লড়াই ও রাষ্ট্রবিপ্লব
ইরাকে জিহাদীদের বিস্ময়কর যুদ্ধজয় ও আতংক সাম্রাজ্যবাদি শিবিরে PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 22 June 2014 21:28

বিস্ময়কর যুদ্ধজয়

রীতিমত ঝড়ের বেগে এগিয়েছে দা্ওলাতে ইসলামিয়া ইরাক ও শাম (ইসলামিক স্টেট অব ইরাক এ্যান্ড সিরিয়া -সংক্ষেপে আইএসআইএস)এর মুজাহিদগণ। তাদের মাত্র ৮০০জন যোদ্ধা ইরাকী সেনাবাহিনীর ৩০ হাজার নিয়মিত সৈন্যকে পরাজিত করে দখল করে নিয়েছে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর মোসল। মোসলে মোজাহিদের যুদ্ধটি ছিল ৩৭ জন ইরাকী সৈন্যের বিরুদ্ধে এক জন মোজাহিদের। কিন্তু সেখানে যুদ্ধ হয়নি। যুদ্ধ না লড়েই সরকারি ইরাকী বাহিনী ভয়ে পালিয়েছে। তারা পলায়ন করেছে সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের জন্মস্থান তিকরিত শহর থেকে। পলায়ন করেছে কিরকুক শহর থেকেও। তবে কিরকুকে মোজাহিদগণ পৌঁছার আগেই সুযোগসন্ধানি কুর্দিরা শহরটি দখল করে নিয়েছে। তেলসমৃদ্ধ কিরকুকের উপর বিচ্ছিন্নবাদি কুর্দিদের বহুদিনের দাবী। তারা শহরটিকে কুর্দিস্থানে রাজধানি বানাতে চায়। এবার সুযোগ বুঝে দখল করে নিল। তবে এর ফলে দা্ওলাতে ইসলামিয়ার সাথে কুর্দিদের যুদ্ধটিও ভয়ানক রূপ নিবে। বর্তমানে যুদ্ধ হচ্ছে বাগদাদ শহর থেকে মাত্র  ৪০ মাইল দূরের বাকুবা শহরের দখল নিয়ে। প্রচন্ড যুদ্ধ শুরু হয়েছে কিরকুকের দখল নিয়ে। যুদ্ধ হচ্ছে স্ট্রাটেজীক শহর তালাওয়ারের চারপাশে। সেখানে রয়েছে বিমান বন্দর। যুদ্ধ চলছে বেয়জী শহরের চারপাশে। মুজাহিদদের দাবি তারা শহরটি দখল করে নিয়েছে। সেখানে অবস্থিত দেশের সর্ববৃহৎ তেলশোধনাগর -ইরাকের শতকরা ৪০ ভাগ তেল আসে এই তেলশোধনাগার থেকে।

Last Updated on Wednesday, 25 June 2014 19:34
Read more...
 
Comments (2)
Apprecite for your writting
2 Thursday, 26 June 2014 17:41
Mohammad Abdul Baqui

Dear Brother, I like your every topics on Islam. If you publish your book in market please tell me I will buy your books.


Thanks & regards. Abdul Baqui, Dhaka

regarding your impressive writting
1 Tuesday, 24 June 2014 06:34
Anwar Hussain Mojumder

Dear Brother in Islam, Assalamu alaikum. Thanks and appreciate for sending me your contineous impressive writting. I do follow your concept and writting style. As a blogger in' http://www.onbangladesh.org/blog/blogdetail/bloglist/1802/probashimojumder' very closely i read your writing. Allah may bless for your deeds for islam. Regards.


Anwar Hussain Mojumder

মিশরে বিপ্লব ও প্রতিবিপ্লবীদের নাশকতা PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 09 December 2012 11:15

