে না। নানা দেশের নানা অনারব জনগণ যখনই ইসলাম কবুল করেছে, তখনই আরবী ভাষা শিক্ষায়ও তারা মনযোগী হয়েছে। অথচ সে অধিকার ছিনিয়ে নেয়া হচ্ছে বাংলাদেশের মুসলমানদের থেকে। ফলে বিপদে পড়েছে মুসলিম রূপে বেড়ে উঠায়। বাংলাদেশের শিক্ষানীতির বহু নাশকতার মাঝে এটিই হলো সবচেয়ে ভয়ংকর নাশকতা। ২৫/০১/১৩; দ্বিতীয় সংস্করণ ৮/১১/২০১৯

 

 

     

 




দেশ নিয়ে ভাবনা -৪

১.

মেহনতি মানুষ বিদেশে গিয়ে কষ্ট করে দেশে টাকা পাঠায়। তাদের অর্জিত সে বিদেশী মুদ্রা ক্ষমতাসীন ডাকাত দলের সদস্যরা ডাকাতি করে বিদেশে নিয়ে যায়। বিদেশে তারা বাড়ি কেনে, ব্যবসা করে, জুয়া খেলে। এবং হাসিনার ছেলে জয় ফুর্তি করে আমেরিকাতে।

২.
ঘরে আবর্জনা জমলে সে  আবর্জনা সরানোর কাজটি ঘরের সবার। সেটিই সভ্য পরিবারের রীতি।তেমনি দেশ চোর-ডাকাতের দখলে গেলে সে চোর-ডাকাত খেদানোর কাজও সবার।সে কাজে যার ইচ্ছা নেই সে অসভ্য। অথচ বাংলাদেশে সে কাজটি হয়নি। দেশে কি স্রেফ মসজিদ-মাদ্রাসা গড়ে কি এ অসভ্যতা থেকে বাঁচা যায়? নবীজী (সাঃ) শুধু  মসজিদ বানাননি, ইসলামি রাষ্ট্রও গড়েছেন। সে কাজে শতকরা ৭০ ভাগের বেশী শহীদ হয়েছেন। বাংলাদেশের মুসলিমদের সে কাজে আগ্রহ কই?

৩.
বাংলাদেশ কি গণতান্ত্রিক দেশ? গণতান্ত্রিক দেশে তো ভোটে সরকার নির্বাচিত হয়। নিশীথ রাতের ভোট ডাকাতগণ ক্ষমতায় আসে কি করে? প্রতিটি গণতান্ত্রিক দেশে কথা বলা, মিটিং-মিছিল করার স্বাধীনতা থাকে। পাকিস্তান আমলে শেখ মুজিব শত শত মিছিল-মিটিং করেছে। বাংলাদেশে সে অধীকার ছিনিয়ে নেয়ার পরও সরকার বলে তারা নাকি গণতান্ত্রিক! এ সরকারের মুখে পাকিস্তানের বদনাম করা সাজে কি?

৪.
যিকির মানে প্রতি পদে মহান আল্লাহতায়ালার প্রতিটি হুকুম মেনে চলার ফিকির। যিকিরে থাকে শরিয়ত মেনে চলার ফিকির। যেদেশে শরিয়তের আইন ছাড়াই বিচার হয়, বুঝতে হবে আল্লাহতায়ালার আনুগত্য নিয়ে তাদের কোন ফিকির নাই। এদের যিকির যে নিতান্তই ভূয়া –তা নিয়ে কি সামান্যতম সন্দেহ থাকে?

