বাংলাদেশে গণহত্যা এবং যে দায়ভার ঈমানদারের

image_pdfimage_print

বধ্যভূমি বাংলাদেশ

হেফাজতে ইসলামের মুসল্লিদের রক্তের স্রোতে মতিঝিলের পিচঢালা কালো রাস্তা লালে লাল হয়েছে। ২০১৩ সালের ৫ই মে’র দিবাগত রাতে হেফাজতে ইসলামের লক্ষাধিক কর্মী যখন খোলা রাস্তায় বসে শান্তিপূর্ণ ভাবে ধর্না ছিল, কেউ বা জিকর করছিল, কেউ বা ঘুমিয়েছিল তখন রাত ২-৩০ মিনিটের দিকে হঠাৎ রাস্তায় বিদ্যুতের বাতি বন্ধ করে দেয়া হয়। সে ঘন আঁধারে বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশের হাজার হাজার সদস্য হায়েনার ন্যায় ঝাঁপিয়ে পড়ে হেফাজত কর্মীদের উপর। বৃষ্টির ন্যায় অবিরাম গুলি বর্ষণ ও গ্রেনেড নিক্ষেপে কেঁপে উঠে সমগ্র ঢাকা। যেন দেশের উপর শত্রু বাহিনীর সামরিক অভিযান চলছে। গুলির সাথে তাদেরকে লাঠি দিয়েও পেটানো হয়।“দৈনিক আমার দেশ” এর রিপোর্টঃ “রাত তখন প্রায় আড়াইটা।মতিঝিলের শাপলা চত্বরে আগত মুসল্লিদের অনেকেই ক্লান্ত শরীর নিয়ে তখন ঘুমিয়ে পড়েছেন।অসংখ্য মুসল্লি তখনও জিকিরে মশগুল। এ অবস্থায় মাইকে ভেসে আসে একটি ঘোষণা-আপনারা সরে যান।এখন আমরা শাপলা চত্বর খালি করার জন্য যা যা করা দরকার তাই করব। তাতে স্বভাবতই রাজি হয়নি আল্লাহর পথে নিবেদিতপ্রাণ মুসল্লিরা।এরপর আর কথা বাড়ায়নি সরকারের নিরাপত্তা বাহিনী।অন্তত ১০ হাজার পুলিশ,র‌্যাব,বিজিবি ও অন্যান্য সংস্থার সদস্যরা ত্রিমুখী হামলা শুরু করে।ব্রাশফায়ারের মুহুর্মুহু গুলি, গ্রেনেড,টিয়ারশেল আর সাউন্ড গ্রেনেড নিয়ে নিরস্ত্র মুসল্লিদের ওপর হামলা চালায় তারা।মুসল্লিদের দিকে গুলি আসতে থাকে বৃষ্টির মতো। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই শাপলা চত্বরে ঘটে ইতিহাসের বর্বরতম হত্যাযজ্ঞ।কেউ কেউ ঘুমের মধ্যেই চলে যান চিরঘুমের দেশে।অনেকে আবার কিছু বুঝে উঠার আগেই ঢলে পড়েন মৃত্যুর কোলে।-(আমার দেশ ৭/০৫/১৩)।

এমন নৃশংস বর্বরতা পাকিস্তানে আমলে ঘটেনি। ব্রিটিশ আমলেও ঘটেনি। কিন্তু ঘটলো বাংলাদেশ আমলে। মতিঝিল, দৈনিক বাংলার মোড়, ফকিরাপুর, ইত্তেফাক মোড়সহ আশেপাশের এলাকা হয়েছে রক্তে প্লাবিত। কতজন শহীদ হয়েছে সে সঠিক হিসাব এখনও পাওয়া যায়নি। যখন সে হত্যাকান্ড ঘটে সেখানে কোন সাংবাদিককে থাকতে দেয়া হয়নি। বলা হচ্ছে, সকাল হওয়ার আগেই রাতের আঁধারে সরকার অসংখ্য লাশ গোপন করেছে। বিভিন্ন সামাজিক গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে গতকাল এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন জানায়,নিহতের সংখ্যা আড়াই হাজারের বেশি হতে পারে।হেফাজতের ইসলামের হিসাবে নিহতের সংখ্যা দুই হাজারের বেশি হবে।বিরোধী দল বিএনপি বলছে,শাপলা চত্বরে সহস্রাধিক লোককে হত্যা করেছে নিরাপত্তা বাহিনী।এ গণহত্যা ১৯৭১ এর ২৫ মার্চের কালোরাতের চেয়ে ভয়াবহ ও জঘন্য বলে মন্তব্য দলটির। বাংলাদেশের একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের একজন রিপোর্টার দাবি করেছেন, তিনি পাঁচটি ট্রাকে করে লাশ নিতে দেখেছেন। লাইভ রিপোর্টিংয়ের তার সেই তথ্য প্রচার করা হলেও পরে আর সেই খবর প্রচার করেনি চ্যানেলটি।অভিযান শুরু করে পুলিশ র‌্যাব ও বিজিবির যৌথবাহিনী।গুলি,টিয়ার শেল ও সাউন্ড গ্রেনেডের আওয়াজে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে মতিঝিল ও এর আশপাশের এলাকা।এ সময় হেফাজতে ইসলামের সদস্যরা আশপাশের বিভিন্ন অলিগলিতে আশ্রয় নেয়।একপর্যায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ওই সব অলিগলিতেও হানা দেন। যুদ্ধসাজে সজ্জিত যৌথ বাহিনী এরপর অভিযান চালায় গলিগুলোতেও। সেখান থেকেও পিটিয়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়।এর পরও চলতে থাকে পুলিশের তাণ্ডব। গুলি করতে করতে হেফাজতকর্মীদের ধাওয়া করতে থাকে তারা।এ সময় অনেককে পিটিয়ে আহত করা হয়। তাদের রক্তে বিভিন্ন স্থানে সৃষ্টি হয়েছে তাজা রক্তের ফোয়ারা।-(আমার দেশ ৭/০৫/১৩)।ব্রিটিশ সরকার নিষ্ঠুরতায় ইতিহাস গড়েছিল পাঞ্জাবের জালিয়ানাবাগে। সেখানে নিরস্ত্র জনসভার উপর সেনাবাহিনী গুলি চালিয়েছিল। তবে সেখানে লাশ গোপন করা হয়নি।রাতের আঁধারেও হয়নি। মতিঝিলে যা ঘটেছে তা জালিয়ানাবাগের চেয়েও নিষ্ঠুর।