গভীর সংকটে মিশর

মিশর আজ এক জটিল রাজনৈতীক সংকটের আবর্তে। দেশ ধাবিত হচ্ছে রক্তাত্ব সংঘাতের পথে। কয়েক দিন আগে কায়রোর রাজপথে সংঘাতে ৭ জনের মৃত্যু ঘটেছে,আহত হয়েছে ৬৪০ জন -(খলিজ টাইমস, ৮/১২/১২)। কোন দেশেই কোন বিপ্লব রাতারাতি যেমন শুরু হয় না,তেমনি শেষও হয় না। এটি হলো আমূল পরিবর্তের এক দীর্ঘ ধারাবাহিকতা। বিপ্লবের প্রসববেদনা সচারাচরই অতি দীর্ঘ। অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেটি রক্তাত্বও। তখন অনিবার্য হয়ে উঠে জানমালের বিপুল কোরবানী। সেটি যেমন ফরাসী বিপ্লবে ঘটেছে,তেমনি রাশিয়ার বলশেভিক বিপ্লবে ঘটেছে। ঘটেছে ইরানের বিপ্লবেও। মিশর সম্ভবতঃ সে পথেই ধাবিত হচ্ছে। রাজপথে মিছিল,তাহরির স্কোয়ারে ধর্ণা,হুসনী মোবারকের পতন,নির্বাচন এবং নির্বাচন শেষে সরকার গঠনকে যারা বিপ্লব ভেবেছিল তাদের এখন আশাভঙ্গ হওয়ার দিন। বিপ্লবের সামনে এখনও বহু পথ বাঁকি। যে কোন বিপ্লবের বিরুদ্ধে বার বার প্রতিবিপ্লবের চেষ্টা শুধু স্বাভাবিকই নয়,বরং সেরূপ না হওয়াটিই অস্বাভাবিক। বিপ্লবীদের এখানেই বিশাল পরীক্ষা। বিপ্লবের এটিই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধাপ। মিশরে সেটি শুরুও হয়ে গেছে। ইরানের বিপ্লবে সে দেশের বহুশ্রেষ্ঠ সন্তানকে প্রাণ হারাতে হয়েছে। আয়াতুল্লাহ মোতাহারী,আয়াতুল্লাহ তালেগানী,আয়াতুল্লাহ বেহেশতীর ন্যায় প্রথম সারির ধর্মীয় নেতাদেরকে প্রতিবিপ্লবীরা হত্যা করেছে।হত্যা করেছে দেশের প্রেসিডেন্ট রেজায়ী ও প্রধানমন্ত্রী বাহানূরকে। বিপ্লবের একবছরের মধ্যে ৮ বছরের এক ভয়ানক যুদ্ধ চাপিয়ে দেয়া হয়েছে তাতে ১০ লাখের বেশী মানুষকে প্রাণ দিতে হয়েছে।

Read more...
 
জামায়াতে নীতি বদলের সুর PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 10 March 2012 11:13

বাদ পড়ছে কি শরিয়তের প্রতিষ্ঠা?

সম্প্রতি জামায়াতে ইসলামীর নেতা জনাব ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাকের একটি প্রবন্ধ গত ৬ই ফেব্রেয়ারি, ২০১২ তারিখে দৈনিক নয়া দিগন্তে ছাপা হয়েছে। উক্ত প্রবন্ধে জনাব আব্দুর রাজ্জাক এমন কিছু কথা লিখেছেন যা জামায়াতের কোন নেতা এর পূর্বে এতটা স্পষ্ট ভাবে পত্রিকায় লেখেননি। ক্যাডার ভিত্তিকে সংগঠনে এমন বক্তব্য দলীয় প্রধান ছাড়া অন্য কেউ দেয় না। তাছাড়া তিনি জামায়াতের কোন অবাধ্য নেতাও নন। হতে পারে তিনি যা লিখেছেন তা শুধু তাঁর নিজের কথা নয়,নেতাদেরও কথা। দলের প্রধান প্রধান নেতাকর্মীরা জেলে থাকায় তাদের পক্ষ হয়ে কথা বলার দায়িত্ব হয়তো তাঁকে দেয়া হয়েছে। তাছাড়া কারারুদ্ধ বড় বড় নেতাদের তিনিই উকিল। নেতাদের উকিল হয় তিনি আদালতে কথা বলছেন। তবে কি এখন নেতাদের পক্ষ থেকে জামায়াত কর্মী এবং জনগণের সামনেও বলা শুরু করেছেন?

Last Updated on Sunday, 11 March 2012 10:22
Read more...
 
Comments (2)
What we have to do now....???
2 Monday, 17 September 2012 09:25
Fahmid Al Farid

Assalamualaikum. In what way we have to do daowah? Is it necessary to join in an Islamic organization to establish Islam? Please tell me the proper way of Islamic movement. Which Islamic organization is better in BD or all over the world? What is your specific advice to us ? Explain with reference.


Reply from Firoz Mahboob Kamal: ওয়ালাইকুম আসসালাম। ধন্যবাদ আপনার ইমেলের জন্য। আপনার প্রশ্নটি গুরুত্বপূর্ণ। আমি এ বিষয়ে বিষদভাবে আলোচনা করেছি "রাষ্ট্র বিপ্লবের রোডম্যাপ" নামক নিবন্ধে। আপনি সেটি আমার ওয়েব সাইটে "লড়াই ও রাষ্ট্র বিপ্লব" বিভাগে পাবেন।

বাদ পড়ছে কি শরিয়তের প্রতিষ্ঠা ?
1 Tuesday, 13 March 2012 18:01
Akmal hossain

খুব্ ভাল লাগল । কিন্তু জামায়াত নেতারা ঘুমিয়ে আছে । এধরনের একটির লেখা পড়ার আপনাকে অনুরোধ করছি । ঠিকানা হল - www.sonarbangladesh.com/blog/abunishat 

সিরিয়ায় জিহাদ এবং বিশাল সম্ভাবনার পথে মুসলিম বিশ্ব PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 15 September 2012 22:20