৫.
ঈমানদার হওয়া মানেই হলো মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনকে বিজয়ে করার জিহাদে মুজাহিদ হওয়া। নবীজী (সাঃ)র সাহাবাদের শতকরা শতভাগ সাহাবাই মুজাহিদ ছিলেন। যারা জিহাদের নামেননি তাদেরকে মুনাফিক বলা হয়েছে। যারা জিহাদ বিমুখ ইসলামে তাদের কোন স্থান নেই। বাংলাদেশে ১০০ জনের মাঝে যদি একজনও যদি নবীজী (সাঃ)র ইসলাম বুঝতো তবে ১৭ কোটির মাঝে ১৭ লাখ মুজাহিদ তৈরী হতো । তখন কি দেশ হাসিনার ন্যায় নিশীথ রাতের ভোট ডাকাতের হাতে অধিকৃত  হতো? তখন বরং শরিয়ত প্রতিষ্ঠার জন্য জিহাদ শুরু হয়ে যেত।
৬.
ঈমান ছাড়া আল্লাহতায়ালার দরবারে ভাল কাজের কোন মূল্য নাই। শত কোটি টাকা দান করলেও নয়। ভাল কাজ ছাড়া ঈমানও মূল্যহীন। কারণ উত্তাপ ছা্ড়া যেমন আগুণ হয় না, ভাল কাজ ছাড়া তেমনি ঈমান হয় না। মহান আল্লাহতায়ালা এ দুটিকে এক সাথে দেখতে চান। আল্লাহতায়ালার কাছে সবচেয়ে বড় ভাল কাজ হলো ইসলামের শত্রু নির্মূলের জিহাদ –যা সুরা সাফ’য়ের ৪ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে। ইসলামের শত্রুগণ জিহাদকে সন্ত্রাস বলে স্রেফ মুসলিমদের জিহাদ বিমুখ করার স্বার্থে। ব্রিটিশেরা সে প্রচার নিয়েই বাংলার মুসলিমদের জিহাদ থেকে দূরে রেখেছে এবং ১৯০ বছর শাসন করেছে। আজকের শত্রুগণও সেটিই চায়।

৭.
অসভ্যদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সামর্থ্য না থাকলে অসম্ভব হয় সভ্য ভাবে বাঁচা।তাই সভ্য সমাজ গড়তে দেশ থেকে শুধু হিংস্র পশু তাড়ালে চলে না, মানবরূপী পশুদেরও তাড়াতে হয়।এটিই ইসলামের পবিত্র জিহাদ। নইলে আবরার ফাহাদের ন্যায় মানবরূপী পশুদের হাতে লাশ হতে হয়।অথচ বাংলাদেশে সে কাজটি হয়নি।

৮.
দেশে জ্ঞানদান ও জ্ঞানলাভের আয়োজন কতটা পবিত্র, নিবিড় এবং ব্যাপক -তা দেখেই বুঝা যায় দেশ ভবিষ্যতে কতটা সভ্য ভাবে বেড়ে উঠবে। এখাতটি দুর্বত্তদের দখলে গেলে দেশও অসভ্য ডাকাতদের দখলে যায়। বাংলাদেশ হলো তারই উদাহরণ।
৯.
চোর-ডাকাতকে কি কোন সভ্য ও ভদ্র মানুষ সন্মান করে? তাদের সন্মান করা তো অসভ্য চোর-ডাকাতদের কাজ। অথচ বাংলাদেশে ডাকাতদলের ভোট-ডাকাত সর্দারনীকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলে সন্মান করা হয়। দেশের কওমী হুজুররা তাকে কওমী জননী বলে। অথচ ইসলামের হুকুম হলো, এরূপ দুর্বৃত্তদের শুধু ঘৃনা নয়, নির্মূল করা। হুকুম হলো তাদের শাস্তি দেয়ার। সে অদম্য চেষ্টাটুকু না থাকলে বুঝতে হবে ঈমানদার হওয়াতে অনেক বাঁকি রয়ে গেছে।

১০.

সুরা ইমরানের ১১০ নম্বর আয়াতে বিশ্বমাঝে মুসলিমদের সর্বশ্রেষ্ঠ জাতি বলা হয়েছে। তবে এজন্য নয় যে, তারা বেশী বেশী নামায-রোযা করে। উক্ত আয়াতে যে কারণে তাদেরকে সর্বশ্রেষ্ঠ বলা হয়েছে তা হলো, তারা দুর্বৃত্তিকে নির্মূল করে এবং ন্যায়কে প্রতিষ্ঠা দেয়। ফলে চোর-ডাকাত ও ভোট-ডাকাতদের পক্ষ নিলে কি সে মর্যাদা কখনো অর্জিত হয়?  