 

আসল রূপে আওয়ামী লীগ

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলেই নৃশংস বর্বরতার রেকর্ড নির্মিত হয়। আওয়ামী লীগের এটিই আসল রূপ। মুজিব রেকর্ড গড়েছিল গণতন্ত্র হত্যায় এবং সে সাথে তিরিশ-চল্লিশ হাজার বিরোধী দলীয় কর্মী হত্যায়। দলীয় ক্যাডারদের লুটতরাজের মধ্য দিয়ে দেশকে মুজিব তলাহীন ভিক্ষার ঝুলিতে পরিণত করে।ডেকে আনে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ।অসংখ্য নতুন রেকর্ড নির্মিত হলো হাসিনার আমলেও। সেটি যেমন পিলখানায়,তেমনি সাভারের রানা প্লাজা ধসে, তেমনি মতিঝিলে। মতিঝিলে রক্ত ধোয়ার জন্য সূর্য্য উঠার আগেই মিউনিসিপালিটির পানিবাহি ট্যাংকার আনা হয় এবং রাস্তায় প্রচুর পানি ঢালা হয়।লক্ষ্য,খুনের আলামত তাড়াতাড়ি মুছে ফেলা।কথা হলো, পানি ঢেলে এভাবে রাস্তার খুন মুছতে পারলেও কোটি কোটি মানুষের স্মৃতিতে বীভৎস বর্বরতার যেরস্মৃতি রয়ে গেল সেটি কি শত শত বছরেও বিলুপ্ত হবে? সরকার নাস্তিক ব্লগারদেরকে মাসের পর ব্যস্ত শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয়ার সুযোগ দিয়েছে,বিরিয়ানী খাইয়েছে এবং পুলিশ দিয়ে তাদেরকে প্রটেকশনও দিয়েছে। অথচ দেশের আলেম-উলামাদের সে সুযোগ একটি দিনের জন্যও দিল না। হাসিনা সরকারের কাছে ইসলামপন্থিরা যে কতটা অসহ্য,তাদের বিরুদ্ধে এ সরকার যে কতটা নিষ্ঠুর ও আগ্রাসী -এ হলো তার প্রমাণ।

 

