The Objective of Ramadan & the Muslims’ Failure

Assigned role and the failure

Significance of Ramadan can only be fully understood with the proper understanding of the purpose of human creation. The sole objective of Ramadan is to make believers intensely focussed cum engaged to that Divine objective; and such a relentless adherence to that objective is indeed the true expression of true iman. Those who stay away from Ramadan can’t think of that. Allah SWT made it clear vis-à-vis His vision on human creation even before the creation of the first human. Men and women are created with the sole purpose that they would work as His khalifa on earth. Khalifa is a Qur’anic jargon; and it has a special meaning and context. The term khalifa is used to mean Allah SWT’s viceroy on earth. It applies to all men and women of all colours and ethnicities. It is indeed the highest designation and honour that a man or woman can expect from his Creator. On the other hand, the Creator can delegate such a job of the greatest responsibility and honour only to those who are highly competent and trustworthy. In fact, Islam’s obligatory rituals like five time prayer, month-long fasting, haj and zakat are prescribed only to generate such competence and trust in believers.

Allah SWT used the narrative “khalifa” in the gathering of the angels to express His vision prior to the human creation. In the Islamic history, kahalifa has another connotation: to mean the prophet’s representative after his death -working on his behalf as the ruler of the Muslim ummah. But for a lay man or a woman, the title delegates a binding responsibility to everyone. It is to work as Allah SWT’s viceroy in the midst of billions of other creations. Hence, such a designation on behalf of the Almighty Creator tells a lot about the role that a Muslim must play in this world. Passing every moment on life with deep sense of such responsibility is indeed the expression of true faith (iman).  Man and woman can attain the greatest honour both here and in the hereafter only through fulfilling such a role; and any betrayal of such role can only bring the promised disgrace in this world and take to the hellfire in the hereafter.

The term “khalifa” has other connotation. A khalifa can never be sovereign; can work only as the representative or viceroy of a sovereign ruler. The problems start when these khalifas turn sovereign and treacherous against their Almighty Employer. Autocracy is incompatible with Islam; this is indeed treachery against Allah SWT. Such treacherous viceroys always deserve the severest punishment. Allah SWT keeps His hellfire ready for such rebels –as revealed in the holy Qur’an. It is indeed the major crime of the today’s Muslims that they are not playing their role as His viceroy. They have replaced Allah SWT’s sovereignty by their own sovereignty. Even in countries where the elected parliament or President has replaced dictators, the same crime of claiming sovereignty is being committed by such elected institutions. Raising an army of faithful khalifas is immensely importance in any kingdom; it is also important in Allah SWT’s kingdom. The British kings or queens ruled their occupied lands like India through such khalifas -called viceroys. These khalifas were known for their constant submission to the British crown. They were ready to do everything for the Crown, even would sacrifice their life in wars to protect the British interests. Shaitan too has such khalifas and has production sites in every nook and corner to train such khalifas. These satanic institutions train them to make them perfect performer of the assigned jobs. Allah SWT too, wants to bring the glory of Islam through His khalifas. Ramadan indeed raises and trains such an army for His cause. 

 Humans have different colours, creeds and ethnicities. But they are indeed divided into two broad categories: either they belong to khalifatullah (viceroy of Allah) or to khalifatus shaitan (viceroy of Shaitan). They also follow two different roadmaps with two different destinations: the siratul mustakeem (siratul mustaqeem) toward heaven and the siratul duallins (deviant path) towards hell. In any political arena, the form two warring brands of parties: hizbullah (the party of Allah) and hizbushshaitan (the party of Shaitan). In the hereafter, these two brands of people will have two different labels too: as’habul jannat (the dwellers of haven) and as’habun nar (the dwellers of hellfire). Hizbullah, hizbushshaitan, as’habul jannat and as’habun nar: these are all Qur’anic vocabularies to carry a distinctive massage for the whole mankind. In the holy Qur’an, there is no third category of people, nor does there exist any third type of abode. All states, societies and are indeed the constant battlefield of the two warring groups of khalifas. In such context of constant warfare, the month of Ramadan has a special significance. It provides the month-long intensive training schedule to raise the combative army of Allah. Shaitan has his own network of institutions: these are clubs, pubs, casinos, prostitutions, secular education, secular army, media and bureaucracy to raise his own army. Such institutions work day and night to distract people away from the siratul mustaqeem –as shown in the holy Quran.

The duty of Allah’s khalifa is huge -as huge is the reward in return. Witnessing the oneness of Allah (SWT), performing obligatory rituals like five time prayers, fasting in Ramadan, doing haj and giving charity must help Muslims grow up as Allah SWT’s khalifa: but these are not end in itself. A true Muslims’ journey does not end in such rituals. One can play the true role of khalifa only through full engagement in His way with all possible physical, intellectual and monetary potentials. It even needs full readiness to sacrifice his life; and the early days’ Muslims are the perfect example. In return, Allah SWT promises them the unending pleasure in the paradise. To grow such Muslims, it needs Divine institutions and curriculum. The month-long fasting in Ramadan is indeed the part of such Divine curriculum.

 

Taqwa: the sole objective

The sole objective of fasting is to generate taqwa. Allah SWT revealed, “O you who believe! Fasting is prescribed to you as it was prescribed to those before you, that you may attain taqwa” -(Sura Baqara: verse 183). To put more emphasis on it, Allah SWT has also revealed, “O you who believe! Fear Allah as He should be feared, and do not die except in a state of Muslim (who surrenders fully to Allah)”–(Sura Al-Imran: verse 102). In the above verse, Allah SWT has asked to attain appropriate level of taqwa; and also warned not to die without being a Muslims i.e. without being in a state of full surrender to Allah SWT’s orders. Hence it appears that taqwa is a key to enter jannah.  

 

The question arises: what is taqwa? Taqwa is commonly understood to be the fear of Allah SWT. But what is the nature of such fear? Human beings fear so many things. They fear death, disease, financial loss, physical harm and loss of dignity, etc. Is it such fear? Such fear comes automatically to every soul. It does not need any Divine warning. Here taqwa has special meaning. It is the fear of disobedience to Allah SWT’s commands. It is the fear of failing in akhera. It is fear of deviating from the siratul mustaqeem. When a man drives his car in a motor war he is constantly attentive to his correct driving. He understands that a slight deviation from the motor way would cause catastrophic disaster. For such disaster, it does not a minute, few seconds are enough. Hence, for every second of his journey, he is very mindful. This is his taqwa as a driver. And as a believer, he must show the same amount of awareness to adhere to every segment of the Qur’anic road-map. Muslim must pass every day and night with the full remembrance of his duty to Allah and constantly following His sharia. His personal, familial, political, judicial, cultural and economic life must comply with the Qur’anic guidance. Any amount of disobedience to such guidance only subscribes to his disbelief and disobedience against Allah SWT. These are punishable crimes. He will be made accountable for such crimes in the day of judgement. Taqwa is the fear of such failing in the Day of Judgement. It is fear of failing to grow up as full Muslim. It is fear of failing to work as anserullah. It is fear of failing to discharge duties as khalifatullah. It is fear of failing to be the part of hizbullah.    

 

How to build taqwa?

Mere belief in Allah (SWT) is not enough to build taqwa. Even before the birth of Prophet Muhammad (pbuh), many people had the name like Abd Allah which means slave of Allah (SWT). But such naming did not make them Muslim, neither raise any taqwa in their heart. Mere zikr or remembrance of Allah (SWT) is not enough either. Millions of people recite tasbih (praises) and do zikr. Thousands of sufi khanqas are doing such tasbih and zikr day and night. But how much taqwa are being built through such tasbih and zikr? To build taqwa, Allah (SWT) has His own prescription. The prescription comes in the following verse: “O humans! Engage in ibadah to your Lord Who has created you and those before you so that you can attain taqwa” -(Sura Baqara, verse 21).

But what is the meaning of ibadah? Ibadah is an Islamic jargon which means full submission to the Lord Who is the sole creator of the whole universe. It is a total slavery. While the Qur’an was being revealed, ibadah or slavery was not a new word. The contemporary Arabs knew the full implication of becoming an abed (slave). It used to be considered a live-long fulltime engagement to the master. The slaves had no liberty to satisfy their own wish. They had only to fulfil their master’s wish. Any amount of disobedience against the master was a serious offence. The master had the full right even to kill the rebellious slave. In those days, such punishment couldn’t be challenged in any court. Allah SWT wants such lifelong fulltime total commitment from His believer too. In return, He promises the endless bounties of the heaven. And the earlier Muslims fulfilled Allah (SWT)’s wish, indeed they were such perfect slave. Generating Taqwa is the prime goal of all sorts of ibada. Worshipping Allah SWT any form is a gateway towards acquiring taqwa. Hence, the verse has other implied message: ibada that does not enhance taqwa cannot be called as ibada. In such context, Ramadan has special place in Muslim life.  Since it increases the level of ibada, the chances are quite high that it will also increase the level taqwa.

Ibadah not only needs sincere intention, but also investment of time, energy, wealth, intelligence and even life. The value of ibadah depends on the degree of the investment; and taqwa develops in proportion to the level of investment. Salah, fasting and haj need invest of time, energy and money, but does not cost one’s dearest life. But jihad in the way of Allah SWT needs full readiness to sacrifice life. Hence the highest amount of taqwa is build up in the field of jihad, and not in mosque, madrasa and sufi khanqa. This is why, the companions of the prophet (pbuh) attains the highest level of taqwa. They showed their all-time readiness to sacrifice their lives. In fact more than 70 % of them become martyr. Hence in martyrdom, the level of taqwa is so high that Allah SWT will honour them with direct access to heaven without any accountability. In countries where there exist no jihad; the people suffer from serious crisis of taqwa. Such people make records in corruption.            

 

 

The engine of revolution

Taqwa doesn’t survive silently in a believer’s soul, rather shows forceful expression through the actions and the behaviour. It works as an engine of moral, cultural and political revolution. Establishment of an Islamic state by the early days’ of Islam was indeed the manifestation of taqwa. If a Muslim fails to engage in such revolution, then it raises doubt his taqwa. Taqwa propels believing men and women to strongly adhere to the Qur’anic guidance, hence generates full compliance with sharia. Therefore, presence of non-sharia law in a Muslim country is an incompatible anomaly. It is indeed a display of blatant disbelief. Absence of sharia in a country gives an accurate estimate that how far its inhabitants have deviated from the Divine roadmap. It is a clear betrayal of Allah SWT’s objective. A true believer can’t think of it: jihad instantly starts against such betrayal of Allah SWT. On the contrary, taqwa creates a strong urge in believers’ heart and mind to search for more Qur’anic orders and the prophetic traditions to comply with.  His vigilant mind stays fearful that some of commandments of Allah SWT may remain unpractised. Any non-compliance with the sharia law only exposes the hypocrisy. In the holy Qur’an, in sura Maida, Allah SWT has labelled them kafir, fasik and jalem. Such non-compliance was non-existent in early days’ Muslims.

Taqwa has other forceful expressions. It inspires people to move beyond the ethnic, linguistic and geographic boundaries to embrace their fellow brothers in Islam and emerge as united political force. Hence dismantling the divisive boundaries of so-called nation states becomes a non-negotiable political agenda of the true believers. It becomes the part of their iman. Such pan-Islamic brotherhood was the most common ingredient of Muslims’ politics in the early days, and made them the number one world power. Creating and continuing the divisions can only add humiliation –which is the major problem of the Muslims today. With such divisions, no amount of prayers will help them add any glory.

All over the world, millions of Muslims are fasting in Ramadan. Crores of people are attending five times daily prayers. Millions are performing haj. But where is taqwa? Taqwa must be visible in Muslim life through the full practise of Islam’s own systems. But where is the compliance with the Islamic systems? Out of 57 Muslim countries, Allah SWT’s sharia law does not exit even in one! Allah SWT has warned the Muslims not to be divided. But remaining divided has been the Muslims’ politics and culture. Instead of having any remorse, in fact, the Muslims are very proud of such division. They celebrate the creation of such division in the name of ethnic, tribal, linguistic and geographical nation states. Khelafa has been dismantled about 90 years ago by the hand of the secularist and nationalists enemies of Islam. But how many of the fasting men and women pay any heed to resurrection of this very fundamental Muslim institution? Khelafa also collapsed once in the past under the barbaric attack of Mongols on Baghdad. In the absence of khalifa, there was no jumma prayer in those days. The contemporary Muslims came to the forefront to resurrect this basic Muslim institution. But the present day Muslims have fully forgotten their duty and are happy with living in tiny nation states. The issue of khelafa and the Muslimhing unity are no matter in their life! 

 

The most difficult task

Reconstructing human belief, behaviour and character has been always the most difficult task in human history. It is a huge job, needs to higher human and moral quality. Even thugs and murders like colonialists could build empires and bring industrial revolutions. But they utterly failed to bring any moral revolution.  It needs not only Allah SWT’s guidance, but also His persistence assistance. Human beings can grow up in billions, but very few are capable to grow up as true human. This is why the world is infested with blood-letting criminals, aggressors, occupiers and ethnic cleansers. In the past, Allah SWT had to send thousands of prophets with guidance to bring them to the right path. Calling the deviating people to the right path is Allah SWT’s own mission. “Inn alinal huda”: Certainly Muslims assigned mission: it brought moral and spiritual failure. The outcome is catastrophic. Civilisation fails, true religion get corrupted, humans become devils and the planet gets covered with human flesh and blood only due to such moral failure. Only in the last two World Wars, 75 million people were killed. And such killing machines are still active in different parts of the world. Moreover, such failure brings Divine punishment; both here and in the hereafter.

Humans are created with body and soul. Like human body, soul too needs regular feeding and training. Otherwise souls cannot survive to meet the enlightened human standard, rather becomes the nest of the Shatan and his ugly aspirations. And the nourishing feed for the soul comes only from the Divine knowledge and deep contemplation (tafaqquh). And the holy Qur’an is the source of such Divine knowledge. Hence the journey of Islam did not start with salah, fasting or haj, but with Divine knowledge –the revelation of the holy Quran. And here is the significance of holy month of Ramadan. It is attached to the most important event of human history. The greatest gift of Allah SWT came to the mankind in this holy month. The Qur’an shows the siratul mustaqeem. It is the rope of Allah SWT to connect the people with His guidance. And the month of Ramadan executes the Divine training to connect the true believers to their Great Lord, and provides the nourishing feed to their thirsty souls.

 

Human mind is very forgetful, as well as very ungrateful. Even many people forget their parents and show them ingratitude when they grow up as adult. They even forget their Creator too. As if the whole universe is created without a Creator. The holy Qur’an depicts revealing stories of such ugly forgetfulness and ingratitude. The story of Bani Israel is a perfect example. Allah SWT rescued the people of Bani Israel from Pharaohs’ killing machine. He made a wide dry road in the middle of the sea to give them quick escape route.  They were given shelter in Sinai desert under the canopy of thick cloud. Manna and salwa came down from the sky to feed them. They did not need to work for many years. But still they were very quick to forget the blessing of Allah SWT and made idol of a cow object of worship.

 

To keep humans the Divine path is not an easy job. Mere attendance to the church or synagogue weekly is not enough to do the job. Islam addresses the issue by intensive program around the year. It brings people five times a day to the mosque, takes them to the haj and makes giving charity to the poor as an obligation. It has also prescribes jihad. In the holy month of Ramadan, such training gets more intense. Along with month-long fasting, this blessed month brings the regular spiritual feeding in other ways. It arranges long recitation of holy Qur’an in tarabih prayer and also encourages understanding of Qur’an individually. Islam thus imprints the Qur’anic knowledge and its Divine road map in the believers’ heart. Moreover, this month has the blessed night of lailatul qadr –better than 1000 nights.

 

The betrayal

Despite all the blessings and intensive trainings, the Muslims still show betrayal of the assigned mission. They have failed to discharge their duty as Allah SWT’s viceroy. But it is not the failure of Islam and its Divine prescriptions, rather the institutional failure of the Muslims countries. The recitation of holy Qur’an, the five times daily prayers, fasting in Ramadan and haj cannot achieve the goal on their own. It needs all inclusive institutional supports. Islamisation of people and the Islamisation of state are mutually contributory. One develops with the contribution from the other. It also needs to dismantle all elements of Satanic army and the devices that distract people from the siratul mustaqeem. It needs the full mobilisation of all societal, state and religious institutions to put their collective energy to keep the people in the right track. It also needs to destroy all the wrong tracks that are built to take people to the hellfire. Healthy living is impossible with the lethal bugs inside.  Hence the prophet (pbuh) of Islam and the rightly guided khalifas did not allow any Satanic institutions to function inside the Islamic state. The prophets expelled all the Jewish people from the vicinity of Medina for their stubborn opposition to the Islamic state. But afterwards, the Muslims rulers became engaged only to protect their own rule. Rather they turned against Islam.

 

Building Islamic state and Islamisation of the state institutions are not fanaticism –as labelled by the enemies, rather an indispensable Islamic need. To create and protect such a state, Jihad becomes an obligatory duty. A Muslim man or woman cannot fully practise Islam without the support of such state and state institutions. All state and non-state institutions must work together to spread Islam and protect the Muslims. It is so important that the prophet of Islam (pbuh) and his companions had to make heaviest sacrifices to make such a state. But such state and state institutions are non-existent today. Rather in most cases, these states and their institutions are working against Islam. Here lies the main difference between the early days’ Muslims and the Muslims of today. It also displays the greatest failing of the modern days’ Muslims.  Hence, the Muslims are defenceless and Islam lost its past glory.  

 

Allah SWT revealed not only the prayer rules, but also prescribed the judicial, political, economic and cultural rules. Sharia is Islam’s judicial system and khilafa is its political system. And it has also a distinctive economic system which forbids usury, bribery, hording, trafficking, gambling, monopoly, oligopoly and capitalistic exploitation of the workers and the consumers. The Islam had its distinctive culture to. It forbids free mixing of sexes, extramarital sex, exhibitionism, obscenity, adultery, pornography and displaying any sort of vulgarity. It strongly prescribes strong family bondage, marital bondage, hijab, respect of elders and love for the youngsters. But, how much of these Islamic prescriptions are being practised in Muslim countries? Millions of Muslims keep fast and offer prayers with all such forbidden practices in their midst. Keeping intact the brothel houses, clubs, casinos and other institutions of sin have been the part of their economy. To make more money, the Muslim countries are inviting the sex-tourists from abroad to make use of their sea shores and the tourist spots. Thousands of non-government and government organisations are working in Bangladesh, Pakistan, Afghanistan, Indonesia, Malaysia and other Muslim countries to teach the Muslim boys and girls how to dance, sing and entertain others. Is it the display of taqwa? What can be more betrayal of Allah SWT’s command? Only Shaitan and his friends can be happy with such projects of distracting the Muslim children from Islam.

 

The disease

Every disease has its underlying cause and the pathology. The absence of sharia, khelafa, Muslim unity, Islamic culture, Islamic education and Islamic economy is the proof of the catastrophic disease that has engulfed the whole Muslim world. These are the symptoms. But the real cause lies in the absence of Qur’anic knowledge and non-adherence to its teachings. The holy Qur’an is only recited, but not understood. Once it was a book of guidance, now it is a book of mere recitation. The present day Muslims study and take guidance from the books written by the kuffars. Those who have already decided not to take any guidance from Qur’an, do they feel any need to understand the holy Qur’an? The roadmap they are currently following in their politics, judiciary, culture, education, economy is not the same as was in the days of prophet (pbuh). Hence, the consequence is not the same either. They brought glory, and raised the finest civilisation on earth. But today’s Muslim are adding only the disgrace. They spread Islam. But now, they spread corruption. Recitation of the holy Qur’an, five times daily prayers, fasting in Ramadan, haj and giving charity have turned only rituals, and generate little taqwa. This is the real problem of the Muslims. So, Ramadan is coming and going, but the Muslims seldom move any further with the sole purpose of their creation. 16/07/14; edited 29.05. 2019.      

 




The Indian Election: The Hindu Supremacists Got the Mandate

Moral darkness exposed

The real mind of the people speaks loudly in the general election of a country. So, the recent election in India gives an explicit expression of the Hindu supremacist agenda of its people. It has indeed nakedly exposed the moral darkness and the hateful sick minds of the Indian voters. The voters have given the ongoing persecution of the minorities in India –especially the Muslims, a massive approval. The secular parties like Indian National Congress, Samajwadi Party (SP) and Vahujan Samaj Party (VSP) of Uttar Pradesh and Trinumal Congress of West Bengal that plead for peaceful co-existence of all religious communities got badly decimated. Through ballots, the Hindu majority shows their utter intention to bulldoze the right of the minorities. 

The Indian Muslims have been labelled as termites by the BJP President Mr Amit Shah – Modi’s right hand man. Such a narrative tells a lot about the political objectives of the party. How such people in BJP’s top position with so intense anti-Muslim hatred can allow the Muslims to get fair access to the Indian parliament? They can only think of quick extinction of them. Such a mind-set cause ethnic cleansing in many parts of the world in the past. India has 195 million Muslims -about 16% of the Indian population. In the last parliament, the Muslims had only 24 seats -only 4% of total 543 seats. About 48 million Muslims of Uttar Pradesh didn’t have a single MP in the previous parliament. This time the total number of the Muslim MPs will be fewer. Therefore, what could be the worst travesty of democracy? Democracy must not work a tool of exclusion of any section of the citizens; rather ensure the proper representation of citizens of different race, religion and geographical identities. Otherwise, democracy fails.

 

Turning to be an apartheid state

BJP President Mr Amit Shah and his party comrades in BJP and RSS never hide their Hindu supremacist agenda. They show worst displeasure to see 195 million Muslims –labelled as termites, in their midst. So, they are in desperate mood to find ways to exterminate them. Amidst such a toxic milieu, morality, humanity, equal opportunity and other higher values stand irrelevant. Hence, the Indian Muslims can’t think of even their safe survival, let alone enjoying the civil rights. The apartheid state of South Africa has ceased to exist. Now, India is quickly taking its place; but with a difference. In apartheid state of South Africa, the black people were never classified as termite. Nor they were inflicted with the organised killing episodes –as happened to the Muslims. Moreover, in apartheid South Africa, a cow never received more security and respect than a human. But in India, it is otherwise. Muslims get lynched in public; but thousands of vigilantes are deployed to ensure security to cows.

India hardly looks a civilised state. Giving equal rights to all of its citizens –irrespective of creed, cast and religion, is not the norm. The Hindu supremacists reiterated that implementing the absolute Hindu agenda is their core objective. The key agenda of Bharatia Janata Party (BJP) and its parent organisation Rashtria Shevak Sangha (RSS) is to make India a Hindu state –where the Hindu majority will have its brute and exclusive supremacy. They also coined a new definition of a Hindu. Hinduism is given a narrative as a way of life for all those who live in India. Hence implied that whoever lives in India must call himself or herself a Hindu. So, they demand that a Muslim too, should take the Hindu identity. They call it “ghar wapsy”-meaning returning back of a Muslim to his or her own home. And the home is none but the Hindu world view; and worshiping cows is its indispensable part.

Such a Hindu supremacist agenda has its worst political, ideological, cultural and social ramifications. Because of the communal agenda, the Muslims’ survival needs along with their educational, religious, cultural, economic and political needs are not compatible to Hindu agenda; hence never to be addressed by the ruling clique. Rather, it will do exactly the opposite –as it is evidenced by the Indian government’s plan for evicting 4 million residents from Assam on alleged allegation that they are infiltrators from Bangladesh. Such a plan has been hatched only to pursue an extremist Hindu agenda. Bangladesh came into being in 1971; but these ethnic Bengalis were living there since the British era. In those days, migration was a part of human life all over India; there was no political border to hinder it. Moreover, Assam was the part of the Bengal Province for a long period of time; the British government encouraged migration of Bengali peasants to promote agricultural growth in Brahmaputra valley. Muslims constitute 36 percent of the Assam’s population –second only to Kashmir. The Hindu supremacists can’t swallow this harsh reality. So, the issue of evicting the Muslims from Assam has been manufactured only to cut down the size of the Muslims in this strategic North-Eastern part of India. In the meantime, millions of the Assamese Muslims have already been deprived of the citizenship to restrict their political power. For the same reason and on the same pretext, the BJP leaders have reiterated that they will deport millions of the Bengali Muslims from the West Bengal to reduce its Muslim population that constitute about 28 percent.

With the similar mind-set, the fascists of Hitler’s Germany manufactured the much needed pretext to exterminate the Jewish population. So, they had to deploy massive gas chambers to do the job in an industrial scale. With the similar objective, Mr Modi, Mr Shah and others in the murderous BJP and RSS gangs needed to exacerbate the anti-Muslim hatred to the current hype. As a result, lynching the helpless Muslims to death in daylight on the Indian streets for allegedly eating beef gets a celebration proportion. In such a murderous milieu, the Muslim mothers in Uttar Pradesh ask their children not to wear a cap – a religious symbol of Muslim attire in public. Such a Muslim identity invites persecution and even death in the hands of the Hindu extremists –as recently stated by the Muslim Mayor of Kolkata.

 

Savagery gets rewarded

Amidst such an anti-Muslim hatred, whoever shows his or her toxic venom against the Muslims get higher prize and honour in the ruling Hindu supremacist club. Mr Modi could quickly climb up the ladder to the highest position of power only for such a high grade vitriolic venom. Another hateful preacher named Pragya Thakur of Madhya Pradesh also receives a high prize for her toxic venom against the Muslims. She is facing a judicial prosecution for her alleged involvement in a terror attack in Bhopal in 2008 that killed 6 Muslims and wounded 100 in a Muslim neighbourhood. She was given the BJP nomination for a MP seat in Bhopal. She even praised Nathuram Godse, a RSS terrorist who killed the topmost Indian icon Ghandi in 1948 as a patriot. Pragya Thakur has won her seat with the full party patronage. She now becomes a Hindu supremacist icon. Now, Narendra Modi and his government would hardly feel any appetite to prosecute such a party stalwart. Thus the people who run the show of the BJP-led Indian government show their real colour.  

 

Indian Prime Minister Mr Narendra Modi is known for his anti-Muslim venom all along his political career. Modi’s wicked skills in mobilising the Hindu mob in the demolition of historic Babri Mosque in Ayodhya in December 1992 brought him to the limelight of Indian politics.  As the Chief Minister of Gujrat, he engineered the killing of more than two thousands Muslims and massive rape of Muslim women in Gujrat in 2002.  Thousands of Muslim men, women and children were burnt alive to death in their own houses and shops. Modi-led state government let loose the Hindu supremacists to commit the carnage in daylight in Muslim residential areas and his police hardly did anything to stop it. The criminals seldom face any prosecution; in the name of post-massacre enquiry, the government only added some eyewash. Later on, he also shut down the Muslim rescue shelters in Gujrat on the plea that these shelters are working as Muslim baby boom centres. Such brutality against Muslims pushed him further up to become the Prime Minister of India. His crime was so ugly and robust that even the US government had to put a ban on his entry to the country. Modi has made him an Indian version of Adolf Hitler. He only lacks Hitler’s military hardware and the much needed economic edge. Such an exposed Modi is now honoured with a landslide victory to promote further his evil agenda against the minorities.

Pure fascism is the policy

Democracy is being used by the Hindu supremacists only as a convenient political tool for capturing power; but their actual policy cum modus operandi is pure fascism –as was the case of Adolf Hitler. Israel is decimating the Arab Muslims to make Israel an exclusive Jewish state. Mr Narendra Modi and his Hindu supremacist comrades have taken the same route. So they could cement their bondage with the hard-core Israeli radicals as the closest ideological cousins on earth. This is why, the man who was very quick to congratulate the victory of Modi was none else but the Israeli Prime Minister Benjamin Netanyahu. With Modi back in power, President Donald Trump –an American white supremacist, also gets a close partner in his war crimes against Islam and the Muslims. The vote-robber fascist Hasina of Bangladesh too, gets a strong supporter for her murderous autocratic rule. And the thuggish regime in Myanmar gets an admirer for the atrocities against the Rohingya Muslims. And thus, South Asia under the leadership of the Indian Hindu supremacists gets a strong epicentre of a looming humanitarian disaster which may spill over to the neighbouring countries.

 

The Indian Muslims & the earned calamity

Now there remains little doubt that India turns terribly unsafe for the Muslims. President Donald Trump of the USA and Benjamin Netanyahu of Israel will strengthen Narendra Modi to pursue his anti-Muslim bigotry. So the anti-Muslim coalition of the evil forces will get stronger. So, more Muslim countries will be occupied and more Muslim cities will be reduced to rubbles. But the Muslims -both in India and in other parts of the world, have taken the other route. They have taken no lesson from the unity of the enemies; rather preferred to stay divided and keep on infighting. So, the situation is quite alarming. India looks to be ruled by the brute Hindu majority -where the 195 million Muslims will stay irrelevant. They will have no other option but to suffer. In no segment of human history such a huge number of people had such an awful fate.

 

Only 5.3 million Jews live in the USA. But the USA has to take seriously the views and the security interest of such a small population. Because, the Jews has the huge potential to cause collapse of the USA at any time. They occupy the nerve centre of the USA’s deep state. The Jews have learned from their disastrous weakness in the Germany. So they have enhanced their leverage in US politics by solid internal unity, huge economic power, powerful media, high educational success and the art of political manoeuvring. Therefore, every USA government –whether democratic or republican, has to donate not only billions of dollar annually to the Israeli economy, but also the most sophisticated weapons to the Israeli Army to appease the American Jews. The USA is compelled to take Israel’s security interest as their own.

 

None on earth appeases or respects the powerless. They are supposed to survive only as slaves. That is exactly the case of the Indian Muslims. The awful powerlessness of 195 million Indian Muslims owes to their lack of leadership, illiteracy, disunity, absence of strong media, paralysed political might and cowardice. Such powerlessness has made them a huge sitting duck; and has encouraged the Hindu supremacists to get an easy takeover. They are yet to realise that casting vote for one party or another is not going to change their fate. They have to change themselves. Whereas in Islam, staying educated, united and strong is not an option, it as a religious obligation. Engaging and investing in politics is the greatest Sunnah of the Prophet (peace be upon him). In fact, the highest investment of the early Muslims were not in building mosques or madrasas, but in changing the political landscape. More than 70 percent of the companions of the Prophet (peace be upon him) even sacrificed their own life to bring change in the political map of the huge part of the globe. Because of their sacrifice, the whole Arab World, Iran, North Africa and Central Asia got a new political and ideological map and identity. The Prophet (peace be upon him) showed the importance of politics by making himself the head of the state. The rightly guided Caliphs also followed his great Sunnah by engaging in politics. But what is the take of 195 million Indian Muslims from the life of Prophet and the early Muslims? They can’t blame others for their own failure. Nobody is there to spoon feed them to make them stronger.   

But the Indian Muslims are known for their own invention. They have invented Tabligh Jamat -the Indian brand of Islam to serve the Muslim ummah. Their practice hardly shows any relevance to Prophet’s Islam which had Islamic state, practice of sharia, hudud, jihad and border-less Muslim unity. Millions of people who take part in Tabligh Jamat have little or no interest in political, educational or intellectual engagement. In fact, the political investment of the people of Tabligh Jamaat is almost zero. The can only make some dowa for wishful changes for themselves and for the ummah. Whereas Allah Sub’hana wa Ta’la has made it clear in the Holy Qur’an that He never changes the fate of a people unless they themselves change their own state. Education, unity, hard work, political engagement, sacrifices of money and blood are key to such change. Dowa works only after such investment. Hence, whatever agonies torment the Indian Muslims today are not the works of the enemies alone; they have earned themselves the most of it by utter neglect of their own obligation. 26.05.19        




আধ্যাত্মিক বিপ্লব কেন ও কীরূপে?

অপরিহার্য কেন আধ্যাত্মিক বিপ্লব?