১১.
যারা কোর’আন থেকে শিক্ষা নেয় এবং অন্যদের শিক্ষা নিতে সাহায্য করে -তাঁরাই হলো শ্রেষ্ঠ মানব।–নবীজী (সাঃ)র হাদীস। কথা হলো, বাংলাদেশে এমন মানুষের সংখ্যা শতকরা ক’জন? কোর’আন ঠিক মত বুঝলে তো দেশে শরিয়তের প্রতিষ্ঠা ও ডাকাত নির্মূলের লক্ষ্যে লাগাতর জিহাদ শুরু হতো।

১২.
“হে ঈমানদারগণ, তোমরা আমার ও তোমাদের শত্রুদের বন্ধু রূপে গ্রহণ করো না”-(সুরা মুমতেহানা আয়াত ১)। অথচ বাংলাদেশে মহান আল্লাহতায়ালার এ কোর’আনী হুকুমের বিরুদ্ধে প্রচণ্ড বিদ্রোহ হচ্ছে। ভারতীয় সরকার আল্লাহ ও মুসলিমদের দুষমন। কাশ্মিরে তারা ধর্ষণ ও গণহত্যায় লিপ্ত।  ভারতের বিভিন্ন স্থানে তারা যেমন মুসলিমদের হত্যা করছে, তেমনি মসজিদ ধ্বংস করছে। মসজিদের জমিতে তারা মন্দির বানাচ্ছে। এরপরও তাদের সাথে কি বন্ধুত্ব করা যায়? সেটি তো হারাম। আল্লাহতায়ালার হুকুমের বিরুদ্ধে যারা বিদ্রোহী একমাত্র তারাই এমনটি করতে পারে? তাই শুধু ভারত নয়, ভারতের সেবাদাস হাসিনাও মুসলিমদের শত্রু।


১৩.
শেখ হাসিনা ভারতের সাথে ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব নিয়ে গর্বিতা। কিন্তু বন্ধুত্ব তো তখনই সম্ভব যখন বাংলাদেশের ন্যায্য পাওনাগুলি ভারত দিয়ে দেয়। অথচ ভারত শুধু নেয়াতে আগ্রহী, দেয়াতে নয়। এমন কি ভারতীয় মুসলিম নাগরিকদের বাংলাদেশী বলে বাংলাদেশে পাঠাতে চায়। ফলে হাসিনা যা প্রতিষ্ঠা দিয়েছে তা বন্ধুত্ব নয়, তা বরং নিরেট গোলামী।

১৪.
আদম (আ:)কে সিজদা করার একটি মাত্র হুকুম অমান্য করায় ইবলিস অভিশপ্ত শয়তানে পরিণত হয়।যারা শরিয়তের অসংখ্য হুকুম অমান্য করে দেশ ও দেশের আদালত চালায় -তারা যে ইবলিসের চেয়েও অধীক অভিশপ্ত তা নিয়ে কি সন্দেহ করা চলে। অথচ বাংলাদেশ সে অভিশপ্ত শয়তানের দলের হাতেই অধিকৃত। বাংলাদেশে গুম, খুন, চুরি-ডাকাতি ও ধর্ষনের রাজনীতিকে প্রতিষ্ঠা দিয়েছে মানবরূপী এ শয়তানেরাই।




The Educational Failure of the Muslims

The worst sin                                                            

Knowledge works as the most powerful and the most decisive tool in transforming humans’ belief, behavior, character, culture, and fate. It decides the fate of humans’ destiny not only on the earth but also in the hereafter. On the other hand, ignorance works as the most unsurmountable barrier against peace, truth, justice, values and higher civilization. But knowledge has its own connotation and dimensions. To get the real benefit of knowledge, one must know its true depth and dimensions. In fact, the benefit of knowledge can be severely curtailed by restricting its focus and application. In the making of full humans and human civilization, knowledge must go beyond any restrictions; it must encompass the understanding of the Visible and the Invisibles. Both the material and the metaphysical domains of knowledge must be parts of it. Those who built pyramids in ancient Egypt were not illiterate or ignorant; their awe-inspiring talents in civil engineering and architecture still survives as one of the few ancient wonders. But, their ignorance vis-à-vis Divine Truth was awful. Like the ancient ignorant cave dwellers, they too worshipped tyrant Pharaoh as a god. It owes to their knowledge that had highly restricted focus and was de-linked from other highly critical mass of information. As a result, they failed to show their wisdom to appreciate the historical Truth. In fact, they proved extremely foolish and incompetent to understand even the simple message of Prophet Musa (peace be upon him). In comparison, the illiterate Arab –though didn’t build any pyramid, showed better wisdom. They could raise the foundation of the finest civilization on earth in the whole human history. Because, their knowledge incorporated the knowledge not only of the visible world but also of the invisible world –as revealed through the Holy Qur’an.  Because of similar restrictive focus and incomplete knowledge, many Indians with the highest university degrees worship cows as god and drink cow urine as a holy drink!