কোরআনে আগুন ও আওয়ামী মিথ্যাচার

কোন ঈমানদার ব্যক্তি কি কোরআনে আগুন দেয়? পুড়িয়ে ছাই করে কি ইসলামি বইয়ের মার্কেট? এমন কান্ড কি কোন মুসলিম দেশে ভাবা যায়? এমন ঘটনা কি কোন দিন পাকিস্তান আমলে হয়েছিল না ব্রিটিশ আমলে? বাগদাদে এমন বর্বর কান্ডটি ঘটেছিল বর্বর হালালু খাঁর দস্যু বাহিনীর হাতে।তখন লক্ষ লক্ষ বই পুড়িয়ে ছাই করেছিল হালাকু বাহিনী।শেখ হাসিনার সরকার সে অসভ্যতাই নামিয়ে এনেছে বাংলাদেশে।গত ৫/৫/১৩ তারিখে তো সেটিই হলো।তাদের কাছে কোরআনের তাফসির মহফিল করা অপরাধ,সে অপরাধে ফাঁসীর হুকুম শুনানো হয়েছে দেশের বিখ্যাত তাফসিরকারক মাওলানা সাঈদীকে।আজও  কোথায় তাফসিরের মহফিল বসালো র‌্যাব ও পুলিশ ধেয়ে আসে। শেখ হাসিনা ও তার দল কোরআন-হাদীসের জ্ঞানচর্চায় প্রচণ্ড ভয় পায়।তবে তাদের সে ভয়ের কারণও রয়েছে।তারা জানে,একমাত্র কোরআন-হাদীসের জ্ঞানই মানব মন থেকে আল্লাহর বিরুদ্ধে বিদ্রোহের ধারণা বিলুপ্ত করে দেয়। অথচ তাদের রাজনীতিই মূল ভিত্তিই হলো আল্লাহর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ।সে বিদ্রোহী চেতনা নিয়েই তারা শরিয়তের প্রতিষ্ঠা রুখতে চায়। তখন আসে আসে সেক্যুলারিজমের নামে ইসলাম-বিরোধীতা।আসে অশ্লিলতা,আসে মুর্তিগড়া।আসে মঙ্গলপ্রদীপের সংস্কৃতি।অথচ কোরআনের তাফসির হলে এসবের চর্চা অসম্ভব হয়ে পড়ে। তখন বাড়ে জিহাদী চেতনা।এবং শুরু হয় লড়াই। এজন্যই সরকারের বহুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের বহুনেতার অভিযোগ,মাদ্রাসা থেকে জিহাদী সৃষ্টি হয়।তাদের কেউ কেউ বলছেন,“ধর্ম আফিমের নেশা”। এজন্যই সরকার সুপরিকল্পিত ভাবে দেশের কোমলমতি যুবক-যুবতিদের কোরআন-হাদীসের শিক্ষা থেকে সরিয়ে নাচগানের দিকে নিতে চায়।শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চের আকর্ষন বাড়াতে সরকার এ জন্যই যেমন সেখানে দিবারাত্র পুলিশী প্রহরা দিয়েছে এবং বিরিয়ানির খাওয়ানোর ব্যবস্থা করেছে।স্কুলের কচি শিশুদের পাঠিয়েছে মাথায় “ফাঁসি চাই”য়ের স্লোগান লেখা পটি বেঁধে।অপরদিকে সরকার কড়া নজর রাখছে,মসজিদে জুম্মার খোতবায় যাতে জিহাদ বিষয়ক বক্তব্য রাখা না হয়।তাই বাংলাদেশে ইসলামভীতি শুধু কাফেররদের নয়,বরং আওয়ামী লীগারদেরও। সে ভয় নিয়েই বায়তুল মোকাররমের ন্যায় দেশের বড় বড় মসজিদগুলোতে সরকার সমর্থক ইমাম বসানো হয়েছে। সে সাথে সরকার র‌্যাব ও পুলিশ নামিয়েছে শহর ও গ্রামেগঞ্জের ঘরে ঘরে জিহাদ বিষয়ক বই বাজেয়াপ্ত করার কাজে। কিন্তু তাতেও মনের সাধ মেটেনি। অবশেষে আগুন দিয়েছে বায়তুল মোকাররমের দক্ষিন গেটে অবস্থিত ইসলামী বইয়ের সবচেয়ে বড় বাজারটিতে।হাজার হাজার কোরআন-হাদীস ও ইসলামী বই সেখানে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এভাবে কমানো হলো দেশে ইসলামি বইয়ের সরবরাহ। ইসলামের শত্রু দুর্বৃত্তদের তাই এতে আনন্দই বাড়লো।

খুনি-সন্ত্রাসীরা সব সময়ই নিজেদের ঘৃণ্য অপরাধ জায়েজ করতে অবিরাম বাহানা তালাশ করে। শেখ মুজিব যখন গণতন্ত্র হত্যা করে বাকশাল কায়েম করেছিল এবং হত্যা করেছিল ৩০-৪০ হাজার বিরোধী দলীয় রাজনৈতীক কর্মী তখনও একটি বাহানা খাড়া করেছিল। তেমনি একাত্তরে যুদ্ধ চাপিয়ে দেয়ার জন্যও বাহানা খাড়া করেছিল। তাদের লক্ষ্য একটাই,সেটি যে কোন ভাবে ক্ষমতায় যাওয়া এবং ক্ষমতায় টিকে থাকা। সে লক্ষ্য পুরণে সকল প্রকার যুদ্ধ-বিগ্রহ,খুণ,নিষ্ঠুরতা,মিথ্যা ও জালিয়াতিকে তারা জায়েজ মনে করে। এমনকি চিহ্নিত শত্রুর সাথে তারা জোট বাঁধতেও রাজী। সেজন্যই একাত্তরে একটি রক্তাক্ষয়ী যুদ্ধকে ভারতের সাহায্য নিয়ে তারা অনিবার্য করে তুলেছিল। তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রথা বিলুপ্ত করার পিছনেও কারণ এটি। এবং সে অভিন্ন লক্ষ্য পুরণেই তারা রাতের আঁধারে ৫ই মে হেফাজতের নিরীহ কর্মীদের উপর নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে। এবং সে রাতের গণহত্যার পর দোষ ঢাকার জন্য বাহানা সৃষ্টি করে চলেছে। বলছে,বায়তুল মোকাররমে কোরআন হাদীসের দোকানে আগুন দিয়েছে হেফাজতে ইসলামের মুসল্লিরা। সরকারি দলের পত্রপত্রিকা ও টিভিতে লাগাতর প্রচারণা চালানো হচ্ছে,বায়তুল মোকাররমে বইয়ের দোকান এবং পল্টনের দোকানপাটে লুটপাট করেছে এবং আগুন লাগিয়েছে হেফাজতে ইসলামের হুজুরেরা। সেসব স্থান পরিদর্শন করতে গিয়ে মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের নেতাগণ টিভি ক্যামেরার সামনে একই অভিযোগ আনছে।

 