সিরিয়ার গুরুত্ব ও শত্রুপক্ষের স্ট্রাটেজী

সিরিয়া অতি সমৃদ্ধ তার ঐতিহ্য ও ইতিহাসে। আরবী ভাষায় দেশটি “বালাদে শাম” রূপে পরিচিত। মানব ইতিহাসের প্রধান প্রধান সভ্যতার চুড়ান্ত সংঘাতগুলি হয়েছে সিরিয়ায়। সেটি যেমন ইরানীদের সাথে গ্রীক ও রোমানদের,তেমনি খৃষ্টানদের সাথে মুসলমানদের। সিরিয়ার ভুমিতেই মুসলমানগণ তৎকালীন বিশ্বশক্তি রোমানদের পরাজিত করে প্রধান বিশ্বশক্তি রূপে আবির্ভূত হয়। মুসলিম বীর সালাউদ্দিন আয়ুবী এ ভূমিতেই ইউরোপীয় ক্রসেডার বাহিনীকে পরাজিত করে মুসলমানদের হৃতগৌরব উদ্ধার করেছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকা ঘুরে সমুদ্রপথ আবিস্কারের পূর্ব পর্যন্ত শত শত বছর ধরে ইউরোপ ও এশিয়ার প্রধান প্রধান বাণিজ্য পথগুলো ছিল সিরিয়ার মধ্য দিয়ে। চীন,ইরান,ভারত,ইয়েমেন এবং মধ্য এশিয়ার থেকে বাণিজ্য বহরগুলো সিরিয়ার ভূমধ্যসাগরীয় বন্দরগুলোতে এসে ইউরোপগামী জাহাজে উঠতো। তেমনি ইউরোপীয় পণ্য এ পথ ধরেই এশিয়ার বাজারে ঢুকতো। ইতিহাসে এ বাণিজ্য-পথ সিল্ক রোড রূপে খ্যাত। রোমান সাম্রাজ্যের রাজস্বের বিশাল ভাগ আসতো এ বাণিজ্য বহর থেকে। এখান থেকেই বিপুল অর্থ জমা হতো উসমানিয়া খেলাফতের অর্থভান্ডারে। সমগ্র পশ্চিম এশিয়ায় সিরিয়া ছিল অর্থনৈতীক ভাবে সবচেয়ে সমৃদ্ধ। নবীজী(সাঃ)ও বিবি খাদিজা (রাঃ)র বাণিজ্য বহরনিয়ে সিরিয়াতে এসে বিপুল মুনাফা অর্জন করেছিলেন।

 

Last Updated on Sunday, 23 September 2012 15:47
Read more...
 
মধ্যপ্রাচ্যের বিপ্লবঃ শক্তি ও সম্ভাবনা PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 27 March 2011 18:08

 

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলি এতকাল পরিচিত ছিল তেল, গ্যাস ও অতি নিষ্ঠুর চরিত্রের স্বৈরাচারি শাসকদের কারণে। এখন পরিচিতি পাচ্ছে গণবিপ্লবের দেশরূপে। সমগ্র মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে বইছে বিপ্লবের জোয়ার। এ বিপ্লব কোন সৈনিক, শ্রমিক, সমাজতন্ত্রি বা জাতিয়তাবাদীর বিপ্লব নয়, প্রকৃত অর্থেই এটি জনগণের বিপ্লব। বিশ্ববাসীর নজর এখন এসব দেশের বিপ্লবী জনগণের দিকে। সরকার পতনের দাবী নিয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষ নেমেছে রাস্তায়। সে দাবীর মুখে ইতিমধ্যেই পতন ঘটেছে তিউনিসিয়ার প্রেসিডেন্ট বিন আলী এবং মিশরের প্রেসিডেন্ট হোসনী মোবারকের মত শক্তিধর স্বৈরাচারী শাসকের। পতনের পথে ইয়েমেনের শাসক প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ সালেহ এবং বাহরাইনের রাজা হামাদ আল খলিফা। গণজোয়ার তীব্রতর হচ্ছে সিরিয়ার বশির আল আসাদ এবং সৌদি আরব ও জর্দানের রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধেও। নিরস্ত্র জনগনের লড়াই সশস্ত্র রূপ নিয়েছে লিবিয়ায়। হোসনী মোবারক বা বিন আলীর মত সেদেশের নিষ্ঠুর শাসক মোয়াম্মার গাদ্দাফী বিনা যুদ্ধে গদী ছাড়বার জন্য রাজী নয়। ট্যাংক ও যুদ্ধ-বিমান নিয়ে সে হামলা শুরু করেছে নিরস্ত্র জনগণের উপর।

Read more...
 
Comments (1)
Carry ON
1 Monday, 04 April 2011 14:40
Fahim Feroz

Carry on Brother. Kalom jeno na thame kokhono. May Allah bless you.

<< Start < Prev 1 2 3 Next > End >>

Page 1 of 3
Dr Firoz Mahboob Kamal, Powered by Joomla!; Joomla templates by SG web hosting
Copyright © 2017 Dr Firoz Mahboob Kamal. All Rights Reserved.
Joomla! is Free Software released under the GNU/GPL License.