The secularisation of knowledge may add material prosperity to humans but can’t take them to any moral height. Neither can it show the path for success in the endless life in the hereafter. Knowledge gives light, and ignorance brings darkness. People deny Allah, His guidance and His prophets and get deviated from the right path due to ignorance. Ignorant men engage in major sins and ultimately reach the hellfire. Thus it nullifies the whole purpose of human survival. Such man lives only to add failures in the hereafter.  In fact, human’s greatest sin –as well as the mother of all sins is ignorance (jahiliyah). The pre-Islamic ignorance in Arabia ended more than 1400 years ago, but modern man’s ignorance thrives amidst all advancement of science and technology. The idolatry, gambling, alcoholism, obscenity, homosexuality, pornography, torture, mass-murdering, ethnic cleansing, economic exploitation, and other vile acts still survive with the same toxicity of ancient ignorance and arrogance. Therefore, in India, people are being lynched to death for eating beef. And in Europe, women are tormented in public and not allowed to enter universities for wearing a headscarf.    

Modern man’s ignorance cum incompetence is not in scientific invention, but in discovering the Divine Truth. Skills in knowing the Divine Truth comes only through Divine knowledge. And delivering such knowledge is the exclusive domain of the Allah SWT. Therefore Allah SWT proclaims, “Showing the right path is My task”–(Sura Layil, verse 12). Also revealed, “Allah SWT is the friend of the believing man and woman and takes them from darkness to the light. (And Satan does the otherwise); Satan is the friend of the non-believer and takes them from light to the darkness”–(Sura Baqara, verse 257). The holy Qur’an was revealed to show this right path. Hence, without the Qur’anic knowledge, the greatest Truth in life remains undiscovered, and the task of educating people remains awfully incomplete. So in Islam, education is not a mere academic and professional need, rather the most basic intellectual, religious and civilizational need. Otherwise, man fails to become a Truth-seeking honest human, thereby fails to raise a sane civilization. So the role of education is extremely crucial. Its success is measured not by the number of educational institutions, teachers and students, and nor by per capita income; rather by the number of people saved from hellfire. The ability of those who have gone through the education to know the Divine Truth is the real marker of its success.  Even dogs or monkeys, if trained, can do miracles. Man can do, too. The success of modern-day universities’ in adding such skills is undeniable. But its failure in saving people from hellfire is catastrophic. By preaching atheism, secularism, nationalism, racism, fascism, supremacism, materialism, Marxism, hedonism and Darwinism, these universities have opened a huge number of highways to the hellfire. 

Allah SWT loves His greatest creation – mankind. He wants their ultimate success – the success here and in the hereafter. But such success is pre-conditional. It does not come through economic growth or scientific invention; rather following the Divine path (siratul mustaqeem). Only this path leads to the heavens. Thousands of prophets were commissioned by Allah SWT to show that path. They did not teach science or technology but made Allah’s greatest gift – the true path, known to mankind. Man’s ugliest ignorance and failure are not assessed by the inability to build a pyramid, spacecraft or atomic weapon, rather by his inability to discover and adhere to this greatest Divine gift. This very inability drives him to the hellfire. Departure from this world without knowing and following this Qur’anic Truth will cause the greatest regret in the hereafter. Of all ignorance, this is indeed the most devastating one; and will torment endlessly in the endless life in hellfire.

 

Mis-education: the worst criminality

The man’s muslimness is crucial. The ultimate success in life depends on it. So, Allah SWT warns, “O you who believe! Fear Allah with all fearfulness – as deemed appropriate for Him; and do not allow death to overtake you unless you are a (true) Muslim”–(Surah Al-Imran, verse 102). So for the believers, Allah SWT sets the priority. It is not attaining great success in professions, politics or business; nor becoming a proud Arab, Afghani, Turkish, Iranian or Bengali, but to be a committed Muslim. For that, it does not require birth in a Muslim family but needs a qualitative change in belief and deeds. Fear of Allah is the essence of such change. And such change comes only through true knowledge –the true understanding of Divine guidance. Allah SWT reveals, “Of all His servants, only those who are endowed with knowledge fear Allah”–(Surah Fatir, Verse 28).  The prime objective of the education is to generate such fear of Allah SWT through Islamic knowledge. But if education promotes atheism, secularism, materialism, nationalism, Darwinism, Marxism only adds deviation. Thus, education helps people to go to hellfire. Such education then becomes the worst harmful criminal acts on earth. In the name religion, a lot of vile acts are still done. Ancient ignorance like worshipping man, animals, idols and deities still survive in the life of billions. Likewise, awful criminal acts are done in the name of education. More awfully, teaching falsehood and promoting deviation towards the hellfire –even in Muslim lands, enjoys huge public funds and acceptance as the modern education.