মিথ্যা রটনা যেখানে স্ট্রাটেজী

প্রশ্ন হলো,এ বিশাল মিথ্যাটি হয়তো আওয়ামী লীগের মিথ্যাচারি দলীয় দুর্বৃত্তদের সহজেই গেলানো যেতে পারে, হয়তো সমাজের কিছু বুদ্ধিহীন পাগলকেও বিশ্বাস করানো যেতে পারে, কিন্তু কোন বিবেকমান মানুষও কি সেটি বিশ্বাস করবে? বাংলাদেশের জনগণকে কি এতটাই বিবেকহীন যে এ ভিত্তিহীন অপপ্রচারকে তারা গ্রহণ করবে? এটি সত্য যে,এমন বিবেকহীন ব্যক্তি আওয়ামী লীগে অসংখ্য। তাদের বিপুল উপস্থিতি এমন কি হাসিনার সরকারের মন্ত্রী পর্যায়েও। সাভারে রানা প্লাজা ধসে যাওয়ার পর এরাই বলেছিল,“রানা প্লাজার পিলার ধরে মৌলবাদীরা ধাক্কা দেয়ার কারণে ভবনটি ধসার ঘটনাটি ঘটতে পারে।” সে কথাটি বলেছিল খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ নিরেট মিথ্যা কথাটি বলেছিল একটি স্ট্রাটেজীর অংশ রূপে। লক্ষ্য ছিল,তাদের সকল কুকর্মের দায়ভার বিরোধীদের ঘাড়ে চাপানো। ভবিষ্যতে সে লক্ষ্যপূরণে তারা যে আরো বহু মিথা বলবে তাতে কি সামান্যতম সন্দেহ আছে? সে অভিন্ন লক্ষ্য নিয়েই তারা একথাও বলছে,মতিঝিলের রাস্তার গাছগুলোও কেটেছে হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা।যেন দা-কুড়াল ও করাত নিয়ে তারা রাস্তায় নেমেছিল।অথচ তাদের মগজে এ প্রশ্নের একবারও উদয় হলো না যে,হেফাজতে ইসলামের যে আলেমগণ সারাটা জীবন ব্যয় করেছে কোরআন-হাদীসের জ্ঞান শিক্ষা ও শেখানোর কাজে,তারা কি অবশেষে কোরআন-হাদীসে আগুণ দিবে? তারা কাটবে রাস্তার গাছ? এবং লুট করবে দোকান-পাট?

প্রত্যেকটি অপরাধেরই সুস্পষ্ট মটিভ বা উদ্দেশ্য থাকে।মটিভ ছাড়া কেউ কখনো সামান্যতম মেধা বা শ্রমের বিনিয়োগ করেনা। কাউকে যেমন ক্ষতি করেনা তেমনি কোথাও আগুনও দেয়না। প্রশ্ন হলো,কোরআন-হাদীসের দোকানে আগুন দেয়ার পিছনে হেফাজতে ইসলামের আলেমদের কি মটিভ থাকতে পারে? তা থেকে তাঁদের অর্জনটা কি? তাঁরা তো নেমেছে আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার কাজে।তাদের কাছে এটি রাজনীতি নয়,বরং জিহাদ। পবিত্র জিহাদে তো তারা পবিত্র কাজগুলোই করবে। তাদের কেউ কেউ রাস্তায় নেমেছিলেন কাফনের কাপড় পড়ে। অনেকেই এসেছিলেন ঘর থেকে চিরবিদায় নিয়ে। ফলে কোরআন-হাদীসে আগুন দিলে কি মহান আল্লাহর কাছে তাদের গ্রহনযোগ্যতা বাড়তো? তারা তো রাস্তায় নেমেছে জনগণকে সাথে নিয়ে।এমন কুকর্মে কি জনগণের কাছেও তাদের গ্রহনযোগ্যতা বাড়তো? হেফাজতে ইসলামের লড়াই তো নাস্তিক এবং নাস্তিকদের পৃষ্ঠপোষক হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে। তাদের শত্রুতা কোন কালেই ইসলামি বইয়ের দোকানদারদের বিরুদ্ধে ছিল না। ফলে বইয়ের দোকানে তারা আগুন দিবে কেন? বরং তারা তো চাইবে বাংলাদেশের আনাচ কানাচে আরো বেশী বেশী কোরআন-হাদীসের দোকান ঘড়ে উঠুক এবং বেশী বেশী মানুষ জ্ঞানচর্চা করুক। এসব দোকানে আগুন দেয়ার কাজে মটিভ থাকবে তো তাদের,যারা বাংলাদেশ থেকে ইসলামের প্রভাব কমাতে চায়।চায়,ইসলামপন্থিদের গায়ে কুৎসিত কালিমা লেপন করতে। ইরানে বিপ্লবের শুরুতে বিপ্লব ঠেকাতে শাহের গুপ্তচর বাহিনী আবাদানের সিনেমা হলে আগুন দিয়ে বহু মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করেছিল। চরিত্রহননের লক্ষ্যে দোষ চাপিয়েছিল আয়াতুল্লাহ খোমেনীর অনুসারিদের উপর। দেশে দেশে শয়তানি শক্তির এটিই সনাতন কৌশল। আওয়ামী লীগের সে কৌশল ও মিথ্যাচার এখানেও অস্পষ্ট? মিথ্যার প্রতি যে প্রচন্ড আসক্তি নিয়ে আওয়ামী লীগ মন্ত্রী খ. ম. আলমগীর সাভারে ভবন ধসের দায়ভার চাপিয়েছিল ইসলামি মৌলবাদীদের উপর,এবা সে অভিন্ন মিথ্যাচার নিয়েই কোরআন হাদীসে আগুন ও রাস্তায় গাছ কাটার দোষ চাপিয়েছে হেফাজতে ইসলামের উপর। ভবিষ্যয়ে এরূপ আরো বহু অপবাদই যে ইসলামপন্থিদের উপর চাপানো হবে তাতে কি সামান্যতম সন্দেহ আছে? এমন দুর্বৃত্ত অতীতে নবী-রাসূলদের উপরও নানারূপ মিথ্যা অপবাদ লাগিয়েছে।