“আধ্যাত্মিকতা” বলতে আমরা কি বুঝি? কেনই বা অপরিহার্য “আধ্যাত্মিক বিপ্লব”? এবং কীরূপে সম্ভব এ বিপ্লব? এরূপ বিপ্লব না হলেই বা ক্ষতি কি? এ প্রশ্নগুলো অতি গুরুত্বপূর্ণ।এবং অতিশয় গুরুত্বপূর্ণ হলো তাদের জন্য যারা এ বাঁচার মাঝে সার্বিক সাফল্য চায় এবং মৃত্যুর পর জান্নাত পেতে চায়। “আধ্যান” শব্দের বাংলা আভিধানিক অর্থ হলো স্মরণ বা চিন্তন।“আধ্যাত্মিক” শব্দটির মাঝে “আত্মা”র সাথে মিশ্রণ ঘটেছে “আধ্যান” শব্দের।ব্যক্তির মনে মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণে লাগাতর ধ্যানমগ্নতাই হলো আধ্যাত্মিকতা।আরবী ভাষায় মনের এরূপ অবস্থাকে বলা হয় যিকর। যিকরের মাঝেই আত্মার পুষ্টি। পশুর জীবনে সে যিকর থাকে না বলেই সে পশু। মানুষ পশু বা তার চেয়েও নীচু পর্যায়ে পৌঁছে যদি সে যিকর ও ফিকর না থাকে।এখানে ফিকরের অর্থ হলো গভীর চিন্তাশীলতা।আরবীতে এরূপ চিন্তাশীলতা বলা হয় তাফাক্কু,তায়াক্কুল ও তাদাব্বুর। নবীজী (সাঃ) চিন্তাশীলতাকে উচ্চমানের ইবাদত বলেছেন।পবিত্র কোরআনে আ’’ফালা তাফাক্কারুন,আ’’ফালা তাদাব্বারুন,আ’’ফালা তা’ক্বীলূন বলে সে চিন্তাশীলতায় বার বার তাগিদ দেয়া হয়েছে।

আধ্যাত্মিক বিপ্লবের অর্থ মানব মনে মহান আল্লাহতায়ালার যিকর ও ফিকরে বিশাল প্লাবন আনা। সে যিকর ও ফিকর তখন ব্যক্তির মনে সীমিত থাকে না,বরং কূল উপচানো জোয়ারের ন্যায় তা নেমে আসে ব্যক্তির কথা,কর্ম,লিখনি,আচরণ,রাজনীতি,সংস্কৃতি,অর্থনীতি,ব্যবসা-বাণিজ্য ও যুদ্ধবিগ্রহে।ব্যক্তির চেতনারাজ্যের এ বিশাল বিপ্লব তখন মহাবিপ্লব আনে পরিবার,সমাজ ও রাষ্ট্র জুড়ে।তখন পাল্টে যায় দেশের শিক্ষা-সংস্কৃতি,রাজনীতি ও মূল্যবোধ।তখন নির্মিত হয় উচ্চতর সভ্যতা।নবীজী (সাঃ) ও সাহাবায়ে কেরামের আমলে তো সেটিই হয়েছিল।মানব ইতিহাসে এটিই হলো সর্বশ্রেষ্ঠ বিপ্লব।এ বিপ্লবটি ছিল বস্তুত মানব শিশুকে মানবতাসম্পন্ন প্রকৃত মানব রূপে গড়ে তোলার।ফলে এ বিপ্লব ব্যর্থ হওয়ার বিপদটি বিশাল। তখন মানব শিশুর পক্ষে মানব রূপে বেড়ে উঠাটি ব্যহত হয়।তখন সভ্যতার বদলে বাড়ে অসভ্যতা।শান্তির বদলে বাড়ে অশান্তি।

মহান আল্লাহতায়ালা চান,তাঁর সর্বশ্রেষ্ঠ এ মানব সৃষ্টি জৈবিক বা দৈহিক পরিচয়ের বাইরেও প্রবল এক নৈতিক ও আধ্যাত্মিক বল নিয়ে বেড়ে উঠুক। দৈহিক বলে মানব থেকে বাঘ-ভালুক-হাতি-সিংহ বহুগুণ শক্তিশালী। কচ্ছপও মানুষের চেয়ে বেশী দিন বাঁচে। মানুষের প্রকৃত গৌরব ও চ্যালেঞ্জটি বাঘ-ভালুকের ন্যায় শক্তি নিয়ে বাঁচা নয়,কচ্ছপের ন্যায় দীর্ঘ কাল বাঁচাও নয়। বরং নৈতিক গুণ নিয়ে বাঁচায়। মানবের শ্রেষ্ঠত্ব উচ্চতর সভ্যতা নির্মানের লক্ষ্য নিয়ে বাঁচায়। মু’মিনের জীবনে সেটাই মূল মিশন। সে মিশন ভূলে মানব যখনই নিছক পানাহার ও আনন্দ-উল্লাস নিয়ে বাঁচায় ব্যস্ত হয়েছে তখনই পশু থেকে মানুষের পার্থক্যটিও বিলুপ্ত হয়েছে। এরূপ পশুবৎ মানুষটি মর্যাদা হারায় মহান আল্লাহর কাছেও।সমাজে এরূপ মানুষের সংখ্যা বাড়লে আল্লাহর রহমত না এসে তখন আযাব আসে।

তাই আধ্যাত্মিক বিপ্লব অপরিহার্য শুধু ওলি-আউলিয়া,পীর-দরবেশদের জন্য নয়,এটি অপরিহার্য হলো প্রতিটি নারী-পুরুষ,বালক-বৃদ্ধেরও। কারণ,মহান আল্লাহতায়ালার সাথে আত্মিক বন্ধনটি অর্জিত না হলে বান্দার মুসলিম বা ঈমানদার হওয়াটি অসম্পূর্ণ থেকে যায়। শুধু মু’মিন হওয়ার জন্য নয়,মানব শিশুকে এমনকি মানব রূপে বেড়ে উঠার জন্যও সেটি অপরিহার্য।ব্যক্তির জীবনে এ বিপ্লবটি না এলে শুরু হয় আগাতর নীচে নামা। নীচে নামা মানুষটি তখন বর্বরতা ও হিংস্রতায় হিংস্র পশুকেও হার মানায়।আজ অবধি দেশে দেশে রাজনৈতিক ও সামরিক বিপ্লব কম হয়নি। সে সব বিপ্লবে মানুষের জানমালের ক্ষয়ক্ষতির খতিয়ানটি অতি বিশাল। কিন্তু তাতে শান্তি বাড়েনি, প্রতিষ্ঠা পায়নি মানবতাও।মানব জাতির ব্যর্থতাটি এক্ষেত্রে অতি বেদনাদায়ক। পৃথিবী পৃষ্ঠে সবচেয়ে বড় বড় হিংস্র তান্ডবগুলি কোন বন্য পশুদের দ্বারা ঘটেনি।প্লাবন,ঘূর্ণিঝড়,সুনামী,মহামারি বা ভূমিকম্পেও হয়নি।ভয়াবহ যুদ্ধ,বিশ্বযুদ্ধ,গণহত্যা,এথনিক ক্লিন্জিং,উপনিবেশবাদ ও সাম্রাজ্যবাদের ন্যায় বীভৎস কান্ডগুলি ঘটেছে মানবতাশূণ্য বা আধ্যাত্মিকতাশূণ্য মানব-পশুদের হাতে।কম্যুনিস্টদের বিপ্লবে বহু লক্ষ মানুষ প্রাণ হারিয়েছে রাশিয়া ও চীনে। এবং ২০ লাখের বেশী মানুষ মারা গেছে ক্যাম্পুচিয়ায়। সাড়ে সাত কোটি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে মাত্র দুটি বিশ্ব যুদ্ধে। অথচ ইতিহাস জুড়ে এরূপ ধ্বংসাত্মক যুদ্ধের সংখ্যা দুয়েক শত নয়,বরং বড় হাজার। তাছাড়া এরূপ মানব পশুদের পাপাচারের কারণে পৃথিবী পৃষ্ঠে মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে ভয়ানক আযাব নেমে আসার বিপদটিও বিশাল।

 

ইতিহাসের অনন্য বিপ্লব

প্রাথমিক যুগের মুসলিমদের সফলতার মূল কারণটি কৃষি,শিল্প বা কারিগরি বিপ্লব নয়। বরং বিশাল মাপের আধ্যাত্মিক বিপ্লব।সে বিপ্লবের ফলে মানুষ বেড়ে উঠেছিল মহামানব রূপে।বলা হয়,অধিকতর ক্ষমতা মানুষকে অধিক অত্যাচারি,দুর্নীতিপরায়ন ও আরামপ্রিয় করে। ফিরাউন-নমরুদের ন্যায় স্বৈরাচারি শাসকগণ তার উদাহরণ।কিন্তু আধ্যাত্মিক বিপ্লব ক্ষমতাধর মানুষেকেও অতিশয় বিনয়ী ও মাটির মানুষে পরিণত করে।মানুষের চিন্তা,চেতনা,চরিত্র ও কর্ম যে তখন কতটা পাল্টে যায় তার একটি উদাহরণ দেয়া যাক।খলিফা হযরত উমরা (রাঃ) ছিলেন তৎকালীন বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী রাষ্ট্রটির প্রধান। তাঁর আমলে মুসলিমগণ তৎকালীন দুটি বিশ্বশক্তি রোমান ও পারস্য সাম্রাজ্যকে পরাজিত করে প্রধান বিশ্বশক্তি রূপে আত্মপ্রকাশ করে। তার আমলের একটি মাত্র প্রদেশ বালাদে শাম (সিরিয়া)ভেঙ্গে সৃষ্টি হয়েছে আজ কের ৫টি রাষ্ট্র সিরিয়া,লেবানন, জর্দান, ইসরাইল ও ফিলিস্তিন।থানার দারগো বা গ্রামের মাতবরও রাস্তায় সচারচর একাকী হাঁটে না,সেটিকে তারা হীনতা বা অপমান ভাবে।অথচ সে বিশাল রাষ্ট্রটির শাসক মদিনা থেকে জেরুজালেমের দীর্ঘ ৬ শত মাইল পথ সফর করেছেন মাত্র একজন খাদেম ও একটি মাত্র উঠ নিয়ে। পালাক্রমে খাদেমকে উঠের উপর বসিয়ে তিনি নিজ হাতে উঠের রশি টেনেছেন। যখন তাদের যাত্রা জেরুজালেমের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে তখন ছিল হযরতের উমর (রাঃ)র রশি ধরে উঠের সামনে চলার পালা। প্রজাদের কল্যাণে তিনি এতটাই বিভোর থাকতেন যে মাঝ রাতে কাঁধে আটার বস্তা বহন করে ক্ষুদার্ত মানুষের ঘরে পৌঁছে দিয়েছেন। সাবেক কৃষ্ণাঙ্গ ক্রীতদাস হযরত বিলাল (রাঃ)কে তিনি শ্রদ্ধাভরে সম্বোধন করতেন “সাইয়েদুনা বিলাল” অর্থাৎ “আমাদের নেতা বেলাল” রূপে।কারণ সত্যদ্বীনকে চেনার ব্যাপারে হযরত বেলাল (রাঃ) হযরত উমর (রাঃ)এর চেয়ে অগ্রণী ছিলেন এবং অকথ্য নির্যাতনও তাকে ইসলাম থেকে বিচ্যুৎ করতে পারেনি। অথচ সম্ভ্রান্ত আরব সর্দারের পিঠে চাবুক মেরে শাস্তি দিতে তিনি ইতস্ততঃ করেননি। এই ছিল হযরত উমরের আধ্যাত্মিকতা। মহান আল্লাহতায়ালার ভয় হৃদয়ে স্থান পেলে অন্য সবকিছুর ভয় তখন বিদায় নেয়।কাকে অধীক সন্মান দিতে হবে সেটি তিনি শিখেছিলেন খোদ মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষনা থেকে।পবিত্র কোরআনের ঘোষণাঃ “ইন্না আকরামাকুম ইন্দাল্লাহি আতকাকুম” -সুরা হুজরাত আয়াত ১৩)।অর্থঃ নিশ্চয়ই আল্লাহর কাছে সে-ই সর্বধিক সম্ভ্রান্ত যে সর্বাধিক তাকওয়া সম্পন্ন।” তাকওয়ার গুণে সে সমাজে তাই বেলালের মত সমাজের দরিদ্র ও দুর্বলেরা সেদিন অতি সন্মানিত হয়েছেন।সমগ্র ইতিহাসে কোন অমুসলিম রাজা বা শাসক কি একটি দিন,একটি ঘন্টা বা একটি মিনিটের জন্যও এরূপ নজির সৃষ্টি করতে পেরেছে? অথচ এই হযরত উমর (রাঃ)ই নবীজী (সাঃ)র হত্যায় অস্ত্রহাতে রাস্তায় নেমেছিলেন।ইসলাম কবুলের ফলে তিনি এক ভিন্ন মানুষে পরিণত হয়েছিলেন।

 

কীরূপে আধ্যাত্মিক বিপ্লব?

সমাজ বিপ্লবে ইসলামের অবদান শুধু বিশালই নয়,অতূলনীয়ও।কোন ভূ-খন্ডে ইসলাম প্রতিষ্ঠা পেলে পরিবার ও রাষ্ট্র তখন মহামানব গড়ার ইন্ডাস্ট্রিতে পরিণত হয়।অথচ শয়তানি শক্তির হাতে রাষ্ট্র অধিকৃত হলে পরিণতিটি হয় সম্পূর্ণ বিপরীত।তখন রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলি পরিনত হয় মানুষরূপী হিংস্রজীবের উৎপাদন-কেন্দ্রে। ভিয়েতনাম, আফগানিস্তান,ইরাকে যারা লক্ষ লক্ষ মানুষকে হত্যা করলো বা অতীতে যারা রক্তক্ষয়ী ক্রসেড ও বিশ্বযুদ্ধের জন্ম দিয়েছিল তারা জঙ্গলে বেড়ে উঠেনি,বেড়ে উঠেছিল এরূপ রাষ্ট্রীয় ইন্ডাস্ট্রি থেকেই।অথচ রাষ্ট্র সম্পূর্ণ ভিন্নতর ও কল্যাণকর পরিচয় পেয়েছিল নবীজী (সাঃ)ও খোলাফায় রাশেদার আমলে।সে রাষ্ট্রে গড়ে উঠেছিল অসংখ্য উমর।ফলে সম্ভব হয়েছিল ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতার নির্মাণ।তখন রাষ্ট্র পরিণত হয়েছিল আধ্যাত্মিক বিপ্লবের হাতিয়ারে। কত সাধু-সন্যাসীই তো আধ্যাত্মিকতার নামে জঙ্গলে গিয়ে বসবাস করে। হাজার হাজার সুফি-দরবেশ হুজরা,খানকা বা দরগায় গিয়ে আশ্রয় নেয়। কিন্তু তাদের হাতে বিশ্বের কোথাও কি আধ্যাত্মিক বিপ্লব এসেছে? সে সন্যাস ব্রতে নির্মত হয়েছে কি উচ্চতর কোন সভ্যতা? যে ভারতে বহুলক্ষ সাধু-সন্যাসীর বাস সে দেশটিতে বহুকোটি দরিদ্র ও অনগ্রসর মানুষ তো অচ্ছুৎই রয়ে গেছে।অচ্ছুৎদের ঘৃণা করা সন্যাসব্রতে অপরাধ গণ্য হয়না বরং ধর্মীয় কর্ম রূপে বৈধতা পায়।তাই সংসারত্যাগী সাধু-সন্যাসী প্রতিপালন বা আধ্যাত্মিকতার নামে খানকা,হুজরা বা দরগাহ গড়া মহান আল্লাহতায়ালার রীতি নয়,নবীজী (সাঃ)রও সূন্নত নয়।ইসলামের গৌরব যুগে এসব ছিল না।মুসলিম উম্মহর জীবনে ঈমানের স্রোত যখন গতি হারায় তখন আধ্যাত্মিকতার নামে এসব আবর্জনা জমতে শুরু করে।

মহান আল্লাহতায়ালার সাথে নিজ আত্মার বন্ধনটি গভীরতর করার মাঝেই আধ্যাত্মিক বিপ্লব।সে বিপ্লবে গুরুত্ব পায় পার্থিব স্বার্থের বদলে আখেরাতের স্বার্থ।গুরুত্ব পায়,আল্লাহ সুবহানা ওয়া’তায়ালা যা চান বা পছন্দ করেন সেটিকেই নিজ জীবনে প্রায়োরিটি দেয়া।মনের সে বিপ্লবটি অন্ধকার বনে-জঙ্গলে হয় না,জ্ঞানচর্চাহীন সুফিখানকা,পীরের মাজার বা হুজরাতেও হয় না। সে জন্য চাই ওহীর জ্ঞানে আলোকিত মন।সে আলোকিত মনের সৃষ্টিতে ইসলামের নিজস্ব প্রতিষ্ঠানটি হলো মসজিদ ওহীর জ্ঞান বিতরণে পৃথিবী পৃষ্ঠে মহান আল্লাহতায়ালার এটিই একমাত্র আলোকিত ঘর বা ইন্সটিটিউশন।মহান আল্লাহতায়ালার সৈনিকদের জন্য প্রতি জনপদে এটিই মূল প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। মুসলিমগণ যখন বড় বড় যুদ্ধজয় করেছে এবং জ্ঞানচর্চয় বিপ্লব এনেছে তখন মসজিদ ছাড়া তাদের কোন সেনানীবাস ছিল না।কোন বিশ্ববিদ্যালয়ও ছিল না। মসজিদের জায়-নামাজেই ঘটে মু’মিনের জীবনে সবচেয়ে বড় আত্মবিপ্লব।সে বিপ্লবটি ঘটে কোরআনী জ্ঞানে আত্মস্থ হওয়ায় এবং ইবাদতের মাঝে ধ্যানমগ্ন হওয়ায়।

 

মূল অস্ত্রটি কোর’আন

আধ্যাত্মিকতার পথে ঈমানদারের মূল যুদ্ধটি হয় তার নিজ নফস ও খায়েশাতের বিরুদ্ধে।এ যুদ্ধে তরবারি বা গোলাবারুদের ব্যবহার চলে না।অস্ত্রটি এখানে আল কোর’আন। পবিত্র কোর’আনই হলো মহান আল্লাহতায়ালার সাথে বান্দাহর একমাত্র যোগসুত্র। কোর’আনের মাধ্যমেই মহান আল্লাহতায়ালা বান্দাহর সাথে কথা বলেন এবং তাঁর অন্তরে ওহীর ইলম (জ্ঞান) ও হিকমা (প্রজ্ঞা) ঢেলে দেন। নাফসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে এটিই মুমিনের মূল হাতিয়ার।নামাজের শ্রেষ্ঠ অংশটি তাই রুকু-সিজদা নয়, বরং দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দীর্ঘক্ষণ কোরআন পাঠ।বার বার কোরআন পাঠের মাধ্যমে সে তার বিদ্রোহী নফসে হত্যা করে। নবুয়তের প্রথম সাড়ে এগারো বছর ৫ ওয়াক্ত নামাজ ও সে নামাজে আজকের ন্যায় রুকু-সিজদা ছিল না,ছিল দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দীর্ঘরাত ব্যাপী কোরআন তেলাওয়াত। তারাবীর নামাযে নফসের বিরুদ্ধে সে অস্ত্রটির প্রয়োগ আরো দীর্ঘকালীন হয়।মহান আল্লাহতায়ালার নির্দেশঃ “জাহিদু বিহি জিহাদান কবিরা” অর্থঃ “এ দিয়ে (অর্থাৎ কোরআন দিয়ে)বড় জিহাদের যুদ্ধটি চালিয়ে যাও।” রোযা মু’মিনের মনে মহান আল্লাহতায়ালার যিকর বা স্মরণকে পুরা দিবাভাগে জারি রাখে,রাতে সে সংযোগটি আরো গভীরতর হয়।এবং সেটি তারাবীতে কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে।কিন্তু যে ব্যক্তিটি কোরআনের কথাগুলোই বুঝলো না,বা বুঝলেও তাতে ধ্যানমগ্ন হলো না -তার মনে আধ্যাত্মিকতা বাড়বে কেমনে? ঈমানদারের আধ্যাত্মিকতার মূল কেন্দ্রবিন্দুটি হলো কোরআন। মহান রাসূলে পাক (সাঃ)এর ভাষাই পবিত্র কোরআনই হলো যিকরুল্লাহিল হাকীম (প্রজ্ঞাপূর্ণ আল্লাহর যিকর),হাবলুল্লাহিল মাতিন (আল্লাহর মজবুত রশি)ও সিরাতুল মুস্তাকীম (জান্নাতের পথে সরল রাস্তা)।তাই কোরআন থেকে দূর থাকার অর্থ আল্লাহ রাব্বুল আ’’লামীনের যিকর,তাঁর মজবুত রশি ও তাঁর প্রদর্শিত জান্নাতের পথ থেকে দূরে থাকা। এমন দূরে থাকায় আধ্যাত্মিকতা হাওয়ায় হারিয়ে যায়।

মু’মিনের আলোকিত মনে যে চেতনাটি সর্বক্ষণ কাজ করে সেটি মহান আল্লাহতায়ালার দরবারে জবাবদেহীতার দায়ভার।সে চেতনাটিই তাকে প্রতি পদে পথ দেখায়। জাহেলদের অন্ধকার মনে সে জবাবদেহীতার ভাবনা থাকে না,ফলে সিরাতুল মুস্তাকীমে চলায় যেমন আগ্রহ থাকে না,তেমনি সে পথটি পাওয়ার সম্ভাবনাও থাকে না।জাহেলদের থাকে পার্থিব স্বার্থসিদ্ধির প্রবল তাড়না।ফলে থাকে প্রচন্ড পথভ্রষ্টতা।অপর দিকে মু’মিনের জীবনে প্রতিক্ষণের মূল ভাবনাটি জাহান্নামের আগুণ থেকে বাঁচার।এটিই মু’মিনের তাকওয়া।এখানে ধ্যানমগ্নতাটি প্রতিদিন ও প্রতিক্ষণ মহান আল্লাহতায়ালার একান্ত আজ্ঞাবহ গোলাম রূপে বাঁচার;এবং সে সাথে সাথে তাঁরই রাস্তায় প্রাণ বিলিয়ে দেয়ার আকুতি।

“ইসলাম” এর আভিধানিক অর্থ আত্মসমর্পণ।আত্মসমর্পণটি এখানে মহান আল্লাহতায়ালার সর্বহুকুমের প্রতি।এমন আত্মসমর্পিত ব্যক্তিকেই বলা হয় মুসলমান।পবিত্র কোরআনে “উদখুলু ফিস সিলমে কা’আফ্ফা” অর্থঃ “ইসলামে পরিপূর্ণ রূপে দাখিল হয়ে যাও” বলে মহান আল্লাহতায়ালা মূলত সে পরিপূর্ণ আত্মসমর্পণই চেয়েছেন।ফলে ঈমানদারের  বুদ্ধিবৃত্তি,রাজনীতি,সংস্কৃতি,অর্থনীতি,ব্যবসা-বাণিজ্য তথা প্রতিটি কর্ম,চিন্তা ও আচরনের মাঝেই আসে ইসলাম তথা আত্মসমর্পণ।এবং সেটি না আসাটিই বেঈমানি।এরূপ আত্মসমর্পনের মাঝেই মু’মিনের আধ্যাত্মিকতা।দেশের রাজনীতি,সংস্কৃতি,অর্থনীতি ও প্রশাসনের অঙ্গণকে ইসলামচ্যুৎ সেক্যুলারিস্টদের হাতে সমর্পিত করে খানাকা,হুজরা বা দরগায় আশ্রয় নেয়াটি ঈমানদারি নয়,বরং গাদ্দারি।আল্লাহর দ্বীনের কোন আধ্যাত্মিক সৈনিক রাষ্ট্রের কোন একটি অঙ্গণেও আল্লাহর দ্বীনের পরাজয় মেনে নেয় না।প্রকৃত ঈমানদার ঝান্ডা উড়ানোর জন্য দেশ স্বাধীন করে না।ভাষা বা জাতির গর্ব বাড়াতেও যুদ্ধ করে না। অর্থ ও রক্ত ব্যয় করে এবং দেশ স্বাধীন করে স্রেফ আল্লাহতায়ালার সার্বভৌমত্ব ও তাঁর শরিয়তি বিধান প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে।এপথেই মেলে জান্নাত।এখানেই মু’মিনের আল্লাহপ্রেম ও ঈমানদারি।তাদের বন্ধনটি ভাষা,বর্ণ,ভূগোল বা জাতিগত পরিচয় নিয়ে নয়।বরং সেটি রাব্বুল আলামীনের সাথে। সালাউদ্দীন আইয়ুবী তাই কুর্দি হয়েও স্বাধীন কুর্দিস্থান প্রতিষ্ঠার জন্য যুদ্ধ করেননি।বরং আরব,,তুর্ক,কুর্দ সবাইকে সাথে নিয়ে তিনি যুদ্ধ করেছেন মুসলিম উম্মাহর স্বাধীনতা ও সংহতি বাঁচাতে। তাঁর মনে কাজ করেছে আল্লাহপ্রেম ও আধ্যাত্মিকতা।সে আল্লাহপ্রেম ও আধ্যাত্মিকতা নিয়ে মু’মিনগণ জন্মভূমি থেকে হাজার মাইল দূরে গিয়ে জিহাদ করে এবং শহীদ হয়।আল্লাহতায়ালার রাস্তায় শহীদ হওয়ার মাঝেই তাঁরা জীবনের সর্বোচ্চ সফলতা দেখে। ইসলাম বহু হাজার মাইল দূরের বাংলাদেশে পৌঁছেছে তো এমন চেতনাধারিদের ত্যাগের বিনিময়েই।এমন এক আধ্যাত্মিক বিপ্লবের কারণে যুদ্ধের ময়দানে মৃত্যুমুখি আহত ও পীপাসার্ত সৈনিকটি মুখের কাছে পানি পেয়েও পাশের অপর আহত সৈনিককে তা দিতে অনুরোধ করে।আত্মপ্রেমের স্থলে আল্লাহপ্রেম প্রবলতর হলে আচরণ এভাবেই পাল্টে যায়।কিন্তু মুসলমানদের মাঝে সে চেতনার আজ মৃত্যু ঘটেছে। ফলে থেমে গেছে ইসলামের প্রসার;এবং সে সাথে বিলুপ্ত হয়েছে মুসলমানদের শক্তি ও ইজ্জত। তারা ইতিহাস গড়ছে বরং দুর্বৃত্তি ও বিভক্তিতে।

নবীজী (সাঃ)র সাহাবাদের হাতে পীরামিড বা তাজমহল নির্মিত হয়নি।চাঁদের বুকে পা রাখার স্বপ্নও তাঁরা দেখেননি।তাদের জীবনে মূল সাধনাটি ছিল আল্লাহপ্রেমী হওয়ার। মনে ব্যাকুলতা ছিল মহান আল্লাহতায়ার কাছে কোন কর্মটি অতি পছন্দের সেটি জানার এবং প্রচন্ড তাড়না ছিল সে কর্মে প্রাণ বিলিয়ে দেয়ার।ফলে তাদের আগ্রহ বেড়েছিল জিহাদে ও শহীদ হওয়াতে। এর চেয়ে বড় আধ্যাত্মিকতা আর কি হতে পারে? আধ্যাত্মিকতার সে বিপ্লব এসেছিল সাহাবায়ে কেরামদের জীবনে। মহান আল্লাহতায়ালার গর্ব তো এমন মানুষদের নিয়ে।ফেরেশতাদের দরবারে তিনি তাদের প্রশংসা করেন।এরূপ আধ্যাত্মিক ব্যক্তিগণই শয়তান ও তার অনুচরদের মূল শত্রু। ফলে শয়তানি শক্তি চায় না,পৃথিবীর কোন প্রান্তে এমন আধ্যাত্মিক মানব নির্মাণের ইন্ডাস্ট্রি গড়ে উঠুক এবং মুসলিমগণ বেড়ে উঠুক জিহাদের সংস্কৃতি নিয়ে। এজন্যই ইসলামি রাষ্ট্র নির্মাণের বিরুদ্ধে তাদের এতো ক্রোধ এবং বিশ্বজুড়ে গড়েছে বিশাল কোয়ালিশন।পৃথিবীর যেখানেই ইসলামি রাষ্ট্র নির্মাণের প্রচেষ্ঠা সেখানেই শুরু হয় এ শয়তানি কোয়ালিশনের বিমান হামলা। তাদের বোমা বর্ষণে নিহত হয়েছে সিরিয়া ও ইরাকের হাজার হাজার নিরপরাধ নারী,শিশু ও বৃদ্ধ।বিধ্স্ত হয়েছে হাজার হাজার ঘরবাড়ি। তারা চায়,১৩০ কোটির বেশী মুসলমান বাস করুক ইসলামি রাষ্ট্র ও শরিয়তের প্রতিষ্ঠা ছাড়াই। অথচ মুসলমানদের জনসংখ্যা যখন বাংলাদেশের একটি জেলার সমানও ছিল না তখনও কি ইসলামি রাষ্ট্র,খেলাফত ও শরিয়ত ছাড়া তাদের একটি দিন বা একটি ঘন্টাও অতিক্রান্ত হয়েছে?

 

আধ্যাত্মিকতার পরিচয় কীরূপে?


দেশে আধ্যাত্মিকতা কতটা বাড়লো সেটি সুফি-দরবেশ,সুফি খানকাহ,মাজার ও পীর-মুরীদের সংখ্যা দিয়ে নির্ণীত হয় না।সুফি খানকাহগুলোর যিকর,ওজিফা পাঠ ও দরবেশী গানেও সেটি ধরা পড়ে না।বরং সঠিক ভাবে ধরা পড়ে মহান আল্লাহতায়ালার হুকুমের প্রতি আত্মসমর্পণ কীরূপ,কতটা প্রতিষ্ঠা পেল শরিয়তি বিধান,কতটা সংঘটিত হলো জিহাদ,কতজন শহীদ হলো সে জিহাদে এবং কতটা নির্মূল হলো শয়তানি শক্তির বিদ্রোহ -তা দিয়ে।যে দেশের রাজনীতি,শিক্ষা-সংস্কৃতি,অর্থনীতি,প্রশাসন,আইন-আদালত জুড়ে মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনের পরাজয় এবং বিজয় ইসলামের শত্রুপক্ষের -সে দেশের মানুষের আবার কিসের আধ্যাত্মিকতা? তাদের ঈমানদারিই বা কোথায়? বিদ্রোহ বা অবাধ্যতার মাঝে কি আধ্যাত্মিকতা বাঁচে? আল্লাহর রাস্তায় জিহাদ ও শহীদ হওয়ার মাঝেই আধ্যাত্মিকতা তথা মহান আল্লাহতায়ালার সাথে বন্ধনের পরমতম প্রকাশ।জিহাদে তো তারাই যায় যাদের অন্তরের গভীরে মহান প্রভুর সাথে বন্ধনের টানটি প্রবল।শহীদ তো তারাই হয় যারা তাঁর সার্বভৌমত্ব ও তাঁর শরিয়তি বিধানের বিজয় আনতে শুধু শ্রম,মেধা,অর্থ ও সময়ই বিনিয়োগ করে না,নিজের প্রাণও বিলিয়ে দেয়। শুধু চেতনা-রাজ্যে নয়,তাদের কর্মজীবনের সবটুকু জুড়ে থাকে মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণ।সে প্রতি মুহুর্ত বাঁচে মহান আল্লাহতায়ালার খলিফা রূপে নিজ দায়বদ্ধতা নিয়ে। যার মধ্যে এ দায়বদ্ধতা নেই সে ব্যক্তি যত বড় সুফি বা সাধক রূপেই পরিচিত পাক না কেন,আদৌ কি তাকে আধ্যাত্মিক বলা যায়? মু’মিনের যিকর কি স্রেফ মহান আল্লাহতায়ালার নামের যিকর? সেটি তো তাঁর প্রতি দায়বদ্ধতার স্মরণ।মু’মিনের জীবনে এ যিকর প্রায় প্রতি মুহুর্তের।এদের নিয়েই মহান আল্লাহতায়ালা বলেছেন,“(এরা হলো তারা)যারা দাঁড়িয়ে,বসে ও শায়িত অবস্থায় আল্লাহকে স্মরণ করে,এবং চিন্তা করে আসমান-জমিনের সৃষ্টি নিয়ে..”) সুরা আল ইমরান,আয়াত ১৯১)।যিকর ও আধ্যাত্মিকতার এটিই তো প্রকৃত রূপ।আল্লাহতায়ালার প্রতি এরূপ গভীর প্রেম নিয়ে কোন ব্যক্তি কি মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনের অপমান বা পরাজয় সইতে পারে? তাই যে দেশে জনগণের মাঝে আধ্যাত্মিকতা প্রকট,শয়তানি শক্তির দখলদারি বিরুদ্ধে জিহাদও সে দেশে প্রবলতর।তাই নবীজী(সাঃ)র এমন কোন সাহাবা ছিলেন না যিনি জিহাদে যোগ দেননি।অর্ধেকের বেশী সাহাবী শহীদও হয়েছেন।

বিশ্বে আজ মুসলিমদের সংখ্যা বেড়েছে।বিপুল ভাবে বেড়েছে নামাযী ও মসজিদের সংখ্যাও। বেড়েছে সুফি-দরবেশ ও তাদের মুরীদদের সংখ্যাও।এবং আধ্যাত্মিকতার নামে বেড়েছে সুফি তরিকা,খানকাহ,ওরশ এবং ওজিফা পাঠের বিশাল বিশাল আয়োজনও।বেড়েছে ভক্তিগান,গজল, কাউয়ালী ও মারেফতি গান।কিন্তু এতো আয়োজনের মাঝে কতটুকু বেড়েছে আধ্যত্মিকতা বা আল্লাহপ্রেম? কতটুকু বেড়েছে জিহাদে সুফিদের সংশ্লিষ্টতা? কতটুকু প্রতিষ্ঠা পেয়েছে শরিয়ত? বরং মুসলিম বিশ্বজুড়ে যা বেড়েছে তা হলো আল্লাহর দ্বীনের পরাজয়। মুসলিম দেশগুলি আজ  দেশী ও বিদেশী শত্রুদের হাতে অধিকৃত;এবং প্রতিষ্ঠা পেয়েছে কুফরি আইন-আদালত।চোখের সামনে মহান আল্লাহতায়ার দ্বীন ও তাঁর শরিয়তি বিধানের এরূপ পরাজয় দেখেও যে ব্যক্তিটি রাতে নিশ্চিন্তে ঘুমায় এবং সে পরাজয় রুখতে জিহাদে নামে না বা জিহাদের প্রস্তুতিও নেয় না এবং জনগণের সামনে জিহাদের গুরুত্বও তুলে ধরে না -সে ব্যক্তি যতবড় সুফি,পীর,দরবেশ,পীরে কামেল বা আল্লামা বলে খ্যাতি পাক না কেন,তার মধ্যে যে বিন্দুমাত্র আল্লাহপ্রেম বা আধ্যাত্মিকতা নাই -তা নিয়ে কি সন্দেহ চলে? আধ্যাত্মিকতার দাবীতে এরূপ জিহাদবিমুখ ব্যক্তিগণ যে ভণ্ড –সে সাক্ষ্যটি এসেছে খোদ নবীজী (সাঃ) থেকে। নবীজী (সাঃ)র প্রসিদ্ধ হাদীসঃ যে ব্যক্তিটি জিহাদে যোগ দিল না এবং জীবনে কোন দিন জিহাদের নিয়েতও করলো না -সে ব্যক্তিটির মৃত্যু ঘটে মুনাফিক রূপে। এ ভন্ডামী দাড়ি-টুপি ও দরবেশী লেবাস দিয়ে কি লুকানো যায়?