The first thing must be done first. Otherwise, many other crucially important issues stand unattainable. Seeking Islamic knowledge is such a first obligation. Without fulfilling it, becoming a true Muslim remains inconceivable. Hence, the first revelation of the Holy Qur’an was not on salah, fasting, haj, zakat or jihad, but it was “iqra” –which means “do read”. Reading with the understanding of the Holy Qur’an serves as the greatest source of the Divine knowledge. Indeed, Divine guidance comes only through it. Acquiring such knowledge is acknowledged as the most important act of ibadah; other ibadah indeed get added values if it is done with a deeper understanding of the Qur’an. With a void of understanding, ibadah turns to mere lifeless rituals. It fails to bring any qualitative change in man’s behavior and deeds. Such prayers do not prevent people from corruptions; rather people with such lifeless rituals may even overtake the non-believers in such vice. Bangladesh is a perfect example. Very few countries have such a huge number of mosques and mosque-goers; 90% of its people are Muslim. But Bangladesh stood first in corruption 5 times in the world. It is not an economic failure, rather an educational failure. Bangladesh has tens of universities and thousands of colleges and religious madrasas, but those institutions couldn’t add any higher moral values to the students. Rather brought worldwide disgrace. People have failed badly to learn and practice the basic lessons of Islam.

Seeking knowledge is so crucial that even a short engagement in its pursuit is superior to the whole night’s non-obligatory (nafl) prayer –as narrated by Prophet Muhammad (peace be upon him). Even the war criminals could be freed if they had delivered writing, reading and numeracy skills to the Muslims -as done with the kafir captives of the battle of Badar. The most distinctive feature of the early Muslims was their spectacular success in realizing and fulfilling this first Islamic obligation of seeking Qur’anic knowledge. They excelled not only as practitioners of religious rituals but also as torchbearers of knowledge in Islamic jurisprudence, politics, philosophy, geography, mathematics, astronomy, chemistry, human and social development and military science. Their success was so great that within the shortest possible time, those ignorant people of Arabia became the most educated and civilized people on earth. As a result, the Muslims could become the number one global power and could subdue both the Roman and the Persian empires.

 

The failure of the West & the lesson

Western civilization added enormous values to stones, metals, minerals, agricultural goods, and other materials. It has added enormous skills and scientific knowledge to humans, too. But it has added little moral and cultural values. Western education is very asymmetrical; it runs only on one dimension. It is focussed only to attain material progress and gave little or no attention to humans’ spiritual development. Its scientific advancement has given the most devastating tools in the hands of the most greedy, brutal and immoral people. In savagery and brutality, they stand hardly better than the Mongol thugs of Halaku and Chengis Khans. In fact, colonialism, imperialism, ethnic cleansing, genocide, slavery, exploitation and other dehumanizing instincts attained more virulence and global expansion by them. They killed more than 75 million people in only two world wars. The Red Indians in the USA, the Aborigines in Australia, and the Maoris in New Zealand were almost ethnically cleansed by them. They didn’t bother to drop atomic bombs on the civilian population of Hiroshima and Nagasaki. Millions of peoples are put to death in Vietnam and other parts of Asia and Africa. Their killing machines are still all-time active. The people of Afghanistan, Iraq, and Palestine are their recent victims. All worst beasts in all ages could not inflict such deaths and devastations on humans as were inflicted by these torchbearers of this western civilization.

No doubt, science never advanced with such a tremendous speed in the past –as did in recent times. But it is also true, such huge atrocities never happened in any previous segment of human history either. That too happened by the hands of the flagship countries of western civilization like the USA, UK, France, Germany, and Italy. Military occupation, colonization, multinational capitalism, and global exploitation are their original inventions. Here too, the west’s failure owes entirely to its educational failure. The secularisation of knowledge has robbed people of their moral and spiritual compass. So, the so-called educated people terribly fail in distinguishing the right from the wrong and the civilians from the military targets. Therefore, crimes like genocide, ethnic cleansing and drone attacks get their moral, political and legal approval. Such moral failure could only lead to civilizational failure.