 

হেফাজতে ইসলামের বিবৃতি

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম সম্পাদক মাইনুদ্দিন রুহী ও সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী স্বাক্ষরিত লিখিত বিবৃতিতে বলেন,সমাবেশ চলাকালে রোববার দুপুর থেকেই পল্টন,বায়তুল মোকাররম এলাকায় ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের সঙ্গে হেফাজতে ইসলামের কোনো সম্পর্ক নেই। তাদের অভিযোগ,গণহত্যার পরিবেশ সৃষ্টিতে পরিকল্পিতভাবেই এসব ধ্বংসযজ্ঞ চালানো হয়।তারা বলেছেন,রোববার (৫/৫/১৩) দুপুরের পর থেকে গুলিস্তান,নয়াপল্টন,বায়তুল মোকররম উত্তর গেট, বিজয়নগরসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ছাত্রলীগ,যুবলীগ ও পুলিশের সম্মিলিত আক্রমণে এবং তাদেরই উসকানিতে যে জ্বালাও-পোড়াও ও হত্যাযজ্ঞ চলেছে তার দায়-দায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে।হেফাজতে ইসলাম বারবার প্রমাণ করেছে,তারা শান্তিপূর্ণ, জ্বালাও-পোড়াও ও অগ্নিসংযোগে তারা বিশ্বাস করে না। কিন্তু বায়তুল মোকাররম এলাকার আশপাশে জ্বালাও-পোড়াওয়ের যে তাণ্ডব হয়েছে তা ছিল সরকার দলীয় ছাত্রলীগ,যুবলীগের সশস্ত্র ক্যাডারদের পূর্বকল্পিত হত্যাযজ্ঞ ও লুটপাট। তারা স্বর্ণের দোকানে লুটপাট করেছে,বইয়ের দোকানে আগুন দিয়েছে,পবিত্র কোরআন শরীফ জ্বালিয়ে দিয়েছে,গাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে।পুলিশের নির্লজ্জ সহযোগিতায় রাজধানীর মধ্যাঞ্চলকে নরকে পরিণত করেছে। কিন্তু সরকারি সংবাদমাধ্যম ও মিডিয়ার মাধ্যমে হেফাজতকর্মীদের ঘাড়ে দোষ চাপানোর চেষ্টা করছে।

নেতারা বলেন,দফায় দফায় হামলা,গুলিবর্ষণ ও গণহত্যা চালানোর পরও মধ্যরাতে যখন হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা শান্তিপূর্ণভাবে শাপলা চত্বরে অবস্থান করছিলেন,কেউ জিকির করছিলেন, কেউ নামাজ পড়ছিলেন,কেউ সামান্য সময়ের জন্য ঘুমন্ত ছিলেন,এই সময় সরকারের পুলিশ,বিজিবি ও র‌্যাব যে সাঁড়াশি আক্রমণ চালিয়েছে,হাজার হাজার শান্তিপূর্ণ মানুষকে শহীদ করেছে,২০ সহস্রাধিক মানুষকে পঙ্গু করেছে,তা ইতিহাসে কালো অধ্যায় হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে। তদুপরি এই হাজার হাজার শহীদের লাশকে পিকআপ,অ্যাম্বুলেন্স,ট্রাকে করে গুম করা হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা অভিযোগ করেছেন।এই পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানোর ভাষা আমাদের নেই। তবে মনে রাখতে হবে,জুলুম নির্যাতন করে,নিরীহ মানুষকে হত্যা করে কেউ অতীতে পার পায়নি,এখনও পাবে না।নেতারা বলেন,আমরা অত্যন্ত উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি,গতকাল ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে কওমি মাদরাসা ও ইসলামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সরকারি পুলিশ বাহিনী হামলা চালিয়ে হত্যাকাণ্ড ঘটাচ্ছে।সরকারদলীয় সশস্ত্র ক্যাডাররা রাস্তায় রাস্তায় নিরীহ জনগণের ওপর হামলা চালাচ্ছে,তাদের প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে,পঙ্গু করে দিচ্ছে।কোথাও কোথাও দূরপাল্লার গাড়ি থেকে দাড়ি টুপিওয়ালাদের নামিয়ে শত শত মানুষের সামনে নির্যাতন চালাচ্ছে। ৬ই মে কালো রাতের বর্বরতা উল্লেখ করে তারা বলেন,সরকার নজিরবিহীনভাবে বিদ্যুত্সংযোগ ও মোবাইল নেটওয়ার্ক বন্ধ করে দিয়ে পুলিশ, বিজিবি র‌্যাব আচমকা সমাবেশস্থলে ব্রাশ ফায়ার শুরু করে। কয়েক ঘণ্টা ধরে চলা সেই ব্যাপক হত্যাযজ্ঞে কমপক্ষে দুই সহস্রাধিক নেতাকর্মী শাহাদাত বরণ করেছেন।অনেক লাশ গুম করা হয়েছে। ভোরের আলো ফোটার আগেই সিটি করপোরেশনের ময়লা বহনের গাড়িতে করে বিপুলসংখ্যক লাশ সরিয়ে ফেলা হয়েছে। বহু নেতাকর্মী এখনও নিখোঁজ রয়েছে বলে দাবি করেছে সংগঠনটি। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আহত ও নিহতের চূড়ান্ত পরিসংখ্যান এখনও নিরূপণ করা সম্ভব হয়নি বলেও জানানো হয় বিবৃতিতে।