 

আধ্যাত্মিক বিপ্লবে ব্যর্থতা

ঈমানদারের জীবনে নামায,রোযা,হজ,যাকাত ও কোরআন পাঠের ন্যায় যত ইবাদত -তার মূল লক্ষ্যটি ইবাদতকারির জীবনে আধ্যাত্মিক বিপ্লব।ইবাদত যত গভীরতর হয় এ বিপ্লবও ততই প্রবলতর হয়।আধ্যাত্মিক বিপ্লব এলে চারিত্রিক,রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক বিপ্লব তখন অনিবার্য হয়ে উঠে,আগুণ জ্বললে যেমন উত্তাপ অনিবার্য।ইবাদত কতটা সফল তা পরিমাপের মূল মাপকাঠিটি হলো ব্যক্তির জীবনে এই আধ্যাত্মিক বিপ্লব।নামায-রোযা-হজ-যাকাত পালন ও কোরআন পাঠে যদি সে বিপ্লবই না আসে তবে বুঝতে হবে সেগুলি প্রকৃত ইবাদত নয়,নিছক রসম-রেওয়াজ। ইবাদতের অর্থ তো মহান আল্লাহতায়ালার প্রতিটি হুকুমের প্রতি পূর্ণ আত্মসমর্পণ।প্রতিদিন ৫ বার মসজিদে ডেকে নামায তো সে আত্মসমর্পণের প্রশিক্ষণই দেয়। যে ইবাদতে কোরআনী আনুগত্য বা আত্মসমর্পণ সৃষ্টি হয় না -তা কি আদৌ ইবাদত? যে ব্যক্তির আত্মসমর্পণ এমন আইনের প্রতি যে আইনে সূদ,ঘুষ ও পতিতাবৃত্তির ন্যায় জ্বিনাও সিদ্ধ -সে ব্যক্তির ইবাদতকে কি ঈমানদারি বলা যাবে? নামায-রোযা তো নবীজী (সাঃ)র আমলে মুনাফিকগণও পালন করেছে,এমনকি নবীজী (সাঃ)র পিছনে তারা নামাযও আদায় করেছে।কিন্তু সে ইবাদতে মহান আল্লাহতায়ালার সাথে তাদের আত্মিক সম্পর্কটি বাড়েনি। ফলে বাড়েনি আধ্যাত্মিকতাও।বরং যা বেড়েছে তা হলো রাব্বুল আ’’লামীনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ও গাদ্দারি।

পশু বাঁচে তার জৈবিক সত্বা নিয়ে,সে বাঁচায় আধ্যাত্মিকতা নেই। সত্যকে চেনা বা বুঝার ব্যাপারে পশুর কান,চোখ ও ক্বালব কোন সাহায্যই করে না। ব্যক্তির জীবনেও একই রূপ অবস্থা সৃষ্টি হয় ঈমানশূন্যতা ও তাকওয়াশূণ্যতার কারণে।তবে পার্থক্য হলো,পশুর জীবনে অজ্ঞতা থাকলেও আল্লাহতায়ালার দ্বীনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ বা অবাধ্যতা নেই।কিন্তু সে বিদ্রোহ ও অবাধ্যতা আছে মানব পশুদের মাঝে। এমন মানব পশুদের নিয়ে মহান আল্লাহতায়ালার ভাষ্যঃ“…তাদের হৃদয় আছে কিন্তু তা দিয়ে অনুভব করে না,তাদের চোখ কাছে কিন্তু তা দিয়ে দেখে না,তাদের কান আছে কিন্তু তা দ্বারা শোনে না। তারা চতুষ্পদ পশুর মত,বরং তাদের চেয়েও নিকৃষ্টতর।এরাই হলো গাফেল।”–(সুরা আরাফ আয়াত ১৭৯)।প্রশ্ন হলোঃ মহান আল্লাহতায়ালা কি তাঁর পবিত্র জান্নাত এমন চেতনাশূণ্য পশুদের দিয়ে ভরবেন?

দেহ নিয়ে বেঁচে থাকাকে নিশ্চিত করতে মহান আল্লাহতায়ালা পৃথিবী পৃষ্টে নানারূপ পানাহারের ব্যবস্থা করেছেন।আর আত্মার খাদ্য জোগাতে একাধিক কিতাব নাযিল করেছেন।এবং সে সাথে লক্ষাধিক নবীরাসূল পাঠিয়েছেন,এবং তাদের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ওহীর জ্ঞান দিয়েছেন। মানব রূপে বেড়ে উঠার ক্ষেত্রে এ হলো অতি অপরিহার্য প্রয়োজন। সে প্রয়োজন পূরণে পবিত্র কোরআন হলো সর্বশেষ কিতাব।সে অর্পিত মিশন পালনে পবিত্র কোরআনের সামর্থটিও গোপন বিষয় নয়। বস্তুতঃ সমগ্র মানব ইতিহাসে পরিশুদ্ধ আত্মার সবচেয়ে অধিক ও সবচেয়ে সবল মানুষ গড়ে উঠেছে পবিত্র কোরআনের বদৌলতে।মানব জাতির কল্যাণে এটিই হলো মহান আল্লাহতায়ালার সর্বশ্রেষ্ঠ দান।এ দান না পেলে মানুষের পক্ষে মানবিক পরিচয় নিয়ে বেড়ে উঠা কোন কালেই সম্ভব হতো না,তখন মানুষ বাঁচতো নিছক পশু রূপে।

মহান আল্লাহতায়ালার কাছে সর্বশ্রেষ্ঠ দানের মাসটি হলো রামাদ্বান।এবং সর্বশ্রেষ্ঠ সে দানটি হলো আল কোরআন। সে দানকে সম্মানিত করতেই তিনি রামাদ্বানে মাসব্যাপি রোযা ফরয করেছেন।এবং দান করেছেন লায়লাতুল ক্বাদর –যা হাজার মাসের চেয়ে শ্রেষ্ঠতর।বহু গুণ বাড়িয়েছেন এ মাসে সম্পাদিত প্রতিটি নেক কর্মের সওয়াব। এভাবে বুঝিয়েছেন,মানব জাতির জন্য কত বড় গুরুত্বপূর্ণ দান হলো আল কোরআন। প্রশ্ন হলো,পবিত্র কোরআন নাযিল হওয়ার মাস হওয়ার কারণে যে মাসকে মহান আল্লাহতায়ালা এভাবে সন্মানিত করলেন,মুসলিমগণ নিজেরা সে কোরআনকে কতটা সন্মানিত করছে? সেটি কি অর্থ না বুঝে বার বার খতমে তেলাওয়াতের মাধ্যমে? কোরআন হিদায়েতের গ্রন্থ। না বুঝে পড়ায় কি হিদায়েত জুটে? কোরআন নাযিল হয়েছিল সিরাতুল মুস্তাকিম দেখাতে।কিন্তু সে সিরাতুল মুস্তাকীমের অনুসরণই বা কতটুকু? অনুসরণের জন্য তো সে পথের জ্ঞানটি জরুরী। সিরাতুল মুস্তাকিমের অনুসরণ হলে তো মহান আল্লাহতায়ালার সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠা পেত। গড়ে উঠতো ইসলামি খেলাফত।প্রতিষ্ঠা পেত শরিয়তি বিধান।বহুরাষ্ট্রে বিভক্তির বদলে প্রতিষ্ঠা পেত অখন্ডিত ভূগোল। কিন্তু সেটি হয়নি।অথচ এসবই তো সিরাতুল মুস্তাকীমের অবিচ্ছেদ্দ অংশ।সে অংশগুলির প্রতিটিতে পা না রাখলে কি সিরাতুল মুস্তাকীমে চলা যায়? বরং যা প্রতিষ্ঠা পেয়েছে তা তো মহান আল্লাহতায়ালার হুকুমের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। মুসলিম দেশগুলির শাসনতন্ত্র এবং আইন-কানুন ও আদালত হলো সে বিদ্রোহের দলীল। এরূপ বিদ্রোহ বা অবাধ্যতায় মধ্য দিয়ে কি মাহে রামাদ্বানের সন্মান হয়?

 

অধিকৃতি শয়তানের

মহান আল্লাহতায়ালার যিকর বা স্মরণ থেকে দূরে সরার বিপদটি তো ভয়ানক। তখন নিজের উপর অনিবার্য রূপে নিয়োগপ্রাপ্তি ঘটে শয়তানের। তখন সে ব্যক্তির চেতনা অধিকৃত হয় শয়তান ও শয়তানের সৃষ্ঠ ধ্যান-ধারণায়।এটি এক ভয়ানক শাস্তি। এ শাস্তির পরিণামে অসম্ভব হয় হিদায়েত লাভ ও জান্নাত লাভ। মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে সে শাস্তির প্রতিশ্রুতিটি এসেছে এভাবেঃ “এবং যে ব্যক্তি রহমানের স্মরণ থেকে দূরে সরলো তার তার উপর আমরা অবশ্যই নিয়োগ দেই শয়তানের এবং সে তখন তার সঙ্গিতে পরিণত হয়।এবং নিশ্চিত ভাবে তারা তাদেরকে (কোরআনে প্রদর্শিত)পথ থেকে বিচ্যুত করে,অথচ তারা ভাবে তারা সত্যপথ প্রাপ্ত।” –(সুরা যুখরুফ আয়াত ৩৬-৩৭)।আল্লাহর স্মরণ থেকে বিস্মৃত হওয়ার বিপদ যে কত ভয়াবহ -আজকের মুসলিমগণ তো তারই নজির।মুসলিম দেশে যারা ন্যাশনালিজম,ট্রাইবালিজম,সেক্যুলারিজম,লিবারালিজম,মার্কসবাদ,পুঁজিবাদ ও অন্যান্য ইসলামবিরোধী মতবাদের জয়গানে মত্ত তারা তো মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণ ও তাঁর প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে দূরে সরা লোক। তাদের গলায় তো শয়তানের রশি। তাদের বু্দ্ধিবৃত্তি, রাজনীতি,সংস্কৃতি,অর্থনীতি ও আইন-আদালতের অঙ্গণ তো অনৈসলামি ধ্যানধারণা দ্বারা অধিকৃত। এবং তারা নিজেরা পরিণত হয়েছে ইসলামের আন্তর্জাতিক শত্রুপক্ষের কোয়ালিশন-পার্টনারে। তারা ব্যস্ত শত্রুর অস্ত্র নিয়ে মুসলিম দেশগুলিতে মুসলিম নিধনে ও শরিয়তের প্রতিষ্ঠা রোধে।

 

বড় বাধাটি অজ্ঞতা

মানবতা নিয়ে বেড়ে উঠার পথে সবচেয়ে বড় বাধাটি হলো অজ্ঞতা।এটি বিশাল বাধা আধ্যাত্মিকতার ক্ষেত্রেও।পানাহার ছাড়া দেহ বাঁচে না;জ্ঞান ছাড়া তেমনি বাঁচে না ঈমান।তবে সে জ্ঞান কৃষি,পশুপালন,অর্থনীতি,শিল্প বা বিজ্ঞানের জ্ঞান নয়।সেটি হলো পবিত্র ওহীর জ্ঞান।ওহীর জ্ঞানের সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ উৎস হলো পবিত্র কোরআন।একমাত্র কোরআনী জ্ঞানই মানুষকে সিরাতুল মুস্তাকীম চিনতে সাহায্য করে এবং জান্নাতে পৌঁছায়।মহান আল্লাহতায়ালার সাথে মজবুত আধ্যাত্মিক সম্পর্ক গড়ার ক্ষেত্রে একমাত্র এটিই তাঁর রশি।পবিত্র কোরআনে হুকুম দেয়া হয়েছে এ রশিকে মজবুত ভাবে আঁকড়ে ধরার। এবং বলা হয়েছে,যে এ রশিকে আঁকড়ে ধরলো সেই সিরাতুল মুস্তাকীম তথা জান্নাতের পথ পেল।কোরআনের সাহায্যেই মহাজ্ঞানী রাব্বুল আলামীন ব্যক্তির আত্মায় সরাসরি ওহীর বানি পৌঁছিয়ে দেন।আত্মা তখন হিদায়েত পায় এবং ওহীর জ্ঞানে সমৃদ্ধ হয়।ঈমানদারের আত্মা এভাবেই পুষ্টি পায় এবং আধ্যাত্মিক বিপ্লবের জন্য প্রস্তুত হয়।যে মনে ওহীর জ্ঞান নেই,বুঝতে হবে সে মনে আধ্যাত্মিকতাও নাই।

সমাজে কে জাহেল আর কে আলোকপ্রাপ্ত -সেটি নির্ণয়ের মহান আল্লাহতায়ালা নিজের মাপকাঠিটি হলো এই ওহীর জ্ঞান। এ জ্ঞানের অভাবে একজন নবেল প্রাইজ বিজয়ী বিজ্ঞানীও জাহেল হতে পারে,জাহান্নামের যাত্রীও হতে পারে।অতীতে যারা পিরামিডের ন্যায বিস্ময়কর ইমারাত গড়েছে তারা বিদ্যাবুদ্ধি কম ছিল না। কিন্তু তারপরও তাদেরকে জাহেল বা অজ্ঞ বলা হয়েছে,জাহান্নামের বাসিন্দাও বলা হয়েছে।ওহীর জ্ঞানের অভাবে জাহেলদের জীবনে আধ্যাত্মিকতা থাকে না;যা থাকে তা হলো সিরাতুল মোস্তাকীম থেকে পথভ্রষ্টতা।থাকে জাহান্নামের পথে চলার নেশাগ্রস্ততা।জাহান্নামের পথে চলায় প্রতি পদে পথ চিনে চলার প্রয়োজন পড়ে না।জাহেলদের ধর্মে জ্ঞানার্জন তাই ফরজ নয়।অথচ সিরাতুল মুস্তাকীমে প্রতিপদে পা ফেলতে হয় কোরআনি জ্ঞানের আলোয় পথ চিনে। নইলে বিচ্যুতি বা পথভ্রষ্টতা অনিবার্য। ইসলামের শুরুটি তাই কোরআন নাযিল দিয়ে।গাড়ি যেমন মুহুর্তের ভূলে খাদে গিয়ে পড়তে পারে,ব্যক্তিও তেমনি পথভ্রষ্টতার শিকার হতে পারে।আধ্যাত্মিকতার খোঁজে ভন্ড পীর-ফকির-দরবেশের আসরে গিয়ে পৌছার ঘটনাও তাই কম নয়।

মুসলিমের জীবনে মুল ফিকর বা ধ্যানমগ্নতাটি পথভ্রষ্টতা থেকে বাঁচার।এমন ধ্যানমগ্নতা থেকেই জন্ম নেয় মু’মিনের আধ্যাত্মিকতা।দরবেশী বেশভূষা এখানে গুরুত্বহীন।ধ্যানমগ্নতা এখানে সর্বাবস্থায় সিরাতুল মুস্তাকীমে অবিচল থাকার।ঈমানদার ব্যক্তি কৃষক,শ্রমিক,বিজ্ঞানী,প্রশাসক,বিচারক,ছাত্র-শিক্ষক,রাজনীতিবিদ হলেও সে বাঁচে এ ধ্যানমগ্নতা নিয়ে।এমন আধ্যাত্মিকতায় সমাজ ও রাষ্ট্র অতি দ্রুত সভ্যতর হয়।সমাজে তখন অনাবিল শান্তি নেমে আসে। সাহাবাদের আমলে তো সেটিই হয়েছিল।জীবনের মুল পরীক্ষাটি হয় যেমন আধ্যাত্মিকতা নিয়ে বাঁচায়।অথচ মানব জাতির সবচেয়ে বড় ব্যর্থতাটি ঘটে এক্ষেত্রে।ব্যর্থতার এ মহাবিপদ থেকে বাঁচাতেই মহান আল্লাহতায়ালা ওহীর জ্ঞানার্জন প্রত্যেক নরনারীর উপর ফরজ করেছেন এবং লক্ষাধিক নবীরাসূল পাঠিয়ে সাহায্যও করেছেন।সফল তো তারাই যারা সে নেয়ামত থেকে ফায়দা নিয়েছে। মুসলিমের জ্ঞানার্জনের এ পর্বটি স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা বা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি লাভে শেষ হয় না।বরং সে জ্ঞানার্জনের ধারাকে বিরামহীন করতে পব্ত্রি কোরআনের সাথে সে সম্পর্কটি অটুট রাখতে হয়।এবং সেটি কবরে পৌছার পূর্বপর্যন্ত। তাই নবী পাক (সাঃ)এর নির্দেশঃ “উতলুবুল ইলম মিনাল মাহদে ইলাল লাহাদ”। অর্থঃ “দোলনা থেকে কবর অবধি জ্ঞানার্জন করো”। মুসলমানের তাই শুধু স্রেফ মুর্তিপুজা বা নাস্তিকতার বিপদ থেকে বাঁচা নয়,বরং অজ্ঞতার পাপ থেকে বাঁচাও।

 

বিষয় আত্মিক রোগমুক্তির

ব্যক্তির জীবনে অতিশয় গুরুত্বপূর্ণ হলো আত্মিক রোগমুক্তি।আত্মিক রোগমুক্তির উপরই নির্ভর করে ব্যক্তির আত্মিক পরিশুদ্ধি ও আধ্যাত্মিক ভাবে বেড়ে উঠা। অর্থাৎ মানবিক পরিচয় নিয়ে বাঁচা। আত্মার সে রোগমুক্তিতে রয়েছে মহান আল্লাহতায়ালার নির্ভূল চিকিৎসা ব্যবস্থা।পবিত্র কোরআনের ঘোষণা,“হে মানব!তোমাদের কাছে তোমাদের প্রতিপালকের নিকট থেকে এসেছে নসিহত,এসেছে তোমাদের অন্তরে যে রোগ আছে তার আরোগ্য।এবং যারা মু’মিন তাদের জন্য এসেছে হেদায়েত এবং রহমত।”–(সুরা ইউনুস, আয়াত ৫৭)।বলা হয়েছে,“উম্মীদের মধ্য থেকে তিনি একজন রাসূল পাঠিয়েছেন যিনি তাদেরকে তাঁর আয়াতসমূহ তেলাওয়াত করে শোনান,(এভাবে)তাদেরকে পবিত্র করেন,এবং তাদেরকে শিক্ষা দেন কিতাব ও হিকমত। ইতিপূর্বে তো এরাই ছিল ঘোরতর বিভ্রান্তিতে।-(সুরা জুমুয়া,আয়াত ২)। অর্থাৎ কোরআন তেলাওয়াত ও কোরআনের জ্ঞান আত্মস্থ করার মধ্য দিয়ে আসে পবিত্রতা,আসে প্রকৃত শিক্ষা ও প্রজ্ঞা।যে কারণে পবিত্র কোরআন মহান আল্লাহতায়ালার সর্বশ্রেষ্ঠ দান ও আধ্যাত্মিক রোগমুক্তির উপায় -সেটি বুঝার জন্য উপরুক্ত দুটি আয়াতই যথেষ্ট।পবিত্র কোরআনের জ্ঞান ছাড়া আধ্যাত্মিক বিপ্লব দূরে থাক,উচ্চতর মানব ও মানবিক সভ্যতাও গড়া অসম্ভব। মু’মিনের দায়িত্ব হলো,আল্লাহতায়ালার নেয়ামতপূর্ণ ভাণ্ডার থেকে ফায়দা নেয়া।

পশুর জীবনে ওয়াজ-নসিহতের মূল্য থাকে না।কারণ,পশুত্বের উর্দ্ধে উঠে মহান কিছু হওয়া তার লক্ষ্য নয়।সে মিশনটি তো মানুষের। মানুষকে বনজঙ্গলের গুহায় ইতর ভাবে বসবাসের জন্য সৃষ্টি করা হয়নি।বরং তাকে গড়া হয়েছে জান্নাতের উপযোগী হওয়ার জন্য।সে জন্য চাই আত্মায় পরিশুদ্ধি।পরিশুদ্ধির কাজে সহায়তা দানের দায়িত্বটি মহান আল্লাহতায়ালা নিজ হাতে নিয়েছেন।দেহে যেমন রোগ আসে,তেমনি মনেও বার বার বক্রতা ও বিভ্রান্তি আসে।সুস্থ্যতা নিয়ে বাঁচার জন্য চাই সে বিভ্রান্তি ও বক্রতা থেকে দ্রুত আরোগ্য।সে জন্য চাই প্রতিপদে হিদায়াত।হিদায়েতের সে জিম্মাদারি মহান স্রষ্টার।সে লক্ষ্য পূরণেই নায়িল হয়েছে পবিত্র কোরআন।তাই মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষণাঃ “ইন্না আলায়নাল হুদা” অর্থঃ “নিশ্চয়ই পথ দেখানোর দায়িত্ব আমার।” –(সুরা লাইল)।বলা হয়েছে,“এটি (কোরআন) মানব জাতির জন্য সুস্পষ্ট বর্ণনা;এবং মুত্তাকীদের জন্য হিদায়েত ও নসিহত। -(সুরা ইমরান আয়াত ১৩৮)।

ইসলামের প্রথম দিকে মুসলিম জীবনে যখন নামায-রোযা,হ্জ-যাকাত ছিল না এবং কোন স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ও ছিল না তখনও মুসলিম ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ মুসলমান সৃষ্টি হয়েছে এই কোরআনের গুণে। ইসলামের প্রথম শহীদ হলেন হযরত সুমাইয়া (রাঃ) ও তাঁর স্বামী হযরত ইয়াছের (রাঃ)র। মক্কার কাফেরদের নির্মম অত্যাচার তাঁরা নীরবে সয়ে গেছেন,এবং শহীদ হয়ে গেছেন। কিন্তু আল্লাহর দ্বীন থেকে এক বিন্দু্ও তাঁরা সরেননি। মাদ্রাসা বা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে না গিয়েও তাঁরা পেয়েছেন সত্যকে চেনার জ্ঞান।তাকওয়া এবং তাজকিয়ায়ে নাফস তথা আত্মার পরশুদ্ধির এর চেয়ে বড় নমুনা আর কি হতে পারে? আজকের উচ্চ ডিগ্রিধারিগণ পায় কি সে সামর্থ? বিপদের মুহুর্তে তাঁরা পেয়েছেন মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে পবিত্র কোরআনে বর্নিত নসিহত ও হেদায়াত।মুসলমানদের জীবনে নামায-রোযা-হজ-যাকাত বেড়েছে,নফল ইবাদতও বেড়েছে এবং বিপুল ভাবে বেড়েছে মসজিদ মাদ্রাসা।কিন্তু বাড়েনি কোরআনের জ্ঞান। আল্লাহতায়ালা প্রদত্ত নসিহত,হেদায়েত ও জ্ঞানের বাণীগুলোকে যেভাবে নবী (সাঃ)র যুগে আস্তে আস্তে অন্তরের গভীরে ভাল ভাবে বসিয়ে দেয়ার কাজটি হয়েছিল -আজকের মুসলিম সমাজে তা হচ্ছে না।

“কোরআনকে আমি সহজ করে করেছি উপদেশ গ্রহণের জন্য,উপদেশ গ্রহণকারি কেউ আছে কী?” সুরা ক্বামারে মহান আল্লাহতায়ালা এ প্রশ্নটি একবার নয়,৪ বার রেখেছেন।মহান করুণাময়ের প্রত্যাশা,যে পবিত্র কোরআনে করীমকে তিনি সহজ করে নাযিল করেছেন তা থেকে মানব জাতি প্রতিকর্মে উপদেশ নিবে এবং পরিণামে জান্নাত পাবে। জাহান্নামের আগুণ থেকে বাঁচার এছাড়া কি ভিন্ন পথ আছে? কোরআন থেকে উপদেশ নেয়ার বিষয়টি এতই গুরুত্বপূর্ণ যে সেটি বুঝাতে একই সুরায় প্রশ্নটি তিনি ৪ বার রেখেছেন।চিন্তাশীল মানুষের অন্তরে ধাক্কা দেয়ার জন্য কি এটিই যথেষ্ট নয়? অথচ অন্যদের কথা দূরে থাক,খোদ মুসলমানেরা করুণাময় মহান আল্লাহতায়ালার ডাকে সাড়া দেয়নি।মুসলিম ঘরে কোরআন তেলাওয়াত হয় স্রেফ সওয়াব হাসিলের আশায়,হিদায়েত লাভ বা শিক্ষা লাভে নয়।প্রশ্ন হলো,হিদায়েত লাভ না হলে সওয়াব লাভ কীরূপ হবে? আরবী ভাষায় “সওয়াব” হলো বোনাস বা পুরস্কার,হিদায়েত নয়।বোনাস বা পুরস্কার তো তারাই পায় যারা প্রভুর হুকুমের আজ্ঞাবহ ও নিষ্টাবান,অবাধ্য বা বিদ্রোহীদের তা জুটে না। অবাধ্য বা বিদ্রোহীগণ বহিস্কৃত করা হয় এবং শাস্তিও দেয়া হয়।যারা কোরআন থেকে কোন হিদায়েতই নিল না,শরিয়তের প্রতিষ্ঠার বিরুদ্ধে যাদের লাগাতর যুদ্ধ,এবং যাদের রাজনীতি,সংস্কৃতি,পোষাক-পরিচ্ছদ ও আচরণের মাঝে বিদ্রোহের সুর –মহান আল্লাহতায়ালা কি তাদেরকে স্রেফ কোরআন তেলাওয়াতের কারণে সওয়াব দিবেন তথা পুরস্কৃত করবেন?

কোরআনের কথাগুলো যে ব্যক্তি বুঝলোই না -তা থেকে সে ব্যক্তি হিদায়েত পাবে কীরূপে? ওহীর জ্ঞানকে সে নিজ মনের গভীরে বসাবেই বা কি করে? কোরআন না বুঝার কারণে তখন ব্যক্তির লাগাতর দুরত্ব বৃদ্ধি পায় খোদ মহান আল্লাহতায়ালা থেকে।এবং তখন বাড়ে পথভ্রষ্টতা।তাতে অসম্ভব হয় ইসলাম থেকে কল্যাণ লাভ।এবং অসম্ভব হয় আল্লাহতায়ালার সাহায্য লাভ।যে ব্যক্তি মহান আল্লাহতায়ালা থেকে এভাবে দুরে সরলো এবং যিকরশূণ্য হলো,তার মন ও মনন যে শয়তানের দ্বারা অধিকৃতি হবে সেটিই তো কোরআনে ঘোষিত মহান আল্লাহতায়ালার প্রতিশ্রুতি।ফলে পৃথিবীতে মুসলিমের সংখ্যা বাড়লেও ইসলামের প্রতিষ্ঠার বাড়ছে না।বরং বাড়ছে ভিতরে ও বাইলে শয়তানি শক্তির বিজয়।অথচ আল্লাহতায়ালা ও তাঁর পবিত্র কোরআনের সাথে সংযোগ বাড়াতে প্রাথমিক যুগের অনারব মুসলিমগণ নিজেদের মাতৃভাষাকে পরিত্যাগ করে আরবী ভাষাকে গ্রহণ করেছিল।সে আমলে কোরআনের ভাষা শেখাটি এতটাই সহজ প্রমাণিত হয়েছে যে ভাষা শিখতে মিশর,সূদান,মরক্কো,তিউনিসিয়া, আলজিরিয়া,লিবিয়া,মৌরতানিয়া,সিরিয়া,ইরাকসহ বিশাল এলাকার জনগণকে স্কুল-কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে হয়নি।

 

সবচেয়ে বড় ব্যর্থতাটি

মানব জাতির সবচেয়ে বড় ব্যর্থতাটি কৃষি,শিল্প,বিজ্ঞান বা ব্যবসা-বাণিজ্যে নয়।বরং সে ভয়ানক ব্যর্থতাটি আধ্যাত্মিকতায়।সভ্যতার নামে যুগে যুগে যা বেড়েছে তা সভ্যতা নয়,বরং নিদারুন অসভ্যতা। ইতিহাসে সে উদাহরনও কি কম? প্রাচীন মিশরীয় সভ্যতার বড় বড় পিরামিড এবং ইউরোপীয় সভ্যতার বিশাল বিশাল শহর ও শিল্পস্থাপনা তো সে অসভ্যতারই প্রতীক।পিরামিড গড়তে পাথর চাপায় মারা গেছে হাজার হাজার দাসশ্রমিক।পিরামিডগুলো তো সেটিই স্মরণ করিয়ে দেয়। ইউরোপীয়দের জৌলুস বাড়াতে এশিয়া-আফ্রিকা ও আমিরিকার কোটি কোটি মানুষকে ঔপনিবেশিক শাসনের নিষ্ঠুর নির্যাতন সইতে হয়েছে।তাদের পরিচালিত ইথনিক ক্লিন্জিংয়ে প্রায় নির্মূল হয়ে গেছে আমিরিকার রেড ইন্ডিয়ান,অস্ট্রেলিয়ার অ্যাব-অরিজিন ও নিউজিল্যান্ডের আদিবাসি মাউরী জনগণ।গরু-ছাগলের ন্যায় হাটে তুলে বেচা-বিক্রি করা হয়েছে লক্ষ লক্ষ আফ্রিকানদের। ব্রিটিশ পণ্যের কাটতি বাড়াতে বাংলার মসলিন শিল্পিদের হাতের আঙ্গুল কাটা হয়েছে।পাশ্চাত্য অসভ্যতার আরেক অসভ্য সৃষ্টি হলো ইসরাইল।ফিলিস্তিনের আদিবাসীদের নির্মূলের মধ্য দিয়ে তারা প্রতিষ্ঠা করেছে অতি আগ্রাসী ও বর্ণবাদি রাষ্ট্র ইসরাইল।পাশ্চাত্য সভ্যতার অতি ভয়ংকর দুটি উপহার হলো দুটি বিশ্বযুদ্ধ।সাড়ে ৭ কোটি মানুষ হত্যার পাশাপাশি এ দুটি বিশ্বযুদ্ধে যে পরিমান সম্পদ হানি করেছে তা দিয়ে সমগ্র বিশ্বের মানুষ বহুযুগ বিনাশ্রমে আরাম-আয়াশে কাটাতে পারতো।এত সম্পদহানি অতীতে কোন ভূমিকম্প,সুনামী বা ঘূনিঝড়ে হয়নি।হালাকু চেঙ্গিজের বর্বরতাকে এ ধ্বংসযজ্ঞ ম্লান করে দিয়েছে।তবে বিনাশের সে বর্বর ধারা দুটি বিশ্বযুদ্ধে শেষ হয়নি।ভিয়েতনাম,আফগানিস্তান ও ইরাকে আগ্রাসন ও ধ্বংসযজ্ঞ হলো নতুন সংযোজন। প্রাণনাশী ও সম্পদবিনাশী যুদ্ধবিগ্রহের সে পাশ্চাত্য ধারা আজও  অব্যাহত রয়েছে।যুদ্ধের ঘোষণা না দিয়েও চলছে ড্রোন হামলায় হত্যাকান্ড।মানবহত্যাকে পাশ্চাত্য সভ্যতার ধারকেরা এভাবে এক বিশাল শিল্পে পরিণত করেছে।তারা চালু করেছে গোয়ান্তানামো বে ও আবু গারিবের সংস্কৃতি। জুয়া,মদ্যপান,অশ্লিলতা,পর্ণগ্রাফীর সাথে ফিরিয়ে এনেছে সমকামীতার ন্যায় আদিম পাপাচার। এগুলিকে সভ্যতা ও আধুনিকতা বললে অসভ্যতা আর কাকে বলা যাবে?