 

সরকারি বাহিনীর সন্ত্রাস ও গণপ্রতিরোধ

ঢাকার নৃশংস গণহত্যার পরও সরকারি বাহিনীর সন্ত্রাস থেমে যায়নি। র‌্যাব,পুলিশ এবং বিজিবি হানা দিয়েছে মফস্বলের বিভিন্ন মাদ্রাসায়।প্রতিরোধ গড়ে তুলছে জনগণও।৬ই মে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের কাঁচপুর,সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড় ও শিমরাইল,চট্টগ্রামের হাটহাজারী এবং বাগেরহাটে র‌্যাব,পুলিশ এবং বিজিবির সঙ্গে হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের সংঘর্ষে পুলিশ ও বিজিবি সদস্যসহ অন্তত ২৮ জন নিহত হয়েছেন।এর মধ্যে না.গঞ্জে ১৯ জন হাটহাজারীতে ৭ ও বাগেরহাটে ২ জন নিহত হয়েছে। এসব ঘটনায় আহত হয়েছেন আড়াই শতাধিক। নারায়ণগঞ্জে নিহতদের মধ্যে দুজন পুলিশ ও তিনজন বিজিবি সদস্য রয়েছে। তবে নিহতের সংখ্যা আরও বেশি হবে বলে দাবি করছেন হেফাজতে ইসলাম ও স্থানীয়রা। আহত হয়েছেন সাংবাদিক, পুলিশ, বিজিবি ও পথচারীসহ দুই শতাধিক। এরমধ্যে অর্ধশতাধিক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। সোমবার সকাল থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত দফায় দফায় সংঘর্ষে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষ চলাকালে প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

 

মিডিয়া তালাবদ্ধ এবং শফিক রেহমানের বাসায় হামলা

খুনিরা কখনই খুনের কাজটি দিবালোকে করেনা। সবার চোখের সামনেও করে না। আওয়ামী লীগও ৫ই মে’র খুনের কাজটি দিবাভাগে করেনি। করেছে রাতে। এবং রাস্তার আলো নিভিয়ে।সে রাতে কি ঘটেছে সে খবর গোপন করতে সেখানে কোন মিডিয়া কর্মীকে থাকতে দেয়নি। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে প্রাপ্ত খবরগুলো যাতে জনসম্মুখে পৌছতে না পারে সে জন্য সরকার বন্ধ করে দিয়েছে বেসরকারি টিভি চ্যানেল দিগন্ত টিভি ও ইসলাম টিভি। ফলে সরকারের গুণকীর্তনকারি টিভি স্টেশনগুলো ছাড়া বাংলাদেশে এখন আর কোন টিভি চ্যানেলই নেই। এ টিভি চ্যানেলগুলোর কাজ হয়েছে সরকারের নৃশংস বর্বরতাকে প্রশংসনীয় কর্ম রূপে প্রচার করা। আসল ঘটনা যাতে প্রচার না পায় সে জন্য আগেই বন্ধ করেছে “দৈনিক আমার দেশ”। কারাবন্দী করেছে আমার দেশের সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে। সম্প্রতি আওয়ামী গুন্ডারা হামলা করেছে সাহসী লেখক শফিক রেহমানের বাড়ীতে। শফিক রহমান থানায় খবর দিয়েও কোন সাহায্য পাননি। বাংলাদেশ এভাবে প্রবেশ করেছে এক যুদ্ধ অবস্থায়। সমগ্র দেশ পরিণত হয়েছে একটি জেল খানায়। বাংলাদেশ এখন ভারত ও তার সেবাদাসদের অধিকৃত ভূমি। রহিত হয়ে গেছে সকল দেশপ্রেমিকদের সকল মৌলিক মানবিক অধিকার। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় যাওয়ায় অতীতেও এমনটি হয়েছে। একাত্তরে তারা রক্তাক্ষয়ী যুদ্ধ নিয়ে এসেছে। চুয়াত্তরে বাকশালী স্বৈরাচার এনেছে। এসেছে হত্যা­ ও গুমের রাজত্ব।মুজিব তার রক্ষিবাহিনী দিয়ে যেভাবে তিরিশ-চল্লিশ হাজার মানুষকে হত্যা করেছিলেন,হাসিনাও সে পথটি ধরেছে। হাসিনার ক্ষমতায় আসার পর তাই সংঘটিত হলো পিলখানা হত্যাকান্ড। আগুন লাগলো তাজনীন গার্মেন্টসে এবং সেখানে পুড়ে কয়লা হলো শতাধিক শ্রমিক। সম্প্রতি ধসে গেল রানা প্লাজা। এ ভবন ধসে ৬ শতাধিক লাশ উদ্ধার হলেও শ্রমিকগণ বলছেন,চাপা পড়ে চিরতরে হারিয়ে গেছে সহস্রাধিক মানুষ। আর এখন লাগাতর রক্ত ঝরছে শুধু মতিঝিলে নয়, সমগ্র বাংলাদেশ জুড়ে।এই হলো হাসিনার শাসনামল। হাসিনা ভাবছেন,এভাবে গায়ের জোরেই তিনি ক্ষমতায় থাকবে। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ কি এত খুন এত অত্যাচার নীরবে মেনে নিবে? ইতিমধ্যেই আওয়াজ উঠেছে,“খুন হয়েছে আমার ভাই, সব খুনিদের ফাঁসি চাই”।

 

কবিরা গুনাহর রাজনীতি

আজ থেকে প্রায় শতবছর আগে মাওলানা আবুল কালাম আজাদ লিখেছিলেন,“বলকান যুদ্ধে কোন তুর্কি সৈনিকের পায়ে যদি কাঁটা বিদ্ধ হয় আর সে কাঁটার ব্যাথা যদি তুমি হৃদয়ে অনুভব না কর তবে খোদার কসম তুমি মুসলমান নও”।মুসলমান হওয়ার অর্থই হলো আরেক মুসলমানের ব্যাথার সাথে একাত্ম হওয়া এবং সে ব্যাথা হৃদয়ে অনুভব করা। কে কত বড় ঈমানদার সেটি তার দাড়ি-টুটি বা লম্বা জুব্বা দেখে বুঝা যায় না। সেটি বুঝা যায় তার মুসলিম ভাইয়ের ব্যাথায় ব্যাথীত হওয়া দেখে। মাওলানা আবুল কালাম আযাদ যখন এ কথাটি লিখেছিলেন তখন ইসলামের শত্রুরা খেলাফত ধ্বংসের লক্ষ্যে মুসলমানদের ভূগোলে হাত দিয়েছিল। ইউরোপের বলকান এলাকায় কাফেরদের পক্ষ থেকে পরিচালিত হচ্ছিল সে বিচ্ছিন্নতার যুদ্ধ। মুসলিম ভূমির ভূগোল বাঁচানোর লড়াই ইসলামে জিহাদ। সে জিহাদ লড়ছিল তুর্কি সৈনিকেরা। ভারতের মুসলমানগণ তখন উসমানিয়া খেলাফতের পক্ষ নিয়েছিল। কারণ, তাদের সাথে একাত্ম হওয়াটাই ছিল ঈমানদারি। যেখানে ঈমান আছে সেখানে সে সহমর্মিতা থাকবেই।

একমাত্র কাফেরগণই মুসলমানের ব্যাথা বেদনায় আনন্দ পেতে পারে। মুসলমানের ব্যাথা-বেদনা তাদের কাছে উৎসবের কারণ হয়। ঢাকার মতিঝিলে যে হত্যাকান্ড হয়ে গেল তাতে কি কোন মুসলমান ব্যাথীত না হয়ে পারে? অথচ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আজ হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের নিহত ও আহত হওয়ায় এবং ঢাকা থেকে তাদের সরাতে পারায় এখন আনন্দে ডুগডুগি বাজাচ্ছে। সেটি বোঝা যায় তাদের পত্র-পত্রিকা পড়লে। অনেক আওয়ামী লীগ কর্মী তাদের ব্লগে লিখেছে,“হেফাজতের কর্মীদের হত্যা করে সরকার ভালই করেছে। তারা পশু। হত্যাই তাদের পাওনা।” আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ঈমানহীনতা এবং সে সাথে বিবেকহীনতা যে কতটা প্রকট -এহলো তার নমুনা। আল্লাহতায়ালা ও তার রাসূলের ইজ্জতকে মহান করতে রাস্তায় নামা কি পশুত্ব? আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের চেতনা যে কতটা খারাপ এ হলো তার নমুনা। সিরাজ সিকদারকে হত্যা করার পর মুজিব যেমন “কোথায় আজ সিরাজ সিকদার?” বলে উল্লাস করেছিল তেমনি মতিঝিলের শত শত মুসল্লি হত্যার পর উল্লাস শুরু হয়েছে আওয়াম লীগের নেতাকর্মীদের মাঝে।

আওয়ামী লীগের রাজনীতি বড় নাশকতা এই নয় যে,তারা অগণিত মানুষ হত্যা করেছে,বা দেশকে দূর্নীতিতে ডুবিয়েছে বা বিশ্বের সর্ববৃহৎ মুসলিম রাষ্ট্র পাকিস্তান ভেঙ্গে ভারতের মুখ উজ্বল করেছে। বরং আওয়ামী রাজনীতির সবচেয়ে বড় নাশকতাটি সংঘটিত হয়েছে জনগণের বিবেক ও চেতনার রাজ্যে। তারা মানুষকে প্রচন্ড ঈমানহীন এবং দুর্বৃত্তও করেছে। তাদের কর্মীগণ তাই উল্লাস ভরে দেশের সম্মানিত আলেম-উলামাদের হত্যা করতে পারে। তাদের ফাঁসীর হুকুমও শুনাতে পারে। হত্যার পর লাশের পর দাঁড়িয়ে উল্লাসও করতে পারে। আবু সুফিয়ানের স্ত্রী হিন্দাও ওহুদের যুদ্ধে মুসলমানদের সেনাপতি ও নবীজী(সাঃ)র চাচা হামজার কলিজা চিবিয়ে এরূপ উল্লাস করেছিল। মুসলমানদের হত্যাকরা যেমন কবিরা গুনাহ,তেমনি সে হত্যায় আনন্দিত হওয়াটাও কবিরা গুনাহ। অথচ আওয়ামী লীগ আজ দেশে সে কবিরাগুনাহর রাজনীতি শুরু করেছে। সেটি শুধু আজ থেকে নয়, একাত্তরের পূর্ব থেকেই। সে গুনাহর রাজনীতিতে তাদের বন্ধু হতে তাই ছুটে আসে ভারতের কাফেরগণই শুধু নয়, বরং বিশ্বের তাবত ইসলামবিরোধীগণও। বাংলাদেশেও ইসলামের সকল শত্রুপক্ষ তাদের নেতৃত্বে একতাবদ্ধ হয়েছে।