পশুর বল তার দেহে,সেখানে কোন আধ্যাত্মিকতা থাকে না।তেমনি আধ্যাত্মিক থাকে না কাফেরদের যুদ্ধবিগ্রহ ও বিপ্লবেও।ফলে সেসব যুদ্ধ-বিগ্রহ ও বিপ্লবে জানমালের স্রেফ ক্ষয়ক্ষতিই বেড়েছে।তাতে বড়জোর বহুদেশের সরকার ও মানচিত্র পাল্টে গেছে।কিন্তু তাতে মানুষের চরিত্র পাল্টায়নি,শান্তিও আসেনি।মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণ বা আধ্যাত্মিকতা নিয়ে বেড়ে না উঠলে মানুষ যে কতটা ধ্বংসমুখি ও জাহান্নামমুখি হয় –এ হলো তার উদাহরণ।তাই মানব-ইতিহাসের বড় শিক্ষাঃ স্রেফ যুদ্ধবিগ্রহ ও বিপ্লবে শান্তি বা কল্যাণ নাই।আখেরাতেও কোন কল্যাণ নাই।যেগুণটি মানুষকে অন্য জীবজন্তু ও সৃষ্টিকূল থেকে শ্রেষ্ঠতর দেয় সেটি তার দৈহিক বল নয়,সেটি আধ্যাত্মিক গুণ।মানবসমাজ একমাত্র তখনই মানবিক পরিচয় পায় ও শান্তির সন্ধান পায় যখন সে আধ্যাত্মিক শক্তির বৃদ্ধি ঘটে।

ব্যক্তির জীবনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মহৎ ও বিপ্লবটি গুণটি হলো তাকওয়া।এ গুণটি যেমন ব্যক্তির জীবনে আলোকিত বিপ্লব আনে,তেমনি মহান আল্লাহতায়ালার চলার পথে তীব্র গতিময়তা আনে। সে গতিময়তা বিপ্লব আনে উম্মাহর জীবনেও। সমাজ ও সভ্যতা তখন সামনে এগুয়। নইলে জীবন পরিণত হয় সকাল থেকে সন্ধা,সন্ধা থেকে সকাল –এরূপ বৃত্তাকারে ঘূর্ণায়মান এক গতিহীন জীবনে। প্রাচীন অজ্ঞতা,উলঙ্গতা,পাপাচার ও সমকামিতার ন্যায় নানা পাপাচার তখন সমাজে বার বার ফিরে আসে।এ কারণেই প্রাচীন জাহিলিয়াত তো পাশ্চাত্য সভ্যতায় আবার ফিরে এসেছে।তাছাড়া ইবাদত কবুলের শর্ত হলো তাকওয়া। নামায-রোযা,হজ-যাকাত তো বহু মানুষই আদায় করে।প্রতি বছর বহু লক্ষ মানুষ দেয় পশু কোরবানী।কিন্তু সবার ইবাদত বা কোরবানী কি কবুল হয়? কোরবানী দিয়েছিলেন হযরত আদম (আঃ)এর দুই পুত্র হাবিল ও কাবিল।হাবিলের কোরবানী কবুল হয়েছিল কিন্তু কবুল হয়নি কাবিলের। কারণ কাবুলের কোরবানীতে তাকওয়া ছিল না।বরং ছিল অবাধ্যতা।সে অবাধ্যতার কারণেই সে তার ভাই হাবিলকেও খুন করে।শুধু আমল কবুল নয়,পাপ মোচনেও তাকওয়ার বিকল্প নেই। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে,“যে ব্যক্তি আল্লাহকে ভয় করলো (তথা তাকওয়ার অধিকারি হলো)তাঁর পাপ তিনি মোচন করে দিবেন।”–(সুরা তালাক,আয়াত ৫)।তাকওয়ার বলেই ব্যক্তি পায় আল্লাহর প্রতিটি হুকুমে লাব্বায়েক তথা আমি হাজির বলার সামর্থ।সেটি যেমন নামায-রোযা,হজ-যাকাত পালনের ক্ষেত্রে তেমনি রাষ্ট্র জুড়ে শরিয়তি বিধান,সূদমূক্ত অর্থনীতি ও দুর্বৃত্তমুক্ত প্রশাসন প্রতিষ্টার ক্ষেত্রে। যার মধ্যে মহান আল্লাহতায়ালার হুকুমে লাব্বায়েক বলার সে সামর্থ নাই,বুঝতে হবে তার মধ্যে তাকওয়াও নাই। এমন ব্যক্তিগণ মুখে যাই বলুক কার্যত তারা আল্লাহর অবাধ্য ও বিদ্রোহী। এমন বিদ্রোহের পরও কি তাদের ঈমান যাচায়ে বিরাট পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন আছে।এমন বিদ্রোহীদের কারণেই মহান আল্লাহতায়ালার শরিয়তি বিধান খোদ মুসলিম দেশে আস্তাকুঁড়ে গিয়ে পড়েছে।সূদ,জুয়া,অশ্লিলতা,পতিতাবৃত্তির ন্যায় নানারূপ অপরাধ কর্ম তখন সরকারি প্রশাসন,পুলিশ ও আদালতের প্রটেকশন পায়।অধিকাংশ মুসলিম দেশ বস্তুত অধিকৃত এরূপ বিদ্রোহীদের হাতেই।

 

নাশকতা শয়তানের

মহান আল্লাহতায়ালা চান,তাঁর গড়া সুন্দর পৃথিবীটি পরিশুদ্ধ ও উচ্চতর গুণের মানবে পূর্ণ হোক। তিনি চান,প্রতিটি মানব শিশু নিয়ামতপূর্ণ জান্নাতের বাসিন্দা হওয়ার যোগ্যতা নিয়ে বেড়ে উঠুক,এবং নির্মূল হোক এ ধরাধামে দুর্বৃত্তদের আধিপত্য ও দুর্বৃত্তকরণের প্রক্রিয়া। নির্মিত হোক মানবতায় পরিপূর্ণ এক মহান সভ্যতা। তবে সে কাজে অপরিহার্য হলো নৈতিক ও আধ্যাত্মিক বিপ্লব। সেটি যেমন ব্যক্তির জীবনে,তেমনি পরিবার,সমাজ ও রাষ্ট্র জুড়ে।সে লক্ষ্য পূরণেই মহান আল্লাহতায়ালা লক্ষাধিক নবী-রাসূল পাঠিয়েছেন,তেমনি নাযিল করেছেন ৪ খানি ধর্মীয় গ্রন্থ। সে ধারায় পবিত্র কোরআন হলো সর্বশেষ কিতাব। কিন্তু মহান আল্লাহতায়ালার সে আয়োজনের বিরুদ্ধে শয়তানের আয়োজনটিও বিশাল। মুসলিম রাষ্ট্রগুলি মূলত শয়তানি শক্তির হাতেই অধিকৃত। তাদের হাতে রয়েছে ইসলামি চেতনা বিনাশী অসংখ্য রাজনৈতিক,সাংস্কৃতিক,সামাজিক,অর্থনৈতিক ও সামরিক প্রতিষ্ঠান। সকল রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান ব্যবহৃত হচ্ছে ইসলামের বিরুদ্ধে হাতিয়ার রূপে।সংকুচিত হয়েছে কোরআন শিক্ষা। অপর দিখে বিনিয়োগ বেড়েছে গান-বাজনা,খেলাধুলা,নাটক,টিভি,সিনেমা,সাহিত্য ও পত্র-পত্রিকায়। প্রতি জনপদে গড়া হয়েছে মদ্যশালা,নাট্যশালা,সিনেমা হল,পতিতাপল্লি,সূদী ব্যাংক,ক্লাব-ক্যাসিনো গড়া হয়। লক্ষ্য,সিরাতুল মুস্তাকীম থেকে বিচ্যুত করা ও পাপের পথে টানা।তখন কি সম্ভব আধ্যাত্মিক ভাবে বেড়ে উঠা?

 

শয়তানের হাতিয়ার

মানব জীবনে মহামূল্যবান সম্পদটি হলো সময়।মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে এটি এক মহামূল্য আমানত।সে আমানতের বড় খেয়ানত হয় অপচয়ে। মৃত্যু ঘনিয়ে এলে কোটি কোটি টাকা ব্যয়েও এক মুহুর্ত সময় বাড়ানো যায় না। অর্থ অপচয়কারিকে শয়তানের ভাই বলা হয়েছে। কিন্তু যারা মহামূল্য সময় অপচয় করে তাদেরকে কি বলা যাবে? মহান আল্লাহতায়ালার কাছে কি এ অপচয়ের হিসাব দিতে হবে না? অথচ বিনোদনের নামে এরূপ বিশাল অপচয়কে জাতীয় সংস্কৃতিতে পরিণত করা হয়েছে।আল্লাহতায়ালার স্মরণ ও তাকওয়া বিনাশে শয়তানের হাতিয়ার বহু। সেগুলি যেমন নাচ-গান,যাত্রা ও কুসাহিত্য,তেমনি হলো খেলাধুলা।খেলায় বা খেলা দেখায় যে মন বিভোর সে মনে কি পরকালের ভয়-ভাবনা থাকে? থাকে কি আল্লাহতায়ালার যিকর। যিকরশূণ্য সে মন তখন অধিকৃত হয় শয়তানের হাতে। ফলে নামাযের ওয়াক্ত অতিক্রান্ত হলেও উঠার হুশ থাকে না। শয়তান তো এভাবেই মহান আল্লাহতায়ালা ভয় ও তাঁর স্মরণকে বিলুপ্ত করে।শত শত কোটি ঘন্টা এভাবেই বিনোদনের নামে হারিয়ে যায়। মুসলিম উম্মাহর জীবনে প্রতিবছর এ অপচয়ের পরিমান বহু ট্রিলিয়ন ঘন্টা।এর সিকি সময় দ্বীনের দাওয়াত ও জিহাদে ব্যয় হলে মুসলিম বিশ্ব থেকে বহু পূর্বেই শত্রুশক্তির দখলদারি বিলুপ্ত হতো এবং ইসলাম আবির্ভূত হতো বিশ্বশক্তি রূপে।পার্থিব জীবন তো পরীক্ষা কাল।মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষণা,“(তিনিই সেই আল্লাহ)যিনি সৃষ্টি করেছেন মৃত্যু ও জীবন যাতে পরীক্ষা করতে পারেন তোমাদের মধ্যে কর্মে কে উত্তম।”–(সুরা মুলক আয়াত ২)।প্রশ্ন হলো,পরীক্ষা দিতে বসে কেউ কি বিনোদনে ব্যস্ত হয়? বিনোদনে কি ধ্যানমগ্নতা সম্ভব? সম্ভব কি আধ্যাত্মিক উন্নয়ন? অথচ শয়তান সেটিই চায়। শয়তানি শক্তির হাতে ব্যক্তি,সমাজ ও রাষ্ট্র অধিকৃত হওয়ার সবচেয়ে বড় বিপদটি তো এখানেই।

 

অপরিহার্য কেন রাষ্টবিপ্লব?

আধ্যাত্মিক বিপ্লবের জন্য যা অতি অপরিহার্য তা হলো ইসলামি রাষ্ট্র বিপ্লব। আত্মার খোরাক যেমন বন-জঙ্গলে মেলে না,তেমনি শয়তানের অধিকৃত অনৈসলামিক রাষ্ট্রেও মেলে না।রাষ্ট্রের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ রাস্তাঘাট,শিল্পকারখানা বা হাসপাতাল গড়া নয়। বাঘ-ভালুক থেকে বাঁচানোও নয়; বরং অতিগুরুত্বপূর্ণ কাজটি জনগণকে জাহান্নামের আগুণ থেকে বাঁচানো। মানব জীবনে এটিই সবচেয়ে বড় বাঁচা।নইলে অনন্ত অসীম কালের জন্য ঘর হয় জাহান্নামের আগুণে। সে সাথে রাষ্ট্রের দায়িত্ব হলো,সিরাতুল মুস্তাকীমে তথা জান্নাতের পথে টানার। এটিও বিশাল শ্রমসাধ্য ও ব্যয়সাধ্য কাজ। জাহান্নামের আগুণ থেকে জনগণকে বাঁচানো ও জান্নাতের পথ দেখানোর কাজটি মূলত নবীরাসূলদের কাজ। নবী-রাসূলদের অবর্তমানে সে কাজটি নিজ দায়িত্বে নেয় ইসলামি রাষ্ট্র। ইসলামি রাষ্ট্রের অবর্তমানে সে কাজ ব্যক্তি ও পরিবারের পক্ষে অতি কঠিন হয়ে পড়ে। ইসলামি রাষ্ট্র নির্মাণ ও সে রাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা এজন্যই মু’মিনদের জীবনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ। একাজে  ব্শেীর ভাগ নবীজী (সাঃ)র সাহাবা শহীদ হয়ে গেছেন। অথচ শয়তানি শক্তির মিশন হলো,একাজে মুসলমানদের নির্লিপ্ত করা।

ইসলামের মহান নবীজী (সাঃ) শুধু কোরআন-হাদীস রেখে যাননি,জনগণকে জান্নাতের পথে নিতে একটি শক্তিশালী রাষ্ট্রও রেখে যান। প্রতিটি ঈমানদারের দায়িত্ব শুধু নামায-রোযা ও হজ-যাকাত পালন নয়, বরং সে রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠায় ও প্রতিরক্ষায় আমৃত্যু সৈনিক হয়ে যাওয়া।এটিই নবীজী (সাঃ)র পক্ষ থেকে খেলাফত তথা প্রতিনিধিত্বের দায়ভার। এ রাষ্ট্রের পাহারায় এক মুহুর্ত ব্যয় করাকে নবীজী (সাঃ) সারা রাতের নফল ইবাদতের চেয়ে শ্রেষ্ঠ বলেছেন। শত্রুর হামলার মুকে প্রতিরক্ষার কাজকে জিহাদের মর্যাদা দেয়া হয়েছে। এ ইবাদতে প্রাণ গেলে তাঁকে মৃত বলাকে মহান আল্লাহতায়ালা হারাম করে দিয়েছেন। এমন শহীদদের জন্য তিনি সরাসরি জান্নাতে প্রবেশের বিধান রেখেছেন। আজকের মুসলমানদের বড় ব্যর্থতা নামাযী,রোযাদার বা হাজি হওয়াতে নয়,মসজিদ-মাদ্রাসা গড়াতেও নয়,বরং আল্লাহর দ্বীনের মুজাহিদ হওয়াতে। বিলুপ্ত ঘটেছে আল্লাহর পথে জিহাদ ও খেলাফতের। এবং যেদিন থেকে বিলুপ্ত হয়েছে খেলাফত, সেদিন থেকেই মুসলিম দেশগুলি অধিকৃত হতে শুরুকরেছে ইসলামের শত্রুপক্ষের হাতে। বিচ্যুতি বেড়েছে সিরাতুল মুস্তাকীম থেকে। এবং বিলুপ্ত হয়েছে ইসলামের শরিয়তি বিধান। আর শরিয়ত পালন না হলে কি ইসলাম পালন হয়? মহান আল্লাহতায়ালার হুশিয়ারিঃ “মান লাম ইয়াহকুম বিমা আনাযাল্লাহু ফা উলায়িকা হুমুল কাফিরুন, …হুমুল যালিমুন, …হুমুল ফাসিকুন” অর্থ আল্লাহ যে বিধান নাযিল করেছেন তা অনুযায়ী যারা বিচার ফয়সালা করে না তারাই কাফির, ….তারাই যালিম, ….তারাই ফাসিক।” –সুরা মায়েদা আয়াত ৪৪, ৪৫, ৪৭)। কাফির,যালিম ও ফাসিক হওয়ার জন্য কি তাই মুর্তিপুজারি,অগ্নিপুজারি বা নাস্তিক হওয়ার প্রয়োজন পড়ে? দেশের বিচার কাজ থেকে মহান আল্লাহর নাযিলকৃত শরিয়তি বিধানের অপসারণই যথেষ্ঠ।অজ্ঞতা অবাধ্যতাই বাড়াই।জাহিলিয়াতের এটিই তো খাসলত।মুসলিম দেশে তাই বেড়েছে শরিয়তের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। ঔপনিবেশিক শাসনের বদৌলতে মুসলমানদের চেতনা রাজ্যে ঘন মেঘের ন্যায় ছেয়ে আছে জাহিলিয়াত।সে মেঘ দিন দিন আরো ঘনিভূত হচ্ছে। অথচ স্রেফ সাহাবায়ে কেরামের সময় নয়,এমন কি ঔপনিবেশিক কাফরদের হাতে অধিকৃত হওয়ার পুর্বে মুসলিম দেশগুলিতে কি এমন একটি দিনও অতিক্রান্ত হয়েছে যখন আদালতে শরিয়তি আইন ছিল না? ইসলামি রাষ্ট্র নির্মিত না হলে ইসলাম পালন এভাবেই অসম্ভব হয় এবং জনগণ ইসলাম থেকে দুরে সবে।তখন মুসলিম দেশে বৃদ্ধি পায় মুসলিম নামধারি কট্টোর কাফের,জালেম ও ফাসেকদের সংখ্যা। ইসলামের প্রচার ও প্রতিষ্ঠা নিয়ে তখন খোদ মুসলিম দেশে জিহাদ করতে হয়!

মানুষের চিন্তা-চেতনা,আচার-আচরণ,কর্ম ও সংস্কৃতিতে পরিবর্তন আনা মামুলী বিষয় নয়। অন্যের বিরুদ্ধে দূরে থাক,একাকী এমন কি নিজের নফসের বিরুদ্ধে জিহাদে বিজয় লাভও অনেক সময় অসম্ভব হয়ে পড়ে। অনৈসলামিক রাষ্ট্রে এমনকি নিজ পরিবারে সদস্যদের উপর নিয়ন্ত্রন রাখা ও তাদেরকে ইসলামের পথে রাখা অতি কঠিন।অতীতে ব্যর্থ হয়েছেন এমন কি নবীও।আজ  ব্যর্থ হচ্ছেন অনেক আলেম পরিবার। কারণ শয়তান ও নিজ নফসের বিরুদ্ধে জিহাদের মূল হাতিয়ারটি হলো আল কোরআনের গভীর জ্ঞান।কিন্তু সে জ্ঞান কি অনৈসলামি রাষ্ট্রের স্কুল-কলেজ,মিডিয়া বা সাহিত্যে মেলে? সেগুলি বরং শিশুমনকে ইম্যুনাইজড করে ইসলামের বিরুদ্ধে। বীজ থেকে চারা বৃক্ষ রূপে বেড়ে উঠার জন্যও তো অনুকুল পরিবেশ চায়, বীজ ঝোপঝাড়ে পড়লে তা বেড়ে উঠে না।তাই পবিত্র কোরআনের হাজার হাজার কপি কাফের অধ্যুষিত দেশে পাওয়া গেলেও তা থেকে সচারাচর মুজাহিদ গড়ে উঠে না।এজন্যই কাফের দেশে বসবাস কোন কালেই জায়েজ বিবেচিত হয়নি। বরং উৎসাহ দেয়া হয়েছে হিজরতের।ইসলামের শত্রুপক্ষের হাতে কোন মুসলিম রাষ্ট্র অধিকৃত হলে একই রূপ বিপদ ঘটে সেদেশেও। সে রাষ্ট্রে তখন অসম্ভব বা দুঃসাধ্য হয় ইসলাম পালন ও আধ্যাত্মিক বিপ্লব। তখন রাষ্ট্রের সকল প্রতিষ্ঠান কাজ করে আল্লাহর স্মরণকে ভূলিয়ে দেয়ার কাজে। অন্যসব নবী-রাসূলদের তূলনায় মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)র সাফল্যের বড় কারণ,তাঁর হাতে রাষ্ট্র ছিল। তাঁর মহান নেতৃত্বে রাষ্ট্রের প্রতিটি প্রতিষ্ঠান জনগণকে সিরাতুল মুস্তাকীমের পথে রাখতে সাহায্য করেছিল। সে ধারা অব্যাহত থাকে এবং রাষ্ট্র বলবান হয় খেলাফতে রাশেদার আমলে।ফলে অতিদ্রুত ইসলামের বিস্তার ঘটে সমগ্র বিশ্বজুড়ে।

বাস-যাত্রীদের সবাই যদি মাতাল বা পাগল হয় তবুও সে বাস গন্তব্যস্থলে পৌছে -যদি সে বাসটির ড্রাইভার সুস্থ্য ও সঠিক থাকে। কিন্তু ড্রাইভার মাতাল বা পাগল হলে যাত্রীদের দোয়া-দরুদ পাঠও কাজ দেয় না।একই অবস্থা হয়েছে ইসলামি শত্রুপক্ষের হাতে অধিকৃত মুসলিম রাষ্ট্রগুলির অবস্থা। ক্ষমতালোভী সরকারগুলি দেশে দেশে ইসলাম পালন অসম্ভব করেছে।এভাবে অসম্ভব করে তুলেছে জান্নাতের পথে চলা।এদের কারণেই মুসলিম রাষ্ট্রগুলি আজ  সিরাতুল মুস্তাকীম থেকে বিচ্যুত। রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের কাজ হয়েছে,ব্যক্তির মনের ভূবন থেকে মহান আল্লাহর স্মরণকেই বিলুপ্ত করা। কম্যুনিস্ট শাসনামলে সোভিয়েত রাশিয়ায় হাজার হাজার মসজিদকে ঘোড়ার আস্তাবল বানানো হয়েছে। চীনের সিনজিয়াং প্রদেশে উইগুর মুসলমানদের উপর রোযা রাখায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। জিহাদ বিষয়ক বই বাজেয়াপ্ত করছে বাংলাদেশের বর্তমান সরকার। সন্ত্রাস রূপে চিত্রিত হচ্ছে নবীজী (সাঃ)প্রদর্শিত সিরাতুল মুস্তাকীমে ফিরে যাওয়ার চেষ্টা। ইসলামের শত্রুপক্ষ নবীজী (সাঃ)র এ ইসলাম মেনে নিতে রাজী নয়। নবীজী (সাঃ)র ইসলাম রুখতে তারা আন্তর্জাতিক কাফের কোয়াশিনের সাথে জোট বেঁধেছে। ইসলাম বলতে ক্ষমতাসীন দুর্বৃত্তগণ সেটিই বুঝে যা তারা নিজেরা পালন করে। মুসলিম দেশগুলির মূল সমস্যা তো ইসলামের শত্রুদের হাতে এরূপ অধিকৃতি। অথচ জনগণ সে অধিকৃতি থেকে মুক্তির জিহাদ না করে দোয়াদরুদ পাঠে দায়িত্ব সারছে!দেশের ড্রাইভিং সিট থেকে দুর্বৃত্তদের সরানোর জিহাদে তারা অংশ নিতে রাজি নয়।এ পথে কি মহান আল্লাহর সাহায্য মেলে? আখেরাতেও কি মুক্তি মিলবে?

 

ঘরের শত্রু

সিরাতুল মুস্তাকীমের পথটি স্রেফ নামায-রোযা,হজ-যাকাতের পথ নয়;এ পথে যেমন জিহাদ আছে,তেমনি ইসলামি খেলাফতও আছে। আছে শরিয়তের পূর্ণ প্রতিষ্ঠাও।ব্যক্তির জীবনে আধ্যত্মিক বিপ্লব এলে প্রতি পদে আসে আল্লাহর দ্বীনের পূণ অনুসরণ।সে খোঁজে কোথায় হারাম-হালালের নির্দেশ।খোঁজে কোথায় জিহাদের ময়দান।সেখানে সে নিজ খরচে গিয়ে হাজির হয়। আফগানিস্তানের জিহাদে তো এভাবেই হাজার হাজার সাচ্চা মুজাহিদ বিশ্বের নানা প্রান্তর থেকে গিয়ে হাজির হয়েছিল,এবং সোভিয়েত রাশিয়ার ন্যায় একটি বিশ্বশক্তিকে পরাস্ত করেছিল। এবং আজ  জমা হচ্ছে সিরিয়ায়। দ্বীন পালনে সামান্য আপোষও এমন মুজাহিদদের কাছে অচিন্তনীয়।আল্লাহপ্রেমী এমন ব্যক্তি সিরাতুল মুস্তাকীম থেকে এক বিন্দু সরতে রাজী হয় না। সে শুধু নামাযের প্রতি রাকাতে “এহদিনাস সিরাতুল মুস্তাকীম” বলে মনের আর্জি পেশ করে না,বরং জীবনের প্রতি পদে সে পথে চলায় সিরিয়াস ও নিষ্ঠাবান হয়।সিরাতুল মুস্তাকীমে চলায় প্রতি মুহুর্তে এরূপ নিষ্ঠাবান থাকাটাই তো প্রকৃত ঈমানদারি। এটিই তো মু’মিনের জীবনে সত্যিকার তাকওয়া।ঈমানদারের মনে এরূপ তাকওয়া বৃদ্ধিই তো নামায-রোযা ও হজ-যাকাতের ন্যায় ইবাদতের মূল লক্ষ্য।

নামাযে দাঁড়িয়ে “সিরাতুল মুস্তাকীম” চাওয়া আর রাজনীতির ময়দানে নেমে ইসলামি রাষ্ট্র,খেলাফত,জিহাদ ও শরিয়তের বিরোধীতা করা তো সুস্পষ্ট মুনাফেকী। এটি তো মহান আল্লাহতায়ালার সাথে গাদ্দারি;এবং তাঁর হুকুমের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ।এ অপরাধ তো ইসলামের শত্রু-শিবিরে ফিরে যাওয়ার অপরাধ।যারা এভাবে ইসলামে বিরোধীতায় নামে পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহতায়ালা তাদেরকে শুধু মুনাফিক বলেননি,মুরতাদও বলেছেন।খোলাফায়ে রাশেদার যুগে মুরতাদের শাস্তি দেয়া হতো প্রাণদণ্ড দিয়ে।পাপের যে ফসল সাহাবায়ে কেরামের যুগে ফলেছে,আজ  যে তা শতগুণ বেশী ফলবে তা নিয়ে কি সন্দেহ আাছে? মুসলিম দেশগুলি তো তাদের হাতেই আজ  অধিকৃত। নামে মুসলমান হলেও ইসলাম ও তার শরিয়তি বিধানকে পরাজিত দেখার মধ্যেই এদের আনন্দ। আজকের মুসলিমদের মূল জিহাদটি তাই ভিন্ দেশী কাফেরদের বিরুদ্ধে নয়,বরং স্বদেশী এ মুরতাদদের বিরুদ্ধে।

 

আত্মবিপ্লব ও বিজয় যে পথে

দেহে বর্জ জমা হলে শরীর বাঁচে না।বর্জের সাথে তাই আপোষ চলে না। মুসলিম সমাজের আজকের স্বাস্থ্যহীনতা ও শক্তিহীনতার মূলকারণ তো ভিতরে জমা এ বিশাল বর্জ।মুসলিম নাম ধারণ করে এরাই ইসলাম ও মুসলমানদের ক্ষতি সাধনে ব্যস্ত। এরা শুধু ইসলামি রাষ্ট্রবিপ্লবের শত্রু নয়,তারা শত্রু মুসলিম মানসে আধ্যাত্মিক বিপ্লবেরও। ইসলামের বিরুদ্ধে শত্রুতা নিয়েই কোরআন চর্চায় তারা বাধা দেয়। নিয়ন্ত্রন করে মসজিদে কোরআন শিক্ষা ও জুম’আর খোতবা। এভাবে নানা ভাবে তারা অসম্ভব করেছে সিরাতুল মুস্তাকীমে চলা। আজকের মুসলমানদের বড় ব্যর্থতা শুধু ঈমান নিয়ে বেড়ে উঠায় নয়,ইসলামের এ ঘরের শত্রুদের চেনাতেও।বরং এ শত্রুদের কাছে আত্মসমর্পণই তাদের রাজনীতি ও সংস্কৃতি। এবং এরূপ আত্মসমর্পণকে বলে প্রজ্ঞা! ফলে জঘন্য এ শত্রুদের থাবা পড়েছে সর্বত্র। এমনকি চেতনার যে ভূবনে বীজ পড়বে সে ক্ষেত্রটিতেও। ফলে সমাজ বিপ্লব বা রাষ্ট্রবিপ্লব আর কি হবে,আত্মবিপ্লবও সম্ভব হচ্ছে না। মহান আল্লাহতায়ালা কি এমন মানুষদের ভাগ্য পরিবর্তন করেন? কারণ যারা নিজ অবস্থার পরিবর্তন করে না তাদের পবিবর্তন করাটি তো তাঁর সূন্নত নয়। পবিত্র কোরআনে তাঁর ঘোষণাঃ “নিশ্চয়ই আল্লাহ কোন জাতির অবস্থা পরিবর্তন করেন না যতক্ষণ না তারা তাদের নিজেদের অবস্থা পরিবর্তন করে।”–(সুরা রা’দ আয়াত ১১)।জাতির ভাগ্য পরিবর্তনের মূল দায়ভারটি তাই বান্দার।তবে সে পরিবর্তনে যারা নিয়েত বাঁধে এবং আত্মরিক ভাবে সচেষ্ট হয়,তাদের পথ দেখানোর দায়িত্বটি মহান আল্লাহতায়ালা নিজ দায়িত্বে নেন। পরম করুণাময়ের পক্ষ থেকে সে ঘোষণাটি এসেছে এভাবে,“যারা আমার পথে আত্মনিয়োগ করে আমি অবশ্যই তাদেরকে আমার পথে পথ দেখাবো।নিশ্চয়ই আল্লাহ সৎকর্মপরায়ণদের সাথে আছেন।”–(সুরা আনকাবুত আয়াত ৬৯)। তিনি তাদের বিজয়ও দেন। বিজয় নিশ্চিত করতে তাদের সাহায্যে হাজার হাজার ফেরেশতাও পাঠান।

আখেরাতে প্রতি ব্যক্তিই তার নিজ সামর্থের বিনিয়োগের প্রতিদান পায়।কাফের থেকে মু’মিনের পার্থক্যটি সৃষ্টি হয় মূলত বিনিয়োগের এ ক্ষেত্রটিতে। কাফেরের লড়াই শয়তানের পথে। প্রতিদানে পায় জাহান্নাম। আর মু’মিন তার অর্থ,শ্রম,সময়,মেধা ও রক্তের বিনিয়োগটি করে মহান আল্লাহতায়ালার পথে। মহান আল্লাহতায়ালার পথে অবিরাম আত্মনিয়োগই মু’মিনের আধ্যাত্মিকতা। আর আত্ম-উন্নয়নে যে বিনিয়োগ সেটিই তো বিনিয়োগের সর্বোত্তম ক্ষেত্র। আত্ম-উন্নয়নের তাগিদে মু’মিন তখন ওহীর জ্ঞানের আমৃত্যু ছাত্রে পরিণত হয়।ফলে তার জীবনে পর পর দু’টি দিন কখনোই একই রূপ হয় না, জ্ঞানের রাজ্যে সে প্রতি দিন উপরে উঠে। লড়াকু মুজাহিদ সে শত্রুর বিরুদ্ধে আমৃত্যু জিহাদে। এভাবেই মু’মিনের জীবনে প্রতিক্ষণ কাটে এবাদতে। আসে আত্ম-পরিসুদ্ধি। সাহাবায়ে কেরাম তো আত্ম-উন্নয়ন ও আত্ম-পরিসুদ্ধির এ পথ ধরেই সমগ্র মুসলিম ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ আলেম ও শ্রেষ্ট মুজাহিদে পরিণত হয়েছিলেন। আল্লাহর দরবারে নিজের মূল্যমান ও মর্যাদা বাড়ানোর এটিই তো শ্রেষ্ঠ মাধ্যম।প্রতিটি মু’মিন তো এভাবেই রাষ্ট্রীয় বিপ্লবের পাওয়ার হাউসে পরিণত হয়। কোন দেশে যখন কোটি কোটি এরূপ পাওয়ার হাউস সে দেশ কি কখনো শত্রুশক্তির হাতে অধিকৃত হয়? রেকর্ড গড়ে কি দুর্বৃত্তিতে? সে দেশ তো বরং অবিরাম বিজয় আনে ও গৌরবের উচ্চ শিখরে পৌঁছে। সাহাবায়ে কেরামদের যুগে বিশাল ভূ-ভাগ জুড়ে রাষ্ট্রবিপ্লব এসেছিল এবং মুসলিম রাষ্ট্রটি বিশ্বশক্তির মর্যদা পেয়েছিল তো এমন আত্মবিপ্লবীদের দ্বারাই। মহান আল্লাহতায়ালার কাছেও তারা প্রিয় হতে পেরেছিলেন।আজও  কি সে লক্ষ্যে পৌছার ভিন্ন পথ আছে? ১০/৭/২০১৫




রোযার কাঙ্খিত ভূমিকা ও  মুসলিমদের ব্যর্থতা

আধ্যাত্মীক বিপ্লব ও রাষ্ট্রীয় বিপ্লব এবং রোযা

মানব জাতির ইহলৌকিক ও পারলৌকিক সাফল্যের জন্য আধ্যাত্মীক বিপ্লব যেমন জরুরী,তেমনি অপরিহার্য হলো রাষ্ট্রীয় বিপ্লব। পাখির দুটি ডানা সবল না হলে যেমন উড়তে পারে না তেমনি আধ্যাত্মীক বিপ্লব ও রাষ্ট্রীয় বিপ্লব –এ দুটি বিপ্লব একত্রে না হলে উচ্চতর সভ্যতাও নির্মিত হয় না। অর্জিত হয় না ইসলামের মূল লক্ষ্য।রাষ্ট্রের বুকে শয়তানের অধিকৃতি মেনে নিয়ে কি ইসলাম পালন হয়? আসে কি আধ্যাত্মীক উন্নয়ন? নবীজী এ দুটি বিপ্লব একত্রে পরিচালিত করে সমগ্র মানব জাতির সামনে অনুকরণীয় সূন্নত রেখে গেছেন। দ্বিমুখি এ বিপ্লবের পথ বেয়ে তিনি যেমন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ অসংখ্য মানব গড়ে গেছেন,তেমনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতাও গড়ে গেছেন। যারা রাজনীতি ও রাষ্ট্র পরিচালনার কাজ থেকে নিজেদেরকে দূরে রেখে স্রেফ মসজিদ-মাদ্রাসা,পীরের মাজার¸সুফী খানকা বা হুজরায় বসে আধ্যাত্মীক বিপ্লব ও সে সাথে দুই জাহানের কল্যাণ ভাবেন তারা কি নবীজী (সাঃ)র সে সূন্নত থেকে আদৌ শিক্ষা নিয়েছে? তাদের দ্বারা কোথাও কি আল্লাহর শরিয়তি বিধান বিজয়ী হয়েছে? নির্মিত হয়েছে কি ইসলামি রাষ্ট্র ও সভ্যতা? এসেছে কি আধ্যাত্মীক উন্নয়ন? বরং তাতে আধ্যাত্মীকতার নামে মুসলিম জীবনে এনেছে নবীজী (সাঃ)র প্রদর্শিত সিরাতুল মোস্তাকীম থেকে বিশাল বিচ্যুতি ও ভ্রষ্টতা। অপর দিকে আধ্যাত্মীক বিপ্লবকে গুরুত্ব না দিয়ে যারা শুধু ইসলামের নামে রাজনৈতীক দল ও রাজনৈতীক বিপ্লব নিয়ে ভাবেন তাদের দ্বারাই বা ইসলামি রাষ্ট্র নির্মানে কতটুকু সফলতা এসেছে? এবং কতটুকু এসেছে চারিত্রিক বিপ্লব? তারাও কি নবীজী(সাঃ)র সূন্নতকে পুরাপুরি আঁকড়ে ধরতে পেরেছে?

ইসলামে আধ্যাত্মীক বিপ্লব ও রাষ্ট্রীয় বিপ্লব –এ উভয় বিপ্লবই সমান গুরুত্বপূর্ণ। কোনটাই পরিহারের উপায় নাই। বরং একটি আরেকটির পরিপুরক। আধ্যাত্মীক মানুষ সৃষ্টি ছাড়া যেমন ইসলামি রাষ্ট্র নির্মান সম্ভব নয়,তেমনি ইসলামি রাষ্ট্র ছাড়া আধ্যাত্মীক বিপ্লবের জন্য উপযোগী শিক্ষা-সংস্কৃতি ও পরিবেশ সৃষ্টি করা অসম্ভব। রাষ্ট্র ইসলামি না হলে তখন সে রাষ্ট্র স্বভাবতই অধিকৃত হয় শয়তানের খলিফাদের হাতে। তখন সে রাষ্ট্র জুড়ে গড়ে উঠে আল্লাহর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ সংগঠিত করার শত শত সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।সূদী ব্যাংক,মদ্যশালা,পতিতাপল্লি,জুয়া, নাচ-গানের আসর ও অশ্লিল সিনেমা-নাটক –শয়তানের এরূপ হাজারো প্রকল্প তখন রাতদিন কাজ করে জনগণের মন থেকে তাকওয়া ও আধ্যাত্মীকতা বিলুপ্ত করার কাজে।তাই ইসলামের ইতিহাসের বড় বড় আধ্যাত্মীক ব্যক্তিগণ কাফের রাষ্ট্রে গড়ে উঠেনি।বৃক্ষও বেড়ে উঠার জন্য নিয়মিত পরিচর্যা চায়।তেমনি পরিচর্যা অপরিহার্য হলো তাকওয়া ও আধ্যাত্মীকতা-সম্পন্ন মানুষ গড়ায়।সেটি কি কাফের কবলিত রাষ্ট্রে সম্ভব? সম্ভব নয় বলেই নবীজী (সাঃ)কে বহু অর্থ, বহু শ্রম ও বহু রক্ত ব্যয়ে ইসলামি রাষ্ট্র গড়তে হয়েছে। আধ্যাত্মীক মানব সৃষ্টির লক্ষ্যে ইসলামে যেমন কোরআনের জ্ঞানার্জন,নামায-রোযা,হজ-যাকাত ও তাহাজ্জুদের বিধান আছে,তেমনি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলের কাজে জিহাদকেও ফরজ করা হয়েছে।বরং মুসলমানদের সবচেয়ে বেশী অর্থ,বেশী রক্ত,বেশী মেধা ও বেশী শ্রমের বিনিয়োগ হয়েছে ইসলামের শত্রু শক্তির দখলদারি থেকে রাষ্ট্রকে মুক্ত করার কাজে।শতকরা ৬০ ভাগের বেশী সাহাবী সে কাজে শহীদ হয়েছেন।বদরের যুদ্ধের ন্যায় বড় বড় বহু যুদ্ধ হয়েছে রোযার মাসে।

যে কোন রাষ্ট্রীয় বিপ্লবের জন্য বিপ্লবের শুরুটি ব্যক্তির হৃদয়ে হওয়া জরুরী। রোযা সে কাজটি করে ব্যক্তির জীবনে আধ্যাত্মীক বিপ্লব এনে।সে বিপ্লব তখন প্রবল বিপ্লব আনে ব্যক্তির কর্ম, আচরণ,সংস্কৃতি ও রাজনীতিতে। ইসলামি রাষ্ট্র নির্মানে তখন সৃষ্টি হয় যোগ্য জনবল। রোযা গড়ে আল্লাহর সাথে বান্দাহর নিবীড় সম্পর্ক।সে সম্পর্কের ফলে মু’মিনের আপোষহীন অঙ্গিকার বাড়ে মহান আল্লাহর জমিনে আল্লাহর হুকুম প্রতিষ্ঠায়। পানাহার-বিহীন কষ্টকর ইবাদতটি মু’মিনের জীবনে এভাবেই নীরবে বিপ্লবে আনে। মু’মিন ব্যক্তি ক্ষুধা-পিপাসার বেদনা নীরবে সয় শুধু মহান আল্লাহকে খুশি করার জন্য। মহান আল্লাহ বলেন,রোযাদার রোযা রাখে শুধু আমার উদ্দেশ্যে,আমিই তাকে পুরস্কৃত করবো।-(হাদীস)।নামায ও হজ-যাকাতে ব্যক্তির মাঝে রিয়াকারি বা প্রদর্শনীর ভাব থাকাটি স্বাভাবিক।বহু সূদখোর,ঘুষখোর ও ব্যভিচারী দুর্বৃত্তরাও তাই ঠাটবাট করে নামাজে হাজির হয়।তেমনি বহু স্বৈরাচারি খুনি শাসকও বার বার হজ-ওমরা করে।তাই রাষ্ট্রে ও সমাজে কতটা আধ্যাত্মীকতা বাড়লো সেটির বিচার নামাযীর বা হাজীর সংখ্যা দিয়ে হয় না।মসজিদ-মাদ্রাসা গণনা করে বা দাড়ি টুপিধারিদের সংখ্যা দেখেও হয় না। বরং সেটি বুঝা যায় সে রাষ্ট্রে কতজন কতটা নফল রোযা রাখলো,রাত জেগে জেগে কতজন তাহাজ্জুদ পড়লো,কোরআনের জ্ঞানে কতটা সমৃদ্ধি আসলো,কতজন সে জ্ঞান নিয়ে দেশেবিদেশে দাওয়াতি কাজে নামলো এবং আল্লাহর রাস্তায় জিহাদে কতজন জানমালের কোরবানী পেশ করলো -সে সংখ্যা দিয়ে।নবীজী (সাঃ)র আমলে সে আধ্যাত্মীকতা এতটাই প্রবল ছিল যে সাহাবীগণ দিনের পর দিন নফল রোযা রাখতেন। দিবাভাগের অনেকাংশ যেমন নবীজী (সাঃ)র সান্নিধ্যে কোরআনের জ্ঞানার্জনে কাটিয়ে দিতেন,রাতের বেশীর ভাগ কাটাতেন তাহাজ্জুদে।আর পাহাড়-পর্বত অতিক্রম করে নানা জনপদের মানুষের কাছে আল্লাহর বানি পৌঁছে দিয়েছেন। আধ্যাত্মীকতার উত্তাপতো তো স্রেফ মু’মিনের ব্যক্তিজীবনে আবদ্ধ থাকে না। আগুনের উত্তাপ যেমন চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে তেমনি ছড়িয়ে পড়ে ব্যক্তির আধ্যাত্মীকতাও। সে আধ্যাত্মীকতার উত্তাপ তখন রাষ্ট্রের বুকে প্রবল বিপ্লব আনে।তখন বিলুপ্ত হয় রাষ্ট্রের বুকে শয়তানি শক্তির দখলদারি। এবং প্রতিষ্ঠা পায় আল্লাহর শরিয়তি নিজাম। ইসলামি রাষ্ট্র বিপ্লবের এটিই তো রোডম্যাপ।

 

আধ্যাত্মীক বিপ্লব জন্ম দেয় রাষ্ট্রীয় বিপ্লবের

প্রতিটি বক্তিই সমাজের বুকে নিজ নিজ পরিচয় নিয়ে চলা ফেরা করে।সে পরিচয়ের গুণেই ব্যক্তি নিজে এক আত্মপরিচয় পায়। তার চেতনা,কর্ম,আচরণ ও ব্যক্তিত্ব তখন এক বিশেষ গুণে গড়ে উঠে।রাজা,রাজপুত্র,দাসপুত্র,ভিখারি,চোর-ডাকাত –এরাই সবাই মানব সন্তান। কিন্তু সমাজে এদের পরিচয় যেমন ভিন্ন,তেমনি ভিন্ন হলো তাদের আত্মপরিচয়,আচরণ,ব্যক্তিত্ব ও মূল্যবোধ।রাষ্ট্রের বুকে শাসকের খলিফাগণ বিশেষ এক মর্যাদা,ব্যক্তিত্ব ও দায়িত্ববোধের অধিকারি হয় তো সে বিশেষ পরিচয়ের কারণেই। প্রশ্ন হলো মুসলমানের সে পরিচয়টি কি? সে পরিচিতিটি হলো মহান আল্লাহতায়ালার সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি ও দায়িত্বপ্রাপ্ত খলিফার।সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি ও মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত খলিফা হওয়ার ধারণাটি আত্মসচেতন মু’মিনের চেতনায় একটি বিশেষ মর্যাদা,চেতনা,ব্যক্তিত্ব ও দায়িত্ববোধ দেয়। মু’মিনের আধ্যাত্মীকতার মূল ভিত্তি হলো মহান আল্লাহপ্রদত্ত সে পরিচয়। জেলা বা থানা পর্যায়ে যারা সরকারের খলিফা বা প্রশাসক তাদের আমলনামার মূল্যায়ন হয় তারা দায়িত্বপালনে কতটা সফল তা থেকে। সে মূল্যায়নের ভিত্তিতেই তাদের প্রমোশন বা ডিমোশন হয়। তেমনি পরকালে ব্যক্তির আমলনামার হিসাব হবে আল্লাহর খলিফা রূপে ব্যক্তি কতটা সক্রিয় ছিল সেটির। সে বিচারে ফয়সালা হবে সে জান্নাতের যোগ্য না জাহান্নামের। কৃষক,শ্রমিক,ব্যবসায়ী বা চিকিৎস্যক বা অন্য কোন পেশাদারি হওয়ার প্রশ্ন সেদিন গুরুত্ব পাবে না। রোজ হাশরের বিচার দিনের সে ভয়টি ঈমানদার ব্যক্তিকে প্রতি মুহুর্তে মনযোগী করে আল্লাহর খলিফা রূপে আপোষহীন দায়িত্বপালনে। আল্লাহর সান্নিধ্যে আল্লাহর সফল প্রতিনিধি রূপে পৌঁছার তীব্র কামনাটি তাকে রাষ্ট্রীয় বিপ্লবে বিপ্লবী করে তোলে। এভাবেই আধ্যাত্মীক বিপ্লব রাষ্ট্রীয় বিপ্লবের জন্ম দেয়। তাই নবীজী (সাঃ)র প্রতিজন সাহাবাই ছিলেন আমৃত্যু বিপ্লবী। ফলে বিপ্লব এসেছিল বিশাল ভূভাগ জুড়ে।

সরকারের খলিফা রূপে দায়িত্বপ্রাপ্ত জেলা বা থানা প্রশাসকগণ সরকারের বিরুদ্ধে কোনরূপ বিদ্রোহ ও অবাধ্যতা সহ্য করে না। সেটি করলে তাদের চাকুরি থাকে না। তেমনি মহান আল্লাহর বিরুদ্ধে অবাধ্যতা ও তার হুকুমের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ সহ্য করে না আল্লাহর খলিফাগণও। তেমন প্রকাশ্য বিদ্রোহকে সহ্য করাটি গণ্য হয় গাদ্দারি রূপে। অথচ আজ কের মুসলমানদের পক্ষ থেকে সে গাদ্দারিটা কি কম? মহান আল্লাহর শরিয়তি হুকুম অমান্য হচ্ছে বাংলাদেশের ন্যায় সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম দেশে। আল্লাহর শরিয়তি বিধানকে আস্তাকুঁরে ফেলা হয়েছে। আদালতে বিচার হচ্ছে কাফেরদের প্রণীত আইনে। সে আইনে জ্বিনাও শাস্তিযোগ্য অপরাধ নয়। কিন্তু মুসলমানদের মাঝে তা নিয়ে প্রতিবাদ কই? অথচ হযরত আবু বকর (রাঃ) তাঁর খেলাফত কালে যারা যাকাত দিতে অস্বীকার করেছিল তাদের বিরুদ্ধে জিহাদ শুরু করেছিলেন।প্রশ্ন হলো,মহান আল্লাহর শরিয়তের ইজ্জত রক্ষার দায়িত্ববোধ কি শুধু খলিফা হযরত আবু বকর (রাঃ)এর? সে দায়িত্ব তো আল্লাহর খলিফা রূপে প্রতিটি ঈমানদারের। যার মধ্যে সে অবাধ্যতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ নাই তার মুখে আল্লাহর নামের জপ যতই হোক,যতই শোভা পাক দাড়িটুপি,যতই পালিত হোক হজ-ওমরাহ -তার মধ্যে যে আধ্যাত্মীকতা নাই তা নিয়ে কি সামান্যতম সন্দেহ আছে?

খেলাফতের এক গুরু দায়িত্ব দিয়েই মহান আল্লাহতায়ালা মানব জাতিকে সৃষ্টি করেছিলেন। খেলাফতের সে দায়িত্ব পাওয়ার কারণেই মানবসৃষ্টি ফেরেশতাদের চেয়ে শ্রেষ্ঠ। নিজের এ খলিফাদের আদি পিতা হযরত আদম (আঃ)কে সৃষ্টি করে তাই মহান আল্লাহতায়ালা ফেরশতাদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছিলেন তাঁকে সিজদা করতে। পার্থিব জীবনে তাঁর এ খলিফাগণ বিফল হোক এবং ‍আখেরাতের জীবনে জাহান্নামের আগুনে গিয়ে পড়ুক সেটি পরম করুণাময় মহান আল্লাহর কাম্য হতে পারে?‍‍‌‌‌‌‌‌‍‍‍‍‍‍ তিনি তো চান তার মানবসৃষ্টির সামগ্রিক সাফল্য -সেটি যেমন ‍‌‌পার্থিব জীবনে,তেমনি পরকালীন জীবনে। তিনি চান তাঁর প্রতিটি মানব শিশু ঈমানদার রূপে বেড়ে উঠুক। নিজের এ সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি ও খলিফার প্রতি মহান আল্লাহতায়ালার মহব্বত এতই গভীর যে তাদের জন্য যেমন ফুলেফলে শস্যে ভরা সুন্দরতম পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন তেমনি আখেরাতে বসবাসের জন্য অফুরুন্ত নিয়ামতভরা জান্নাত সৃষ্টি করেছেন। এবং সেটি অনন্ত অসীম কালের জন্য।সে জান্নাতপ্রাপ্তির পথ প্রদর্শন করতেই লক্ষাধিক নবীরাসূল পাঠিয়েছেন এবং কিতাব নাযিল করেছেন। মহান রাব্বুল আলামীনের সাথে মু’মিনের আধ্যাত্মীক সংযোগের মূল ভিত্তি তো সে কিতাব ও নবী-রাসূল। কিন্তু ইবলিস শয়তান মানুষের সে শ্রেষ্ঠত্ব মেনে নেয়নি। আল্লাহর হুকুম অমান্য করে সেদিন সে  আদম (আঃ)কে সেজদাও করেনি। মানুষের বিরুদ্ধে তার শত্রুতা চিরকালের। সে চায়না মানুষ সিরাতুল মোস্তাকীম বেয়ে পথ চলুক এবং মহানিয়ামত ভরা জান্নাতে গিয়ে পৌছুক। তাই পথভ্রষ্ট করাই তার এজেন্ডা।খেলাফতের দায়িত্বপালনে ঈমানদারকে তাই মানব-দুষমন এ শয়তান ও তার বাহিনীর এজেন্ডাকেও বুঝতে হবে।

 

খেলাফতের দায়ভার ও রাষ্ট্রবিপ্লবের লড়াই

ঈমানদারের চেতনায় যে ধারণাটি সদাসর্বদা কাজ করে তা হলো,এ পৃথিবী পৃষ্ঠে তার নিয়োগটি কোন রাজা-বাদশাহ,প্রেসিডেন্ট,প্রধানমন্ত্রী,দলনেতা বা পীরের খলিফা রূপে নয়।পরকালে তাদের থেকে মু’মিনের চাওয়া-পাওয়ারও কিছু নাই। সে তো নিয়োগপ্রাপ্ত খলিফা মহান আল্লাহতায়ালার। খলিফার সে দায়িত্ব পালনের কাজটি সুচারু ভাবে আদায় হলে পরকালে তার যে পুরস্কার মিলবে তা পৃথিবীর সকল চাকুরিজীবীর বেতনের অর্থ দিয়েও কেনা যাবে না। জান্নাতের এক ইঞ্চি ভূমি কেনা যাবে না সকল রাজা-বাদশাহর সমুদয় সম্পদ দিয়েও। পরকালে আল্লাহতায়ালা তার খলিফাদের এমন জান্নাতের দ্বার উম্মুক্ত করে স্বাগত জানাবেন। মানব জীবনে এর চেয়ে মহামর্যাদাকর প্রাপ্তি আর কি হতে পারে? তাই ইহকালে ও পরকালে মু’মিনের প্রকৃত মর্যাদা তো মহান আল্লাহর খলিফা রূপে দায়িত্ব পালনের মাঝে। সে মহামর্যাদাকর দায়িত্ব পালনে প্রকৃত মু’মিন যে প্রয়োজনে সর্বস্ব বিলিয়ে দিবে সেটিই কি স্বাভাবিক নয়? সে দায়িত্ব পালনের কাজটি যথার্থ না হলে শাস্তিও কি কম? সে তখন শয়তানের খলিফা হয়ে যায়। তখন তার বাসস্থান হয় জাহান্নামে।

আল্লাহর খলিফা হওয়ার এরূপ মহান পরিচয়টি মু’মিনের চেতনায় বদ্ধমূল হওয়ায় প্রচন্ড বিপ্লব আসে তার মগজে। সে বিপ্লবের ফলে পবিত্রতা শুরু হয় তার কর্ম ও আচরণে।তখন সে শুধু নেক আমলের সুযোগ খুঁজে। সদা সতর্ক হয় প্রতিটি গুনাহ থেকে বাঁচার। সৃষ্টি হয় প্রচণ্ড আল্লাহমুখিতা।তখন আল্লাহর রাস্তায় জানমালের কোরবানী পেশ করার সুযোগটি তার কাছে বিপদ নয়,আশির্বাদ মনে হয়। সে তখন আল্লাহর রাস্তায় মূলবান কিছু পেশ করা এমনকি শহীদ হওয়ার রাস্তা খুঁজে। এটিই তো মু’মিনের তাকওয়া। আল্লাহর ভূমি তে আল্লাহর দ্বীনের বিজয় আসে তো এমন তাকওয়া-সম্পন্ন মানুষের কারণে। ফলে অনিবার্য হয়ে উঠে ইসলামি বিপ্লব।

 

সবচেয়ে বড় অজ্ঞতা প্রসঙ্গে

মানব জীবনের সবচেয়ে বড় অজ্ঞতা ও মুর্খতা হলো মানুষের মূল পরিচয় ও দায়িত্বটি না জেনে বসবাস করা।কোন অফিসে নিজের দায়িত্বটি না জেনে চাকুরি করার ন্যায় এ এক চরম দায়িত্বহীনতা।এমন অজ্ঞতায় মানুষ ব্যর্থ হয় মানবিক পরিচয় নিয়ে বেড়ে উঠতে। তখন ব্যর্থ হয় আল্লাহর খলিফা রূপে দায়িত্বপালনে। নবী-রাসূলদের মূল মিশনটি ছিল,সে অজ্ঞতা থেকে মানুষকে মুক্তি দেয়া এবং তাদেরকে মুল পরিচয় ও দায়িত্বের কথাটি স্মরণ করিয়ে দেয়া। সে সাথে আল্লাহপ্রদত্ত খলিফার পরিচয় নিয়ে বেড়ে উঠতে সাহায্য করা। অথচ কোটি কোটি মানুষের জীবনে বছরের পর বছর কাটছে,এবং মৃত্যু ঘটছে সে পরিচয়টি না জেনেই।এ ব্যর্থতা যেমন ব্যক্তির,তেমনি রাষ্ট্রেরও।রাষ্ট্রের মূল কাজটি নিছক রাস্তাঘাট,স্কুল-কলেজ ও কল-কারখানা গড়া নয়। বরং মানুষকে তার মূল পরিচয়টি ও জীবনের মূল মিশনটি নিয়ে সচেতন করা। কাফের রাষ্ট্রে সে মূল কাজটি হয় না। তেমনি সেক্যুলারিস্টদের দ্বারা অধিকৃত মুসলিম রাষ্ট্রেও সেটি হয় না। অনৈসলামিক রাষ্ট্রের মূল বিপদটি তো এখানেই।তাই ইসলামি রাষ্ট্র গড়ার চেয়ে অধিক নেক আমল দ্বিতীয়টি নেই। একাজ তো কোটি কোটি মানুষকে জাহান্নামের আগুন থেকে বাঁচানোর। ইসলামি রাষ্ট্র নির্মানের জিহাদ এজন্যই ইসলামে শ্রেষ্ঠ ইবাদত।রাজনীতির লড়াইয়ে অংশ নেয়া এজন্যই নবীজী (সাঃ)র শ্রেষ্ঠ সূন্নত। সব মানুষেরই মৃত্যু আছে। কিন্তু মৃত্যু নেই তাদের যারা ইসলামি রাষ্ট্র নির্মানের সে জিহাদে শহীদ হয়। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহতায়ালা তাদেরকে মৃত বলতে বার বার নিষেধ করেছেন। শাহাদতের পরও যে তাদের খাদ্যপানীয় দেয়া হয় সে ঘোষণাটিও এসেছে পবিত্র কোরআনে।

 

ঈমানদারের মিশন ও শয়তানের মিশন এবং রোযা

শয়তানের মূল এজেন্ডাটি হলো, মানব জাতির জন্য জান্নাতের পথে চলাটি অসম্ভব করা। আদি পিতা আদম (আঃ) এবং বিবি হাওয়াকে জান্নাত থেকে বের করার মধ্য দিয়েই শয়তানের এজেন্ডা শেষ হয়নি। বরং সে দুষমনিটা লাগাতর। মানব সন্তানেরা যাতে আবার জান্নাতে ফিরে যেতে না পারে -সেটিই শয়তান ও তার অনুসারিদের সর্বদেশে এবং সর্বসময়ে মূল লক্ষ্য। আর জান্নাতের পথ থেকে দূরে রাখার সহজতম উপায় হলো পৃথিবীপৃষ্টে পূর্ণতর ইসলাম-পালন অসম্ভব করা। সে লক্ষ্যটি পূরণ হয় ইসলামী রাষ্ট্রের অনুপস্থিতিতে। তখন অসম্ভব হয় শরিয়ত, হুদুদ, শুরা, খেলাফত, মুসলিম ঐক্য ও জিহাদের ন্যায় ইসলামের মৌল বিধানগুলি মেনে চলা। তখন অসম্ভব হয় পূর্ণ মুসলিম রূপে বাঁচা।সেজন্যই শয়তানী শক্তি পৃথিবীর কোথাও ইসলামী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা হতে দিতে রাজী নয়। মুসলিম রাষ্ট্রে রাস্তাঘাট, কল-কারখানা, পশুপালন, কৃষিখাত ও দালানকোঠায় বিপুল সমৃদ্ধি এলেও তাতে শয়তানের কোন আপত্তি নেই। কারণ তাতে জাহান্নামের পথে নেয়ার শয়তানী প্রকল্পে কোন ব্যাঘাত ঘটেনা। কিন্তু ব্যাঘাত ঘটে ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা পেলে। তখন বিলুপ্ত হয় শয়তানী প্রকল্প। তাই পূর্ণ মুসলিম হওয়ার অর্থই হলো শয়তানের পক্ষ থেকে অনিবার্য লড়াইয়ের মুখোমুখি হওয়া। নবীজী (সাঃ)র ন্যায় মহামানব হওয়া সম্ভব নয়। কিন্তু নবীজীকেও সে লড়াই লড়তে হয়েছে।এবং যেখানেই লাগাতর লড়াই, সেখানেই চাই লাগাতর প্রশিক্ষণ। মুসলিম জীবনে প্রশিক্ষণের পর্বটি তাই আমৃত্যু। নামায-রোযা-হজ্ব-যাকাত তো ঈমানদারের জীবনে সে প্রশিক্ষণই পেশ করে। সে সাথে চাই ঈমান ও তাকওয়ার বল। এবং সে বলটি আসে পবিত্র কোরআনের জ্ঞান থেকে। তাই কোরআনের জ্ঞান ছাড়া প্রকৃত ঈমানদার গড়ে তোলা যেমন অসম্ভব, তেমনি অসম্ভব হলো ইসলামী রাষ্ট্র গড়া। তখন ঘরে ঘরে গড়ে উঠে ইসলামচ্যুৎ মানুষ এবং দেশের রাজনীতিতে বিজয়ী হয় শয়তানী পক্ষ। ফলে পরাজিত হয় ইসলাম। বাংলাদেশে ন্যায় মুসলিম দেশগুলিতে তো সেটিই হয়েছে। আর তাতে উৎসব বেড়েছে শয়তানের মহলে।

 

যে পরীক্ষা অনিবার্য

সমগ্র সৃষ্টিকূলে মানব যে সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি সে প্রমাণটি ঈমানদারকে লাগাতর দিতে হয়। সেটি তার চিন্তা-চেতনা,কর্ম ও আচরণের মধ্য দিয়ে। তাকে প্রমাণ পেশ করতে হয়,মহান আল্লাহর খলিফা রূপে দায়িত্ব পালনে সে কতটা তৎপর ও আন্তরিক।খেলাফতের দায়িত্ব পালনের কাজটি তাকে করতে হয় সর্ব-সামর্থ্য দিয়ে। আমৃত্যু সে মিশন নিয়ে বাঁচায় অনিবার্য হয়ে পড়ে শ্রম,মেধা ও জান-মালের কোরবানী। অপরিহার্য হয় ছবর।পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষণা “তোমরা কি ধারণা যে এমনিতেই জান্নাতে প্রবেশ করবে? অথচ আল্লাহ এখনও দেখেন নাই তোমাদের মধ্যে কারা জিহাদ করেছে এবং কারা ধৈয্যশীল।”-সুরা আল-ইমরান আয়াত ১৪২)।নবী-রাসূলগণ ও তাদের সাহাবাগণ তাই আজীবন জিহাদ করে গেছেন।জিহাদ হলো সিরাতুল মোস্তাকীমের অবিচ্ছিন্ন অংশ। তাই জিহাদ থেকে দূরে থাকার অর্থ সিরাতুল মোস্তাকীম থেকে দূরে থাকা। তখন অসম্ভব হয় জান্নাতপ্রাপ্তি। মুসলিম রাষ্ট্রের মুল কাজটি হলো জনগণের সামনে ইসলামের এ চিত্রটি তুলে ধরা এবং এমন চেতনাসর্বস্ব ঈমানদার গড়া। অথচ সেক্যুলার রাষ্ট্রের কাজ হয় ইসলামের সে চিত্রকে গোপন করা। তাই সেক্যুলারিস্ট কবলিত রাষ্ট্রে মর্দেমুমিন মোজাহিদ না গড়ে মশামাছির ন্যায় বিপুল সংখ্যায় বৃদ্ধি পায় দুর্বৃত্ত। মৃত্যু ঘটে ন্যায়নীতি ও মানবতার।দুর্বৃত্তদের দখলে যায় তখন সমগ্র রাষ্ট্র।এমন অধিকৃত রাষ্ট্রে রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানগুলি তখন জনগণকে জাহান্নামের দিকে টানে।রাষ্ট্র তখন সবচেয়ে বিপদজনক প্রতিষ্ঠানে পরিনত হয়। পরিণত হয় মানব-শত্রু শয়তানের হাতিয়ারে।

মানব জাতির সবচেয়ে বড় বড় ক্ষতিগুলো কোন কালেই বন্যপশুর হাতে হয়নি। হয়েছে রাষ্ট্রের হাতে। তখন শুধু হাজার মানুষের প্রাণহানীই হয় না, ঈমানহানিও হয়। ফলে সবচেয়ে বড় ক্ষতিটি হয় পরকালে। ইহকালে এ শয়তানি শাসকগণ বড় জোর জেল জুলুম বা প্রাণ নাশ করে। কিন্তু শয়তানের হাতে অধিকৃত এ রাষ্ট্রগুলির মূল কাজ তো শুধু প্রাণনাশ, জেলজুলুম বা অর্থ লুটপাঠ নয়। সেটি তো কোটি কোটি মানুষকে জাহান্নামের পৌছে দেয়ার ব্যবস্থা করা। এবং সে জাহান্নামে অনন্ত অসীম কালের জন্য থাকার ব্যবস্থা করা। মানুষের এতবড় ক্ষতি কি কোন বন্য পশু করতে পারে? আর এটিই তো শয়তানের মিশন।বাংলাদেশের মত অধিকাংশ মুসলিম দেশে তো সে মিশনের পতাকাধারিরাই বিজয়ী। ফিরাউন ও নমরুদের ন্যায় দুর্বৃত্ত শাসকগণ যে কাজগুলো অতীতে করেছে,আজ সে কাজগুলোই করছে আধুনিক রাষ্ট্র। রাষ্ট্রের বুকে শয়তানের প্রতিষ্ঠানগুলি যেমন অসংখ্য,সেসব প্রতিষ্ঠানে শয়তানের খলিফা গড়ার প্রশিক্ষণও লাগাতর। আল্লাহর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ও অবাধ্যতা কে তীব্রতর করাই এগুলোর মূল কাজ। এসব দুর্বৃত্ত শাসকদের হাতে হাজার মানুষ যেমন লাশ হচ্ছে তেমনি তাদের পাপাচারের রাজনীতি,শিক্ষানীতি,সংস্কৃতি,প্রশাসন,অর্থনীতি ও বিচার ব্যবস্থার মাধ্যমে কোটি কোটি নারী,শিশু ও সাধারণত মানুষকে জাহান্নামের দিকেও ধাবিত করা হচ্ছে। অথচ বাংলাদেশের মুসলমানগণ নিজেদের ও নিজেদের শিশু সন্তানদের সে বিপদটিই নীরবে দেখছে।সামান্যতম ইসলামি জ্ঞান ও চেতনা থাকলে কি এ বিপদ থেকে বাঁচার তাগিদে বহু আগে থেকেই জিহাদ শুরু হতো না?

অথচ জাহান্নামের ভয়াবহ আগুণ থেকে রক্ষা করতেই মহান আল্লাহতায়ালা যুগে যুগে লক্ষাধিক নবী-রাসূল পাঠিয়েছেন।হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) হলেন এ লক্ষ্যে আল্লাহতায়ালার সর্বশেষ রাসূল।এবং পবিত্র কোরআন হলো সর্বশেষ হেদায়েতের গ্রন্থ। আল্লাহতায়ালার নির্দেশিত বিধান ও নবীজী(সাঃ)র সূন্নত হলো রাষ্টকে শয়তানের অধিকৃতি থেকে মুক্ত করা এবং সে রাষ্ট্রে ইসলামের নিজস্ব রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা। এবং সেসব প্রতিষ্ঠানে জান্নাতে উপযোগী মানুষ গড়ায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা। এটিই নবীরাসূল ও তাদের অনুসারিদের শ্রেষ্ঠ সূন্নত। এবং এটিই আল্লাহর নির্দেশিত সূন্নত। তাই মুসলমান হওয়ার সাথে সাথে স্রেফ নামের পরিবর্তন হয় না,মু’মিনের জীবনে লাগাতর যুদ্ধও শুরু হয়।এমন কাজের জন্য জরুরী হলো এমন কিছু ধ্যানমগ্ন মানুষ যাদের একমাত্র ধ্যান শুধু আল্লাহর কাছে প্রতি মুহুর্তে প্রিয়তর হওয়ার ভাবনা। আর রোযা তো দিবারাত্র সে ধ্যানমগ্নতাই বাড়ায়। রাষ্ট্র বিপ্লবের জিহাদে রোযার প্রশিক্ষণ তাই অপরিহার্য।

 

রোযা গড়ে যিকরের সংস্কৃতি

ঈমানদারের মূল শক্তি ঈমান ও তাকওয়ার বল।সে শক্তিই তাকে জান্নাতে পৌছায়। ঈমান ও তাকওয়ার অভাবে বিস্ময়কর আবিস্কারকরগণও অতীতে জাহান্নামমুখি হয়েছে।অতীতের ন্যায় জাহান্নামমুখি হচ্ছে আজকের প্রতিভাধর আবিস্কারকগণও।তাই পবিত্র কোরআনে হুশিয়ারি:“হে ঈমানদারগণ,তোমরা আল্লাহকে ভয় করো যেরূপ তাঁকে ভয় করা উচিত। এবং মুসলমান না হয়ে মৃত্যুবরন করো না।” –(সুরা ইমরান, আয়াত ১০২)। তাকওয়া হলো সেই ভয় যা মানুষকে প্রতিক্ষণ ও প্রতিকর্মে আল্লাহর প্রতিটি হুকুমে অনুগত করে। অনুগত করে তাঁর প্রদর্শিত সিরাতুল মোস্তাকীমে চলায় এবং দূরে রাখে প্রতিটি অবাধ্যতা থেকে। তাকওয়া সমৃদ্ধ মু’মিনের জীবনে প্রতিক্ষণ চলে আল্লাহর যিকর বা স্মরণ। সে স্মরণ শুধু আল্লাহর নামের জপ নয়,বরং নিজ জীবনে আল্লাহর প্রতিটি নির্দেশ কতটা নিখুঁত ভাবে পালিত হলো সে ফিকর। মহান আল্লাহর অবাধ্যতা থেকে কতটা দূরে থাকা হলো এবং তাঁর দ্বীনকে বিজয়ী করার কাজে নিজের পক্ষ থেক কোথায় কি কি আরো করণীয় -দিবারাত্রের সে ভাবনা। ঈমানদারের জীবনে এভাবেই শুরু হয় এক বিরামহীন হিসাব-নিকাশ। যার জীবনে সে হিসাব-নিকাশ নাই,বুঝতে হবে তার জীবনে পরকালে জবাবদেহীর ভয়ও নাই। এরূপ নিকাশ নিকাশের ভয়ে খলিফা হযরত উমর (রাঃ)ছিলেন সদাসর্বদা অস্থির। রাতের আঁধারে তিনি না ঘুমিয়ে বরং মদিনারা রাস্তায় রাস্তায় টহল দিতেন। খোঁজ নিতেন কোন গৃহে কোন ব্যক্তি শোকে-দুঃখে কাতরাচ্ছি কিনা। সে অস্থিরতায় তিনি ভৃত্যুকে উঠের পিঠে চড়িয়ে নিজে রশি ধরে জেরুজালেমের পথে শতাধিক মাইল হেঠেছেন। নিজ কর্মের হিসাব নিকাশ নিয়ে তার অমর বানিটি হলোঃ “আল্লাহর কাছে হিসাব দেয়ার আগে নিজেই নিজের হিসাবটি নাও।”

মু’মিনের যিকর ও ফিকর তাই শুধু জায়নামাযে সীমিত থাকে না,বরং নীরবে কাজ করে তার সমগ্র চেতনা,কর্ম ও আচরণে সর্বমুহুর্ত জুড়ে।এমন যিকরের ফলে মু’মিনের প্রতিক্ষণ কাটে ইবাদতে। নবীজীর (সাঃ)র হাদীসঃ “আফজালুর ইবাদত তাফাক্কু” অর্থঃ শ্রেষ্ঠ ইবাদত হলো চিন্তাভাবনা। কোরআন পাঠ ও নামায-রোযার ন্যায় ইবাদত তো এরূপ যিকর ও ফিকরকেই বলবান করে। তখন মু’মিনের চেতনা রাজ্যে আসে আল্লাহর দ্বীনের বিজয়ে তথা শরিয়তের প্রতিষ্ঠায় নিজের জানমাল বিলিয়ে দেয়ার প্রেরণা। আসে সার্বক্ষণিক চিন্তামগ্নতা। তাই মু’মিনের চিন্তামগ্নতা সাধু-সন্নাসীর বনবাসের ধ্যান নয়।পীর বা সুফির অলস জপমালাও নয়। বরং অনলস এক সমাজ বিপ্লবীর প্রতিক্ষণের জিহাদী ভাবনা। সে লাগাতর ভাবে আল্লাহর দ্বীনকে বিশ্বময় বিজয়ী করা নিয়ে।এমন ব্যক্তিরাই তো আল্লাহর ওলী বা বন্ধুতে পরিণত হয়।আল্লাহতায়ালার ওয়াদা,তিনি তাঁদেরকে অন্ধকার থেকে আলোকে নিয়ে আসেন।এমন যিকিরকারিকে মহান আল্লাহতায়ালা তাঁর আরশে বসেও স্মরণ করেন। এটি তাঁর প্রতিশ্রুত ওয়াদা। তাই পবিত্র কোরআনের ঘোষণা,“অতঃপর তোমরা আমাকে স্মরণ করো আমিও তোমাকে স্মরণ করবো।”–(সুরা বাকারা)। আর ওয়াদা পালনে আল্লাহতায়ালার চেয়ে আর কে উত্তম? আর রোযা হলো মু’মিনের দিনভর ও রাতভরের যিকর। এটিই সবচেয়ে দীর্ঘ যিকর। ফলে দীর্ঘ এ যিকিরের ফলে সেও স্থান পায় মহান আল্লাহর স্মৃতিতে।

মহান আল্লাহতায়ালার কাছে মু’মিনের এরূপ যিকর যে কতটা গুরুত্বপূর্ণ সে বর্ননাটি বার বার এসেছে পবিত্র কোরআনে। যার জীবনে আল্লাহর যিকর ও তাঁর দ্বীনকে বিজয়ী করার ফিকর নাই তার উপর সওয়ার হয় শয়তান। আর শয়তান তাকে জাহান্নামের পথে ধাবিত করে। সে কঠোর হুশিযারিটিও এসেছে পবিত্র কোরআনে। বলা হয়েছে,“এবং যারাই করুণাময়ের যিকর থেকে মুখ ফিরিয়ে নিল তাদের উপর আমরা শয়তানকে নিয়োজিত করে দেই এবং সে তার সহচরে পরিণত হয়। এবং তারা (শয়তান) তাদেরকে সত্য পথ থেকে ফিরিয়ে দেয়। অথচ (সে পথভ্রষ্টতার পরও) তারা ভাবে তারা হেদায়েতপ্রাপ্ত।”–(সুরা জুখরুফে,আয়াত ৩৬ ও ৩৭)। মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে এটি এক ভয়ংকর হুশিয়ারি। ফলে যে ব্যক্তির জীবনে আল্লাহর যিকর নাই, তার ঘাড়ে শয়তান যে নিশ্চিত ভাবেই চেপে বসবে এবং শয়তান যে তাকে অনিবার্য ভাবেই পথভ্রষ্ট করবে সেটিও মহান আল্লাহতায়ালার প্রতিশ্রুতি।এর চেয়ে বড় শাস্তি আর কি হতে পারে? তখন সে ব্যক্তিকে তার ঘাড়ে বসা শয়তানটি সূদের পথ,ঘুষের পথ,চুরি-ডাকাতির পথ,বেপর্দাগী ও ব্যাভিচারির পথে ধাবিত করে। আল্লাহর অবাধ্যতার পথে চলা তার জন্য তখন অতি সহজ হয়ে যায়। সে তখন শয়তানের সার্বক্ষণিক সৈনিকে পরিণত করে। বাংলাদেশের মত মুসলিম দেশগুলোতে এ শয়তানের সৈনিকেরাই কি আল্লাহর শরিয়তি বিধানের প্রতিষ্ঠাকে অসম্ভব করে রাখেনি?

 

মুমিনের জীবনে যিকর ও আধ্যাত্মীকতা

মু’মিনের সালাম-কালাম,রাজনীতি-অর্থনীতি,সাহিত্য-সংস্কৃতি,আচার-আচরণ তথা সবকিছুর মধ্যে থাকে আল্লাহর যিকর। সর্বক্ষণ চলে আল্লাহর প্রিয় হওয়ার সর্বাত্মক সাধনা। মু’মিনের জীবনে এভাবেই অনিবার্য হয় আধ্যাত্মীক বিপ্লব। ফলে মুমিনের রাজনীতি ও সংস্কৃতি আল্লাহবিমুখ বা সেক্যুলার না হয়ে যিকরের রাজনীতি ও যিকরের সংস্কৃতিতে পরিণত হয়। রাজপথের মিছিলে মু’মিনের মুখ থেকে তাই জয় বাংলা,জয় হিন্দ বা জয় আরবের শ্লোগান বেরুয় নয়।বরং গগন কাঁপানো আওয়াজ উঠে “আল্লাহু আকবর।”। যার জীবনে এমন যিকির আছে সে কি সংবিধান থেকে আল্লাহর উপর আস্থার বানি বিলুপ্ত করতে পারে? বরং সে তো কঠোর শপথ নেয় রাষ্ট্রের সর্বত্র জুড়ে আল্লাহর শরিয়তি আইন প্রতিষ্ঠার। ব্যাংকে বসে সে তখন সূদ খায় না,অফিসে বসে সে ঘুষ খায় না এবং সংসদে বা মাঠে ময়দানে দাঁড়িয়ে শরিয়তের বিরুদ্ধে সে বক্তৃতাও দেয় না। এজন্যই কোন মু’মিন ব্যক্তি ইতিহাসের কোন কালেই সেক্যুলারিস্ট,সোসালিস্ট ও জাতিয়তাবাদী হয়নি। কখনোই সে কাফের শক্তির অস্ত্র কাঁধে নিয়ে যুদ্ধ করেনি। কাফেরদের খুশি করতে কোন মুসলিম ভূমিকে খন্ডিতও করেনি। বরং অকাতরে অর্থ ও রক্ত দিয়েছে ইসলামের বিজয়ে এবং মুসলিম রাষ্ট্রের ভূগোল বাড়াতে।

রোযা আনে এক মাসের ধ্যানমগ্নতা। সেটি শুধু তার সেহরী,ইফতারি ও তারাবিহতে নয়। বরং যখনই ক্ষুধা,পিপাসা ও যৌনতার মোহ,তখনই তীব্রতর হয় আল্লাহর স্মরণ বা যিকর। বস্তুত নামায-রোযা, হজ-যাকাতের ন্যায় প্রতিটি ইবাদতের মূল লক্ষ্যই হলো মু’মিনের জীবনে সে যিকরকে জাগ্রত রাখা। মুমিনের উঠাবসা, চলাফেরা, কাজকর্ম ও বিশ্রামে সর্বত্রই চলে আ্ল্লাহর যিকর। পবিত্র কোরআনে  নামাযকেও যিকর বলা হয়েছে। যিকর বলা হয়েছে পবিত্র কোরআনকেও। এ বিষয়ে কোরআনের আয়াতঃ “ইন্না নাহনু নাজ্জালনা যিকরা ওয়া ইন্না লাহু হাফিজুন”। -(সুরা হিজর আয়াত ৯)। পবিত্র কোরআনকেও বলা হযেছে যিকর। মহান আল্লাহর ভাষায়, “আল কোরআনু যিয যিকর” অর্থঃ কোরআনে হচ্ছে যিকর-সর্বস্ব। -(সুরা ছোয়াদ আয়াত ১)। যারা জ্ঞানী ঈমানদার তাদেরকে বলা হয়েছে আহলুয যিকর অর্থাৎ যারা যিকর করে। তাদের সম্মানে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, “অতঃপর তোমরা যদি না জেনে থাক তবে যারা যিকর করে তাদেরকে জিজ্ঞাসা করো।” –(সুরা নাহল, আয়াত ৪৩)। এবং সমগ্র ইবাদতের মাঝে রোযাই হলো সবচেয়ে দীর্ঘকালীন যিকর। নামাযের যিকর নামায-কালীন কয়েক মিনিটের। হজের যিকর জিল হজ মাসের মাত্র সামান্য কয়েকটি দিনের। এবং হজের সে যিকর দরিদ্র মানুষের জীবনে আসে না। কিন্তু রোযার যিকর রমযানের সমগ্র মাস ধরে ও প্রতিটি সাবালক নরনারীর জীবনে। রোযা এভাবে আল্লাহর যিকরকে মু’মিনের জীবনে বছরের বাঁকি মাসগুলোর জন্য অভ্যাসে পরিণত করে।

 

যে নাশকতা সেক্যুলারিজমে

আল্লাহর যিকরকে ভূলিয়ে দেয়ার লক্ষ্যে শয়তানের আয়োজনটি বিশাল। সে আয়োজন বাড়াতে শয়তানী শক্তি গড়ে তুলেছে সেক্যুলার রাজনীতি,সেক্যুলার শিক্ষা-সংস্কৃতি ও সাহিত্য। সেক্যুলারিজমের মূল কথাঃ আল্লাহর যিকর বা স্মরণের স্থান রাজনীতি নয়,সাহিত্য ও শিক্ষা-সংস্কৃতিও নয়।সেক্যুলারিস্টদের দাবী,আল্লাহর যিকরকে জায়নামাজে রেখে রাজনীতিতে আসতে হবে। সেক্যুলারিস্টগণ এভাবেই মুসলমানের রাজনীতিকে যিকরশূন্য করে। আর রাজনীতি হলো রাষ্ট্র ও সমাজের ইঞ্জিন। রাজনীতি যখন যিকরশূন্য হয় তখন যিকরশূণ্য হয় দেশের শিক্ষা-সংস্কৃতি, আইন-আদালত, অর্থনীতি ও প্রশাসন। তখনে রাষ্ট্রের প্রতি স্থলে পরাজিত হয় ইসলাম। ব্যক্তি আল্লাহর যিকর শূন্য হলে তার উপর যেমন শয়তান চেপে বসে তেমনি রাষ্ট্রের রাজনীতি, সংস্কৃতি,প্রশাসন ও আইন-আদালত যিকরশূণ্য হলে রাষ্ট্রের সমগ্র অস্তিত্ব জুড়ে চেপে বসে শয়তান। সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণ মুসলিম হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশ তো তেমনি এক শয়তান অধিকৃত দেশ। ফলে দেশটির রাজপথে নিহত ও আহত হচ্ছে টুপিধারি মুসল্লি। সংবিধান থেকে বিলুপ্ত হচ্ছে আল্লাহর নাম। নিষিদ্ধ হচ্ছে তাফসির মাহফিল। এবং বাজেয়াপ্ত হচ্ছে ইসলামি বই। এবং বাংলাদেশের উপর নেমে আসছে মহান আল্লাহর প্রতিশ্রুত আযাব। মুসলমানের ঈমান-আমল ও মুসলিম দেশের বিরুদ্ধে এভাবেই ঘটে সেক্যুলারিজমের জঘন্য নাশকতা।সেক্যুলারিজম এজন্যই হারাম।বিষপানে দেহের মৃত্যু ঘটে, আর সেক্যুলারিজমে মৃত্যু ঘটে ঈমান-আক্বীদার। তাই মুসলমান যেমন মুর্তিপুজারি,গো-পুজারি ও নাস্তিক হতে পারে না,তেমনি সেক্যুলারিস্টও হতে পারে না।

সেক্যুলারিজম মুসলিম ভূমিতে শয়তানের বিজয়কেই সুনিশ্চিত করে। মুসলমানদের আজকের বিভক্তি,মুসলিম ভূমিতে শত্রুশক্তির বিজয় ও দুর্বৃত্তিতে মুসলিম দেশগুলোর বার বার বিশ্ব রেকর্ড কি শয়তানের সে বিজয়ই প্রমাণ করে না? অথচ ঈমান ও তাকওয়া গভীরতর হলে নির্মূল হয় সেক্যুলারিজম।মু’মিনের তাকওয়া শুধু মুর্তিপুজার বিরুদ্ধেই যু্দ্ধ করে না,যুদ্ধ করে সেক্যুলারিজমের বিরুদ্ধেও। অথচ বাংলাদেশের ন্যায় অধিকাংশ মুসলিম ভূমিতে সেক্যুলারিজম নির্মূল হয়নি।বরং প্রবলতর হয়েছে। সেক্যুলারিজমের প্রভাবে মানুষ রোযা রেখেও অতিশয় ভোগবাদী ও বস্তুবাদী হয়। ফলে রোযার মাসেও সেক্যুলারিস্ট রোযাদাররা দ্রব্যমূল্য বাড়ায় এবং বাসের ভাড়া ও ঘুষের রেটে বৃদ্ধি ঘটায়। লক্ষ লক্ষ রোযাদার সেক্যেুলারিস্টদের পক্ষে ভোট দেয়,অর্থ দেয়, শ্রম দেয় এবং প্রয়োজনে রাজপথে তাদের পক্ষে অস্ত্রও ধরে। সেটি যেমন বাংলাদেশে তেমনি মিশর, সিরিয়াসহ বহু দেশে। ফলে গত ২৬/০৭/১৩ তারিখে ১২০ জন রোযাদার লাশ হলো কায়রোর রাজপথে। লাশ হচ্ছে বাংলাদেশেও।

মুসলিম দেশগুলিতে কোটি কোটি মানুষের রোযা-তারাবিহ সত্ত্বেও তাকওয়া ও আধ্যাত্মীকতা যে বাড়েনি সেটি কি এরপরও বুঝতে বাঁকি থাকে? কোটি কোটি মুসলমানের ইবাদত তাদের জীবনে বিপুল আনুষ্ঠিকতা বাড়ালেও মহান আল্লাহর কাছে জবাবদেহীতার ভয় বাড়াতে পারিনি।এখানেই রোযার ব্যর্থতা। ইবাদতের এমন ব্যর্থতা কি সাহাবাদের জামানায় কল্পনা করা যেত? তবে এ ব্যর্থতাটি রোযার নয়। বরং ব্যর্থতা এখানে রোযার মূল দর্শনটি না বুঝার।স্রেফ কোরআনের বার বার তেলাওয়াতে মগজে বিপ্লব আসে না। সেজন্য কোরআনের জ্ঞানের সাথে আত্মার গভীর সংযোগটি জরুরী। ঘুমুন্ত বা পথহারা বিবেক তো একমাত্র সে জ্ঞানেই জেগে উঠে। শুধু মুখ ঠোট ও জিহ্বার সংযোগে সেটি সম্ভব নয়। তেমনি রোযার মাসে স্রেফ পানাহার বন্ধ রাখায় চেতনায় ও আমলে বিপ্লব আসে না। সে জন্য চাই মহান আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণের যিকর ও ধানমগ্নতা।কিন্তু সেক্যুলার ব্যক্তির জীবনে তো সেটি আসে না। তার ধ্যানমগ্নতা শুধু ভোগের আয়োজন বৃদ্ধিতে। ফলে রোযার মাসে সে সূদ খাবে,ঘুষ খাবে,দ্রব্যমূল্য বাড়াবে এবং নানা ভাবে অন্যের পকেটে হাত দিবে সেটিই তো স্বাভাবিক। সেক্যুলারিজমের বিষ পানে ঈমান যে বাঁচে না এ তো তারই প্রমাণ।রোযা তখন নিছক আনুষ্ঠিকতায় পরিণত হয়। -(২৭/০৭/২০১৩) পরিবর্ধিত (১১/০৫/২০১৯)।

 

 




আধ্যাত্মিক বিপ্লবে রোযা

আয়োজন সর্বশ্রেষ্ঠ প্রশিক্ষণের

আধ্যাত্মিকতার অর্থ সংসারত্যাগী বৈরাগ্য নয়,পানাহার পরিত্যাগও নয়। বরং সর্বাবস্থায় মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণ ও পরকালে জবাবদেহীতার ভয়।স্মরণ এখানে মহান আল্লাহতায়ালার প্রতি ঈমানি দায়বদ্ধতার। ইসলামে এটিই যিকর। জবাবদেহীতা হলো নিজের আমলনামাহ নিয়ে মহান আল্লাহতায়ালার দরবারে খাড়া হওয়ার।ভয় সিরাতুল মুস্তাকীম থেকে বিচ্যুতি ও জাহান্নামের আগুণে পড়ার। এরূপ ভয়ই ব্যক্তিকে প্রতিপদে পাপাচার থেকে বাঁচায় এবং জান্নাতমুখি করে। তখন তার চথচলাটি সবসময় সিরাতুল মুস্তাকীমে হয়।মানব জীবনের এটিই সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন।ঈমান ও আমলের ক্ষেত্রে সর্বশ্রেষ্ঠ বিপ্লবও। এরূপ আধ্যাত্মিক বিপ্লবে রোযার ভূমিকাটি বিশাল ও অনন্য। সমগ্র মানব ইতিহাসে এটিই সর্বশ্রেষ্ঠ প্রশিক্ষণ।মাসব্যাপী এ প্রশিক্ষণের মূল আয়োজক এখানে খোদ মহান আল্লাহতায়ালা।লক্ষ্য,মানব মনে তাকওয়া বৃদ্ধি।তাকওয়ার অর্থ ভয়। মানব চরিত্রের এটিই সর্বশ্রেষ্ঠ গুণ। ভয় এখানে মহান আল্লাহতায়ালার হুকুমের বিরুদ্ধে অবাধ্যতার এবং সিরাতুল মুস্তাকীম থেকে বিচ্যুত হওয়ার। ভয়,মহান আল্লাহতায়ালার দরবারে জবাবদেহীতার।

মানব সৃষ্টি নিয়ে মহান আল্লাহতায়ালার নিজের ঘোষনাটি হলো,“ওমা খালাকতুল জিন্নাহ ওয়াল ইনসানা ইল্লা লিইয়াবুদুন” –(সুরা জারিয়া,আয়াত ৫৬)। অর্থঃ “এবং আমি জ্বিন ও ইনসানকে এছাড়া অন্য কোন কারণে সৃষ্টি করেনি যে তারা আমার ইবাদত করবে।” অতএব প্রতিটি নরনারীর উপর অর্পিত মূল দায়ভারটি হলো সর্বাবস্থায় মহান আল্লাহতায়ালার সে অভিপ্রায়টি পূরণে তথা তাঁর ইবাদতে লেগে থাকা।মু’মিনের জীবনে সবচেয়ে বড় যিকর তো সর্বাবস্থায় ইবাদত আদায়ের ফিকর। সে তখন পরিপূর্ণ একাত্ম হবে কোরআনে ঘোষিত সে মিশনের সাথেঃ “নিশ্চয়ই আমার সালাত, আমার কোরবানি, আমার বেচেথাকা ও মৃত্যু রাব্বুল আলামিনের জন্য।” মানব জীবনের সবচেয়ে বড় ক্ষতি ও সবচেয়ে বড় ব্যর্থতাটি হলো ইবাদতে তথা আল্লাহতায়ালার হুকুম পালনে ব্যর্থতা।ব্যবসা-বানিজ্য,রাজনীতি বা পেশাদারিতে বিশাল সফলতা দিয়ে সে ব্যর্থতার ক্ষতি পরকালে পোষানা যাবে না। ইবাদতের যে ব্যক্তি যতটা সফল,এ জীবনে বাঁচাটিও তার জন্য ততটা সার্থক। এজন্যই শহীদগণ মহান আল্লাহর দরবারে শ্রেষ্ঠ। তাদের ইবাদতের মানই ভিন্ন। আল্লাহর রাস্তায় তারা নিজের প্রিয় জীবনকেও বিলিয়ে দেয়।পৃথিবী পৃষ্ঠে মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীন বিজয়ী হয়,শরিয়ত প্রতিষ্ঠা পায় এবং শত্রুর হামলা থেকে মুসলিম ভূমি প্রতিরক্ষা পায় তো এরূপ শহীদদের কোরবানীতে;জিহাদবিমুখ কোটি কোটি নামাযী,রোযাদার,হাজি,সুফি,দরবেশ,আলেম ও আল্লামাদের কারণে নয়। মহান আল্লাহতায়ালা শহীদদের জীবনে তাই কবরের আযাব,আলমে বারযাখ,পুল সিরাত রাখেননি। রোজ-হাশরের বিচার দিনের জন্য তাদের একটি দিন বা মুহুর্তও অপেক্ষায় থাকতে হয় না। শহীদ হওয়ার সাথে সাথে মহান আল্লাহতায়ালা তাদের জন্য জান্নাতের দরওয়াজা খুলে দেন ও অফুরন্ত নেয়ামতের ভান্ডার পেশ করেন।পবিত্র কোরআনে সে বর্ণনা কি কম?

মানব জীবনে সর্বশ্রেষ্ঠ প্রশিক্ষণ তো তাই যা ব্যক্তির জীবনে সর্বোত্তম ইবাদতের সামর্থ বাড়ায়।রোযার প্রশিক্ষণ এক্ষেত্রে অনন্য। মহান আল্লাহতায়ালার ইবাদতে মধ্যে থাকার অর্থ হলো মহান আল্লাহতায়ালার যিকরের মধ্যে থাকা। নামাযকেও তাই পবিত্র কোরআনে যিকর বলা হয়েছে। যিকর বলা হয়েছে কোরআন পাঠকেও। রোযাদারের মনে সে যিকর থাকে মাসব্যাপী। রোযাতে মু’মিনের যিকর হয় শুধু মন দিয়ে নয়,দেহ দিয়েও।সারা দিনের রোযাতে যে যিকর -তারই ধারাবাহিকতা চলে তারাবির নামায,সেহরী ও ইফতারিতে।খাদ্য-পানীয় দেখলে রোযাদারের মনে সে যিকর বা স্মরণ আরো বেড়ে যায়।যিকরের সবচেয়ে বড় ফায়দাটি হলোঃ মু’মিনের যিকরের জবাবে মহান আল্লাহতায়ালা নিজেও তাকে স্মরণ করেন। পবিত্র কোরআনে সে প্রতিশ্রুতিটি এসেছে এভাবেঃ “ফাযকুরুনি আযকুরকুম”।অর্থঃ তোমরা আমার যিকর করো,আমিও তোমাদের যিকর করবো।-(সুরা বাকারা)।হাদীসে পাকে বর্ণিত হয়েছেঃ মহান রাব্বুল আলামীন তার যিকরকারি মু’মিন বান্দাদের স্মরণ করেন ফেরেশতাদের মজলিসে।এভাবে বান্দার সাথে বাড়ে মহান রাব্বুল আলামীনের সরাসরি সংযোগ।মু’মিনের জীবনে এটি এক বিশাল অর্জন। এমন সংযোগে পুষ্টি পায় ব্যক্তির আত্মা।রোযা সে পুষ্টি জোগায় পুরা একটি মাস ধরে।পাঁচ ওয়াক্ত নামাযে বা যাকাতে দীর্ঘকাল লাগে না।ফলে দীর্ঘকালীন সংযোগও গড়ে উঠে না। হজে দীর্ঘকাল লাগলেও রোযার মত প্রতিবছর আসেনা।মহান রাব্বুল আলামীনের সাথে আত্মিক সংযোগটিই মু’মিনের জীবনে আধ্যাত্মিকতা।এরূপ আধ্যাত্মিক বিপ্লবে রোযার ভূমিকাটি অনন্য।রোযা মাসব্যাপী ফরজ করে মহান আল্লাহতায়ালা এভাবে তার বান্দাকে পুরা এক মাস তাঁর নিজ স্মরনে থাকার ফুরসত দিয়েছেন।অন্য কোন ইবাদতে সে দীর্ঘকালীন সুযোগটি নেই।এভাবে মহান আল্লাহতায়ালার স্মরণে থাকার অর্থই হলো,লাগাতর তাঁর করুণা লাভ ও মাগফেরাত লাভ।রোযা এভাবে মানব জীবনে মহাকল্যাণের সুযোগ করে দেয়। সুফি দরবেশদের মাজারে বা খানকাতে কি সে সুযোগ জুটে? মহান নবীজী (সাঃ)তাই এ মহাকল্যাণময় মাসটির প্রস্তুতি এক মাস পূর্ব থেকেই নেয়া শুরু করতেন।যে ব্যক্তি এ মাসটি হাতে পেয়েও তা থেকে লাভবান হলো না তার জন্য এটিকে এক ভয়ানক ব্যর্থতা বলে অভিহিত করেছেন।এ ব্যর্থতা কি বছরের অন্য কোন মাসের ইবাদতে পূরণ করা সম্ভব?

 

বাড়ায় আধ্যাত্মীক সংযোগ

তাযকিয়ায়ে নাফস বা আধ্যাত্মীক উৎকর্ষের জন্য নির্জনে ধ্যানমগ্ন হওয়াটি জরুরী। হাদীসে বলা হয়েছে,শ্রেষ্ঠ ইবাদত হলো চিন্তা-ভাবনা করা।কারণ,চিন্তা-ভাবনার মাধ্যমেই তো মহান আল্লাহতায়ালার সাথে ব্যক্তির আধ্যাত্মীক সংযোগটি বাড়ে।যারা চিন্তা-ভাবনা করে না পবিত্র কোরআনে তাদেরকে পশু বলে অভিহিত করা হয়েছে।সেটি একবার নয়,বহুবার। ভাবনা শূণ্য মন মহান আল্লাহতায়ালার কাছে এতটাই অপছন্দের যে আফালা তাফাক্কারুন (কেন চিন্তাভাবনা করো না?),আফালা তাদাব্বারুন (কেন গভীর ভাবে মনোনিবিষ্ট করোনা?),আফালা তাক্বিলূন (কেন আক্বলকে কাজে লাগাও না?)–এরূপ প্রশ্ন পবিত্র কোরআনে তিনি বার বার রেখেছেন। নবুয়ত প্রাপ্তির পূর্বে নবীজীও নির্জনে চিন্তা-ভাবনার লক্ষ্যে হিরা পর্বতের গুহায় ছুটে যেতেন। ঘর-সংসার ছেড়ে অনেকেই জঙ্গলে আশ্রয় নিয়েছে। কিন্তু বনজঙ্গল নিরাপদ নয়,সেখানে থাকে হিংস্র পশু ও বিষাক্ত কীট-পতঙ্গের কামড়ে প্রাণনাশের আশংকা। ফলে সেখানে নেয়া মহান আল্লাহতায়ালার রীতি নয়,বান্দাকে তিনি নিজ ঘরের পবিত্র ও নিরাপদ আশ্রয়ে ডাকেন। সেটি যেমন প্রতিদিন ৫ ওয়াক্ত নামাযে ও তারাবিতে,তেমনি রামাদ্বানের ই’তিক্বাফে। ই’তেক্বাফে মু’মিন পায় ঘর-সংসার ও কাজকর্ম থেকে দূরে সরে নির্জনে আল্লাহকে ডাকার সুযোগ। এভাবে মু’মিন পায় একাকী আত্মসমালোচনা ও আত্ম-উপলদ্ধির ফুরসত।পায় বেশী বেশী নফল নামায,কোরআন পাঠ ও কোরআনের আয়াতগুলোর উপর একক মনে ভাববার সুযোগ। রমাদ্বানে এভাবেই বাড়ে তাকওয়া ও তাজকিয়ায়ে নাফস। হজে গিয়ে ক্বাবার তাওয়াফ এবং আরাফা,মিনা ও মোজদালিফায় অবস্থানও সে সুযোগ দেয়। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে “নিশ্চয়ই নামায অন্যায় কর্ম ও অশ্লিলতা থেকে দূরে রাখে।” কথা হলো,অন্যায় ও অশ্লিলতা থেকে যে ব্যক্তি দূরে থাকে তাঁর কাছে কি পাপ বা অপবিত্রতা আসতে পারে? পাপের পথে যাত্রা শুরু হয় তো অশ্লিলতা ও অন্যায় কর্মের মধ্য দিয়ে।

ইবাদত দর্শনীয় হলে তাতে রিয়াকারির সুযোগ থাকে।রিয়াকারি তো শিরক।ফলে এমন লোক দেখানো ইবাদতে বাড়ে আযাব। নামায,হজ ও যাকাত নির্জনে হয় না,অন্যরাও তা দেখতে পায়। যাকাত দিলে যে ব্যক্তি যাকাতের অর্থ পায় সে ব্যক্তি তা টের পায়। যে ঘরে নামায পড়া হয় সে ঘরের অন্যরা বাসিন্দা সেটি দেখে। হজও ঘটে প্রকাশ্যে। ফলে এরূপ প্রকাশ্য ইবাদতে লোকদেখানো ভাবটাও আসতে পারে। কিন্তু রোযা দর্শনীয় নয়,পালিত হয় গোপনে। গোপনে পানাহার করলে সেটি কে দেখবে? কিন্তু রোযাদার সেটি করে না একমাত্র আল্লাহর ভয়ে। মহান আল্লাহ তাই বলেন,“রোযা আমার জন্য,আমিই তার পুরস্কার দিব।”-সহীহ আল বোখারী ও মুসলিম। ক্ষুদার্ত এবং পীপাসার্ত ব্যক্তির পানাহারের ভাবনা স্মরণ করিয়ে দেয় সে রোযা আছে। তখন তার মনে জাগে মহান আল্লাহর ভয়। মু’মিনের জীবনে সে ভয়টুকুই তো প্রকৃত তাকওয়া এবং মহান আল্লাহর যিকর। রামাদ্বানের একমাস ব্যাপী রোযার মধ্য দিয়ে সে ভয় ও যিকর মু’মিনের জীবনে অভ্যাসে পরিণত হয়। বছরের বাকী সময়টা চলে সে অভ্যাসের উপর। রোযা এভাবেই মানুষের প্রবৃত্তির গলায় লাগাম পড়িয়ে দেয়। একবার গলায় লাগাম নিয়ে চলতে অভ্যস্থ হলে পরে আর সেরূপ চলতে অসুবিধা হয় না। রোযা তো মাসব্যাপী সে অভ্যাসই গড়ে। সে অভ্যাস নিয়ে বাঁকি ১১ মাস কাটিয়ে দেয়া তার জন্য সহজ হয়ে যায়। ইমাম আল গাজ্জালী (রহঃ)বলেন,রোযাদারের উচিত দিনে না ঘুমিয়ে বরং জেগে ক্ষুধা ও পীপাসার কষ্ট অনুভব করা। এরূপ কষ্টে থাকার মধ্যেই বাড়ে আধ্যাত্মিকতা। ঘুমিয়ে থাকলে সে সুযোগ মেলে না।

 

আঘাত শয়তানী হাতিয়ারগুলির উপর

রোযা আঘাত হানে শয়তানের মূল হাতিয়ারগুলির উপর। সে হাতিয়ারগুলি হলো পানাহারের মোহ,অশ্লিলতা ও যৌনতার লিপ্সা,অহেতুক কথা এবং কুৎসা ও গীবত রটনার নেশা। মানব জীবনে বড় বড় পাপকর্মগুলো তো ঘটে প্রবৃত্তির এরূপ নেশাগ্রস্ততা থেকে। এরূপ নেশাগ্রস্ত মানুষেরা মূলত শয়তানের দ্বারা অধিকৃত। কুৎসা ও গীবত মানব সমাজের পারস্পারিক বন্ধন থেকে সিমেন্ট খুলে দেয়। ফলে সমাজে কলহ-বিবাদ ও সংঘাত বাড়ে। দেহের ক্ষুধা বা প্রবৃত্তির নেশা জীবনের চালিকা শক্তি হলে সে জীবনে আধ্যাত্মিকতা স্থান পায় না। মানব তখন পশুতে পরিণত হয়। আধ্যাত্মিক বিপ্লবের মূল চাবিটি হলো এরূপ জৈবিক প্রবৃত্তিগুলির উপর নিয়ন্ত্রন। রোযা এক মাস এগুলিকে দাবীয়ে রাখে। রোযা নিয়ন্ত্রন প্রতিষ্ঠা করে ক্রোধ,ইর্ষা ও মনের লাগামহীন খায়েশাতের উপর।রোযাদারের চোখ,জবান,কান,হাতপা এবং হৃদয়ের চাওয়া-পাওয়াও তখন আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পিত হয়। রোযাদারের জীবনে এভাবেই আসে আধ্যাত্মিক বিপ্লব। কিন্তু যার জীবনে সে বিপ্লব ঘটে না তার রোযা অকেজো বা ব্যর্থ হয়ে যায়। নবীজী (সাঃ)র হাদীসঃ “যে ব্যক্তি রমযানে মিথ্যা ও গুনাহ পরিত্যাগ করতে পারলো না আল্লাহতায়ালা তার পানাহার পরিত্যাগও চান না।” -সহিহ আল বোখারি। এমন ব্যর্থ রোযাদারদের সম্মদ্ধে নবীজী (সাঃ) বলেছেন,“রোযা থেকে অনেকে শুধু ক্ষুধা ও পীপাসা ছাড়া আর কিছুই অর্জন করে না।”

মহান আল্লাহতায়ালা মানব জাতির কল্যাণে শুধু কোরআনই নাযিল করেননি,কোরআনের আলোকে মানুষ গড়ার জন্য বিস্তারিত এক ম্যানুয়্যাল বা প্রশিক্ষণের পদ্ধতিও দিয়েছেন।নামায-রোযা-হজ-যাকাত তো সে প্রশিক্ষণেরই অংশ। তবে প্রশিক্ষণের সবচেয়ে বড় আয়োজন রামাদ্বানে।এ প্রশিক্ষণ আধ্যাত্মিক শক্তি বৃদ্ধির,প্রবৃত্তির উপর আত্মার পূর্ণ নিয়ন্ত্রন প্রতিষ্ঠার। কোন বিপ্লবই নিছক কোন বিপ্লবী দর্শনের গুণে প্রতিষ্ঠা পায় না।সে জন্য লোকবল চাই,সংগঠন চাই,রাষ্ট্র চাই এবং বিপ্লবী লোক গড়ার লাগাতর প্রশিক্ষণও চাই। চাই,মানুষের ভিতর থেকে আমূল পরিবর্তন। তবে শুধু নামায-রোযা-হজ-যাকাতের মধ্যেই সে প্রক্রিয়া সীমিত নয়,বরং সে মহান বিপ্লবের লক্ষ্যে মসজিদ-মাদ্রাসার পাশাপাশি সকল রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের পূর্ণ সংশ্লিষ্টতার নির্দেশও রয়েছে।সেরূপ সংশ্লিষ্টতা দেখা গেছে মহান নবীজী (সাঃ)ও সাহাবায়ে কেরামের যুগে।ধর্মকর্ম ও ইসলামি জ্ঞান বিতরনের কাজ তখন মসজিদ-মাদ্রাসায় সীমিত থাকেনি। সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলিও তাতে সংশ্লিষ্ট হয়েছে। ফলে সে সময় অতি দ্রুত মানব ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতার নির্মান সেদিন সম্ভব হয়েছিল।কিন্তু পরবর্তীতে সে প্রক্রিয়া বিলুপ্ত হয়েছে,বরং রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলিকে ইসলামের প্রতিপক্ষ রূপে খাড়া করা হয়েছে। ফলে তখন থেকেই শুরু হয়েছে মুসলমানদের নীচে নামা।এবং আজও  সে ধারা অব্যাহত রয়েছে।

উচ্চতর মানব নিছক মানব ঘরে জন্ম নেয়া বা উন্নত পানাহার ও আলোবাতাসের কারণে গড়ে উঠে না। এমনকি আলেম বা দরবেশের ঘরে জন্ম নেয়াতেও সে সম্ভাবনাটি বাড়ে না। সে জন্য চাই নিবীড় প্রশিক্ষণ। এমন প্রশিক্ষণ অন্য জীবজন্তু বা কীটপতঙ্গের জীবনে প্রয়োজন পড়ে না। বাঘ জন্মের পর থেকেই বাঘ। কিন্তু মানুষকে মানবিক পরিচয় পেতে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের দীর্ঘ স্তর অতিক্রম করতে হয়। শিক্ষা লাভের সে স্তরগুলি বাধাগ্রস্ত হলে মানুষ রূপে বেড়ে উঠাতেই ছেদ পড়ে। পাপুয়া নিউগিনি বা আন্দামানের দ্বীপে বহু মানব সন্তান আজও  পশুর ন্যায় জঙ্গলের গুহায় উলঙ্গ ভাবে বাঁচে মূলতঃ শিক্ষার সে প্রক্রিয়া পাড়ি না দেয়ার কারণে। অথচ অন্য মানুষদের থেকে দৈহীক ভাবে তাদের মাঝে কোন ভিন্নতা নেই। এমন কি যারা নিছক বাঁচার স্বার্থে বাঁচে তেমন মানুষরূপী বহু ভদ্রবেশী পশুও আধ্যাত্মিক প্রশিক্ষণ লাভের গুরুত্ব বুঝে না। এরাই অস্ত্র হাতে পেলে পশুর চেয়েও হিংস্রতর হয়ে উঠে। বিগত দুটি বিশ্বযুদ্ধে এদের হাতেই সাড়ে সাত কোটি মানুষের মৃত্যু। সকল পশুকুলও এত মানুষের হত্যা করতে পেরেছে? যেসব ধর্ম বা মতবাদগুলি উচ্চতর মানব বা সভ্যতা নির্মাণের স্বপ্ন দেখে না সেসব ধর্ম ও মতবাদের অনুসারিদের কাছেও ধর্মীয় শিক্ষা বা প্রশিক্ষণ গুরুত্ব পায় না। অথচ ইসলামে রয়েছে ওহীর জ্ঞান বিতরণের বিশাল গুরুত্ব ও আয়োজন। নামায-রোযা, হজ-যাকাত ফরজ করার আগে ফরজ করা হয়েছে কোরআনের জ্ঞানার্জনকে।কোরআন নাযিল শুরু হয়েছে “ইকরা” অর্থ পড় দিয়ে।মানব চরিত্রে বিপ্লবের মূল এবং প্রধান হাতিয়ারটি হলো ওহীর জ্ঞান।জ্ঞানের সাথে চাই,মহান আল্লাহর নির্দেশিত প্রশিক্ষণ।মহান আল্লাহতায়ালা তাই মানব চরিত্রে বিপ্লব আনার কাজকে শুধু ওহীর জ্ঞানদানের মাঝে সীমিত রাখেননি।দিয়েছেন,নামায-রোযা,হজ-যাকাতের ন্যায় ইবাদতের বিধান।ডাক্তার,ইঞ্জিনীয়ার,বিজ্ঞানী বা অন্য কোন পেশাদার হওয়ার জন্য ছাত্রকে শুধু বই পড়লে চলে না তাকে সে পেশায় বছরের পর বছর প্রশিক্ষনও নিতে হয়।কিন্তু মুসলমান রূপে গড়ে তোলার কাজ তো বিশাল। একাজটি পেশাদারি দক্ষতার বিষয় নয়।পেশাদার ডাক্তার বা ইঞ্জিনীয়ার তো অতি ব্যভিচারি ও মদ্যপায়ী এক দৃর্বৃত্তও হতে পারে।পেশাদারি ট্রেনিংয়ের লক্ষ্য স্রেফ ডাক্তার বা ইঞ্জিনীয়ার গড়া;ধর্ম বা দর্শন শেখানো নয়,নীতিবান মানব গড়াও নয়।কিন্তু মুসলমান হ্ওযার জন্য চাই ঈমান-আক্বীদা,চেতনা-চরিত্র ও কর্ম জুড়ে এক আমূল বিপ্লব।ফলে এখানে শুধু জ্ঞান হলে চলে না,চাই অবিরাম ধ্যানমগ্নতা (যিকর),চাই সিরাতুল মুস্তাকীমের চলার আগ্রহ, চাই পরকালে মহান আল্লাহতায়ালার কাছে জবাবদেহীতার ভয় (তাকওয়া।

কার্ল মার্কসের “ডাস ক্যাপিটাল” ও “কম্যুনিষ্ট পার্টির মেনিফেস্টো” আজ থেকে শত বছর আগে যেমন ছিল তেমনি আজও আছে।কিন্তু কম্যুনিজম প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে পূর্বের ন্যায় উদ্বুদ্ধ লোক নাই,সংগঠন নাই এবং মানুষের মনকে আন্দোলিত করার মত প্রশিক্ষণও নাই।ফলে কোন দেশে কম্যুনিষ্ট বিপ্লবও নাই। ফলে পুঁজিবাদের বিপরীতে কম্যুনিজম আজ আর তাই কোন শক্তিই নয়।কম্যুনিষ্টদের লক্ষ্য সর্বমুখি ছিল না,ছিল সীমিত।তারা চেয়েছিল উংপাদনের প্রক্রিয়া ও সম্পদের বন্টনে বিপ্লব। চেয়েছিল ভূমি ও কলকারখানার উপর শ্রমিকের মালিকানা প্রতিষ্ঠা। মানুষের আধ্যাত্মিক,নৈতীক ও চারিত্রিক বিপ্লব নিয়ে তাদের মাথা ব্যাথা ছিল না।ভাবনা ছিল না নাগরিকগণ পরকালে জান্নাত পাবে,না জাহান্নাম পাবে -তা নিয়েও। কিন্তু এরপরও সে সীমিত লক্ষ্যের বিপ্লবের জন্যও তাদেরকে নিজস্ব ধারার বিপুল সংখ্যক মানুষ গড়তে হয়েছে।দেশে দেশে কম্যুনিষ্ট পার্টি গড়তে হয়েছে এবং কম্যুনিজমের প্রচারে বিশাল সাহিত্যও গড়ে তুলতে হয়েছে। সে সাথে রাশিয়ার মত বিশ্বের সবচেয়ে বৃহৎ দেশের উপর দখলদারি প্রতিষ্ঠা করতে হয়েছে। সে দখলদারির ফলে কম্যুনিজম রাতারাতি বিশ্বশক্তিতে পরিনত হয়।এবং যখন সে রাষ্ট্র হাতছাড়া হয়েছে তখন বিলুপ্ত হয়েছে বিশ্বশক্তির সে মর্যাদা। একই ভাবে ইসলাম শক্তিহীন হয়েছে মুসলিম ভূমিগুলি দেশী ও বিদেশী শত্রুদের হাতে অধিকৃত হওয়ায়।শত্রুশক্তির দখলকারির কারণে সবচেয়ে বড় ক্ষতিটি হয়েছে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে।পরিকল্পিত ভাবে বন্ধ করা হয়েছে মুসলিম জীবনে ইসলামি শিক্ষা ও আধ্যাত্মিক বিপ্লবের প্রশিক্ষণ।বরং রাষ্ট্রের সকল সামর্থের বিনিয়োগ হচ্ছে মুসলমানদের ইসলাম থেকে দূরে সরানোর কাজে। ফলে মুসলমানের সংখ্যা বাড়লেও ইসলামের প্রতিষ্ঠা বাড়েনি। মুসলমনাদের শক্তি ও ইজ্জতও বাড়েনি।

 

মহান আল্লাহতায়র ভিশন

মানবসৃষ্টি নিয়ে মহান আল্লাহতায়ালার নিজস্ব ভিশন রয়েছে। রোযার মাসব্যাপী প্রশিক্ষণের গুরুত্ব বুঝতে হলে মহান আল্লাহতায়ালার সে মহান ভিশনটি অবশ্য বুঝতে হবে। সে ভিশনটি এতই গুরুত্বপূর্ণ যে সেটি পূরণে মুসলমানদের জন্য তিনি একটি মিশনও নির্ধারিত করে দিয়েছেন। তাদের জন্য লাগাতর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছেন।শুধু রোযা নয়,নামায-হজ-যাকাতও সে প্রশিক্ষণের অংশ। পবিত্র কোরআনে তাঁর সে ভিশনটি তিনি বার ঘোষিত হয়েছে।সেটি  “লিহুযহিরাহু আলাদ্দীনি কুল্লিহি” অর্থাৎ সকল ধর্ম ও মতাদর্শের উপর তাঁর দ্বীনের বিজয়। বিজয় আনার কাজে ঈমানদারগণ তাঁর খলিফা রূপে কাজ করবে সেটিই মহান আল্লাহতায়ালার প্রত্যাশা। রোযা ফরয করার লক্ষ্যে মহান আল্লাহতায়ালা মাত্র দুটি আয়াত নাযিল করেছেন সেটি সুরা বাকারার ১৮৩ ও ১৮৫ নম্বর আয়াত। তাতেই বিশ্বের শত কোটির বেশী মানুষ রোযা রাখে। কিন্তু ইসলামকে বিশ্বব্যাপী বিজয়ী করার লক্ষ্যে মহান আল্লাহর যে নির্দেশ সেটি পূরণে মুসলিমদের মাঝে সে আয়োজন কই?

মহান আল্লাহতায়ালা তাঁর ভিশন পূরণে মু’মিনের জীবনে যে মিশনটি নির্ধারণ করে দিয়েছেন সেটি হলোঃ ন্যায়ের প্রতিষ্ঠা ও অন্যায়ের নির্মূল। পবিত্র কোরআনের ভাষায় সেটি “আ’’মিরু বিল মারুফ ওয়া নেহি আনিল মুনকার”। এ কাজ যেমন বিশাল,তেমনি এ কাজের পুরস্কারও বিশাল। একাজ চায় জানমালের বিশাল বিনিয়োগ।সাহাবাদের বেশীর ভাগ এ কাজে শহীদ হয়ে গেছেন। এ মিশন পালনে মু’মিনদের সামর্থ বাড়াতে মহান আল্লাহতায়ালার নির্দেশিত প্রস্তুতি এবং প্রশিক্ষণের আয়োজনও বিশাল। পবিত্র কোরআনের ছত্রে ছত্রে সে প্রস্তুতির তাগিদ। এবং সে প্রস্তুতির শুরুটি কোরআন বুঝার মধ্য দিয়ে। মু’মিন রূপে বেড়ে উঠার এটিই ফাউন্ডেশন বা ভিত্তিমূল। এখানে ব্যর্থ হলে মিশনের বাঁকি কাজেও সে ব্যর্থ হতে বাধ্য।মহান আল্লাহতায়ালার নির্দেশিত সিরাতুল মুস্তাকীমে চলায় পবিত্র কোরআন হলো রোডম্যাপ। এ রোডম্যাপই জান্নাতের পথ দেখায়। ফলে সে কোরআনি রোডম্যাপের জ্ঞান ছাড়া পথ চলা যে নিশ্চিত ভ্রান্ত পথে হবে এবং জাহান্নামে পৌঁছাবে -তা নিয়ে কি সন্দেহ চলে? কোরআন বুঝার এ ব্যর্থতা ব্যক্তিকে যে জাহেলে পরিণত করে ও জাহান্নামের আযাব ডেকে –সেটি যেমন নবীজী (সাঃ)র আমলে যেমন সত্য ছিল তেমনি আজও তো সত্য। আধুনিক যুগের জাহেলগণ বৈজ্ঞানিক আবিস্কারে চমক সৃষ্টি করতে পারে, চাঁদেও নামতে পারে,কিন্তু ওহীর জ্ঞানের অজ্ঞতায় তারা কি আদিম জাহেলদের থেকে আদৌ ভিন্নতর? এরূপ জাহেলগণ নবেল প্রাইজ পেলেও কি মহান আল্লাহতায়ার ভিশন পূরণে সহায়ক হতে পারে? পবিত্র জান্নাতে কি এমন জাহেলগণ কোন কালেও প্রবেশাধিকার পাবে?

অন্য কোন ধর্মে সর্বাত্মক রাষ্ট্রীয় বিপ্লবের কোন ধারণা নাই,কর্মসূচীও নাই। ফলে ইসলামের ন্যায় অন্য ধর্মে প্রশিক্ষণ বা প্রস্তুতির আয়োজনও নাই। ইসলাম এজন্যই অনন্য। অন্যধর্মে ধর্মগ্রন্থ পাঠ করা বাধ্যতামূলক নয়; গীর্জা,মন্দির বা মঠের মন্ত্রপাঠ সাধারণ খৃষ্টান,হিন্দু ও বৌদ্ধকে না জানলেও চলে। তাদের পক্ষ থেকে গীর্জার পাদ্রী,মন্দিরের ঠাকুর বা মঠের ভিক্ষুকগণ করলেই চলে।ফলে অন্যকোন ধর্মগ্রন্থে কেউ হাফেজ হয় না। অথচ পবিত্র কোরআন শিক্ষা করা,কিছু সুরা মুখস্থ করা,আলেম হওয়া এবং নিজের ইবাদত নিজে করা প্রতিটি মুসলমানের উপর ফরজ। নইলে মুসলমান হওয়াই অসম্ভব হয়ে পড়ে। ইসলাম ব্যক্তিকে তার নিজ নিজ কাজকর্ম,শয়ন বা বিশ্রাম থেকে উঠিয়ে প্রত্যহ ৫ বার মসজিদে নামাযে ডাকে।অন্য ধর্মগুলি দিনে ৫ বার কেন,একবারও ডাকে না। অন্য কোন ধর্মে মাসভর রোযার ন্যায় প্রশিক্ষণের আয়োজনও নাই।নিজ-কষ্টে উপার্জিত অর্থ থেকে যাকাত,ফিতরা,ওশর ও সাদকা রূপে অন্যদের ভাগ দিতেও বলে না।বহুশত বা বহুহাজার মাইল অতিক্রম করে হজে যেতেও নির্দেশ দেয় না। ভাষা,বর্ণ,ভৌগলিকতা ও আঞ্চলিকতার নামে গড়া বিভক্তির দেয়ালগুলো ভেঙ্গে কাঁধে কাঁধে মিলিয়ে সিসাঢালা প্রাচীরের ন্যায় বিশ্বভ্রাত্বের বন্ধন গড়ার যে কঠোর নির্দেশটি ইসলাম দেয়,অন্য ধর্ম সেটিও দেয় না।ভিশন যত উন্নত হয়,মিশন ও প্রশিক্ষণের মাত্রাও তত উন্নত হয়।ইসলামের যা কিছু মহান তার মূলে তো মহান রাব্বুল আলামীন ও তাঁর পবিত্র গ্রন্থ আল-কোরআন।। তাই ইসলামের সাথে কি অন্য কোন ধর্মের তূলনা হয়? ফলে ইসলাম যে মাপের চারিত্রিক ও আধ্যাত্মিক বিপ্লব আনে সেটি কি অন্য ধর্মের অনুসারিগণ কল্পনা করতে পারে?

মাহে রামাদ্বানের ন্যায় বছরের আর কোন মাসেই এত কোরআন তেলাওয়াতের আয়োজন নাই। এ মাসে খতম তারাবিহ হয় মসজিদে মসজিদে। ইসলামের ইতিহাসে হযরত উমর (রাঃ)এর কল্যাণময় অবদান অনেক।বহু নেক কর্মের মাঝে তাঁর আরেক বিশাল নেক কর্ম হলো,তারাবীর নামাযকে তিনি জামাতে পড়ার রেওয়াজটি চালু করেন। ফলে মুসলমানগণ অন্তুতঃ বছরে একবার পুরা কোরআনপাকের আবৃত্তি শুনতে পায়। অথচ বহু কোটি মুসলিমের জীবনে নিজ উদ্যেোগে সেটি কি সারা জীবনে একবারও ঘটে? সে আমলে সেটি ছিল অসম্ভব। বর্তমান যুগে অতি সহজ হলো একখন্ড কোরআন সংগ্রহ করা।অনেক সময় বিনমূলেও মেলে। কিন্তু সে আমলে সে সুযোগ ছিল না। প্রথমবার মাত্র ৪ খন্ড কোরআন সংকলিত হয় হযরত উসমান (রাঃ)র আমলে। তখন পবিত্র কোরআন ছিল হাফিজদের স্মৃতিতে। জ্ঞানের এ সর্বশ্রেষ্ঠ ভান্ডারের সাথে সাধারণ মানুষের সংযোগের আয়োজনটি শুরু হয় তারাবিতে কোরআন খতমের মধ্য দিয়ে।অন্য কোন ধর্মে সাধারন মানুষের মাঝে কি ধর্মীয় জ্ঞান বিতরণের এরূপ আয়োজন আছে? নবীজী (আঃ)ও সাহাবায়ে কেরামদের যুগে এমনকি ফজর,মাগরিব ও এশার নামাযেও দীর্ঘ ছুরা পাঠ করা হতো। যারা কোরআনের ভাষা বুঝে তাদের জন্য এ হলো বিশাল নেয়ামত।ইসলামের প্রাথমিক যুগে সাধারণ মানুষ এভাবে ওহীর জ্ঞান পেয়েছে ইমামের তেলাওয়াত থেকে,মাদ্রাসা বা মকতব থেকে নয়। জ্ঞানের রাজ্যে বিপ্লবে ও সমাজ পরিবর্তনে তেলাওয়াতের গুরুত্ব তাই বিশাল। আজও আরব বিশ্বে ইসলামের পক্ষে যে ব্যাপক সাড়া পড়েছে তার মূলে তো দেশের প্রতি কোণে ব্যাপক কোরআন তেলাওয়াত। মানব মনকে আন্দোলিত করতে ও এক আমূল বিপ্লবে দীক্ষা দেয়ার ক্ষেত্রে কোরআনের সামর্থ তো অতূলনীয়। বীজ সর্বত্র ছিটালে কিছু বীজ যে উর্বর ভূমিতে পড়বে ও বিশাল বৃক্ষের জন্ম দিবে -তা নিয়ে কি কোন সন্দেহ আছে? কোরআনের তেলাওয়াতও তাই আরবী ভাষীদের মাঝে বিপুল কাজ দিচ্ছে।রামাদ্বানের তারাবি তো সে কাজটিই করে মাসভর।

 

যে ব্যর্থতা মুসলিমের

মাহে রামাদ্বান কোরআন নাযিলের মাস। মানব জাতির ইতিহাসে এটিই সর্বশ্রেষ্ঠ ও সবচেয়ে কল্যাণকর ঘটনা। এ মাসে মহান আল্লাহতায়ালার নিজের কথাগুলো তাঁর বান্দাহর কাছে নেমে এসেছে। জান্নাতের পথে পথচলার এটিই তো একমাত্র পথ। এ পথ না পাওয়ার অর্থ তো নিশ্চিত জাহান্নামের আগুণে গিয়ে পৌঁছা।তাতে এ জীবনে সমগ্র বাঁচাটাই ভয়ানক আযাবের কারণ হয়। মানব ইতিহাসে কোরআন নাযিল তাই মামূলী বিষয় নয়। মহান আল্লাহতায়ালা এ পবিত্র ও অতি গুরুত্বপূর্ণ মাসকে সম্মানিত করেছেন এক মাস রোযা ফরজ করে। সম্মানিত করেছেন হাজার মাসের চেয়ে শ্রেষ্ঠ লায়লাতুল ক্বদর দিয়ে।সে সাথে এ মাসে পালনকৃত প্রতিটি ইবাদতের ফজিলত বহুগুণ বাড়িয়ে।এভাবে মহান রাব্বুল আলামীন প্রমাণ করেছেন,মাহে রামাদ্বানের গুরুত্ব তাঁর কাছে কত বেশী। কিন্তু প্রশ্ন হলো,এ মাসের সন্মানে বিশ্ব-মুসলিমের নিজেদের আয়োজনটি কতটুকু? সেটি কি স্রেফ না বুঝে বার বার কোরআন খতমে? কিন্তু কোরআনের নাযিলের মূল উদ্দেশ্যটি বার বার কোরআন খতম? এ মাসটি হলো কোরআন থেকে শিক্ষা নেয়া এবং কোরআনের নির্দেশিত পথে চলার মাস। কিন্তু কোথায় সে পথ অনুসরণে আগ্রহ? মুসলমানদের জীবনে এখানেই ঘটছে সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা -যা তাদের অন্য সকল ব্যর্থতার কারণ।এটি গুরুতর অপরাধও।

আজকের মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতাটি কৃষি বা শিল্পে নয়। সম্পদের আহরনেও নয়। বরং সেটি মহান আল্লাহতায়ালার সবচেয়ে বড় নিয়ামত থেকে হিদায়েত লাভে।ফলে তারা আজ ভয়াবহ পথভ্রষ্টতার শিকার। রামাদ্বানের তারাবি নামাজে মসজিদে মসজিদে কোরআন খতম করা হয়। কিন্তু ক’জন সারা জীবনে একবারও এ মহান গ্রন্থটিকে শুরু থেকে শেষ অবধি একবার অর্থসহ পড়েছে? ডাক্তারি, ইঞ্জিনীয়ারিং ও কৃষিবিদ্যার ন্যায় জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রতি শাখাতেই রয়েছে অসংখ্য বই। কিন্তু কখনই কি সেগুলি অর্থ না বুঝে পড়া হয়? কোন শিক্ষকই কি ছাত্রকে সেরূপ তেলাওয়াতে পরামর্শ দেয়? না বুঝে কিতাব পাঠেও পরীক্ষায় কাজ দিবে –এমন কথা বললে সে শিক্ষককে কেউ কি মানসিক ভাবে সুস্থ্য বলবে? অথচ আলেমদের পক্ষ থেকে এমন ছবক দেয়া হচ্ছে না বুঝে কোরআন পাঠের ক্ষেত্রে!তারা বলছে,এতে পরাকালে সওয়াব মিলবে। শিশুও কোন বই না বুঝে পাঠ করে না। কিন্তু আজকের প্রাপ্ত বয়স্ক মুসলমানরা পবিত্র কোরআন না বুঝে পাঠ করে।ভাল মুসলমান গড়ে তোলার জন্য তো চাই কোরআনের গভীর জ্ঞান,এবং প্রতিক্ষেত্রে সে জ্ঞানের প্রয়োগ। কিন্তু পবিত্র কোরআনের সাথে সেটি ঘটছে না।শুধু তেলাওয়াতই হচ্ছে,কিন্তু জ্ঞানলাভ হচ্ছে না।ফলে কোরআনের পাঠক বাড়ছে,আলেম নয়।এখানেই সংঘটিত হচ্ছে মানব জাতির ইতিহাসে সবচেয়ে বড় অপরাধ।ওহীর জ্ঞানের অজ্ঞতা ও ধর্মের নামে নানা রূপ মিথ্যা দিয়ে হত্যা করা হচ্ছে বিবেককে। সংঘটিত হচ্ছে মহান আল্লাহর সর্বশ্রেষ্ঠ নেয়ামতের সাথে সবচেয়ে বড় গাদ্দারি। কেউ কেউ কোরআন তেলাওয়াতকে বেছে বেছে কিছু ছুরার মধ্যে সীমিত রাখছে। ফলে গুরুত্ব হারাচ্ছে সমগ্র কোরআন। প্রেসক্রিপশনের কোন একটি ঔষধকেও কি বাদ দেয়া যায়? তাতে কি রোগ সারে? মহান আল্লাহর হেদায়েতের বানি তো ছড়িয়ে রয়েছে তো সমগ্র কোরআন জুড়ে। ফলে কোন একটি সুরা বা কোন একটি আয়াতকেও কি বাদ দেয়ার সুযোগ আছে?

মুসলিম দেশগুলোতে আজ সবচেয়ে বড় অভাব কোরআনী জ্ঞানের।সাহাবাদের আমল থেকে আজকের মুসলমানদের মূল পার্থক্যটি বস্তুত এখানে। সেদিন এমন কোন সাহাবা ছিলেন না যিনি কোরআনের জ্ঞানার্জনকে গুরুত্ব দেননি।দীর্ঘ মরুর বুক অতিক্রম করে অতি কষ্টে তারা নবীজী (সাঃ)র দরবারে বার বার ছুটে এসেছেন কোরআনের একটি আয়াত বা নবীজী(সাঃ)র একটি হাদীস শোনার জন্য। ফলে সবাই গড়ে উঠেছিলেন আলেম রূপে। বিগত ১৪ শত বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় আলেম তো তারাই। আর সত্যিকার আলেম হলে সে তো মহান আল্লাহতায়ালার রাস্তায় প্রকৃত মুজাহিদও হয়।কারণ গাড়ীর দুটি চাকার ন্যায় ইলম ও জিহাদ তো একত্রে চলে। তাদের কারণেই ইসলাম সেদিন বিজয়ী বিশ্বশক্তি রূপে আত্মপ্রকাশ করেছিল।অথচ আজ অধিকাংশ মুসলমানই পরিণত হয়েছে নিরেট জাহেলে। অথচ জিহাদহীন ও আমলহীন আলেমে। সেটি টের পাওয়া যায় জাহিলিয়াত যুগের ন্যায় ইসলাম থেকে দূরে সরার মাঝে। গোত্রপুজা, জাতিপুজা,ভাষাপুজা, মদ-জুয়া, সুদ-ঘুষ ও অশ্লিলতার ন্যায় জাহিলিয়াত যুগের নানা পাপাচার তাদের ঘাড়ে চেপে বসেছে। জাহেল মানুষের কাছে অজ্ঞতাকে ধরে রাখা এবং অজ্ঞতার পথে পথ চলাই তাদের সংস্কৃতি। ফলে মূল্য পাচ্ছে না মানব ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ গ্রন্থ আল-কোরআন থেকে শিক্ষালাভ।

 

ব্যর্থতা রোযার নয়

রোযা বার বার ফিরে এলেও আধ্যাত্মিক বিপ্লব আসছে কতটুকু? মুসলিমেরা আজ  ইতিহাস গড়ছে দুর্বৃত্তি,ব্যর্থতা ও লাগাতর পরাজয়ে। এগুলি কি আধ্যাত্মিক বিপ্লবের লক্ষণ? পরিশুদ্ধ ও তাকওয়াসমৃদ্ধ মানুষ গড়ার ক্ষেত্রে মাসব্যাপী রোযা যে কতটা ব্যর্থ হচ্ছে -এ হলো তার নমুনা। তবে এখানে ব্যর্থতাটি রোযার নয়। বরং ব্যর্থতা তাদের যারা রামাদ্বানে রোযা রাখাকেই শুধু গুরুত্ব দিচ্ছে এবং ব্যর্থ হচ্ছে ঈমানদার রূপে বেড়ে উঠতে। তাছাড়া কোরআনী জ্ঞানের অজ্ঞতা নিয়ে কি ঈমানদার হওয়া যায়? ইসলাম ও কোরআনী জ্ঞানের এ বিশাল অজ্ঞতা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের বড় বড় ডিগ্রিতে দূর হচ্ছে না। তবে মুসলিম বিশ্বজুড়ে আজ যে হাজার হাজার স্কুল,কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় সেগুলি কোরআনী জ্ঞানের অজ্ঞতা দূরীকরণের জন্য প্রতিষ্ঠিতও হয়নি।বরং এগুলি পরিণত হয়েছে মুসলিম ছাত্রছাত্রীদের ইসলাম থেকে দূরে সরানোর বিশাল ইন্ডাস্ট্রিতে। মুসলিম মনে আধ্যাত্মিক বিপ্লবকে বলা হচ্ছে মৌলবাদ বা সন্ত্রাসী চেতনা রূপে। প্রতিটি মুসলিম দেশে সরকারি উদ্যোগে চলছে সেক্যুলাইরেজশন এবং ডি-ইসলাইজেশন প্রজেক্ট। একই লক্ষ্যে বিদেশীদের অর্থায়নে মাঠে নেমেছে হাজার হাজার এনজিও ও তাদের বহুলক্ষ ক্যাডার। নবীজী (সাঃ)র যুগের ইসলামে ফিরে যাওয়ার আগ্রহটি চিত্রিত হচ্ছে দণ্ডনীয় অপরাধ রূপে। এমন একটি ইসলামবৈরী ধারণা নিয়েই সুপরিকল্পিত ভাবে বিলুপ্ত করা হচ্ছে কোরআনী জ্ঞানের ক্ষুধা। এটির শুরু মুসলিম বিশ্বে ঔপনিবেশিক কাফের শাসনের শুরু থেকে;এবং বর্তমান সেক্যুলারিস্ট শাসকদের কাজ হয়েছে কাফেরদের প্রবর্তিত সে ধারাকেই আরো বলবান করা। ফলে নিজ ঘরে একাধিক কোরআন শরীফ থাকলেও বড় বড় ডিগ্রিধারি মুসলিম সন্তানদের মনে সেটি বুঝে পড়াতে আগ্রহ জাগছে না। ফলে কোনটি সিরাতুল মুস্তাকিম আর কোনটি সিরাতুশ শায়তান –সেটি বুঝার সামর্থই অধিকাংশ মুসলিমের নাই।রোযা রাখছে,তারাবি পড়ছে,ফিতরা দিচ্ছে,ঈদের জামায়াতে হাজির হচ্ছে সে অবুঝ ও বেহুশ অবস্থা নিয়েই।শরিয়তের পথ ছেড়ে তারা যে পথটি ধরেছে সেটি যে কুফরির পথ –সে জ্ঞানই বা ক’জনের  পতিতাবৃত্তি,ব্যাভিচার,অশ্লিলতা,মদ্যপান,জুয়া,ঘুষ ও সূদিব্যংকের ন্যায় নানারূপ হারামকর্মও তাই মুসলিম দেশে আইনগত বৈধতা পেয়েছে। ইহুদী-খৃষ্টানদের ন্যায় তারা নিজেরাই পরিণত হয়েছে পথভ্রষ্ট দোয়াল্লিনে।আর পথভ্রষ্টদের উপর আযাব নাযিলই তো মহান আল্লাহতায়ালার সূন্নত।আজকের মুসলমানদের উপর সে আযাব কি কম? মুসলিম দেশগুলি যেরূপ দেশী ও বিদেশী শত্রুদের হাতে অধিকৃত,দেশে দেশে ঝরছে যেরূপ মুসলিমের রক্ত,লক্ষ লক্ষ যেভাবে উদ্বাস্তু হচ্ছে এবং দেশ ছাড়তে গিয়ে সাগরে ভাসছে –তা কি রহতের আলামত?

প্রশ্ন হলো,আদৌ সফল হচ্ছে কি মাহে রামাদ্বান? অর্জিত হচ্ছে কি আধ্যাত্মিক বিপ্লব? অথচ সে বিপ্লবের লক্ষ্যে মাসটি হলো মহান আল্লাহতায়ালার প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউশন।আধ্যাত্মিক বিপ্লবে রামাদ্বানের রোযা যেখানে বিশাল সাফল্য দেখিয়েছিল তখন রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান সমূহ সে প্রশিক্ষণ প্রকল্পের সাথে একাত্ম ছিল।রাষ্ট্রের বিশাল প্রশাসনিক অবকাঠামো,রাজনীতি,সংস্কৃতি,মিডিয়া ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি যেখানে কাজ করে ইসলাম থেকে জনগণকে দূরে সরানোর কাজে সেখানে কি মাহে রামাদ্বানের এ প্রশিক্ষণ আধ্যাত্মিক বিপ্লব অর্জনে সফল হতে পারে? তাকওয়া বাড়ানোর লক্ষ্যে সুরা বাকারার যে আয়াতটিতে রোযা ফরয ঘোষিত হয়েছে সে আয়াতটির মূল লক্ষ্যবস্তু ছিল ঈমানদারগন। কিন্তু যারা ধরেছে জাহিলিয়াতের পথ,শরিয়তের প্রতিষ্ঠার বিরুদ্ধে প্রতিরোধই যাদের রাজনীতি ও বুদ্ধিবৃত্তি -তাদের উপর কি রোযার কার্যকারিতা থাকে? ঔষধ মৃত মানুষদের উপর কাজ করে না। তেমনি রোযাও কাজ করে না ঈমানশূর্ণ জাহেলদের উপর। কোটি কোটি মানুষের মাসব্যাপী রোযাপালন তাই ব্যর্থ হচ্ছে আধ্যাত্মিক বিপ্লব আনতে। ব্যর্থ হচ্ছে মহান আল্লাহতায়ালার দ্বীনের বিজয় আনতে।বাংলাদেশে যত মানুষ রোযা রাখে ও তারাবিহ নামায পড়ে তা বিশ্বের শতকরা ৯৫% ভাগ দেশে নাই। কিন্তু দেশটি দুর্বৃত্তিতে বিশ্বের সবাইকে অতিক্রম করে ৫ বার প্রথম হয়েছে। ক্ষমতালোভী দুর্বৃত্ত স্বৈরাচারিদের হাতে এমন দেশ অধিকৃত হবে এবং দেশের সরকার নৌকায় ভাসা ও প্রাণ বাঁচাতে আসা রোহিঙ্গা মুসলিমদের নৌকাগুলাকে সমূদ্রতীর থেকে আবার সমূদ্রে ফিরে যেতে বাধ্য করবে,ভারত থেকে আশ্রয় নেয়া বিহারীদের বাড়ি-ঘর,দোকান-পাট কেড়ে নিয়ে তাদের বস্তিতে পাঠাবে এবং শত শত নিরস্ত্র মুসল্লিদের রাজপথে হতাহত করে লাশগুলোর ময়লা গাড়িতে গায়েব করবে -সেটিই কি স্বাভাবিক নয়? জনগণের তাকওয়া যখন নীচে নামে তখন কি সেদেশে এর চেয়ে ভিন্ন কিছু আসা করা যায়? তখন নামাযী ও রোযাদার হয়েও এরূপ কোটি কোটি মুসলিম যে দেশের উপর ইসলাম বিরোধীদের এ বর্বর অধিকৃতি সয়ে যাবে -সেটিও কি স্বাভাবিক নয়।

 

রোযার মাসটি জিহাদের মাসও

আধ্যাত্মিকতার শুরুটি নামায-রোযা দিয়ে হলেও চুড়ান্ত পর্যায়টি হলো জিহাদ। মহান আল্লাহতায়ালা সাথে আত্মিক সংযোগ মজবুত হলে বান্দা তখন তাঁর রাস্তায় শধু অর্থ,শ্রম ও মেধা নয় নিজের প্রাণও পেশ করে। সে তখন জিহাদের ময়দান খোঁজে। বদরের যুদ্ধ হয়েছিল রোযার মাসে।এ মাসটিতে ঘটেছিল মক্কা বিজয়। সেদিনের মুসলমানগণ শুধু নামায-রোযা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন না,প্রবল বিক্রমে জিহাদও করেছেন।মহান আল্লাহতায়ালার অধিকৃত ভূমি তো এভাবেই শয়তানী শক্তির কবজা থেকে মূক্ত হয়েছে এবং বিশাল ভূ-ভাগ জুড়ে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে শরিয়তি আইন।।নামায-রোযা,হজ-যাকাত,কোরআন পাঠের ন্যায় প্রতিটি ইবাদতের লক্ষ্য তো মু’মিনের জীবনে আধ্যাত্মিক বিপ্লব আনা।ইসলামের প্রাথমিক যুগে তো সেটিই হয়েছিল। তাদের মাঝে তখন প্রবল তাড়ানা ছিল জিহাদের নিত্য-নতুন ফ্রন্ট খোলার। এখানে কাজ করতো মহান আল্লাহতায়ালার অধিকৃত ভূমিকে মূক্ত করার চেতনা। সে চেতনা নিয়ে তূর্কী বীর ইখতিয়ার মহম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজী হাজার হাজার মাইল দূর থেকে বাংলাতেও ছুটে এসেছেন। হিন্দু রাজা দাহিরের নির্যাতন থেকে হিন্দুদের বাঁচাতে মুহম্মদ বিন কাসিম সুদূর ইরাক থেকে এসে সিন্ধুর জমিনে জিহাদ করেছেন।

অথচ রাজা দাহিরের চেয়েও নিষ্ঠুর শাসক বসে আছে বাংলাদেশে। তার হাতে নির্যাতিত ও নিহত হচ্ছে খোদ মুসলমানেরা। বাংলাদেশে আজ ১৫ কোটি মুসলমান। দেশটিতে লাখ লাখ আলেম ও মসজিদের ইমাম এবং কোটি কোটি নামাযী ও রোযাদার।অথচ দেশটি অধিকৃত ইসলামের শত্রুশক্তির হাতে।শরিয়ত প্রতিষ্ঠার পক্ষে কথা বলাও দণ্ডনীয় অপরাধ। কিন্তু কোথায় বিন কাসিমের মত মোজাহিদ? কোথায় সে জিহাদ? কোটি কোটি রোযাদারের তাকওয়ার এই কি নমুনা? এই কি আধ্যাত্মিকতা? আধ্যাত্মিকতার অর্থঃ অধীনতা একমাত্র মহান আল্লাহতায়ালার।এবং গোলামী একমাত্র তাঁরই হুকুমের।এরূপ আধ্যাত্মিকতায় তো মু’মিনের জীবনে জীহাদও এসে যায়।অথচ আজকের কোটি কোটি মুসলমানের জীবনে সে অধীনতা তো স্বৈরাচারি শাসকের। এমন পরাধীনতা নিয়ে নিয়ে কি মহান আল্লাহতায়ালার অধীন হওয়া যায়? অথচ মুসলিম শব্দের অর্থঃ মহান আল্লাহতায়ালার কাছে পূর্ণ আত্মসমর্পিত অধীনতা।সে আত্মসমর্পণ নিয়ে সেকালের মুসলমানগণ সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সভ্যতা নির্মাণ করতে পেরেছিলেন। অথচ বাংলাদেশে নির্মিত হচ্ছে দুর্বৃত্তিতে প্রথম হওয়ার রেকর্ড।অথচ প্রতিটি দুর্বৃত্তি বা দূর্নীতি হলো মহান আল্লাহতায়ালার হুকুমের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। ফলে যে দেশ দুর্বৃত্তিতে প্রথম হয় সে দেশটি প্রথম হয় মহান আল্লাহতায়ালার বিরুদ্ধে বিদ্রোহতেও। এ নিয়ে কি বিতর্ক চলে? কোটি কোটি মানুষের নামায-রোযার এই কি অর্জন? ব্যর্থতার এরূপ বিশ্বরেকর্ড নিয়ে মহান আল্লাহতায়ালার দরবারে কি মাগফেরাত জুটবে? বিচার দিনে জুটবে কি নবীজী(সাঃ)র সুপারিশ? কোন ন্যায়বিচারক কি কখনো দুর্বৃত্তদের পক্ষ নেয়?

 

মু’মিনের জীবনে ইঞ্জিন

মহান আল্লাহতায়ালার ঘোষণা,“নিশ্চয়ই যারা ঈমান আনলো ও ন্যায় কাজ করলো তারাই পৃথিবীপৃষ্ঠে শ্রেষ্ঠ।”–(সুরা বাইয়্যানাহ,আয়াত ৭)।ঈমান ও নেক আমলের এটিই তো কাঙ্খিত ফল। গাড়ি না চললে বুঝতে হবে ইঞ্জিনে সমস্যা আছে। তেমনি ইবাদতকারির উন্নত চরিত্র সৃষ্টি না হলে বুঝতে হবে নিদারুন সমস্যা আছে তার ঈমান ও আমলে। ঈমান ও আমলে সফল হওয়ার জন্য অতি অপরিহার্য হলো ওহীর জ্ঞান। মু’মিনের জীবনে সেটিই তো মূল ইঞ্জিন। তবে ওহীর জ্ঞানার্জনে যা অপরিহার্য তা হলো অর্থ বুঝে কোরআন পাঠ অথবা সুযোগ্য আলেমের সাহচর্যে থেকে পবিত্র কোরআনের গভীর জ্ঞানলাভ।পবিত্র কোরআনের ঘোষণাঃ“ইন্নামা ইয়াখশাল্লাহা মিন ইবাদিহিল উলামায়ু” অর্থঃ বান্দাকুলের মাঝে একমাত্র আলেমগণই আমাকে ভয় করে” –(সুরা ফাতির,আয়াত ২৮) মহান আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে এটি এক গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা;এবং সে সাথে ঈমানের মূল রোগের ডায়াগনসিস।যারা প্রকৃত ঈমানদার রূপে বেড়ে উঠতে চায় তাদের জন্য এ আয়াতে রয়েছে অতিশয় সতর্কবানী। ঈমানদার বা মুসলমান হওয়ার জন্য অতি অপরিহার্য হলো মহান আল্লাহতায়ালার ভয়।এ ভয়ই হলো মু’মিনের তাকওয়া। যাদের মনে সে ভয় নাই,আল্লাহর অবাধ্য বা বিদ্রোহী হওয়াটা তাদের জন্য অতি সহজ হয়ে পড়ে। মুসলিম বিশ্ব জুড়ে মহান আল্লাহতায়ালার সার্বভৌমত্ব ও শরিয়তের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের মূল কারণ তো নামধারি মুসলমানদের ভয়শূণ্য মন।মুসলিম দেশগুলিতে আজ যারা শরিয়তের প্রতিষ্ঠা রুখছে এবং শরিয়তের প্রতিষ্ঠাকামীদের হত্যা করছে বা তাদেরকে কারারুদ্ধ করছে তারা কাফের বা মুশরিক নয়।কাফের দেশের নাগরিকও নয়। বরং নিজ দেশের মুসলিম নামধারি এসব বিদ্রোহীরা। অথচ তাদেরও অনেকে নামায পড়ে,রোযা রাখে এবং হজও আদায় করে।অনেকে ইসলামি লেবাসও পরিধান করে। উপরুক্ত আয়াতটির মাধ্যমে মহান আল্লাহতায়ালা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন কোরআনী জ্ঞানের অজ্ঞতা নিয়ে নামাযী,রোযাদার বা হাজির বেশ ধরা সম্ভব,কিন্তু তাকওয়াসম্পন্ন মু’মিন হওয়া অসম্ভব।জাহেলদের রোযাপালন,নামায আদায়,হজ পালন তো এজন্যই ব্যর্থ হয়। তাদের জীবনে বার বার রামাদ্বান এলেও কি কোন কল্যাণ হয়? এবং কল্যাণ যে হচ্ছে না -তা নিয়েও সন্দেহ জাগে? দ্বিতীয় সংস্করণ:২৯/০৬/২০১৫(১২ই রামাদ্বান ১৪৩৫);প্রথম সংস্করণ:১১/০৮/১২ (২৩শে রামাদ্বান ১৪৩৩)

 




The Global Terrorism against the Muslims & the Consequence

The terrorising war of the imperialists

Terrorism has a precise dictionary meaning. It is the use of weapons to fill people’s minds with terror for political or monetary gain. The terrorising power of a weapon depends directly and proportionately on its destructive power. So, the terror of a knife-wielding robber can’t match with the terror done with bombs, drones, missiles or nuclear bombs. Hence, no one on the earth can match the terrorising power of the USA. Awe of terror has some paralysing effect. This is why, while the USA Army with its massive air, land and naval power invaded Afghanistan, Iraq and Syria and went on killing spree there, no country or international body could show any sign of morality or humanity to protest against such blatant war crime. Even the UN had to bow down to the US barbarity.

In World War II, the US dropped nuclear bombs on two Japanese cities. Its objective was not to occupy and colonise Japan. Instead, to achieve a massive terrorising goal. It could fill people’s mind all over the world with the devastating power of the new weapon. As a result, the USA –with the collaboration of other imperialists, could easily twist the political course of many parts the world to fit into its own agenda; even could dare disintegrate the whole map of of Middle East into more than 20 pieces. And, could also install an illegal state of Israel in its midst by cleansing its settled population.

The USA still continues to deploy the same strategy to terrorise the whole world –especially the Muslim World. President Donald Trump –a proven anti-Muslim rogue, destroyed almost every house of Mosul -the second largest city of Iraq to achieve that goal. He also razed the cities of Kobani, Raqqa, Fallujah, Ramadi, Deira’zour and many others to the ground for the same purpose. Whereas, the US could win the war without such massive destruction. President George W Bush too, had the same mind set. He invaded Afghanistan and Iraq to reinforce the image of the American might on the world stage. The main purpose of the USA’s occupation of Afghanistan, Iraq and Syria was not for oil or gas, but for terrorising the whole world, especially the Muslim population. It was a calculated act of robust terrorism to enforce full capitulation of the Muslim rulers. It has indeed fully achieved that. As a result, the US could easily twist the arms of the Saudi, Qatari, Kuwaiti, Emirati, Omani and Bahraini rulers to deposit trillions of petrodollar in the US economy. In return, the US provides security to these tyrants. Now they are trying to do the same against Iran. To continue with the same terrorising aim, the US government has embedded the whole world with thousands of military bases around the world. Now it has turned indispensable for the US to pursue such a coercive strategy to sustain its Super Power status. The US is already the most indebted country in the world – more than a trillion dollar it owes to China. The security cost of the US has turned so huge that it can’t sustain on its own.  Only through a coercive strategy, the US can force other nations to bear the maintenance cost of the American global empire. So, it has no other option but to engage in constant robbery –the classic version of terrorism, all over the world.

 

Terrorism with the distorted connotation

Military occupation never ends with mere physical occupation of a country. It is followed by occupation cum colonisation of people’s mind. And it is done through media. For that, the western imperialists and their partners in crime in the Muslim World have already taken over the media. As a result, they could hide their own crimes and demonise those who stand against them. The captured media helped them even to distort the true meaning of terrorism. So, in their vocabulary, those who are killing and terrorising the people with deadly weapons and reducing cities to ground are not labelled as terrorist. So, even the armed Israeli illegal settlers or soldiers who shoot at unarmed Palestinians are labelled innocent. In fact, they mean the opposite. The children who protest with empty hands or throw stones to the Israeli tanks are portrayed as terrorist. In Kashmir, the unarmed Kashmiri men, women and children who protest in the streets and demand freedom from Indian occupation are killed with a label of terrorist.

 

With the emerging trend of Islamic revival in the Muslim World, the meaning of terrorism has been given another deceitful distortion. Even the people who want to practise original Islam –as was practised by the Prophet of Islam (peace be upon him) with its indispensable components like sharia, hudud, shura, khilafa, shura and jihad, are also labelled as extremist cum terrorist. So, the fascist regimes in Egypt, Bangladesh and other Muslim countries do not hesitate to kill the unarmed Islamists. So, on 6th May in 2013, hundreds of sit-in protesters were killed in Shapla roundabout in Dhaka in Bangladesh and on 14th August in 2013, more than two thousand peaceful protestors were killed in Raba al-Adawiya square in Cairo.

 

Terrorism: a multi-national imperialist enterprise

A mad dog doesn’t need to be hurt to get offensive. The same is true with the imperialists. No man or woman from Afghanistan, Iraq and Syria bombed any American city; but the Americans came from other end of the glove to bomb the cities of those countries to kill more than a million. They dropped bombs, mother of all bombs, depleted uranium bombs, missiles and drones to turn thousands of Muslim houses and hundreds of cities to rubbles. But such killing campaigns have never been labelled in the western countries as a terror campaign. The US forces have detained and tortured thousands of innocent people with the extreme brutality in Afghanistan, Iraq and Syria. They established torture cells in Guantanamo Bay in Cuba, Bagram base in Afghanistan, Abu Gharib in Iraq to run brutality in an industrial scale. They also introduced rendition scheme to franchise such torturing scheme to other regimes known for cruel state apparatus. Awfully, under the US patronage, terrorism thus has become a multi-national state enterprise.

It is worth noting that the US-led imperialists aren’t concerned about the absence of basic human rights in the Muslim countries ruled by the US-supported tyrants. They get happy if these brutal killers help strengthen the national security of the US and serve their political, ideological & economic interests. Moreover, they appreciate these tyrants if they crush any Islamic resurgence. This is why the killer tyrant like General Abul Fatah al-Sisi of Egypt gets such a robust appreciation for killing, torturing and arresting the Islamists. It is clear, in the world order established by the US-led western powers, there is no scope for the Muslims to raise their heads and emerge as a significant global power. Such a world order is only to safeguard the interests of the US-led imperialists and Israel. Its prime aim is to keep the Muslims de-empowered.

 

The case of Russia, China & India

Vladimir Putin’s Russia has taken the same route. Like the US, it has committed the similar crimes against the Chechen Muslims. And, like any other member state of the UN Security Council, Putin also enjoys full impunity for his war crimes. On the other hand, the Chechen Muslims are labelled as terrorists for demanding freedom from the Russian occupation. To suppress their aspiration and liberation movement, in the year of 2000, the whole Chechen city of Grozny was bombed to the ground. Thousands were killed and many more were put in torture cells. And the Russian brutality still continues. In the Soviet era, the Russians did the same in Afghanistan in the eighties. Although the Russians were badly defeated in Afghanistan in 1989, but they didn’t stop their anti-Muslim campaigns. Now they are dropping bombs in Syria; and trying to expand the same state terrorism to Libya and the Central Republic of Africa.

China is committing the same brutality against the Uighur Muslims. In the name of cultural education, the Chinese government is carrying out a massive social engineering project of de-Islamisation. About a million Muslims are being kept in prisons and are being brain washed to take them away from Islam. They are not allowed to enjoy the basic human rights -like the right to practise their own religion. Even they were prevented to keep fasting and wearing their traditional dress. The religious education has also been strictly restricted.

The case of India is no less brutal against the Muslims either. The Muslims constitute about 15% of Indian population; but they are not give even 5% of the government jobs. Socio-economically, they are kept inferior to so-called untouchables. The Indian Army is on a long killing mission in the Muslim majority state of Kashmir. About a hundred thousand Kashmiri Muslims have already been killed and thousands of Kashmiri women are raped. In the Indian vocabulary, such state-run crimes are not called terrorism either. Rather, those who are standing for freedom from Indian occupation and wand basic human rights are labelled as terrorists.

 

The crime of the Israeli terrorists

The case of Israel is a classic example of a state that could be established solely through terrorism and could survive through terrorism. It is the old practice of ethnic cleansing of the original people and colonisation by the foreign people in modern age. The Jewish people came from all over the world to Palestine to grab lands from the Palestinians. The Palestinians are either killed or forced to live in refugee camps for more than 70 years. On the illegally seized lands, hundreds of thousands of luxurious flats are built for those who were not born in Palestine. The same old policy of eviction, the same policy of land grabbing and the same scheme of settling the foreign Jews in the Arab land that started 70 years ago still continue. Apartheid practice has died in South Africa, but now thrives in the occupied Palestine. The old western colonial powers not only support such illegal Israeli occupation of the Muslim lands, but also sponsor it economically and militarily. So, the crime of brutal occupation and killing continues unabated. And, such state-run crimes are not called terrorism either.

There is no doubt that the Jews have suffered a lot under the fascist regime in the west. Millions of them faced brutal death there. But, instead of learning compassion and humanity, they have learned a lot of brutal skills and inhumanities. These are now being deployed against the Muslims in Palestine. This is why, the atrocities against the occupied people of Palestine could attain such a scale of brutality. They have even lost all morality and civility to call the on-going brutality against the Palestinians as a cruel act, let alone calling it terrorism. Hatred against the Muslims has been so deeply embedded in the mind of Israeli rulers that they even feel highly content to embrace Prime Minister Narendra Modi of India as the friend of Israel. Whereas Narendra Modi is an Indian version of Adolph Hitler for the Indian Muslims. In 2002, he engineered the killing of more than two thousands innocent Muslim men, women and children in Gujrat while he was the Chief Minister of the province. He also instigated his followers to raze historic Babri Mosque to the ground. Recognising his robust criminality, even the US government imposed ban on his entrance to the US –although later on withdrawn in order to promote the American business interest with India.

 

The case of Sri Lanka

The Sri Lankan Army is already known for genocidal war crimes against the Tamils. Such crimes have already been documented by the international human rights organisations. But the failure of the international bodies like the UN and the International Criminal Court has emboldened them to continue the similar crimes against other people. Now their guns are turned against the Muslims. The extrajudicial killing has started with the new strategy to target the Muslims in their living quarters. To cover up the killing, they are telling the world that the Muslim women and children are blowing up themselves. Last year, the Sri Lankan Muslims didn’t explode any bomb anywhere; but the Buddhists hooligans led by the monks went on killing spree. They looted, vandalised and burnt down the Muslim houses and businesses. Such anti-Muslim rampage went on for many days; but the Sri Lankan Army and the police did very little to protect the Muslims’ life and properties. The judiciary too, showed its inaction to bring the criminals to justice. Moreover, such mob killings and arsons didn’t find any place in their vocabulary to be called as terrorism or Buddhist extremism.

 

Boiling up the Muslim blood

Every action has an equal and opposite reaction. Hence, every crime has a consequence. The Muslims are terribly suffering from all sorts of barbarity in almost every part of the world. The people of no other faith suffer in such an awful way. The cases of Palestine, Afghanistan, Iraq, Syria, Kashmir, Uighur, Rohingya are only a few to mention. In the west, the Muslim women are tormented only for wearing a head scarf. President Donal Trump has put a ban on the Muslims coming to the USA. The Indian Muslims are being lynched to death only for keeping or eating beef. Many East European countries have put wall of barbed wire to keep away the Muslim refugee out of their country. The Muslim countries ruled by the brutal dictators are embedded with thousands of Guantanamo Bay-like torture cells. The USA and its cronies like it.

The US, the French, the British, and the Italian Air Force have shown their ever readiness to bomb any people in any part of the world who want to go back to original Islam -as has been practised by the Prophet of Islam (peace be upon him) about 15 hundred years ago. They have their own prescription for the Muslims. It is far away from the Qur’anic prescription. Hence, the Islamic basics like Islamic state, sharia, hudud, pan-Islamic brotherhood, khilafa, shura, jihad against enemy occupation have no place in it. They have no problem with the Saudi mass execution, the Emirati tribal barbarity, the Bangladeshi mockery of democracy by Shaikh Hasina and the brutal tyranny of Egypt’s Abul Fatah Sissi. They appreciate their Islam as true and moderate Islam. By any decent standard, these are not any innocent act; rather, highly heinous crime against Prophet’s Islam, the innocent Muslims and the humanity.

Because of the hostile policy of the imperialists and their servile cronies, there exists not even a single space on earth for full practice of true Islam –as was practised in Islam’s golden age! Thus, the Muslims are prohibited to be a full Muslim. Hostility towards Islam and the Muslims must have a limit. One must not forget that 1.6 billion Muslims are not a collection of dead bodies. They have souls, emotion, faith and intellect. They also share the same globe with others. The ongoing crimes against Islam and the Muslims are explosive enough to boil up their blood. The boiled-up blood can turn them to live bombs. And it is not unusual that the bombs fail to differentiate the innocents from the criminals. Islam doesn’t allow suicide; but doesn’t prohibit to be a war appliance. So, it seems, the planet is turning rapidly to be an unsafe place for everyone. 01.05.2019