 

একমাত্র পথ

রোগ না সারালে দিন দিন তা জটিল আকার ধারণ করে। এক সময় তা চিকিৎসারও অযোগ্য হয়ে পড়ে। তাই বিবেকহীন দুর্বৃত্তদের যে দুঃশাসন বাংলাদেশের মাথার উপর চেপে বসেছে তা না নামালে ঘনিয়ে আসবে অতি ভয়ানক বিপর্যয়। ঘরে আগুন লাগলে যেমন দায়িত্ব বাড়ে সে ঘরের প্রতিটি বাসিন্দার,তেমনি দেশের বিপদে দায়িত্ব বাড়ে প্রতিটি নাগরিকের। দেশ কোন দলের নয়, দেশ সবার। তাই দেশ বাঁচাতেও সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। আর ঈমানদারদের কাছে এ কাজ তো স্রেফ রাজনীতি নয়, পবিত্র জিহাদ। এ জিহাদে মেধা, শ্রম, অর্থ ও রক্তের বিনিয়োগ মহান আল্লাহর দরবারে মহা প্রতিদান দেয়। প্রাণ গেলে তো জান্নাত অনিবার্য করে। শহীদগণ লাভ করবে মৃত্যুহীন প্রাণ। মহান আল্লাহতায়ালা তো সে প্রতিশ্রুতি পবিত্র কোরআনে একবার নয় বহু বার দিয়েছেন। বলেছেন,“যারা আল্লাহর রাস্তায় প্রাণ দেয় তাদেরকে তোমরা মৃত বলো না। তারা তো জীবিত, যদিও তা তোমরা অনুভব করতে পার না।” -সুরা বাকারা। সে সাথে তিনি জিহাদে নামার চুড়ান্ত তাগিদ দিয়েছেন।পবিত্র কোরআনে মহান রাব্বুল আ’লামীন সে নির্দেশটি হলো,“হে মু’মিনগণ! তোমাদের কি হলো যে যখন তোমাদের আল্লাহর রাস্তায় যুদ্ধে বের হওয়ার জন্য বলা হয় তোমরা ভারাক্রান্ত হয়ে ভূতলে ঝুঁকে পড়? তোমরা কি আখিরাতের জীবনে পরিবর্তে পার্থিব জীবনে পরিতুষ্ট হয়েছো? (অথচ) আখেরাতের তুলনায় পার্থিব জীবনের ভোগের উপকরণ তো অকিঞ্চিৎকর।” -(সুরা তাওবাহ,আয়াত ৩৮)।

আরো নির্দেশ দিয়েছেন,“তোমাদের প্রস্তুতি হালকা হোক বা ভারি হোক, তোমরা অভিযানে বের হয়ে পড় এবং লড়াই করো আল্লাহর পথে তোমাদের সম্পদ ও জীবন দিয়ে।ওটাই তোমাদের জন্য শ্রেয় যদি তোমরা জানতে।” -(সুরা তাওবাহ,আয়াত ৩৮)।কোন ঈমানদার ব্যক্তি কি মহান আল্লাহর এ কোরআনী নির্দেশ অমান্য করতে পারে? যার প্রাণে আল্লাহর আনুগত্য আছে, তার জীবনে জিহাদও তাই অনিবার্য হয়ে উঠে। একারণেই সাহাবায়ে কেরামের জীবনে জিহাদ এসেছে লাগাতর।সাহাবাদের সংখ্যা বাংলাদেশের একটি থানার জনসংখ্যার সমানও ছিলনা। কিন্তু সে মুষ্টিমেয় মানুষদের জিহাদের বদৌলতেই বিশাল আরবভূমি থেকে ইসলামের শত্রুদের দখলদারি বিলুপ্ত হয়েছিল। বাংলাদেশের বুক থেকে ইসলামের শত্রুপক্ষের দখলদারি বিলুপ্ত করারও কি এছাড়া ভিন্ন পথ আছে? তাছাড়া যখন ইসলামের শত্রুপক্ষের দ্বারা কোন মুসলিম ভূমি অধিকৃত হয় তখন সে ভূমি কাশ্মীর, ফিলিস্তিন বা সিরিয়ার ন্যায় জিহাদের শতভাগ বিশুদ্ধ ভূমিতে পরিণত হয়। তাই বাংলাদেশ আজ শুধু শত্রুর অধিকৃত বধ্যভূমিই নয়, বরং জিহাদের অতি পূণ্যভূমিও। ০৮/০৫/১৩

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *